আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

এগ্রোবিজ

বেগুনের কেজি ৮ টাকা, চাষিরা হতাশ

বেগুনের কেজি ৮ টাকা, চাষিরা হতাশ
বেগুনের কেজি ৮ টাকা, চাষিরা হতাশ

চলতি মাসে যশোরের শার্শা উপজেলায় বেগুন চাষিরা ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়েছেন। উৎপাদন বেশি হলেও বাজারে কাঙ্ক্ষিত দাম না পাওয়ায় চরম হতাশায় পড়েছেন তারা। এছাড়া চলতি মৌসুমে বেগুনে পোকার আক্রমণের সাথে সাথে অপরিকল্পিত কীটনাশক ব্যবহার করায় খরচ ও লোকসানের ভাগ বেশি হওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন তারা।

সাদা পোকা (হোয়াইট ফ্লাই) পাতার রস শুষে নেওয়ায় পাতা কুঁকড়ে গাছ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। নলি পোকা বেগুনের মধ্যে ছিদ্র করে ঢুকে পড়ছে। এ অবস্থায় লোকসানের আশঙ্কায় কীটনাশক ব্যবহার করছেন চাষিরা। তাতে মানুষের শরীরে রোগ দেখা দেওয়ার আশঙ্কা বাড়ছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

বাজারের কীটনাশকের বিষাক্ততা কৌটার গায়ে লাল, নীল, হলুদ ও সবুজ চিহ্ন দিয়ে উল্লেখ করা থাকে। লাল হীরক চিহ্ন মানে সেটির ব্যবহার সীমাবদ্ধ। হলুদ, নীল, সবুজ মানে সেটি নিরাপদ। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রে চাষিরা লোকসানের আশঙ্কায় বিষাক্ত কীটনাশকগুলোই ব্যবহার করেন। এ ধরনের কীটনাশকের বিষক্রিয়া বেগুন ও অন্য সবজির মধ্যে অন্তত ১৫ দিন থেকে ৬ সপ্তাহ থাকে। এ সময়ের মধ্যে সেই সবজি বাজারে বিক্রি করলে, তা খেয়ে অসুস্থ হতে পারেন লোকজন।

চাষিরা বলেন, ‘কীটনাশকে কতটা বিষ, তা নিয়ে গবেষকরা ভাবুক। এখন বেগুনে পোকার আক্রমণ। তার মধ্যে বাজারে তিন দিন আগে বেগুন পাইকারি ৩-৪ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। ২৯ জানুয়ারি স্থানীয় বাজারে পাইকারি বিক্রি হয়েছে ৬-৮ টাকা কেজিতে। কীটনাশক ব্যবহারে অনেক খরচ। সব মিলিয়ে আমরা খুব হতাশায় পড়েছি।’

চাষিরা আরও বলেন, ‘বেগুন খোলা বাজারে ১৫-২০ টাকা কেজি হলেও আমরা পাচ্ছি মাত্র ৬-৮ টাকা। আমাদের কাছ থেকে কিনে নিয়ে তারা উচ্চমূল্যে বিক্রি করছে। অথচ মাথার ঘাম পায়ে ফেলে আমরা সবজি উৎপাদন করে লসের মধ্যে আছি। ন্যায্য দামটুকু পাচ্ছি না।’

শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সৌতম কুমার শীল বলেন, ‘কীটনাশক ব্যবহার নিয়ে যতটা অজ্ঞতা সবজি চাষে আছে, তা অন্য কোনো চাষে নেই। এ নিয়ে চাষিরা সচেতন না হলে ফসলের রোগ আটকাতে গিয়ে মানুষের শরীরে ভয়ঙ্কর বিষ ছড়াবে। এখনো বহু চাষি তা বুঝতে চায় না।’

তিনি আরও বলেন, ‘এছাড়া বিষযুক্ত বেগুন কিনে বাড়িতে ফুটানো পানিতে লবণ মিশিয়ে ১৫ থেকে আধাঘণ্টা ভিজিয়ে রাখলে প্রায় ৯০ শতাংশ বিষমুক্ত হতে পারে। চলতি মৌসুমে যশোরের শার্শায় ২৫০ হেক্টর জমিতে বেগুনের চাষ হয়েছে।’

এগ্রোবিজ

ভোলায় তরমুজের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

ভোলায় তরমুজের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি
ভোলায় তরমুজের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

