আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

এগ্রোবিজ

সখীপুরে একদিনেই বিক্রি হয় দুই কোটি ডিম

সখীপুরে একদিনেই বিক্রি হয় দুই কোটি ডিম
সখীপুরে একদিনেই বিক্রি হয় দুই কোটি ডিম

টাঙ্গাইলের সখীপুরে ডিম উৎপাদনে রেকর্ড ছাড়িয়ে যাচ্ছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে দেশের কোনো উপজেলায় ডিম উৎপাদনে নতুন রেকর্ড গড়তে যাচ্ছে সখীপুর উপজেলাটি। পোল্ট্রি খামারি ও সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

স্থানীয় প্রাণিসম্পদ কার্যালয়, খামারি ও আড়তদারদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, সখীপুর, ভালুকা, ফুলবাড়ীয়া, ঘাটাইল, কালিহাতী উপজেলাসহ আশপাশের কয়েকটি উপজেলায় প্রায় অর্ধলক্ষ ছোট, বড় ও মাঝারি পোল্ট্রি খামার গড়ে উঠেছে। দেশের মধ্যে অঞ্চলটি এখন পোল্ট্রি শিল্পে প্রধান অঞ্চল হিসেবে খ্যাতি লাভ করেছে। ডিম ও মাংসের মুরগি কিনে নিতে ঢাকা, মুন্সীগঞ্জ, কাপ্তানবাজার, নারায়ণগঞ্জ এবং চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীদের কয়েকশ’ ট্রাক ঢুকছে এলাকায়। দেশের বেশ চাহিদার ডিম ও মাংসের জোগান দেওয়া হচ্ছে অঞ্চলটি থেকে।

সখীপুরে একদিনেই বিক্রি হয় দুই কোটি ডিম
সখীপুরে একদিনেই বিক্রি হয় দুই কোটি ডিম

ডিম বিক্রির জন্য সখীপুর উপজেলার বিভিন্ন বাজার ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অর্ধশত আড়ৎ গড়ে উঠেছে। এরমধ্যে সখীপুর সদর, কচুয়া, কালিয়া, বড়চওনা, ভূয়াইদ, কুতুবপুর, জোরদিঘী, সাগরদিঘী, আড়াইপাড়া, কালিদাশ, বানিয়ারছিট, মহনন্দপুর, তৈলধারা, গড়বাড়ি, দিঘীরচালা, গজারিয়া, দাড়িয়াপুর, হাতীবান্ধা, যাদবপুর ও বহেড়াতৈল বাজার উল্লেখযোগ্য।

প্রতিটি আড়তে প্রতিদিন ৮ থেকে ১০ লাখ এবং ৫ থেকে ৪ লাখ পিচ ডিম যাচ্ছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। খামারিদের কাছে অগ্রীম ডিম কিনছেন স্থানীয় আড়তদাররা। খামারিরা ভ্যানগাড়ি ও ঠেলাগাড়িতে করে আড়তদারদের কাছে পাঠাচ্ছে।

সখীপুরে একদিনেই বিক্রি হয় দুই কোটি ডিম
সখীপুরে একদিনেই বিক্রি হয় দুই কোটি ডিম

কচুয়া বাজারের আড়তদার মামুন শিকদারসহ একাধিক আড়তদার জানান, দেশের আড়তদার ব্যবসায়ীদের দুইশ’ থেকে আড়াইশ’ ডিম পরিবহনের ট্রাক প্রতিদিনই ঢুকছে সখীপুরে। ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ পিচ ডিম যাচ্ছে প্রতিটি গাড়িতে।

ঘোনারচালা গ্রামের খামারি মোতালেব হোসেনসহ একাধিক খামারি জানান, অন্যান্য বছরের তুলনায় চলতি বছর তাদের লেয়ার খামারে দ্বিগুণ ডিম উৎপাদন হচ্ছে। গত তিন বছর দরপতন তেমন না হলেও চলতি বছরের ৩-৪ মাস লোকসান গুনতে হয়েছে। বর্তমান বাজার স্বাভাবিক হওয়ার পথে এবং ডিম উৎপাদনে অতীতের সব রেকর্ড ছাড়িয়ে গেছে।

