আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

দৈনন্দিন

মহামারিতেও পরিবর্তন হয়নি বাংলাদেশের ‘ভিআইপি সংস্কৃতি’

করোনাভাইরাস সংক্রমণের টেস্ট করাতে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয় সাধারণ মানুষকে।
করোনাভাইরাস সংক্রমণের টেস্ট করাতে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয় সাধারণ মানুষকে।

একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন বুশরা বিনতে বাতেন।

সম্প্রতি অসুস্থ হয়ে তার শ্বশুর এবং শাশুড়ি দুজনই একদিনের ব্যবধানে মারা যান।

বাসায় অসুস্থ হবার পরে এ দু’জনকে হাসপাতালে ভর্তি করাতে রীতিমতো বেগ পেতে হয়েছে মিস্‌ বাতেন এবং তার পরিবারকে।

একজন সাধারণ রোগী হিসেবে কোন হাসপাতালেই রোগী ভর্তি করানো সম্ভব হয়নি।

পরিচিত ব্যক্তিদের মাধ্যমে যোগাযোগ করে এ কাজ সমাধান করতে হয়েছে।

“ওনাদের যে কয়েকটা হাসপাতালে ভর্তি করেছি, প্রতিটি জায়গায় রেফারেন্সের মাধ্যমে যেতে হয়েছে। কোন হাসপাতালে সরাসরি গিয়ে আমরা সেবা পাইনি,” বলেন মিস্‌ বাতেন।

“আমরা ১০ দিনের মধ্যে চারটা হাসপাতালে নিয়ে গেছি। প্রতিটি হাসপাতালে যাবার আগে আমাদের একটা রেফারেন্স লেগেছে।”

বাংলাদেশের সমাজে ক্ষমতাবান না হলে সাধারণ মানুষের পক্ষে যে কোন সেবা পাওয়া দুষ্কর।

মিস্ বাতেনের পরিবার এর একটি উদাহরণ মাত্র। এই ক্ষমতা বিভিন্ন ধরণের হতে পারে।

রাজনৈতিক ক্ষমতা, বিত্তশালী হবার ক্ষমতা এমনকি ঊর্ধ্বতন সামরিক-বেসামরিক কর্মকর্তা হবার ক্ষমতা।

করোনাভাইরাস মহামারির এ সময়টিতে ক্ষমতার জোর আরো প্রকট ও দৃশ্যমান হয়ে উঠেছে।

সব জায়গায় ‘ভিআইপি’ দাপট

ঢাকার আরেক বাসিন্দা ইয়াসমিন ইতি বলছিলেন, দেশের ভেতরে তথাকথিত ভিআইপি সংস্কৃতির কারণে সাধারণ মানুষের জীবন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে।

নিজের একটি অভিজ্ঞতা বর্ণনা করে মিস ইতি বলেন, অতি নগণ্য বিষয় নিয়েও তথাকথিত ভিআইপি এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে পার্থক্য তৈরি করা হয়।

ইয়াসমিন ইতি
ইয়াসমিন ইতি

মিস্ ইতি একবার নওগাঁর আত্রাই এলাকায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি কাছারি বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। সেখানে তিনি দর্শনার্থী হিসেবে টিকিট কেটে ঢুকে ঘুরছিলেন।

“এমন সময় সিকিউরিটি গার্ডরা দৌড়ে এসে বললো, অমুক সাংসদ এসেছে তার আত্মীয়-স্বজন নিয়ে, এখন সাধারণ যারা আছে তাদের বাইরে অপেক্ষা করতে হবে। সাংসদ ঘুরে চলে গেলে আপনারা আবার ঢুকতে পারবেন। খুব অপমানিত বোধ করেছি তখন,” বলেন মিস্ ইতি।

এয়ারপোর্ট, পাসপোর্ট অফিস, ট্রেন, বিমান, লঞ্চ – সবজায়গাতেই তথাকথিত ভিআইপি কালচারের চর্চা চোখে পড়ার মতো।

ভিআইপ সংস্কৃতি কেন টিকে আছে?

