আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

পরিবেশ

‘বজ্রপাতের প্রভাব মোকাবিলায় ৩৮ লাখ তালগাছের চারা রোপণ’

‘বজ্রপাতের প্রভাব মোকাবিলায় ৩৮ লাখ তালগাছের চারা রোপণ’
‘বজ্রপাতের প্রভাব মোকাবিলায় ৩৮ লাখ তালগাছের চারা রোপণ’: তালগাছ বজ্রপাত প্রতিরোধক হিসেবে কাজ করে।

২০১১ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বজ্রপাতে দেশে কমপক্ষে ১,৭৬০ জন মানুষ নিহত হন। ২০১৬ সালে মাত্র ৪ দিনে বজ্রপাতে ৮১ জনের প্রাণহানি ঘটে। ২০১৮ সালে নিহত হন ৩৫৯ জন

বজ্রপাতের প্রভাব হ্রাসে দেশব্যাপী তালগাছের চারা রোপণ কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে এবং এ পর্যন্ত প্রায় ৩৮ লাখ চারা রোপণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান।

মঙ্গলবার (২৪ ডিসেম্বর) রাজধানীর স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে ব্র্যাক আয়োজিত “বাংলাদেশে বজ্রপাতের ঝুঁকি ও করণীয়” শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি বলেন, “এ কর্মসূচি অব্যাহত রয়েছে। দুর্যোগ-বিষয়ক স্থায়ী আদেশাবলিতেও (এসওডি) বজ্রপাতকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।”

প্রতিমন্ত্রী জানান, ঘূর্ণিঝড় ও বন্যা ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে দেশে পরীক্ষিত মডেল থাকলেও বজ্রপাত ব্যবস্থাপনায় এখনো তা নেই। এ সীমাবদ্ধতা থেকে উত্তরণের জন্য সরকার অবকাঠামোগত ও অ-অবকাঠামোগত দুই ধরনের সমাধানই চায়। দেশে সবচেয়ে বেশি জোর দেওয়া হচ্ছে গবেষণার ওপর। কেননা, বজ্রপাত নিয়ে সব স্তরে অনেক ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে।

তিনি বলেন, সরকারের ভবিষ্যত অগ্রাধিকার হচ্ছে বজ্রপাতের ঝুঁকি ও জীবনহানি বৃদ্ধির কারণ নির্ণয় করে তা হ্রাসে করণীয় সম্পর্কে ব্যাপক প্রচারণা চালানো, এ বিষয়ে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক পর্যায়ের পাঠ্য বইয়ে প্রবন্ধ অন্তর্ভুক্তকরণ, বজ্রপাতের আগাম বার্তা দিতে গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা এবং আগাম সতর্কবার্তা পাওয়ার ব্যবস্থা গ্রহণ ও জনগণকে অবহিতকরণ।

সেই সাথে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র তৈরি ও প্রদর্শন, সচেতনতামূলক গান তৈরি, বিল্ডিং কোডে বজ্রপাত বিষয়ে নির্দেশনা বাস্তবায়নের উদ্যোগ গ্রহণ এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে সামাজিক দায়বদ্ধতার আওতায় বজ্রপাত বিষয়ে সচেতনতা কার্যক্রম বাস্তবায়নে উদ্বুদ্ধ করা সরকারের অগ্রাধিকারে রয়েছে।

প্রতিমন্ত্রীর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১১ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বজ্রপাতে দেশে কমপক্ষে ১,৭৬০ জন মানুষ নিহত হন। ২০১৬ সালে মাত্র ৪ দিনে বজ্রপাতে ৮১ জনের প্রাণহানি ঘটে। ২০১৮ সালে নিহত হন ৩৫৯ জন। 

বাংলাদেশ সরকার ২০১৫ সালে বজ্রপাতকে দুর্যোগ হিসেবে চিহ্নিত করে বলে জানান তিনি।

পরিবেশ

নেচার পার্কে ছেড়ে দেয়া হলো সেই অজগরটি

খাবারের খোঁজে লোকালয়ে এসে আটকা পড়া বিপন্ন অজগরটি অবশেষে মুক্তি পেয়েছে। রোববার বিকেলে অজগরটি টেকনাফের মোচনী নেচার পার্কে অবমুক্ত করা হয়েছে।

