আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন
সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

নেদারল্যান্ডস

রোহিঙ্গা গণহত্যার বিচার: দ্য হেগ থেকে আদালত বাংলাদেশে স্থানান্তরের অনুরোধ

আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রধান কৌশুলি ফাতো বেনসোদা (ডান থেকে প্রথম)
আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রধান কৌশুলি ফাতো বেনসোদা (ডান থেকে প্রথম)

রোহিঙ্গাদের হত্যা ও নির্যাতনের অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যে শুনানি হবে, সেটি যেন নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগের পরিবর্তে অন্য কোন দেশে, বিশেষ করে বাংলাদেশে আদালত বসিয়ে করা হয়, সেরকম একটি আবেদন পেশ করা হয়েছে।

আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত বা আইসিসির সব কার্যক্রম সাধারণত চলে নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগ শহরে। কিন্তু এই প্রথম এরকম কোন উদ্যোগ নেয়া হলো, যেখানে ভিক্টিম বা নির্যাতিতদের শুনানির জন্য আদালতকেই অন্য কোন দেশে বসানোর আবেদন জানানো হয়েছে।

আইসিসিতে এরকম একটি আবেদনের কথা জানা গেল এমন এক সময়, যখন মিয়ানমারের দুজন সৈন্য, যারা রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে হত্যা এবং ধর্ষণের ঘটনায় সরাসরি অংশ নেয়ার কথা স্বীকার করেছেন এবং দ্য হেগে গিয়ে পৌঁছেছেন বলে খবর বেরিয়েছে।

মিয়ানমারকে মানবতা বিরোধী অপরাধের অভিযোগে কাঠগড়ায় দাঁড় করানোর জন্য যে তদন্ত প্রক্রিয়াধীন, সেখানে এই দুটি ঘটনাকে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করছেন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবীরা।

সম্ভাব্য দেশ বাংলাদেশ

নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত
নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত

দ্য হেগের যে বিচার আদালতে রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের হত্যা-নিপীড়নের অভিযোগের শুনানি হওয়ার কথা, সেই আদালত যেন অন্য কোন দেশে বসিয়ে শুনানি করা হয়, সেরকম একটি আবেদন পেশ করা হয় গত মাসে।

আবেদনটি করেন রোহিঙ্গাদের পক্ষে কাজ করছে এমন তিনটি ‘ভিকটিম সাপোর্ট গ্রুপ‌ে’র আইনজীবীরা। তারা এমন একটি দেশে এই শুনানির অনুরোধ জানিয়েছেন, যেটি নির্যাতনের শিকার রোহিঙ্গাদের কাছাকাছি কোন দেশে হবে।

আবেদনে দেশের কথা উল্লেখ না থাকলেও, আইসিসি এই আবেদনের অগ্রগতির যে বিবরণী প্রকাশ করেছে, তাতে এই দেশটি ‘সম্ভবত বাংলাদেশ‌‌‌’ বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

এই অনুরোধের পরিপ্রেক্ষিতে আইসিসির তিন নম্বর ‘প্রি ট্রায়াল চেম্বার‌’ আদালতের রেজিস্ট্রি বিভাগকে আদেশ দিয়েছে, দ্য হেগ থেকে অন্য কোন দেশ, যেমন বাংলাদেশে আদালতের কার্যক্রম সরিয়ে নেয়ার সম্ভাব্যতা যাচাই করতে। আগামী ২১শে সেপ্টেম্বরের আগেই এই সম্ভাব্যতা যাচাই করে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

কেন আদালত অন্য দেশে বসানোর উদ্যোগ

আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবি আহমেদ জিয়াউদ্দীন বিবিসি বাংলাকে বলেন, অন্য দেশে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের শুনানির জন্য আদালত বসানোর উদ্যোগ খুবই বিরল এক ঘটনা। যেহেতু নির্যাতনের শিকার হাজার হাজার রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশেই আছেন, তাই এটি বাংলাদেশে হলে শুনানিতে তাদের সাক্ষ্য-প্রমাণ দেয়া সহজ হবে।