ক্ষমতার সাথে যারা নানাভাবে সম্পৃক্ত তারা নিজেদের সুবিধার জন্য আলাদাভাবে লিখিত কিংবা অলিখিত একটি সিস্টেম চালু করেছেন, যেটি সাধারণ মানুষের চেয়ে আলাদা।

বাংলাদেশের রাষ্ট্রব্যবস্থায় তথাকথিত এই ভিআইপি সংস্কৃতিকে সযত্নে লালন করা হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের শিক্ষক ও বিশ্লেষক গোবিন্দ চক্রবর্তী ব্যাখ্যা করছিলেন এই সংস্কৃতি দিনকে দিন কেন শক্তিশালী হয়ে উঠছে?

মি: চক্রবর্তী বলেন, রাষ্ট্র ক্ষমতার সাথে সম্পৃক্ত কিছু পকেটস আছে। এগুলো বিভিন্ন শাসনামলে শক্তিশালী হয়েছে।

“আমাদের এখানে নীতি প্রণয়নের ক্ষেত্রে এলিটরা যেটা প্রেফার করে, শেষ পর্যন্ত সেটাই বাস্তবায়ন হয়। বাংলাদেশের নীতি প্রণয়নের ক্ষেত্রে বিভিন্ন ইন্টারেস্ট গ্রুপ বেশ শক্তিশালী। যারা নীতি প্রণয়ন করছেন, তারা এই গ্রুপগুলোর মধ্যে ভারসাম্য বাজায় রাখার চেষ্টা করছেন,” বলেন মি: চক্রবর্তী।

বাংলাদেশে যে কোন সরকারি সেবা যথাসময়ে পাওয়ার ক্ষেত্রে সাধারণ মানুষকে যখন সংগ্রাম করতে হয়, তখন ক্ষমতাবান এবং বিত্তবানদের জন্য সেটি বেশ অনায়াসে হয়ে যায়।

অনেকক্ষেত্রে তাদের সশরীরে উপস্থিতও হতে হয় না। রাজনীতিবিদ এবং বিত্তশালী ব্যবসায়ী ছাড়াও ক্ষমতার সাথে সম্পৃক্ত থাকেন সামরিক এবং বেসামরিক কর্মকর্তারা।

সাবেক সচিব শফিক আলম মেহেদির কাছে জানতে চেয়েছিলাম, বিভিন্ন ক্ষেত্রে কেন সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য আলাদা ব্যবস্থা করা হয়?

মি: মেহেদি দাবি করেন, সরকারি কাজের প্রয়োজনে কিছু সুবিধা চালু করা হয়েছে। এর বাইরে অন্য কিছু দাবি করার সুযোগ নেই বলে তিনি মন্তব্য করেন।

“আমরা যখন জয়েন্ট সেক্রেটারি হলাম তখন বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে গেলে সেখানে একটা আসন সংরক্ষিত থাকতো। এছাড়া সচিব যখন হলাম তখন একটি ডিপ্লোম্যাটিক পাসপোর্ট পেয়েছি। এটা সরকারি কাজে সুবিধার্থে,” বলেন মি: মেহেদি।

মহামারির সময় ভিআইপি সংস্কৃতি প্রকট হয়েছে

দেশের ভঙ্গুর চিকিৎসা ব্যবস্থাতে এমনিতেই বৈষম্য ছিল। কিন্তু এবার সেটি আরো প্রকট হয়েছে।

মহামারির এই সময়টিও বাংলাদেশের তথাকথিত ভিআইপি সংস্কৃতি বা বিশেষ সুবিধা পাওয়ার সংস্কৃতিতে কোন পরিবর্তন আনতে পারেনি।

ক্ষমতাসীন দলের সাথে সম্পৃক্ত ব্যক্তি, বিত্তশালী ব্যবসায়ীরা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসা পাচ্ছেন।

