আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

ফুল

মোর প্রিয়া হবে এস রাণী’

সোনিয়া কাদের
মোর প্রিয়া হয়ে এস রাণী
দেব খোঁপায় তারার ফুল
কর্ণে দোলাব তৃতীয়া–তিথির
চৈতী চাঁদের দুল।
যখন হাতে হাতে প্রযুক্তি ছিল না, প্রেমিক তরুণদের পকেট অর্থে পূর্ণ ছিল না, প্রিয়ার মন রাঙাত, মান ভাঙাতে পকেটে থাকতো বেলি ফুলের মালা।



বেলি ফুলের ইংরেজি নাম Jasmine sambac, বাংলা একাডেমির অভিধানে বেলি ফুলের নাম বেলফুল হলেও সব মানুষের কাছে বেলি ফুল নামেই পরিচিত।

এখন লুকোচুরি লুকোচুরি প্রেম প্রযুক্তি–নির্ভর ও লাল গোলাপমুখী হয়ে গেলেও বিগতকালে প্রেমের অনুষঙ্গ, বেলি ফুলের মালার আবেদনের কোনো কমতি হয়নি। এখনো প্রিয়ার মন জয় করতে কিংবা অভিমান ভাঙাতে মাধ্যম হচ্ছে বেলি ফুল।

ঢাকার রাস্তার ভয়াবহ যানজটে বিরক্তি যখন চরমে তখন ‘ম্যাডাম, তাজা বেলি ফুলের মালা নেবেন?’ বলে এগিয়ে আসে শিশু ফুল বিক্রেতা। রাস্তার মোড়ে দাঁড়িয়ে থাকা ফুল বিক্রেতা শিশুদের হাতে চিকন কঞ্চিতে ঝোলানো থাকে সারি সারি লোভনীয় সৌন্দর্য।
সাদা রঙের তীব্র সুগন্ধযুক্ত, মালা গাঁথার বিশেষ উপযোগী বেলি ফুল বাংলাদেশে সবার পরিচিত।
সাজগোজের জন্য হোক কিংবা মাতাল করা সুগন্ধের কারণেই হোক, বেলি ফুল প্রিয় সবারই। হাজারো ফুলের সৌন্দর্যের মধ্যেও বেলি ফুলের আবেদন এখনো অনন্য।
প্রেমের মালা গাঁথতে বেলির মালার আছে বিশেষ ভূমিকা।
কত মুগ্ধতা, অবাক হওয়া ভালো লাগার স্মৃতি আছে বেলিকে নিয়ে! বেলি ফুলের মালার কাছে তুচ্ছ মনে হতো স্বর্ণের অলংকার। প্রিয়জনের কাছ থেকে যত বই উপহার পেয়েছি সব থাকত বেলি ফুলের মালায় জড়ানো।
সাদা বেলিকে অসম্ভব ভালোবাসি আমি। আমার কাছে বেলিকে মনে হয় পবিত্রতা ও শুভ্রতার প্রতীক।
নানা রকম ফুলে বাজার সমৃদ্ধ। অসংখ্য ফুলের রঙে-রুপে চোখ ফেরানো দায়। কিন্তু এমন স্নিগ্ধ সাদার আবেদন আর কোনোটিতেই নেই। খোঁপায়-বেণিতে কিংবা হাতে একগুচ্ছ বেলি সবার নজর কাড়তে অতুলনীয়। বিয়ের সাজের সেরা অনুষঙ্গ বেলি ফুল।


বেলি ফুল মানুষের স্নায়ুর চাপ কমায়। সাদার শুভ্রতায় নির্মল ও ফুরফুরে হয়ে ওঠে মন। মনের ক্লান্তি দূর করতে এ ফুলের সৌন্দর্য ও সৌরভ কাজ করে জাদুর মতো। রাতে বিছানার পাশে প্লেটে বেলি ফুল রাখলে অবসাদ দূর করে রাতের পরিবেশকে করে মোহনীয়। নির্মল সাদা রাগ-বিরক্তি সরিয়ে ফেলে।
প্রচলিত কথা-বাংলাদেশের কোনো মেয়ে বেলি ফুল পরে রাগ করে থাকতে পারে না।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

পরিবেশ

এ পদ্ম এল কোত্থেকে?

