আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

এগ্রোবিজ

এক পাউন্ড মধু উৎপাদনে ২০ লাখ ফুলে যায় মৌমাছিরা

এক পাউন্ড মধু উৎপাদনে ২০ লাখ ফুলে যায় মৌমাছিরা
এক পাউন্ড মধু উৎপাদনে ২০ লাখ ফুলে যায় মৌমাছিরা

এক পাউন্ড মধু উৎপাদনে মৌমাছির প্রায় ২০ লাখ ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করতে হয়। এ জন্য মৌমাছিকে প্রায় ৮০ হাজার কিলোমিটার পথ অতিক্রম করতে হয়। আর একটি মৌমাছি তার জীবনে এক চা চামচ পরিমাণ মধু সংগ্রহ করে। কানাডিয়ান হানি কাউন্সিল থেকে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. মো. আবদুল মুঈদ জানান, প্রতিদিন আমরা যে খাবার খাই তার তিন ভাগের এক ভাগ আসে মৌমাছির পরাগায়ন থেকে। পরিসংখ্যানের দিক থেকে কীটপতঙ্গের মাধ্যমে যেসব উদ্ভিদের পরাগায়ন হয় তাতে শুধু মৌমাছির অবদানে ৮০ ভাগ।

তিনি বলেন, বর্তমানে মানুষ খাবার হিসেবে যে ফলমূল-শাকসবজি ওপর বেশি নির্ভরশীল সেগুলোর ৭০ ভাগই উৎপন্ন হয় মৌমাছির পরাগায়নের মাধ্যমে। পৃথিবীতে প্রতি বছর মৌমাছির পরাগায়নের মাধ্যমে যে পরিমাণ খাদ্যের উৎপাদিত হয় সেগুলোর আর্থিক মূল্য আনুমানিক ২২ হাজার কোটি ডলার। এ অর্থনীতির সঙ্গে প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষভাবে জড়িয়ে আছে বিশ্বব্যাপী ১৪০ কোটি মানুষের জীবিকা।

বর্তমান জনসংখ্যার জন্য খাবারের জোগান দিতে প্রয়োজন বাড়তি উৎপাদন। আর মৌমাছির সহায়তা ছাড়া এ উৎপাদন এক প্রকার অসম্ভব। তাই মৌমাছির জীবন হুমকির মুখে পড়লে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ও হুমকির মুখে পড়বে। একটি মৌচাকে যত মৌমাছি বাস করে তার চারপাশে চার বর্গ কিলোমিটারের মধ্যে যত ফুল ফোটে মৌমাছি একদিনে সেগুলোতে ঘুরে মধু সংগ্রহ ও পরাগায়ন করতে সাহায্য করে।

শেরে বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কীটতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. সাখাওয়াত হোসেনের মতে, গবেষণা থেকে প্রাপ্ত মৌমাছিরা ফুলের পরাগায়ন ঘটিয়ে কৃষিজ ফসলের উৎপাদন ২৫ থেকে ৩০ ভাগ বাড়িয়ে দেয়।

মৌমাছিকে তাদের প্রাকৃতিক পরিবেশ থেকে এনে মৌচাকের উপযোগী পরিবেশ সৃষ্টি করে আধুনিক এবং বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে পালন করায় মূলত মৌমাছি পালন। একটি মৌচাকে গড়ে প্রায় ২০ হাজার মৌমাছি থাকে। একটি মৌচাকে সাধারণত তিন শ্রেণির মৌমাছি থাকে। রানী মৌমাছি, যা প্রজননে অংশ নেয়। এছাড়া ড্রোন বা পুরুষ এবং কর্মী মোৗমাছি থাকে।

২০১৯ সালে জাপানে রফতানি হয়েছে ৬৪ দশমিক ৫ ভাগ মধু। আর বিশ্বের মোট রফতানিকৃত মধু থেকে আয় ১ কোটি ৫৩ লাখ ৪২ হাজার মার্কিন ডলার এবং আমদানিতে মোট ব্যয় ১১৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার।

দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বাজারে শিল্পায়নে ও কারুশিল্পে মমের চাহিদা বহুগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। এক প্যাকেট (৬০০ গ্রাম) পরাগরেণুর খুচরা বাজারে মূল্য তিন থেকে চার হাজার টাকা। তবে রাজকীয় জেলি ও মৌবিষের বাজার আমাদের দেশে এখনও তৈরি হয়ে উঠেনি। বিশ্ববাজারে এর গুরুত্ব অনেক বেশি। বাংলাদেশের মাঠ ফসল, শস্য চক্র ও সময় বিবেচনা করে ৪০ থেকে ৫০ হাজার মেট্রিক টন মধু উৎপাদন সম্ভব।