যেখানে সাধারণ মানুষের কোন প্রবেশাধিকার সীমিত। ক্ষমতাসীন দলের সাথে সম্পৃক্ত কাউকে-কাউকে ঢাকার বাইরে থেকে হেলিকপ্টারের মাধ্যমে ঢাকায় এনে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

অবশ্য রোগীর চাপ এতোটাই বেশি যে ক্ষমতার সাতে সম্পৃক্ত সবাই সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে পারেননি।

করোনাভাইরাস মহামারির সময় হাসপাতালে সাধারণ মানুষের জায়গা পেতে বেশ সংগ্রাম করতে হয়েছে।
করোনাভাইরাস মহামারির সময় হাসপাতালে সাধারণ মানুষের জায়গা পেতে বেশ সংগ্রাম করতে হয়েছে।

মানবাধিকার কর্মী নীনা গোস্বামী বলেন, সুযোগ সুবিধা যেখানে খুবই অপ্রতুল সেখানে মহামারির সময় পরিস্থিতির কোন বদল আশা করা যায় না।

” স্বাস্থ্যখাতের অব্যবস্থাপনা যখন সামনে চলে আসছে তখন তাদের মনে একটা ভয় কাজ করে। যারা ক্ষমতার সাথে সম্পৃক্ত থাকে তারা সর্বোচ্চ সুবিধাটা নিতে চায়। সেখানে ইকুয়ালিটির প্রশ্নই আসে না,” বলেন মিস্ গোম্বামী।

“এটা শুধু মহামারির সময় না, ক্ষমতার সাথে সম্পৃক্তরা সবসময় সুবিধা পেয়ে থাকে। আপনি সাধারণ সময়েও দেখবেন যে, কিছু মানুষ চিকিৎসার জন্য হেলিকপ্টারের সুবিধা পায়। আবার বাইরে চলে যাবার জন্যও বিশেষ সুবিধা পায়।”

শুধু হাসপাতালে চিকিৎসা নয়, করোনাভাইরাসের টেস্ট করানোর ক্ষেত্রে বৈষম্য চোখে পড়ে।

অভিযোগ রয়েছে টেস্ট-এর ক্ষেত্রে সরকারি কর্মকর্তারা অগ্রাধিকার পায়।

এছাড়া সাংবাদিক, আইনজীবীসহ বিভিন্ন পেশাজীবী গ্রুপ তাদের সংগঠনের সদস্যদের জন্য আলাদা টেস্ট করার ব্যবস্থা করিয়ে নিয়েছেন।

অন্যদিকে সাধারণ মানুষ করোনাভাইরাসের টেস্ট করানোর জন্য রীতিমতো গলদঘর্ম হচ্ছেন।

ঢাকার একজন বাসিন্দা প্রিয়াঙ্কা ভট্টাচার্য বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের সব উপসর্গ থাকা সত্ত্বেও টেস্ট করাতে তাকে দু’সপ্তাহ অপেক্ষা করাতে হয়েছে।

শেষ পর্যন্ত এক আত্মীয়ের পরিচয়ের মাধ্যমে সেটি করানো সম্ভব হয়েছে।

“পরিচিত না থাকলে মনে হয় সম্ভব হতো না,” বলেন মিস্ চক্রবর্তী।

ভিআইপি সংস্কৃতির মূলে রয়েছে রাজনীতি

সরকারি যে কোন সেবা পেতে সাধারণ মানুষকে বহু কষ্ট করতে হয়।
সরকারি যে কোন সেবা পেতে সাধারণ মানুষকে বহু কষ্ট করতে হয়।

বিশ্লেষকরা মনে করেন, তথাকথিত এই ভিআইপি সংস্কৃতির পরিবর্তন করতে পারতো রাজনীতি এবং রাজনীতিবিদরা।

কিন্তু তারাও যেহেতু এই সুবিধা অংশ পায় সেজন্য এটি পরিবর্তনে তাদেরও কোন আগ্রহ নেই।