আবেদনকারি আইনজীবীরাও এরকম যুক্তিই দিয়েছেন।

সুপরিকল্পিতভাবে গণহত্যা চালানোর অভিযোগ আনা হচ্ছে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে
সুপরিকল্পিতভাবে গণহত্যা চালানোর অভিযোগ আনা হচ্ছে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে

শ্যানন রাজ সিং নামে একজন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবি এ নিয়ে একটি ব্লগে লিখেছেন, “পাখির মত উড়ে গেলে, বৃষ্টিস্নাত দ্য হেগ থেকে কক্সবাজারের দূরত্ব আনুমানিক ৮,০০০ কিলোমিটার। সেখানকার শরণার্থী শিবিরে নির্যাতনের শিকার যে রোহিঙ্গারা থাকেন, তাদের জন্য এই দূরত্ব একেবারেই অনতিক্রম্য‍।”

এই ব্লগে তিনি আরও বলেছেন যে, আইসিসির রুল অনুযায়ী, স্বাগতিক দেশের (নেদারল্যান্ডস) বাইরে অন্য কোন দেশেও এই আদালতের কার্যক্রম চালানোর সুযোগ আছে। রোম স্ট্যাটিউটের একটি ধারা উল্লেখ করে তিনি জানান, আন্তর্জাতিক আদালত প্রয়োজন অনুযায়ী কোন মামলার পুরো বা আংশিক শুনানির জন্য অন্য কোন স্থানেও বসতে পারে।

মিয়ানমারের জন্য বড় ধাক্কা

এ সপ্তাহে প্রকাশ পাওয়া এই দু্টি ঘটনা রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সংঘটিত অপরাধের বিচারের দাবিতে যারা সোচ্চার, তাদের ভীষণভাবে উৎসাহিত করেছে। তাদের মতে, এর ফলে মিয়ানমার এখন রোহিঙ্গা গণহত্যার প্রশ্নে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) বড় ধরণের চাপের মুখে পড়তে পারে।

দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস এবং কানাডিয়ান ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশন দেশত্যাগ করা মিয়ানমারের দুই সৈনিকের অপরাধের স্বীকারোক্তির যে বিশদ বর্ণনা প্রকাশ করেছে, সেটিকে অবশ্য মানবাধিকার আইনজীবীরা খুব বেশি গুরুত্ব দিচ্ছেন না।

ব্রাসেলসে কর্মরত আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনজীবী আহমেদ জিয়াউদ্দীন বিবিসি বাংলাকে বলেন, নিউ ইয়র্ক টাইমস বা অন্যান্য মিডিয়ার রিপোর্টে এই দুই সৈনিকের যে ভিডিও টেস্টিমোনি বা স্বীকারোক্তিমূলক ভাষ্যের কথা বলা হচ্ছে, সেটার হয়তো সাধারণ মানুষের দৃষ্টিকোন থেকে গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এতদিন যে অভিযোগগুলো মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর বিরুদ্ধে করা হচ্ছিল, তাদেরই দুজন সদস্য সেই অপরাধের কথা স্বীকার করছেন।

নিশ্চুপ থেকে রোহিঙ্গা গণহত্যায় সায় দেয়ার অভিযোগ উঠেছে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচির বিরুদ্ধে
নিশ্চুপ থেকে রোহিঙ্গা গণহত্যায় সায় দেয়ার অভিযোগ উঠেছে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচির বিরুদ্ধে

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত এখনো পর্যন্ত এই দু্ই সৈনিকের ব্যাপারে কোন আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয়নি। প্রসিকিউটরের অফিস থেকেও কিন্তু বলা হয়নি এরকম দুজন সৈনিক তাদের তত্ত্বাবধানে আছে। যদি এই খবর সত্যি হয়ে থাকে, তাহলে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের তদন্তে হয়তো এই দুই সৈনিকের ঘটনা একটা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। এর ফলে মিয়ানমারের বিপদে পড়ার সম্ভাবনা আছে। এটা একদিক থেকে খুবই ভালো খবর।

কিন্তু নিউ ইয়র্ক টাইমসের রিপোর্টে যে ভিডিও সাক্ষ্যের কথা বলা হচ্ছে, সেটার কি কোন মূল্য আছে?