উপজেলা পোল্ট্রি শিল্প মালিক সমিতির সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম খান ও সাধারণ সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ডিম উৎপাদনে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙেছে জানিয়ে জাগো নিউজকে বলেন, ‘এ সাফল্যকে ধরে রাখতে ডিম উৎপাদনের সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের আরও বেশি উদ্যোগী হতে হবে। বৃহত্তর সম্ভাবনা খাতে খামারিদের নানা সমস্যা সমাধানে সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়া উচিত।’ ডিম উৎপাদনের প্রান্তিক খামারি, উদ্যোক্তা ও শ্রমিকদের জীবন মানের উন্নতি যাতে নিশ্চিত হয় সেদিকে সবাইকে নজর দিতে হবে- এমন প্রত্যাশার কথা যোগ করেন তারা।

সখীপুরে একদিনেই বিক্রি হয় দুই কোটি ডিম
সখীপুরে একদিনেই বিক্রি হয় দুই কোটি ডিম

টাঙ্গাইল জেলা পোল্ট্রি শিল্প মালিক সমিতির সভাপতি অধ্যক্ষ সাঈদ আজাদ জাগো নিউজকে বলেন, ‘নানা সিন্ডিকেট ও ভেজালে বেশকিছু খামার বন্ধ হওয়ার পরও এ শিল্পের অগ্রগতি থেমে থাকেনি। বেসরকারি পর্যায়ে ক্ষুদ্র ও মাঝারি মানের উদ্যোক্তাদের অক্লান্ত শ্রম আর সাধনায় এসেছে সাফল্য, ঘটেছে নীরব বিপ্লব।’

তিনি জানান, পোল্ট্রি শিল্পকে কেন্দ্র করে পরিচালনা, পরিচর্যা, বাজারজাতকরণ এবং ওষুধ ও খাদ্য উৎপাদন কার্যক্রমটি ভেজালমুক্ত হলে এ খাতে আরো ক্ষুদ্র ও মাঝারি আকারে ব্যবসা এবং ব্যাপক কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. এসএম উকিল উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, ‘নতুন আশা আর স্বপ্ন নিয়ে উদ্যোক্তারা যে পোল্ট্রি খামার গড়ে তুলেছেন, তা অবশ্যই আশার কথা। পোল্ট্রি শিল্পের আরো উন্নয়ন সম্ভব হলে দেশের অর্থনীতির চাকা সচল হবে। সম্ভাবনাকে কাজে লাগিয়ে লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে এই পদক্ষেপ সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়ন করা প্রয়োজন।’

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

এগ্রোবিজ

কম্পোস্টে সফল শামসুল-মাজেদা দম্পতি

কম্পোস্টে সফল শামসুল-মাজেদা দম্পতি
কম্পোস্টে সফল শামসুল-মাজেদা দম্পতি

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার কৃষক দম্পতি শামসুল ইসলাম ও মাজেদা বেগম। কেঁচো কম্পোস্ট সার উৎপাদন করে এলাকায় বেশ নাম করেছেন তারা। তাদের সফলতা এখন জেলার সবখানে ছড়িয়ে পড়েছে। এছাড়া কেঁচো কম্পোস্ট সার উৎপাদনে বলরামপুর গ্রামে তারা এখন আইকন হিসেবে প্রতিষ্ঠিত।

জানা যায়, এ দম্পতি নিজ বাড়িতে বাণিজ্যিকভাবে জৈব সার ও বালাইনাশক তৈরি করছেন। তাদের রয়েছে ৩ শতাধিক মাটির তৈরি চাড়ি যার মধ্যে গোবর, পচা লতাপাতায় ভরা। এছাড়া কেঁচোর মলই শুকিয়ে তৈরি করছেন অধিক উর্বরাক্ষম কম্পোস্ট সার। অপরদিকে, ঘরের এক কোণে রয়েছে মাটির তৈরি বড় বড় পাত্রে ভেজানো বিভিন্ন গাছের পাতা, বাকল, কাণ্ড ও বীজ চূর্ণ। কম্পোস্ট সারের পাশাপাশি এই দম্পতি উৎপাদন করছেন বিষমুক্ত সবজি ও পুদিনা পাতা।