কথা বলার ক্ষমতা থাকলে কুমিল্লার দক্ষিণ গ্রামের পদ্ম ফুলগুলো হয়তো রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘জন্মকথা’ কবিতার শিশুটির মতোই বলত:  
‘এলেম আমি কোথা থেকে
কোনখানে তুই কুড়িয়ে পেলি আমারে।’

এখন এই বিস্ময় ঘেরা প্রশ্নগুলো করছেন উদ্ভিদবিদ, গবেষকেরা। পদ্মের এ প্রজাতি দেশে তো বটেই, পুরো এশিয়ায় বিরল। উত্তর আমেরিকার একটি প্রজাতির সঙ্গে কিছুটা মিল আছে বটে। তবে ওই পদ্মের সঙ্গেও কিছু ক্ষেত্রে ভিন্নতা পেয়েছেন গবেষকেরা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের চেয়ারম্যান রাখহরি সরকারের কথা, ‘এই নতুন প্রকৃতির পদ্মফুল নিঃসন্দেহে ভিন্নতর। এমন পদ্ম আগে কোথাও পাওয়া যায়নি।

আমাদের উদ্ভিদ জীববৈচিত্র্যে এটি একটি নতুন সংযোজন। এটা কীভাবে এখানে এল তা সত্যিই আশ্চর্যের।’

গত বছরের ৮ সেপ্টেম্বর প্রথম আলোয় পদ্মফুল নিয়ে একটি ছবি ও প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ গ্রামের একটি জলাশয়ের পদ্মের ছবিটিতে দৃষ্টি আকৃষ্ট হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের শিক্ষক এবং বিভাগের সঙ্গে কাজ করা গবেষকদের।


এই ‘অন্যরকম’ পদ্মের সন্ধানে ছুটে যান বিভাগের কয়েকজন শিক্ষক ও গবেষক। তাঁরা  ইতিমধ্যে পাঁচবার ওই এলাকায় গেছেন এবং নমুনা সংগ্রহ করেছেন। গবেষণার মাধ্যমে এই বিশেষ পদ্ম ফুলটিকে যথাযথভাবে শনাক্ত করার কাজ এগিয়ে যাচ্ছে।

গবেষকেরা বলেন, বিশ্বে পদ্মের দুই প্রজাতি। এর একটি এশিয়ান পদ্ম  (বৈজ্ঞানিক নাম-নিলাম্বো নুসিফেরা গেয়ার্টনার (Nelumbo nucifera Gaertner)। এশিয়ার বিভিন্ন দেশে এ পদ্ম জন্মে। এর রং হয় সাদা এবং হালকা বা গাঢ় গোলাপি।

গোলাপি ও সাদা বর্ণের পদ্মফুল দেখতে আমরা অভ্যস্ত এবং আমাদের দেশের সর্বত্র এই পদ্মটিই বেশি পাওয়া যায়।

আরেক প্রজাতির পদ্ম হলো আমেরিকান লোটাস বা ইয়োলো লোটাস। (বৈজ্ঞানিক নাম Nelumbo lutea Willd. )। এ প্রজাতির পদ্ম শুধু উত্তর ও মধ্য আমেরিকায় জন্মে।

বুড়িচংয়ে পাওয়া এ পদ্ম আমেরিকান লোটাসের কাছাকাছি, অন্তত রঙের দিক থেকে। কিন্তু বুড়িচংয়ের পদ্মের সঙ্গে আমেরিকান লোটাসের কিছু ক্ষেত্রে ভিন্নতা আছে বলে জানান রাখহরি সরকার। তিনি বলেন, ‘আমেরিকান লোটাসের পাপড়ির সংখ্যা যেখানে ২০ থেকে ২৫টি হয়, সেখানে নতুন এ পদ্মের পাপড়ির সংখ্যা ৭০টির মতো। আবার এর পুংকেশরের গঠনও আমেরিকান লোটাস থেকে আলাদা।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের সঙ্গে গবেষণার কাজে আছে বেঙ্গল প্ল্যান্টস রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন। এর নির্বাহী পরিচালক শিকদার আবুল কাসেম শামসুদ্দীন শুধু পদ্মফুল নিয়ে গবেষণা করছেন পাঁচ বছর ধরে। তিনিও বুড়িচংয়ে যান কয়েক বার। শামসুদ্দিন সিকদার বলেন, সাধারণ পদ্মের সঙ্গে এর আরেক ভিন্নতা হলো এটি আকারে বড়। এর গঠন শৈলী এবং বর্ণ বৈচিত্র্যময়। হালকা হলুদ বর্ণের এমন পদ্ম ইতিপূর্বে কোথাও পাওয়া যায়নি। কাজেই হলুদ বর্ণের পদ্মটি বাংলাদেশে পাওয়া সমস্ত পদ্মফুল থেকে ভিন্নতর এবং উদ্ভিদ জীববৈচিত্র্যের দৃষ্টিতে অত্যন্ত উৎসাহজনক