কক্সবাজার বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. আলী কবীরের নির্দশনায় টেকনাফ রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. সাজ্জাদ হোসেন এটিকে অবমুক্ত বরেন। এর আগে শনিবার রাতে কক্সবাজারের উখিয়ার কুতুপালং-বালুখানি রোহিঙ্গা ক্যাম্প এলাকা থেকে প্রায় ১২ ফুট (৩ দশমিক ৬ মিটার) লম্বা অজগরটি ধরা পড়ে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বড় কুতুপালং-বালুখানি ক্যাম্পের এক রোহিঙ্গা লোকালয়ে আসা অজগরটি আটক করে। খবর পেয়ে অজগরটি উদ্ধারে সহায়তা করে এলিফ্যান্ট রেসপন্স টিম (ইআরটি)। এরপর ‘ইআরটি ইউএনএইচসিআর’র সহযোগী সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর দি কনজারভেশন অব নেচারকে (আইইউসিএন) খবর দিলে ইআরটির স্বেচ্ছাসেবকদের সহায়তায় অজগরটি নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে বন বিভাগের হাতে হস্তান্তর করা হয়।

টেকনাফ রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. সাজ্জাদ হোসেন জানান, ১০ মিটার পর্যন্ত বড় হতে সক্ষম এ প্রজাতির অজগরই বিশ্বের সবচেয়ে বড় আকৃতির সাপ যেটা পরিবেশগতভাবে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু নির্দয়ভাবে পাহাড়ের পর পাহাড় ধ্বংসের ফলে উখিয়া-টেকনাফের পাহাড়ি এলাকায় থাকা এসব বন্যপ্রাণী নিজের বাসস্থান হারাচ্ছে। খাবারের খোঁজে সাপটি হয়তো লোকালয়ে এসেছিল।

তিনি বলেন, সাপটির গায়ে একদম শক্তি নেই। মনে হয় খাবার পায়নি অনেক দিন। প্রায় ১২ ফুট দৈর্ঘ্যের সাপ হিসেবে এর ওজন ৩০ কেজি পার হওয়ার কথা থাকলেও এটির ওজন মাত্র ১৮-২০ কেজি। সাপটি বন বিভাগের আওতায় আসার পর বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. আলী কবীরের নির্দেশনা অনুযায়ী মোচনী নেচার পার্কে অবমুক্ত করা হয়।

তিনি আরও জানান, রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয় দিতে গিয়ে অমানবিক ভাবে অনেক গভীর বনও উজাড় হয়ে গেছে। ফলে আবাসস্থল হারিয়ে হাতিরপাল প্রায় সময় লোকালয়ে হানা দেয়। এখন বৃষ্টি শুরু হওয়ায় হাতির পালের দৌরাত্ম আবার বাড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

ব্লু ওয়াইল্ড বিস্টের ঘরে নতুন ৩ অতিথি

গাজীপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্কে প্রথমবারের মতো তিনটি ব্লু ওয়াইল্ড বিস্ট শাবকের জন্ম হয়েছে। এ নিয়ে পার্কে এই পরিবারের অতিথির সংখ্যা দাঁড়ালো ১৩টিতে। ইতিপূর্বে ৪টি পুরুষ ও ৬টি মাদি ব্লু ওয়াইল্ড বিস্ট ছিল পার্কে।

পার্কের ওয়াইল্ড লাইফ সুপারভাইজার মো. সরোয়ার হোসেন খান জানান, গতকাল রোববার জন্মের পর থেকে মা ও বাচ্চারা সুস্থ রয়েছে।

তিনি বলেন, ২০১৩ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে পার্কে পূর্ণবয়স্ক ১১টি ব্লু ওয়াইল্ড বিস্ট আনা হয়। তাদের মধ্যে একটি বিস্ট রোগে ভুগে মারা যায়। এ প্রাণিগুলো আফ্রিকা মহাদেশের দক্ষিণ-পূর্ব দেশগুলোতে প্রাকৃতিক পরিবেশে বিচরণ করতে দেখা যায়। এরা তৃণভূমিতে একসঙ্গে পালে চলাফেরা করে।

প্রতি বছর সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে (বর্ষা মৌসুমের শেষদিকে) তারা প্রজনন করে এবং সাড়ে ৮ মাস পর তারা বাচ্চা প্রসব করে। প্রতিটি বাচ্চার ওজন হয় সাধারণত ১৯ কেজির মতো।

প্রথমে বাচ্চাদের গায়ের রঙ ধূসর (টনি ব্রাউন) এবং পূর্ণবয়স্ক হলে তার বর্ণ হয় নীলাভ ধূসর। প্রতিবার এরা সাধারণত একটি করে বাচ্চা প্রসব করে থাকে। আট মাস থেকে এক বছর পর্যন্ত এরা মায়ের সঙ্গে থাকে ও দুধ পান করে। এক সপ্তাহ পর থেকে মায়ের দুধের পাশাপাশি ঘাস খেতে চেষ্টা করে। পরে তারা স্বাধীনভাবে বিচরণ করে থাকে। এরা ছোট ঘাস খেতে বেশি পছন্দ করে। পুরুষ বাচ্চারা দুই বছর এবং মাদি বাচ্চারা ১৬ মাসে প্রজননক্ষম হয়। প্রকৃতিক পরিবেশে ব্লু বিস্ট ২০ বছর এবং আবদ্ধ পরিবেশে ২৪ বছর পর্যন্ত বাঁচতে পারে।

