আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

এগ্রোবিজ

মৎস্যখাতে সংকটের শঙ্কা, পরিকল্পিত পদক্ষেপের আশ্বাস মন্ত্রীর

 মৎস্যখাতে সংকটের শঙ্কা, পরিকল্পিত পদক্ষেপের আশ্বাস মন্ত্রীর
মৎস্যখাতে সংকটের শঙ্কা, পরিকল্পিত পদক্ষেপের আশ্বাস মন্ত্রীর

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ পরিস্থিতির মধ্যে দেশ অনেকটাই অচল হয়ে পড়েছে। দেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ মৎস্যখাতের কার্যক্রমও অনেকটা স্থবির হয়ে পড়েছে। এ অবস্থা চলমান থাকলে আগামী দিনগুলোতে মৎস্যখাতে সংকট দেখা দিতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ বিষয়ে সচেতন রয়েছেন জানিয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী বলেছেন, এ খাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের ক্ষতি পোষাতে সহায়তা করা হবে। এছাড়া মাছের ঘাটতি থেকে উত্তরণে যা যা করা দরকার আমরা তা করব। সেটা অবশ্যই পরিকল্পিত উপায়ে হবে।

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের পরিপ্রেক্ষিতে প্রথম পর্যায়ে গত ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে সরকার। পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় ছুটি ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে, গণপরিবহনও। সবাইকে ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে সরকার।

মৎস্যখাতের সঙ্গে জড়িতরা জানিয়েছেন, মৎস্যপোনা পরিবহন ও বাজারজাতকরণে বাধা দেয়া হচ্ছে। মাছের মাধ্যমে করোনা ছড়ানোর গুজব ছড়ানো হচ্ছে। আমদানিকৃত মৎস্যখাদ্য উপকরণ ছাড়করণে বন্দর ও কাস্টমস জটিলতা দেখা দিয়েছে। বিভিন্ন স্থানে বন্ধ রয়েছে মাছের মোকাম।

তারা আরও জানিয়েছেন, আমাদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় প্রায় ৬০ শতাংশ প্রাণিজ আমিষের জোগান দেয় মাছ। দেশের মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় মাছের জোগান অব্যাহত রাখতে সরকারকে দ্রুত পদক্ষেপ নিতে হবে।

এ বিষয়ে শনিবার মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম জাগো নিউজকে বলেন, ‘করোনা প্রাদুর্ভাবের কারণে সব সেক্টর যেমন কঠিন সমস্যার মুখোমুখি, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সেক্টরও সেই একই রকম কঠিন সমস্যার মুখোমুখি।’

তিনি বলেন, ‘এ অবস্থা থেকে উত্তরণে আমরা ইতোমধ্যে বিভিন্ন রকম বিষয় বিবেচনা করছি। যারা লোন নিয়ে মাছচাষ করছেন। বিভিন্ন খামার করছেন। তাদের লোনের ইন্টারেস্ট কীভাবে কমানো যায়, প্রণোদনা দেয়া যায় কিনা- এ বিষয়ে সরকারের সর্বোচ্চ মহলের কাছে প্রস্তাব রেখেছি।’

‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আগামীকাল সংবাদ সম্মেলনে এই প্রণোদনা বা অন্যান্য বিষয়ে মতামত দেবেন। আমরা আশা করি, সেখানে এই সেক্টরের ব্যাপারেও একটা মতামত আসবে’ বলেন রেজাউল করিম।

মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা বর্তমানে পরিস্থিতির স্থিতিশীলতা রক্ষা করতে চাই, এরপর পরবর্তী পদক্ষেপে যাব।’

মৎস্যমন্ত্রী বলেন, ‘মাছের যে ঘাটতি দেখা দেবে, এই অবস্থা থেকে উত্তরণে, সেই প্রেক্ষাপটে আমাদের যা যা করা দরকার আমরা তা করব। সেটা অবশ্যই পরিকল্পিত উপায়ে হবে। যাতে এই ঘাটতি আমরা কাটিয়ে উঠতে পারি।’