এই পদ্ম এখানে এল কীভাবে সেই প্রশ্নটি এখন গবেষকদের ভাবাচ্ছে। তাঁদের ধারণা, হয়তো অনেক আগে এলাকার কেউ এই পদ্ম যেখানে পাওয়া যায় সেখান থেকে নিয়ে এসেছিলেন। অর্থাৎ কেউ হয়তো উত্তর বা মধ্য আমেরিকার কোনো দেশ থেকে নিয়ে এসেছিলেন। হয়তো দীর্ঘদিনের বিবর্তনে গঠন বৈচিত্র্যের দিক থেকে এ পদ্মে ভিন্নতা এসেছে।

বুড়িচংয়ের দক্ষিণ গ্রামের খুব বয়স্ক ব্যক্তিরা বলছেন, তাঁরা ছোটবেলা থেকে এ পদ্ম দেখছেন। আর এ গ্রামের কোনো ব্যক্তি এখন বা অতীতেও ওসব দেশে গিয়েছিলেন, এর কোনো নজির নেই।

তবে একটি পদ্মের বেঁচে থাকার ক্ষেত্রে দু-তিন শ বছর কোনো বিষয় না, এমনটাই মন্তব্য করেন অধ্যাপক রাখহরি সরকার। তাঁর কথা, পদ্মের বীজ এক হাজার তিন শ বছর পর্যন্ত টিকে থাকতে পারে। তাই কয়েক শ বছর আগে এখানে এ বীজ এলে আশ্চর্য হওয়ার কিছু থাকবে না।

তবে বুড়িচংয়ের পদ্মের উৎপত্তি, এর বিকাশ নিয়ে গবেষকেরা কাজ করে যাচ্ছেন। এ নিয়ে শেষ কথা বলার সময় যে আসেনি, তা তাঁরা জোর দিয়েই বলছেন। শুধু গবেষকেরা একটি বিষয় নিশ্চিত, এ পদ্ম একেবারে নতুন। আর দেশের উদ্ভিদ প্রজাতির পরিবারে এ এক নতুন সংযোজন। সংগত কারণে, এটি গবেষণার একটি নতুন উপাদান।

জলাশয় কমে আসার সঙ্গে সঙ্গে দেশের অনেক এলাকা থেকে পদ্ম হারিয়ে যাচ্ছে। গবেষকদের কথা, বছর আট-দশ বছর আগে যেসব বিলে বা জলাশয়ে পদ্ম ছিল তা এখন পাওয়া যায় না। পদ্ম কেবল জলাশয়ে শোভা বৃদ্ধিকারী ফুল না। এটি অনেক ভেষজ গুণ সম্পন্ন এবং পুষ্টিকর খাদ্য হিসেবে ব্যবহৃত হয়। বিশেষ করে পদ্মের শিকড় চীন, জাপানসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অনেক দেশে স্বীকৃত ও সমাদৃত। এখন বুড়িচংয়ের এ পদ্মের যদি যথাযথ সংরক্ষণ হয়, এর বিস্তার হয় তবে আমাদের প্রকৃতির জন্য এ হবে এক বড় শুভ সংবাদ।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