এগ্রোবিজ

মানুষের চুলের রপ্তানি বেড়েছে

লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ৭৯% বেশি পণ্য রপ্তানি হয়েছে এই পণ্যটি

গত বছরের তুলনায় এ বছর বাংলাদেশে পরচুলা ও মানব চুলের রপ্তানি বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। ২০২১-২২ অর্থবছরের সেপ্টেম্বরে পরচুলা ও মানব চুল রপ্তানি করে প্রায় ৬৭.২৯ কোটি টাকা আয় করেছে বাংলাদেশ।

রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) প্রকাশিত এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, বাংলাদেশ থেকে এ বছরের সেপ্টেম্বরে প্রায় ৬৭.২৯ কোটি টাকা (৭৮.৭ লাখ মার্কিন ডলার) পরচুলা সংক্রান্ত সামগ্রী রপ্তানি হয়েছে, যা গত বছরের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ বেশি। গত বছর সেপ্টেম্বরে এই খাতে রপ্তানির পরিমাণ ছিল ২৩.১৭ কোটি টাকা। গত মাসে পরচুলা ও মানব চুল রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩৭.৬২ কোটি টাকা। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় ৭৯% বেশি মূল্যের পণ্য রপ্তানি হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০২১-২২ অর্থবছরের জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পরচুলা ও মানব চুল রপ্তানি হয়েছে ১৬৩ কোটি টাকা। গত অর্থবছরের এই সময়কালে রপ্তানির পরিমাণ ছিল ৭৯.১৮ কোটি টাকা।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

পেঁয়াজ-চিনি আমদানিতে শুল্ক কমল

বাজারে পেঁয়াজ ও চিনির দাম নিয়ন্ত্রণে শুল্ক কমিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। পেঁয়াজ আমদানির ক্ষেত্রে শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। চিনির নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক (আরডি) ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২০ শতাংশ করা হয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের চিঠির পর এ শুল্ক কমান হলো। 

বৃহস্পতিবার এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের স্বাক্ষর করা এ সংক্রান্ত দুটি পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।


বাজারে পেঁয়াজ ও চিনির দাম নিয়ন্ত্রণে শুল্ক কমিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। পেঁয়াজ আমদানির ক্ষেত্রে শুল্ক ১০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। চিনির নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক (আরডি) ৩০ শতাংশ থেকে কমিয়ে ২০ শতাংশ করা হয়েছে। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের চিঠির পর এ শুল্ক কমানো হলো। 

বৃহস্পতিবার এনবিআর চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের স্বাক্ষর করা এ সংক্রান্ত দুটি পৃথক প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

চিনির নতুন শুল্কহার কার্যকর থাকবে আগামী বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত। পেঁয়াজের নতুন শুল্কহার কার্যকর থাকবে আগামী ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

এর আগে গত ১১ অক্টোবর পেঁয়াজের শুল্ক প্রত্যাহার, অপরিশোধিত সয়াবিন তেল, পাম তেল ও চিনির শুল্ক কমাতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে অনুরোধ জানায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

‘করোনাভাইরাস সংকট সত্ত্বেও বাংলাদেশের অর্থনীতি বিস্ময়কর গতিতে ঘুরে দাঁড়াচ্ছে’

এই গতি এখন আরও বাড়ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক ড. আতিউর রহমান

ভয়াবহ করোনাভাইরাস পরিস্থিতি জয় করেই বাংলাদেশের অর্থনীতি দ্রুত গতিতে তার ছন্দে ফিরে আসছে। বিশ্ব মোড়লরা সহজে টিকা প্রাপ্তি নিশ্চিত করতে না পারায় অর্থনেতিক পুনরুদ্ধারের এই প্রক্রিয়া আরও গতি অর্জন করে উঠতে পারেনি। তা সত্ত্বেও বাংলাদেশের মাথা পিছু আয়ের প্রবৃদ্ধি গতো দু’বছরে এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ছিল। এই গতি এখন আরও বাড়ছে বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু চেয়ার অধ্যাপক ড. আতিউর রহমান।

গতিময় আধুনিক কৃষি, প্রবাসী আয় এবং রপ্তানির ওপর ভর করেই বাংলাদেশের অর্থনীতি এই শক্তিমত্তা দেখাচ্ছে বলে মনে করেন এই অর্থনীতিবিদ।