এ বছর ভোলায় গত বছরের চেয়ে তিনগুণ বেশি আবাদ হয়েছে তরমুজ। তরমুজের বাম্পার ফলন হওয়ায় হাসি ফুটেছে কৃষকদের মুখে। ভোলা সদর উপজেলার ভেলুমিয়া এলাকার ক্ষেতগুলোতে তরমুজের ব্যাপক সমারোহ। আকার বড় ও ফলন ভালো হওয়ায় ফসল তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। অন্যদিকে ভোলার বাজারগুলোতে তরমুজ বেচাকেনা জমে উঠেছে।

ভেলুমিয়া এলাকার তরমুজ চাষি হারুন ব্যাপারী বলেন, ‘আমি গত ১৫ বছর ধরে এ গ্রামে তরমুজ চাষ করছি। এ বছর চার একর জমিতে চাষ করি। এতে প্রায় ১ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। ক্ষেতে ফসল ভালো হয়েছে। আশা করি অনেক লাভবান হবো।’

ভোলায় তরমুজের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি
ভোলায় তরমুজের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

মনির রাঢ়ি বলেন, ‘এ বছর আবহাওয়া ভালো থাকায় ২ একর জমিতে তরমুজ চাষ করেছি। ৭০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এ পর্যন্ত প্রায় ৮০ হাজার টাকার তরমুজ পাইকারি বিক্রি করেছি। ক্ষেতে যে পরিমাণ ফসল আছে, তাতে ২ লাখ টাকার মতো তরমুজ বিক্রি করতে পারবো।’

বোরহানউদ্দিন উপজেলার চর লতিফ এলাকার তরমুজ চাষি ইসমাইন মিয়া বলেন, ‘এ বছর প্রথম দিকে তরমুজের পাইকারি বাজার অনেক চড়া ছিল। দামটা যদি আরও কিছুদিন থাকে, তাহলে এবার তরমুজ চাষিরা তিন-চারগুণ লাভবান হবে।’

ভোলায় তরমুজের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি
ভোলায় তরমুজের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির জানান, গত বছর জেলায় তরমুজ আবাদের লক্ষমাত্রা ছিল ১২ হাজার ৫০ হেক্টর জমি। বৃষ্টির কারণে আবাদ হয়েছে মাত্র ৩ হাজার ১৬০ হেক্টর। তরমুজ উৎপাদন হয় ১ লাখ ৬৭ হাজার ১৬০ মেট্রিক টন। এ বছর তরমুজের আবাদের লক্ষমাত্রা ছিল ৩ হাজার ১৬০ হেক্টর। আবাদ হয়েছে ১০ হাজার ৪৯১ হেক্টর। যা গত বছরের চেয়ে তিনগুণ বেশি। উৎপাদনও তিনগুণ হবে বলে জানান তিনি।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক বিনয় কৃষ্ণ দেবনাথ বলেন, ‘গত বছরের চেয়ে এ বছর তরমুজের আবাদ তিনগুণ হয়েছে। বর্তমানে বাজারও অনেক ভালো রয়েছে। কৃষকরা গত বছরের লোকসান কাটিয়ে এবার দ্বিগুণ লাভবান হবে। আগামীতে অনেক কৃষক তরমুজ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠবেন।’

ভোলায় তরমুজের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি
ভোলায় তরমুজের ফলনে কৃষকের মুখে হাসি

ভোলার ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্তকর্তা মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘সঠিক সময়ে কৃষকরা আমাদের কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে ক্ষেতে সঠিক ওষুধ ব্যবহারের ফলে ক্ষেতে কোন প্রকার পোঁকা-মাকরের আক্রমণ হয়নি। এছাড়া তরমুজের আকার বড় করে বেশি লাভবান হওয়ার জন্য কৃষকদের সুষম সার ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

ঘাসেই মিললো কোটি টাকা!

