আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

ফসল

হলুদ সরিষা বনে মৌমাছির আনাগোনা

হলুদ সরিষা বনে মৌমাছির আনাগোনা
হলুদ সরিষা বনে মৌমাছির আনাগোনা

শীতের শেষ আর বসন্তের আগে গ্রামবাংলা সেজেছে অপরূপ সাজে। গ্রামজুড়ে এখন হলুদ রঙের ছড়াছড়ি। মাঠের সরিষা ক্ষেতে হলুদের হাতছানি। বিভিন্ন অলি-ভ্রমর ছুটে বেড়ায় এখান থেকে সেখানে। নিজ কর্মে খুবই ব্যস্ত তারা। মধু আহরণের জন্য ঘুরে বেড়ায় চারিদিকে।

হলুদ সরিষা বনে মৌমাছির আনাগোনা
হলুদ সরিষা বনে মৌমাছির আনাগোনা

হলুদ সরিষা ক্ষেতে মৌমাছির আনাগোনা এবং মধু আহরণের দৃশ্য বড়ই চমৎকার। মনে পড়ে যায় কবি নবকৃষ্ণ ভট্টাচার্যের কবিতা, ‘মৌমাছি মৌমাছি/কোথা যাও নাচি নাচি/দাঁড়াও না একবার ভাই,/ওই ফুল ফোটে বনে, যাই মধু আহরণে,/দাঁড়াবার সময় তো নাই…।’

হলুদ সরিষা বনে মৌমাছির আনাগোনা
হলুদ সরিষা বনে মৌমাছির আনাগোনা

হেমন্ত ঋতুর অগ্রহায়ণ মাস থেকেই মৌমাছির ব্যস্ততা বাড়ে। বসন্তের আগে আরও। সরিষা ফুল থেকে মধু আহরণের সময় শেষের দিকে। তাই ব্যস্ততাও বাড়িয়ে দেয় ওরা। বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চল ঘুরলে এমনই দৃশ্য চোখে পড়ে। দর্শনার্থীদের মুঠোফোনে বন্দি হয় মৌমাছির কার্যক্রমের স্থিরচিত্র।

হলুদ সরিষা বনে মৌমাছির আনাগোনা
হলুদ সরিষা বনে মৌমাছির আনাগোনা

চারিদিকের অবারিত সরিষা ক্ষেত যেন শীতের শেষের দিকে গ্রামবাংলার অপার সৌন্দর্য। ফুরফুরে হলুদ সরিষা ফুলের ফাঁকে ফাঁকে সবুজ পাতা ও ফল। এ ফল থেকেই পাওয়া যায় সরিষার তেল। যা আমাদের দৈনন্দিন জীবনে ব্যাপক উপকারে আসে। কৃষকের মুখে ফোটে তৃপ্তির হাসি।

ফসল

চৈত্র মাসে ধানের যত্ন নেবেন যেভাবে

 চৈত্র মাসে ধানের যত্ন নেবেন যেভাবে
চৈত্র মাসে ধানের যত্ন নেবেন যেভাবে

প্রকৃতিতে এখন বিরাজ করছে চৈত্র মাস। কৃষকের ব্যস্ততার সময়। অথচ করোনা আতঙ্কে কর্মহীন হয়ে আছে কৃষকরা। কিন্তু কৃষির কাজ-কর্মের শেষ বলে তো কিছু নেই। এ মাসে রবি শস্য ও গ্রীষ্মকালীন ফসলের কাজ একসঙ্গে করতে হয়। তাই সুযোগ পেলে ধানের যত্ন নিন এভাবে-

১. জমিতে ক্ষতিকর পোকা ও রোগের আক্রমণ থেকে সতর্ক থাকুন।
২. পোকা দমনের জন্য ঘরের কাছের ক্ষেত নিয়মিত পরিদর্শন করুন।
৩. সমন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ক্ষেত বালাইমুক্ত করতে পারেন।
৪. এতে প্রতিহত না হলে কীটনাশক সঠিক সময়ে, সঠিক মাত্রায় প্রয়োগ করুন।
৫. পাতা পোড়া রোগ হলে পরিমাণমতো পটাশ সার উপরিপ্রয়োগ করুন।
৬. জমির পানি শুকিয়ে ৭-১০ দিন পর আবার সেচ দিতে হবে।