গত প্রায় ৪০ বছর যাবত রাজনীতির সাথে যুক্ত আছেন নূহ-উল-আলম লেনিন।

এক সময় কমিউনিস্ট পার্টি করলেও দীর্ঘদিন আওয়ামী লীগের সাথে তিনি যুক্ত।

মি: লেলিন মনে করেন, তথাকথিত ভিআইপি সংস্কৃতি টিকিয়ে রাখার ক্ষেত্রে রাষ্ট্রের আগ্রহই সবচেয়ে বেশি।

তিনি মনে করেন, প্রায় সোয়া ২০০ বছর আগে এই অঞ্চলে ব্রিটিশদের চালু করা জমিদারি প্রথার ধারাবাহিকতায় বর্তমানের ভিআইপি কালচার চালু রয়েছে।

মি: লেনিন বলেন, ” ভিআইপি এবং ভিভিআইপি – এই সিস্টেম অফিসিয়ালি কে করেছে? এটা করেছে রাষ্ট্র। রাষ্ট্র যেহেতু চিরকালই অভিজাত শ্রেণীর হাতে ছিল, সে কারণেই এটা অতীতের ধারাবাহিকতায় চলে এসেছে।

তিনি মনে করেন, ক্ষমতাবানরা নিজেদেরকে অন্যদের চেয়ে আলাদা হিসেবে তুলে ধরতে চান। সেজন্যই ভিআইপি কালচার এখনো লালন করা হচ্ছে।

“ক্ষমতার একটা ক্যারেক্টার থাকে। ক্ষমতা যদি প্রয়োগ করা এবং সে যদি নিজেকে সাধারণ মানুষের চেয়ে আলাদা করতে না পারে, তাহলে সে কিসের ক্ষমতাবান হলো?”

বিশ্লেষকরা বলেন, যেখানে জনসংখ্যার তুলনায় সুযোগ-সুবিধা খুবই অপ্রতুল সেখানে দ্রুত সেবা পেতে তথাকথিত ভিআইপি সংস্কৃতি টিকে থাকবে।

আবার অনেকে মনে করেন, ক্ষমতার সাথে সম্পৃক্তরা যেহেতু আলাদা সুবিধা পান, সেজন্য সিস্টেমের পরিবর্তন করার ক্ষেত্রে তাদের তেমন একটা মনোযোগও দেখা যায়না।

  • সরকারি যে কোন সেবা পেতে সাধারণ মানুষকে বহু কষ্ট করতে হয়।

    সরকারি যে কোন সেবা পেতে সাধারণ মানুষকে বহু কষ্ট করতে হয়।

  • করোনাভাইরাস মহামারির সময় হাসপাতালে সাধারণ মানুষের জায়গা পেতে বেশ সংগ্রাম করতে হয়েছে।

    করোনাভাইরাস মহামারির সময় হাসপাতালে সাধারণ মানুষের জায়গা পেতে বেশ সংগ্রাম করতে হয়েছে।

  • ইয়াসমিন ইতি

    ইয়াসমিন ইতি

  • করোনাভাইরাস সংক্রমণের টেস্ট করাতে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয় সাধারণ মানুষকে।

    করোনাভাইরাস সংক্রমণের টেস্ট করাতে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয় সাধারণ মানুষকে।

  • সরকারি যে কোন সেবা পেতে সাধারণ মানুষকে বহু কষ্ট করতে হয়।
  • করোনাভাইরাস মহামারির সময় হাসপাতালে সাধারণ মানুষের জায়গা পেতে বেশ সংগ্রাম করতে হয়েছে।
  • ইয়াসমিন ইতি
  • করোনাভাইরাস সংক্রমণের টেস্ট করাতে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয় সাধারণ মানুষকে।

