আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

বাংলাদেশ

বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্ত: মিয়ানমারের সেনাদের টহল বৃদ্ধিতে বাংলাদেশের উদ্বেগ

রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সদস্যরা
রাখাইনে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সদস্যরা

বাংলাদেশ-মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সীমান্তে মিয়ানমারের সেনাদের গতিবিধি গত কয়েকদিনে বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে উদ্বেগ জানিয়েছে বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গত কয়েকদিনে এ ধরণের তৎপরতা বৃদ্ধি পাবার প্রেক্ষাপটে উদ্বেগ জানিয়ে রোববার একটি চিঠি দেয়া হয়েছে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, গত শুক্রবার থেকে বাংলাদেশ-মিয়ানমার আন্তর্জাতিক সীমান্ত এলাকার কাছাকাছি মিয়ানমারের সৈন্যদের টহল স্বাভাবিকের তুলনায় বেড়েছে বলে দেখা গেছে।

সীমান্ত এলাকার অন্তত তিনটি পয়েন্টে সৈন্যদের ”ব্যাপক সংখ্যক” উপস্থিতি দেখা গেছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

যদিও সেটাকে সৈন্য সমাবেশ বলতে চাননি কর্মকর্তারা।

২০১৭ সালে মিয়ানমারের সেনাদের নির্যাতনে লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে
২০১৭ সালে মিয়ানমারের সেনাদের নির্যাতনে লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে

এমন প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের উদ্বেগ জানানোর জন্য রোববার ঢাকায় মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূত অং কিউ মোয়েকে ডাকা হয়েছিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মিয়ানমার সেলের মহাপরিচালক মো. দেলোয়ার হোসেন বিবিসিকে বলেছেন, বাংলাদেশের উদ্বেগ জানিয়ে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে একটি চিঠি দেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশের উদ্বেগের কারণ কী?

সাধারণত দুই দেশের আন্তর্জাতিক সীমান্ত এলাকায় এ ধরণের সেনা টহল যদি বাড়ে, এবং আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন হয়, তাহলে সংশ্লিষ্ট দেশের রাষ্ট্রদূতকে ‘তলব’ করে প্রতিবাদ জানানো হয়।

কিন্তু এক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সীমান্ত এলাকায় সেনা টহল বেড়েছে, কিন্তু কোন আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন হয়নি, সে কারণে মিয়ানমারের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে উদ্বেগ জানানো হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা বিবিসি বাংলাকে জানিয়েছেন, তারা খবর পেয়েছেন সেনা টহল দুই দেশের আন্তর্জাতিক সীমান্তের একেবারে কাছ ঘেঁষে হচ্ছে না।

কিন্তু তারপরেও সাম্প্রতিক সময়ে এ ধরণের টহল বাড়ানোর ঘটনা দেখা যায়নি বলেই প্রাথমিকভাবে উদ্বেগ বা কনসার্ন বোধ করেছে বাংলাদেশ।

এছাড়া যেহেতু সীমান্ত এলাকায় স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি সেনা টহল লক্ষ করা গেছে, কর্মকর্তারা মনে করছেন ভবিষ্যতে সেটা উদ্বেগের কারণ হয়ে উঠতে পারে। এজন্যই আনুষ্ঠানিকভাবে সেটা জানিয়ে দেয়া হয়েছে।

এখানে আরো একটি বিষয় রয়েছে, মিয়ানমারের এই সেনা টহলের একটি অংশ হয়েছে সিভিলিয়ান বাহনে করে, অর্থাৎ মাছ ধরার নৌকায় করে।

আর যে তিনটি পয়েন্টে তাদের দেখা গেছে সেগুলো হল কা নিউন ছুয়া, মিন গালারগি ও গার খুইয়া আর এই জায়গাগুলো মূলত মুসলিম অধ্যুষিত এলাকা।

এটাকে সন্দেহজনক বলে মনে করছেন কর্মকর্তারা।

কারণ মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় এ ধরণের সেনা টহল বাড়লে পরে, হয়ত সেখানকার মুসলমানদের মধ্যে ভীতি ছড়িয়ে পড়তে পারে।

যার ফলে আরো কিছু লোকজন হয়ত বাংলাদেশে ঢুকে পড়তে চাইবে, তারও একটা ঝুঁকি তৈরি হয়।

ফলে এই সব বিষয় মাথায় রেখেই আনুষ্ঠানিকভাবে নিজেদের উদ্বেগের কথা জানানো হয়েছে মিয়ানমারকে।

