আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

বিশ্ব

মার্স মিশন: মঙ্গলগ্রহে মহাকাশযান পাঠাচ্ছে প্রথম কোন আরব দেশ

মঙ্গলগ্রহে মিশন পাঠাতে যাচ্ছে আরব আমিরাত।
মঙ্গলগ্রহে মিশন পাঠাতে যাচ্ছে আরব আমিরাত।

জ্বালানি তেলের ব্যবসা আর যথেষ্ট নয় সংযুক্ত আরব আমিরাতের জন্য। তাদের দৃষ্টি এখন মহাকাশে। পাঁচ বছরের মতো সময় নিয়ে একটি মহাকাশযান তৈরি করেছে দেশটি।

যাতে জ্বালানি তেল ভর্তি করা শুরু হবে আগামী সপ্তাহে। মানবহীন এই মহাকাশযানটির নাম দেয়া হয়েছে ‘আমাল’। আরবিতে যার অর্থ ‘আশা’।

সবকিছু ঠিকঠাক গেলে ৪৯৩ মিলিয়ন কিলোমিটার দূরত্বে অবস্থিত মঙ্গলগ্রহে পৌঁছাতে মহাকাশযানটির সময় লাগবে আনুমানিক সাত মাস।

মঙ্গলগ্রহের এক বছর ৬৮৭ দিনে। এই পুরো সময় ধরে মহাকাশযানটি মঙ্গলগ্রহেরে কক্ষপথ প্রদক্ষিণ করবে। মঙ্গলগ্রহেরে কক্ষপথ একবার ঘুরতে সময় লাগবে ৫৫ ঘণ্টা।

গ্রহের চারিদিকে ঘুরে ঘুরে গোলাপি রঙের এই গ্রহটি সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করবে আমাল। এই প্রকল্পের পরিচালক সারাহ আল আমিরি এক সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন দেশটির তরুণ বিজ্ঞানীদের জন্য এই মিশন ‘স্পেস ইঞ্জিনিয়ারিং’ পেশায় যুক্ত হওয়ার দ্বার উন্মুক্ত করবে।

আসছে ১৪ই জুলাই জাপানের প্রত্যন্ত অঞ্চলে অবস্থিত দ্বিপ তানেগাশিমা থেকে মহাকাশযানটি উৎক্ষেপণ করার কথা রয়েছে। করোনাভাইরাসের কারণে প্রকল্পের সাথে যুক্ত প্রকৌশলীদের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হয়েছে তাই এই যাত্রা ইতিমধ্যেই একবার পিছিয়েছে।

মঙ্গলগ্রহকে দেখতে গোলাপি রঙের মনে হয়।
মঙ্গলগ্রহকে দেখতে গোলাপি রঙের মনে হয়।

জাপানিজ ‘রকেট’ দ্বারা চালিত মহাকাশযানটিতে তিন ধরনের ‘সেন্সর’ থাকবে। যার কাজ হবে মঙ্গলগ্রহের জটিল বায়ুমণ্ডল পরিমাপ করা। মহাকাশযানটিতে খুব শক্তিশালী ‘রেজুলুশন’ সম্বলিত একটি ‘মাল্টিব্যান্ড’ ক্যামেরা থাকবে।

যা সূক্ষ্ম বস্তুর ছবি তুলতে সক্ষম। গ্রহটির বায়ুমণ্ডলের উপরিভাগ ও নিম্নভাগ পরিমাপ করার জন্য থাকবে একটি ‘ইনফ্রারেড স্পেকটোমিটার’। যা তৈরি করে দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা স্টেট ইউনিভার্সিটি। তৃতীয় আরেকটি সেন্সর গ্রহটির অক্সিজেন ও হাইড্রোজেনের মাত্রা পরিমাপ করবে।

সারাহ আল আমিরি বলেছেন এই মিশনের অন্যতম কাজ হল পানি তৈরিতে দরকার এই দুটি গুরুত্বপূর্ন উপাদান কেন মঙ্গলগ্রহের বায়ুমণ্ডলে থাকতে পারছে না তা বোঝার চেষ্টা করা।

যুক্তরাজ্যের সায়েন্স মিউজিয়াম গ্রুপের পরিচালক স্যার ইয়ান ব্ল্যাচফোর্ড বলেছেন, “এর আগে যত মহাকাশযান মঙ্গলগ্রহে পাঠানো হয়েছে সেগুলো ভূতত্ত্বের দিকে মনোযোগ দিয়ে কাজ করেছে। কিন্তু এবার মঙ্গলগ্রহের জলবায়ু সম্পর্কে একটি সামগ্রিক চিত্র পাওয়া যাবে।”