তিনি আরও বলেন, প্রসবের কয়েক মিনিট পর বাচ্চা ওঠে দাঁড়ায় এবং দৌড়াতে শুরু করে। বাচ্চারা এখন আফ্রিকান সাফারিতে মায়েদের সঙ্গে সঙ্গে খেলা করে বেড়াচ্ছে, দৌড়াচ্ছে। বাচ্চা তিনটি মাদি না পুরুষ এখনও নির্ধারণ করা হয়নি। মানুষ দেখলে তারা নিরাপদ দূরত্বে সরে যাচ্ছে। নিরাপত্তার স্বার্থে কাউকে তাদের কাছে যেতেও দেয়া হচ্ছে না।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

৮০টি প্লাস্টিক ব্যাগ খেয়ে মারা গেল তিমি

৮০ টি প্লাস্টিক ব্যাগ খেয়ে অসুস্থ এক পাইলট তিমিকে উদ্ধার করা গেলেও বাঁচানো যায়নি। থাইল্যান্ডের উদ্ধারকর্মীরা দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের একটি কৃত্রিম জলাশয় থেকে ওই তিমিকে জীবিত উদ্ধার করে। এ সময় তিমিটি ৫টি ব্যাগ বমি করে উগড়ে দেয়। তবে চিকিৎসা দেয়ার আগেই মারা যায় তিমিটি।

দেশটির সামুদ্রিক ও উপকূলীয় সম্পদ বিষয়ক বিভাগের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ দৈনিক দ্য গার্ডিয়ান বলছে, গত সোমবার পুরুষ প্রজাতির এই বৃহদাকার স্তন্যপায়ী প্রাণীটি মালয়েশিয়া সীমান্তের একটি কৃত্রিম জলাশয় থেকে জীবিত উদ্ধার করা হয়। পশু চিকিৎসকদের একটি দল তিমিটিকে সুস্থ করে তোলার চেষ্টা করে। শুক্রবার বিকেলে তিমিটি মারা যায়।

সামুদ্রিক ও উপকূলীয় সম্পদ বিভাগ বলছে, ময়নাতদন্তে তিমিটির পাকস্থলীতে ৮০টি প্লাস্টিক ব্যাগ পাওয়া যায়; যার আনুমানিক ওজন প্রায় ৮ কেজি। তিমিটিকে চিহ্নিত করার পর একটি বয়ার (এক শ্রেণির ভাসমান নৌকা) সাহায্যে পানিতে ভাসিয়ে রাখা হয় এবং সূর্যের তাপ থেকে তিমিটিকে রক্ষা করতে একটি ছাতার সাহায্যে ছায়ার ব্যবস্থা করা হয়।

উদ্ধারের সময় তিমিটি বমি করে ৫টি ব্যাগ বের করে দেয়। সামুদ্রিক জীববিজ্ঞানী ও ক্যাসেটসার্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক থন থামরংনয়াসায়াত বলেন, প্লাস্টিক ব্যাগ খাওয়ার কারণে তিমিটি আর কোনো পুষ্টিকর খাবার খেতে পারেনি।

এ সময় তিনি বলেন, ‘যদি আপনার পাকস্থলীতে ৮০টি প্লাস্টিক ব্যাগ থাকে, তাহলে আপনিও মারা যাবেন।’

থাইল্যান্ড বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্লাস্টিক ব্যবহারকারী দেশ। থন বলেন, থাইল্যান্ডের জলাশয়ে প্লাস্টিক খাওয়ার কারণে প্রতি বছর পাইলট তিমি, সামুদ্রিক কচ্ছপ, ডলফিনসহ অন্তত ৩০০ সামুদ্রিক প্রাণী মারা যায়। এটা একটা বিরাট সমস্যা। আমরা কত প্লাস্টিক ব্যবহার করি!- বলেন তিনি।

প্লাস্টিক খেয়ে পাইলট তিমি মারা যাওয়ার ঘটনায় সহানুভূতি ও ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ইন্টারনট ব্যবহারকারীরা। একজন টুইটে লিখেছেন, প্রাণীটির জন্য আমি দুঃখ প্রকাশ করছি, যে প্রাণীটি কোনো ভুল করেনি। তারপরও তাকে মানুষের কর্মের ফল ভোগ করতে হল।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