ঘাসেই মিললো কোটি টাকা
ঘাসেই মিললো কোটি টাকা

ঘাসেই মিললো কোটি টাকা! শুনলে কেমন অবাক লাগে, তাই না? ভেবে থাকতে পারেন, মাঠ বা পথের ঘাসে হয়তো কোটি টাকা পাওয়া গেছে। আসলে কিন্তু তা নয়। আসল কথা হচ্ছে- ঘাস চাষ করেই কোটি টাকার মালিক হয়েছেন এক কৃষক।

তার সন্ধান পাওয়া গেছে গাইবান্ধার পলাশবাড়ী উপজেলার কিশোরগাড়ি ইউনিয়নের সুলতানপুর বাড়াইপাড়া গ্রামে। তার নাম আ. গফুর শেখ। অক্লান্ত পরিশ্রম করে নেপিয়ার জাতের ঘাস চাষে সফল হয়েছেন তিনি। তিনি জাতীয় স্বীকৃতিও পেয়েছেন। ২০১৪ সালে বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার পেয়েছেন।

media

আ. গফুর জানান, ২০০৪ সালে পলাশবাড়ীর দুলু মিয়ার কাছে নেপিয়ার জাতের ঘাসের কথা শুনে চারা সংগ্রহ করে পাঁচ শতক জায়গায় লাগান। পাশাপাশি স্থানীয় সমিতি থেকে ৭ হাজার টাকা ঋণ নিয়ে একটি গাভী কেনেন। এরপর গাভীটি একটি বাছুর দেয়। সেই ঘাস বড় হলে গাভীকে খাওয়ান। ফলে গাভীর দুধও বাড়তে থাকে। আবার ঘাস বিক্রি করেও টাকা পান।

এরপর আর থেমে থাকতে হয়নি। ২০ বিঘা জমিতে এই ঘাস চাষ করেন। এরমধ্যে ৮ বিঘা নিজের কেনা এবং ১২ বিঘা ইজারা নেওয়া। ঘাস চাষে একবিঘা জমিতে খরচ পড়ে প্রায় ১০ হাজার টাকা। প্রতিমাসে খরচ বাদে বিক্রি করে আয় হয় ১ লাখ টাকা!

ঘাসেই মিললো কোটি টাকা
ঘাসেই মিললো কোটি টাকা

এভাবেই ২০ শতক জমিতে আধাপাঁকা ঘর তৈরি করেন। খামারে আনেন উন্নত জাতের ২২টি গাভী। এরমধ্যে কয়েকটি গাভী দুধও দিচ্ছে। সেই দুধ বিক্রি করে আয় হচ্ছে। ঘাসের জমিতে পানি সেচের মেশিনও রয়েছে। পাশাপাশি হাঁস-মুরগি ও ছাগল পালন করেন।

তার এ কাজের জন্য কর্মচারি রয়েছে ৩ জন। তাদের প্রতিজনের মাসিক বেতন ৯ হাজার টাকা। তারা প্রতিদিন জমি থেকে ঘাস কেটে শহরের বিভিন্ন স্থানে বিক্রি করে। এছাড়াও নিজস্ব সৌর বিদ্যুৎ, ২টি মোটরসাইকেল এবং ৫টি ভ্যান রয়েছে গফুরের।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

গরমে পোল্ট্রি খামারের যত্ন নিবেন কীভাবে

 গরমে পোল্ট্রি খামারের যত্ন নিবেন কীভাবে
গরমে পোল্ট্রি খামারের যত্ন নিবেন কীভাবে

প্রাণিজ আমিষের বড় একটা অংশ আসে পোল্ট্রি শিল্প থেকে। প্রায় অর্ধকোটি মানুষের জীবন-জীবিকা এই শিল্পের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত। তাই এ শিল্পের সুদৃঢ় ভবিষ্যৎ চিন্তা করে সময়োপযোগী পদক্ষেপ নেওয়া জরুরি। গরমকাল এ পোল্ট্রি খামারের বিশেষ যত্ন না নিলে কমে যেতে পারে ব্রয়লারের ওজন বৃদ্ধি এবং লেয়ার খামারের ডিম সংখ্যা। সে কারণেই নিচের টিপসসমূহ জেনে নিন-