আহমেদ জিয়াউদ্দীন বলছেন, ইন্টারন্যাশনাল ক্রিমিনাল কোর্ট বা আইসিসির কাছে এই সাক্ষ্যের কোন মূল্য সেভাবে নেই।

“এর প্রথম কারণ হচ্ছে, আইসিসি নিজেই এখনো মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্ত করছে। সেই তদন্ত এখনো প্রক্রিয়াধীন আছে। তদন্ত চলাকালে আইসিসি বিভিন্ন সূত্র থেকে বিভিন্ন তথ্য পেতে পারে। নিউ ইয়র্ক টাইমসের যে রিপোর্টটির কথা বলা হচ্ছে, সেখানে দুজন সৈনিকের যে বিবরণ প্রকাশিত হয়েছে, আইসিসির তদন্তকারীরা সেসব তথ্যকে কেবল অতিরিক্ত কিছু তথ্য হিসেবে গণ্য করবেন। এর চেয়ে বেশি কিছু করার নেই।

“কারণ কেউ যদি কোন অপরাধ স্বীকার করতে চান, সেটা আইসিসির আইন বা নিয়ম অনুসরণ করে হতে হবে। আর এই কাজটা কেবল মাত্র আইসিসির প্রসিকিউটর বা তদন্ত কর্মকর্তাই করতে পারেন। অন্য কারও কাছে দেয়া স্বীকারোক্তি, সেটা বিদ্রোহী গোষ্ঠীর কাছেই হোক, বা অন্য কোন কর্তৃপক্ষের কাছে হোক, আইসিসির এখন যে তদন্ত চলছে, এর চেয়ে বেশি কোন মূল্য তাদের কাছে আছে বলে আমার মনে হয় না।”

“আমরা যারা মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সংঘটিত এসব অপরাধের বিচার চাচ্ছি, তাদের কাছে এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা বলতে পারি, এতদিন মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যেসব কথা বলা হচ্ছিল, এটা তার প্রমাণ। এটা আমাদের কাছে প্রমাণ বলে মনে হতে পারে, কিন্তু আইসিসির কাছে এটা কোন প্রমাণ নয়।”

কিন্তু কথিত দুই সৈনিক যদি আইসিসির কাছে একই সাক্ষ্য দেন তখন কী হবে?

আহমেদ জিয়াউদ্দীন বলেন, এই দুই সৈনিক যদি আদালতের কর্মকর্তাদের কাছে একই সাক্ষ্য দেন, তাহলে সেটার অনেক মূল্য থাকবে। তবে আইসিসির তদন্ত কর্মকর্তাদের কাছে তারা যদি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয়, শুধু দিলেই হবে না, তার সঙ্গে প্রমাণও দিতে হবে। তাহলে এটি গুরুত্বপূণৃ ভূমিকা রাখবে এবং আইসিসির বিচারকরা এসব কিছু বিবেচনা করবে।

এই সৈনিকরা নিজেরাই তাদের অপরাধের কথা স্বীকার করছেন বলে দাবি করা হচ্ছে, কাজেই তাদের কি করা হবে?

লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থী নির্যাতনের মুখে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে
লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থী নির্যাতনের মুখে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে

আহমেদ জিয়াউদ্দীন বলেন, এই সৈনিকদের আসামী করা হবে, নাকি তাদের সাক্ষী বানানো হবে, সেই সিদ্ধান্ত নেবেন তদন্ত কর্মকর্তারা। এক্ষেত্রে তদন্ত কর্মকর্তাদের কাছে বিবেচ্য বিষয় হবে, সত্য উদঘাটন বা ঘটনার সুবিচার নিশ্চিত করা।

তবে তিনি বলেন, এই দুজন সৈনিক মনে হচ্ছে খুবই নিম্নপদস্থ। সাধারণত যারা “ফুট সোলজার’ বা সামনের কাতারের সৈনিক, তাদের খুব কম ক্ষেত্রেই আসামী করা হয়।

“আইসিসির আইনে আসামী করা হয় তাদেরই, যার সর্বোচ্চ দায়িত্ব আছে, ‍’দ্য পার্সন উইথ হাইয়েস্ট ক্রিমিনাল রেসপন্সিবিলিটি’। সেখান থেকেই শুরু হয় আইসিসির প্রক্রিয়া। যারা এর পরিকল্পনা করেছে তাদের, যারা এটি কার্যকর করেছে, বাস্তবায়ন করেছে, তাদের। এর মাঝে যারা আছেন, তাদের যে ধরা হবে না তা নয়, একমাত্র আইসিসি সিদ্ধান্ত নেবে এদের প্রসিকিউশন করা হবে কি হবে না।”

তিনি বলেন, এটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি সিদ্ধান্ত হবে প্রসিকিউশনের জন্য। এই লোকগুলোকে সাক্ষী হিসেবে আনা হবে, নাকি অভিযুক্ত হিসেবে দাঁড় করানো হবে, এটা প্রসিকিউটর সিদ্ধান্ত নেবেন।

আহমেদ জিয়াউদ্দীন বলেন, আইসিসিতে এসে বা আইসিসির প্রসিকিউটরদের কাছে এরকম সাক্ষ্য দেয়ার ঘটনা অতীতেও ঘটেছে। কারণ ফুট সোলজার যারা থাকে, তারা তথ্যের গুরুত্বপূর্ণ উৎস যে কোন প্রসিকিউশন বা ইনভেস্টিগেশনের জন্য।

তিনি বলেন, “এরকম সাক্ষী দিতে আসা লোকজন যদিও নিজেরাই দোষী, তাদের কি করা হবে, সেই বিবেচনা প্রসিকিউটরকে করতে হবে। তারা দেখবে, ন্যায় বিচারের স্বার্থে, এদের বিচার করা ভালো হবে নাকি তাদের কাছ থেকে তথ্য আদায় করে আরও বড় বড় যারা আছেন, যাদের দায়িত্ব অনেক বেশি, তাদেরকে শাস্তি দেয়া ভালো।”

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

কৃষি দিবানিশি

যে শহরে দিনের শুরু কোটি ফুলের সৌরভে

বিশ্বে ফুল বাণিজ্যের প্রাণকেন্দ্র নেদারল্যান্ডসের ফ্লোরাহল্যান্ড। যেখানে আন্তর্জাতিক নিলামের মাধ্যমে প্রতিদিন বিকিকিনি হয় ২ কোটি ১০ লাখ ফুল।

রাজধানী আমস্টারডাম থেকে ১৩ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে শত বছরের ঐতিহ্যবাহী ফুল বিক্রয় ও প্রক্রিয়াজাতকরণ কেন্দ্র ফ্লোরাহল্যান্ড। যেখানে প্রতিদিনের সূচনা হয় ফুলের সৌরভ, রঙের মেলা আর বিশাল বাণিজ্য পরিধি দিয়ে।

১৩ হাজার কর্মীর কর্মতৎপরতায় মুখর হয়ে ওঠে এক বর্গকিলোমিটার আয়োজনের বিশাল এই ক্ষেত্র।

হল্যান্ডসহ ইউরোপ, আফ্রিকা ও এশিয়ার বিভিন্ন দেশের ফুলের সমারোহ ঘটে বিশ্বের বৃহৎ এই ফুল বাণিজ্য কেন্দ্রে।

