আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

দৈনন্দিন

বন্যায় কৃষকের ক্ষতি এড়াবে ভাসমান বীজতলা

চলতি বছরের বীজতলার ক্ষতি পোষাতে নীলফামারী জেলায় পরীক্ষামূলকভাবে ১০০টি ভাসমান বীজতলা তৈরি করা হয়েছে। কলাগাছের ভেলা বানিয়ে এই বীজতলা তৈরি সম্ভব। বীজতলা যদি ভাসমান করা যায়, তাহলে বন্যার পানি উঠলেও ক্ষতি হবে না।

জলাশয়ে তৈরি ভাসমান বীজতলায় পানি ছিটাচ্ছেন এক কৃষক। সম্প্রতি নীলফামারী উপজেলার পলাশবাড়ি ইউনিয়নের অচিনতলা এলাকায় 

চলতি বছরের কয়েক দফার বন্যায় নীলফামারীর ডিমলা ও জলঢাকা উপজেলার ৬০৭ হেক্টর ফসলি জমি পানিতে নিমজ্জিত হয়। তবে বন্যার স্থায়িত্ব কম হওয়ায় বীজতলার তেমন ক্ষতি না হলেও ২ উপজেলার প্রায় ১৬ দশমিক ৫ হেক্টর আমন খেত ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ওই ক্ষতি পোষাতে জেলায় পরীক্ষামূলকভাবে ভাসমান বীজতলা পদ্ধতি শুরু করেছে কৃষি বিভাগ। প্রাথমিকভাবে ৩ একর কমিউনিটি বীজতলা এবং ১০০টি ভাসমান বীজতলা তৈরি করা হয়েছে।

কৃষি বিভাগের এমন উদ্যোগকে ইতিবাচকভাবেই দেখছেন স্থানীয় কৃষকেরা। তাঁরা বলছেন, গ্রামে অনেক পুকুর ও ডোবা থাকে। বন্যা এলে এগুলোতেও পানি ওঠে। কিন্তু বীজতলা যদি ভাসমান করা যায়, তাহলে পানি উঠলেও ক্ষতি হবে না। কিন্তু জমিতে বীজতলা করলে বন্যার পানি উঠলে প্রতিবছরই ক্ষতির মুখে পড়তে হয়।

এবারের বন্যায় ডিমলা ও জলঢাকায় ১৫ হেক্টর করে বীজতলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরীক্ষামূলক ভাসমান বীজতলার বিষয়ে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের অতিরিক্ত উপপরিচালক মাজেদুল ইসলাম বলেন, আবহাওয়া যেভাবে পরিবর্তন হচ্ছে, সে অনুযায়ী কৃষকদের প্রশিক্ষিত করার জন্য প্রদর্শনী আকারে ১০০টি ভাসমান বীজতলা তৈরি করা হয়েছে। পাশাপাশি তিন একর জমিতে কমিউনিটি বীজতলায় আমন চারা তৈরি করা হয়।

বন্যায় আমন আবাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আপত্কালীন এসব বীজতলার চারা কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় বিনা মূল্যে কৃষকদের মধ্যে বিতরণ করা হচ্ছে। এই পদ্ধতিতে কৃষকেরা প্রশিক্ষিত হলে আপত্কালীন সময়ে নিজেরাই ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়ার উদ্যোগ নিতে পারবেন।

কৃষি বিভাগ থেকে জানা গেছে, ভাসমান বীজতলার দৈর্ঘ্য ১০ মিটার এবং প্রস্থ ১ দশমিক ২৫ মিটার। প্রতিটি বেড তৈরিতে কৃষি বিভাগের খরচ হয়েছে ১ হাজার ৩৬৫ টাকা। জেলা সদরের পলাশবাড়ি ইউনিয়নের তরুণীবাড়ি অচিনতলা গ্রামের কৃষক জাহাঙ্গীর আলমের (৩০) বাড়ির পাশের পতিত ডোবায় চারটি ভাসমান বীজতলা তৈরি করা হয়েছে। তিনিও এই পদ্ধতিতে প্রাথমিকভাবে প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন।