শনিবার মৎস্যখাত সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে সভায় বসেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদ। সভায় মৎস্য অধিদফতরের মহাপরিচালক কাজী শামস আফরোজসহ মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, বাংলাদেশ মেরিন ফিশারিজ অ্যাসোসিয়েশন, ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ফ্রোজেন ফুড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ লাইভ অ্যান্ড চিলড ফুড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন, শ্রিম্প হ্যাচারি অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ এবং ফিশ হ্যাচারি অ্যান্ড ফার্ম ওনার্স অ্যাসোসিয়েশন বাংলাদেশ-এর নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় সংশ্লিষ্টরা সমস্যাগুলো তুলে ধরেন। অপরদিকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে করোনা সংকটেও মৎস্য উৎপাদন, সরবরাহ, বিপণন ও রফতারি অব্যাহত রাখার জন্য মৎস্যখাতের অংশীজনদের যার যার জায়গা থেকে কাজ করার আহ্বান জানানো হয়। এ সংক্রান্ত সমস্যা তাৎক্ষণিকভাবে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরে স্থাপিত মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণকক্ষে হটলাইনের মাধ্যমে (হটলাইন নম্বর-০২-৯১২২৫৫৭) অবহিত করার জন্যও অনুরোধ জানানো হয়।

সমস্যা সমাধানে মন্ত্রণালয় দ্রুততার সাথে উদ্যোগ নেবে বলে এ সময় জানানো হয়। সমস্যা সমাধান ও সৃষ্ট ক্ষতিপূরণে সরকার সাধ্যমত সবকিছু করবে বলেও অংশীজনদের আশ্বাস দেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব।

মৎস্যচাষীদের ব্যাংকঋণের সুদ মওকুফ, কিস্তি স্থগিতকরণ ও প্রণোদনা দেয়ার বিষয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সাথে সমন্বয় করে ব্যবস্থাগ্রহণ, মৎস্যখাতের সমস্যা সমাধানে স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণ করা হবে বলে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

মৎস্য অধিদফতর থেকে জানা গেছে, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ মুক্তজলাশয়ের (নদী, সুন্দরবন, কাপ্তাই লেক, বিল ও প্লাবনভূমি) পরিমাণ প্রায় ৩৯ লাখ ২০ হাজার হেক্টর, বদ্ধ জলাশয়ের (পুকুর, মৌসুমি চাষকৃত জলাশয়, বাঁওড় ও চিংড়ি ঘের) পরিমাণ ৭ লাখ ৮৩ হাজার হেক্টর, সামুদ্রিক পানিসীমার পরিমাণ ১ লাখ ৬৬ হাজার বর্গ কিমি. এবং সমুদ্র উপকূল রয়েছে ৭১০ কিমি.। যেখানে কিছু উদ্যোগের মাধ্যমে মাছের উৎপাদন বিপুল পরিমাণ বাড়ানো যায় বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

মৎস্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সরকারের উন্মুক্ত জলাশয়ে পোনা অবমুক্তি কার্যক্রম রয়েছে। প্রতি অর্থবছরেই গুণগত মানসম্পন্ন ও বিপন্ন প্রায় প্রজাতির মাছের পোনা অবমুক্ত করা হয়। এই মাছের সংকট কাটানো কিংবা উৎপাদন বাড়াতে সরকার এই কার্যক্রমটি আরও জোরদার করতে পারে।

মৎস্য অধিদফতর থেকে জানা গেছে, সম্প্রতি বাংলাদেশ আমাদের দেশে সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে প্রবাহমান নদী, উন্মুক্ত জলাশয়, লেক বা বৃহৎ জলাশয়ে খাঁচায় মাছচাষ বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশের কিছু কিছু এলাকায় যেমন চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, ফরিদপুর, বরিশাল, ময়মনসিংহ, ঢাকা, মুন্সিগঞ্জ, গোপালগঞ্জ, পাবনা, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলাসহ অন্যান্য অঞ্চলে খাঁচায় মাছচাষ ক্রমান্বয়ে প্রসার লাভ করছে।

অধিদফতরের একজন কর্মকর্তা জানান, গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর জন্য সহজে পুষ্টিকর খাদ্য সরবরাহ, দারিদ্র্যবিমোচন, বেকারত্ব দূরীকরণ ও তাদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নে খাঁচায় মাছচাষ প্রযুক্তি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। শুধু গ্রামীণ জনগোষ্ঠীই নয় খাঁচায় মাছচাষে ব্যক্তি উদ্যোক্তাদের উদ্বুদ্ধ করে তুলতে হবে। কিন্তু প্রবাহমান নদী, উন্মুক্ত জলাশয়ে খাঁচা স্থাপনের মাধ্যমে মাছচাষের জন্য বৈধ মালিকানার কোনো ভিত্তি না থাকায় ব্যবহারের আইনগত অধিকার বা বৈধতা বা নীতিমালা না থাকায় খাঁচায় মাছচাষের বিপুল সম্ভাবনা থাকা সত্ত্বেও আশানুরূপভাবে বিকশিত হচ্ছে না। এ জন্য একটি নীতিমালা করা হয়েছে।