কম্পোস্টে সফল শামসুল-মাজেদা দম্পতি
কম্পোস্টে সফল শামসুল-মাজেদা দম্পতি

কৃষক শামছুল ইসলাম জানান, তারা ভূমিহীন। প্রথমে অন্যের ২৫ শতাংশ জমি বর্গা নেন। ১২ শতাংশ জমিতে কম্পোস্ট সার তৈরির কারখানা আর বাকি ১৩ শতাংশ জমিতে বিষমুক্ত সবজি চাষ করেন। পরে সফলতা পেলে আরও ২ বিঘা জমি বর্গা নেন। আর এখন নতুন করে প্রায় ৪ শতক জমিতে বাণিজ্যিকভাবে তিনি পুদিনা পাতা চাষ করছেন।

স্ত্রী মাজেদা বেগম জানান, ৪ বছর আগে একমাত্র ছেলে পান্নু মিয়া সড়ক দুর্ঘটনায় যখন পঙ্গু প্রায় তখন নতুন করে আবারও অভাবের সংসারের হাল ধরেন। ২০১১ সাল থেকে বাড়িতে শুরু করেন কয়েকটি মাটির চাড়ি নিয়ে। আর এখন তারা ৩শ চাড়িতে কম্পোস্ট সার উৎপাদন করছেন। একটি চাড়ি থেকে ১০ কেজি করে একবারে মোট ৩০০ কেজি কম্পোস্ট সার উৎপাদিত হচ্ছে। তাদের ৩শ মাটির চাড়িতে ৫শ গ্রাম করে কেঁচো আছে। সেই হিসাবে প্রায় ১৫০ কেজি কেঁচো আছে তাদের কাছে।

তিনি বলেন, এক কেজি কেঁচোর বাজার দর ১ হাজার ৫শ টাকা। সব মিলিয়ে তাদের প্রায় আড়াই লাখ টাকার কেঁচো আছে। প্রতি কেজি সার বিক্রি করেন ১০ টাকা দরে। আর ৫০ কেজির এক বস্তা কম্পোস্ট সার বিক্রি করেন ৫০০ টাকায়। চাহিদা বেশি থাকায় দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ক্রেতারা এসে কম্পোস্ট সার কিনে নিয়ে যাচ্ছেন। গেল ডিসেম্বরে প্রায় ১০০ বস্তা সার বিক্রি করেছেন তারা। প্রতি মাসে সব খরচ বাদ দিয়ে তাদের আয় হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা।

কম্পোস্টে সফল শামসুল-মাজেদা দম্পতি
কম্পোস্টে সফল শামসুল-মাজেদা দম্পতি

কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি অধিদফতরের কর্মকর্তা জাহিদুল করিম জানান, জমিতে দীর্ঘদিন ধরে ধারাবাহিকভাবে রাসায়নিক সার ব্যবহার করলে প্রকৃতপক্ষে জমির উর্বরাশক্তি কমে যায়। তাই তারা অল্প রাসায়নিক সারের সঙ্গে কম্পোস্ট সার ব্যবহারের জন্য কৃষকদেরকে পরামর্শ দিচ্ছেন। কৃষি জমিতে এই কেঁচো কম্পোস্ট সার পরপর ৩ থেকে ৪ বছর ব্যবহার করলে আর রাসায়নিক সার ব্যবহারের প্রয়োজন হয় না।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

মধুচাষে স্বাবলম্বী মৌলভীবাজারের ৪ শতাধিক চাষি

মধুচাষে স্বাবলম্বী মৌলভীবাজারের ৪ শতাধিক চাষি
মধুচাষে স্বাবলম্বী মৌলভীবাজারের ৪ শতাধিক চাষি

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার কাঁঠালকান্দি গ্রামের আজাদ মিয়া কয়েক বছর আগে পার্শ্ববর্তী পাহাড় থেকে মধু সংগ্রহের সময় একটি রানী মৌমাছি বাড়ি নিয়ে এসে বাক্সে রেখে দেন। পরে সেই বাক্সে হাজারো মৌমাছি জমা হতে থাকে। সেখান থেকেই প্রথম মধু আহরণ। এভাবে একটি রানী মৌমাছি থেকেই আশপাশের ৩০টি গ্রামের ৪ শতাধিক মুধু চাষি বাণিজ্যিকভাবে মধু চাষ করে নীরব বিপ্লব ঘটিয়েছেন।

