আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

ইসলাম

ইফতারে থাকুক স্বাস্থ্যকর দুই পদ

 ইফতারে থাকুক স্বাস্থ্যকর দুই পদ
ইফতারে থাকুক স্বাস্থ্যকর দুই পদ

সারাদিন বাড়িতে থাকার দরুন নতুন নতুন রান্না আপনি শিখতেই পারেন। সময় কাটাতে সেসব তৈরি করাও দোষের কিছু নয়। এতদিন নাহয় তাল মিলিয়ে মিষ্টি, মোমো, বিরিয়ানি থেকে শুরু করে ফুচকা- সব তৈরি করেছেন। কিন্তু সেই অভ্যাসে রাশ টানতে হবে আপাতত। কারণটা রমজান।

রোজায় স্বাস্থ্যকর খাবারের অভ্যাস গড়ে না তুললে ভুগতে হবে আপনাকে। অতিরিক্ত তেল মশলার খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।। শরীরের কথাও মাথায় রাখতে হবে। এছাড়াও করোনার কারণে শরীর অসুস্থ হলেও চিকিৎসক-হাসপাতালজনিত সমস্যা থাকবেই। ইফতারে রাখতে পারেন এই দুই স্বাস্থ্যকর পদ-

 ইফতারে থাকুক স্বাস্থ্যকর দুই পদ
ইফতারে থাকুক স্বাস্থ্যকর দুই পদ

ক্যারট জিঞ্জার ডিটক্স

উপকরণ:
গাজরের রস- ৩০০ মিলি
বাসিল-২ গ্রাম
আদা- ৩ গ্রাম
লেবুর রস
লবণ
বরফ।

প্রণালি: বরফ বাদে সবকিছু মিক্সচার গ্রাইন্ডারে ভালো করে মিশিয়ে নিন। এবার গ্লাসে অল্প বরফ দিন। মিশ্রণ ঢেলে খেয়ে নিন। তবে এই মিশ্রণ বেশিক্ষণ ফেলে রাখবেন না।

 ইফতারে থাকুক স্বাস্থ্যকর দুই পদ
ইফতারে থাকুক স্বাস্থ্যকর দুই পদ

ব্রোকলি অ্যান্ড টোস্টড আমন্ড স্যালাড

উপকরণ:
লেটুস
ব্রোকলি
আমন্ড
ফ্লেক্স সিড
মধু
ফ্রেশ ক্রিম
চিলিফ্লেক্স
অরিগ্যানো
লেবুর রস
গোলমরিচ গুঁড়া
অলিভ অয়েল।

প্রণালি: একটি প্যানে আমন্ড রোস্ট করে নিন। এবার ব্রোকলি, লেটুস ছোট করে কেটে নিন। এবার একটা মিক্সিং বোলে সব উপকরণ নিয়ে ভালো করে মিক্স করুন। ফ্রিজে ঠান্ডা করে খান।

ইসলাম

আলোকিত স্থাপনা: হাজিয়া সোফিয়া মসজিদ

হাজিয়া সোফিয়া মসজিদটি তুরস্কের রাজধানী ইস্তাম্বুলের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত। স্থাপনটি তৈরি হয়েছিল মূলত অর্থোডক্স গির্জা হিসেবে। ১২০৪ থেকে ১২৬১ সাল পর্যন্ত ক্যাথলিক গির্জা হিসেবে ব্যবহৃত হত। পঞ্চদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি তুরস্ক মুসলিম সাম্রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর স্থাপনাটিকে মসজিদে রূপান্তর করা হয় ১৯৩৫ সালে আধুনিক তুরস্কের স্থপতি ও স্বাধীন তুরস্কের প্রথম রাষ্ট্রপতি মুস্তফা কামাল আতার্তুক স্থাপনাটি যাদুঘরে রূপান্তর করেন।

