আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

পরিবেশ

বাঘিনীকে নিয়ে ফেসবুক পেইজ!

অবিশ্বাস্য হলেও সত্য। বাঘিনী হলেও তার রয়েছে ফেসবুক পেজ। কেন তার ফেসবুক পেজ রয়েছে তা জেনে নিন।

  • বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধিতে অবদান, সাহসিকতা ও জনপ্রিয়তার জন্য রণথম্বোররে ইতিহাসে মছলীর নাম চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

    বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধিতে অবদান, সাহসিকতা ও জনপ্রিয়তার জন্য রণথম্বোররে ইতিহাসে মছলীর নাম চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

  • তার নামে একটি ফেসবুক পেজও আছে। সেখানেও তার ভক্ত সংখ্যা কম নয়। তাকে নিয়ে তৈরি হয়েছে বেশ কয়েকটি ডকুমেন্টারি ছবি। যার মধ্যে ‘দ্য ওয়ার্ল্ডস মোস্ট ফেমাস টাইগার’ ছবিটি ৬৬তম জাতীয় ফিল্ম পুরস্কার জিতেছিল।

    তার নামে একটি ফেসবুক পেজও আছে। সেখানেও তার ভক্ত সংখ্যা কম নয়। তাকে নিয়ে তৈরি হয়েছে বেশ কয়েকটি ডকুমেন্টারি ছবি। যার মধ্যে ‘দ্য ওয়ার্ল্ডস মোস্ট ফেমাস টাইগার’ ছবিটি ৬৬তম জাতীয় ফিল্ম পুরস্কার জিতেছিল।

  • মৃত্যুর পর জাতীয় ব্যাঘ্র সংরক্ষণ কর্তৃপক্ষের প্রোটোকল অনুসারে তার দেহ সৎকার করা হয়।

    মৃত্যুর পর জাতীয় ব্যাঘ্র সংরক্ষণ কর্তৃপক্ষের প্রোটোকল অনুসারে তার দেহ সৎকার করা হয়।

  • মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ১৯ বছর। এ ব্যাপারেও অনেক এগিয়ে মছলী। সাধারণত বাঘেদের জীবনকাল হয় ১০-১৫ বছর। কিন্তু মছলী বেঁচেছিল তার থেকে অনেকটাই বেশি।

    মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ১৯ বছর। এ ব্যাপারেও অনেক এগিয়ে মছলী। সাধারণত বাঘেদের জীবনকাল হয় ১০-১৫ বছর। কিন্তু মছলী বেঁচেছিল তার থেকে অনেকটাই বেশি।

  • তবে ২০১৪ সালের পর থেকেই রণথম্বোরের রানি নিজের শক্তি হারাতে শুরু করে। ধীরে ধীরে দুর্বলও হয়ে পড়ে সে। শেষ বয়সে একটি চোখের দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছিল সে। নিজের এলাকার দখলও ধীরে ধীরে হারাতে থাকে। অবশেষে ২০১৬ সালে ১৮ অগস্ট মৃত্যু হয় তার।

    তবে ২০১৪ সালের পর থেকেই রণথম্বোরের রানি নিজের শক্তি হারাতে শুরু করে। ধীরে ধীরে দুর্বলও হয়ে পড়ে সে। শেষ বয়সে একটি চোখের দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছিল সে। নিজের এলাকার দখলও ধীরে ধীরে হারাতে থাকে। অবশেষে ২০১৬ সালে ১৮ অগস্ট মৃত্যু হয় তার।

  • বাস্ততন্ত্র অসাধারণ অবদানের জন্য মছলীর প্রতি সম্মান জানাতে ২০১৩- সালে ভারত সরকার তার ছবি সম্বলিত পোস্টাল কভার ও স্ট্যাম্প ছাপে। এ ছাড়াও বাস্তুতন্ত্র সংরক্ষণে অবদান ও পর্যটক আকর্ষণের জন্য লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কারও জিতেছিল সে।

    বাস্ততন্ত্র অসাধারণ অবদানের জন্য মছলীর প্রতি সম্মান জানাতে ২০১৩- সালে ভারত সরকার তার ছবি সম্বলিত পোস্টাল কভার ও স্ট্যাম্প ছাপে। এ ছাড়াও বাস্তুতন্ত্র সংরক্ষণে অবদান ও পর্যটক আকর্ষণের জন্য লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কারও জিতেছিল সে।

  • এর পাশাপাশি রণথম্বোর জাতীয় উদ্যানে মছলীর দাপট ছিল চোখে পড়ার মতো। তার ক্ষিপ্রতা, শক্তি নিদর্শন নেটদুনিয়াতেও ছড়িয়ে রয়েছে। ২০০৩ সারে সে একা একটি ১৪ ফুট লম্বা কুমিরের সঙ্গে লড়াই করে তাকে মেরে ফেলে। যদিও এই লড়াইয়ে মছলীর দাঁতের বেশ ক্ষতি হয়। কিন্তু অন্য প্রাণীর হাত থেকে শাবকদের রক্ষা করতে তার হিংস্র হয়ে ওঠার কথা গোটা বিশ্ব জানে।

    এর পাশাপাশি রণথম্বোর জাতীয় উদ্যানে মছলীর দাপট ছিল চোখে পড়ার মতো। তার ক্ষিপ্রতা, শক্তি নিদর্শন নেটদুনিয়াতেও ছড়িয়ে রয়েছে। ২০০৩ সারে সে একা একটি ১৪ ফুট লম্বা কুমিরের সঙ্গে লড়াই করে তাকে মেরে ফেলে। যদিও এই লড়াইয়ে মছলীর দাঁতের বেশ ক্ষতি হয়। কিন্তু অন্য প্রাণীর হাত থেকে শাবকদের রক্ষা করতে তার হিংস্র হয়ে ওঠার কথা গোটা বিশ্ব জানে।

  • তবে শুধু সন্তানের জন্ম নয়। পর্যটক ও পশুপ্রেমীদের মধ্যে বিপুল জনপ্রিয়তা অর্জন করে মছলী। সে যেমন ছিল দেখতে সুন্দর, তেমনই ক্যামেরার সামনেও ছিল সমান স্বচ্ছন্দ। সেই বোধহয় একমাত্র বাঘিনী যার ছবি সব থেকে বেশি বার তোলা হয়েছে। সরকারি হিসাবই বলছে, তার এই জনপ্রিয়তা ১৯৯৮ থেকে ২০০৯ এর মধ্যে ভারত সরকারকে ১০ কোটি মার্কিন ডলার রোজগার করতে সাহায্য করে। যা ভারতীয় মুদ্রায় ৭৫৫ কোটি টাকারও বেশি।

    তবে শুধু সন্তানের জন্ম নয়। পর্যটক ও পশুপ্রেমীদের মধ্যে বিপুল জনপ্রিয়তা অর্জন করে মছলী। সে যেমন ছিল দেখতে সুন্দর, তেমনই ক্যামেরার সামনেও ছিল সমান স্বচ্ছন্দ। সেই বোধহয় একমাত্র বাঘিনী যার ছবি সব থেকে বেশি বার তোলা হয়েছে। সরকারি হিসাবই বলছে, তার এই জনপ্রিয়তা ১৯৯৮ থেকে ২০০৯ এর মধ্যে ভারত সরকারকে ১০ কোটি মার্কিন ডলার রোজগার করতে সাহায্য করে। যা ভারতীয় মুদ্রায় ৭৫৫ কোটি টাকারও বেশি।

  • একের পর এক সন্তানের জন্ম দিয়ে রণথম্বোরে বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল মছলীর। ২০০৪ সালে রণথম্বোরে ছিল ১৫টি বাঘ। ২০১৪ সালে সেই সংখ্যা বেড়ে দাড়ায় ৫০-এ।