ফল

বাংলার মাটিতে বাড়ছে বিদেশি ফলের চাষ

ঢাকা: বাংলাদেশের মাটিতে দিন দিন বাড়ছে বিদেশি ফলের চাষ। অনুকূল আবহাওয়া, কৃষি মন্ত্রণালয়ের পর্যাপ্ত সেবা ও স্থানীয় উদ্যোক্তা-চাষিদের উদ্যোগে এগিয়ে যাচ্ছে এই খাত। সব প্রতিবন্ধকতা জয় করে উল্টো বিদেশি ফল বিদেশে রপ্তানির কথা ভাবছে সরকার।

কৃষি মন্ত্রণালয়ের কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ও বেশ কয়েকজন বিদেশি ফলচাষির সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রায় ১০ বছর আগে ড্রাগন ফল চাষের মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশে শুরু হয় বিদেশি ফলের চাষ। বর্তমানে ড্রাগন ফলের পাশাপাশি স্ট্রবেরি, রাম্বুটান, অ্যাভোকাডো, পার্সিমন, টক আতা, প্যাসন ফলসহ নাশপাতি, আলু বোখারা ও পিচের মতো বিদেশি ফল চাষ হচ্ছে দেশে।


দেশের প্রায় সব অঞ্চলেই চাষ করা যায় এসব ফলের কোনো না কোনোটি। উত্তরবঙ্গ ও ময়মনসিংহের বিভিন্ন এলাকায় চাষ হচ্ছে ড্রাগন ফল। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশে চাষ হচ্ছে রাম্বুটান। রাজশাহী, রংপুর, দিনাজপুর, পাবনা, নাটোরের মতো জেলাগুলোতে ব্যাপক চাষ ও ফলন হচ্ছে স্ট্রবেরির। আর সিলেট, চট্টগ্রাম ও ঢাকার উঁচু এলাকাগুলোতে ভালো ফলন হয় অ্যাভোকাডোর।

বিদেশি ফল চাষ করে সফলতাও পাচ্ছেন দেশি চাষি ও উদ্যোক্তারা। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সার্বিক সহযোগিতা ও প্রশিক্ষণ নিয়ে আনুষ্ঠানিক শিক্ষায় শিক্ষিত তরুণরাও আগ্রহী হচ্ছেন এ খাতে ক্যারিয়ার গড়তে। তেমনই দুই উদ্যোক্তা গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার মামা-ভাগ্নে আতাউর রহমান ও আবদুল আজিজ। বিশ্ববিদ্যালয়ের পাট চুকিয়ে চাকরি-বাকরির বদলে দু’জনে মিলে শুরু করেন বিদেশি ফলের চাষ। পরামর্শ নেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক কৃষি বিশেষজ্ঞের। ২০১৩ সালে স্ট্রবেরির চাষ শুরু করে সেবছরই আয় করেন ১১ লাখ টাকা।
ড্রাগন ফল।  ছবি: ডিএইচ বাদল নিজেদের উদ্যোগ সম্পর্কে আতাউর রহমান বলেন, বাবা কৃষক ছিলেন্। ছোটবেলায় তার সঙ্গে কাজ করতে করতে কৃষি নিয়ে আগ্রহ জন্মায়। বিশ্ববিদ্যালয়ের পর ভাগ্নে আজিজকে নিয়ে শুরু করলাম এই বিদেশি ফলের চাষ। প্রথমে কিছুটা সন্দিহান ছিলাম তবে বাজারে যখন এর চাহিদা দেখলাম তখন আত্মবিশ্বাস পেয়েছি। বছর ঘুরতেই যখন ভালো অংকের লাভ আসা শুরু করলো তখন এটা নিয়ে দ্বিতীয়বার আর ভাবিনি। এই খাতেই কাজ চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেই।

এদিকে দেশি ফল চাষের পাশাপাশি বিদেশি ফলের চাষ বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীন কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ। সৌদি আরব, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের মতো দেশে রপ্তানি হচ্ছে দেশীয় ফলমূল। তারই ধারাবাহিকতায় দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশি ফল বিদেশেই রপ্তানি করার দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা রয়েছে অধিদপ্তরের। আর সেকারণেই চাষিদের প্রয়োজনীয় সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হচ্ছে বলে জানান কৃষিতথ্য সেবা বিভাগের পরিচালক ও কৃষিবিদ ড. মো. নুরুল ইসলাম।