ধ্বংস হচ্ছে লাউয়াছড়া বন ও বন্যপ্রাণী

নানা জাতের উদ্ভিদ আর জীববৈচিত্রে ভরপুর ১২শ ৫০ হেক্টর সংরক্ষিত বন নিয়ে ১৯৯৬ সালে মৌলভীবাজারের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান ঘোষণা করা হয়। দেশের ১৬টি উদ্যানের মধ্যে অন্যতম এই লাউয়াছড়া উদ্যান। কিন্তু এ বন থেকে পাচার হচ্ছে কোটি কোটি টাকার মূল্যবান গাছ। উজাড় হচ্ছে বন। আর এতে হুমকির মুখে পড়ছে বন্যপ্রাণী। লোকবল আর প্রয়োজনীয় সরঞ্জামের অভাবে অসহায় কর্তৃপক্ষও।

খাসিয়া সম্প্রদায়সহ স্থানীয়দের মতে, ১৯৯৬ সালে জাতীয় উদ্যান ঘোষণার পর থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত বনের প্রায় ৩০ শতাংশ গাছ পাচার হয়েছে। ফলে কমেছে বনের ঘনত্ব। গত সপ্তাহেও গভীর রাতে লাউয়াছড়া বন থেকে মূল্যবান আগর গাছ কেটে নিয়ে যাওয়ার মুহূর্তে পাহাড়ে বসবাসরত খাসিয়া সম্প্রদায়ের লোকজনের ধাওয়ায় টুকরো করে রাখা মূল্যবান গাছগুলো ফেলে পালিয়ে যায় চোরচক্র। পরে খাসিয়া সম্প্রদায়ের লোকজনের সহায়তায় মূল্যবান এসব গাছ উদ্ধার করে বন বিভাগ।

সরেজমিনে দেখা যায়, লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের শুধু গাড়িভাঙ্গা এলাকা থেকে তিনটি বৃহদাকার সেগুন গাছ কেটে পাচার করেছে দুর্বৃত্তরা। কেবল সাক্ষী হয়ে আছে গাছের গুড়িগুলো। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে গাছ পাচারের ফলে লাউয়াছড়া উদ্যান অনেকটাই ফাঁকা হয়ে গেছে। ফলে বিরল প্রজাতির বন্যপ্রাণীসহ উদ্যানে বসবাসরত প্রাণীর বাসস্থান সঙ্কট প্রকট হচ্ছে। খাবার ও আবাসস্থল সঙ্কটে হুমকির মুখে পড়েছে বন্যপ্রাণী।

বিভাগীয় বন কার্যলায় সূত্রে জানা যায়, এই বনে ১৬৭ প্রজাতির উদ্ভিদ শনাক্ত করা হয়েছে। সমৃদ্ধ প্রাণী বৈচিত্র্যেরও আঁধার এই বন। বিভিন্ন বিরল ও বিপন্ন প্রজাতির প্রাণীর আবাসস্থল হিসেবে এই বন আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিশেষভাবে পরিচিতি লাভ করেছে।

কিন্তু প্রতিনিয়তই দ্রুতগামী গাড়ির ধাক্কায় কিংবা চাকায় পিষ্ট হয়ে কোনো না কোনো বন্যপ্রাণীর মৃত্যু হচ্ছে। ফলে লাউয়াছড়ার অভ্যন্তরে অবস্থিত সড়ক ও রেলপথসমূহ বন্যপ্রাণীকূলের জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এছাড়াও ছুটির সময় মাত্রাতিরিক্ত পর্যটক বন্যপ্রাণীদের বিড়ম্বনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। যানবাহনের হুড়োহুড়ি, শুষ্ক মৌসুমে পানি, খাবার ও নিরাপদ বাসস্থান সঙ্কট এসব মিলিয়ে উদ্যানের জীব-বৈচিত্র্য ও প্রকৃতি সুরক্ষা নিয়ে উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। খাদ্য সঙ্কঠের কারণে প্রায়ই বন্যপ্রাণী লোকালয়ে চলে আসছে। ধরা পড়ছে মানুষের হাতে।

এদিকে উদ্যানের গাঁ ঘেষে বনজঙ্গল ও মাটি কেটে স্থাপিত হচ্ছে বিভিন্ন কটেজ। ফলে বনের ভেতরে দল বেধে মানুষের অবাধ বিচরণ বন্যপ্রাণীর জন্য খাবার সংগ্রহ ও চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে। এসব বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের ফলে বন্যপ্রাণীর খাবার ও আবাসস্থল বিনষ্ট হচ্ছে। যে কারণে খাবারের সন্ধানে জঙ্গলের দুর্লভ প্রাণীগুলো জনপদে ছুটে এসে অধিকাংশ ক্ষেত্রে মানুষের হাতে ধরা পড়ে অথবা গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে মারা যাচ্ছে।

