আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

বাংলাদেশ

মাছ বিক্রিও করতে পারছেন না, খাবারও দিতে পারছেন না চাষীরা

ময়মনসিংহ জেলা মৎস্য কর্মকর্তা দিলীপ কুমার সাহার তথ্যমতে, সারাদেশে প্রতি বছর প্রায় ৪২ লাখ মেট্রিক টন মাছ উৎপাদন হয়। এর মধ্যে ময়মনসিংহ অঞ্চলে প্রতি বছর উৎপাদন হয় প্রায় পাঁচ লাখ মেট্রিক টন। অর্থাৎ দেশের প্রায় ১০ ভাগের একভাগ মাছ উৎপাদন হয় ময়মনসিংহে।

করোনা সংক্রমণের পর থেকে ময়মনসিংহ অঞ্চলের মাছ চাষীরা বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়েছেন। বিশেষ করে হাইব্রিড উপায়ে পাঙ্গাশ, কৈ, তেলাপিয়া, শিং, মাগুর, টেংড়াসহ নানা জাতের মাছ উৎপাদনকারীরা। সেই সঙ্গে মাছের হ্যাচারির মালিকরাও পড়েছেন সঙ্কটে। দেশি জাতের মাছ উৎপাদনকারীরাও এর বাইরে নয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, পাঙ্গাশ, কৈ, তেলাপিয়া, শিং, মাগুরসহ নানা জাতের হাইব্রিড মাছ চাষীরা অর্থের অভাবে মাছের খাবার দিতে পারছেন না। স্বাভাবিক সময়ে ১০-২০ শতাংশ নগদ অর্থ দিলে মাছের সব খাবার দিতেন ডিলাররা। এখন নগদ অর্থ ছাড়া মাছের খাদ্য দিচ্ছেন না তারা। অন্যদিকে ব্যাংক কিংবা অন্য কারও কাছ থেকে ঋণও পাচ্ছেন। ফলে অনেক চাষী মাছের খাদ্য দিতে পারছেন না।

সাধারণ সময়ে ময়মনসিংহ থেকে কৈ, পাঙ্গাশসহ অন্যান্য মাছ ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেটসহ সারাদেশে বিক্রি হতো। লকডাউনের পর থেকে কোনো পাইকার কিংবা চাষী ময়মনসিংহের বাইরে মাছ বিক্রির জন্য নিয়ে যেতে পারছেন না। ফলে মাছের দামও পাচ্ছেন না তারা। পাঙ্গাশ, তেলাপিয়া, কৈ মাছের দাম মণ প্রতি প্রায় ১ হাজার টাকা কমে গেছে। তবে এ অবস্থা চলতে থাকলে মাছের দাম আরও কমতে পারে। দাম না পাওয়ায় ইতোমধ্যে অনেকে মাছ বিক্রি বন্ধ করে দিয়েছেন। আবার মধ্যস্বত্বভোগীরা চাষীদের কাছ থেকে একেবারে কম দামে মাছ কেনার চেষ্টা করছেন। এছাড়া এসব হাইব্রিড মাছ খেলে করোনা হতে পারে– এমন গুজবও বড় ধরনের ক্ষতির মুখে ফেলেছে চাষীদের।

সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, সরকার যে প্রণোদনা ঘোষণা করেছে, তার মধ্যে মাছ চাষীরাও রয়েছেন। তাদের প্রণোদনা দেয়া হবে। তবে কী উপায়ে দেয়া হবে, তা এখনও চূড়ান্ত হয়নি। অন্যদিকে মাছ পরিবহন লকডাউনের আওতামুক্ত রয়েছে। কোথাও মাছের গাড়ি সমস্যায় পড়লে তারা সেটার সমাধান করে দিচ্ছেন। তবে মাছ চাষীরা কীভাবে খাদ্য কিনবেন, সেটার কোনো সমাধান দেখছেন না।