দৈনন্দিন

সয়াবিন তেলের যত গুণ

প্রতিদিনের রান্নায় সয়াবিন, সরিষা, অলিভ, সানফ্লাওয়ার, রাইস বার্ন তেল ব্যবহৃত হয়। তবে সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয় সয়াবিন। সহজলভ্য ও দামে কম হওয়ায় সয়াবিন তেলের ব্যবহার বাড়ছেই। তেল রান্নাকে শুধু সুস্বাদুই করে না, আছে আরো নানা গুণ। জানালেন পুষ্টিবিদ আখতারুন নাহার আলো।

তেল ছাড়া রান্নার কথা ভাবাই যায় না। ভর্তা থেকে শুরু করে মাছ, মাংস, সবজি, পোলাও, তেহারি, বিরিয়ানির মতো নানা সুস্বাদু রান্নার অন্যতম উপাদান হচ্ছে তেল। শুরুতে রান্নায় সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হতো সরিষার তেল। ঘানিতে তৈরি হতো এই তেল। এখন নতুন প্রযুক্তি এসেছে। মেশিনে নিমেষেই সরিষা ভেঙে পাওয়া যাচ্ছে তেল।

দিন বদলের ধারায় সরিষার তেলের সঙ্গে যোগ হয়েছে সয়াবিন, অলিভ, রাইস বার্ন ও সান ফ্লাওয়ার থেকে পাওয়া তেল। তবে এত তেলের ভিড়ে এখনো এগিয়ে রয়েছে সয়াবিন তেল। প্রাচীনকাল থেকে মায়েদের রান্নাঘরে ব্যবহৃত হওয়া সরিষার তেল আজও সয়াবিনের কাছে মলিন। আশির দশক থেকে রান্নাঘরে সয়াবিনের প্রচলন শুরু। সরিষা থেকে সয়াবিনের দাম অনেক কম প্রায় অর্ধেক। আজ যে ঘরে ঘরে সয়াবিনের জয়জয়কার তার একটি বড় কারণ এটি।

সয়াবিনের এমন জনপ্রিয়তায় ভাগ বসাতে চেষ্টা করেছে অনেক তেল। মাঝে মাঝে সয়াবিনের উচ্চমূল্যের কাছে পাম তেলের চাহিদা বাড়লেও তা হুমকি হয়ে উঠতে পারেনি। সয়াবিনের বিকল্প হয়ে উঠতে পারেনি পাম তেল। সয়াবিনের এই জয়জয়কার স্বীকার করেন বিক্রেতারাও। তাদের কাছে ক্রেতারা এখন সয়াবিনই প্রথম চান।

ভোজ্য তেলের বাজারে সরিষা, সয়াবিন ও রাইস ব্র্যান অয়েল ছাড়াও আরো দুই প্রকারের তেলের চল আছে। তবে তা খুবই সীমিত। সূর্যমুখীর তেল ও জলপাই তেল বিদেশ থেকে আমদানি করেন ব্যবসায়ীরা। তবে এগুলোর দাম বেশ চড়া। সাধারণ ক্রেতাদের হাতের নাগালের বাইরে বলে এখনো অতটা চাহিদা তৈরি করতে পারেনি আমাদের দেশে।

সয়াবিন কেন জনপ্রিয়

দাম কম হওয়া ছাড়াও সয়াবিনের কিছু গুণ আছে। স্বাভাবিক তাপে সয়াবিনের তেমন ক্ষতি হয় না। তবে এ তেল ভাজাপোড়ায় বেশি সময় ধরে গরম না করাই ভালো। পৃথিবীজুড়ে সয়াবিন জনপ্রিয় উদ্ভিজ্জ প্রোটিনের উত্স। সয়াবিন দিয়ে তৈরি হয় নানা পণ্য। মানব শরীরের জন্য খুবই প্রয়োজনীয় উপাদান অ্যামাইনো এসিড। এটিরও ভালো উত্স সয়াবিন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

