আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

এগ্রোবিজ

লেবু তো নয়, যেন টাকার বাগান!

লেবু তো নয়, যেন টাকার বাগান
লেবু তো নয়, যেন টাকার বাগান

সুবির পাল একজন কৃষক। চাষাবাদ করেই জীবিকা নির্বাহ করেন। প্রতিবছর নিজের জমিতে কলা, পান আর পুকুরে মাছ চাষ করেন। তখন তেমন সফল হতে পারেননি। তাই বিভিন্ন স্থানে কৃষি প্রদর্শনীতে যান। যেখানে দেখেন কৃষকের সফলতা; সেখানে কাটান বেশ কয়েক দিন। এভাবে গত কয়েক বছর আগে যশোরে এক লেবুর বাগান দেখে তিনি মুগ্ধ হন। সেখান থেকেই তার লেবু চাষে আগ্রহ সৃষ্টি হয়।

সুবির ফিরে আসেন নিজ গ্রামে। এক আত্মীয়ের সূত্র ধরে একই স্থানে বেশ কয়েক বিঘা জমি তার পছন্দ হয়। মাদারীপুরের শিবচরের বহেরাতলা উত্তর ইউনিয়নের যাদুয়ার চর গ্রামের কলমখার কান্দি গ্রামে ৫ বিঘা জমিতে লিজ নিয়ে শুরু করেন লেবু চাষ। করোনায় লেবুর চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এ বছর বেশ লাভের মুখ দেখতে শুরু করেছেন।

লেবু তো নয়, যেন টাকার বাগান
লেবু তো নয়, যেন টাকার বাগান

এলাকা ও জমির মালিক ফারুক খান সূত্রে জানা যায়, মাত্র ৩০ মাসে সাফল্যের মুখ দেখতে শুরু করেছেন সুবির পাল। চারা রোপণের মাত্র ৬ মাসের মাথায় ফল দেওয়া শুরু হয়। এখন লেবুর বাম্পার ফলনের সময়। লেবু চাষ করে ভাগ্যের চাকা ঘুরতে শুরু করে সুবির পালের। গতবছর এ বাগান থেকে প্রায় ৮ লাখ টাকার লেবু বিক্রি করেছেন। এবার প্রায় ২৪ লাখ টাকা বিক্রি করবেন বলে আশা করেন সুবির। তাই একে লেবুর বাগান না বলে টাকার বাগান বলাই ভালো। লেবু চাষ করে লাভের মুখ দেখতে পেয়ে আরও ২টি বাগান করেন। এলাকার মাটি লেবু চাষে উপযোগী বলে দাবি করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা।

জানা যায়, ৫ বিঘা জমিতে লেবু চাষ করেন উপজেলার উমেদপুর ইউনিয়নের পশ্চিম কাঁচিকাটা গ্রামের বিকাশ পালের ছেলে সুবির পাল। প্রায় আড়াই বছর আগে যাদুয়ারচর গ্রামের কলম খার কান্দির ফারুক খানের কাছ থেকে দশ বছরের জন্য লিজ নিয়ে লেবু চাষ শুরু করেন। বারো মাস ফল দেয় এমন লেবু চারা যশোর থেকে সংগ্রহ করেন। সিডলেস চায়না-৩ গাছের চারা রোপণ করেন। ৬ মাস পর্যন্ত গাছের পরিচর্যা শেষে ফুলের দেখা মেলে। এখন বাগানে বড় ধরনের ১২শ লেবুর গাছ আছে।

লেবু তো নয়, যেন টাকার বাগান
লেবু তো নয়, যেন টাকার বাগান

প্রত্যেক গাছ থেকে প্রতিদিন গড়ে ৫-৬টি লেবু সংগ্রহ করা হয়। এতে প্রায় ৫-৬ হাজার লেবু বিক্রি হয় প্রতিদিন। বাগান থেকে পাইকারি বিক্রি হয় ১৫-২০ টাকা হালি। এখন করোনাভাইরাসের কারণে লেবুর চাহিদাও বেড়েছে। এ ছাড়া কলমকাটা লেবুর চারা অহরহ বিক্রি হচ্ছে। প্রতিটি চারা একশ টাকা। এতে প্রতিদিন প্রায় ২৫-৩০ হাজার টাকা বিক্রি করা সম্ভব। বাগানে কাজ করে এলাকার প্রায় ১০-১২টি পরিবার জীবিকা নির্বাহ করে।

