আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

দৈনন্দিন

ফলের রসের চেয়ে ফল বেশি স্বাস্থ্যকর

রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়াতে সুষম খাবারের কোনো বিকল্প নেই। ভিটামিনস ও মিনারেলসের চাহিদা মেটাতে প্রতিদিন ফল খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। পৃথিবীতে অনেক রকমের ফল পাওয়া যায়। তবে দেশভেদে ভিন্ন রকম ও স্বাদের ফল দেখা যায়। ভিটামিন সি ও পটাশিয়ামের সবচেয়ে ভালো উৎস এই ফল থেকে আরও অনেক রকম পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায়। ফলে শর্করা অনেক। তাই ক্যালরিও পাওয়া যায় ফল থেকে। শরীরে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা বাড়ানো ছাড়াও আরও অনেক কাজ করে থাকে ফল। রান্না করে খাওয়ার প্রয়োজন হয় না, তাই ফল থেকে এর পুরো পুষ্টি পাওয়া যায়।

ফল দুভাবে আমরা খেয়ে থাকি—তাজা আস্ত ফল আর ফলের জুস। উৎপাদনের ওপর ভিত্তি করে ফলের জুস দুই রকম—বাণিজ্যিক ভাবে তৈরি ফলের জুস ও ঘরে হাতে বানানো ফলের জুস। ফলের রসের চেয়ে ফল অনেক স্বাস্থ্যকর। সুস্থতা রক্ষায় সবাইকে ফলের জুস না খেয়ে ফল খেতে বলা হয়। এর মূল কারণ হলো, ফলের ফাইবার বা খাদ্য আঁশ। মূলত ফল আস্ত খেলে অনেক ফাইবার বা খাদ্য আঁশ পাওয়া যায়। কিন্তু ফল থেকে জুস করা হলে তার আঁশ অনেক নষ্ট হয়। এ ছাড়া ফলে ন্যাচারাল সুগার থাকে কিন্তু বেশির ভাগ জুস বানাতে পানি দেওয়া হয়, ফলে এর স্বাদ বজায় রাখার জন্য চিনি যুক্ত করায় এর পুষ্টিগুণ অনেক নষ্ট হয়।

ফলে গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম থাকে ফলের জুসের তুলনায়। অর্থাৎ, ফল খেলে ফলের ভেতরকার শর্করা ধীরে ধীরে ভাঙে, এতে রক্তে দ্রুত সুগার বৃদ্ধি পায় না। কিন্তু ফলের জুসের গ্লাইসেমিক ইনডেক্স বেশি থাকায়, জুস খাওয়ার প্রায় সঙ্গে সঙ্গে খুব দ্রুত এর সুগার শরীরে যায়। তাই ডায়াবেটিক রোগীর জন্য ফলের জুস স্বাস্থ্যকর নয়।

কমার্শিয়াল ফলের জুসের সংরক্ষণের জন্য প্রিজারভেটিভ ব্যবহার করা হয়, যা স্বাস্থ্যকর নয়। তবে ঘরে বানানো ফলের জুসে এই প্রিজারভেটিভ থাকে না। তাই ঘরে বানানো ফলের জুস কিছুটা হলেও বাণিজ্যিক ভাবে প্রস্তুত জুসের তুলনায় ভালো। যদিও আজকাল বড় কোম্পানিগুলো মানুষের স্বাস্থ্য বিবেচনায় অরগানিক ফলের জুস তৈরি করছে, কিন্তু তা ব্যয়বহুল।

ফল অবশ্যই সঠিক মাত্রায় খেতে হয়। বয়স, শারীরিক অবস্থা, রোগ ভেদে এর পরিমাণ ভিন্ন হয়ে থাকে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে পরিমিত ফল সঠিক সময়ে খেতে হয়। মনের রাখবেন, অতিরিক্ত ফল খেলে তা থেকে প্রাপ্ত অতিরিক্ত ক্যালরি ওজন বাড়িয়ে ফেলতে পারে। আবার ফল অতিরিক্ত পরিমাণে খেলে রক্তের ট্রাইগ্লিসারাইড বেড়ে যায় অনেকের। কিছু কিছু ক্ষেত্রে তাই ফল পরিমিত বা বিশেষজ্ঞের পরামর্শমতো খেতে হয়। যেমন কিডনি রোগীরা সব ফল খেতে পারে না। ডায়াবেটিসের রোগীদের অতিরিক্ত মিষ্টি ফল মেপে খেতে হবে। যারা মোটা, তাদেরও ফল বুঝে পরিমিত পরিমাণে খেতে হয়। হার্টের রোগীর জন্য টক ও টক-মিষ্টি ফল খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। পাতলা পায়খানা হলে পাকা কলা, আপেল ও নাশপাতি খুব ভালো।

আবার যাদের কোষ্ঠকাঠিন্য, তাদের জন্য পেঁপে, আম, বেল ভালো। রক্তের পটাশিয়াম কমে গেলে ডাবের পানি ও কলা ওষুধের কাজ করে। রক্তস্বল্পতায় বেদানা, কমলা, লাল আঙুর ভালো। ফলও প্রয়োজনে ওষুধের মতো কাজ করে। ফলের চেয়ে ফলের জুসের হেলথ বেনিফিট কম হলেও কিছু শারীরিক কন্ডিশনে ফলের চেয়ে ফলের জুস উপকারী, যেমন সার্জারির পর, গলায় অস্ত্রোপচার হলে বা গলানালিজনিত যেকোনো সমস্যায়। আবার ক্যানসারের চিকিৎসায় কেমোথেরাপি চলাকালীন অনেকের নিউট্রোফিল কাউন্ট কমে গেলে তাদের জন্য কাঁচা ফল বা ফলের জুস মানা করা হয়। তাদের বাণিজ্যিকভাবে প্রস্তুত ফলের রস বা অরগানিক ফলের রস দিয়ে ভিটামিন ও মিনারেলের চাহিদা পূরণ করা হয়। বাচ্চারা নিতান্তই ফল খেতে না চাইলে তাদের চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে ফলের জুস দেওয়া হয়।