এর আগে পাঠানো মহাকাশযান তত্ত্বের দিকে মনোযোগ দিয়ে কাজ করেছে।
এর আগে পাঠানো মহাকাশযান তত্ত্বের দিকে মনোযোগ দিয়ে কাজ করেছে।

মহাকাশবিজ্ঞানে আরব আমিরাতের যোগসূত্র নতুন নয়। এর আগে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করার জন্য একটি রকেট পাঠিয়েছিল দেশটি। গত বছর রাশিয়ান একটি মহাকাশযানে করে আন্তর্জাতিক স্পেস স্টেশনে গিয়েছিলেন আমিরাতের প্রথম কোন নাগরিক।

তবে প্রথম আরব হিসেবে মহাকাশে গেছেন সৌদি আরবের যুবরাজ সুলতান বিন সালমান আল-সদ। ১৯৮৫ সালে মার্কিন একটি মহাকাশযানে করে গিয়েছিলেন তিনি।

তবে আরব আমিরাতের মঙ্গলগ্রহে মহাকাশযান পাঠানোর এই চেষ্টা যেকোনো আরব দেশের মধ্যে সবচেয়ে উচ্চাকাঙ্ক্ষী। ব্রিটেনের ওপেন ইউনিভার্সিটির মহাকাশ বিজ্ঞানের অধ্যাপক মনিকা গ্রেডি বলছেন, এই মিশন মহাকাশ যাত্রার ক্ষেত্রে একটি বিশাল পরিবর্তনের ইঙ্গিত দেয়।

প্রথম আরব হিসেবে মহাকাশে গেছেন সৌদি আরবের যুবরাজ সুলতান বিন সালমান আল-সদ।
প্রথম আরব হিসেবে মহাকাশে গেছেন সৌদি আরবের যুবরাজ সুলতান বিন সালমান আল-সদ।

এর আগে বিশ্বের বড় শক্তিশালী দেশগুলোই মহাকাশ বিজ্ঞানে প্রাধান্য বজায় রেখেছে।

তিনি বলছেন, “মঙ্গলগ্রহ সম্পর্কে একটি অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে এই মিশন একটি সত্যিকার সামনের দিকে অগ্রসর হওয়ার মতো পদক্ষেপ। কারণ এতে বোঝা যায় ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সি এবং মার্কিন নাসা ছাড়া অন্য কোন দেশও মঙ্গলগ্রহে যেতে পারে। আশা করি তারা যেন সেখানে পৌঁছাতে পারবে। মঙ্গলগ্রহে পাঠানো মিশন ব্যর্থ হওয়ার একটি লম্বা ইতিহাস রয়েছে।”

এই প্রকল্পের নেতৃবৃন্দ বিশ্বকে জানান দিচ্ছেন যে সেই আট শতাব্দী আগে, এখনকার সময়ের অনেক উন্নত দেশের চেয়েও আরব বিজ্ঞানীরা অনেক অগ্রসর ছিলেন।

সেসময় বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারের দিক থেকে তারা ছিলেন সামনের সারিতে। আজকের দিনে দুবাইয়ের শাসক উচ্চাকাঙ্ক্ষী এই মিশনের মাধ্যমে সেই সাংস্কৃতিক অহংকারকে আবারও উদ্দীপ্ত করতে চান।

সেই সাথে জ্বালানি তেলের উপরে যে নির্ভরশীলতা তা থেকে নতুন কিছুতে সরে আসতে চান। যদি এই মিশন সফল হয় তবে দেশটি প্রতিষ্ঠার ঠিক ৫০ বছরে এসে বিশ্বকে তাক লাগিয়ে দেবে।