 চৈত্র মাসে ধানের যত্ন নেবেন যেভাবে
চৈত্র মাসে ধানের যত্ন নেবেন যেভাবে

৭. দেরিতে রোপিত চারা ৫০-৫৫ দিন হলে ইউরিয়ার শেষ কিস্তি উপরিপ্রয়োগ করতে হবে।
৮. ধানক্ষেতে গুটি ইউরিয়া দিয়ে থাকলে ইউরিয়া সারের উপরিপ্রয়োগ করতে হবে না।
৯. সার দেওয়ার আগে জমির আগাছা পরিষ্কার করে জমি থেকে পানি সরিয়ে দিতে হবে।
১০. সালফার ও দস্তার অভাব থাকলে শতাংশপ্রতি ২৫০ গ্রাম সালফার ও ৪০ গ্রাম দস্তা দিতে হবে।
১১. ধানের থোড় আসা থেকে শুরু করে দুধ আসা পর্যন্ত ক্ষেতে ৩-৪ ইঞ্চি পানি ধরে রাখতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফসল

জ্যৈষ্ঠ মাসে বোরো ও আউশ ধানের জন্য যা করবেন

জ্যৈষ্ঠ মাসে বোরো ও আউশ ধানের জন্য যা করবেন
জ্যৈষ্ঠ মাসে বোরো ও আউশ ধানের জন্য যা করবেন

চলছে জ্যৈষ্ঠ মাস। কৃষি নির্ভর দেশে এখন বোরো ও আউশ ধানের মৌসুম। বোরো ধান সংগ্রহ এবং আউশ ধান রোপণের নিয়ম-কানুন জেনে নিতে পারেন।

বোরো ধান
১. আপনার জমির ধান শতকরা ৮০ ভাগ পেকে গেলে জমির ধান সংগ্রহ করবেন।
২. ধান কেটে মাড়াই, ঝাড়াই করে ভালোভাবে শুকিয়ে নিতে হবে।
৩. শুকনো বীজ ছায়ায় ঠান্ডা করে প্লাস্টিকের ড্রাম, বিস্কুটের টিন, মাটির কলসিতে সঠিকভাবে সংরক্ষণ করতে হবে।

আউশ ধান
১. এখনো আউশের বীজ বোনা না হয়ে থাকলে এখনই বীজ বপন করতে হবে।
২. চারার বয়স ১২-১৫ দিন হলে প্রথম কিস্তি হিসেবে হেক্টরপ্রতি ৪৫ কেজি ইউরিয়া উপরি প্রয়োগ করতে হবে।
৩. ১৫ দিন পর একই মাত্রায় দ্বিতীয় কিস্তি উপরি প্রয়োগ করতে হবে।
৪. ইউরিয়া সারের কার্যকারিতা বাড়াতে জমিতে সার প্রয়োগের সময় ছিপছিপে পানি রাখতে হবে।
৫. সব সময় আউশ ধানের জমি আগাছামুক্ত রাখতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা

লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা
লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা

মসলা জাতীয় খাদ্যপণ্য হিসেবে পেঁয়াজ অন্যতম। দেশের চাহিদার মোট ১৪ ভাগ পেঁয়াজ উৎপাদিত হয় রাজবাড়ীতে। তাই জেলাসহ দেশের বাজারে পেঁয়াজের ঘাটতি পূরণ করতে কৃষকরা পেঁয়াজের পাশাপাশি বীজের চাষ বাড়িয়েছেন।

পেঁয়াজের এ বীজকে ‘কালো সোনা’ বলেও আখ্যায়িত করা হয়। উৎপান ও বাজার দর ভালো পাওয়ায় রাজবাড়ীর পেঁয়াজ বীজ চাষিরা বেশ লাভবান হচ্ছেন। ফলে প্রতি বছরই জেলায় পেঁয়াজ বীজ চাষ বাড়ছে।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা, পাংশা, বালিয়াকান্দি, গোয়ালন্দ ও কালুখালীতে এ বছর পেঁয়াজ বীজ আবাদ হয়েছে ৩০৫ হেক্টর জমিতে। যা গত বছর আবাদ হয়েছিল ২৯০ হেক্টর জমিতে। গত বছরের তুলনায় এ বছর ১৫ হেক্টর বেশি জমিতে বীজ চাষ হয়েছে।