সোমবার (২০ এপ্রিল) ঢাকা বিভাগের কিশোরগঞ্জ, টাঙ্গাইল, গাজীপুর ও মানিকগঞ্জ জেলা এবং ময়মনসিংহ বিভাগের জেলাসমূহের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যে ৯৫ হাজার ৬১৯ কোটি টাকার প্রণোদনা ঘোষণা করেছি, যা জিডিপির ৩ দশমিক ৩ শতাংশ। কৃষি খাতে আরও বেশি। মাত্র ৪ শতাংশ সুদে আমরা কৃষি ঋণ দিচ্ছি। কৃষি মানে শুধু ধান ফলানো নয়। মৎস্য পোল্ট্রি, ডেইরি থেকে শুরু করে ফলমূল, ফুল যা যা আছে – সবকিছু মিলেই এই প্যাকেজ।’

এই করোনা সঙ্কটে মাছ চাষী, খাদ্যের ডিলার ও সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা কী ভাবছেন, কী ধরনের প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হচ্ছেন, বিস্তারিত তুলে ধরা হলো –

যা বলছেন মাছ চাষীরা
ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি ১১০ শতাংশ জমির পুকুরে প্রায় তিন লাখ কৈ মাছের পোনা ছাড়েন ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা উপজেলার শিবরামপুর গ্রামের মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি জানান, তার মাছের এই চালান তুলতে প্রায় ১২ থেকে ১৩ লাখ টাকা লাগবে। এখন পর্যন্ত প্রায় ৪ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। এক মাসের মধ্যে মাছগুলো বিক্রির উপযোগী হবে। এই সময় প্রায় ৮-৯ লাখ টাকার খাদ্যের প্রয়োজন হবে। কিন্তু গত ১৩ দিনে কোনো খাদ্য দিতে পারেননি। কারণ, ডিলার এখন আর নগদ টাকা ছাড়া মাছের খাদ্য দিচ্ছেন না।

রফিকুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘আগে ১০-২০ শতাংশ টাকা দিলে মাছের খাদ্য দিত ডিলাররা। কিন্তু করোনার কারণে নগদ টাকা ছাড়া কোনো খাদ্য দিচ্ছে না। টাকার জোগাড় করতে না পারায় ১৩ দিন ধরে মাছকে খাবার দিতে পারছি না।’

তিনি বলেন, ‘কৈ মাছকে খাবার না দিতে পারার আরেকটা সমস্যা আছে। বড় কৈ ছোট কৈ খেয়ে ফেলে। ফলে মাছ কমে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। অন্যদিকে খাবার দিতে না পারায় মাছের বৃদ্ধিও কমে গেছে। ’

একই উপজেলার রাজাবাড়ী গ্রামের শ্রীবাস চন্দ্র দাস চাষ করেছেন তেলাপিয়া মাছ। তার প্রায় ৭০-৮০ মণ তেলাপিয়া করোনা সংক্রমণের শুরু সময়ই বিক্রির উপযোগী হয়েছে। কিন্তু তেলাপিয়াসহ কৈ, শিং, মাগুর– হাইব্রিড জাতের এসব মাছ খেলে করোনা হয়, এমন গুজবের কারণে এতদিন মাছ কেনেননি পাইকাররা (মধ্যস্বত্বভোগী)। আড়তে নিলেও ফিরিয়ে আনতে হয়েছে তাকে। তবে পাইকাররা তেলাপিয়া মাছ বাজারে তুলতে বললে রোববার (১৯ এপ্রিল) বিক্রির জন্য মাছ তোলেন তিনি।

শ্রীবাস চন্দ্র দাস বলেন, ‘হাইব্রিড পাঙ্গাশ, তেলাপিয়া, কৈ, শিং– এ জাতীয় মাছ খেলে করোনা হয়, এটা ছড়িয়ে গেছে। কয়েক দিন বাজারে তেলাপিয়া বিক্রি করতে গেছিলাম। কিন্তু পাইকাররা নেয়নি। তিন সপ্তাহ পর আজকে বাজার থেকে খবর দিছে, এখন পাঠালাম।’