প্রতিষ্ঠানের টিম ম্যানেজার ইয়োর্গেন স্লোবে বলেন, এই প্রতিষ্ঠানে সব ধরনের কারিগরি সুযোগ সুবিধা রয়েছে। এই কোম্পানির ভেতর-বাইরে শতশত মানুষ কাজে নিয়োজিত থাকে।

বাণিজ্যের বাইরে বাগান থেকে সংগ্রহ করা ফুলের স্থায়ীত্ব পরীক্ষা, পৃথিবীব্যাপী ফুল চাষের হিসাব নিকাশও করা হয় এখানে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

বাণিজ্য ও শিল্পের ইতিহাসে অনন্য নেদারল্যান্ডস

পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম ফুলবাগান নেদারল্যান্ডসের কুকেনহফ। স্বর্গীয় সৌন্দর্যে ভরপুর ফুলের ওই রাজ্য বছরে দু’মাস উন্মুক্ত থাকে পৃথিবীর পর্যটকদের জন্য। বাণিজ্য ও শিল্পের ইতিহাসেও ফুলের ওই উদ্যান পৃথিবীতে অনন্য। 

ওলন্দাজদের চেনা যায় সৌখিনতা আর সৌন্দর্যে। দিগন্ত জোড়া ফুটন্ত টিউলিপই বলে দেয় দেশটির নাম নেদারল্যান্ডস। সেখানে রয়েছে টিউলিপের হাজারো রঙে সাজানো এক ভূস্বর্গ ‘কুকেনহফ’। যেখানেই ফুলই যেনো কথা বলছে সারা পৃথিবীর মানুষের সঙ্গে, তার পবিত্র ভাষায়। এক টিউলিপই ধারণ করে আছে প্রায় চারশো বছরের ইতিহাস। চীন থেকে অস্ট্রিয়া হয়ে সৌন্দর্যের রাজাদের মন ছুঁয়ে আসন গেঁড়েছে নেদারল্যান্ডসে। 

নেদারল্যান্ডসের ট্যুর গাইড প্যাট্রেসিয়া জানালেন, টিউলিপের যাত্রা শুরু হয়েছিলো এশিয়ার চীন থেকে। বিখ্যাত ডার্চ বোটানিস্ট কাস কুসিয়াস ১৯৫৩ সালে টিউলিপের ফ্লাওয়ার বাল্প সংগ্রহ করেছিলেন তার বন্ধু অস্ট্রিয়া রাষ্ট্রদূতের কাছ থেকে। অস্ট্রিয়া রাষ্ট্রদূত যা পেয়েছিলেন তৎকালীন তুর্কির সুলতান সোলেইমান’র কাছ থেকে।

এখন টিউলিপ মানেই নেদারল্যান্ডস। টিউলিপ মানে ৫’শ বিলিয়ন ডলারের বাণিজ্য।

নেদারল্যান্ডসে কুকেহফ’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক বার্ট সিমেরিংক জানান, পৃথিবীর যতো ফুল ব্যবহার হয় তার ৬০ ভাগ একক ভাগে সরবরাহ করে নেদারল্যান্ডস। আর কুকেহফ হচ্ছে নেদারল্যান্ডসের ফুল বাণিজ্য ও ফুল কেন্দ্রিক সৌন্দর্যের কেন্দ্রভূমি।

সৌন্দর্য রাঙ্গাতে পারে মন। আর তা যদি হয় ফুলের, তা পারে জীবনের সংজ্ঞাও বদলে দিতে। এমন গভীর চিন্তাই নেদারল্যান্ডসের অর্থনৈতিক উন্নয়নেও রাখছে বড় ভূমিকা।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

বিসিজি টিকার প্রভাব আছে করোনায়

করোনাভাইরাস। ছবি: রয়টার্স

যক্ষ্মা প্রতিরোধের টিকা বিসিজির প্রভাব আছে করোনার ওপর। নতুন গবেষণা বলছে, বিসিজি টিকা পাওয়া ব্যক্তিদের করোনাজনিত অসুস্থতা কম থাকে। মারাত্মক ক্লান্তিও তাদের মধ্যে কম দেখা যায়।