সদর উপজেলার দাদশী ইউনিয়নের কামালপুর গ্রামের কৃষক লিটন শেখ জানান, চার বিঘা জমিতে তিনি পেঁয়াজের বীজ চাষ করেছেন এবং প্রতি বছর তিনি পেঁয়াজ বীজের চাষ করেন। চাষ, সার-বীজ এবং কীটনাশকসহ সব মিলিয়ে তার খরচ হয়েছে ৭০ হাজার টাকা। এ চার বিঘা জমি থেকে তিনি ৫-৬ মণ বীজ পাবেন বলে আশা করছেন।

লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা
লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা

এ বীজ ৪-৫ লাখ টাকা বিক্রি করবেন বলে তিনি মনে করছেন। সব খরচ বাদ দিয়ে ৩ থেকে সাড়ে ৩ লাখ টাকা লাভ হবে তার। পেঁয়াজের বীজ চাষ করে তিনি ভালো লাভবান হয়েছেন। আগামীতে তিনি আরও জমিতে বীজের চাষ করবেন।

জানা যায়, বর্তমানে প্রতি কেজি বীজের বাজার দর তিন-চার হাজার টাকা, আর মণ হিসেবে প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকার মতো পাওয়া যায়। প্রতি বিঘা জমি থেকে ফলন পেয়ে থাকেন দুই থেকে আড়াই মণ। প্রতি মণ বীজ ১ লাখ টাকা থেকে দেড় লাখ টাকা বিক্রি করে থাকেন।

কৃষকরা জানান, পেঁয়াজ বীজের উচ্চমূল্য এবং এটি লাভজনক ফসল হওয়ায় তারা দিনদিন বীজের চাষে ঝুঁকছেন। তাছাড়া বীজের চাষ করে ক্ষেত থেকে যে পেঁয়াজ পান, তা থেকে বীজ চাষের খরচ উঠে আসে।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. বাহাউদ্দিন বলেন, ‘এ বছর রাজবাড়ী সদর উপজেলায় ৮৬ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের বীজ আবাদ হয়েছে। এ বীজ চাষ করে কৃষকের বিনিয়োগের ৪ ভাগের তিন ভাগই লাভ হয়ে থাকে। বীজ চাষে কৃষকদের এসএমই চাষি হিসেবে, উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে।’

লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা
লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. ফজলুর রহমান বলেন, ‘এবার পেঁয়াজ বীজের ফলন ভালো হয়েছে। কালবৈশাখী ঝড়ে বীজের ক্ষতি না হলে উৎপাদনও ভালো হবে। ভালো ফলন এবং বাজার মূল্য বেশি পাওয়ার আশায় কৃষকরা বীজের আবাদ বাড়িয়েছেন।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

টাঙ্গাইলে বাড়ছে আখের আবাদ, ভালো দামে লাভবান চাষীরা

টাঙ্গাইলে বাড়ছে আখের আবাদ, ভালো দামে লাভবান চাষীরা
টাঙ্গাইলে বাড়ছে আখের আবাদ, ভালো দামে লাভবান চাষীরা: আখ পরিচর্যায় ব্যস্ত একজন কৃষক।

কয়েক বছর ধরে আখ চাষ করে আমরা ভালই কয়ডা পয়সার মুখ দেহি’

আখ চাষে লাভবান হওয়ায় টাঙ্গাইলে বাড়ছে আখের আবাদ। বিগত কয়েক বছর ধরে কৃষকরা নিয়মিত আখ চাষ করে প্রত্যাশিত ফলন পাচ্ছেন। তারই ধারাবাহিকতায় এবারও জেলার কৃষকরা আখ চাষে ব্যাপক সাফল্য পেয়েছেন। ফলন ভালো হওয়ায় ক্ষেত থেকে আগেভাগেই আখ কেটে বাজারে বিক্রি করছেন, আশানুরূপ দাম পেয়ে চলতি বছরও খুব খুশি চাষীরা।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার দাইন্যা ইউনিয়নের চাড়াবাড়ি এলাকার চাষী জলিল মিয়া বলেন, এ বছর আমি ৪ বিঘা জমিতে আখ চাষ করেছি। আর জমি তৈরি, চারা কেনা, শ্রমিক, সার, কীটনাশকসহ আমার খরচ হয়েছে প্রায় ৮৫ হাজার টাকা। আশা করছি দেড় লাখ টাকার উপরে আখ বিক্রি হবে।