তিনি বলেন, ‘প্রায় ৭০-৮০ মণ তেলাপিয়া হবে আমাদের। যে বাজার ছিল ১৩০ টাকা কেজি, সেটা এখন ১০০-১০২ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। যেটা ৪৮০০-৫০০০ টাকা মণ বিক্রি হতো, এখন সেটা ৩৫০০-৩৭০০ টাকা মণে হচ্ছে। পাঙ্গাশের আগে বাজার ছিল ৩৭০০-৩৯০০ টাকা মণ। এখন ২৫০০-২৭০০ টাকা মণ। অর্থাৎ তেলাপিয়া, পাঙ্গাশে মণপ্রতি প্রায় ১২০০-১৫০০ টাকা কমে গেছে। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হলে দিন দিন মাছের দাম আরও কমতে থাকবে।’

‘আগে ঢাকা, চট্টগ্রাম, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় মাছ যেত, এখন সেটা বন্ধ হয়ে গেছে। এক থেকে দেড় লাখ টাকার মাছ নিয়ে কেউ রিস্কে যেতে চায় না। তাই ময়মনসিংহের ভেতরেই কম দামে মাছ বিক্রি করতে হচ্ছে’, যোগ করেন শ্রীবাস।

আলমগীর হোসেন নামের আরেক মাছ চাষী বলেন, ‘মাছ বিক্রির সময় করোনার প্রভাব পড়বেই। দূরে কোথাও মাছ নিয়ে বিক্রি করা যায় না। দূরে না নিয়ে গেলে দাম পাওয়া যায় না। তবে কী হয় বলা যাচ্ছে না। এ জন্যই বাকি খাদ্য দিচ্ছে না ডিলার। করোনায় কেউ মারা গেলে টাকা পাবে না। নানা কারণ।’

তিনি বলেন, ‘যত টাকার খাদ্য লাগে, তত টাকা তো একজন চাষীর পক্ষে দেয়া সম্ভব নয়। নতুন করে তো ঋণ পাওয়ারও সুযোগ নেই। এটা একটা বড় সমস্যা।’

কেন নগদ ছাড়া খাদ্য দিচ্ছেন না ডিলার?

মুক্তগাছা উপজেলার কালীবাড়ি বাজারের মাছের খাদ্যের ডিলার জয়নাল জাগো নিউজকে বলেন, ‘চাষীদের কাছে যে টাকা-পয়সা ছাড়ছি, তারা তো মাছ বিক্রি করতে পারতেছে না। পার্টি মাছ নেয় না, বাজার খুব খারাপ, বাজারে মাছ খাচ্ছে না। বিক্রি না করতে পারার জন্য আমার কাছে ক্যাশ আসছে না। আমার কাছে যা ক্যাশ ছিল, সব শেষ করে ফেলছি। চাষীরাও কিছু কিছু দিছে, ওইটাও শেষ করছি। এখন আর টাকা নাই। অন্যদিকে কোম্পানি ক্যাশ ছাড়া খাদ্য দিচ্ছে না। তাই এখন আমিও চাষীদের নগদ টাকা ছাড়া খাদ্য দিতে পারতেছি না।’

বিষয়গুলো নিয়ে বিস্তারিত কথা হয় ময়মনসিংহের জেলা মৎস্য কর্মকর্তা দিলীপ কুমার সাহার সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘সরকার একটা প্রণোদনা দিচ্ছে মাছ চাষীদের। ছোট, মাঝারি চাষী। তবে এটার ক্রাইটেরিয়াগুলো কী হবে, মন্ত্রণালয় থেকে এখনও সেই ধরনের কোনো নির্দেশনা পাইনি। কত একর পর্যন্ত মাছ চাষ করলে সে ছোট চাষী, কত একর হলে মাঝারি চাষী হবে ইত্যাদি। তাছাড়া আমাদের তো বিভিন্ন সমস্যা আছে। কেউ একটা পুকুর নিয়ে মাছ চাষ করছে, তার একটা ক্ষতিই বড় ক্ষতি। আবার দেখা যাচ্ছে, কারও ৩০টা পুকুর আছে, তার ক্ষতিটাও অনেক বড়। মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের একটা নীতিমালা করে দেবে, আমরা ছোট ও মাঝারি ক্যাটাগরির কথা বলেছি। হ্যাচারির নাম্বারগুলো আমরা ঠিক করে দিচ্ছি, নার্সারিগুলোর কাছ থেকে নিচ্ছি। পরে কৃষকদের কাছ থেকে নেব। গ্রাম পর্যায় থেকে তাদের তথ্য সংগ্রহ ও যাচাইয়ের পর প্রণোদনা দেয়া হবে।’