  • প্রথম আরব হিসেবে মহাকাশে গেছেন সৌদি আরবের যুবরাজ সুলতান বিন সালমান আল-সদ।

    প্রথম আরব হিসেবে মহাকাশে গেছেন সৌদি আরবের যুবরাজ সুলতান বিন সালমান আল-সদ।

  • এর আগে পাঠানো মহাকাশযান তত্ত্বের দিকে মনোযোগ দিয়ে কাজ করেছে।

    এর আগে পাঠানো মহাকাশযান তত্ত্বের দিকে মনোযোগ দিয়ে কাজ করেছে।

  • মঙ্গলগ্রহকে দেখতে গোলাপি রঙের মনে হয়।

    মঙ্গলগ্রহকে দেখতে গোলাপি রঙের মনে হয়।

  • মঙ্গলগ্রহে মিশন পাঠাতে যাচ্ছে আরব আমিরাত।

    মঙ্গলগ্রহে মিশন পাঠাতে যাচ্ছে আরব আমিরাত।

  • প্রথম আরব হিসেবে মহাকাশে গেছেন সৌদি আরবের যুবরাজ সুলতান বিন সালমান আল-সদ।
  • এর আগে পাঠানো মহাকাশযান তত্ত্বের দিকে মনোযোগ দিয়ে কাজ করেছে।
  • মঙ্গলগ্রহকে দেখতে গোলাপি রঙের মনে হয়।
  • মঙ্গলগ্রহে মিশন পাঠাতে যাচ্ছে আরব আমিরাত।
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

বিশ্ব

অক্সিজেন শূন্য হতে যাচ্ছে পৃথিবী!

লেখক

অতিরিক্ত মিথেন গ্যাস নিঃসরণ আর স্বল্প অক্সিজেনে প্রাণের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখা কঠিন হয়ে পড়বে পৃথিবীর জন্য। বিবর্ণ হতে শুরু করবে সবুজ আর নীল এই গ্রহ। কোটি বছর পড়ে সৌরজগতের এই গ্রহে প্রাণের কোন অস্তিত্বই থাকবে না। এমন পূর্বাভাস বিজ্ঞানীদের।


বিজ্ঞানীরা জানান, ২৪০ কোটি বছর আগে পৃথিবী যেমন ছিল, তেমন রূপই ধারণ করবে। পৃথিবীতে আর প্রাণের অস্তিত্ব থাকবে না। মানুষ তো থাকবেই না, থাকবে না অন্য কোনো উদ্ভিদ বা প্রাণির অস্তিত্বও।



যত দিন যাচ্ছে, ততই মানুষের বাসের অযোগ্য হয়ে উঠছে এই পৃথিবী। সব কিছু এখন স্বাভাবিক, সুন্দর মনে হলেও এমন দিন আসবে, যখন পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে শ্বাস নেওয়ার মতো বাতাস, অক্সিজেন থাকবে না। বাস্তবে পৃথিবীকে ঘিরে থাকবে না কোনো বায়ুমণ্ডলই। সূর্যের প্রচণ্ড তাপে এবং ক্ষতিকর বিকিরণে ধ্বংস হয়ে যাবে ওজনস্তর। ফলে অক্সিজেন নির্ভর প্রাণের পক্ষে টিকে থাকা যেমন অসম্ভব হবে, তেমনি অসম্ভব হয়ে পড়বে উদ্ভিদের সালোকসংশ্লেষণও। মানুষ তো বটেই, অল্প কিছু অণুজীব ছাড়া কোনো প্রাণী বা উদ্ভিদ বাঁচতে পারবে না এই গ্রহে। ২৪০ কোটি বছর আগের পরিস্থিতি যে রকম ছিল, পৃথিবী আবার ফিরে যাবে সেই অবস্থায়। পৃথিবী তখন ভরে যাবে অত্যন্ত বিষাক্ত মিথেন গ্যাসে।


পৃথিবীতে কমছে অক্সিজেনের পরিমাণ। গ্রিনহাউসের কারণে পৃথিবী আবার পূর্বের অবস্থায় ফিরে যাবে। অক্সিজেনের ওপর প্রতি সেকেন্ডে মানুষ আর প্রাণিরা নির্ভরশীল। কোটি বছর পর আর এই অক্সিজেনই থাকবে না পৃথিবীতে। পৃথিবী হয়ে যাবে মঙ্গলের মতো পাথুরে একটি গ্রহ। সমুদ্রের সব পানি বাষ্প হয়ে যাবে। সূর্যের তাপ বাড়ছে, বাড়ছে পৃথিবীতে কার্বন-ডাই-অক্সাইড। পৃথিবীকে রক্ষা করা ওজন স্তর ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এই ওজন স্তর না থাকলে সূর্যের তাপ পৃথিবীতে প্রবেশে কোন বাঁধা থাকবে না। ২০০ কোটি বছরের মধ্যেই পৃথিবীর সমুদ্রগুলো শুষে নেবে সূর্য।





সাম্প্রতিক গবেষণা বলছে, অক্সিজেন এতো আশঙ্কাজনকহারে কমে যাবে, যে পৃথিবীতে কোনো প্রাণিই বেঁচে থাকবে না।