আলোকিত স্থাপনা হাজিয়া সোফিয়া মসজিদ
আলোকিত স্থাপনা হাজিয়া সোফিয়া মসজিদ

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

আলোকিত স্থাপনা: শেখ জায়েদ গ্র্যান্ড মসজিদ

শেখ জায়েদ গ্র্যান্ড মসজিদ সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাজধানী আবুধাবিতে অবস্থিত। সংযুক্ত আরব আমিরাতের সবচেয়ে বড় মসজিদ। মসজিদটির নামকরণ করা হয়েছে আরব আমিরাত এর প্রয়াত রাষ্ট্র প্রধান শেখ জায়েদ বিন সুলতান আল নাইয়ানের নামানুসারে। মসজিদটিতে ছোট-বড় ৮২টি গম্বুজ রয়েছে।  গম্বুজগুলো নির্মাণ করা হয়েছে স্বেত মার্বেল দিয়ে। একসঙ্গে ৪০ হাজার মানুষ নামায আদায় করতে পারে।

আলোকিত স্থাপনা: শেখ জায়েদ গ্র্যান্ড মসজিদ
আলোকিত স্থাপনা: শেখ জায়েদ গ্র্যান্ড মসজিদ

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

আলোকিত স্থাপনা: বায়তুল মোকাররম মসজিদ

ঢাকায় অবস্থিত বাংলাদেশের জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররম মসজিদ। ১৯৫৯ সালে ‘বায়তুল মুকাররম মসজিদ সোসাইটি’ গঠনের মাধ্যমে পরিকল্পনা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়। পুরান ঢাকা ও নতুন ঢাকার মিলনস্থলে মসজিদটির জন্য জায়গা অধিগ্রহণ করা হয়। মসজিদটির নির্মাণ শুরু হয় ১৯৬০ সালে, শেষ হয় ১৯৬৮ সালে। আয়তন ২৬৯৪ বর্গ মিটার। মসজিদটির স্থপতি টি. আব্দুল হুসেন থারিয়ানি। একসঙ্গে ৪০ হাজার মুসল্লি নামাজ আদায় করতে পারেন।

আলোকিত স্থাপনা বায়তুল মোকাররম মসজিদ
আলোকিত স্থাপনা বায়তুল মোকাররম মসজিদ

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

আলোকিত স্থাপনা: পুত্রা মসজিদ, মালয়েশিয়া

পুত্রা মসজিদ, মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর শহর থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে পুত্রাজয়ায় অবস্থিত। নির্মাণ শুরু হয় ১৯৯৭ এবং শেষ হয় ১৯৯৯ সালে। মসজিদটির স্থপতি কাম্পুলান সেনেরকা। নির্মাণে ব্যয় হয় ব্যয় ৮০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

আলোকিত স্থাপনা: বায়তুল মোকাররম মসজিদ
পুত্রা মসজিদ, মালয়েশিয়া

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

আলোকিত স্থাপনা: সুলতান হাজী হাসানাল বল্কিয়া মসজিদ

ফিলিপাইনের কোটাবাটো সিটির বরঙ্গে কালানগানানে অবস্থিত, সুলতান হাজী হাসানাল বল্কিয়া মসজিদ। কোটাবাটোর গ্র্যান্ড মসজিদ নামেও পরিচিত। এর স্থপতি ফেলিনো পালাফক্স। মসজিদটি নির্মাণে ব্যয় ৪৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। ব্রুনাইয়ের সুলতান হাসানাল বোল্কিয়া, দক্ষিণ ফিলিপাইনের উদ্বৃত্ত মুসলমান জনগোষ্ঠীাকে সাহায্য করার জন্য নিজের ব্যক্তিগত অর্থ দিয়ে মসজিদটি নির্মাণ করেন। একসঙ্গে ৬০ হাজার মানুষ নামায আদায় করতে পারে।

আলোকিত স্থাপনা: সুলতান হাজী হাসানাল বল্কিয়া মসজিদ
আলোকিত স্থাপনা: সুলতান হাজী হাসানাল বল্কিয়া মসজিদ

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com