জাহাঙ্গীর আলম বলেন, এই বীজতলা তৈরিতে প্রয়োজন হয়েছে একটি কলা গাছের ভেলা। এর ওপর পলিথিন বিছিয়ে পুকুরের পলিমাটি তুলে দেওয়া হয়। পলিমাটির সঙ্গে প্রতিটি বেডে আড়াই কেজি পরিমাণ জৈব সার মিশিয়ে এক কেজি ধানের বীজ ছিটানো হয়েছে। যা একজন শ্রমিক দিয়ে এক দিনেই তৈরি করা সম্ভব। জমিতে বীজতলা তৈরিতে চাষ এবং অন্যান্য প্রক্রিয়া শেষ করতে বেশ সময় লাগে। কিন্তু ভাসমান বীজতলায় সময় লাগে কম।

জেলায় এবার ১ লাখ ১৩ হাজার হেক্টর জমিতে আমন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে বীজতলা তৈরি করা হয় ৬ হাজার ৩৪৫ হেক্টর জমিতে। এসব বীজতলার মধ্যে জেলা সদরে ১ হাজার ৫৮০ হেক্টর, জলঢাকায় ১ হাজার ৩০৮ হেক্টর ও কিশোরগঞ্জ উপজেলায় বীজতলার পরিমাণ ৮৬০ হেক্টর।

সদর উপজেলা কৃষি বিভাগের পলাশবাড়ি ইউনিয়নের তরুণীবাড়ি ব্লকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা পার্থ প্রতীম রায় বলেন, ভাসমান বীজতলার প্রদর্শনী দেখে কৃষকদের মধ্যে বেশ আগ্রহ তৈরি হয়েছে। গ্রামের প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই কলাগাছ থাকে। কলাগাছ ব্যবহার করে ভেলা তৈরিসহ বীজতলার বেড তৈরির উপকরণ সংগ্রহ করা একজন কৃষকের জন্য কঠিন কিছু না। এ ছাড়া আমন চারা তুলে এসব বেডে বিভিন্ন শাকসবজির চাষ করাও সম্ভব। এই পদ্ধতির ব্যাপকতা বাড়লে মাছের ক্ষতি না করে জলাশয় ও পুকুরেও বীজতলা তৈরি সম্ভব।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আশরাফুজ্জামান বলেন, ১টি পুকুরের ১০ ভাগের এক ভাগ ব্যবহার করে ভাসমান বীজতলা তৈরি করা হলে মাছ চাষের কোনো ক্ষতি হবে না। বরং সেটি মাছের শেল্টার হিসেবে কাজ করবে। তবে পুরো পুকুরে ভাসমান বীজতলা করা হলে সূর্যকিরণ বাধাগ্রস্ত হয়ে মাছের ক্ষতি করবে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের তথ্যমতে, জেলায় এবার ১ লাখ ১৩ হাজার হেক্টর জমিতে আমন আবাদের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে বীজতলা তৈরি করা হয় ৬ হাজার ৩৪৫ হেক্টর জমিতে। এসব বীজতলার মধ্যে জেলা সদরে ১ হাজার ৫৮০ হেক্টর, সৈয়দপুরে ৪৬০ হেক্টর, ডোমারে ১ হাজার ৭৫ হেক্টর, ডিমলায় ১ হাজার ৬২ হেক্টর, জলঢাকায় ১ হাজার ৩০৮ হেক্টর এবং কিশোরগঞ্জ উপজেলায় বীজতলার পরিমাণ ৮৬০ হেক্টর।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

দৈনন্দিন

যে ৫ সবজি খেলে ওজন কমবে

ওজন কমানোর প্রচেষ্টা করলে সবার আগে জানা জরুরি, কোন খাবারগুলো আপনার জন্য উপকারী, কোনগুলো নয়। ওজন বৃদ্ধির ভয়ে খাবারের তালিকা থেকে উপকারী খাবারগুলো বাদ দিয়ে দিলে মুশকিল। আবার এমন কিছু খাওয়া চলবে না, যেগুলো ওজন কমানোর পরিবর্তে বাড়িয়ে তুলবে। অনেকে আবার ভুলভাল ডায়েট করে অসুস্থতা ডেকে আনেন। শরীরে সঠিক পুষ্টি পৌঁছানো সবার আগে জরুরি। তারপর আসে ওজন নিয়ন্ত্রণের পালা।