গরু-ছাগলেই খাচ্ছে ফুল

  • করোনায় বেচাবিক্রি বন্ধ। পাঁচ মাসে নষ্ট হয়েছে ৪৫০ কোটি টাকার ফুল। তাই প্রণোদনা ঋণ পেতে চান ফুলচাষি ও ব্যবসায়ীরা।
  • করোনার কারণে গত ২৪ মার্চ থেকে গদখালী ফুলের বাজার বন্ধ রয়েছে। আর মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে তছনছ হয়ে গেছে ফুলখেত।
  • বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটি জানায় দেশে করোনার কারণে গত পাঁচ মাসে ৪৫০ কোটি টাকার ফুল নষ্ট হয়েছে।

করোনাভাইরাস ও ঘূর্ণিঝড় আম্পান যশোরের গদখালীর ফুলচাষি ও ব্যবসায়ীদের চরম আর্থিক সংকটের মুখে ঠেলে দিয়েছে। কারণ, মাঠে তেমন ফুল নেই, যাও–বা আছে, তা-ও বিক্রি হচ্ছে না। ফলে গরু-ছাগলকেই খাওয়ানো হচ্ছে ফুল। এখন অবস্থা এতটাই সঙিন যে সংসারের দৈনন্দিন খরচ মেটাতেও হিমশিম খাচ্ছেন ফুলচাষি ও ব্যবসায়ীরা। এর ওপর রয়েছে ব্যাংক ও এনজিওগুলোর ঋণ পরিশোধের চাপ।


করোনার কারণে গত ২৪ মার্চ থেকে গদখালী ফুলের বাজার বন্ধ রয়েছে। আর মে মাসের তৃতীয় সপ্তাহে ভয়াবহ ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে তছনছ হয়ে গেছে ফুলখেত, ধ্বংস হয়েছে ফুল ও নার্সারির শত শত শেড।

বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির সভাপতি আবদুর রহিম প্রথম আলোকে বলেন, দেশে করোনার কারণে গত পাঁচ মাসে ৪৫০ কোটি টাকার ফুল নষ্ট হয়েছে। এর মধ্যে শুধু যশোর অঞ্চলেই অন্তত ৩০০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। এতে এই অঞ্চলের ফুলচাষি ও ব্যবসায়ীরা চরম বিপর্যয়ে পড়েছেন।

আবদুর রহিম বলেন, ‘দেশের প্রায় ৩০ লাখ মানুষের জীবিকা ফুলের চাষ ও ব্যবসার ওপর নির্ভরশীল। ফুলচাষিদের প্রায় ৭০ ভাগ বর্গাচাষি। করোনাভাইরাস ও আম্পানের কারণে এই খাতে যে পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে, তা পুষিয়ে নিতে ৫০০ কোটি টাকার কৃষি প্রণোদনা ঋণ প্রয়োজন। ক্ষতিগ্রস্ত বর্গাচাষি ও ফুল ব্যবসায়ীদের সহজ শর্তে ৪ শতাংশ সুদে ঋণ দিতে হবে। তা না হলে এই খাতকে বাঁচানো কঠিন হয়ে পড়বে।

২৫ বছর ধরে ফুলের চাষ করা প্রতিবন্ধী ইমামুল হোসেন-সাজেদা দম্পতি জানান, সংসার ও দুই ছেলেমেয়ের লেখাপড়ার ব্যয় মেটাতে ভেঙে পড়া শেডের টিন বিক্রি করে দিয়েছেন। সাজেদা বেগম বলেন, ‘ঋণের কিস্তির জন্য ব্যাংক ও এনজিওর লোকজন নিয়মিত বাড়িতে আসছেন। কিন্তু কিস্তি পরিশোধ করতে পারছি না। কী খাব আর কী করে ঋণ শোধ করব, ভাবতেই মাথায় যেন আকাশ
ভেঙে পড়ে।’

ঝিকরগাছা উপজেলার পানিসারা গ্রামের মহিদুল ইসলাম বলেন, ‘চার বিঘা জমিতে রজনীগন্ধার চাষ করেছি। বিঘাপ্রতি প্রায় তিন লাখ টাকার ফুল বিক্রি হওয়ার কথা। কিন্তু করোনাভাইরাস ও আম্পান আমাদের পথে বসিয়েছে।’

পানিসারার আরেক চাষি মো. জালাল উদ্দীনের একটি ফুলের দোকানও আছে। তিনি জানান, দিনে ১০০ টাকাও বিক্রি হয় না। অথচ আগে ২-৩ হাজার টাকা বেচাকেনা হতো।