সুন্দর ত্বক পাওয়ার সহজ উপায়

সুন্দর, ঝকঝকে ও লাবণ্যময়ী ত্বক কে না চায়। সুন্দর ত্বক স্বাস্থ্যের ওপরে প্রভাব ফেলে। আর ত্বক ভালো থাকলে মনও ভালো থাকে। সুস্থ ত্বক পাওয়া কোন কঠিন বিষয় না। প্রতিদিন অল্প কিছু যত্ন নিলেই পাওয়া যাবে ঝকঝকে ত্বক।

মুখ ধোওয়া:

প্রতিদিন নিয়ম করে সকাল এবং রাতে মুখ ভালোভাবে নিজের ত্বকের জন্য উপযোগী ফেসওয়াশ দিয়ে ধুতে হবে।

ক্লিনজার:

সারাদিন মুখে অনেক ধূলাবালি জমা হয়। এ থেকে স্কিনের পোরস গুলো বন্ধ হয়ে যায় এবং পরে ব্রনের সমস্যা দেখা দেয়।  এজন্য তেল, ময়লা থেকে মুক্তি পেতে মৃদু একটি ক্লিনজার ব্যবহার করতে হবে।

ময়েশ্চারাইজার:

সুস্থ ত্বকের জন্য ময়েশ্চারাইজার অনেক জরুরি।  ভালো মানের একটি ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। কখনোই শরীরের ক্রিম বা লোশন মুখে ব্যবহার করবেন না।

এক্সফলিয়েশন:

এক্সফলিয়েশন স্কিনের জন্য জরুরি। এর ফলে ত্বক থেকে মরা কোষগুলো উঠে যায় এবং ত্বক দেখতে পরিষ্কার মনে হয়।

ঘুম:

ত্বক ভালো রাখার জন্য ঘুমের বিকল্প নেই। ঘুম ভালো না হলে তার প্রভাব আপনার চেহারায় পড়বে।

ব্রণ খোঁচাবেন না:

মুখের কোন জায়গায় ব্রণ হলে কোনভাবেই খোঁচানো যাবে না। ব্রণ নিজে থেকেই মিলিয়ে যাবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

বালিশে ঘুম উপকারের চেয়ে অপকার বেশি

ঘুমানোর সময় মাথা এবং শিরদাঁড়াকে সাপোর্ট দেওয়ার জন্যই মূলত বালিশের ব্যবহার করা হয়। এই অভ্যাসটি সবারই আছে। সুস্বাস্থ্যের জন্য মাথার নিচে বালিশ গুঁজে শোয়ার অভ্যাস এখনই বদলে ফেলা উচিত বলছেন চিকিৎসকরা। আরটিভি

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বালিশ যতটা না উপকারে লাগে, তার থেকে অনেক বেশি অপকার হয়। বিশেষজ্ঞরা জানান, কয়েকটা দিন একটু কষ্ট স্বীকার করুন, দেখবেন আপনা আপনি অভ্যাস বদলে যাবে

জেনে নেওয়া যাক বালিশ ছাড়া ঘুমানোর উপকারিতা।

শিরদাঁড়া চাঙ্গা থাকে:  পিঠে ব্যথা হলেই শিগগিরই বালিশ ছাড়া শোয়ার অভ্যাস করুন। দেখবেন উপকার মিলবে। মাথার সঙ্গে বাকি শরীরের তল বদলে দেয় বালিশ। যার সবচেয়ে বেশি প্রভাব পড়ে শিরদাঁড়ায়।

ঘাড়ের স্বাস্থ্যের উন্নতি ঘটে: পরিসংখ্যান বলছে দক্ষিণ এশিয়ার মোট জনসংখ্যার সিংহভাগই কাঁধ, ঘাড় অথবা পিঠের কোনো না কোনও রোগে ভুগছেন এবং রোগীদের বেশিরভাগেরই বয়স ২৫-৪০ এর মধ্যে। তাই তো চিকিৎসকেরা কম বয়স থাকতেই বালিশ ছাড়া ঘুমানোর পরামর্শ দিচ্ছেন। কারণ এমনটা করলে শোয়ার সময় ঘাড় এবং ততসংলগ্ন অঞ্চলে রক্ত সরবরাহ ঠিক মতো হওয়ার সুযোগ পায়।

