আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

বাংলাদেশ

বিভিন্ন দেশ থেকে চীনে যাওয়া হিমায়িত গরুর মাংসে করোনা

ব্রাজিল, নিউজিল্যান্ড এবং বলিভিয়ার মতো দেশ থেকে আমদানি করা হিমায়িত গরুর মাংস, ভুঁড়ি ও সেসব পণ্যের বক্স-মোড়কে  করোনার উপস্থিতি পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে চীনের উত্তরাঞ্চলীয় প্রদেশ জিনানের কর্তৃপক্ষ। বার্তা সংস্থা রয়টার্সের রোববারের এক প্রতিবেদন থেকে এ খবর জানা যাচ্ছে।

স্থানীয় সময় শনিবার দিনশেষে জিনান মিউনিসিপ্যাল হেলথ কমিশন তাদের ওয়েবসাইটে এক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, গুয়োতাই ইন্টারন্যাশনাল গ্রুপ ও সাংহাই ঝোংলি ডেভলপমেন্ট ট্রেডের মাধ্যমে এসব পণ্য আমদানি হয়েছে। তবে যে কোম্পানিগুলো এসব পণ্য পাঠিয়েছে বিবৃতিতে তাদের নাম উল্লেখ করা হয়নি।

সাংহাইয়ের ইয়াংশান বন্দর ছাড়াও ও আশপাশের বন্দর হয়ে এসব খাবার চীনে প্রবেশ করেছে। বিবৃতিতে বলা হচ্ছে, এ ঘটনার পর দুষিত এসব পণ্যের সংস্পর্শে আসা ও সংশ্লিষ্ট অন্যান্য ব্যক্তিসহ সাড়ে সাত হাজারেরও বেশি মানুষের করোনা পরীক্ষা করা হয়। তবে পরীক্ষায় তাদের সবার ফল করোনা নেগেটিভ এসেছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদন অনুযায়ী এর আগে গত সপ্তাহে সৌদি আরব থেকে চীনের লানেঝৌ শহরে যাওয়া হিমায়িত চিংড়ি, ব্রাজিল থেকে উহানে যাওয়া হিমায়িত গরুর মাংস এবং আর্জেন্টিনা থেকে শাডং ও জিয়াংশু শহরে যাওয়া গরুর মাংসের বক্সে করোনার উপস্থিতি খুঁজে পেয়েছিল চীনের সরকারি কর্তৃপক্ষ।

বিশ্বে গরুর মাংসের সর্ববৃহৎ আমদানিকারক দেশ হলো চীন। আর চীনে হিমায়িত গরুর মাংস রফতানিতে শীর্ষে রয়েছে লাতিন আমেরিকার দুই দেশ ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা।

তবে হিমায়িত গরুর মাংস থেকে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেক কম বলে জানিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। কিন্তু আমদানি করা খাবারের মধ্যে ভাইরাসটির উপস্থিতি শনাক্ত হওয়ার পর চীন সবসময় সতর্কতা জারি করে সংশ্লিষ্ট পণ্য আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করে আসছে।

পরিবেশ

শুভলং ঝরনা ও পাহাড়ি জীবনের খোঁজে

আবু আফজাল সালেহ

ভোরেই পৌঁছলাম রাঙ্গামাটির রিজার্ভবাজারের বাস স্টেশনে। এরপর ঝটপট নাস্তা সেরে নিলাম। সিএনজি ভাড়া করে গেলাম তবলছড়ি পর্যটন মোটেলের শেষ প্রান্তে, ঝুলন্ত ব্রিজের ঠিক মুখে। ২০ টাকার টিকিট কেটে ঢুকতে হবে। এ ঝুলন্ত ব্রিজই রাঙ্গামাটির প্রতীক। কাপ্তাই হ্রদের দুপাশের পাহাড়ের সঙ্গে সেতুবন্ধন করেছে ছোট্ট ব্রিজটি। ব্রিজটি ঘিরেই রয়েছে বিভিন্ন রাইড। নৌকা ভ্রমণের ব্যবস্থা।

এখান থেকে দরদাম করে ট্রলার বা স্পিডবোট ভাড়া করে ঘুরতে পারেন শুভলং ঝরনা, আর্মি ও আনসার ক্যাম্প। বিভিন্ন ভাসমান হোটেলেও যেতে পারবেন। ঘণ্টাখানেক এখানে অবস্থান করে মূল শহরে গেলাম। রাঙ্গামাটি-চট্টগ্রামের সড়কপথ ধরে উপজাতিদের ছোট ছোট বাজার। বিভিন্ন ফল-মূল ও নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কেনাকাটা করছে বাঙালি ও পাহাড়ি জনগোষ্ঠী। দারুণ সম্প্রীতির বাংলাদেশ!