এই নীতিমালাটি যথাযথভাবে বাস্তবায়নে পদক্ষেপ নিলে মৎস্যখাত আরও এগিয়ে যাবে বলেও মনে করেন ওই কর্মকর্তা।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

এগ্রোবিজ

বাংলাদেশে জিঙ্ক রাইস আপডেট

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

উত্তরের কৃষকরা বন্যার বিরুদ্ধে লড়াই করে

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

তথ্য মহিলারা তথ্য-পরিষেবা বিপ্লব নিয়ে আসে

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

উত্তরের চা কৃষকরা

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

করোনায় কৃষিই হতে পারে একমাত্র অবলম্বন

 করোনায় কৃষিই হতে পারে একমাত্র অবলম্বন
করোনায় কৃষিই হতে পারে একমাত্র অবলম্বন

করোনাভাইরাসের থাবায় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সবচেয়ে ভয়ঙ্করতম বৈশ্বিক সংকট সৃষ্টি হয়েছে। উন্নত বিশ্বের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড প্রায় স্থবির হয়ে যাওয়ার প্রভাব সারা বিশ্বেই পড়তে শুরু করেছে। বড় বড় বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠান, বিমান পরিবহন সংস্থা দেউলিয়া হয়ে যাচ্ছে। পর্যটন ও ভারি শিল্প সমৃদ্ধ দেশগুলো একদিকে যেমন প্রতিদিন লোকসান দিচ্ছে; সাথে সাথে শেয়ার বাজারে ক্রমাগত দর পতনে মূলধন পুনর্গঠনও প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী অর্থনৈতিক পরামর্শক সংস্থা ম্যাকেঞ্জি অ্যান্ড কোম্পানির মতে, করোনা সংকটের পর বৈশ্বিক বিমান পরিবহন, জ্বালানি এবং তৈরি পোশাক খাত তার স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে পেতে বেশ কয়েক বছর সময় লেগে যাবে। প্রাইসমার্কের মতো ইউরোপের তৈরি পোশাক বাজারজাতকরণ প্রতিষ্ঠান দেউলিয়া হয়ে গেছে। মূলধন সংকটে দেউলিয়ত্বের পথে আরও ছোট-বড় অনেক প্রতিষ্ঠান। জাতিসংঘের মতে, বিশ্বের প্রতিটি দেশ তার জিডিপির ১০ শতাংশ লোকসানের সম্মুখীন হবে। এই হিসাবে বাংলাদেশর ক্ষতি হবে প্রায় আড়াই লাখ কোটি টাকারও বেশি।

বৈশ্বিক অর্থনীতির মন্দার ঢেউ বাংলাদেশেও লাগতে শুরু করেছে। রেমিটেন্স আয় কমে গেছে। এপ্রিলে আরও কমবে। আগামী দিনগুলোতে যে এই আয় কমতে থাকবে তা সহজেই অনুমান করা যায়। মধ্যপ্রাচ্যসহ বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রবাসীরা দেশে ফিরতে শুরু করেছেন। মন্দার কবলে পড়তে যাচ্ছে দেশের তৈরি পোশাক রফতানি খাতও।

বিজিএমইএ’র তথ্যমতে, এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহেই প্রায় ৩ বিলিয়ন ডলারের অর্ডার বাতিল করেছে তৈরি পোশাক রফতানি প্রতিষ্ঠানগুলো। সামনে ইউরোপ-আমেরিকার অবস্থার উন্নতি না হলে সংখ্যা আরও বাড়বে। পঞ্চাশ লাখ লোকের কর্মসংস্থানের খাত কর্মী ছাটাইয়ের ঝুঁকিতে পড়ে যাবে। বন্ধ হয়ে যাবে অনেক ছোট-বড় কারখানা।

বৈশ্বিক অর্থনীতির উপর করোনা ঝড়ের মধ্যেও আমাদের টিমটিম করে আশার আলো দেখাচ্ছে কৃষি খাত। একদা দেশের মোট জিডিপির ৬৫ ভাগ জোগান দেওয়া এই খাত বর্তমানে ১৩ থেকে ১৪ ভাগ জিডিপি জোগান দিলেও করোনা পরবর্তী অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় কৃষি খাত হতে পারে আমাদের অন্ধের যষ্টি।