লকডাউন থাকলেও সারাদেশে মাছ সরবরাহের ক্ষেত্রে কোনো ধরনের প্রতিবন্ধকতা নেই। এক জেলা থেকে আরেক জেলায় মাছ নিয়ে যাওয়ার সময় কোনো সমস্যায় পড়লে তা তারা সমাধান করেন বলেও জানিয়েছেন ময়মনসিংহের এই মৎস্য কর্মকর্তা।

দিলীপ কুমার সাহা বলেন, ‘লকডাউনের মধ্যে আমরা সুনামগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকায় মাছ পাঠিয়েছি। ঢাকা অফিসের একটা হটলাইন নম্বর আছে। সমস্যা হলে আমাদের জানালে ময়মনসিংহের ভেতরে হলে আমরা নিজেরাই তা সমাধান করছি। কিন্তু যখন জেলার বাইরে যাচ্ছে হ্যাচারি বা মাছের চালান, তখন আমাদের কিছু নম্বর আছে, তা উপজেলা কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেই তারা দিয়ে দেবে। কোথাও আটকা পড়লে আমাদের কর্মকর্তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করলেই ওই উপজেলার সঙ্গে কথা বলে বিষয়টার সমাধান করতে পারব।’

তবে কৈ, পাঙ্গাশ, তেলাপিয়া চাষীরা যে টাকার অভাবে মাছের খাদ্য দিতে পারছেন না, এ বিষয়ে কোনো সমাধান দিতে পারেননি ময়মনসিংহ জেলার মৎস্য কর্মকর্তা।

পরিবেশ

৮০টি প্লাস্টিক ব্যাগ খেয়ে মারা গেল তিমি

৮০ টি প্লাস্টিক ব্যাগ খেয়ে অসুস্থ এক পাইলট তিমিকে উদ্ধার করা গেলেও বাঁচানো যায়নি। থাইল্যান্ডের উদ্ধারকর্মীরা দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের একটি কৃত্রিম জলাশয় থেকে ওই তিমিকে জীবিত উদ্ধার করে। এ সময় তিমিটি ৫টি ব্যাগ বমি করে উগড়ে দেয়। তবে চিকিৎসা দেয়ার আগেই মারা যায় তিমিটি।

দেশটির সামুদ্রিক ও উপকূলীয় সম্পদ বিষয়ক বিভাগের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান বলছে, গত সোমবার পুরুষ প্রজাতির এই বৃহদাকার স্তন্যপায়ী প্রাণীটি মালয়েশিয়া সীমান্তের একটি কৃত্রিম জলাশয় থেকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। পশু চিকিৎসকদের একটি দল তিমিটিকে সুস্থ করে তোলার চেষ্টা করে। শুক্রবার বিকেলে তিমিটি মারা যায়।

সামুদ্রিক ও উপকূলীয় সম্পদ বিভাগ বলছে, ময়নাতদন্তে তিমিটির পাকস্থলীতে ৮০টি প্লাস্টিক ব্যাগ পাওয়া যায়; যার আনুমানিক ওজন প্রায় ৮ কেজি। তিমিটিকে চিহ্নিত করার পর একটি বয়ার (এক শ্রেণির ভাসমান নৌকা) সাহায্যে পানিতে ভাসিয়ে রাখা হয় এবং সূর্যের তাপ থেকে তিমিটিকে রক্ষা করতে একটি ছাতার সাহায্যে ছায়ার ব্যবস্থা করা হয়।