বাংলানিউজকে নুরুল ইসলাম বলেন, ফলের জন্য প্রথমত দরকার আবহাওয়া। আবহাওয়া যদি ম্যাচ না করে তাহলে হবে না। আমাদের জন্য সৌভাগ্য যে, আমাদের দেশের আবহাওয়া বেশ কয়েকটি সুস্বাদু ও চাহিদাসম্পন্ন বিদেশি ফলের চাষের জন্য সহায়ক।


কৃষিতথ্য সেবা দপ্তর বলছে, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে দেশে উৎপাদিত ফলের পরিমাণ ছিল ১২১ দশমিক ১৩ লাখ মেট্রিক টন। সঠিক হিসাব না থাকলেও, এর মধ্যে প্রায় দুই শতাংশ বিদেশি ফল রয়েছে। এই সংখ্যা আরও বাড়াতে ইতোমধ্যে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে ‘ফল উৎপাদনের মাধ্যমে পুষ্টি উন্নয়ন’ শীর্ষক এক প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। ১৯৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ২০১৫ সালে শুরু হওয়া এ প্রকল্প শেষ হবে ২০২০ সালে। প্রকল্পের আওতায় এখন পর্যন্ত প্রায় দেড় লাখ কৃষককে বিদেশি ফল চাষে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। কৃষি বিশেষজ্ঞ ও সংশ্লিষ্টরা আশা করছেন, ২০২০ সালে এসে এই প্রকল্প থেকে দারুণ ইতিবাচক ও সম্ভাবনাময় ফলাফল মিলবে।


অন্যদিকে ‘সারা বছর ফল উৎপাদন’ শীর্ষক আরেকটি প্রকল্প চালু করার উদ্যোগ নিয়েছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। চালুর পর ২০২৬ সালে গিয়ে শেষ হবে এ প্রকল্প। এ বিষয়ে কৃষিবিদ মো. নুরুল ইসলাম বলেন, বিদেশি ফল চাষের দু’টি বড় উপকারিতা রয়েছে। এক, পুষ্টিগুণসম্পন্ন বিদেশি ফল কম দামেই দেশে উৎপাদন করা যাচ্ছে। ফলে লাভবান হচ্ছে দেশের জনগণ। দুই, বিদেশি ফল চাষে আলাদা গুরুত্ব পাচ্ছে অর্থনৈতিক দিকগুলো।  

‘একদিকে যেমন কর্মসংস্থান বাড়ছে অন্যদিকে পরিকল্পনা করে এগোলে বিদেশেই বিদেশি ফল রপ্তানির আরেকটি বড় সুযোগ তৈরি হতে পারে। আমাদের দেশের মানুষের মধ্যে নতুন কিছু করে দেখানোর আগ্রহ রয়েছে। অনেকেই আছেন যারা তরুণ ও এই খাতে কাজ করছেন বা করতে আগ্রহী। তাদের মধ্যে দারুণ কিছু করে দেখানোর তাগিদ রয়েছে। আমরা সেটিকে যতটা সম্ভব সাহায্য করতে চাই।  

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফল

মাল্টা চাষে স্বাবলম্বী ঘোড়াঘাটের আবু সায়াদ

দিনাজপুর: পাহাড়ি ফল হিসেবে পরিচিত মাল্টা। তবে সমতল ভূমিতেও এ ফলের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। বরেন্দ্র অঞ্চলের ‘শস্য ভান্ডার’খ্যাত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলায় বাণিজ্যিকভাবে চাষ হচ্ছে মাল্টার। ‘মাটির গুণাগুণ ঠিক থাকলে সমতল এলাকাতেও মাল্টা চাষ করে লাভবান হতে পারেন যে কেউ-ই’-এমনটিই জানিয়েছেন দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার সফল মাল্টাচাষি কাজী আবু সায়াদ চৌধুরী।

বর্তমানে আমাদের দেশে অনেক জনপ্রিয় ও সহজলভ্য একটি ফল হচ্ছে মাল্টা। এ ফলটি সারা বছরই পাওয়া যায়।

তাছাড়া দামেও বেশ সস্তা। পাশাপাশি বিভিন্ন ভিটামিনসহ মাল্টার অনেক পুষ্টিগুণও রয়েছে।  

মাল্টা চাষ করে সফল হয়ে এলাকায় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন ঘোড়াঘাট উপজেলার গোপালপুর গ্রামের বাসিন্দা কাজী আবু সায়াদ চৌধুরী। তার বাগানে থাকা প্রত্যেক গাছেই ঝুলছে থোকা থোকা মাল্টা।  