চাষী হাসান আলী মিয়া বলেন, এ বছর আমি দেড় বিঘা জমিতে আখ চাষ করেছি। বাজারে আখের দাম ভালো হওয়ায় আমি লাভবান হতে পারব।

নাগরপুরের চাষী রাজ্জাক মিয়া বলেন, “গত বছরের তুলনায় এবার নাগরপুরে দ্বিগুনেরও বেশি কৃষক আখ চাষ করছে। কারণ গতবার ভাল লাভ হইছে। এবারও বাজার ভাল, লাভই হবে।”

টাঙ্গাইল পার্ক বাজারের আখ বিক্রেতা মনসুর আলী বলেন, আমার এক বিঘা জমিতে নিজে চাষ করি, পাশাপাশি অন্যান্য কৃষকের জমি থেকেও আখ কিনে বিক্রি করি। তাতে আমি লাভ করতে পারি। কৃষকও লাভ করতে পারে।

তিনি বলেন, “কয়েক বছর ধরে আখ চাষ করে আমরা ভালোই কয়ডা পয়সার মুখ দেহি।”  

টাঙ্গাইল জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সূত্রে জানা যায়, টাঙ্গাইলের ১২টি উপজেলার মধ্যে সখীপুর ও ধনবাড়ী উপজেলা ছাড়া বাকি ১০টি উপজেলাতেই আখের চাষ করা হয়েছে। এ বছর জেলায় আখ চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৫৫৯ হেক্টর, আর আখ চাষ করা হয়েছে ৭৮৬ হেক্টর জমিতে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২২৭ হেক্টর বেশি। এতে ফলন উৎপাদন হয়েছে ২৬ হাজার ৪০৫ মেট্রিক টন। এর মধ্যে সদর উপজেলায় ২৮৫ হেক্টর, বাসাইল উপজেলায় ২ হেক্টর, কালিহাতী উপজেলায় ৩০ হেক্টর, ঘাটাইল উপজেলায় ১৬ হেক্টর, নাগরপুর উপজেলায় ২৮০ হেক্টর, মির্জাপুর উপজেলায় ৩২ হেক্টর, মধুপুর উপজেলায় ১১ হেক্টর, ভুঞাপুর উপজেলায় ৫৫ হেক্টর, গোপালপুর উপজেলায় ১২ হেক্টর ও দেলদুয়ার উপজেলায় ৬৩ হেক্টর জমিতে আখের চাষা হয়েছে। অন্যদিকে গত বছর এ জেলায় ৫৫৯ হেক্টর জমিতে আখ চাষ করা হয়েছিল।

এ ব্যাপারে টাঙ্গাইল জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আব্দুর রাজ্জাক ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “বিগত কয়েক বছর ধরে জেলায় আখ চাষের আবাদ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ বছর আখের বাম্পার ফলন হয়েছে। আখ বিক্রি করে লাভবান হচ্ছে চাষীরা। আখ ক্ষেতে ‘সাথী’ ফসল আবাদ করে তা থেকে আখ চাষের খরচ উঠে আসে। পরে আখ বিক্রির টাকা এককালীন লাভ হিসেবে চাষীরা পেয়ে যায়। টাঙ্গাইলে চিবিয়ে খাওয়ার জাতটি বেশি চাষ হয়।”

তিনি আরো বলেন, “কৃষি বিভাগ থেকে আখচাষীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া উপ-সহকারী কৃষি অফিসাররা মাঠে গিয়ে কৃষকদের পরামর্শ দিয়ে থাকেন। টাঙ্গাইলের আখ জেলার চাহিদা মিটিয়ে পাবনা, সিরাজগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যায়। এখন পর্যন্ত প্রায় ২০ থেকে ৩০ ভাগ আখ কাটা হয়েছে। আর প্রায় সাড়ে ৭ হাজার কৃষক আখ চাষে জড়িত।” 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফসল

ধানের লোকসান পোষাতে গমের দিকে তাকিয়ে নীলফামারীর কৃষকেরা

চলতি মৌসুমে গমের বাম্পার ফলনের আশা করছেন কৃষকেরা।
চলতি মৌসুমে গমের বাম্পার ফলনের আশা করছেন কৃষকেরা।