ফুলের দোকানি তারেক রহমান বলেন, ‘আগে দিনে ১০-২০ হাজার টাকার এবং বিশেষ দিনগুলোতে ১ লাখ টাকা পর্যন্ত ফুল বিক্রি করেছি। এখন দিনে সর্বোচ্চ ৭০০ টাকার ফুল বিক্রি হয়। এতে চলছে না।’

১৯৮২ সালে একটি নার্সারির মাধ্যমে ঝিকরগাছা উপজেলার পানিসারা এলাকায় ফুলের চাষ শুরু করেন শের আলী সরদার। দেশে বাণিজ্যিকভাবে ফুল চাষের পথিকৃৎ বলা হয় তাঁকে। তাঁকে দেখে পানিসারা ও গদখালী এলাকায় ৭৫টি গ্রামের প্রায় ১০ হাজার চাষি ফুল চাষে এসেছেন। তিনি বলেন, ‘৪১ বছরের ফুল চাষের জীবনে এমন অবস্থা আমি কখনো দেখিনি।’

পানিসারা গ্রামের আজিজুর সরদার জানান, আগে প্রতি মাসে যেখানে দেড় থেকে পৌনে দুই লাখ টাকার ফুল ও চারা বিক্রি হতো, সেখানে গত পাঁচ মাসে হয়েছে মাত্র ৯৫০ টাকা। ব্যাংকে ১৩ লাখ টাকা এবং দুটি এনজিওতে ৭ লাখ টাকার ঋণ রয়েছে তাঁর। ঋণের কিস্তি দিতে ব্যাংক ও এনজিও থেকে চাপ দিচ্ছে। তিনি ঝড়ে ভেঙে পড়া শেডের ৩০০ পিস টিন ৬০ হাজার টাকায় বিক্রি করে এখন সংসার চালাচ্ছেন। আজিজুরের স্ত্রী তপুরা বেগম বলেন, খুব দুশ্চিন্তা হয়। রাতে ভালো ঘুম হয় না।
শফিকুল ইসলাম নামের একজন বলেন, ‘দুই বিঘা জমিতে জারবেরার চাষ করেছি। করোনায় বিক্রি বন্ধ ও আম্পানে জমি লন্ডভন্ড হওয়ায় ধারদেনায় জর্জরিত হয়ে পড়েছি। এভাবে জীবন চলছে না।’

জানতে চাইলে ঝিকরগাছার কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, এই উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নে প্রায় ৬২৫ হেক্টর জমিতে বাণিজ্যিকভাবে ফুলের চাষ হচ্ছে। ফুল চাষের সঙ্গে ৭ থেকে ১০ হাজার কৃষক ও প্রায় ১ লাখ শ্রমিক সম্পৃক্ত রয়েছেন।

যশোর শহর থেকে ১৮ কিলোমিটার পশ্চিমে যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের পাশে ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী ও আশপাশে গড়ে উঠেছে ফুল চাষ ও পাইকারি বিক্রির বৃহত্তম মোকাম। ফুল সবচেয়ে বেশি কেনাবেচা হয় বিজয় দিবস, একুশে ফেব্রুয়ারি, স্বাধীনতা দিবস, পয়লা ফাল্গুন, বসন্ত দিবস, বিশ্ব ভালোবাসা দিবস, বাংলা নববর্ষ ও দুই ঈদ উপলক্ষে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশেও রপ্তানি হচ্ছে এখানকার ফুল।

গদখালী বাজারের দোকানি উজ্জ্বল হোসেন বলেন, ‘আগে অনেক ফুল বিক্রি হতো। এখন ফুল কেনার লোক নেই। এভাবে আর চলতে পারছি না।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

জলজ ফুলের স্বাদ

ফুল মানেই সৌন্দর্যের ডালি, মনের খোরাক, পবিত্রতার প্রতীক। ফলে যুগে যুগে কবিরা ফুল নিয়ে লিখে গেছেন বিস্তর কবিতা। কালিদাস থেকে দ্বিজ কানাই, রবীন্দ্রনাথ-নজরুল-জীবনানন্দ সবাই সৌন্দর্যের সঙ্গে ফুলের রূপকল্প চিত্রিত করেছেন দুহাত খুলে। কিন্তু কোনো কবিই লেখেননি, পাকা রাঁধুনির হাতে পড়ে ফুলও হয়ে উঠতে পারে এক অনির্বচনীয় কবিতা, স্বাদ কোরকে তুলতে পারে স্বর্গীয় অনুরণন।