উদ্ধারের সময় তিমিটি বমি করে ৫টি ব্যাগ বের করে দেয়। সামুদ্রিক জীববিজ্ঞানী ও ক্যাসেটসার্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক থন থামরংনয়াসায়াত বলেন, প্লাস্টিক ব্যাগ খাওয়ার কারণে তিমিটি আর কোনো পুষ্টিকর খাবার খেতে পারেনি।

এ সময় তিনি বলেন, ‘যদি আপনার পাকস্থলীতে ৮০টি প্লাস্টিক ব্যাগ থাকে, তাহলে আপনিও মারা যাবেন।’

থাইল্যান্ড বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্লাস্টিক ব্যবহারকারী দেশ। থন বলেন, থাইল্যান্ডের জলাশয়ে প্লাস্টিক খাওয়ার কারণে প্রতি বছর পাইলট তিমি, সামুদ্রিক কচ্ছপ, ডলফিনসহ অন্তত ৩০০ সামুদ্রিক প্রাণী মারা যায়। এটা একটা বিরাট সমস্যা। আমরা কত প্লাস্টিক ব্যবহার করি!- বলেন তিনি।

প্লাস্টিক খেয়ে পাইলট তিমি মারা যাওয়ার ঘটনায় সহানুভূতি ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ইন্টারনট ব্যবহারকারীরা। একজন টুইটে লিখেছেন, প্রাণীটির জন্য আমি দুঃখ প্রকাশ করছি, যে প্রাণীটি কোনো ভুল করেনি। তারপরও তাকে মানুষের কর্মের ফল ভোগ করতে হল।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

ধ্বংস হচ্ছে লাউয়াছড়া বন ও বন্যপ্রাণী

নানা জাতের উদ্ভিদ আর জীববৈচিত্রে ভরপুর ১২শ ৫০ হেক্টর সংরক্ষিত বন নিয়ে ১৯৯৬ সালে মৌলভীবাজারের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ঘোষণা করা হয়। দেশের ১৬টি উদ্যানের মধ্যে অন্যতম এই লাউয়াছড়া উদ্যান। কিন্তু এ বন থেকে পাচার হচ্ছে কোটি কোটি টাকার মূল্যবান গাছ। উজাড় হচ্ছে বন। আর এতে হুমকির মুখে পড়ছে বন্যপ্রাণী। লোকবল আর প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাবে অসহায় কর্তৃপক্ষও।

খাসিয়া সম্প্রদায়সহ স্থানীয়দের মতে, ১৯৯৬ সালে জাতীয় উদ্যান ঘোষণার পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত বনের প্রায় ৩০ শতাংশ গাছ পাচার হয়েছে। ফলে কমেছে বনের ঘনত্ব। গত সপ্তাহেও গভীর রাতে লাউয়াছড়া বন থেকে মূল্যবান আগর গাছ কেটে নিয়ে যাওয়ার মুহূর্তে পাহাড়ে বসবাসরত খাসিয়া সম্প্রদায়ের লোকজনের ধাওয়ায় টুকরো করে রাখা মূল্যবান গাছগুলো ফেলে পালিয়ে যায় চোরচক্র। পরে খাসিয়া সম্প্রদায়ের লোকজনের সহায়তায় মূল্যবান এসব গাছ উদ্ধার করে বন বিভাগ।

সরেজমিনে দেখা যায়, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের শুধু গাড়িভাঙ্গা এলাকা থেকে তিনটি বৃহদাকার সেগুন গাছ কেটে পাচার করেছে দুর্বৃত্তরা। কেবল সাক্ষী হয়ে আছে গাছের গুড়িগুলো। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে গাছ পাচারের ফলে লাউয়াছড়া উদ্যান অনেকটাই ফাঁকা হয়ে গেছে। ফলে বিরল প্রজাতির বন্যপ্রাণীসহ উদ্যানে বসবাসরত প্রাণীর বাসস্থান সঙ্কট প্রকট হচ্ছে। খাবার ও আবাসস্থল সঙ্কটে হুমকির মুখে পড়েছে বন্যপ্রাণী।