নাসার ’নেক্সাস ফর এক্সোপ্ল্যানেট সিস্টেম সায়েন্সের’ গবেষণায় উঠে এসেছে এসব তথ্য। গবেষণাটির মূল গবেষক হচ্ছেন, যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজির ভূবিজ্ঞানী অধ্যাপক ক্রিস রেনহার্ড ও জাপানের তোহো বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞানী অধ্যাপক কাজুমি ওজাকি জাবি।
তাদেন গবেষণা বলছে, পৃথিবীতে শুধু অণুজীব টিকে থাকবে। ওজন স্তর না থাকলে পৃথিবী আর কোন প্রাণির জন্য বাসযোগ্য থাকবে না। জলবায়ু পরিবর্তন যদি নিয়ন্ত্রণের বাইরেই থাকে, আগামী ১০০ কোটি বছরের মধ্যেই পৃথিবী অক্সিজেনশূন্য হয়ে যাবে। এরমধ্যে সূর্যের বয়স হবে। কার্বন-ডাই-অক্সাইডের ঘাটতি হলে গাছের জন্য টিকে থাকা কষ্ট হবে। গাছও পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে অক্সিজনে সরবরাহ করতে পারবে না।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

বিশ্ব

স্বর্ণের চেয়েও দামি, এক কাপ চায়ের মূল্য সাড়ে আট লাখ টাকারও বেশি!

এবার স্বর্ণের চেয়েও দামি চায়ের সন্ধান মিলেছে। যার এক গ্রামের দাম স্বর্ণের এক গ্রামের দামের থেকে ৩০ গুণ বেশি। এর এক কাপ চায়ের দাম সাড়ে সাত লাখ রুপি (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় সাড়ে আট লাখ টাকারও বেশি)। শুনলে খটকা লাগলেও ঘটনা সত্যি। বিশ্বের অন্যতম দামি এই চায়ের নাম ‘দা হোং পাও’। 

খুব বিরল জাতের এই চা উৎপন্ন হয় চীনের ফুজিয়ান প্রদেশের উয়ি পর্বতে। সারা বিশ্বের মধ্যে একমাত্র চীনে এই চায়ের ছ’টি গাছ রয়েছে। বিরল এবং উৎকৃষ্ট গুণমানের জন্য দা হোং পাও-কে চায়ের রাজা বলা হয়। ২০০৬-এ চীন সরকার প্রায় ১১৭ কোটি টাকার বিমা করিয়েছে এই ছ’টি চা গাছের। এক কেজি এই চায়ের দাম প্রায় ৮ কোটি ৩০ লক্ষ রুপি। তিনশো বছর ধরে এই চায়ের চাষ হচ্ছে চীনে।জানা গেছে, মূল্যবান এই চায়ে ক্যাফিন, থিওফিলিন, পলিফেনলস এবং ফ্ল্যাবোনয়েড আছে। স্বাস্থ্যের পক্ষে যা খুব উপকারী। প্রতি দিন এই চা খেলে ত্বক ভাল থাকে। মাটির পাত্রে বিশুদ্ধ পানিতে এই চা বানাতে হয়। সুগন্ধের জন্যও এই চায়ের দাম এত বেশি। 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

পেঁয়াজের দাম কমেছে খুলনায়

শুক্রবার খুলনার খুচরা ও পাইকারি বাজারে এমন চিত্র দেখা যায়।
চার দিন আগে খুলনার বাজারগুলোতে হু হু করে বেড়েছিল পেঁয়াজের দাম। সে সময় দেশি পেঁয়াজের দাম খুচরা বাজারে ৪৫ টাকা থেকে বেড়ে ৭০ টাকা পর্যন্ত উঠেছিল।


পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা জানান, বার্মা থেকে পেঁয়াজ আসতে শুরু করেছে। সরবরাহ বৃদ্ধির কারণে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে। ২১ দিনের মধ্যে আরও কমবে।
তবে কেউ কেউ বলছেন, আসন্ন দুর্গাপূজার কারণে ভারতে থেকে পেঁয়াজ আমদানি হচ্ছে না। যে কারণে দাম বেড়েছিল। পেঁয়াজ এখন ভারত নির্ভর পণ্য। আমাদের দেশে যে পরিমাণ পেঁয়াজ উৎপাদন হয় তা দিয়ে দেশের মানুষের চাহিদা মেটানো অসম্ভব। ভারত পেঁয়াজ দেওয়া বন্ধ করে দিলে এ পণ্যটির দাম বেড়ে যায়।