বাইরে থেকে এই ঘন বনের সৌন্দর্য্য মন কাড়ে দর্শনাথীদের। কিন্তু বনের ভেতরে গেলে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। দাঁড়ানো মূল্যবান গাছের ফাঁকে ফাঁকে পড়ে আছে গুড়ি। প্রতিদিন দিন-দুপুরে জ্বালানি হিসেবে গাছ কেটে কাঠ নিয়ে যাচ্ছেন অনেকে। রাতের আধাঁরে গাছ উধাও হচ্ছে বন থেকে। ধ্বংস হচ্ছে প্রাকৃতিক এই ঘন বন।

গাছ চুরি বন্ধে পরিবেশবাদী সংগঠনসহ সচেতন মহল সোচ্চার থাকলেও টনক নড়ছে না কর্তৃপক্ষের। আর লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের সহব্যবস্থাপনা কমিটির দায়িত্বে যারা আছে তারাও উদাসীন এই বনের প্রতি। ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ বলছে, গহীন এই বন রক্ষায় স্থানীয় মানুষের সচেতনতা বৃদ্ধিসহ বনের উপর নির্ভরশীলদের কর্মসংস্থান প্রয়োজন। তবে মানুষ আগের চেয়ে অনেক সচেতন হয়েছে। জনবল সংকটের কারণে বন বিভাগ ঠিকমতো কাজ করতে পারছে না।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের বন কর্মকর্তা আবু মুছা শামসুল মোহিত চৌধুরী বলেন, লোকবল কম থাকায় অনেক সময় আমরা সামাল দিতে পারি না। তবে এখন থেকে নির্দিষ্ট স্থানের বাইরে পর্যটকদের যেতে দেয়া হবে না। ভবিষ্যতে নিয়ন্ত্রিত ট্যুরিজমের ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান তিনি। এর জন্য সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা প্রয়োজন বলেও মনে করেন তিনি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

তিস্তায় জেলেদের জালে ৫ মণ ওজনের ডলফিন

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী এলাকায় তিস্তা নদীতে বিশাল আকারের একটি ডলফিন জেলেদের জালে ধরা পড়েছে। ডলফিনটি দেখতে ভোটমারী ইউনিয়ন পরিষদে ভিড় করেছে শত শত মানুষ।

সোমবার বিকেলে তিস্তা নদীতে বিশাল আকারের ডলফিনটি ভাসতে দেখে ৫-৬ জন জেলে জাল পেতে ধরে ফেলেন। ধরা পড়া ডলফিনের ওজন ২০০ কেজি (৫ মণ)। এর দৈর্ঘ্য প্রায় সাড়ে ৮ ফুট।

স্থানীয়রা জানান, তিস্তা নদীর পাড়ে ভুট্টাখেতে যান কালীগঞ্জ উপজেলার ভোটমারী গ্রামের আব্দুল হামিদের ছেলে রাশেদুল ইসলাম। নদীতে পানি কম থাকায় ডলফিনটি ভাসছিল।

এ সময় রাশেদুল ইসলাম ৫-৬ জন জেলে নিয়ে জাল পেতে ডলফিনটি ধরে ফেলেন। পরে ডলফিনটি ভ্যানে করে বাজারে নিয়ে এলে উৎসুক জনতা ভিড় জমান।

শোইলমারী গ্রামের স্থানীয় জেলে রসিদুল ইসলাম বলেন, নদীতে বড় মাছ মনে করে কয়েকজন মিলে জাল পেতে সেটিকে ধরি। পরে দেখি, এটি বিশাল আকারের ডলফিন।

ভোটমারী ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মোবারক হোসেন বলেন, ডলফিনটি ইউনিয়ন পরিষদে রয়েছে। ইউনিয়ন চেয়ারম্যান না আসা পর্যন্ত এখানে থাকবে ডলফিনটি।

কালীগঞ্জ উপজেলা ভারপ্রাপ্ত মৎস্য কর্মকর্তা মোরছালিন বলেন, ডলফিন এক ধরনের জলজপ্রাণি। এরা পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে। তাই ডলফিন ধরা বা মারা সরকারিভাবে নিষেধ রয়েছে। কয়েকজন জেলে ডলফিনটি ধরেছে। আমরা খোঁজ-খবর নিয়ে প্রাণিটি উদ্ধারের চেষ্টা করছি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com