তাপমাত্রা বৃদ্ধি ও এর প্রভাব
ঘর্মগ্রন্থি না থাকার কারণে মোরগ-মুরগির অতিরিক্ত গরম অসহ্য লাগে। এতে উৎপাদন ক্ষমতা ব্যাহত হয়। অতিরিক্ত তাপে এদের পানি গ্রহণ, শ্বাস-প্রশ্বাস, শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পায়। অপরদিকে থাইরয়েড গ্রন্থির আকার, রক্তচাপ, নাড়ির স্পন্দন, রক্তে ক্যালসিয়ামের সমতা, খাদ্য গ্রহণ, শরীরের ওজন ও ডিমের উৎপাদন হ্রাস পায়। ১৫ থেকে ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় এদের উৎপাদন সর্বোচ্চ। ২৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে প্রতি ডিগ্রি তাপমাত্রা বৃদ্ধিতে শতকরা ৪ ভাগ হারে পানি গ্রহণ বৃদ্ধি পায়। ২৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রার পর থেকে ডিমের সংখ্যা না কমলেও প্রতি ডিগ্রি তাপমাত্রা বৃদ্ধিতে ডিমের ওজন শতকরা এক ভাগ হারে কমে যায়। ২৬.৫ সেলসিয়াস ডিগ্রি তাপমাত্রার পর থেকে মোরগ-মুরগির খাদ্যের রূপান্তর ক্ষমতা হ্রাস পায়। ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে প্রতি ডিগ্রি তাপ বৃদ্ধিতে ২ থেকে ৪ শতাংশ খাবার গ্রহণ কমে যায়। ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা মোরগ-মুরগির জন্য অসহনীয় এবং ৩৮ ডিগ্রির পর মৃত্যু হার খুব বৃদ্ধি পায়।

তাপজনিত ধকল প্রতিরোধ
খামারের আশেপাশে ছায়াযুক্ত বৃক্ষ রোপণ এবং ঘর পূর্ব-পশ্চিমে হওয়া বাঞ্ছনীয়। তবে আধুনিক খামার ব্যবস্থাপনায় বায়োসিকিউরিটির কথা চিন্তা করে গাছপালা রোপণের প্রতি অনুৎসাহিত করা হয়ে থাকে। গরমে পোল্ট্রি শেডে প্রত্যক্ষ সূর্যালোক পরা যাবে না। অত্যধিক গরম প্রতিরোধে প্রয়োজনে শেডের ছাদে বা টিনের চালায় দিনে দু’তিন বার পানি ছিটানোর ব্যবস্থা করতে হবে। টিনের নিচে চাটাই বা হার্ডবোর্ড দিয়ে সিলিংয়ের ব্যবস্থা করতে হবে। অনেক সময় মুরগি যখন হাঁ করে শ্বাস-প্রশ্বাস নেয় তখন ঘরে সেপ্র মেশিন দিয়ে কুয়াশার মত করে পানি ছিটিয়ে দেওয়া যেতে পারে। পানির ড্রিংকার ও ফিডারের সংখ্যা বাড়াতে হবে। ঘন ঘন ড্রিংকারের পানি পাল্টাতে হবে। গরমে বাতাসের আর্দ্রতা বেড়ে যাওয়ার কারণে শেডের মেঝে অনেক সময় স্যাঁতসেঁতে হয়ে লিটার দ্রুত ভিজে যায়। ফলে রোগের আক্রমণও বাড়ে। সেজন্য প্রতিদিন সকালে ব্রয়লার শেডের লিটার উলোট-পালোট করা প্রয়োজন। লিটারে গুঁড়ো চুন ব্যবহার করলে খুব ভালো ফল পাওয়া যায়। শেড থেকে শেডের দূরত্ব ৩০ ফুটের বেশি হলে ভালো হয়। শেডে মোরগ-মুরগির ঘনত্ব বেশি হলে তা কমিয়ে দিতে হবে। বাতাসের অবাধ চলাচল শেডের ভেতরের তাপমাত্রা শীতল রাখতে সাহায্য করবে এবং পোল্ট্রির জন্য ক্ষতিকর অ্যামোনিয়া গ্যাসমুক্ত রাখবে। শেডে স্টেন্ড ফ্যানের ব্যবস্থা করতে হবে।

খাবার ব্যবস্থাপনা
ঠান্ডা ও বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করতে হবে। যেহেতু তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে এদের খাদ্য গ্রহণ কমে যায়, সেহেতু প্রয়োজনীয় পুষ্টির চাহিদা মেটাতে ৮ থেকে ১০ ভাগ শক্তি কমিয়ে প্রোটিন, খনিজ লবণ ও ভিটামিন বাড়িয়ে দিতে হবে। প্রতি লিটার পানিতে ১০-১২ গ্রাম গ্লুকোজ ও মুরগি প্রতি ১০ গ্রাম ভিটামিন সি পানির সঙ্গে মিশিয়ে দিলে ভালো ফল পাওয়া যায়। এছাড়া প্রাকৃতিক বিটেইনে ধনাত্মক ও ঋণাত্মক আছে যা কোষের মধ্যে পানি ধরে রাখতে সাহায্য করে। ফলে হিট স্ট্রোকের হাত থেকে এরা রক্ষা পায়। গরমে পোল্ট্রির অ্যামাইনো অ্যাসিডের চাহিদা বেড়ে যায়। বিটেইনে মিথাইল মূলক বিদ্যমান, যা মিথিওনিন ও কলিনের ঘাটতি পূরণে সহায়তা করে। গরমে প্রয়োজনে একদিনের বাচ্চার জন্য পানিতে আখের গুড়, ভিটামিন-সি অথবা ইলেকট্রোলাইট যুক্ত স্যালাইন পানি দিতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