বিভাগীয় বন কার্যলায় সূত্রে জানা যায়, এই বনে ১৬৭ প্রজাতির উদ্ভিদ শনাক্ত করা হয়েছে। সমৃদ্ধ প্রাণী বৈচিত্র্যেরও আঁধার এই বন। বিভিন্ন বিরল ও বিপন্ন প্রজাতির প্রাণীর আবাসস্থল হিসেবে এই বন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিশেষভাবে পরিচিতি লাভ করেছে।

কিন্তু প্রতিনিয়তই দ্রুতগামী গাড়ির ধাক্কায় কিংবা চাকায় পিষ্ট হয়ে কোনো না কোনো বন্যপ্রাণীর মৃত্যু হচ্ছে। ফলে লাউয়াছড়ার অভ্যন্তরে অবস্থিত সড়ক ও রেলপথসমূহ বন্যপ্রাণীকূলের জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এছাড়াও ছুটির সময় মাত্রাতিরিক্ত পর্যটক বন্যপ্রাণীদের বিড়ম্বনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। যানবাহনের হুড়োহুড়ি, শুষ্ক মৌসুমে পানি, খাবার ও নিরাপদ বাসস্থান সঙ্কট এসব মিলিয়ে উদ্যানের জীব-বৈচিত্র্য ও প্রকৃতি সুরক্ষা নিয়ে উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। খাদ্য সঙ্কঠের কারণে প্রায়ই বন্যপ্রাণী লোকালয়ে চলে আসছে। ধরা পড়ছে মানুষের হাতে।

এদিকে উদ্যানের গাঁ ঘেষে বনজঙ্গল ও মাটি কেটে স্থাপিত হচ্ছে বিভিন্ন কটেজ। ফলে বনের ভেতরে দল বেধে মানুষের অবাধ বিচরণ বন্যপ্রাণীর জন্য খাবার সংগ্রহ ও চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এসব বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের ফলে বন্যপ্রাণীর খাবার ও আবাসস্থল বিনষ্ট হচ্ছে। যে কারণে খাবারের সন্ধানে জঙ্গলের দুর্লভ প্রাণীগুলো জনপদে ছুটে এসে অধিকাংশ ক্ষেত্রে মানুষের হাতে ধরা পড়ে অথবা গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা যাচ্ছে।

বাইরে থেকে এই ঘন বনের সৌন্দর্য্য মন কাড়ে দর্শনাথীদের। কিন্তু বনের ভেতরে গেলে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। দাঁড়ানো মূল্যবান গাছের ফাঁকে ফাঁকে পড়ে আছে গুড়ি। প্রতিদিন দিন-দুপুরে জ্বালানি হিসেবে গাছ কেটে কাঠ নিয়ে যাচ্ছেন অনেকে। রাতের আধাঁরে গাছ উধাও হচ্ছে বন থেকে। ধ্বংস হচ্ছে প্রাকৃতিক এই ঘন বন।

গাছ চুরি বন্ধে পরিবেশবাদী সংগঠনসহ সচেতন মহল সোচ্চার থাকলেও টনক নড়ছে না কর্তৃপক্ষের। আর লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের সহব্যবস্থাপনা কমিটির দায়িত্বে যারা আছে তারাও উদাসীন এই বনের প্রতি। ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ বলছে, গহীন এই বন রক্ষায় স্থানীয় মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধিসহ বনের উপর নির্ভরশীলদের কর্মসংস্থান প্রয়োজন। তবে মানুষ আগের চেয়ে অনেক সচেতন হয়েছে। জনবল সংকটের কারণে বন বিভাগ ঠিকমতো কাজ করতে পারছে না।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বন কর্মকর্তা আবু মুছা শামসুল মোহিত চৌধুরী বলেন, লোকবল কম থাকায় অনেক সময় আমরা সামাল দিতে পারি না। তবে এখন থেকে নির্দিষ্ট স্থানের বাইরে পর্যটকদের যেতে দেয়া হবে না। ভবিষ্যতে নিয়ন্ত্রিত ট্যুরিজমের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি। এর জন্য সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