    একের পর এক সন্তানের জন্ম দিয়ে রণথম্বোরে বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল মছলীর। ২০০৪ সালে রণথম্বোরে ছিল ১৫টি বাঘ। ২০১৪ সালে সেই সংখ্যা বেড়ে দাড়ায় ৫০-এ।

  • এরপর ‘এক্স-মেল’ নামের এক বাঘের সঙ্গে মিলনের পর ২০০৫-এর মার্চে শর্মিলী (স্ত্রী) ও বাহাদুর (পুরুষ) নামের দু’টি শাবকের জন্ম দেয় সে। এরকম করে মোট ১১টি শাবকের জন্ম দিয়েছিল মছলী। সাতটি মেয়ে ও চারটে ছেলে শাবক। তার দু’টি মেয়েকে পরে রণথম্বোর থেকে সারিসকা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ কেন্দ্রে স্থানান্তরিত করা হয়। কারণ ওই ব্যাঘ্র প্রকল্পে বাঘের সংখ্যা খুব কমে গিয়েছিল।

    এরপর ‘এক্স-মেল’ নামের এক বাঘের সঙ্গে মিলনের পর ২০০৫-এর মার্চে শর্মিলী (স্ত্রী) ও বাহাদুর (পুরুষ) নামের দু’টি শাবকের জন্ম দেয় সে। এরকম করে মোট ১১টি শাবকের জন্ম দিয়েছিল মছলী। সাতটি মেয়ে ও চারটে ছেলে শাবক। তার দু’টি মেয়েকে পরে রণথম্বোর থেকে সারিসকা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ কেন্দ্রে স্থানান্তরিত করা হয়। কারণ ওই ব্যাঘ্র প্রকল্পে বাঘের সংখ্যা খুব কমে গিয়েছিল।

  • এর পর নিক ইয়ারের সঙ্গে মিলন হয় মছলীর। ২০০২ সালের এপ্রিলে দ্বিতীয় বারের জন্য সন্তানের জন্ম দেয় সে। সেবার দু’টি শাবকের জন্ম দেয় সে। তাদের নাম ‘ঝুমর’ (পুরুষ) ও ‘ঝুমরি’ (স্ত্রী)।

    এর পর নিক ইয়ারের সঙ্গে মিলন হয় মছলীর। ২০০২ সালের এপ্রিলে দ্বিতীয় বারের জন্য সন্তানের জন্ম দেয় সে। সেবার দু’টি শাবকের জন্ম দেয় সে। তাদের নাম ‘ঝুমর’ (পুরুষ) ও ‘ঝুমরি’ (স্ত্রী)।

  • ২০০১-এ ব্রোকেন টেল ও স্লান্ট ইয়ার মছলীর থেকে আলাদা হয়ে যায়। বয়সের কারণে এর আগেই মারা গিয়েছিল বাম্বু রাম। তখন বাম্বু রামের এলাকার দখল নেয় ‘নিক ইয়ার’ নামে একটি পূর্ণ বয়স্ক বাঘ ও মছলী।

    ২০০১-এ ব্রোকেন টেল ও স্লান্ট ইয়ার মছলীর থেকে আলাদা হয়ে যায়। বয়সের কারণে এর আগেই মারা গিয়েছিল বাম্বু রাম। তখন বাম্বু রামের এলাকার দখল নেয় ‘নিক ইয়ার’ নামে একটি পূর্ণ বয়স্ক বাঘ ও মছলী।

  • তার কিছু দিন পরই ‘বাম্বু রাম’ নামের এক শক্তিশালী বাঘের সঙ্গে মিলন হয় তার। জন্ম হয় তিনটি শাবকের। একটি স্ত্রী ও দু’টি পুরুষ শাবকের জন্ম দেয় সে। তার মেয়ের নাম ছিল ‘সুন্দরী’(টি-১৭)। ছেলেদের নাম ‘ব্রোকেন টেল’ ও ‘স্লান্ট ইয়ার’।

    তার কিছু দিন পরই ‘বাম্বু রাম’ নামের এক শক্তিশালী বাঘের সঙ্গে মিলন হয় তার। জন্ম হয় তিনটি শাবকের। একটি স্ত্রী ও দু’টি পুরুষ শাবকের জন্ম দেয় সে। তার মেয়ের নাম ছিল ‘সুন্দরী’(টি-১৭)। ছেলেদের নাম ‘ব্রোকেন টেল’ ও ‘স্লান্ট ইয়ার’।

  • ছোট থেকেই সে ছিল ডাকাবুকো। মাত্র দু’বছর বয়স থেকেই একা শিকার করতে বেরিয়ে পড়ে মছলী। আস্তে আন্তে আলাদা হয় নিজের মায়ের থেকে। ১৯৯৯ এই নিজের এলাকা গড়ে নেয় সে। মায়ের এলাকাতেও ভাগ বসায় মছলী।

    ছোট থেকেই সে ছিল ডাকাবুকো। মাত্র দু’বছর বয়স থেকেই একা শিকার করতে বেরিয়ে পড়ে মছলী। আস্তে আন্তে আলাদা হয় নিজের মায়ের থেকে। ১৯৯৯ এই নিজের এলাকা গড়ে নেয় সে। মায়ের এলাকাতেও ভাগ বসায় মছলী।

  • ১৯৯৭ সালে বর্ষার মরসুমে জন্ম হয় মছলীর। তার মুখ ও কানের কাছে মাছের আকৃতির দাগ ছিল। সেখান থেকেই তার এই নাম। এই অদ্ভুত ডোরাকাটা দাগ তার সৌন্দর্যকে কয়েক গুণ বাড়িয়ে দিয়েছিল।

    ১৯৯৭ সালে বর্ষার মরসুমে জন্ম হয় মছলীর। তার মুখ ও কানের কাছে মাছের আকৃতির দাগ ছিল। সেখান থেকেই তার এই নাম। এই অদ্ভুত ডোরাকাটা দাগ তার সৌন্দর্যকে কয়েক গুণ বাড়িয়ে দিয়েছিল।

  • মছলী একটি বাঘিনী। ভারতের রাজস্থানের রণথম্বোর জাতীয় উদ্যান ছিল তার বিচরণ ক্ষেত্র। সেখানকার প্রায় ৩৫০ বর্গমাইল এলাকা জুড়ে ছিল তার রাজত্ব। রণথম্বোরের জঙ্গলে মছলীর প্রভাব সর্বজনবিদিত।

    মছলী একটি বাঘিনী। ভারতের রাজস্থানের রণথম্বোর জাতীয় উদ্যান ছিল তার বিচরণ ক্ষেত্র। সেখানকার প্রায় ৩৫০ বর্গমাইল এলাকা জুড়ে ছিল তার রাজত্ব। রণথম্বোরের জঙ্গলে মছলীর প্রভাব সর্বজনবিদিত।

  • তার নাম মছলী। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের পশুপ্রেমীদের কাছে পরিচিত মুখ সে। জীবনকালে নিজের কীর্তির জন্য ‘লেডি অব দ্য লেকস’, ‘ক্রোকোডাইল কিলার’, ‘টাইগার কুইন অব রণথম্বোর’-এই সব নামও উপাধি হিসাবে পেয়েছে সে।

    তার নাম মছলী। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের পশুপ্রেমীদের কাছে পরিচিত মুখ সে। জীবনকালে নিজের কীর্তির জন্য ‘লেডি অব দ্য লেকস’, ‘ক্রোকোডাইল কিলার’, ‘টাইগার কুইন অব রণথম্বোর’-এই সব নামও উপাধি হিসাবে পেয়েছে সে।

  • বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধিতে অবদান, সাহসিকতা ও জনপ্রিয়তার জন্য রণথম্বোররে ইতিহাসে মছলীর নাম চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।
  • তার নামে একটি ফেসবুক পেজও আছে। সেখানেও তার ভক্ত সংখ্যা কম নয়। তাকে নিয়ে তৈরি হয়েছে বেশ কয়েকটি ডকুমেন্টারি ছবি। যার মধ্যে ‘দ্য ওয়ার্ল্ডস মোস্ট ফেমাস টাইগার’ ছবিটি ৬৬তম জাতীয় ফিল্ম পুরস্কার জিতেছিল।
  • মৃত্যুর পর জাতীয় ব্যাঘ্র সংরক্ষণ কর্তৃপক্ষের প্রোটোকল অনুসারে তার দেহ সৎকার করা হয়।
  • মৃত্যুর সময় তার বয়স হয়েছিল ১৯ বছর। এ ব্যাপারেও অনেক এগিয়ে মছলী। সাধারণত বাঘেদের জীবনকাল হয় ১০-১৫ বছর। কিন্তু মছলী বেঁচেছিল তার থেকে অনেকটাই বেশি।
  • তবে ২০১৪ সালের পর থেকেই রণথম্বোরের রানি নিজের শক্তি হারাতে শুরু করে। ধীরে ধীরে দুর্বলও হয়ে পড়ে সে। শেষ বয়সে একটি চোখের দৃষ্টিশক্তি হারিয়েছিল সে। নিজের এলাকার দখলও ধীরে ধীরে হারাতে থাকে। অবশেষে ২০১৬ সালে ১৮ অগস্ট মৃত্যু হয় তার।
  • বাস্ততন্ত্র অসাধারণ অবদানের জন্য মছলীর প্রতি সম্মান জানাতে ২০১৩- সালে ভারত সরকার তার ছবি সম্বলিত পোস্টাল কভার ও স্ট্যাম্প ছাপে। এ ছাড়াও বাস্তুতন্ত্র সংরক্ষণে অবদান ও পর্যটক আকর্ষণের জন্য লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট পুরস্কারও জিতেছিল সে।
  • এর পাশাপাশি রণথম্বোর জাতীয় উদ্যানে মছলীর দাপট ছিল চোখে পড়ার মতো। তার ক্ষিপ্রতা, শক্তি নিদর্শন নেটদুনিয়াতেও ছড়িয়ে রয়েছে। ২০০৩ সারে সে একা একটি ১৪ ফুট লম্বা কুমিরের সঙ্গে লড়াই করে তাকে মেরে ফেলে। যদিও এই লড়াইয়ে মছলীর দাঁতের বেশ ক্ষতি হয়। কিন্তু অন্য প্রাণীর হাত থেকে শাবকদের রক্ষা করতে তার হিংস্র হয়ে ওঠার কথা গোটা বিশ্ব জানে।
  • তবে শুধু সন্তানের জন্ম নয়। পর্যটক ও পশুপ্রেমীদের মধ্যে বিপুল জনপ্রিয়তা অর্জন করে মছলী। সে যেমন ছিল দেখতে সুন্দর, তেমনই ক্যামেরার সামনেও ছিল সমান স্বচ্ছন্দ। সেই বোধহয় একমাত্র বাঘিনী যার ছবি সব থেকে বেশি বার তোলা হয়েছে। সরকারি হিসাবই বলছে, তার এই জনপ্রিয়তা ১৯৯৮ থেকে ২০০৯ এর মধ্যে ভারত সরকারকে ১০ কোটি মার্কিন ডলার রোজগার করতে সাহায্য করে। যা ভারতীয় মুদ্রায় ৭৫৫ কোটি টাকারও বেশি।
  • একের পর এক সন্তানের জন্ম দিয়ে রণথম্বোরে বাঘের সংখ্যা বৃদ্ধিতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা ছিল মছলীর। ২০০৪ সালে রণথম্বোরে ছিল ১৫টি বাঘ। ২০১৪ সালে সেই সংখ্যা বেড়ে দাড়ায় ৫০-এ।
  • এরপর ‘এক্স-মেল’ নামের এক বাঘের সঙ্গে মিলনের পর ২০০৫-এর মার্চে শর্মিলী (স্ত্রী) ও বাহাদুর (পুরুষ) নামের দু’টি শাবকের জন্ম দেয় সে। এরকম করে মোট ১১টি শাবকের জন্ম দিয়েছিল মছলী। সাতটি মেয়ে ও চারটে ছেলে শাবক। তার দু’টি মেয়েকে পরে রণথম্বোর থেকে সারিসকা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ কেন্দ্রে স্থানান্তরিত করা হয়। কারণ ওই ব্যাঘ্র প্রকল্পে বাঘের সংখ্যা খুব কমে গিয়েছিল।
  • এর পর নিক ইয়ারের সঙ্গে মিলন হয় মছলীর। ২০০২ সালের এপ্রিলে দ্বিতীয় বারের জন্য সন্তানের জন্ম দেয় সে। সেবার দু’টি শাবকের জন্ম দেয় সে। তাদের নাম ‘ঝুমর’ (পুরুষ) ও ‘ঝুমরি’ (স্ত্রী)।
  • ২০০১-এ ব্রোকেন টেল ও স্লান্ট ইয়ার মছলীর থেকে আলাদা হয়ে যায়। বয়সের কারণে এর আগেই মারা গিয়েছিল বাম্বু রাম। তখন বাম্বু রামের এলাকার দখল নেয় ‘নিক ইয়ার’ নামে একটি পূর্ণ বয়স্ক বাঘ ও মছলী।
  • তার কিছু দিন পরই ‘বাম্বু রাম’ নামের এক শক্তিশালী বাঘের সঙ্গে মিলন হয় তার। জন্ম হয় তিনটি শাবকের। একটি স্ত্রী ও দু’টি পুরুষ শাবকের জন্ম দেয় সে। তার মেয়ের নাম ছিল ‘সুন্দরী’(টি-১৭)। ছেলেদের নাম ‘ব্রোকেন টেল’ ও ‘স্লান্ট ইয়ার’।
  • ছোট থেকেই সে ছিল ডাকাবুকো। মাত্র দু’বছর বয়স থেকেই একা শিকার করতে বেরিয়ে পড়ে মছলী। আস্তে আন্তে আলাদা হয় নিজের মায়ের থেকে। ১৯৯৯ এই নিজের এলাকা গড়ে নেয় সে। মায়ের এলাকাতেও ভাগ বসায় মছলী।
  • ১৯৯৭ সালে বর্ষার মরসুমে জন্ম হয় মছলীর। তার মুখ ও কানের কাছে মাছের আকৃতির দাগ ছিল। সেখান থেকেই তার এই নাম। এই অদ্ভুত ডোরাকাটা দাগ তার সৌন্দর্যকে কয়েক গুণ বাড়িয়ে দিয়েছিল।
  • মছলী একটি বাঘিনী। ভারতের রাজস্থানের রণথম্বোর জাতীয় উদ্যান ছিল তার বিচরণ ক্ষেত্র। সেখানকার প্রায় ৩৫০ বর্গমাইল এলাকা জুড়ে ছিল তার রাজত্ব। রণথম্বোরের জঙ্গলে মছলীর প্রভাব সর্বজনবিদিত।
  • তার নাম মছলী। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের পশুপ্রেমীদের কাছে পরিচিত মুখ সে। জীবনকালে নিজের কীর্তির জন্য ‘লেডি অব দ্য লেকস’, ‘ক্রোকোডাইল কিলার’, ‘টাইগার কুইন অব রণথম্বোর’-এই সব নামও উপাধি হিসাবে পেয়েছে সে।