কাছাকাছি রাজবাড়ি দেখলাম। ভেতরে প্রবেশ করায় নিষেধাজ্ঞা আছে। প্রায় বেলা ১১টার দিকে রিজার্ভ বাজারের লঞ্চঘাটের দিকে রওনা দিলাম সিএনজিতে। ১২ টাকা ভাড়া। নেমেই ৫০০ গজের মতো হেঁটে লঞ্চঘাট। লঞ্চঘাট থেকে ১৬০০ টাকায় ছোট্ট একটি ট্রলার ৬-৭ ঘণ্টার জন্য চুক্তি করলাম। শুরু হলো সবচেয়ে রোমাঞ্চকর কাপ্তাই হ্রদে বোট ট্যুর। দেশের বৃহত্তম ও বিশ্বের অন্যতম বড় কৃত্রিম হ্রদ ভ্রমণ! রোমাঞ্চের ডালপালা মেলে দিলো। চার জনই রোমাঞ্চিত।

লঞ্চঘাট থেকে কয়েক মিনিট যেতেই মনে হয় বিশাল সাগরে এসে পড়লাম। চারিদিকে অথৈ পানি। একটু দূরে ছোট ছোট দ্বীপ। কিছুদূর যেতেই পাহাড় দেয়াল। পাহাড়ের খাঁজে খাঁজে ছোট ছোট বাসা। সৌন্দর্য উপভোগ করতে করতে আমরা চার জন ছোট্ট ট্রলার নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। জেলেদের মাছধরার দৃশ্য আর মাথার ওপর বিভিন্ন পাখিদের ওড়াউড়ি, কী মনোরম! আহা, কী দৃষ্টিসুখ! আর কিছুদূর যেতেই সোনা রঙের মূর্তি দেখতে পেলাম। মাঝি বললেন, এটিই স্বর্ণমন্দির। নেমেই গেলাম। দেখলাম। উপজাতিদের সাথে কথাও বললাম।

আবার উঠলাম ট্রলারে। এবার কাপ্তাই হ্রদের পানিরাশি সবুজ। চারিদিকের সবুজ পাহাড়ের প্রতিচ্ছায়ায় এমন। পেরিয়ে যাচ্ছি করমজল উপজেলা। সবুজ পাহাড়ের মোহনা! কী নান্দনিক! এমন মোহনা প্রায়ই দেখা যাচ্ছে। চোখ টেনে নিচ্ছে; মনও। প্রায় ৪৫ মিনিট পানিভ্রমণ শেষে নান্দনিক জায়গা। হ্রদের অংশ ঢুকে পড়েছে পাহাড়ের ভেতর। মাঝি বললেন, এটিই শুভলং ঝরনা; মায়াবী ঝরনা। তবে শীতকালে পানি একেবারেই কম। বর্ষাকালে কী যে পাহাড়ি রূপ! একটু চোখ বুলিয়ে নিলাম। নামলাম। ২০ টাকার টিকিট কেটে ঝরনায় প্রবেশ করতে হয়। এখানে ক্যান্টিন আছে। যে কেউ হালকা চা-নাস্তা করে নিতে পারেন।

আবার যাত্রা শুরু পাহাড় উপত্যকার জলপথ দিয়ে। আরও ১০ মিনিট যেতেই ছোট্ট বাজার, আর্মি ক্যাম্প। বলে রাখি, এরপর যেতে হলে সেনাবাহিনীর অনুমতি লাগবে। এখানকার সবকিছুই সেনাসদস্যরা নিয়ন্ত্রণ করেন। অনুমতি নিয়ে বারবার মোহনা ও দ্বীপ পাশ কাটিয়ে প্রায় ২০ মিনিট পরে বড় স্থাপনা দেখতে পাচ্ছি। মাঝি বললেন, এটা শুভলং আনসার ক্যাম্প। পাহাড়ের গায়ে জল-পাহাড় বেষ্টিত ক্যাম্পটি দেখতে সুন্দর।