কৃষিপণ্য উৎপাদনে বিশ্বে বাংলাদেশ ২১তম

কৃষিপণ্য উৎপাদনে বিশ্বে বাংলাদেশ ২১তম
কৃষিপণ্য উৎপাদনে বিশ্বে বাংলাদেশ ২১তম

বিশ্বে সবচেয়ে বেশি কৃষিপণ্য উৎপাদিত হয় কোন দেশে? উত্তরটা বেশ সহজ—চীনে। দেশটি অনেক বড়, জনসংখ্যার দিক দিয়েও তারা শীর্ষে। খুব স্বাভাবিক কারণেই বিপুলসংখ্যক মানুষের খাদ্যের সংস্থান করতে হয় দেশটিকে। আর তাই কৃষিপণ্য উৎপাদনের দিক দিয়ে চীন বিশ্বের শীর্ষ কৃষিপণ্য উৎপাদনকারী দেশ। চীনের উৎপাদিত কৃষিপণ্যের মূল্য প্রায় ৯৬ হাজার ৯০০ কোটি ডলার।

জনসংখ্যার দিক থেকে বিশ্বের দ্বিতীয় বড় দেশ ভারত। কৃষিপণ্য উৎপাদনেও ভারত আছে দ্বিতীয় স্থানে। দেশটি উৎপাদন করে অবশ্য চীনের অর্ধেক, ৪১৪ বিলিয়ন ডলার বা ৪১ হাজার ৪০০ কোটি ডলারের পণ্য। তালিকার পরের নামটিও সহজে অনুমেয়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। তাদের উৎপাদন ভারতের অর্ধেকের কম, ১৮৯ বিলিয়ন ডলার।

লন্ডন থেকে প্রকাশিত জনপ্রিয় ম্যাগাজিন দ্য ইকোনমিস্ট–এর প্রতিষ্ঠান ইকোনমিস্ট ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (ইইইউ) নানা বিষয় নিয়ে নিয়মিতভাবে বিভিন্ন ধরনের তথ্য প্রকাশ করে থাকে। কৃষি উৎপাদনের এসব তথ্য তাদেরই। ২০১৭ সালের সর্বশেষ তথ্যের ভিত্তিতে এই তালিকা করা হয়েছে। সব দেশের তথ্য এর পরে আর এখনো পায়নি সংস্থাটি।

এবার দেখা যাক তালিকায় আর কারা কারা আছে। শীর্ষ দশে ইন্দোনেশিয়া বা ব্রাজিলের নামটি বিস্ময়ের উদ্রেক করবে না। রাশিয়াও কৃষি উৎপাদনে বড় দেশ, তারাও আছে নবম স্থানে। অনেকে হয়তো অবাক হবেন পাকিস্তানের নামটি দেখে। তালিকা অনুযায়ী, পাকিস্তান বিশ্বের সপ্তম শীর্ষ কৃষিপণ্য উৎপাদক। তাদের উৎপাদন আর্থিক মূল্যে ৭০ বিলিয়ন ডলার বা ৭ হাজার কোটি ডলার।

যে কারণে এ লেখা তৈরি, এবার সেটা বলা যাক। বাংলাদেশ আয়তনে অনেক ছোট, কিন্তু জনসংখ্যায় বিশ্বে অষ্টম। একসময় দেশটি ছিল বিপুল খাদ্যঘাটতির দেশ। এখন বাংলাদেশ খাদ্যে প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ। কেবল খাদ্যপণ্যেই নয়, সামগ্রিকভাবে কৃষিপণ্য উৎপাদনেও এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। তালিকা অনুযায়ী, কৃষিপণ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ আছে ২১তম স্থানে। আর্থিক মূল্যে ৩৩ বিলিয়ন ডলার বা ৩ হাজার ৩০০ কোটি ডলার। আশা করা যায়, তালিকা হালনাগাদ হলে বাংলাদেশ আরও কয়েক ধাপ এগোবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