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানসহ ছোট ছোট বনে নানা প্রজাতির গাছ রয়েছে। এই এলাকায় প্রায় চার শতাধিক চাষি বাড়িতে মধু চাষ করে সফল হয়েছেন। পাঁচ-ছয় বছর আগেও মধু চাষের বিষয়ে এ উপজেলার কেউ কল্পনা করেনি। অথচ আজ সেখানকার মধু চাষিরাই তাদের উৎপাদিত মধু বাজারজাত করে বছরে প্রায় অর্ধ কোটি টাকা আয় করছেন। কোনো ধরনের প্রশিক্ষণ কিংবা সরকারি আর্থিক সহযোগিতা ছাড়াই তারা নিজেদের স্বল্পপুঁজি খাটিয়ে স্বাবলম্বী হয়েছেন। সরকারি পর্যায়ে পরিকল্পিত উদ্যোগ নিলে এ উপজেলা হয়ে উঠতে পারে মধুচাষের অন্যতম একটি ক্ষেত্র।

সরেজমিনে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের কাঁঠালকান্দি গ্রামের আজাদ মিয়া নামে এক ব্যক্তি একটি মৌচাক দিয়ে প্রথম মধু চাষের সূচনা করলেও বর্তমানে আদমপুর ও পার্শ্ববর্তী ইসলামপুর ইউনিয়নের মধ্যভাগ কালারায়বিল, ছয়ঘরি, কাঠালকান্দি, কোনাগাঁও, কানাইদাশী, রাজকান্দি, আধকানি, পুরানবাড়ি, নয়াপত্তনসহ প্রায় ৩০টি গ্রামের ৪ শতাধিক লোক মধু চাষের সঙ্গে জড়িত। এখানকার চাষিদের উৎপাদিত মধু মৌলবীবাজার, সিলেটসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় বিক্রি হচ্ছে। এমন কি প্রবাসীরাও মধু কিনে বিদেশ নিয়ে যাচ্ছেন।

মধুচাষে স্বাবলম্বী মৌলভীবাজারের ৪ শতাধিক চাষি
মধুচাষে স্বাবলম্বী মৌলভীবাজারের ৪ শতাধিক চাষি

দেশের বিভিন্ন জায়গায় রাজ মধু, দাশকুলি মধু, মাছি মধু, ঘামি মধু ও মধু মালতি এই পাঁচ জাতের মধুর উৎপাদন হলেও এ উপজেলায় দাশকুলি মধুর বাক্স (অ্যাপিস সেরেনা) স্থাপনের মাধ্যমে মধু চাষ হয়। প্রতিটি বাড়িতে ২-৩টি করে মধু উৎপাদনকারী কাঠের বাক্স স্থাপন করা আছে। এসব বাক্স থেকে বছরে তিন থেকে চারবার মধু সংগ্রহ করেন চাষিরা। স্বল্প খরচে এক একটি বাক্স থেকে ২৫-৩০ কেজি মধু আহরণ করা হয়। বছরে সংগৃহীত মধু বিক্রি করে চাষিরা জনপ্রতি ৩০-৫০ হাজার টাকা আয় করছেন। সে হিসাবে বছরে প্রায় ৩০ হাজার কেজি মধু উৎপাদন করছেন তারা। যার বাজার মূল্য প্রায় অর্ধকোটি টাকা। আর এই মধু চাষের কারণে তাদের ঘরে এখন আর অভাব-অনটন নেই। প্রতিটি পরিবারে ফিরে এসেছে সচ্ছলতা।