বর্ষাবিদায়ের ক্ষণ চলছে। আকাশে মেঘের ঘনঘটা থাকলেও শুরু হয়েছে শরৎকাল। সাধারণভাবে এ সময় জলমগ্ন বাংলাদেশে থাকে নিরাগ পানির জলজ সৌন্দর্য। খালে-বিলে, থরে-বিথরে ফুটে থাকে লাল, সাদা, বেগুনি রঙের শাপলা ফুল। তার ওপর ফড়িংয়ের ওড়াউড়ি। মনমাতানো এ দৃশ্যের রাজা শাপলা ফুল খাদ্য হিসেবেও মনমাতানো। খাল-বিলের এই দেশে জলজ ফুল শাপলা খাদ্য হিসেবে জনপ্রিয় হবে, এটাই স্বাভাবিক। জলাভূমিতে অনায়াসে জন্মানো সাদা বা লাল রঙের শাপলার পাপড়ি থেকে কাণ্ড পুরোটাই বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় খাওয়া হয়। এর জনপ্রিয় রান্না সম্ভবত চিংড়ি মাছ দিয়ে।

তাজা শাপলার ভেতরের হলুদ অংশটুকু সাবধানে ফেলে দিন। ওপরের সবুজ পাপড়িগুলোও ফেলে দিতে পারেন। ফুলটি ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। চালের গুঁড়া অথবা বেসনে লবণ, হালকা হলুদ, রসুনবাটা আর ডিম ভেঙে দিয়ে ঘন ব্যাটার বানিয়ে নিন। এই ব্যাটারে শাপলা চুবিয়ে ডুবো তেলে ভেজে নিন। ঝাল খেতে চাইলে মরিচের গুঁড়া কিংবা কাঁচা মরিচ স্বাদমতো বেটে ব্যাটারে মিশিয়ে নিতে পারেন। শরতের অকালবৃষ্টি আর করোনাকালের জন্য বিস্তৃত বৈকালিক অবসরে একবার খেয়ে দেখতে পারেন। অথবা গরম ভাতের সঙ্গে গরম গরম বড়াও খেয়ে দেখতে পারেন।

আর একটি রান্নার প্রণালি বলে দিই আপনাদের। শাপলার ডাঁটা ছোট ছোট করে কেটে নিয়ে ওপরের আঁশ ছাড়িয়ে নিয়ে ধুয়ে হালকা সেদ্ধ করুন, যাতে ডাঁটা গলে না যায়। এরপর মসুর ডাল সেদ্ধ করে নিন। কড়াইতে তেল গরম করে শুকনো মরিচ, কালিজিরা ফোড়ন দিন। চাইলে এর মধ্যে গোটা কয়েক রসুনের কোয়া দিয়ে হালকা করে নেড়েচেড়ে সেদ্ধ শাপলাগুলো দিয়ে দিন। লবণ, হলুদগুঁড়া দিয়ে ধীরে ধীরে নাড়াচাড়া করুন যাতে শাপলা ডাঁটা গলে না যায়। শাপলা যেহেতু জলজ উদ্ভিদ তাই এটা রান্নার সময় পানি দেওয়ার প্রয়োজন নেই। সবকিছু ফুটে উঠলে সেদ্ধ করা ডাল মিশিয়ে অল্প আঁচে জ্বাল দিয়ে শুকনো শুকনো করে নিন। ঘ্রাণেই বুঝে যাবেন কখন আপনার শাপলার তরকারি হয়ে গেছে। নামিয়ে গরম ভাতের সঙ্গে খাবেন। এ রান্নাটির সঙ্গে আপনি চিংড়ি মিশিয়ে দিতে পারেন। সে ক্ষেত্রে ছোট চিংড়ি ভেজে নিতে হবে আগে। তারপর মিশিয়ে দিতে হবে রান্নায়।