বিসিজি টিকা নিয়ে এই গবেষণা হয়েছে নেদারল্যান্ডসে। তবে বিসিজি টিকার কারণে করোনার সংক্রমণ কম হয় কি না, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। গবেষকেরা বলছেন, এ নিয়ে বড় আকারের গবেষণা হওয়া দরকার।

নেদারল্যান্ডস, অস্ট্রেলিয়া, ডেনমার্ক, গ্রিস ও জার্মানির বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের ২৪ জন বিশেষজ্ঞ এই গবেষণায় যুক্ত ছিলেন। ৫ আগস্ট তাঁদের গবেষণা প্রবন্ধটি চিকিৎসাবিজ্ঞান সাময়িকী সেল রিপোর্টস মেডিসিন প্রকাশ করেছে।

গত ডিসেম্বরে চীনের উহানে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ দেখা দেওয়ার পর একসময় তা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা করোনার সংক্রমণকে বৈশ্বিক মহামারি হিসেবে ঘোষণা করে। বিশ্বের ২০৮টি দেশে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়লেও সব দেশ ও অঞ্চলে তা সমানভাবে ছড়িয়ে পড়েনি। কোথাও সংক্রমণের হার বেশি, কোথাও মৃত্যুহার বেশি দেখা গেছে।

মহামারির শুরু থেকে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিজ্ঞানীরা সংক্রমণের ধরন ও কারণ বোঝার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে বেশ কয়েকটি ধারণা নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আলোচনা হতে দেখা যায়। এসব নিয়ে বিজ্ঞান সাময়িকীতে লেখা প্রকাশ পেতে থাকে। গ্রীষ্মপ্রধান অঞ্চলে বা বিসিজি টিকা পাওয়া জনগোষ্ঠীতে করোনার প্রকোপ কম দেখা যাচ্ছে—এসব ধারণা একসময় বেশ গুরুত্ব পেতে থাকে।

এপ্রিল মাসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলেছিল, করোনার ওপর বিসিজি টিকার প্রভাব নিয়ে বিজ্ঞানভিত্তিক কোনো তথ্য-উপাত্ত নেই। তবে বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য একাধিক গবেষণা চলছে।

বিসিজি (ব্যাসিলি কালমেটি-গুরেন) টিকা সহজাত রোগ প্রতিরোধক্ষমতাকে দীর্ঘস্থায়ীভাবে বৃদ্ধি করে এবং শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণের আশঙ্কা কমিয়ে দেয়। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে শৈশবকালীন যক্ষ্মা প্রতিরোধে এই টিকা দেওয়া হয়। সরকারি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বাংলাদেশে ১৯৭৯ সালে শিশুদের বিসিজি টিকা দেওয়া শুরু হয়। বর্তমানে ৯৯ শতাংশ শিশু এই টিকা পায়।

নেদারল্যান্ডসে গবেষণায় ৪৩০ জনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল। এঁদের মধ্যে ২৬৬ জন ছিলেন বিসিজি টিকা নেওয়া। ১৬৪ জন বিসিজি টিকা পাননি। তবে টিকা পাওয়া ও না-পাওয়া সবাই করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। গবেষকেরা ২৭ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত দুই দফায় এঁদের ওপর জরিপ পরিচালনা করেন।

গবেষকেরা দেখেছেন, বিসিজি দেওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে করোনাজনিত অসুস্থতা তুলনামূলকভাবে কম। টিকা পাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে জ্বর, মাথাব্যথা ও ক্লান্তিতে ভোগার হার কম দেখা গেছে। তবে সর্দি বা নাক দিয়ে পানি পড়ার প্রবণতা দুই দলেই প্রায় সমান দেখা গেছে।