ওজন কমানোর ক্ষেত্রে নজর দিন খাবারের থালায়। একগাদা ভাজাভুজি এবং কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার কমিয়ে ডিশ ভরাতে হবে শাক-সবজি ও ফলমূল দিয়ে। স্বাস্থ্যকরভাবে ওজন কমাতে গেলে প্রথমেই আমাদের মাথায় আসে শাক-সবজির কথা। ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস প্রকাশ করেছে এমন কিছু শাক-সবজির কথা যা খেলে ওজন কমবে দ্রুত-

পালংশাক
গাঢ় সবুজ রঙের এই শাক বিভিন্ন পুষ্টিগুলে ভরপুর। এর মধ্যে রয়েছে প্রচুর আয়রন, পটাসিয়াম এবং ফাইবার। পালংশাকে ক্যালোরির পরিমাণ অত্যন্ত কম। পালং শাক শুধু যে ওজন কমাতে সাহায্য করে তাই নয়, টাইপ ২ ডায়াবেটিস, হার্টের অসুখ এবং যেকোনো ধরনের ক্যা্সার প্রতিরোধেও এটি বেশ কার্যকরী ভূমিকা রাখে।

ব্রকলি
দেখতে অনেকটা ফুলকপির মতোই। স্বাদও প্রায় কাছাকাছি। তবে সবুজ রঙের এই সবজি নিজ গুণেই পরিচিত। ব্রকলি আমাদের খাবারের তালিকায় যোগ হতে শুরু করেছে। ব্রকলিকে নিউট্রিয়েন্ট পাওয়ারহাউস বলা যেতে পারে। এর ভেতরে প্রচুর ক্যাসলিয়াম, ভিটামিন সি, ভিটামিন কে এবং আয়রন রয়েছে। ব্রকলিতে আছে প্রচুর ফাইবার এবং ক্যালোরি বেশ কম। তাইতো এই সবজি ওজন কমাতে ভীষণ উপকারী।

ক্যাপসিকাম
সালাদ কিংবা অন্যান্য খাবারে ক্যাপসিকাম ব্যবহার করা হয়। এই সবজি বেশ পুষ্টিকর। এতে আছে ভিটামিন সি, ডায়েটারি ফাইবার, ভিটামিন ই, বি৬ এবং ফোলেট। রঙিন এই সবজিতে পানির পরিমাণ বেশি। ক্যাপসিকাম মেটাবলিজমের হার বাড়ায় এবং ওজন কমাতে সাহায্য করে।

টমেটো
টমেটো যে কতকিছু তৈরিতে ব্যবহার করা হয়, তার হিসাব রাখা মুশকিল! টমেটোতে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লাইকোপিন। ওজন কমাতে এটি ভীষন কার্যকরী। নিয়মিত টমেটো খেলে অনেক অসুখ থেকেও দূরে থাকা যায়। এটি আপনি সালাদে কিংবা সবজিতে ব্যবহার করতে পারেন।

মিষ্টি আলু
মিষ্টি স্বাদের এই আলু আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য বেশ উপকারী। মিষ্টি আলু পুড়িয়ে নিয়ে তার উপরে সামান্য লবণ ও লেবুর রস ছড়িয়ে নিন। খেতে বেশ লাগবে। মিষ্টি আলুতে প্রচুর ফাইবার এবং কমপ্লেক্স কার্ব আছে। এটি ত্বকের পক্ষেও অত্যন্ত উপকারী। আলুর বদলে আপনি মিষ্টি আলু খেতে পারেন। এটি ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

দুধে মৌরি মিশিয়ে পান করলে কী হয়?

খাওয়ার পরে কয়েকটি মৌরির দানা মুখে দেয়ার অভ্যাস অনেকের। এটি মুখের ভেতরকে সতেজ করতে সাহায্য করে। মৌরি যে শুধু এই কাজে লাগে, তা কিন্তু নয়। শরীরের নানা উপকারেও এটি কাজে লাগে। দূরে রাখে নানা জটিল অসুখ। রূপচর্চায়ও কাজে লাগে মৌরি। এটি ত্বকে ব্যবহারের মাধ্যমে ব্রণ, স্কিন ড্যামেজ, দাগ এবং রিঙ্কেলস কম করা যায়।