সায়াদ চৌধুরীর বাগানে শতাধিক মাল্টা গাছ রয়েছে। শুধু তাই নয়, মাল্টার পাশাপাশি তার বাগানে আরও রয়েছে লেবু, পেঁপে ও লিচু গাছ। কাজী আবু সায়াদের সফলতায় উদ্বুদ্ধ হয়ে এলাকার বেকার যুবকরাও ঝুঁকছেন মাল্টা বাগান গড়ে তোলার দিকে।

২০১৭ সালে আগস্টে ঘোড়াঘাট উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় উপজেলার পালশা ইউনিয়নের বিলপাড়া গ্রামে পৈত্রিক দেড় একর পরিমাণ পরিত্যক্ত পুকুর পাড়ের পশ্চিম পাশের দুই বিঘা জমিতে মাল্টা গাছের (বারি-১) চারা রোপণ করেন কাজী আবু সায়াদ চৌধুরী। প্রায় দুই বছরেই মাল্টা গাছে ফল ধরেছে। বাগানে গাছে গাছে শোভা পাচ্ছে বিভিন্ন সাইজের মাল্টা। সবুজ পাতার আড়ালে কিংবা পাতা ঝরা ডালেও ঝুলছে থোকা থোকা মাল্টা।  

মাল্টাচাষি কাজী আবু সায়াদ চৌধুরীর সঙ্গে কথা হয় বাংলানিউজের। তিনি জানান, প্রথম গাছে মাল্টা ধরার পর থেকে ফল চাষের মাধ্যমে বৈপ্লবিক পরিবর্তনের স্বপ্ন জাগে তার। এখন চলছে স্বপ্ন পূরণের পালা। স্থানীয় কৃষকরা এসব ফলমূল চাষে এগিয়ে এলে মাল্টাসহ বিভিন্ন ফলের চাহিদা মেটানো সম্ভব। ফলগুলো সুমিষ্ট হওয়ায় বাণিজ্যিকভাবে লাভবান হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন তিনি।

তিনি আরও জানান, গত বছরের চেয়ে চলতি মৌসুমে মাল্টা ফলন ভালো হয়েছে। প্রতি কেজি মাল্টা ১১০ থেকে ১৪০ টাকা দরে বিক্রি হয়।

ঘোড়াঘাট উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এখলাস হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, ঘোড়াঘাটসহ দিনাজপুর জেলায় ধান চাষের পাশাপাশি মাল্টা চাষের ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। ধান উৎপাদনের চেয়ে মাল্টা চাষে ১০ গুণ বেশি লাভবান হতে পারে এ অঞ্চলের কৃষক।  

‘কম খরচে ফলজ বাগান তৈরি করে এখানকার কৃষকেরা আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারে,’ যোগ করেন তিনি।  

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

বাণিজ্যিকভাবে ইঁদুর চাষ করছেন রাবির ল্যাব সহকারী

শখের বসে ইঁদুর লালন পালন করতে গিয়ে বাণিজ্যিকভাবে সফল হয়েছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের ল্যাব সহকারী সালাউদ্দীন মামুন। প্রাণীর প্রতি ভালোবাসা থেকে এ ইঁদুরের চারটি বাচ্চা বাড়িতে নিয়ে এসেছিলেন মামুন। উদ্দেশ্য ছিল বাচ্চাগুলো বড় হলে ছেড়ে দেবেন। 

কিন্তু দুই মাসের মাথায় অপ্রত্যাশিতভাবে লাভের মুখ দেখতে পাওয়ায় ইঁদুর পালনে আগ্রহী হয়ে ওঠেন তিনি। মামুনের ইঁদুর পালন শুরুর গল্পটাও বেশ অদ্ভুত। ২০১৭ সালের শেষের দিকে তিনি সহকর্মী মাসুদের সঙ্গে ল্যাবের সামনে বসেছিলেন। এ সময় উদ্ভিদ বিজ্ঞানের এক পিএইচডি গবেষক মাসুদকে ইঁদুরের চারটি বাচ্চা দিয়ে সেগুলোকে ছেড়ে দিতে বলেন। ছোট বাচ্চাগুলো দেখে মায়া হয় মামুনের। কিছুদিন রেখে বড় হলে ছেড়ে দিবেন এমন ভাবনা থেকে বাচ্চাগুলো বাড়িতে নিয়ে আসেন তিনি। তখনো জানতেন না ইঁদুর বাচ্চাগুলোকে কী খাওয়াতে হবে। 