এবার ফেরার পালা। বিকাল ও গোধূলিবেলায় আধো-আধো আলোতে কাপ্তাই হ্রদের কী যে দৃশ্য! ভুলে যাওয়ার নয়। মাঝপথেই সন্ধ্যা হয়ে গেল। জেলেরা আলো জ্বালিয়ে মাছ ধরছে। দ্বীপগুলোয় আলো জ্বলছে। মাথার ওপর রাতজাগা পাখিদের ওড়াউড়ি। দ্বীপগুলো ও হ্রদের পার্শ্ববর্তী রাঙ্গামাটি শহর যেন আমেরিকান কবির নিউইয়র্ক কবিতার মতো বিল্ডিংগুলো যেন made of glass and lights দিয়ে তৈরি। প্রায় ১ ঘণ্টা ৩০ মিনিটি রোমাঞ্চকর জলভ্রমণ শেষে রিজার্ভ বাজারের লঞ্চঘাটে এসে পৌঁছলাম।

যাতায়াত: রাঙ্গামাটি শহরের রিজার্ভ বাজার সংলগ্ন লঞ্চঘাট থেকে লঞ্চ ভাড়া করতে হবে। ছোট-বড়ভেদে ১২০০ টাকা থেকে শুরু। ১০-২০ জন ভ্রমণ করা যাবে। কোন কোন স্পটে যাবেন, তা আগেই ঠিক করে নিতে হবে। স্পিডবোটেও যেতে পারবেন। ৫-৬ জনের ভাড়া ২০০০ টাকা থেকে শুরু। তার আগে ট্রেন বা বাসে চট্টগ্রাম যেতে হবে। অক্সিজেন মোড় থেকে পাহাড়িকা বা শান্তি পরিবহনে ১২০ টাকা ভাড়া। পাহাড়ের মধ্যদিয়ে প্রায় আড়াই ঘণ্টায় পৌঁছে যাবেন রাঙ্গামাটির রিজার্ভ বাজারে। একটু এগিয়ে গিয়ে লঞ্চঘাটে দরদাম করে লঞ্চ বা স্পিড বোট ভাড়া করে কাপ্তাই ভ্রমণ করুন। এ ছাড়া ঢাকা থেকে কিছু পরিবহন ৯-১০ ঘণ্টা সময়ে রাঙ্গামাটি পৌঁছে দেবে। এসি-নন এসি ভেদে ভাড়া ৬৫০ টাকা থেকে শুরু।

থাকা ও খাওয়া: রিজার্ভ বাজারসহ শহরের বিভিন্ন প্রান্তে বিভিন্ন বাজেটের আবাসিক ও খাওয়ার হোটেল পাবেন। এছাড়া উপজাতিদের বাড়িতে থাকতে ও খেতে পারবেন। পর্যটন কর্পোরেশনের নিয়ন্ত্রিত মোটেল বা আবাসনে থাকতে ও খাওয়া-দাওয়া করতে পারবেন। খরচ তুলনামূলক একটু বেশি হতে পারে।

নৌকা বা স্পিড বোট ভাড়া: রাঙ্গামাটি শহরের রিজার্ভ বাজারের লঞ্চঘাটে নৌকা পাওয়া যাবে। দরদাম করতে হবে। স্পিড বোটে ৩-৪ হাজার টাকা।

পাহাড়ি বাজার: সকালের দিকে শহরের রাস্তায় ছোট ছোট ভাগ করে পাহাড়িরা ফল-মূল ও কাঁচাবাজার নিয়ে বসে। এ দৃশ্য মনোরম। শহরের বিভিন্ন দোকান, উপজাতি অনেক বাড়ি থেকে পোশাক ও হস্তশিল্প সামগ্রী কেনাকাটা দারুণ ও উপভোগ্য হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফুল

হেমন্তের সুন্দর ফুল দেবকাঞ্চন

লেখক

আমাদের দেশে যে কয়েক ধরনের কাঞ্চন ফুল দেখা যায়, তার মধ্যে দেবকাঞ্চন অন্যতম। হেমন্তের প্রায় বিবর্ণ প্রকৃতিতে এই ফুলের সৌন্দর্য প্রশ্নাতীত। ঢাকাসহ দেশের প্রায় সব বড় শহরে এই ফুলের পরিকল্পিত বীথি থাকা প্রয়োজন। তাতে আমাদের চারপাশে হেমন্তের ফুলের দৈন্য কিছুটা হলেও কমবে। ঢাকায় রমনা পার্ক, শেরেবাংলা নগর, বোটানিক্যাল গার্ডেনসহ বিভিন্ন পার্ক-উদ্যান এবং পাহাড়ি এলাকায় দেবকাঞ্চন দেখা যায়। তবে বনে প্রাকৃতিকভাবে জন্মানো দেবকাঞ্চন সংখ্যায় অনেক কম। নভেম্বর থেকে ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত পার্বত্য চট্টগ্রামে বিক্ষিপ্তভাবে এই ফুল ফোটে। 

দেবকাঞ্চন, রক্তকাঞ্চন এবং সাদাকাঞ্চনের কাণ্ড ও পাতার গড়ন প্রায় একই, পার্থক্য শুধু ফুলে। এ কারণে ফুল না ফুটলে এদের আলাদা করা কঠিন। তবে অন্যান্য কাঞ্চন ফুলের মধ্যে তুলনামূলকভাবে রক্তকাঞ্চনই বেশি আকর্ষণীয়। কাঞ্চনের পাতা তার অনন্য বৈশিষ্ট্য। দুটি পাতা জোড়া দিলে দেখতে যেমন, পাতার শেষ প্রান্ত অবিকল সে রকম। এ কারণেই কাঞ্চনের বৈজ্ঞানিক নামের প্রথম অংশ দুই যমজ উদ্ভিদবিজ্ঞানীর নাম থেকে নেওয়া। তারা ষোড়শ শতকের বিখ্যাত উদ্ভিদবিজ্ঞানী ছিলেন।

দেবকাঞ্চন (Bauhinia purpurea) মাঝারি আকারের অর্ধচিরসবুজ গাছ, ৮ থেকে ১০ মিটার উঁচু, মাথা ছড়ানো। পাতা মাথার দিকে ২-বিভক্ত, লতির আগা চোখা ও ভোঁতা। ফুল ৬ থেকে ৮ সেন্টিমিটার চওড়া, সুগন্ধি, সাদা বা বেগুনি। কয়েকটি একত্রে একটি ডাঁটায়, ফোটে হেমন্তে, সারাগাছ ভরে। অসমান ও লম্বাটে পাঁচটি পাপড়ি, মুক্ত। শুঁটি ১০ থেকে ৩০ সেন্টিমিটার লম্বা, শিমের মতো। বীজ ১২ থেকে ১৬টি। ফুল অবশিষ্ট থাকতে থাকতেই শিমের মতো চ্যাপ্টা ফল ধরে। ফলগুলো একসময় শুকিয়ে গিয়ে আপনাআপনিই ফেটে যায়। তখন বীজগুলো ছড়িয়ে পড়ে। ভারতের শুস্ক অঞ্চলের অরণ্যভূমিতে এদের আদি আবাস। কাঞ্চনগাছের বাকল থেকে ট্যানিং, রং ও দড়ি তৈরি করা যায়। বীজ তেল সস্তা জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হতো। গাছের শিকড় বিষাক্ত এবং সর্পদংশনের প্রতিষেধক।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

বাংলাদেশ

উৎপাদনে এবার হতে পারে রেকর্ড

লেখক

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের গবেষণায় দেখা গেছে, এবার যে ২২ দিন ইলিশ ধরায় নিষেধাজ্ঞা ছিল, সে সময় ৫১ দশমিক ২ শতাংশ মা ইলিশ ডিম ছেড়েছে। যা গত বছরের তুলনায় দেড় থেকে দুই শতাংশ বেশি। ফলে নতুন ইলিশ যুক্ত হতে পারে ৩৭ হাজার ৮শ কোটি। মোট উৎপাদন হতে পারে ৬ লাখ টনের বেশি ইলিশ। এর বাজারমূল্য হতে পারে ২৫ হাজার কোটি টাকা। ইলিশ উৎপাদনে এবার অতীতের সব রেকর্ড অতিক্রম করতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে গবেষণায়।


মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. আনিছুর রহমানের নেতৃত্বে ৫টি গবেষক দল ইলিশ প্রজনন ক্ষেত্রসহ বিভিন্ন নদনদী ও ইলিশের অভয়াশ্রমে গবেষণা চালায়। নিষিদ্ধ সময়ের আগের ১০ দিন, নিষিদ্ধ সময়ের ২২ দিন এবং পরবর্তী ১০ দিন নমুনা ও তথ্য সংগ্রহ করা হয়। গবেষণায় দেখা যায়, গত বছরের তুলনায় এ মৌসুমে দেড় থেকে দুই শতাংশ বেশি মা ইলিশ প্রজনন কার্যক্রম সম্পন্ন করার সুযোগ পেয়েছে। এবার ৫১ দশমিক ২ শতাংশ মা ইলিশ ডিম ছেড়েছে, যা ২০১৯ সালে ছিল ৪৮ দশমিক ৯২ শতাংশ, ২০১৮ সালে ৪৭ দশমিক ৭৫ শতাংশ, ২০১৭ সালে ৪৬ দশমিক ৪৭ শতাংশ, ২০১৬ সালে ৪৩ দশমিক ৪৫ শতাংশ, ২০১৫ সালে প্রায় ৩৭ শতাংশ, ২০১৪ সালে ৩৮ দশমিক ৭৮ শতাংশ।


এ বছর ৩৭ হাজার ৮শ কোটি নতুন ইলিশ যুক্ত হতে পারে। এই জাটকা ইলিশ পাঁচ থেকে সাত মাস নদনদীতে বড় হয়ে সাগরে চলে যাবে। সেখানে বড় হয়ে ডিম ছাড়ার জন্য আবার নদনদীতে অবস্থিত অভয়াশ্রমে চলে আসবে।
বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট সূত্র জানায়, ইলিশ মাছ সারাবছরই ডিম ছাড়ে। তবে ইলিশের সর্বোচ্চ প্রজনন মৌসুম হচ্ছে অক্টোবর-নভেম্বর মাস। এটি মূলত আশ্বিন মাসের পূর্ণিমাভিত্তিক। এ জন্য ইলিশ ধরার নিষিদ্ধ সময় বছর বছর পরিবর্তিত হয়। চলতি বছর ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর ২২ দিন দেশব্যাপী ইলিশ মাছ ধরা, মজুদ, বেচাকেনা ও পরিবহনের ওপর নিষেধাজ্ঞা ছিল। বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের গবেষণা তথ্যের ভিত্তিতে নিষিদ্ধ এ সময় নির্ধারণ করা হয়।


বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট নদী কেন্দ্র চাঁদপুরের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও গবেষণা দলের প্রধান ডা. আনিসুর রহমান সমকালকে বলেন, আমাদের এবারের গবেষণা শেষ। খুব শিগগিরই মন্ত্রণালয় এটি প্রকাশ করবে। অভয়াশ্রমে তদারকি বৃদ্ধির কারণে সাগর থেকে বেশি মা ইলিশ নদীতে এসে ডিম ছাড়ার সুযোগ পেয়েছে। এবার ডিম ছাড়ার হার বেশি হওয়ার কারণ ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, অক্টোবরের শেষদিকে যদি পূর্ণিমা হয় এবং পূর্ণিমা যদি নভেম্বরের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত চলে তাহলে ইলিশ প্রজননে ভালো ফল পাওয়া যায়। এবার অমাবস্যা ছিল ১৬ অক্টোবর। অক্টোবরের শেষদিকের পূর্ণিমা ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ছিল। এ ছাড়া এবার নিষিদ্ধ সময়ে একটি নিম্নচাপ ছিল। এটিও ভালো ফল দিয়েছে। কারণ ওই সময়ে নদীতে জেলেরা ছিলেন না। তিনি বলেন, এখন যে ৩৭ হাজার ৮শ কোটি জাটকা আসবে, তা সুরক্ষিত রাখতে হবে। ১ নভেম্বর থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত আট মাস জাটকা ধরা নিষেধ। ২৫ সেন্টিমিটারের নিচে ইলিশ ধরা যাবে না। মৎস্যবিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়ার্ল্ডফিশের চলতি বছরের হিসাবে বিশ্বের মোট ইলিশের ৮৬ শতাংশ এখন বাংলাদেশে উৎপাদিত হচ্ছে। প্রতি বছর উৎপাদন ১০-১২ হাজার টন বাড়ছে। বাড়ছে স্বাদ, ওজন এবং আকৃতিও। অথচ চার বছর আগেও বিশ্বের মোট ইলিশের উৎপাদনের ৬৫ শতাংশ হতো বাংলাদেশে। এই সময়ের মধ্যে এখানে ধারাবাহিকভাবে বেড়েছে ইলিশের উৎপাদন। সে তুলনায় প্রতিবেশী ভারত, মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানে ইলিশের উৎপাদন কমেছে। সাগরে অনুকূল পরিবেশ, অভয়াশ্রম তৈরি, নতুন নতুন গবেষণা ও প্রজনন মৌসুমে নিষিদ্ধ সময়ে কড়াকড়ির কারণে এর সুফল মিলছে বলে মনে করেন গবেষকরা।


বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ সমকালকে বলেন, চলতি বছর মা ইলিশ বেশি সুরক্ষিত হওয়ায় ইলিশের উৎপাদন আরও বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম সমকালকে বলেন, সামগ্রিক ব্যবস্থাপনায় অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করে এ বছর ইলিশ উৎপাদন বাড়বে। এ উৎপাদনের ধারা অব্যাহত রাখার জন্য আমরা নানা রকম পরিকল্পনা নিয়েছি। ছোটখাটো কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া আমরা মা ইলিশ রক্ষায় ইলিশ শিকার, আহরণ, বাজারজাতকরণ, বিক্রি ও পরিবহন নিষিদ্ধ করার কর্মসূচি সফলভাবে সম্পন্ন করেছি। ফলে এই মৌসুমে ইলিশের উৎপাদন অনেক বাড়বে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

বাংলাদেশ

বিষ দিয়ে ১৮ লাখ টাকার মাছ নিধন

লেখক

নেত্রকোনার মদনে বিষ দিয়ে কয়েক টন মাছ মেরে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা। বুধবার বিকালে উপজেলার তিয়শ্রী ইউনিয়নের কুঠুরীকোনা মৌজার বড়রুকশি বিলে এ ঘটনা ঘটে। এতে প্রায় ১৮ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবি করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত ইজাদাররা।

এ ব্যাপারে বৃহস্পতিবার বিলের ইজারাদারদের পক্ষে তাজ্জত মিয়া ৭ জনকে আসামি করে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।

বিলের ইজারাদার তাজ্জত মিয়া জানান, বড়রুকশি বিলের জমি মাছ ধরার জন্য এক বছরের জন্য  ১৮ লাখ টাকায় তিনিসহ নয়জন ইজারা নেন। বিলে বাঁধ দেওয়ার জন্য প্রস্তুতি চলছিল। তার অভিযোগ, বুধবার বিকালে পাহাড়পুর গ্রামের সেকুল ও রিপন নৌকা নিয়ে বাঁধের ভিতরে ঘুরাফেরা করেন। এতে তার লোকজনের সন্দেহ হলে তাদেরকে ধাওয়া করা হয়। এ সময় তারা পালিয়ে যায়। পরে সন্ধ্যা থেকে বিলে মাছ মরে ভেসে উঠতে থাকে। তার দাবি, সেকুল-রিপন বিলের পানিতে বিষ ট্যাবলেট ফেলায় মাছ মরে গেছে।


অভিযুক্ত সেকুল মিয়া জানান, বড়রুকশি বিলে একটা বড় অংশের ইজারা তারা নিয়েছেন। সেখানে বিষ ঢেলে দিলে তারাই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। তার দাবি, প্রতিহিংসায় তাদের নামে প্রতিপক্ষ অপপ্রচার চালাচ্ছে। তিনি বলেন, নিরপক্ষ তদন্ত করলেই মূল বিষয় বের হয়ে আসবে।   

মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুদুজ্জামান জানান, এ ব্যাপারে থানায় একটি অভিযোগ পাওয়া গেছে। সত্য মিথ্যা যাছাই করার জন্য ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

বাংলাদেশ

দেশে চাষ হচ্ছে বিশ্বের সবচেয়ে দামি মুরগি

লেখক

দেশে দেখা মেলে বিভিন্ন প্রজাতির মুরগির। তবে এসবের বাইরে যে অনেক মুরগি আছে তা সচরাচর দেখা মেলে না। এমনই এক প্রজাতির মুরগির নাম হচ্ছে কালো মুরগি। 

বাংলাদেশে এই মুরগি এখন বাণিজ্যিকভাবে চাষ করা হচ্ছে। আর পোল্ট্রি মালিকেরা বলছেন, গত কয়েক বছর ধরে খামারীদের কাছে তা ক্রমে জনপ্রিয়ও হয়ে উঠতে শুরু করেছে।

কালো মুরগির বৈশিষ্ট্য হলো- মাথার ঝুঁটি থেকে পা পর্যন্ত সব অঙ্গের রং কালো। এমনকি পালক, চামড়া, ঠোঁট, নখ, ঝুঁটি, জিভ, মাংস, হাড়ও কালো। 

এই মুরগির আসল নাম আয়্যাম কেমানি, ইন্দোনেশীয় ভাষায় আয়্যাম মানে মুরগি এবং কেমানি অর্থ পুরোপুরি কালো। ভারতের মধ্য প্রদেশ, উত্তর প্রদেশ এই মুরগির নাম কাদাকনাথ বা কালোমাসি। ভারতের মধ্য প্রদেশ থেকে বাংলাদেশে আনা হয়েছে কালো মুরগি।

কালো মুরগি বিষয়ে শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক মাকসুদা বেগম বলেন, বাংলাদেশের কৃষিবিজ্ঞানীরা কালো মুরগিকে কেদারনাথ ব্রিড বা কালোমাসি নামে চেনেন। এটি প্রথম দেশে আসে ২০১৬ সালে। 

বাংলাদেশে নরসিংদী জেলার কামরুল ইসলাম মাসুদ এটির উৎপাদন শুরু করেন। কাজের সূত্রে ভারতে গিয়ে কালো মুরগি খেয়ে তিনি অবাক হন। এরপর তিনি দেশে নিয়ে এসে উৎপাদন শুরু করেন।

তিনি বলেন, এর গুনাগুণ সম্পর্কে জানতে পেরে উৎপাদনের কথা ভাবি। শুরুতে ৩০০ মোরগ ও মুরগি নিয়ে আসি। এখন  খামারে মাসে দুই থেকে আড়াই হাজার কালো মুরগির বাচ্চা ফোটে। এই মুরগি বা মোরগের ওজন দুই থেকে আড়াই কেজি পর্যন্ত হতে পারে। একটি মুরগি ডিম পাড়ার উপযোগী হতে ছয় মাসের মত সময় লাগে। 

একজোড়া কালো মুরগি ও মোরগের দাম চার হাজার টাকা। ২০১৬ সালে একজোড়া মুরগি ও মোরগের দাম ছিল দশ হাজার টাকা।

কালো মুরগির পুষ্টিগুণ

অনেকে মনে করেন কালো মুরগি নানা ধরনের রোগ সারায়। ঔষধি গুনাগুণের জন্য দেশে এই মুরগির অনেক কদর।

এ বিষয়ে শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক অধ্যাপক মাকসুদা বেগম বলেন, দেশি মুরগির চেয়ে এই মুরগির মাংসের স্বাদ বেশি। খাদ্যগুণের বিচারে কালো মুরগির মাংসে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং আয়রন রয়েছে। সাধারণ মুরগির তুলনায় এই মুরগির মাংসে কোলেস্টরেলের মাত্রাও অনেক কম থাকে। এই মুরগি রক্তচাপ এবং রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। এই মুরগির মাংসে ফ্যাটি অ্যাসিড উপাদান অনেক বেশি থাকে। কিন্তু প্রোটিনের মাত্রা অন্য সব মুরগির মাংস থেকে কয়েক গুণ বেশি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com