মৌরিতে ভিটামিন সি বেশ ভালো পরিমাণে রয়েছে। পাশাপাশি এতে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম, ফসফরাস, আয়রন এবং পটাসিয়ামও রয়েছে। এসব উপাদান আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। দুধের সাথে মৌরি দিয়ে ফুটিয়েও পান করতে পারেন। আপনি যদি রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এই দুধ পান করেন তবে উপকার পাবেন। বোল্ডস্কাই প্রকাশ করেছে দুধের সঙ্গে মৌরি মিশিয়ে খাওয়ার উপকারিতা-

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো জরুরি। সুস্থ থাকতে হলে এর বিকল্প নেই। দুধে মৌরি মিশিয়ে পান করলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী হয়। মৌরিতে অ্যান্টি-ভাইরাল বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা ইমিউনিটি পাওয়ার বাড়ায়। দুধের সঙ্গে মৌরি মিশিয়ে খেলে তা আমাদের শরীরে পুষ্টি সরবরাহ করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।\

যৌন সমস্যা থেকে মুক্তি
যৌন জীবনে নানা সমস্যায় ভুগে থাকেন অনেকে। সেসব সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পুরুষ এবং নারীর উচিত মৌরি খাওয়া। লো সেক্স ড্রাইভ, অকাল বীর্যপাত এবং দুর্বলতার মতো সমস্যার সমাধান করতে পারে মৌরি। তাই, যৌন জীবন উন্নত করতে দুধে মৌরি মিশিয়ে পান করুন।

শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা থেকে মুক্তি
নানা কারণে শ্বাসকষ্ট হতে পারে। করোনাভাইরাসের লক্ষণগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা। গলা ব্যথা, শ্বাসকষ্ট এবং হাঁপানির মতো রোগের ক্ষেত্রে মৌরির দুধ পান করা বেশ উপকারী। প্রতি রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে মৌরি দিয়ে দুধ পান করুন। এতে হাঁপানির সমস্যা ধীরে ধীরে কমে আসবে।

পিরিয়ডের অস্বস্তি দূর করে
পিরিয়ডের সময়টা অনেক মেয়ের জন্য প্রচণ্ড অস্বস্তিকর। এসময় অস্বস্তি কাটাতে সাহায্য করতে পারে মৌরি। এক্ষেত্রে দুধের সাথে মৌরি মিশিয়ে পান করলে পিরিয়ড সম্পর্কিত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এজন্য এক গ্লাস দুধে এক চামচ মৌরি মেশান। এটি ভালো করে ফুটিয়ে তারপর পান করুন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

শ্বাসকষ্ট দূর করার ৫টি ঘরোয়া উপায়

ডিস্পেনিয়া বা শ্বাসকষ্ট অস্বস্তিকর এবং বিরক্তিকর অভিজ্ঞতা। আমরা সবাই এটি বিভিন্ন সময়ে এই পরিস্থিতির শিকার হয়েছি। যেমন সিঁড়ির কিছু ধাপ ওঠার পরে বা ফুসফুসে শ্লেষ্মার উপস্থিতির কারণে এমন অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। একাধিক কারণে শ্বাসকষ্ট হতে পারে। এটি সাময়িক হতে পারে। কখনো গুরুতর স্বাস্থ্যগত সমস্যার কারণে হতে পারে। মাঝেমধ্যে শ্বাসকষ্ট খুব সহজেই ঘরে বসে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। তবে যদি আপনার সাথে প্রায় দিনই এমনটা ঘটে থাকে তবে চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করা ভালো। শ্বাসকষ্ট কমিয়ে আনতে কয়েকটি সহজ ঘরোয়া উপায় প্রকাশ করেছে টাইমস অব ইন্ডিয়া-

ব্ল্যাক কফি
কফিতে রয়েছে ক্যাফেইন, যা শ্বাসনালীতে উপস্থিত পেশীগুলোকে শিথিল করতে পারে। হাঁপানিতে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য এই প্রতিকার বেশ কার্যকর প্রমাণিত হয়েছে। ব্ল্যাক কফি ফুসফুসের কার্যকারিতা উন্নত করতে পারে এবং শ্বাসকষ্টের সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করে। তবে এটি আপনার উপযুক্ত না হলে এড়িয়ে চলুন।

আদা
টাটকা আদা বা আদা চা পান করলে তা আপনাকে শ্বাসকষ্টের সমস্যা অনেকটাই কমিয়ে দেবে। শ্বাসকষ্টের সংক্রমণ হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে এই আদা। সাধারণ ভেষজটিতে অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ফুসফুসে প্রদাহ হ্রাস করতে পারে।