সফল উদ্যোক্তা সোহাগের গল্প

 সফল উদ্যোক্তা সোহাগের গল্প
সফল উদ্যোক্তা সোহাগের গল্প

আসাদুজ্জামান সোহাগ একজন সফল উদ্যোক্তা। অনেক পরিশ্রম করে আজ তিনি গ্রামের একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। তাকে দেখে অনেক যুবক আত্মকর্মসংস্থানের ব্যাপারে উৎসাহ পাচ্ছেন।

জানা যায়, মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার দড়িচর লক্ষ্মীপুর গ্রামের ছেলে আসাদুজ্জামান সোহাগ। ২০০১ সালে তিনি কালকিনি সৈয়দ আবুল হোসনে কলেজ থেকে বি.কম পাস করে বিদেশ যাওয়ার জন্য বিভিন্ন এজেন্সি ও দালালের মাধ্যমে অনেক টাকা খরচ করেন। সে চেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে পরে দেশেই চাকুরির চেষ্টা করেন। তাতেও বিফল হয়ে হতাশায় ভুগতে থাকেন।

সবশেষে কোন উপায় না দেখে বড় ভাই ও বাবা-মায়ের পরামর্শে ৪ বিঘা জমিতে পুকুর তৈরি করে মাছ চাষ শুরু করেন। কিন্তু লাভ আশানুরূপ না হওয়ায় তাতে আরও হতাশ হয়ে পরেন। পরবর্তীতে এক বন্ধুর পরামর্শে মাদারীপুর যুব প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে গবাদীপশু, হাস-মুরগি পালন, মৎস চাষ এবং কৃষি বিষয়ে ২ মাস ১৫ দিনের একটি প্রশিক্ষণ নেন।

প্রশিক্ষণ শেষে বাবার কাছ থেকে সাড়ে তিন লাখ টাকা নিয়ে আরও একটি পুকুর খনন করেন। ২টি পুকুরে মাছ চাষ ও পুকুর পাড়ে শাক-সবজির চাষ শুরু করেন। এবার ভালো লাভ হওয়ায় ওই লাভের টাকা দিয়ে আরেকটি পুকুর খনন করেন। পুকুর পাড়ে বিভিন্ন ফলের গাছ রোপণ এবং পরবর্তীতে ১ হাজার ১০০ মুরগির একটি লেয়ার পোল্ট্রি খামার স্থাপন করেন। এতেও ভালো লাভ হওয়ায় আরো ২টি পুকুর লিজ নিয়ে ১ হাজার ৩০০ লেয়ার মুরগির শেডের নির্মাণ কাজ শুরু করেন।

 সফল উদ্যোক্তা সোহাগের গল্প
সফল উদ্যোক্তা সোহাগের গল্প

এ ব্যাপারে আসাদুজ্জামান সোহাগ জাগো নিউজকে বলেন, ‘শুরুতে আমি তিন লাখ টাকা দিয়ে কাজ আরম্ভ করি। বর্তমানে আমার ৮৫ লাখ টাকা মূলধন আছে। আমার প্রকল্পে ১০ জন বেতনভুক্ত কর্মচারী আছে। এরমধ্যে ২ জন যুব উন্নয়ন অধিদফতরের প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমার প্রকল্প দেখে আমার কাছ থেকে পরামর্শ নিয়ে এলাকার ১১ বেকার যুবক আত্মকর্মসংস্থান প্রকল্প গড়ে তুলেছেন। এই প্রকল্পের মাধ্যমে আমি বেকার সমস্যা সমাধান করতে সক্ষম হয়েছি।’

মাদারীপুর যুব উন্নয়ন অধিদফতরের উপ-পরিচালক শেখ মো. নাসির উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, ‘যুব উন্নয়ন থেকে গবাদীপশু, হাস-মুরগি পালন, মৎস চাষ এবং কৃষি বিষয়ে ২ মাস ১৫ দিনের প্রশিক্ষণ নিয়ে আসাদুজ্জামান সোহাগ কাজ শুরু করেন। এরপর থেকে সে খুব অল্প সময়ে সাফল্যের মুখ দেখতে পান।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা

লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা
লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা

মসলা জাতীয় খাদ্যপণ্য হিসেবে পেঁয়াজ অন্যতম। দেশের চাহিদার মোট ১৪ ভাগ পেঁয়াজ উৎপাদিত হয় রাজবাড়ীতে। তাই জেলাসহ দেশের বাজারে পেঁয়াজের ঘাটতি পূরণ করতে কৃষকরা পেঁয়াজের পাশাপাশি বীজের চাষ বাড়িয়েছেন।

পেঁয়াজের এ বীজকে ‘কালো সোনা’ বলেও আখ্যায়িত করা হয়। উৎপান ও বাজার দর ভালো পাওয়ায় রাজবাড়ীর পেঁয়াজ বীজ চাষিরা বেশ লাভবান হচ্ছেন। ফলে প্রতি বছরই জেলায় পেঁয়াজ বীজ চাষ বাড়ছে।

রাজবাড়ী সদর উপজেলা, পাংশা, বালিয়াকান্দি, গোয়ালন্দ ও কালুখালীতে এ বছর পেঁয়াজ বীজ আবাদ হয়েছে ৩০৫ হেক্টর জমিতে। যা গত বছর আবাদ হয়েছিল ২৯০ হেক্টর জমিতে। গত বছরের তুলনায় এ বছর ১৫ হেক্টর বেশি জমিতে বীজ চাষ হয়েছে।

সদর উপজেলার দাদশী ইউনিয়নের কামালপুর গ্রামের কৃষক লিটন শেখ জানান, চার বিঘা জমিতে তিনি পেঁয়াজের বীজ চাষ করেছেন এবং প্রতি বছর তিনি পেঁয়াজ বীজের চাষ করেন। চাষ, সার-বীজ এবং কীটনাশকসহ সব মিলিয়ে তার খরচ হয়েছে ৭০ হাজার টাকা। এ চার বিঘা জমি থেকে তিনি ৫-৬ মণ বীজ পাবেন বলে আশা করছেন।

লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা
লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা

এ বীজ ৪-৫ লাখ টাকা বিক্রি করবেন বলে তিনি মনে করছেন। সব খরচ বাদ দিয়ে ৩ থেকে সাড়ে ৩ লাখ টাকা লাভ হবে তার। পেঁয়াজের বীজ চাষ করে তিনি ভালো লাভবান হয়েছেন। আগামীতে তিনি আরও জমিতে বীজের চাষ করবেন।

জানা যায়, বর্তমানে প্রতি কেজি বীজের বাজার দর তিন-চার হাজার টাকা, আর মণ হিসেবে প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার থেকে দেড় লাখ টাকার মতো পাওয়া যায়। প্রতি বিঘা জমি থেকে ফলন পেয়ে থাকেন দুই থেকে আড়াই মণ। প্রতি মণ বীজ ১ লাখ টাকা থেকে দেড় লাখ টাকা বিক্রি করে থাকেন।

কৃষকরা জানান, পেঁয়াজ বীজের উচ্চমূল্য এবং এটি লাভজনক ফসল হওয়ায় তারা দিনদিন বীজের চাষে ঝুঁকছেন। তাছাড়া বীজের চাষ করে ক্ষেত থেকে যে পেঁয়াজ পান, তা থেকে বীজ চাষের খরচ উঠে আসে।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. বাহাউদ্দিন বলেন, ‘এ বছর রাজবাড়ী সদর উপজেলায় ৮৬ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজের বীজ আবাদ হয়েছে। এ বীজ চাষ করে কৃষকের বিনিয়োগের ৪ ভাগের তিন ভাগই লাভ হয়ে থাকে। বীজ চাষে কৃষকদের এসএমই চাষি হিসেবে, উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে।’

লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা
লাভের আশায় ‘কালো সোনা’য় ঝুঁকছেন চাষিরা

রাজবাড়ী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. ফজলুর রহমান বলেন, ‘এবার পেঁয়াজ বীজের ফলন ভালো হয়েছে। কালবৈশাখী ঝড়ে বীজের ক্ষতি না হলে উৎপাদনও ভালো হবে। ভালো ফলন এবং বাজার মূল্য বেশি পাওয়ার আশায় কৃষকরা বীজের আবাদ বাড়িয়েছেন।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com