সালাউদ্দীন মামুন জানান, বাড়িতে এনে ইঁদুরগুলোকে তিনি জুতা রাখার বাক্সে কাপড় দিয়ে থাকার ব্যবস্থা করে দেন। খাবার হিসেবে কিছু চাল, গম দিতেন। এরই মধ্যে বিড়াল একটি ইঁদুরের বাচ্চা খেয়ে ফেলে। তিনি বাকি তিনটাকে বিড়ালের হাত থেকে রক্ষা করতে ব্যবস্থা নেন এবং নিয়মিত খাবারও দিতে থাকেন। মাস খানেক পর একটি ইঁদুর ১০টা বাচ্চা জন্ম দেয়। তার সপ্তাহখানেক পরে আরো একটি ইঁদুর ১০টা বাচ্চা দেয়।

শখ থেকে উদ্যোক্তা হয়ে ওঠার ব্যাপারে মামুন বলেন, ইঁদুরের বাচ্চা দেওয়ার বিষয়টি আমি বিভাগে গল্প করি। এ সময় জামার্নির এক গবেষক প্রাণিবিদ্যা বিভাগের মিউজিয়ামে ট্যাক্সিডার্মি নিয়ে কাজ করছিলেন। তার গবেষণার জন্য আমার কাছে ইঁদুরগুলো চাইলেন। ইঁদুরগুলো মেরে ফেলবে, তাই দিতে রাজি হইনি। পরবর্তীতে মিউজিয়ামের কিউরেটর আমাকে বুঝিয়ে বললেন। তখন আমি তাকে ২০টি ইঁদুর দিলাম। তিনি আমাকে এক হাজার টাকা দিলেন। টাকা পেয়ে আমি কিছুটা অবাকই হলাম। এরপরই মূলত ইঁদুর পালনে আগ্রহী হয়ে উঠলাম এবং কিছুটা পড়াশোনও শুরু করলাম।

সালাউদ্দিন মামুন এখন তার নিজ বাড়ির একটি ঘরে ইঁদুর পালন করছেন। সাপ, বিড়ালসহ অন্যান্য প্রাণীদের থেকে রক্ষা করতে কক্ষের চারদিকে নেট লাগানো হয়েছে। ইঁদুরগুলোকেও নিয়মিত চাল, গম, ভুট্টা, ডাল জাতীয় খাবার খাওয়ানো হয়।

বর্তমানে তার খামারে ১০০টি স্ত্রী ও ২০টি পুরুষ ইঁদুর রয়েছে। প্রত্যেকটি স্ত্রী ইঁদুর এক থেকে দেড় মাস পরপর ৮-১০টি বাচ্চা দেয়। শুরুর দিকে কেবল রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা গবেষণার জন্য তার কাছ থেকে ইঁদুর কিনতেন। তবে বর্তমানে রাবি ছাড়াও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়সহ ঢাকার একাধিক ফার্মাসিউটিক্যালস ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান তার খামার থেকে ইঁদুর নিয়ে যাচ্ছেন। 

ব্যতিক্রমী এ খামারি বলেন, কোভিড-১৯-এর ভ্যাকসিন তৈরির চেষ্টা করছেন এমন একটি নামকরা দেশীয় প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি আমার কাছ থেকে ৫০টি ইঁদুর নিয়েছেন। অন্যান্য অনেক প্রতিষ্ঠানই নিয়মিত ইঁদুর নিচ্ছে। প্রথম দিকে একেকটি ইঁদুর ৪০ টাকা করে বিক্রি করতাম। বর্তমানে একটি ইঁদুর ৭০ টাকা হারে বিক্রি করছি। গবেষকরা বলছেন, বায়োলজিক্যাল ও বায়োমেডিক্যাল সায়েন্সের যেকোনো গবেষণা কাজের প্রাথমিক ধাপে পরীক্ষার জন্য সুইচ অ্যালবিনো প্রজাতির এ ইঁদুর ব্যবহার করা হয়। তবে বাংলাদেশে শুধু আইসিডিআরবি ও জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ইঁদুরের চাষ করা হয়; যা প্রয়োজনের তুলনা অনেক কম। ইঁদুরের খামার করতে আগ্রহীদের সরকারিভাবে প্রশিক্ষণ দিয়ে দক্ষ করে তুলতে পারলে গবেষণা ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে মনে করছেন তারা।