লেবু চাষ করে লাভের মুখ দেখতে পেয়ে অন্য এলাকায় প্রায় ১০ বিঘা জমি লিজ নিয়ে আরও ২টি বাগান করেন সুবির পাল ও ফারুক খান। লেবুতে লাভ দেখে ফারুক খান এখন সুবির পালের সঙ্গে লেবু চাষে নিয়োজিত হয়েছেন। শুধু জমির মালিক ফারুক খানই নন। সুবির পালকে অনুসরণ করে আরও প্রায় ৩০-৩৫টি বাগান গড়ে উঠেছে। এলাকার বেকার যুবকরা গড়ে তোলেন লেবু, পেয়ারা ও আমসহ বিভিন্ন জাতের ফলের বাগান।

লেবু তো নয়, যেন টাকার বাগান
লেবু তো নয়, যেন টাকার বাগান

জমির মালিক ফারুক খান জানান, পাশের জমিতে বারো মাসে তেমন ফসল হতো না। জমিটা বেশ উঁচু। এখানে পানি ওঠে না। জমিতে আউশ ধান কিংবা পাট ছাড়া তেমন ফসল হয় না। এ কারণে পাশের জমি ইট ভাটার জন্য ভাড়া দিয়েছি। এ ৫ বিঘা জমি লিজ দিয়েছি লেবু চাষের জন্য। বাগানে যে পরিমাণ লেবু হয়, তাতে অন্য ফসলের চেয়ে প্রায় ৩০-৩৫ গুণ বেশি টাকা পাওয়া যায়।

শিবচর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা অনুপ রায় বলেন, ‘স্থানীয় বেকার যুবকদের লেবু চাষের ব্যাপারে পরামর্শ দেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। লেবু চাষের জন্য এলাকার মাটি বেশ উপযোগী। তাই এলাকার মানুষের লেবু চাষে আগ্রহ বেড়েছে। আমরা প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়ে তাদের সহযোগিতা করি।’

এগ্রোবিজ

বিদেশী সবজি চাষে ভাল আয় করেছেন যিনি

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

কীভাবে কেঁচো সার তৈরি করছেন নারীরা

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

লাউ চাষে হাকিম দেওয়ানের ভাগ্য বদল

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

ডুমুরিয়ায় তরমুজ চাষে লাভবান কৃষকরা

 ডুমুরিয়ায় তরমুজ চাষে লাভবান কৃষকরা
ডুমুরিয়ায় তরমুজ চাষে লাভবান কৃষকরা

গ্রামের ভেতরের গ্রামীণ মেঠোপথ ধরে এগোতে এগোতে হঠাৎ একখণ্ড সবুজের সমারোহ চোখে পড়ার মতো। সেখানে একপা-দু’পা হেঁটেই দেখা গেল তরমুজের ক্ষেত। চারদিকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে তরমুজ। তরমুজ তুলে জড়ো করছেন কৃষক। স্তূপ করে রাখছেন বিক্রির জন্য। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে মহাজনেরা তরমুজ কিনতে ক্ষেতে গিয়ে চাষিদের সঙ্গে দাম কষাকষির মাধ্যমে চূড়ান্ত করছেন। ওই তরমুজ ট্রাক-ট্রলি বোঝাই করে দেশের বিভিন্ন বিভাগীয় শহর থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে। বর্ষা মৌসুম শুরু হওয়ার আগে তরমুজ চাষিরা খেত থেকে তরমুজ তুলে বিক্রি করার চেষ্টায় ব্যস্ত রয়েছেন।

এ চিত্র খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলার শোভনা ইউনিয়নের তক্তামারি গ্রামের। স্থানীয়রা বলছেন, এবারই সর্বপ্রথম বেশি পরিমাণে তরমুজ চাষ করা হয়েছে এ উপজেলায়। তারমধ্যে সবচেয়ে বেশি হয়েছে তক্তামারি গ্রামে। কৃষকেরা বলছেন, এ মৌসুমে তরমুজ চাষ লাভজনক হওয়ায় তাদের মধ্যে আগ্রহ বেড়েছে। তাই তারা প্রতিবছরই তরমুজের চাষ করবেন বলে আশা রাখেন।

সবুজ সোনার আশায়, আমন ধান কাটা শেষ হতে না হতেই শুরু হয়েছে তরমুজ লাগানোর প্রস্তুতি। বার বার চাষ দিয়ে দ্রুত মাটি শুকিয়ে রোপণ করা হয় তরমুজের বীজ। কৃষকরা মনে করেন, আগে লাগালে আগে তরমুজ পাওয়া যায় এবং ভালো দামে বিক্রি করা যায়। এ ধারণা থেকেই উপজেলার কৃষকের মাঝে ব্যাপকভাবে সাড়া পড়েছে। তাই নারী-পুরুষ সবাই মিলে সারাদিন শ্রম দিচ্ছে তরমুজ ক্ষেতে।