পরিবেশ

চাষাবাদ নিয়ন্ত্রণে বাঁচবেন কৃষক

দুই দশক আগে রাজশাহীতে এক বিঘা জমিতে আলু চাষে খরচ পড়ত ৬০০ টাকা। তখন আলু বিক্রি হতো ১০ টাকা কেজি দরে। এখন একই পরিমাণ জমিতে আলুর আবাদে খরচ বেড়ে প্রায় ২ হাজার ২০০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। কিন্তু ২০ বছর পরে এসেও হিমাগার পর্যায়ে চাষিদের সেই ১০-১২ টাকা কেজি দরেই আলু বিক্রি করতে হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, চাহিদার অতিরিক্ত আলু উৎপাদনের কারণেই দাম নিয়ে সমস্যা হচ্ছে। কৃষকেরা কেবল আলুর উৎপাদনই বাড়াতে শিখেছেন, কিন্তু বেশি দামে বিক্রির কোনো উপায় তাঁদের জানা নেই। সরকার বা কৃষি উৎপাদন ও বিপণনে সম্পৃক্ত করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোও কৃষকদের জন্য কোনো সমাধান নিয়ে আসতে পারেনি। এর ওপর করপোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো কৃষকদের দিয়ে আলুর চাষ বাড়িয়ে চলেছে। অন্যদিকে দাম কম বলে ঋণগ্রস্ত কৃষকেরা হিমাগারে রাখা আলু বিক্রি করতে পারছেন না। আলু উৎপাদন করতে গিয়ে তাঁদের পথে বসতে হচ্ছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী দেশে এবার ১ কোটি ৯ লাখ টন আলু উৎপাদিত হয়েছে। বীজ আলুসহ দেশে চাহিদা রয়েছে ৮৯ লাখ মেট্রিক টন। এতে ২০ লাখ টন আলু অবিক্রীত থাকতে পারে। এই আলুর ভার এসে পড়ছে চাষিদের ওপর।

কৃষকদের এমন দুরবস্থার সমাধানে সম্প্রতি রাজশাহীতে এক সেমিনারে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এম মনজুর হোসেন আলু চাষের জন্য কোটা বা প্রাইমারি লাইসেন্স (পিএলসি) পদ্ধতি চালুর প্রস্তাব দিয়েছেন। তাঁর মতে, এই পদ্ধতিতে চাহিদার সঙ্গে মিল রেখে চাষিদের আলুর জমির কোটা বা পরিমাণ নির্ধারণ করে দেওয়া হবে। ফলে অতিরিক্ত আলু অবিক্রীত থাকবে না।

কিন্তু ওই সেমিনারের প্রধান অতিথি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সরেজমিন বিভাগের পরিচালক এ কে এম মনিরুল আলম পিএলসি প্রস্তাবের বিপক্ষে মতামত দিয়েছেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় (ডব্লিউটিও) স্বাক্ষরকারী দেশ হিসেবে আমরা কোটা বা পিএ

যোগাযোগ করা হলে এম মনজুর হোসেন জানান, তিনি জেনেশুনেই প্রস্তাবটি দিয়েছেন। ডব্লিউটিওর এমন শর্ত নেই যে কোনো দেশ উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে না। কৃষিপণ্যের উৎপাদন নিয়ন্ত্রণে কোনো বাধা নেই। তিনি বলেন, জাপান এক বছর ধান উৎপাদন করলে ছয় বছর খেতে পারে। সে জন্য তারা এক বছরে সব ধানের জমিতে ধান উৎপাদন করে না। এভাবে কানাডায় আলুর উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ করা হয়। ভারতের নয়াদিল্লিতেও কেউ ইচ্ছেমতো যত খুশি আলু চাষ করতে পারেন না। ডব্লিউটিওর শর্ত অনুযায়ী সরকার অবশ্যই নিজ দেশে কৃষিপণ্যের উৎপাদন নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। এতে কোনো বাধা নেই।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

৪ সবজিতে ক্ষতিকর মাত্রায় রাসায়নিক

বাজারে প্রায় সারা বছরই বেগুন পাওয়া যায়। ফুলকপি শীতকালে পরিণত হলেও এ সবজির আগাম জাত আগস্টেই বাজারে চলে আসে। শিম আর বরবটি অবশ্য আরও মাসখানেক পর আসবে। নিত্য পাতের এ চার সবজিতেই ক্ষতিকর মাত্রায় রাসায়নিক কীটনাশকের উপস্থিতি পেয়েছেন গবেষকেরা। বিশেষ করে দেশের উত্তরাঞ্চলে উৎপাদিত সবজিতে এসব ক্ষতিকর রাসায়নিক পাওয়া গেছে তুলনামূলক বেশি। আম, পেয়ারায়ও ক্ষতিকর মাত্রায় কীটনাশক পাওয়া গেছে। এ ছাড়া পানেও এ ধরনের রাসায়নিক পেয়েছেন গবেষকেরা।

বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) চারটি গবেষণায় এসব তথ্য উঠে এসেছে। তিনটি আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান সাময়িকীতে গত ডিসেম্বর থেকে গত আগস্টের মধ্যে গবেষণার ফলগুলো প্রকাশিত হয়েছে। এ সাময়িকীগুলো হলো জার্নাল অব ফুড কমপোজিশন অ্যান্ড অ্যানালাইসিস, ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অব এনভায়রনমেন্টাল অ্যান্ড অ্যানালিটিক্যাল কেমিস্ট্রি এবং জার্নাল অব দ্য সায়েন্স অব ফুড অ্যান্ড অ্যাগ্রিকালচার। এর মধ্যে জার্নাল অব ফুড কমপোজিশন অ্যান্ড অ্যানালাইসিস প্রকাশ করে এলসেভিয়ের। এ প্রতিষ্ঠান বিজ্ঞান সাময়িকী ল্যানসেটসেলও প্রকাশ করে। আর জার্নাল অব দ্য সায়েন্স অব ফুড অ্যান্ড অ্যাগ্রিকালচার প্রকাশ করে যুক্তরাজ্যের লন্ডনভিত্তিক সোসাইটি অব কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রি।

আজ বিশ্ব খাদ্য দিবস। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য, ‘আমাদের কর্মই আমাদের ভবিষ্যৎ, ভালো উৎপাদনে ভালো পুষ্টি, আর ভালো পরিবেশেই উন্নত জীবন।’বিজ্ঞাপনবিজ্ঞাপন

গবেষণায় বিজ্ঞানীরা বেগুন, ফুলকপি, শিম ও বরবটির নমুনার ১১ থেকে ১৪ শতাংশের মধ্যে মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর মাত্রায় রাসায়নিক কীটনাশকের উপস্থিতি পেয়েছেন। এসব গবেষণা করা হয়েছে বারিতে স্থাপিত আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত গবেষণাগারে।

ওই চার গবেষণায় নেতৃত্ব দিয়েছেন বারির কীটতত্ত্ব বিভাগের বালাইনাশক গবেষণা ও পরিবেশ বিষতত্ত্ব শাখার ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মুহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন প্রধান। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘রাসায়নিক কীটনাশক ব্যবহারের ক্ষেত্রে কিছু সাধারণ নিয়ম রয়েছে। ফসলে কীটনাশক প্রয়োগের পর একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়, যাতে ফসল সংগ্রহ করলে কীটনাশকের অবশিষ্টাংশের মাত্রা ক্ষতির পর্যায়ের নিচে নেমে আসে। যেমন অর্গানোফসফরাস কীটনাশক ব্যবহারের ১০ থেকে ২০ দিন পর ফসল তুলতে হয়। সিনথেটিক পাইরিথ্রয়েডের ক্ষেত্রে অপেক্ষা করতে হয় চার থেকে সাত দিন। কিন্তু আমাদের দেশের
কৃষকেরা নিয়মগুলো অনুসরণ না করেই ফসল সংগ্রহ করেন।’ তিনি বলেন, গবেষণার জন্য তিনি ও তাঁর দল ভোক্তাদের কাছে ফল ও সবজি বিক্রির আগে নমুনা সংগ্রহ করেছেন।