কমলগঞ্জ উপজেলার প্রথম মধুচাষি কাঁঠালকান্দি গ্রামের আজাদ মিয়ার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, কয়েক বছর আগে তিনি রাজকান্দি পাহাড় থেকে পাহাড়ি মধু সংগ্রহের সময় হঠাৎ একটি রানি মৌমাছি ধরা পড়ে। তিনি রানী মৌমাছিকে তার বাড়ি নিয়ে এসে একটি বাক্সে রেখে দেন। পরে বাক্সে হাজারো মৌমাছি জমা হয়। কয়েক দিন তিনি দেখেন মৌমাছিরা সেখানে মধু আহরণ করেছে। তখন থেকেই তিনি মধু সংগ্রহ শুরু করেন এবং ক্রমশ তা নেশায় ও পেশায় পরিণত হয়ে ওঠে। বর্তমানে ২০টি বাক্সে মধু সংগ্রহ করছেন তিনি। এই ২০টি বাক্স ছাড়াও পাহাড় থেকে মৌমাছি ও বিভিন্ন ব্যক্তির বাক্স থেকে মধু সংগ্রহ করে বছরে তিন থেকে চার লাখ টাকা আয় করেন। তার এই মধু চাষের বিষয়টি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে অন্যান্যরা মধু চাষে আগ্রহী হয়ে ওঠেন।

মধুচাষে স্বাবলম্বী মৌলভীবাজারের ৪ শতাধিক চাষি
মধুচাষে স্বাবলম্বী মৌলভীবাজারের ৪ শতাধিক চাষি

আজাদ মিয়া বলেন, মধু চাষের চেয়ে উন্নতমানের আর কোনো চাষাবাদ নেই। অল্প খরচেই লাখ লাখ টাকা উপার্জন করা সম্ভব। মধু চাষে শুরুতে শুধুমাত্র একটি বাক্সে মৌমাছি সংগ্রহে ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা খরচ ছাড়া আর কোনো খরচ নেই। এক একটি বাক্সে বছরে চারবারে ২৫ থেকে ৩০ কেজি মধু সংগ্রহ করা যায়। বাজারে প্রতি কেজি মধুর দাম ৮শ টাকা হিসাবে বছরে প্রায় ৪০ হাজার টাকা আয় করা সম্ভব।

মধুচাষি মোস্তাফিজুর রহমান, বাবুল মিয়া, মাওলানা মছব্বির, জমসেদ মিয়াসহ অনেকে বলেন, কোনো ধরনের প্রশিক্ষণ ছাড়াই নিজেদের চেষ্টায় তারা মধু চাষ করছেন। সরকারি উদ্যোগে চাষিদের প্রশিক্ষণ ও তাদের উৎপাদিত মধু বাজারজাতকরণে সহযোগিতা করা হলে আরও অধিক মধু উৎপাদন সম্ভব হতো। চাষিরা দামও বেশি পেতেন।

কমলগঞ্জ মধুচাষি উন্নয়ন সমিতির সভাপতি শিক্ষক আলতাফ মাহমুদ বাবুল বলেন, এলাকায় মধু চাষের নীরব বিপ্লব ঘটছে। এই এলাকায় মধু চাষের একটি উজ্জ্বল সম্ভাবনা রয়েছে। সরকারিভাবে পুঁজির ব্যবস্থা, প্রশিক্ষণ ও সরিষার চাষাবাদ বৃদ্ধি করা হলে মধু চাষে আরও বিপ্লব হবে।

কমলগঞ্জের ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প উদ্যোক্তা উন্নয়ন পরিষদের সভাপতি গবেষক আহমদ সিরাজ বলেন, পরিকল্পিত উদ্যোগ নিলে এই এলাকা মধু চাষের চিহ্নিত জোন হিসেবে গড়ে তোলা যাবে। বিশেষত আদমপুর, ইসলামপুর ইউনিয়নে মধু চাষে একটা ব্র্যান্ড তৈরি হতে পারে। এখানে একটি স্থায়ী মধু চাষ উন্নয়নে বিসিক বা সরকারের উদ্যোগে স্থায়ী কেন্দ্র স্থাপন করা যেতে পারে।

কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহমুদুল হক জানান, মধুচাষিদের বিসিকের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে তারা মধু চাষ করতে পারছেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

ধানে পোকার আক্রমণে লোকসানে কৃষকরা

ধানে পোকার আক্রমণে লোকসানে কৃষকরা
ধানে পোকার আক্রমণে লোকসানে কৃষকরা

নওগাঁয় শুরু হয়েছে ইরি-বোরো কাটা-মাড়াই। এ বছর আবহাওয়া অনুকূলে না থাকায় ধানে পোকার আক্রমণ দেখা দিয়েছে। এতে অর্ধেক ধান চিটায় পরিণত হয়েছে। ফলে কাঙ্ক্ষিত ফলন পাওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন কৃষকরা। অপরদিকে কৃষি অফিস থেকে কোন পরামর্শ না পাওয়ার অভিযোগ করেছেন তারা। তাদের দাবি, লোকসান ঠেকাতে সরাসরি কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনতে হবে।