শনিবার (৯ অক্টোবর) বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড টেকনোলজি (আইইউবিএটি) আয়োজিত “কোভিড পরবর্তী কৃষির ভূমিকা” বিষয়ক একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলন উদ্বোধন করার সময় প্রধান অতিথি হিসেবে এসব কথা বলেন তিনি।

 তিনি আরও বলেন, “গত পাঁচ বছর ধরেই মাথাপিছু আয় বৃদ্ধির বিচারে এশিয়ার সবচেয়ে গতিময় দেশটির নাম বাংলাদেশ।করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় বেড়েছে ৭.৮%। চীনে এই বৃদ্ধির হার ৬.৯%, ভারতে ৩.১% এবং ভিয়েতনামে ৪%।”

কৃষির অসামান্য সমর্থন ছাড়াও রপ্তানি ও প্রবাসী আয় ধারাবাহিকভাবে বাড়ার কারণে প্রচুর টাকা গ্রামে যাচ্ছে। তাই গ্রামের অর্থনীতিতে ভোগ বেড়ে চলেছে। গ্রামে কৃষি মজুরিও বাড়ন্ত। আর সেখানে মোট আয়ের ৬০%আসছে কৃষি সংশ্লিষ্ট অকৃষি খাত থেকে। গ্রামের অর্থনীতি আধুনিক ও বহুমুখি হবার পেছনে এই অকৃষি আয়ের ভূমিকা অসামান্য বলেও জানান তিনি ।

বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় বাড়ার পেছনে সবচেয়ে বড় ভূমিকা রাখছে গ্রামের মানুষের এই বাড়ন্ত ভোগ প্রবণতা। তবে করোনাভাইরাস না এলে  গ্রামে বিনিয়োগ আরও বাড়ত। 

আর্থিক খাতের ডিজিটাল রূপান্তর, বিশেষ করে মোবাইল ভিত্তিক আর্থিক সেবা, বাংলাদেশের সার্বিক অর্থনীতির এই গতিময়তাকে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি সমর্থন জুগিয়েছে।

বিশ্ব ব্যাংকের বরাত দিয়ে তিনি জানান, এ অর্থবছরে আমাদের প্রবৃদ্ধি হবে ৬.৪%। কয়েক মাস আগেও এর চেয়ে ঢের কম বলেছিল। এডিবি বলেছে, আমাদের প্রবৃদ্ধি হবে ৬.৮%। স্টান্ডার্ড চাটার্ড ব্যাংক কয়েকদিন আগে বলেছে এই হার হবে ৭.২%।

অধ্যাপক ড. আতিউর রহমান বলেন, “আমি মনে করি প্রবৃদ্ধির হার সাত শতাংশের বেশিই হবে।এই প্রবৃদ্ধি যেন অন্তর্ভুক্তিমূলক হয় সেজন্য কৃষি, এমএসএমই এবং সবুজ উদ্যোক্তাদের জন্য সহায়ক হয় সেদিকে খেয়াল রাখা বেশ জরুরি।”

চলতি অর্থ বছরে প্রবৃদ্ধি সাত শতাংশের বেশি হবে আশাবাদ জানিয়ে ড. রহমান বলেন, “ব্যক্তিখাতে বিনিয়োগ যাতে আরও বাড়ে সেদিকে সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংককে বাড়তি মনোযোগ দিতে হবে। এক কোটি তিরিশ লক্ষ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজের যে সমর্থন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দিয়েছিলেন তার ইতিবাচক প্রভাব আমাদের অর্থনীতিতে পড়েছে।”

তবে সামাজিক পাটাতনের নীচের দিকের মানুষগুলোর কাছে সরকার সামাজিক সুরক্ষা দিলেও এদিকে আরও সমর্থনের প্রয়োজন রয়েছে। নতুন করে প্রণোদনার রোডম্যাপ গ্রহণ করার প্রয়োজন রয়েছে বলে তিনি মনে করেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

রাজশাহীর স্থানীয় বাজারে সবজির সমারোহ

রাজশাহীর পবা মোহনপুর উপজেলার এলাকাগুলোতে সব ধরনের সবজির ফলন ভালো হয়েছে। আজ উপজেলার বিধিরপুর হাট বারে উঠেছে বিভিন্ন ধরনের সবজি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

হিলি স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে সকল প্রকার আমদানি-রপ্তানি বন্ধ রয়েছে। 

বুধবার (২০ অক্টোবর) সকালে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানি গ্রুপের সভাপতি হারুন-উর রশিদ। 

হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানি গ্রুপের সভাপতি হারুন-উর রশিদ জানান, সরকারি নির্দেশনায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে আজ হিলি স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) বন্দরের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম যথারীতি চালু হবে। 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com