শুধু কি শাপলা? কচুরিপানার ফুলও সুখাদ্য, যদি আপনি রান্নাটা করতে পারেন। তবে এর জন্য আপনাকে নিতে হবে পরিষ্কার পানির খাল-বিলে ফুটে থাকা কচুরিপানার ফুল। এর চাটনি বেশ সুস্বাদু। বিভিন্নভাবেই চাটনি বানানো সম্ভব। আপনি নিজেই ভেবে বের করুন চাটনিটা তৈরি করবেন কীভাবে।

বর্ষাকালে কচুর ফুল ফোটে। তবে এই ভাদ্র মাসের ঝিরি ঝিরি বৃষ্টিতেও কচুর ফুল পাবেন। আঁটি হিসেবে বাজারে কিনতে পাবেন এ সময়। কচুর ফুল থেকে সবুজ রঙের ডাঁটা এবং ভেতরের পুষ্পমঞ্জরি বাদ দিন। তারপর হলুদ ফুল ছোট ছোট টুকরা করে কেটে সেদ্ধ করে নিন। এরপর পাঁচফোড়ন অথবা শুধু জিরা এবং কাঁচা মরিচ ফোড়ন দিয়ে সেদ্ধ কচুর ফুল কষিয়ে নিন। এর সঙ্গে অনেক কিছুই যোগ করতে পারেন আপনি। পারেন কাঁঠালের বিচি যোগ করতে, ছোট চিংড়ি মাছ যোগ করতে। কাঁঠাল বিচি যোগ করলে আগেই সেদ্ধ করে নেবেন। তারপর কষানোর সময় যোগ করে দেবেন। আর চিংড়ি যোগ করতে চাইলে ভেজে নেবেন।

একটি বিষয় স্মরণ রাখবেন, সেটি মসলার ব্যবহার। ফুলের মতো নাজুক জিনিসে ভারী মসলা, যেমন, রসুন, গরমমসলা ইত্যাদি ব্যবহার করবেন না। জিরা, গোলমরিচের মতো হালকা মসলা ব্যবহার করুন। পাঁচফোড়নের ব্যবহারে খাবারের স্বাদ হবে একেবারে ভিন্ন রকম।

ফুল সুন্দর, খাদ্যও সুন্দর। সৌন্দর্যের উপাসনা করতে গিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভুগবেন না। কবি কিংবা রাঁধুনি উভয়েই সৌন্দর্যের পূজারি। ন্দর্যে থাকুন। সুন্দর থাকুন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

পাখি নামের ফুল

সবুজ পাতার আড়ালে বাদুড়ের মতো উল্টো হয়ে ঝুলে থাকে পাখি। তবে এই পাখি পক্ষীকূলের কেউ নয়, এটি একটি ফুলের নাম। পাখিফুলের বৈজ্ঞানিক নাম (Brownea Coccinea)। জন্মস্থান ভেনেজুয়েলায়। তাই এর প্রচলিত নাম রোজ অব ভেনেজুয়েলা। প্রজাতিটি গায়ানা, ভেনেজুয়েলা, ব্রাজিল এবং ত্রিনিদাদ ও টোবাগোর স্থানীয়। পাখি ফুল আমাদের দেশে বেশ দুর্লভ। জানা মতে, ঢাকার সবচেয়ে পুরোনো গাছটি আছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যানটিনের পাশে। বর্তমানে রমনা পার্ক, শিশু একাডেমিসহ বিভিন্ন পার্ক ও উদ্যানে নতুন কিছু গাছ লাগানো হয়েছে। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের বোটানিক্যাল গার্ডেন ও মহেশখালীর আদিনাথ মন্দিরসহ চট্টগ্রামের বৌদ্ধ বিহারগুলোতেও এই গাছ চোখে পড়ে।


সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

ফুলের রাজ্যে

পাহাড়ে এখন নানা প্রজাতির ফুল ফুটছে। খাগড়াছড়ি জেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে ফুলের ছবি সংগ্রহ করেছেন প্রথম আলোর ফটোসাংবাদিক নীরব চৌধুরী। খাগড়াছড়ি সদরের খেজুরবাগান হর্টিকালচার সেন্টারের উপপরিচালক মোয়াজ্জেম হোসেন এই ফুলগুলোর বৈজ্ঞানিক নাম জানিয়েছেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com