ধানে পোকার আক্রমণে লোকসানে কৃষকরা
ধানে পোকার আক্রমণে লোকসানে কৃষকরা

নওগাঁ জেলার বিভিন্ন উপজেলায় শুরু হয়েছে ইরি-বোরো ধান কাটা-মাড়াই। ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। এ বছর ইবি-বোরো রোপণের সময় থেকে কয়েক দফা প্রাকৃতিক দুর্যোগ দেখা দেয়। গাছ থেকে ধান বের হওয়ার সময় শিলাবৃষ্টি হয়। এতে ধানের গাছ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এছাড়া দেখা দেয় পোকার আক্রমণ। কোনভাবেই পোকা দমন করা সম্ভব হচ্ছে না। এতে লোকসানের মুখে পড়ছে কৃষকরা।

সদর উপজেলার চকচাপাই গ্রামের কৃষক আব্দুস সাত্তার ও মোহাম্মদ আলী বলেন, ‘প্রতিবিঘা জমিতে ধান উৎপাদনে প্রায় ১২-১৫ হাজার টাকা খরচ হয়। এ বছর প্রতিবিঘায় ফলন হয়েছে ১৫-১৭ মণ। যেখানে গত বছর উৎপাদন হয়েছিল ২৫-৩০ মণ। বর্তমানে বাজার দর ৬০০-৬৫০ টাকা। ফলে ধান উৎপাদনের খরচই উঠবে না।’

ধানে পোকার আক্রমণে লোকসানে কৃষকরা
ধানে পোকার আক্রমণে লোকসানে কৃষকরা

শৈলগাছী গ্রামের কৃষক কৃষ্ণ ও চুনিয়াগাড়ী গ্রামের কৃষক হাসান মোল্লা বলেন, ‘পরামর্শ নেওয়ার জন্য কৃষি অফিসের কোন লোক খুঁজে পাওয়া যায় না। এ বছর আমাদের লোকসানে পড়তে হবে।’

ধানে পোকার আক্রমণে লোকসানে কৃষকরা
ধানে পোকার আক্রমণে লোকসানে কৃষকরা

নওগাঁ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) মো. মাসুদুর রহমান বলেন, ‘ইতোমধ্যে প্রায় চার শতাংশ ধান কাটা-মাড়াই হয়ে গেছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রেহাই পেতে কৃষকদের দ্রুত ধান কেটে নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগে যে কোন সময় কৃষকদের বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারে।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

চামড়া কিনতে ব্যবসায়ীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঋণ দেয়ার নির্দেশ

চামড়া কিনতে ব্যবসায়ীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঋণ দেয়ার নির্দেশ
চামড়া কিনতে ব্যবসায়ীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঋণ দেয়ার নির্দেশ (ফাইল ছবি)

আসন্ন ঈদুল আজহায় কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়া ক্রয়ের জন্য দেয়া ঋণের জামানত গ্রহণে নমনীয় হতে ব্যাংকগুলোকে পরামর্শ দিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) বাংলাদেশ ব্যাংকের ‘ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ’ এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করেছে।

আসন্ন ঈদুল আজহায় কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়া ক্রয়ের জন্য চামড়া ব্যবসায়ীদের ঋণ/বিনিয়োগ পুনঃতফসিল প্রসঙ্গে দৃষ্টি আকর্ষণ করে তফসিলি ব্যাংকগুলোর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহীদের কাছে এ নির্দেশনা পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, গত ৫ জুলাই জারি করা সার্কুলারে বর্ণিত ‘চামড়া ব্যবসায়ী’ বলতে কাঁচা চামড়া ক্রয়-বিক্রয় এবং প্রক্রিয়াজাতকরণ সংশ্লিষ্ট ট্যানারি শিল্পসহ চামড়া খাতের সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও শিল্পকে বোঝাবে।