গবেষণা প্রতিবেদনগুলোয় বলা হয়েছে, সবজি ও ফলের নমুনায় গবেষকেরা সাইপারমেথ্রিন, ক্লোরোপাইরিফস, ডাইমেথয়েট, অ্যাসিফেট ও কুইনালফসের মতো ক্ষতিকর রাসায়নিক পেয়েছেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এসব রাসায়নিক ক্যানসার, পারকিনসনস, চর্মরোগ, উচ্চ রক্তচাপসহ নানা ধরনের রোগের কারণ হতে পারে। বিশেষ করে শিশু ও বৃদ্ধরা এসব রাসায়নিকযুক্ত খাবার খেলে স্নায়ুরোগে আক্রান্ত হতে পারে। শিশুদের বুদ্ধির বিকাশ ব্যাহত হতে পারে। অন্তঃসত্ত্বা নারীদের ক্ষেত্রে গর্ভের সন্তানের নানা ধরনের সমস্যা হতে পারে।বিজ্ঞাপন

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্যবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের অধ্যাপক নাজমা শাহীন প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমাদের এখানে জনপ্রিয় বেশির ভাগ রাসায়নিক কীটনাশক উন্নত বিশ্বে পর্যায়ক্রমে নিষিদ্ধ হচ্ছে। কারণ, এগুলো মানবদেহের জন্য দীর্ঘ মেয়াদে ক্ষতি ডেকে আনছে। এগুলোর ব্যবহারবিধি ঠিকমতো অনুসরণ না হলে দেশে ক্যানসারসহ নানা ধরনের রোগে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা বাড়তে থাকবে।’

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশে আগাম জাতের সবজি ও ফল বেশ জনপ্রিয় হচ্ছে। এসব কৃষিপণ্য চাষের সময়ে পোকার আক্রমণও বেশি হয়। এর সহজ সমাধান হিসেবে কৃষকেরা রাসায়নিক কীটনাশক বেশি ব্যবহার করেন।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক খন্দকার শরীফুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, আবহাওয়াগত কারণে বাংলাদেশে বেশি পরিমাণে কীটপতঙ্গ বিস্তার লাভ করে। আর তা দমনে কৃষকেরা রাসায়নিক কীটনাশক বেছে নেন। তিনি ভারতের পাঞ্জাবসহ কয়েকটি রাজ্যের উদাহরণ টেনে বলেন, ওই রাজ্যগুলোয় কৃষকেরা ফসলে অতিরিক্ত কীটনাশক ব্যবহার করেন। ওই রাজ্যগুলোয় মানুষের ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার হারও তুলনামূলক বেশি। তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে যাতে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয়, সেদিকে সতর্ক থেকে ব্যবস্থা নিতে হবে।’

আম ও পেয়ারায়ও ক্ষতিকর কীটনাশক

বারির আরেক গবেষণায় দেখা গেছে, দেশের জনপ্রিয় ফল আম ও পেয়ারায়ও ক্ষতিকর মাত্রায় কীটনাশক পাওয়া গেছে। তবে তা বেগুন, ফুলকপি, শিম ও বরবটির তুলনায় কম। আমের ৪ শতাংশ নমুনায় এবং পেয়ারার ৬ শতাংশ নমুনায় ওই রাসায়নিক পেয়েছেন গবেষকেরা। গবেষণার জন্য ১৪০টি আম ও ১৩০টি পেয়ারার নমুনা সংগ্রহ করে তা বারির গবেষণাগারে পরীক্ষা করা হয়েছে।

দেশের সবচেয়ে বেশি আম উৎপাদনকারী এলাকা রাজশাহী বিভাগ। এ অঞ্চল থেকে সংগৃহীত আমের নমুনার ১৩ শতাংশে ক্ষতিকর কীটনাশকের অবশেষ পাওয়া গেছে। দিনাজপুর ও জামালপুরের আমের ২০ শতাংশ নমুনায় এসব রাসায়নিক পাওয়া গেছে। বগুড়া, কুমিল্লা ও যশোরের আমের ১০ শতাংশ নমুনায় কীটনাশকের অবশেষ পেয়েছেন গবেষকেরা। গাজীপুর ও ঢাকার আমের নমুনার ৫ শতাংশেও ছিল এসব রাসায়নিক। বরিশাল থেকে সংগৃহীত আমের কোনো নমুনায় ক্ষতিকর মাত্রায় কীটনাশক পাওয়া যায়নি।

তবে বরিশালের পেয়ারায় রাসায়নিক পাওয়া গেছে সবচেয়ে বেশি। দেশে উৎপাদিত পেয়ারার ৮০ শতাংশই আসে এ বিভাগ থেকে। গবেষণায় বরিশাল থেকে সংগৃহীত নমুনার ১৩ শতাংশে কীটনাশকের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। জামালপুর, নরসিংদী ও যশোরের পেয়ারার ১০ শতাংশ নমুনায় এসব রাসায়নিক ছিল। তবে ঢাকা, গাজীপুর, কুমিল্লা ও বগুড়ায় উৎপাদিত পেয়ারার নমুনায় রাসায়নিকের অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি।

পানের ১১ শতাংশ নমুনায় রাসায়নিক

পানের নমুনার ১১ শতাংশেও একই ধরনের রাসায়নিকের উপস্থিতি পাওয়া গেছে। পান নিয়ে করা গবেষণাটির জন্য বরিশাল, বগুড়া, ঢাকা, গাজীপুর, জামালপুর, নরসংদী ও রংপুর থেকে মোট ১১০টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়।

জানতে চাইলে বারির মহাপরিচালক মো. নাজিরুল ইসলাম বলেন, ফলমূল, শাকসবজিতে বিষাক্ত রাসায়নিক কীটনাশকের বিকল্প হিসেবে জৈব বালাইনাশকের ব্যবহার নিশ্চিত করতে সরকার ইতিমধ্যে কর্মসূচি নিয়েছে। ২৪টি জৈব বালাইনাশকভিত্তিক প্রযুক্তির উদ্ভাবনও করা হয়েছে। এসব প্রযুক্তি কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে কৃষকপর্যায়ে সফলভাবে ব্যবহার শুরু হয়েছে। আশা করা যায়, ক্ষতিকর বিষাক্ত রাসায়নিক কীটনাশকের ব্যবহার দিনে দিনে কমে আসবে।

আর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আসাদুল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা রাসায়নিক কীটনাশকের বিকল্প জৈব বালাইনাশক এবং কীটপতঙ্গ দমনের প্রাকৃতিক পদ্ধতি জনপ্রিয় করছি। আর কৃষকেরা এসব বালাইনাশকের ব্যবহার বাড়াচ্ছেন। তবে শুধু সরকারি সংস্থার মাধ্যমে এ ক্ষেত্রে সফল হওয়া কঠিন হবে। কৃষকদেরও সচেতন হতে হবে।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

বাংলায় নেমেছে হেমন্তের দিন

শীত-শরতের সেতু বাঁধতে বঙ্গের ভূমিতে নেমেছে হেমন্তের দিন। মাঠে মাঠে হালকা বাতাসে দুলছে সোনার ধান। কার্তিকের সবুজ মধ্যাহ্নে ফসলের মাঠে চোখজুড়ে স্বপ্ন বুনছে কৃষান-কৃষানিরা। স্কুল বালিকারা ধানক্ষেতের আল ডিঙিয়ে হেঁটে যাচ্ছে শিশিরভেজা পায়ে, নদীতে হাঁসের বাথান মেতেছে জলকেলিতে, সারি সারি ডিঙি নৌকা দেহ এলিয়ে চিৎ হয়ে শুয়ে আছে আকাশের তলে। দূরের অরণ্যঘেরা পাহাড়টা ক্রমে ঢেকে দিচ্ছে মৃদু কুয়াশা। জলাঙ্গীর ঢেউয়ে ভেজা এ বাংলায় এমনই বিচিত্র দৃশ্যের আবাহন নিয়ে হাজির হয়েছে চতুর্থ ঋতু হেমন্ত। এরই মধ্য দিয়ে প্রকৃতিও শোনাচ্ছে শীতের পূর্বাভাস।