ভাল ফলন ও দাম পেলে ধান চাষের লোকসান কাটিয়ে উঠতে পারবেন বলে আশা করছেন কৃষকেরা

নীলফামারীতে চলতি রবি মৌসুমে রেকর্ড পরিমাণ গমের আবাদ হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় বাম্পার ফলনের আশা করছেন কৃষকেরা। একইসঙ্গে ভাল ফলন ও দাম পেলে ধান চাষের লোকসান কাটিয়ে উঠতে পারবেন এমনটিই আশা করছেন তারা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে জেলায় ৫ হাজার ৮০০ হেক্টর জমিতে গম চাষের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে মাঠে নেমেছে কৃষি বিভাগ। এরমধ্যে, সদরে দুই হাজার ২৭০, সৈয়দপুরে ২৫০, ডোমার এক হাজার ১৫০, ডিমলায় ৮৮০, জলঢাকায় ৮৫০ ও কিশোরগঞ্জে ৪০০ হেক্টর জমি। আর এতে উৎপাদনের গড় লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৯ হাজার ৮৩৬ মেট্রিকটন।

এ ছাড়াও এবার বারি-২৬, ২৮, ৩০ ও ৩৩ জাতের গমের ক্ষেতে ফলন হয়েছে বেশ ভালো। এতে সাম্ভব্য গড় ফলন ধরা হয়েছে ১৭ হাজার ৮০১ দশমিক এক মেট্রিক টন। কৃষিবিদেরা বলছেন, শেষ পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আশানুরূপ ফলন পাওয়া যাবে।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. কামরুল হাসান বলেন, কম খরচে বেশি লাভের আশায় কৃষকেরা এবার বোরো ধানের জমিতে আগাম জাতের ও উচ্চ ফলনশীল পুষ্টি সমৃদ্ধ গমের চাষ করছেন। শেষ পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে গমের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করেন তিনি।

নীলফামারী সদরের পঞ্চপুকুর ইউনিয়নের চেংমারী দিঘলটারী গ্রামের মো. আবুল কালাম আজাদ (৪৮) জানান, কয়েক দফা বন্যা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে এবার জমিতে আগাম জাতের গমের আবাদ করেছি।

মাঠভর্তি কেবল গমের আবাদ।
মাঠভর্তি কেবল গমের আবাদ।

তিনি বলেন, ধানের বাজার দর না থাকায় প্রতি বছরই লোকসান গুনতে হচ্ছে। তাই এবার দেড় বিঘা জমিতে গমের আবাদ করেছি। ফলনও ভাল হয়েছে। আর কয়েক দিনের মধ্যে ঘরে তোলা যাবে।

একই গ্রামের তসলিম উদ্দিন (৪৫) বলেন, চলতি মৌসমে দুই বিঘা জমিতে গমের আবাদ করেছি। বারি-২৬ জাতের গম ভাল ফলন হয়। এই জাতের গম বিঘায় ১৫-১৬ মন পর্যন্ত হয়। বাজারে দামও ভাল। বাজারে এখন প্রতিমণ গম এক হাজার ২০০ থেকে এক হাজার ৩০০ টাকা মণ দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি বিঘা জমির গম ফলাতে খরচ হয় এক হাজার ৮০০ টাকা। এতে প্রায় বিঘা প্রতি লাভ হয় প্রায় ১৯ হাজার টাকা।

জেলার শহর ও বড় বাজারের গম ব্যবসায়ী ও আড়তদার দীপক দাস বলেন, বর্তমানে গমের জাত অনুযায়ী ১২০০ থেকে ১৩০০ টাকা দামে (পুরাতন) গম বেচাকেনা হচ্ছে। কৃষকরা মোটামুটি ভাল দাম পাচ্ছেন।

জেলার ডোমার উপজেলার মটুকপুর ইউনিয়নের পাঙ্গামটুকপুর গ্রামের শাহ আলম জানান, গম চাষে সার ও কীটনাশক কম লাগে, একটু সেচ দিলে ভাল ফলন হয়। কম খরচে ও স্বল্প সময়ে এ ফসল ঘরে তোলা যায়।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক (শষ্য) মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে চলতি বছর গমের আবাদ থেকে কৃষকরা বাড়তি আয় করতে পারবেন। চলতি বছর বিঘা প্রতি উৎপাদনের পরিমাণ ধরা হয়েছে ১৫-১৬ মণ। বাজারে দামও রয়েছে ভাল ও চাহিদাও বেশ।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com