আসন্ন কোরবানিতে চামড়া শিল্পের ব্যবসায়ী ও শিল্প প্রতিষ্ঠান যাতে কাঁচা চামড়া ক্রয় করতে সক্ষম হয় সে লক্ষ্যে ব্যাংকগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ঋণ দেয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। ঋণ প্রদানের ক্ষেত্রে সহায়ক জামানত গ্রহণের বিষয়টি নমনীয়ভাবে দেখার জন্য পরামর্শ দেয়া হলো। ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১ এর ৪৫ ধারায় প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ নির্দেশনা কেন্দ্রীয় ব্যাংক জারি করেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

এর আগে ৫ জুলাই (রোববার) কোরবা‌নির কাঁচা চামড়া ক্রয়ে ব্যবসায়ী‌দের ব্যাংক ঋণে বিশেষ সু‌বিধা প্রদানের বিষয়ে সার্কুলার জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। সার্কুলারে কোরবানির পশুর কাঁচা চামড়া ক্রয়ে ব্যবসায়ীদের ঋণ পুনঃতফসিলের বিশেষ সু‌বিধার কথা বলা হয়েছে। মাত্র ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্টে চামড়া ব্যবসায়ীদের ঋণ পুনঃতফসিলের সুযোগ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। ব্যাংক গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে ২ শতাংশের বেশি হলেও এর কমে ঋণ পুনঃতফসিল করা যাবে না। তবে ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট দিয়ে নতুন করে ঋণ আবেদন করতে পারবেন গ্রাহক।

বা‌ণি‌জ্যিক ব্যাংকগু‌লোর প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো সার্কুলা‌রে বলা হয়েছে, ৩০ জুন ২০২০ তারিখ ভিত্তিক ঋণ/বিনিয়োগ স্থিতির ন্যূনতম ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্ট নগদে আদায় সাপেক্ষে পুনঃতফসিলের বিষয়ে ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে ব্যাংকসমূহ নিজেরাই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে পারবে। এ ক্ষেত্রে ইতিপূর্বে সংশ্লিষ্ট ঋণ হিসাবে আদায়কৃত কিস্তি ডাউন পেমেন্ট হিসেবে গণ্য হবে না।

>> ঋণগ্রহীতাদের নিয়ন্ত্রণ বহির্ভূত কারণে ঋণ হিসাব শ্রেণিকৃত হয়ে থাকলে এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সচল থাকলে এ সার্কুলারের আওতায় পুনঃতফসিল সুবিধা প্রদান করা যাবে।

>> কেইস-টু-কেইস ভিত্তিতে এক বছরের গ্রেস পিরিয়ডসহ তলবি ও চলমান ঋণ সর্বোচ্চ ছয় বছর মেয়াদে এবং মেয়াদি ঋণ সর্বোচ্চ আট বছর মেয়াদে পুনঃতফসিল করা যাবে।

>> কোরবানিকৃত পশুর কাঁচা চামড়া ক্রয়ের উদ্দেশ্যে নতুন ঋণ বিতরণের ক্ষেত্রে কম্প্রোমাইজড অ্যামাউন্ট গ্রহণের শর্ত শিথিল করা যাবে।

৩০ জুলাই, ২০২০ তারিখের মধ্যে স্ব-স্ব ব্যাংকের কাছে এ সার্কুলারের আওতায় ঋণ গ্রহীতাদের তাদের ঋণ পুনঃতফসিলের জন্য আবেদন করতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

উটের ঘাস বিক্রি করে হোসেন এখন কোটিপতি

 উটের ঘাস বিক্রি করে হোসেন এখন কোটিপতি
উটের ঘাস বিক্রি করে হোসেন এখন কোটিপতি

সফল হতে মানুষ পৃথিবীর এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে ছোটাছুটি করছে। একটু সুখের আশায় পরিবার-পরিজন ছেড়ে প্রতিনিয়ত পাড়ি জমাচ্ছে দূর প্রবাসে। কুমিল্লার কৃতি সন্তান মো. হোসেন তেমনই একজন সফল প্রবাসী। পরিশ্রমের ওপর ভর করে আজ তার এ পরিবর্তন। ওমানে উটের ঘাস বেচেই হোসেন নিজের ভাগ্য গড়েছেন।