সালাউদ্দীন মামুনের খামার থেকে ইঁদুর নিয়ে গত দুই বছর যাবৎ গবেষণা করছেন রাজশাহী জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক আবু রেজা। তিনি বলেন, ইঁদুরে জিনের সঙ্গে মানুষের জিনের বেশ মিল থাকায় গবেষণার প্রাথমিক ধাপে অ্যালবিনো প্রজাতির ইঁদুরের বেশ চাহিদা রয়েছে। ব্যক্তি উদ্যোগে ইঁদুর পালনে আগ্রহীদের সরকারিভাবে প্রশিক্ষণ দিতে পারলে তা বাংলাদেশের গবেষণাখাতকে আরো সমৃদ্ধ করবে। ইঁদুরের বংশ বিস্তার নিয়ে কাজ করছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ রসায়ন ও অণুপ্রাণবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক জাহাঙ্গীর আলম সাউদ। 

তিনি বলেন, ব্যক্তি উদ্যোগে ইঁদুর পালন এটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ। সালাউদ্দিন মামুন যেহেতু বাণিজ্যিকভাবে পালন করার চিন্তাভাবনা করছেন সেক্ষেত্রে বাসস্থান, খাবার ও তাপমাত্রা এসব বিষয়গুলো আরো বৈজ্ঞানিকভাবে করা উচিত। সেক্ষেত্রে তার কোনো ধরনের সহযোগিতার প্রয়োজন হলে আমি তা দিতে প্রস্তুত। ইঁদুর নিয়ে বড় পরিসরে কাজ করার ইচ্ছে আছে জানিয়ে সালাউদ্দীন মামুন বলেন, শুধু রাবি বা বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় নয়, বরং বাংলাদেশের প্রত্যেকটি বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণার জন্য ইঁদুর সরবরাহ করার ইচ্ছে আছে তার। আমি ইতোমধ্যে একটি বড় ঘর তৈরি করেছি। সেখানে বিজ্ঞানসম্মতভাবে ইঁদুর পালন করবো। এছাড়া ইউরোপে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে এমন প্রাণী বাংলাদেশে এনে বংশবিস্তার ঘটানোর ইচ্ছে আছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

পরিত্যক্ত ইলেকট্রনিক বর্জ্য

ই-বর্জ্য হচ্ছে ইলেকট্রনিক বর্জ্য। যেমন: পরিত্যক্ত টিভি, ফ্রিজ, কম্পিউটার, ল্যাপটপ, ক্যামেরা, এয়ারকন্ডিশনার, মুঠোফোন, ইলেকট্রনিক খেলনাসামগ্রী ইত্যাদি। নিত্যপ্রয়োজনীয় এসব জিনিস ব্যবহারের পরে যখন নষ্ট হয়ে যায়, তখনই এটি বর্জ্যে পরিণত হচ্ছে। সাধারণ দৃষ্টিতে এগুলোকে চিরাচরিত বর্জ্য মনে হলেও আসলে কিন্তু তা নয়। এগুলো পচনশীল নয়, তাই পরিবেশের যথেষ্ট ক্ষতি করে। এ কারণে মাটি, গাছপালা, ফসল ও জীববৈচিত্র্যের ওপর ব্যাপক প্রভাব পড়ে। আমরা দেখতে পাচ্ছি, পুরোনো ইলেকট্রনিকসামগ্রী যখন ভাঙারির দোকানে স্থান পায়, তখন দোকানিরা প্রয়োজনে এসব বর্জ্যকে রোদের তাপে শুকিয়ে নেন। অনেকে বর্জ্যগুলোকে দোকানে না রেখে রাস্তার পাশে ফেলে রাখেন। ছবিগুলো সম্প্রতি রাজধানীর বিভিন্ন স্থান থেকে তোলা। ছবি: সাবিনা ইয়াসমিন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

বাংলাদেশ

শীতের সকালে সদরঘাট

রাজধানীতে শুরু হয়ে গেছে শীতের আমেজ। গত কয়েক দিন ভোরের সদরঘাট ছিল কুয়াশার চাদরে ঢাকা। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মেঘ সরে গিয়ে রোদ–ঝলমলে হয়ে ওঠে চারদিক। রোদ-কুয়াশার এই খেলার মধ্যেই চলে বুড়িগঙ্গাপারের মানুষগুলোর জীবন। ছবিগুলো মঙ্গলবার ভোরে তোলা।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com