মুখে শ্বাস নেয়া
শ্বাসকষ্টের এই সহজ কৌশলটি আপনাকে শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করতে পারে। এটি আপনার শ্বাসের গতি ধীর করতে পারে, প্রতিটি শ্বাসকে আরও গভীর করে তোলে এবং আপনাকে আরাম দেয়। এটি কীভাবে করতে পারেন তা জেনে নিন-

পদক্ষেপ ১: পিঠ সোজা রেখে আরামদায়ক স্থানে বসুন। চেয়ারে কিংবা মেঝেতে বসতে পারেন

পদক্ষেপ ২: নাক দিয়ে আস্তে আস্তে ৪ থেকে ৫ সেকেন্ডের জন্য নিঃশ্বাস নিন। ফুসফুসের পরিবর্তে আপনার পেটটি বাতাসের সাথে পূর্ণ করুন।

পদক্ষেপ ৩: মুখ দিয়ে ৪ থেকে ৬ সেকেন্ডের জন্য নিঃশ্বাস ফেলুন।

পদক্ষেপ ৪: এভাবে ১০ থেকে ২০ বার পুনরাবৃত্তি করুন।

ভাপ নেয়া
ঠান্ডায় ভুগলে যদি শ্বাস নিতে অসুবিধা হয় তবে এটি ফুসফুসে শ্লেষ্মার কারণে হতে পারে। শ্লেষ্মা দূর করতে এবং শ্বাসনালী পরিষ্কার করতে গরম পানির ভাপ নিতে পারেন। এতে উপকার মিলবে।

ফ্যানের কাছাকাছি বসুন
একটি সমীক্ষায় পরামর্শ দেওয়া হয়েছে যে, শীতল বাতাস শ্বাসকষ্টের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে সহায়তা করতে পারে। অস্বস্তি বোধ করলে এবং শ্বাস নিতে অসুবিধা হলে কোনো ফ্যানের কাছে বসুন। শ্বাস নেয়ার সময় বাতাসের শক্তি অনুভব করলে তা আপনার শ্বাসকষ্ট দূর করতে সহায়তা করে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

রান্নায় ঝাল-লবণ বেশি হলে যা করবেন

রান্নার হাত যতই ভালো হোক, কখনো কখনো স্বাদে এদিক-ওদিক হবেই। কখনো লবণ, কখনো ঝাল বেশি হয়ে যেতে পারে। তাতে করে আপনার সাধের রান্নার স্বাদ নষ্ট হবে। ঝাল বা লবণ বেশি হলে সেই খাবার মুখে তোলাই কষ্টকর হয়ে পড়ে! ফলে কষ্ট করে বানানো খাবারটি নষ্ট হয়। নষ্ট না করে একটু এদিক-ওদিক করলেই খাবারটি খাওয়ার যোগ্য হয়ে ওঠে। চলুন জেনে নেয়া যাক তেমনই কিছু উপায়-

লবণ বেশি হয়ে গেলে
রান্নায় লবণ বেশি হয়ে যাওয়া খুব সাধারণ ঘটনা। প্রায়ই খাবারে লবণ বেশি পড়ে যায়। এক্ষেত্রে, যে খাবারে লবণ বেশি হয়ে গেছে তাতে আলু ছাড়িয়ে দিয়ে দিন এবং পরিবেশন করার আগে সেটি তুলে নিন। আলু, ডাল-সবজি বা স্যুপের অতিরিক্ত লবণ শুষে নেবে এবং খাবারের স্বাদও নষ্ট করবে না।

ঝাল এবং লবণ বেশি হলে
গ্রেভি জাতীয় সবজি বা ডালে বেশি ঝাল-লবণের পরিমাণ বেশি হয়ে গেলে, তাতে আটার লেচি তৈরি করে দিয়ে দিন। কিছুক্ষণ পরে এটি তুলে নিয়ে পরিবেশন করুন। দেখবেন খাবারের স্বাদ একদমই ঠিক আছে।