মুখমণ্ডলের উন্নতি ঘটে: বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গিয়েছে, বালিশে মাথা দিয়ে ঘুমানোর সময় আমাদের মধ্যে অনেকেই উবু হয়ে, বালিশে মুখ গুঁজে শুতে ভালোবাসেন। এমনভাবে দীর্ঘ সময় কেউ যদি ঘুমায়, তাহলে ত্বকে বলিরেখা প্রকাশ পাওয়ার সম্ভাবনা বাড়ে। বালিশে মাথা দিয়ে শোয়ার পর গালের যে দিকটা বেশির ভাগ সময় বালিশের সঙ্গে সংযুক্ত থাকে সেখানেই আধিক্য দেখা যায়।

বালিশে ঘুমালে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে: বেশ কিছু কেস স্টাডি করে দেখা গেছে, বালিশ ছাড়া ঘুমালে যতটা ভালো ঘুম হয়, বালিশ ব্যবহার করলে অতটা ভালো ঘুম হয় না। বালিশ ছাড়া শোয়ার অভ্যাস করবেন যেভাবে-

আমরা সবাই প্রায় ছোট থেকে বালিশে মাথা রেখে ঘুমিয়ে এসেছি। তাই হঠাৎ করে বালিশ ব্যবহার বন্ধ করে দিলে ঘুম নাও আসতে পারে। তাই ধীরে ধীরে বালিশের অভ্যাস ছাড়তে হবে। এক্ষেত্রে প্রথম এক সপ্তাহ বালিশের পরিবর্তে একটা মোটা তোয়ালে ভাঁজ করে মাথায় দিন। যত দিন যেতে থাকবে, তত তোয়ালের হাইট কমাতে থাকুন।

দ্বিতীয় সপ্তাহে তোয়ালেটা একেবারে পাতলা করে দিন। এই সময় খেয়াল রাখবেন, শোয়ার সময় মাথাটা এমন পজিশনে রাখবেন, যাতে থুতনিটা নিচের দিকে থাকে, উপরের দিকে নয়। আরেকটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। যখন তোয়ালের হাইট একেবারে কমিয়ে দেবেন, তখন মাঝে মাঝে ঘাড় এবং পিঠের কিছু ব্যায়াম করা শুরু করতে পারেন। দেখবেন উপকার পাবেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

শরীর সুস্থ রাখতে প্রতিদিন কয়টা আপেল খাবেন?

শরীর সুস্থ রাখার জন্য ফল ও সবজি খাওয়ার বিকল্প নেই। রোজ একটি করে আপেল খেলে রোগবালাই পালাবে এটি অতি পরিচিত একটা কথা। আপেল শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এ কথা সত্য। কিন্তু প্রয়োজনের চেয়ে বেশি আপেল খেলে তাহলে তৈরি হতে পারে নানা সমস্যা। 

চিকিৎসকরা বলছেন, এক জন প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষ প্রতিদিন সর্বোচ্চ দু’টি করে আপেল খেতে পারেন। কিন্তু তার বেশি খাওয়া ভাল নয়। কারণ আপেলের সাথে ক্ষতিকর কীটনাশক আমাদের শরীরে যায় যা মারাত্মক ক্ষতিকর।

কী কী বিপদ হতে পারে অতিরিক্ত আপেল খেলে?