কৃষি ব্যবস্থার হালচাল: আদিকাল থেকে কৃষি এবং কৃষি সংশ্লিষ্ট অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড আমাদের অর্থনীতির বড় হাতিয়ার হলেও বরাবরই এ খাত চরম অবহেলার শিকার। দালাল ও মুনাফা ভোগী লোভী ব্যবসায়ী চক্রের যাতাকলে পিষ্ট হয় দরিদ্র কৃষক। বর্তমান যুগের আধুনিক সমাজ ব্যবস্থায়ও এর খুব উন্নতি হয়নি। ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হওয়ায় কৃষকের সামাজিক অবস্থা দিনকে দিন উন্নত হওয়ার পরিবর্তে খারাপ হয়েছে।

চলমান লকডাউনে সব উৎপাদন খাত হুমকির মুখে পড়লেও কৃষকের কোনো নিস্তার নেই। কৃষক ঠিকই তার উৎপাদন প্রক্রিয়া চালু রেখেছে। পরিবহন ব্যবস্থা স্থবিরতার জন্য বিপণনে ব্যাঘাত ঘটছে। খামারে উৎপাদিত দুধ বিক্রি করতে না পারায় ফেলে দিতে হচ্ছে। ডিম ও পোল্ট্রি খামারে নামমাত্র মূল্যে উৎপাদিত পণ্য বিক্রি করতে বাধ্য হওয়ায় পথে বসেছে প্রান্তিক ক্ষুদ্র খামারী। উত্তরাঞ্চলের জেলাগুলোয় উৎপাদিত সবজি ঢাকায় আসতে পারছে না। ঢাকার পাইকাররা পণ্য সংগ্রহ করে সরবরাহে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে।

ফলে একদিকে যেমন খাদ্যদ্রব্যের মূল্য বেড়েই চলেছে; অপরদিকে লোকসানের সম্মুখীন হয়ে উৎপাদন খরচ তুলতেও হিমশিম খাচ্ছে কৃষক। মধ্যস্বত্ত্বভোগী দালাল, ফড়িয়া বা আড়তদার কেন্দ্রীক কৃষি বিপণন ব্যবস্থার ফলে কৃষক তার ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। পরিবহন সংকটের জন্য উৎপাদিত পণ্য পচে নষ্ট হচ্ছে। তাই আধুনিক ও সময়োপযোগী কৃষি বিপণন ব্যবস্থা সময়ের দাবি।

করোনা পরবর্তী সম্ভাবনা: করোনায় অধিকাংশ দেশে উৎপাদন ব্যবস্থা বন্ধ থাকায় পশ্চিমা রাষ্ট্রগুলো চরম খাদ্য সংকটে পড়তে পারে। উৎপাদনমুখী অর্থনীতির জন্য বিশ্বের অধিকাংশ দেশ চীনের উপর অধিকতর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছিল। করোনা পরবর্তী অর্থনৈতিক ব্যবস্থায় একক চীন নির্ভরশীলতা অনেকাংশেই হ্রাস পাবে। সঠিক পরিকল্পনা এবং কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ, ভারত বা ভিয়েতনামের মতো উদীয়মান রাষ্ট্রগুলোর জন্য এটি বড় সুযোগ হতে পারে।

বৈশ্বিক দুর্যোগের এই ধাক্কা আমাদের দেশে লাগলেও সরকারের সময়োপযোগী এবং কৃষি বান্ধব পদক্ষেপের ফলে দুর্যোগকালীন সার, বীজ ও কীটনাশকের পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকায় আমাদের উৎপাদন ব্যবস্থা থমকে যায়নি। আগামী দিনগুলোতে কৃষককে উপযুক্ত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে যদি ইউরোপীয় মানের খাদ্যশস্য, সবজি আমরা উৎপাদন করতে পারি। তবে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বৈশ্বিক খাদ্য ঘাটতির সুযোগে রফতানিমুখী বিপণন ব্যবস্থা তৈরি করা সম্ভব। এতে একদিকে যেমন বৈদেশিক মুদ্রা অর্জিত হবে; তেমনি বছর বছর মৌসুমে উদ্ধৃত পণ্য পচনের হাত থেকে বাঁচানো যাবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com