 ডুমুরিয়ায় তরমুজ চাষে লাভবান কৃষকরা
ডুমুরিয়ায় তরমুজ চাষে লাভবান কৃষকরা

ডুমুরিয়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর জানায়, প্রায় ১৫ হেক্টর জমিতে তরমুজের আবাদ করা হয়েছে। উৎপাদন হয়েছে প্রায় ৪৫০ মেট্রিক টন। বিক্রি হয়েছে ১ কোটি ২০ লাখ টাকার মতো। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৪২০ মেট্রিক টন। যার মূল্য দাঁড়াবে প্রায় ১ কোটি ১০ লাখ টাকা।

উপজেলার তক্তামারি গ্রামের সবচেয়ে বড় তরমুজ চাষি কামাল বাওয়ালী (৪০) নিজের ও অন্যের জমি মিলিয়ে মোট সাত বিঘা জমিতে তরমুজ চাষ করেছেন। তিনি বলেন, ‘মৌসুমের আগেই দেশের বিভিন্ন এলাকার মহাজনেরা তরমুজ নিতে চলে আসেন। ফলনের পর তরমুজ সংগ্রহ করতে এলাকায় অবস্থান করেন। ইতোমধ্যে ক্ষেত থেকে তরমুজ তুলে মহাজনদের কাছে প্রায় ৮ লাখ ৫৪ হাজার টাকার তরমুজ বিক্রি করেছি।’

 ডুমুরিয়ায় তরমুজ চাষে লাভবান কৃষকরা
ডুমুরিয়ায় তরমুজ চাষে লাভবান কৃষকরা

উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের অন্তত ১৪ জন কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, এক বিঘা জমিতে তরমুজের চাষ করতে ব্যয় হয় ১০-১২ হাজার টাকার মতো। ফসল ভালো হলে বিক্রি হয় প্রতিবিঘা ১ লাখ টাকারও বেশি। লাভের আশায় পরিশ্রম করে মাত্র ৬০ দিনের ফসল করছেন তারা। পরিবারের সবাইকে নিয়ে সকাল-সন্ধ্যা কাজ করছেন। পরিশ্রম করতে পারলে অনেক টাকা লাভ হবে।

কৃষি অফিসের হিসাবমতে, তরমুজ চাষে এক হেক্টর জমিতে খরচ হয়েছে ৮০ হাজার টাকার একটু বেশি। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে তরমুজ উৎপাদন হবে কমপক্ষে ৩০ মেট্রিক টন। সর্বনিম্ন ৩০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করলে হবে প্রায় ৯ লাখ টাকা। তাই তরমুজে লাভবান বেশি হওয়ায় কৃষকরা এখন তরমুজ চাষের প্রতি ঝুঁকছেন।

ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মোছাদ্দেক হোসেন বলেন, ‘এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে। মৌসুমের শুরুতে বৃষ্টি হওয়ায় চাষিদের সেচ খরচ কম হয়েছে। তবে নিচু জমিতে পানি জমে একটু ক্ষতি হলেও ফলন ভালো ও বড় আকারের তরমুজ ফলনে চাষিরা লাভবান হবে। লবণাক্ত এসব জমিতে পাকিজা, সুইট ড্রাগন ও প্রাউন্ড জাতের তরমুজ ভালো হয়। তাই কৃষকরা বীজতলা তৈরি করে এসব জাতের বীজ রোপণ করছেন।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

ভাসমান খাঁচায় মাছ চাষ- শেষ পর্ব

 ভাসমান খাঁচায় মাছ চাষ- শেষ পর্ব
ভাসমান খাঁচায় মাছ চাষ- শেষ পর্ব

জালের খাঁচায় মাছ চাষ একদিন জনপ্রিয় হবে। হবে হাজারও মানুষের কর্মসংস্থান। বাড়বে আমিষের উৎপাদন। শক্ত হবে জাতীয় অর্থনীতি। তাই আসুন জেনে নেই ভাসমান খাঁচায় মাছ চাষের উপায়। আজ শেষ পর্ব

যে মাছ চাষ করবেন
খাঁচায় সব ধরনের মাছ চাষ করা যায় না। সেক্ষেত্রে বিদেশি ঘাওর, নাইলোটিকা, রাজপুঁটি, কার্প প্রজাতি ও পাঙ্গাস। এসব মাছের গড় উৎপাদন ৪-৫ মাসে প্রতি ঘনমিটার ৫-১৫ কেজি।