আজ পহেলা কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, হেমন্তের প্রথম দিন। জীবন ও প্রকৃতিতে এক আশ্চর্য বিভোরতা-রোমান্টিকতা নিয়ে আসে হেমন্ত। বাংলা সাহিত্যে কবি-শিল্পীদের সৃজনে নানা মাত্রিকতা ও আঙ্গিকে ধরা দিয়েছে নবান্নের এ ঋতু। বাংলা কবিতায় হেমন্ত বন্দনা সবিশেষ স্থানজুড়ে বিরাজ করছে। তিমির হননের কবি জীবনানন্দ দাশ তো পরাবাস্তবতাকেই জীবন ও কবিতার সারবস্তু হিসেবে প্রত্যক্ষ করেছেন। শঙ্খচিল, শালিক কিংবা ভোরের কাক হয়ে বাংলার এ সবুজ করুণ ডাঙায় বারবার ফেরার আকুতি প্রকাশ করেছেন।

jagonews24

এ বিভোরতা নিয়ে কবিতায় লিখেছেন- ‘প্রথম ফসল গেছে ঘরে,-/ হেমন্তের মাঠে – মাঠে ঝরে/ শুধু শিশিরের জল; অঘ্রানের নদীটির শ্বাসে/ হিম হয়ে আসে/ বাঁশ – পাতা – মরা ঘাস- আকাশের তারা!/ বরফের মতো চাঁদ ঢালিছে ফোয়ারা !/ ধানক্ষেতে – মাঠে/ জমিছে ধোঁয়াটে/ ধারালো কুয়াশা!/ ঘরে গেছে চাষা ;/ ঝিমায়াছে এ- পৃথিবী ,- তবু পাই টের/ কার যেন দুটো চোখে নাই এ ঘুমের কোনো সাধ!’ [কবিতা- পেঁচা (মাঠের গল্প)]

ধান মাঠের দৃশ্য শিকারি কবি নবান্নের অবিচ্ছিন্ন অনুভবে লিখেছেন- ধান কাটা হয়ে গেছে কবে যেন — ক্ষেত মাঠে পড়ে আছে খড়/ পাতা কুটো ভাঙা ডিম — সাপের খোলস নীড় শীত। এই সব উৎরায়ে ওইখানে মাঠের ভিতর/ ঘুমাতেছে কয়েকটি পরিচিত লোক আজ — কেমন নিবিড়। [কবিতা- ধান কাটা হয়ে গেছে]

jagonews24

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কবিতায়ও হেমন্তগীত দুর্দান্তভাবে উদ্ভাসিত হয়েছে। তার লেখায়- ‘অন্ন জোটে না, কথা জোটে মেলা,/ নিশিদিন ধরে এ কি ছেলেখেলা!/ ভারতীরে ছাড়ি ধরো এইবেলা/ লক্ষ্মীর উপাসনা।’ [কবিতা- পুরস্কার]

ষড়ঋতুর এ দেশে কার্তিক-অগ্রহায়ণ দুই মাস হেমন্তকাল। এখন ধীরে কমছে সূর্যের প্রখরতা, ছোট হয়ে আসছে দিনের আয়ু। কদিন বাদেই এ ভূ-ভাগে জেঁকে বসবে শীত। শীতের পূর্বভাগে মূলত এ ঋতু ঘিরে বাঙালির চিরায়ত যে নবান্নের ছোঁয়া তা দিন দিনই মলিন হয়ে যাচ্ছে। নবান্ন উৎসবের ঐতিহ্যগত যে কদর, সেটিও যেন বিবর্ণ অনেকটাই। তবুও সব মলিনতা তুচ্ছ করে অপরূপ রূপে সেজেছে হেমন্ত।

বিদ্রোহী কবি নজরুল ইসলাম কবিতায় হেমন্তের বন্দনায় লিখেছেন- ‘ঋতুর খাঞ্চা ভরিয়া এল কি ধরণির সওগাত?/ নবীন ধানের আঘ্রাণে আজি অঘ্রাণ হল মাত।/ ‘গিন্নি-পাগল’ চালের ফিরনি/ তশতরি ভরে নবীনা গিন্নি/ হাসিতে হাসিতে দিতেছে স্বামীরে, খুশিতে কাঁপিছে হাত।/ শিরনি বাঁধেন বড়ো বিবি, বাড়ি গন্ধে তেলেসমাত!’ [কবিতা- অঘ্রাণের সওগাত]

jagonews24

হেমন্তের প্রথম মাস কার্তিক ও দ্বিতীয় মাস অগ্রহায়ণেরও রয়েছে ভিন্ন রূপ। হেমন্ত একদিকে যেমন শরতের বিদায় টঙ্কা বাজায়, অন্যদিকে শীতের আগমনী বার্তা শোনায়। এখন কৃষকের গোলার ধান প্রায় শেষ দিকে। এ কারণে অনেকে এ মাসকে ‘মরা কার্তিক’ বলেও অভিহিত করে। তবে অগ্রহায়ণে ধান কাটা শেষে কার্তিকের শূন্য গোলা ভরে উঠে সোনার ধানে। গ্রামীণ জীবনে তখন কেবলই ছড়ায় পাকা ধানের মিষ্টি ঘ্রাণ। রাতে প্রতিবেশী বধূদের ঢেঁকিতে ধান ভানার শব্দ ভেসে আসে দূর থেকে।

দেশের কিছু অঞ্চলে এরই মধ্যে ধান কাটা শুরু হয়েছে। এটা আগাম আমন ধান কাটার মৌসুম। বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলে মহাধুমধামে চলছে ফসল কাটা ও মাড়াইয়ের কাজ। কার্তিকের মাঝামাঝি সারাদেশেই ফসলের মাঠে ব্যস্ততা বাড়বে। ধুম পড়বে সোনার ধান ঘরে তোলার। এরপরই নতুন চালে শুরু হবে নবান্ন। পিঠা-পুলির উৎসব।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

মা ইলিশ রক্ষা করি ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি করি

ইলিশ আমাদের জাতীয় মাছ। বাঙালির অত্যন্ত জনপ্রিয় ও সুস্বাদু এ মাছ যুগ যুগ ধরে দেশের মানুষের চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি অর্থনৈতিক উন্নয়ন, কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও নিরাপদ আমিষ সরবরাহে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে।

ইলিশ দেশের জাতীয় সম্পদ। এই সম্পদ রক্ষায় দেশের প্রতিটি নাগরিকের এগিয়ে আসা অত্যন্ত জরুরি। ইলিশের সহনশীল উৎপাদন বজায় রাখার লক্ষ্যে ডিমওয়ালা মা ইলিশ রক্ষা করা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মা ইলিশ রক্ষা পেলে ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। আর এ লক্ষ্যে ৪ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর (১৯ আশ্বিন হতে ০৯ কার্ত্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ) পর্যন্ত মোট ২২ দিন দেশের অভ্যন্তরীণ নদ-নদীর ১১ হাজার বর্গকিলোমিটার জলসীমায় মা ইলিশ ধরা নিষেধ করেছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

“মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান-২০২১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মন্ত্রণালয় হতে নিষিদ্ধকালীন এই ২২ দিন সারাদেশে ইলিশ আহরণ, পরিবহন, মজুদ, বাজারজাতকরণ, ক্রয়-বিক্রয় ও বিপনন নিষিদ্ধ করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। দেশে ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধিতে সর্বসাধারণ বিশেষ করে জেলে, মৎস্যজীবী সম্প্রদায় ও ইলিশের সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যবসায়ী, আড়তদার, বরফকল মালিক, বোট মালিক, দাদনদার এবং ভোক্তাসহ সবাইকে সচেতন ও উদ্বুদ্ধকরণ করা। একইসঙ্গে ব্যাপক প্রচার প্রচারণার মাধ্যমে বিষয়টিকে সামাজিক আন্দোলনে রূপ দেয়া। আর এ প্রচারের কাজটি সর্বাধিক করে থাকে মন্ত্রণালয়ের মৎস্য অধিদপ্তর ও মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ তথ্য দপ্তর। দেশে ইলিরে অভয়াশ্রম রয়েছে (৫টিতে মার্চ-এপ্রিল মাছ ধরা বন্ধ) ৬টি যার মোট আয়তন-৪৩২ কি.মি. । আর ৬ টি অভয়াশ্রম হলো বরিশাল, ভোলা, পটুয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, চাঁদপুর ও শরিয়তপুর । বাংলাদেশে ইলিশের প্রজনন ক্ষেত্রের চারটি পয়েন্ট চিহ্নিত করা হয়েছে। যা প্রায় ৭ হাজার বর্গকিলোমিটার উপকূলীয় এলাকা জুড়ে রয়েছে। চারটি পয়েন্ট হলো- মীরসরাই, চট্টগ্রামের মায়ানি, তজুমুদ্দিন ও ভোলার পশ্চিমে সৈয়দ আওলিয়া, কুতুবদিয়া ও কক্সবাজারের উত্তর কুতুবদিয়া এবং পটুয়াখালির কলাপাড়া ও লতাচাপালী পয়েন্ট।

তাছাড়া সকল নদ-নদীতে এ নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে। ২০২১ সালে প্রধান প্রজনন মৌসুমে ইলিশ সংরক্ষণ অভিযানের এলাকা নির্ধারণ করা হয়েছে দেশের ৩৮ টি জেলা ও ১৭৪ টি উপজেলাকে। নিষেধাজ্ঞা আইন অমান্যকারীকে কমপক্ষে ১ বছর থেকে সর্বোচ্চ ২ বছর সশ্রম কারাদন্ড অথবা পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা অথবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত করা যাবে। বর্তমানে ইলিশ ধরায় সরাসরি দেশের প্রায় ৬ লক্ষ জেলে নিয়োজিত । প্রধান প্রজনন মৌসুমে পরিবার প্রতি ২০ কেজি হারে ভিজিএফ দেয়া হচ্ছে। ২০২১ সালে ৫ লক্ষ ৫৫ হাজার ৯৪৪ টি জেলে পরিবারে ১১ হাজার ১১৮ দশমিক ৮৮ মে.টন চাল বরাদ্ধ প্রদান করা হয়েছে।

ইলিশ মাছ প্রজননের ক্ষেত্রে চন্দ্রনির্ভর আবর্তন অনুসরণ করে। প্রতিবছর আশ্বিন মাসের প্রথম উদিত চাঁদের পূর্নিমার আগের চারদিন, পরের ১৭ দিন এবং পূর্ণিমার দিনসহ মোট ২২ দিন এই নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকে। ২০১১ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ১১ দিন, ২০১৫ সালে ১৫ দিন নিষেধাজ্ঞা জারি থাকলেও ২০১৭ সাল থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত এ নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বাড়িয়ে ২২ দিন করা হয়। ইলিশ মূলত সারা বছর কমবেশি ডিম ছাড়লেও সেপ্টেম্বর-অক্টোবর হচ্ছে ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম। এই সময়েই প্রায় ৮০ শতাংশ ইলিশ ডিম ছাড়ে।

মা ইলিশ বলতে প্রজননক্ষম পরিপক্ব স্ত্রী ইলিশ মাছ বুঝায়। ইলিশ একটি সামুদ্রিক মাছ। ইলিশ আহরণে বাংলাদেশ বিশ্বে প্রথম। বিশ্বে আহরিত ইলিশের প্রায় শতকরা ৮৬ ভাগ আহরণ করা হয় এই দেশে। ২০১৭ সালের ১৭ আগষ্ট বাংলাদেশের ইলিশ মাছ ভৌগোলিক নির্দেশক বা জিআই পণ্য হিসেবে স্বীকৃতি পায়। যা বাংলাদেশের জন্য গৌরবের বিষয়।

বৈচিত্র্যময় জীবন ইলিশের। ইলিশ প্রধানত সামুদ্রিক মাছ হলেও প্রজনন কালীন সময়ে এ মাছ ডিম ছাড়ার জন্য বেছে নেয় স্বাদু পানির উজানকে। এ সময়ে ইলিশ দৈনিক প্রায় ৭১ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে পারে। প্রজননের উদ্দেশ্যে ইলিশ প্রায় এক হাজার দুইশত কিলোমিটার উজানে পাড়ি দিতে সক্ষম। সাগর থেকে ইলিশ যত ভেতরের দিকে আসে, ততই শরীর থেকে লবণ কমে যায়। এতে স্বাদ বাড়ে ইলিশের। বাংলাদেশে প্রতিবছর ৯-১০ শতাংশ হারে ইলিশের উৎপাদন বাড়ছে ।

ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য সরকার জাটকা আহরণও নিষিদ্ধ করেছে । এবং এর সময়সীমা এবং দৈর্ঘ্য নির্ধারণ করে দিয়েছে। মৎস্য সংরক্ষণ আইন-১৯৫০ অনুযায়ী ১ নভেম্বর-৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ১০ ইঞ্চির ছোট জাটকা ধরা নিষিদ্ধ থাকে। জাটকা আহরণ নিষিদ্ধ সময়ে জেলেদের ভিজিএফ খাদ্য সহায়তা ফেব্রুয়ারী থেকে মে পর্যন্ত মোট ৪ মাস প্রদান করা হয় । ইলিশ সম্পদ উন্নয়নে প্রতি অর্থবছরে সরকার বরাদ্দ দিয়ে যাচ্ছে। ২০০৭-০৮ অর্থ বছরে বরাদ্দের পরিমান ছিল ২ কোটি টাকা। বর্তমান অর্থবছরে সরকার বরাদ্দ দিয়েছে ৮ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা।

সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের ফলে ২০০৮-০৯ অর্থবছরে যেখানে ইলিশের উৎপাদন ছিল ২ লাখ ৯৯ হাজার টন, সেখানে ২০১৯-২০ অর্থবছরে বেড়ে ৫ লাখ ৫০ হাজার মে. টনে উন্নীত হয়েছে। যা দেশের মোট মৎস্য উৎপাদনের প্রায় ১২ শতাংশ। এর চলতি বাজার মূল্য প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা। অর্থাৎ ইলিশের উৎপাদন প্রায় দ্বিগুণের বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে। ভারতের ২০০২ সাল থেকে ২০১৮ সালে ইলিশের যোগান যেখানে ৫৬ শতাংশ কমেছে, সেখানে বাংলাদেশে ১৬০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে জাটকা আজ মেঘনা থেকে পদ্মা, যমুনা, ব্র²পুত্র, সুরমায় বিস্তৃতি লাভ করেছে। গত ১০ বছরের ব্যবধানে ইলিশের উৎপাদন বেড়েছে ৬৬ শতাংশ।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের গবেষণা ফলাফল বলছে, ১০ বছর আগে দেশের ২১টি উপজেলার নদ-নদীতে ইলিশ পাওয়া যেতো। বর্তমানে ১৭৪ টি উপজেলার আশপাশ দিয়ে প্রবাহিত নদীতে এই মাছ পাওয়া যাচ্ছে। পদ্মার শাখানদী মহানন্দা থেকে শুরু করে মৌলভীবাজারের হাকালুকি হাওর এবং ব্রা²ণবাড়িয়ার মেদির হাওরেও ইলিশ পাওয়া যাচ্ছে। গবেষকরা জানিয়েছেন, একটি ইলিশ একসঙ্গে কমপক্ষে ৩ লাখ ও সর্বোচ্চ ২১ লাখ ডিম ছাড়ে। এসব ডিমের ৭০-৮০ শতাংশ ফুটে রেণু ইলিশ হয়। এর সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ শেষ পর্যন্ত টিকে থাকে, যা পরবর্তীতে ইলিশে রূপান্তরিত হয়।