তিস্তায় জেলেদের জালে ৫ মণ ওজনের ডলফিন

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী এলাকায় তিস্তা নদীতে বিশাল আকারের একটি ডলফিন জেলেদের জালে ধরা পড়েছে। ডলফিনটি দেখতে ভোটমারী ইউনিয়ন পরিষদে ভিড় করেছে শত শত মানুষ।

সোমবার বিকেলে তিস্তা নদীতে বিশাল আকারের ডলফিনটি ভাসতে দেখে ৫-৬ জন জেলে জাল পেতে ধরে ফেলেন। ধরা পড়া ডলফিনের ওজন ২০০ কেজি (৫ মণ)। এর দৈর্ঘ্য প্রায় সাড়ে ৮ ফুট।

স্থানীয়রা জানান, তিস্তা নদীর পাড়ে ভুট্টাখেতে যান কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে রাশেদুল ইসলাম। নদীতে পানি কম থাকায় ডলফিনটি ভাসছিল।

এ সময় রাশেদুল ইসলাম ৫-৬ জন জেলে নিয়ে জাল পেতে ডলফিনটি ধরে ফেলেন। পরে ডলফিনটি ভ্যানে করে বাজারে নিয়ে এলে উৎসুক জনতা ভিড় জমান।

শোইলমারী গ্রামের স্থানীয় জেলে রসিদুল ইসলাম বলেন, নদীতে বড় মাছ মনে করে কয়েকজন মিলে জাল পেতে সেটিকে ধরি। পরে দেখি, এটি বিশাল আকারের ডলফিন।

ভোটমারী ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মোবারক হোসেন বলেন, ডলফিনটি ইউনিয়ন পরিষদে রয়েছে। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান না আসা পর্যন্ত এখানে থাকবে ডলফিনটি।

কালীগঞ্জ উপজেলা ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা মোরছালিন বলেন, ডলফিন এক ধরনের জলজপ্রাণি। এরা পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। তাই ডলফিন ধরা বা মারা সরকারিভাবে নিষেধ রয়েছে। কয়েকজন জেলে ডলফিনটি ধরেছে। আমরা খোঁজ-খবর নিয়ে প্রাণিটি উদ্ধারের চেষ্টা করছি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

হাতির অভিমান!

মৌলভীবাজারে একটি মালিকানাধীন হাতি অভিমান করে ঝড় বৃষ্টির মধ্যে ৬ ঘণ্টা ধরে খরস্রোতা মনু নদীতে সাঁতার কাটছে।

হাতির মাহুত আব্দুল্লা জাগো নিউজকে জানান, হাতিটি রাগ করে পানিতে নেমে পড়েছে। হয়তো বেশি হাঁটার কারণে বা অন্য কোনো কারণে বিরক্ত হয়ে রেগে গেছে। তাই ইচ্ছে করেই পানি থেকে উঠছে না।

তিনি আরও জানান, সিলেট থেকে হাতিটিকে নিয়ে মৌলভীবাজারের জুড়ি যাচ্ছিলেন। বেলা ১১টার দিকে হাতিটিকে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার নতুন ব্রিজ এলাকায় কলা গাছ খেতে দেন। হাতিটি কলা গাছ খাওয়া অবস্থায় দুপুর ১২টার দিকে হঠাৎ মনু নদীতে নেমে যায়। শত চেষ্টা করেও পাড়ে নিয়ে আসা যাচ্ছে না। কাল বৈশাখী ঝড়, বজ্রপাতের মধ্যেও সে পানি থেকে উঠতে নারাজ। মাঝে মধ্যে পাড়ের খুব কাছে আসলেও আবার নদীতে সাঁতার কাটছে। কখনওবা তীর ঘেঁষে হাটছে।

হাতিটি অভিমান করে প্রথমে নতুন ব্রিজ এলাকায় নামলেও সন্ধ্যা ৬টার দিকে নতুন ব্রিজ এলাকা থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে মিরপুরে অবস্থান করছিল।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com