ক্স বেশি পরিমাণে আপেল খেলে তাতে থাকা কীটনাশক অন্ত্রের নানা সমস্যার আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়। এমনকি অন্ত্রের ক্যানসারের আশঙ্কাও বেড়ে যেতে পারে। এতে করে পাকস্থলির ক্ষতি হতে পারে। মলদ্বারের নানা অসুখ হতে পারে এর কারণে। এর পাশাপাশি রক্তে দূষিত পদার্থের পরিমাণ বেড়ে যাওয়াসহ শরীরে নানা ধরনের বিষক্রিয়া হওয়ার সমস্যা রয়েছেই।

ক্স শুধু কীটনাশক নয়, আপেল চকচকে করতে কৃত্রিম মোমও ব্যবহার করা হয় এর গায়ে। প্রাকৃতিক ভাবে আপেলের গায়ে অল্প মোম জাতীয় পদার্থ থাকে। কিন্তু সেটি বেশি দিন টিকে না। তারপরে আপেল তাজা এবং চকচকে করতে অনেকে এর গায়ে মোম এবং পেট্রোলিয়াম জেল লাগান। এগুলোও পেটে যায়। অন্ত্রে এই মোম এবং পেট্রোলিয়াম জেল জমা হয়ে ক্যান্সারসহ নানা রোগের আশঙ্কা বাড়িয়ে দেয়।

ক্স প্রতিদিন দু’টির বেশি আপেল খেলে রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়তে পারে, হজমের সমস্যা হতে পারে এবং ওজন বাড়তে পারে।

ক্স অতিরিক্ত আপেল খেলে দাঁতের ক্ষতিও হতে পারে। যাদের দাঁত বা মাড়ির সমস্যা আছে, আপেল খাওয়ার আগে তাই তাদের চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

পেঁয়াজ থেকে ছড়ানো সালমোনেলা রোগে আক্রান্ত ৬ শতাধিক মানুষ

যুক্তরাষ্ট্রে ৩৭টি অঙ্গরাজ্যে পেঁয়াজ থেকে ছড়ানো সালমোনেলা রোগে আক্রান্ত হয়েছেন ৬ শতাধিক ব্যক্তি। এ রোগে আক্রান্তের পর যুক্তরাষ্ট্রে লেবেল ছাড়া লাল, সাদা ও হলুদ পেঁয়াজ ফেলে দিতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র (সিডিসি) জানায়, এ সংক্রমণের একটি উৎস চিহ্নিত করা হয়েছে মেক্সিকোর চিহুয়াহুয়া থেকে আমদানিকৃত এবং আইডাহোভিত্তিক একটি কোম্পানির সরবরাহ করা পেঁয়াজ। এখন পর্যন্ত ৬৫২ জন অসুস্থ হয়েছেন এবং এদের মধ্যে ১২৯ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। কোনো মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়নি।

সিডিসি বলছে, প্রকৃত অসুস্থ মানুষের সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে। কারণ বেশিরভাগ আক্রান্তের কথা জানা যাচ্ছে না। ৩১ মে থেকে ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৬৫২ জন আক্রান্ত হয়েছেন।

এক বিবৃতিতে সিডিসি জানায়, অসুস্থ মানুষদের বক্তব্য অনুসারে- অসুস্থ হওয়ার আগে ৭৫ শতাংশ মানুষ কাঁচা পেঁয়াজ খেয়েছেন কিংবা তাদের খাবারে পেঁয়াজ ছিল। অনেক অসুস্থ মানুষ একই রেস্তোরাঁয় খাওয়ার কথা জানিয়েছেন।

চিহুয়াহুয়া থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ না কেনার পরামর্শ দিয়েছে সিডিসি। আর যাদের কাছে স্টিকার বা প্যাকেজিংয়ের তথ্য ছাড়া পেঁয়াজ রয়েছে সেগুলো ফেলে দিতে এবং যেখানে এগুলো রাখা হয়েছিল সেগুলো সাবান পানি দিয়ে পরিষ্কার করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। সালমোনেলা রোগে আক্রান্তদের বিষাক্ত খাবার খাওয়ার ছয় ঘণ্টা থেকে ছয় দিনের মধ্যে ডায়রিয়া, জ্বর ও পাকস্থলীতে ব্যথা দেখা দেয়। 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com