গবেষকেরা বলছেন, করোনা মহামারিকালে বিসিজি টিকা নিরাপদ। এই টিকা কোনো মারাত্মক প্রদাহের কারণ হয়ে দেখা দেয় না। এই টিকা পাওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে করোনাজনিত অসুস্থতা ও মারাত্মক ক্লান্তি কম দেখা গেছে। তবে এই টিকা দেওয়ার কারণে করোনা সংক্রমণ কমে কি না, তা নিয়ে বড় ধরনের গবেষণা হওয়া দরকার।

বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণের হার নিয়ে গ্রহণযোগ্য তথ্য পাওয়া যায় না। দেশে করোনায় আক্রান্তদের মধ্যে মৃত্যুহার ১ দশমিক ৩২। এই হার ইউরোপ বা আমেরিকার হারের চেয়ে কম। এমনকি ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে কম। প্রতিবেশী এই দুই দেশে মৃত্যুহার যথাক্রমে ২ ও ২ দশমিক ১। ওই দুই দেশে টিকাদানের হার বাংলাদেশের চেয়ে কম।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ও করোনাবিষয়ক জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির সদস্য অধ্যাপক নজরুল ইসলাম বলেন, ‘বিসিজি টিকা নিয়ে একটি গবেষণার সুযোগ আমাদের দেশেও আছে। এ রকম গবেষণা হলে আমরাও দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে স্পষ্ট ধারণা পাব।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

কৃষি দিবানিশি

ভেড়ার রাজ্য নেদারল্যান্ডসের টেসেল

পনের শতক থেকে উত্তর সাগরের নৌপথের একটি গুরুত্বপূর্ণ নোঙর ক্ষেত্র নেদারল্যান্ডসের টেসেল দ্বীপ। যে দ্বীপটির এখনকার পরিচিতি ভেড়ার রাজ্য হিসেবে। যেখানে রয়েছে পারিবারিক খামারের ঐতিহ্য আর ভেড়ার দুধের পনিরের আকর্ষণ।

উঁচুনিচু সবুজ প্রান্তরে ভেড়ার পাল। দূর থেকে দেখে যেনো মনে হয় সাদা সাদা মুক্তাদানা চলমান। টেসেলের এই সৌন্দর্য্যের সঙ্গে মিশে আছে বাণিজ্যিক ও পারিবারিক খামারের এক ঐতিহ্য। ১৩ হাজার অধিবাসীর টেসেলে ভেড়াও আছে মানুষের সমান।

ডো ওয়াডেল শিপ ফার্মের মালিক ইয়ান জানান, ভেড়া পালনকে শুধু খামারিরা নয় বরং নেদারল্যান্ডস সরকার বেশ গুরুত্ব দেয়। এর ঐতিহাসিক গুরুত্বও রয়েছে। এই ভেড়া পালন টেসেলকে চমৎকার একটি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে পরিচিতি এনে দিয়েছে।

হেক্টরপ্রতি ১০ টির বেশি ভেড়া পালন নিষেধ, ৫০ হেক্টও জমির মালিক ইয়ান মাঝারি খামারি হিসেবে পালন করতে পারছেন ৫’শ টি ভেড়া।

টেসেলের ‘ছোট লেজের ভেড়া’ বিশ্ববিখ্যাত। তা মাংসের জন্য যতখানি, তার চেয়ে বেশি সুস্বাদু পনিরের জন্য। বেশিরভাগ খামারের সঙ্গেই রয়েছে পনিরের কারখানা। এসব কারখানাই নেদারল্যান্ডসকে পরিণত করেছে পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তম পনির রপ্তানিকারক দেশে।

ডো ওয়াডেল ফার্মের আরেক স্বত্তাধিকারী মারিয়ানা জানান, এখানে ঐতিহ্যবাহী কায়দায় পনির তৈরি করা হয়। যন্ত্রপাতি থাকলেও মূল কাজটি করতে হয় হাতে।

বাংলার মতো দুধে-ভাতের স্বপ্ন এখানে নেই, তবে পনির রুটির অদ্ভুত সুখে আছে একেকটি খামারি পরিবার।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com