ময়লাপোতাস্থ সন্ধ্যা বাজারের সুমী স্টোরের মালিক কাউসার আলী হোসেন বলেন, দেশি জাতের পেঁয়াজ ৪৫ টাকা থেকে বেড়ে ৭০ টাকায় উঠেছিল। এখন সেই পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬৭ টাকা কেজি দরে।
পাইকারি পেঁয়াজ বিক্রেতা খুলনার বড় বাজারের মেসার্স ফরাজী ট্রেডিংয়ের স্বত্ত্বাধিকারী মো. মিলন ফরাজী বলেন, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ভারতীয় পেঁয়াজের পাইকারি দাম ছিল কেজি প্রতি ৩৪-৩৬ টাকা। যা শনিবার বিক্রি হয়েছে ৪০-৪২ টাকা। সোম ও মঙ্গলবার সেই পেঁয়াজ বিক্রি হয়েছে ৪৭-৪৮ টাকায়। অনুরূপ ভাবে ৩৮-৩৯ টাকা কেজি দরের দেশি পেঁয়াজ ৬০-৬২ টাকায় বিক্রি হয়েছে। যা বুধবারও অব্যাহত ছিল। বৃহস্পতিবার থেকে পেঁয়াজের দাম কমতে শুরু করেছে।


তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার মিয়ানমারের থেকে পেঁয়াজ এসেছে। যে কারণে ২-৩ টাকা কেজি দরে দাম কমে গেছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

বিশ্ব

ফের জ্বলে উঠলো বিদ্যুতবিহীন লেবানন

লেবাননে জ্বালানির স্বল্পতা থাকায় ২৪ ঘণ্টা বিদ্যুতবিহীন হয়ে পড়ে পুরো দেশ। পরে দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক অর্থায়নের পরপরই বিদ্যুৎ উৎপাদন শুরু করে বন্ধ হয়ে থাকা দেশটির বৃহত্তম দুই বিদ্যুৎকেন্দ্র। 

দেশটির জ্বালানি বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, দেইর আম্মার ও জাহরানির বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি বন্ধ হয়ে যাওয়ায় বিদ্যুতবিহীন হয়ে পড়েছে পুরো লেবানন। বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য গতকাল রবিবার প্রয়োজনীয় জ্বালানি কিনতে লেবানন সরকারকে একশ’ মিলিয়ন ডলার বরাদ্দ দিয়েছে ।এদিকে, আমদানি না হওয়া পর্যন্ত নিজেদের মজুত থেকে জ্বালানি দিয়ে সহায়তা করতে রাজি হয়েছে দেশটির সেনাবাহিনী। 

এছাড়াও গত মাসে ইরান থেকে জ্বালানি আমদানি করে হিজবুল্লাহ। এরপরও লেবাননের জ্বালানি সংকটের কোনও সমাধান হয়নি। 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

পদ্মায় ইলিশ মাছ নিধনের অপরাধে ৩২ জেলেকে দণ্ড

সরকারী নিষেধাজ্ঞা লংঘন করে মাদারীপুরের শিবচরে পদ্মায় ইলিশ মাছ নিধনের অপরাধে ৩২ জন জেলেকে ১ বছর করে কারাদন্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমান আদালত।

মৎস বিভাগ ও পুলিশের একটি টিম শুক্রবার গভীররাত থেকে শনিবার দুপুর পর্যন্ত পদ্মা নদীর বিভিন্ন স্থানে ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান চালিয়ে ৩২ জনকে আটক করে ভ্রাম্যমান আদালত এ সাজা প্রদাণ করেন। এসময় ইলিশ মাছ ক্রয়ের অপরাধে ৩ নারী ক্রেতাকে মোট ২৫ হাজার টাকা আর্থিক জরিমানা করা হয়েছে।

অভিযানকালে জব্দকৃত প্রায় ৩০ হাজার মিটার জাল আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংশ করা হয় ও ২০ কেজি ইলিশ বিভিন্ন এতিমখানায় বিতরণ করা হয়।

ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এম রকিবুল হাসান বলেন, মা ইলিশ রক্ষায় পদ্মার বিভিন্ন পয়েন্টে প্রতিনিয়ত আমাদের অভিযান চলছে এবং অব্যাহত থাকবে।

মাদারীপুর জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বাবুল চন্দ্র ওঝাঁ জানান, এর আগে ৩৮ জেলেসহ এ পর্যন্ত ৭০ জন জেলেকে এক বছরের দণ্ড দেয়া হয়। এরপরও অপরাধ অব্যাহত থাকলে আরো কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে। কোনভাবেই অপরাধীকে ছাড় দেয়া হবে না। আমরা মা ইলিশ রক্ষা করতে পারলে সারা বছর ইলিশ খেতে পারবো বলে কর্মকতার্র অভিমত।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com