ভাগ্য বদলের আশায় ২৬ বছর আগে পাড়ি জমান মরুময় দেশ ওমানের সালালাতে। অক্লান্ত পরিশ্রম আর সততা দিয়ে তিনি নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন কোটিপতি সফল ব্যবসায়ী হিসেবে।

দেশটির দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর সালালাতে শুরুতেই সাধারণ শ্রমিক হিসেবেই তার যাত্রা। তিন বছর হাড়ভাঙা পরিশ্রমের পর নিজ উদ্যোগে ওমানি আবায়ার ছোট একটি দোকান দিয়ে শুরু করেন নিজের ব্যবসা। এরপর থেকে তাকে আর পিছে ফিরে তাকাতে হয়নি।

বর্তমানে সালালার মেইন বিজনেস এরিয়া হাফা ও নিউ সালালাহতে রয়েছে ১৮টি দোকান। এছাড়াও ইতোমধ্যে তিনি সালালাহ আল কুফ এলাকায় নির্মাণ করছেন ৩৫০টি দোকান। স্থানটিতে বাংলাদেশিদের দ্বিতীয় বৃহত্তম মার্কেট।

এছাড়াও তিনি শখের বশে একটি এগ্রিকালচার প্রোজেক্ট করেছেন। মরুদ্যানে সবুজের বিপ্লব ঘটিয়েছেন এ বাংলাদেশি হোসেন। সালালাহ থেকে প্রায় ২০০ কিমি দূরে ছেচর নামক মরুভূমিতে ৬ কিমি এরিয়া নিয়ে বিশাল এক এগ্রো প্রোজেক্ট রয়েছে তার।

উটের ঘাস থেকে শুরু করে বিভিন্ন সবজি উৎপাদন করে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন সালালাতে। ঘাস চাষাবাদ করে বছরে প্রায় ৩ কোটি টাকা বিক্রি করছেন। স্বল্প সময়ে দ্রুত ফলনশীল এই ঘাস মাত্র ৩৫ দিনেই বিক্রির উপযোগী হয়ে যায়।

উটের ঘাস বিক্রি করে হোসেন এখন কোটিপতি
উটের ঘাস বিক্রি করে হোসেন এখন কোটিপতি

জানা গেছে, উটের এ ঘাস বছরে ৯ বার ফলন হয়। একবার লাগানোর পর সাধারণত ৮/৯ বছর আর ঘাস লাগানোর দরকার হয় না। যতবেশি কাটা হয় ততো ফলন বেশি হয়।

এক বান্ডেল ঘাস বাংলাদেশি টাকায় ২০০ থেকে ৩০০ টাকায় বিক্রি হয়, প্রতি ৩৫ দিনে প্রায় ১৫,০০০ বান্ডেল ঘাস উৎপাদন হয়, সবমিলে প্রতি ৩৫ দিনে বাংলাদেশি টাকায় প্রায় ৩০ লাখ টাকার ঘাস বিক্রি হচ্ছে।

তার এই কোম্পানিতে ইন্ডিয়ান, পাকিস্তানিসহ সবমিলে প্রায় ১৫০ জন শ্রমিক নিয়মিত কাজ করছেন, এর ভেতর বেশিরভাগই বাংলাদেশি শ্রমিক।

দুই ছেলে দুই মেয়ে নিয়ে বেশ সুখে শান্তিতেই বসবাস করছেন ওমানে, বড় মেয়ে ইন্ডিয়ান স্কুলে ক্লাস নাইনে এবং বড় ছেলে ইন্ডিয়ান স্কুলে ক্লাস সিক্সে পড়ছে।

একজন বাংলাদেশি হয়েও ছেলে-মেয়েদের কেন ইন্ডিয়ান স্কুলে পড়াচ্ছেন এমন প্রশ্ন করলে হোসেন বলেন, সালালাহতে পরিবার নিয়ে প্রায় ৩০০ বাংলাদেশি বসবাস করছে, অথচ এখানে বাংলাদেশ স্কুল নেই, তিনি দূতাবাসের কাছে একটি স্কুলের জন্য বিনীত অনুরোধ করেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com