ইলিশ দেশের চাহিদা মিটিয়ে এখন বিদেশে রপ্তানি ছাড়াও ইলিশের নডুলস, স্যুপ ও পাউডার তৈরির প্রযুক্তি আবিষ্কারের ফলে ইতোমধ্যে তা বাজারজাতকরণ শুরু হয়েছে। ইলিশ শুধু জাতীয় মাছ ই নয়।অর্থনীতিতেও রয়েছে বিরাট অবদান। পরিসংখ্যান মতে, দেশের মোট মাছ উৎপাদনের ১২ ভাগ (যার আনুমানিক অর্থমূল্য আট হাজার ১২৫ কোটি টাকা) আসে ইলিশ মাছ থেকে। জিডিপিতে ইলিশ মাছের অবদান শতকরা ১ ভাগ। পৃথিবীর সব দেশেই এ মাছের চাহিদা রয়েছে। প্রতিবছর ইলিশ মাছ রপ্তানি করে প্রায় ৩, শ কোটি টাকার বৈদেশিক মুদ্রা আয় হচ্ছে।

যদি প্রজনন মৌসুমে ইলিশ ধরা ও জাটকা নিধন বন্ধ থাকে তাহলে ২১ থেকে ২৪ হাজার কোটি নতুন পরিপক্ব ইলিশ পাওয়া যাবে। এতে বছরে সাত হাজার কোটি টাকা মূল্যের ইলিশের বাজার সৃষ্টি সম্ভব হবে বাংলাদেশে। এতে অর্থের প্রবাহ বাড়বে। বাড়বে চলছে কর্মসংস্থান। যা নিঃসন্দেহে দেশের গোটা অর্থনীতিকে আরও গতিশীল করে তুলবে। পাশাপাশি দেশে প্রাণিজ আমিষের চাহিদা পূরণ হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

বিপন্ন হচ্ছে জলের পাখি ডাহুক

মাঝারি আকৃতির জলের পাখি ডাহুক। ডাহুক খুব সতর্ক পাখি। আত্মগোপনে পারদর্শী। এই পাখিটি খুব ভীরু বলেই কি এত সুন্দর?

পুকুর, খাল, জলাভূমি, বিল, নদীর পাড়ের গর্ত তাদের বসবাসের জন্য প্রিয় স্থান। তবে দ্রুত নগর বিস্তৃতির ফলে হারিয়ে যাচ্ছে সুন্দর এই পাখি।

দুই দশক আগেও মৌলভীবাজার জেলার হাওর-বাওর, খাল, বিল-ঝিল, ডোবা, নালা-দীঘির পাশের ঝোপঝাড়ে দল বেঁধে বাস করতো ডাহুক পাখি।

jagonews24

গ্রামাঞ্চলের পুকুর পাড়ের ঝোপঝাড়ে সন্ধ্যেবেলা ডাহুকের ডাক শোনা যেত। গভীর রাতেও ডাহুকের ডাকে অনেকের ঘুম ভাঙতো। তবে আজকাল আর ডাহুকের কণ্ঠ শোনা যায় না।

একসময় বর্ষা ও শরতে ডাহুকরা বাড়ির গৃহপালিত হাঁস মুরগির সঙ্গে বেড়াতো। এখন আর তাদের আনাগোনা দেখা যায় না। চোখে পড়ে না। ডাহুক পাখি এখন হারিয়ে যেতে শুরু করেছে।

বর্ষাকাল এদের প্রজনন ঋতু। এসময় তারা বাসা করে পানির কাছেই ঝোপঝাড়ের ভেতরে অথবা ছোট গাছের ঝোপযুক্ত ডালে। নিরাপত্তা ঠিকঠাক থাকলে মাটিতেও বাসা করে এই পাখি। ৫-৭টি ডিম পাড়ে এরা, ডিমের রং ফিঁকে হলুদ বা গোলাপি মেশানো সাদা।

jagonews24

ডাহুক-ডাহুকি দু’জন মিলেই ডিমে তা দেয়। বাচ্চার রং সব সময় হয় কালো। ডিম ফোটে প্রায় ২১-২৪ দিনে। আর ২৪-৩০ ঘণ্টা পরই বাচ্চারা বাসা ছাড়ে।

মাস তিনেক পরে বাচ্চারা আলাদা জীবন বেছে নেয়। প্রজননের সময় একটি পুরুষ ডাহুক অন্য একটি পুরুষ ডাহুককে সহ্য করতে পারে না। দেখলেই তারা মারামারি করে। এই পাখি লড়াকু প্রকৃতির।

ডাহুকের প্রিয় খাদ্য জলজ পোকামাকড় ও কীটপতঙ্গ। এছাড়াও শাপলা-পদ্ম ফুলের নরম অংশ, কচি পানিফল, জলজ শেওলা, লতাগুল্মের নরম অংশ, ধান, কাউন, ডাল, সরিষা, শামুক, কেঁচো, জোঁক, মাছ, ছোট মাছ, শাকসবজি ও ফল খেয়ে থাকে।

jagonews24

পাখিটি বাংলাদেশ, ভারত ছাড়াও দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে দেখা যায়। সারা পৃথিবীতে এক বিশাল এলাকা জুড়ে এরা বিস্তৃত, প্রায় ৮৩ লাখ ৪০ হাজার বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে এদের আবাস।

তবে বর্তমানে তাদের আবাস্থল ধ্বংস হচ্ছে। খাদ্য সংকট ও প্রজননকালীন সময়ে শিকারীদের উৎপাতসহ নানা কারণে হারিয়ে যাচ্ছে পরিবেশবান্ধব এ প্রজাতির পাখি। শিকারিদের হাত থেকে শেষ পর্যন্ত রক্ষা পাচ্ছে না গভীর বনজঙ্গলে বসবাসকারী ডাহুকগুলো।

সম্প্রতি আই.ইউ.সি.এন এই প্রজাতিটিকে নুন্যতম বিপদগ্রস্থ বলে ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতিটিকে সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয়েছে।

jagonews24

কাওয়াদীঘি হাওর পারের পৈতুরা গ্রামের সানা মিয়া বলেন, ‘ডাহুক অনেকটা বিপন্ন হয়ে যাচ্ছে। মাঝে মধ্যে দেখা যায়। ঝোপঝাড় ধ্বংসের ফলে ডাহুকের বর্তমান অবস্থা খুব বেশি ভালো নয়। প্রকৃতিতে এদের নিরাপত্তা দিতে অবশ্যই এদের বাসস্থান ধ্বংস বন্ধ করতে হবে। না হলে সেদিন আর বেশি দূরে নয় যেদিন বিপন্নের লাল তালিকায় লেখা হবে ডাহুক পাখির নাম।’

রাজনগর উপজেলার বলদার সাগর দীঘির পারের সেলিম উদ্দিন জাগো নিউজকে বলেন, ‘কয়েকদিন আগে ওই দীঘিতে এক শিকারি এসে ডাহুক ধরার ফাঁদ পেতে ছিল। বিষয়টি রাজনগর থানায় জানালে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে খাঁচার পাখিটি নিয়ে পালিয়ে যায় শিকারি।’

বনরেঞ্জ কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ‘প্রকৃতিকে সুন্দর রাখতে পাখপাখালিকে নিরাপত্তা দিতে হবে। আমরা গত নভেম্বর থেকে এ পর্যন্ত ১৫টি ডাহুক পাখি শিকারির হাত থেকে উদ্ধার করে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যোনে অবমুক্ত করেছি। কোথাও পাখি আটকের খবর পেলে আমরা উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করে থাকি।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com