পোনার মাপ
পোনা সবসময়ই বড় সাইজের ছাড়া ভালো। তবে ২-৩ ইঞ্চির কম হলে চলবে না।

পোনার পরিমাণ
এর কোনো সুনিদির্ষ্ট নিয়ম নেই। ধরুন আপনি উৎপাদন করবেন প্রতি ঘনমিটারে ১০ কেজি। সেখানে পোনা ছাড়বেন প্রতি ঘনমিটারে ১০০টা + ৫% ধরে নেবেন মারা যাবে। তেমনি আফ্রিকান মাগুর ছাড়তে চাইলে লক্ষ্যমাত্রা প্রতি ঘনমিটারে ১৫ কেজি এবং প্রতিটা মাছের গড় ওজন ২৫০ গ্রাম। তবে সেখানে পোনা ছাড়তে হবে ৬০টা + ৫% মারা যাবে।

মাছের খাদ্য
অনেক খাল-বিলে কোনো মৌসুমে প্রচুর উদ্ভিদ কণার জন্ম হয় যে, অল্প ঘনত্বে মাছ ছেড়ে খাদ্য ছাড়াই প্রতি ঘনমিটারে ৪-৫ মাসে ৫-৭ কেজি মাছ উৎপাদন করা যায়। তবে সুষম খাদ্য হিসেবে দৈনিক ২-৩ বার খাবার দিতে হয়। এখানে প্রাণিজ আমিষ, যেমন- শুঁটকি মাছ, শামুকের মাংস, গরু-ছাগলের রক্ত, মাংসের ছাটি বা গরু-ছাগলের নাড়ি-ভুঁড়ি ইত্যাদি। দ্বিতীয়ত খৈল। যেকোনো খৈল, যেমন- সরিষা, তিল, নারকেল, বাদাম, সয়াবিন, তিসি, তুলা ইত্যাদি। উচ্ছিষ্ট ভাত। এছাড়া প্রচুর ঘাস খায় নাইলোটিকা, গ্রাস কার্প ও রাজপুঁটি। ঘাসের মধ্যে নরম ঘাস, যেমন- রাইদা, ইছাদল, পোটকা প্রভৃতি। সুষম খাদ্যের জন্য শুঁটকি অথবা যেকোনা প্রাণিজ আমিষ ১০-৩০%, খৈল ২০-৪০%, গমের ভুষি বা মিহি কুঁড়া ২০-৫০%, তার সাথে ৫% চিটাগুড় ও ৫-১০% সস্তা দামের আটা ও ০.৫% ভিটামিন। খাবার তৈরির সময় একটু পানি মেশাবেন যেন খাবারটা মাখতে মাখতে সাবানের মতো শক্ত হয়। মনে রাখতে হবে, তৈরি বল ১৫-২০% মিটার পর্যন্ত পানিতে যেন না গলে। খাদ্য বাঁশের ঝুড়িতে করে খাঁচার মধ্যে পানির ১ হাত নিচে ঝুলিয়ে রাখতে হবে। মাছ ৫-১০ মিনিটের মধ্যে সব খাদ্য শেষ করে ফেলবে।

খাদ্যের পরিমাণ
সুষম খাদ্য দিয়ে ১ কেজি মাছ উৎপাদন করতে ২-৩ কেজি খাদ্য দরকার হয়। খাবারের সাথে সাথে কাঁচা গোবর, মুরগির বিষ্ঠা ও প্রচুর ঘাস দিলে খরচ অনেক কমে।

খাঁচা তৈরির খরচ
২০ ফুট দৈর্ঘ্যের একটি খাঁচা তৈরিতে খরচ হয় প্রায় ১৬ হাজার টাকা, যা চার-পাঁচ বছর স্থায়ী হয়।

উৎপাদন
মাছের আকার ৩০০-৪০০ গ্রাম হলেই বিক্রির উপযোগী হয়, আর এ ক্ষেত্রে সময় লাগে মাত্র ছয় মাস। প্রতি ঘনমিটারে কমপক্ষে ৩০ কেজি মাছ উৎপাদিত হয়ে থাকে। সাধারণত চাষকৃত পোনার ওজন ১০ গ্রাম হয়ে থাকে। তবে এ ক্ষেত্রে আকারে বড় অর্থাৎ ২০-৩০ গ্রাম ওজনের পোনা চাষ করলে সর্বোচ্চ উৎপাদন পাওয়া যায়। সব খরচ বাদ দিয়ে প্রতি ১০টি খাঁচা থেকে প্রতি ছয় মাসে কমপক্ষে ১ লাখ ১০ হাজার টাকা আয় করা সম্ভব।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com