মশলা বেশি হলে
খাবারে যদি মশলা বেশি পড়ে যায়, তবে যে খাবারটি আপনি তৈরি করছেন সেই খাবারের মূল উপাদানগুলোর পরিমাণ বাড়িয়ে দিন। উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি চিকেন বা সবজির কিছু তৈরি করেন, তবে এতে আপনি আরও বেশি চিকেন বা সবজি দিয়ে দিন। এতে করে খাবারে মশলার পরিমাণ ঠিক হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখতে যা খাবেন

আজ মানসিক স্বাস্থ্য দিবস। প্রতিবছর অক্টোবরের দশ তারিখে এই দিবস পালন করা হয়। সব মানুষের মানসিক স্বাস্থ্য শিক্ষা ও সচেতনতার দিন হলো আজ। এর মূল লক্ষ্য হলো, মানুষকে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা সম্পর্কে সচেতন এবং শিক্ষিত করা। এবছরের বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস-এর থিম হল ‘Mental Health for All : Greater Investment – Greater Access’। বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস প্রথমবারের মতো পালিত হয় ১৯৯২ সালের ১০ অক্টোবর।

মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখতে অনেকটাই প্রভাব রাখে আমাদের খাবার। কিছু নির্দিষ্ট খাবার রয়েছে, যেগুলো মানসিক স্বাস্থ্য সম্পর্কিত সমস্যার চিকিৎসা করতে পারে। ক্লিনিকাল সহায়তা ছাড়াও, মানসিক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সমস্যায় যারা ভুগছেন তারা এই প্রাকৃতিক উপায় মেনেও মুক্তি পেতে পারেন। সেরকমই কিছু খাবারের কথা প্রকাশ করেছে বোল্ডস্কাই-

চিয়া সীড
স্বাস্থ্য সচেতনদের খাবারের তালিকায় থাকে এই চিয়া সিড। এটি আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকারী। এটি ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড সমৃদ্ধ, যা ডিপ্রেশন এবং ADHD থেকে স্বস্তি দিতে সহায়তা করে। তাই শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখতে চিয়া সিড খেতে পারেন।

ডিম
ডিম উপকারী খাবার এ বিষয়ে সবারই কম-বেশি জানা। ডিমে কিছু নির্দিষ্ট পুষ্টি থাকে, যা মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করে। এতে উপস্থিত ফলিক অ্যাসিড, বায়োটিন এবং কোলিন মস্তিষ্কের কোষ ও স্নায়ুর বিকাশের জন্য বেশি প্রয়োজনীয়। প্রতিদিন পাতে রাখুন ডিম।

দই
দই খেতে ভালোবাসেন? আপনার জন্য সুখবর। দই আপনার মানসিক স্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। দই আমাদের পাচনতন্ত্রকে স্বাস্থ্যকর রাখার জন্য পরিচিত। গবেষণায় পাওয়া গেছে যে, দই খেলে স্ট্রেস এবং উদ্বেগ কম হয়। এটি সরাসরি ব্যক্তির মুড-কে প্রভাবিত করে।

ব্রকলি
মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সবুজ এই সবজি রাখুন পাতে। এতে এমন কয়েকটি যৌগ রয়েছে, যা মস্তিষ্ক স্বাস্থ্যকর রাখতে পারে। এতে প্রচুর পটাসিয়াম রয়েছে, যা মস্তিষ্কের ক্রিয়াকলাপ বাড়ায় এবং মস্তিষ্ককে সতেজ রাখে।

বাদাম
প্রতিদিন বাদাম খাওয়ার অভ্যাস করুন। তবে একসঙ্গে অনেক বাদাম খেয়ে ফেলবেন না। পরিমিত খান। বাদামে উচ্চ পরিমাণে ম্যাঙ্গানিজ, সেলেনিয়াম এবং তামা রয়েছে। এগুলো মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নত করতে এবং মানসিক অসুস্থতা উপশম করতে সহায়তা করে।

ডার্ক চকোলেট
ডার্ক চাকোলেট নানাভাবে আমাদের শরীরের উপকারে লাগে। ডার্ক চকোলেটে কোকো থাকার কারণে, এটি ব্লাড সার্কুলেশন উন্নত করতে পরিচিত। এর ফলে স্মৃতি শক্তির বৃদ্ধি হয়। ফ্ল্যাভোনয়েডস মস্তিষ্ককে সতেজ রাখে এবং মস্তিষ্ককে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা করে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com