সুস্থ থাকার জন্য ফলের পুষ্টি খুব জরুরি। তাই নিচের বিষয়গুলো অবশ্যই মনে রাখা জরুরি।

১. ছোটবেলা থেকে বাচ্চাদের ফল খাওয়ার অভ্যাস করুন। ছোটবেলায় জুস দিলে বাচ্চা বড় হলে আর ফল খেতে চায় না।

২. একান্তই ফলের জুস খেতে হলে বাড়িতে বানানো ফলের জুসে প্রাধান্য দিন। ব্লেন্ডারে না করে হাতে কচলে বা ম্যানুয়ালি জুস বানানো হলে তাও কিছুটা উপকারী।

৩. ঘরে জুস বানালে কম পানি দিন, তাতে ফলের ন্যাচারাল স্বাদ বজায় থাকবে। আর পাল্পসহ জুস করুন অর্থাৎ না ছেঁকে, তাতে কিছুটা ফাইবার পাওয়া যাবে।

৪. ফলের জুস বানাতে চিনি বা মধু না দেওয়াই ভালো। তাতে ফলের ন্যাচারাল মিষ্টি বজায় থাকে। বাড়তি ক্যালরি যুক্ত হবে না।

৫. দেশি ও মৌসুমি ফল খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো ও নিরাপদ। মৌসুমি ফল খেলে পুষ্টি শরীরে কাজে লাগে।

৬. ডেসার্ট হিসেবে ফলের জুড়ি নেই। ফলের কাস্টার্ড, সালাদ, স্মুদি ও ফল নিজেই মিষ্টান্ন হিসেবে কাজ করে।

৭. ফল বিশুদ্ধ পানি দিয়ে ধুয়ে খেতে হয়। ফলের খোসাসহ খেলে অনেক ফাইবার বা আঁশ পাওয়া যাবে; যা কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে।

নানা রঙের ফল আমাদের নানা রকম পুষ্টির জোগান দেয়। তাই সুস্থ থাকতে ফলের কোনো জুড়ি নেই। রোজ ফল খান ও সুস্থ থাকুন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

দৈনন্দিন

নিপাহ্‌ ভাইরাসঃ খেজুরের রস খাওয়ার আগে সতর্ক থাকতে যা করণীয়

নিপাহ্‌ ভাইরাস খেজুরের রস খাওয়ার আগে সতর্ক থাকতে যা করণীয়
নিপাহ্‌ ভাইরাস খেজুরের রস খাওয়ার আগে সতর্ক থাকতে যা করণীয়
খেজুরের রস সংগ্রহের প্রক্রিয়া।

শীতকাল এলেই বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে খেজুরের রস খাওয়ার চল বেড়ে যায়। অনেকে গাছ থেকে খেজুরের কলসি নামিয়ে সরাসরি কাঁচা রস খেয়ে থাকেন।

আবার অনেকে এই রস চুলায় ফুটিয়ে সিরাপ, পায়েস বা ক্ষীর বানিয়ে খান। এছাড়া রসের তৈরি ঝোলা গুড়, পাটালি গুড়, নলেন গুড়, ভেলি গুড়, বালুয়া গুড়, মিছরি গুড়সহ নানা ধরণের পিঠার বেশ সুখ্যাতি রয়েছে।

নিপাহ্‌ ভাইরাস আতঙ্ক

খেজুর আরব দেশের প্রচলিত ফল হলেও ওইসব দেশে খেজুর, মূলত ফল উৎপাদননির্ভর, যেখানে কিনা বাংলাদেশের খেজুর গাছ রস উৎপাদননির্ভর।

কৃষি তথ্য সার্ভিসের মতে, বাংলাদেশে সাধারণত কার্তিক থেকে মাঘ অর্থাৎ অক্টোবর থেকে মার্চ পর্যন্ত খেজুরের রস সংগ্রহ হয়ে থাকে।

দেশটির সবচেয়ে বেশি রস সংগ্রহ হয় যশোর, কুষ্টিয়া ও ফরিদপুর অঞ্চল থেকে।

মূলত খেজুর গাছের ডালপালা পরিষ্কার করে, ডগার দিকের কাণ্ড চেঁছে তাতে একটা বাঁশের কঞ্চি দিয়ে তৈরি চোঙ বসিয়ে দেয়া হয়। চোঙের শেষ প্রান্তে ঝুলিয়ে দেয়া হয় একটি মাটির হাড়ি বা কলসি।

সেই চোঙ দিয়ে ফোঁটা ফোঁটা রস এসে জমা হতে থাকে মাটির হাড়ি বা কলসিতে। এভাবে একটি গাছ থেকে দৈনিক গড়ে পাঁচ থেকে ছয় লিটার রস সংগ্রহ করা যায় বলে কৃষি তথ্য সার্ভিস সূত্রে জানা গিয়েছে।

কিন্তু গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে এই খেজুরের রস খাওয়ার ক্ষেত্রে নিপাহ্‌ ভাইরাস আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

কই মাছে বাঁধাকপির ছেঁচকি – দা এগ্রো নিউজ

কই মাছে বাঁধাকপির ছেঁচকি
কই মাছে বাঁধাকপির ছেঁচকি

উপকরণ: বাঁধাকপির কুচি ৪ কাপ, কই মাছের টুকরো ৬টি, তেজপাতা ১টি, শুকনো মরিচ ২টি, মেথি অল্প পরিমাণ, মরিচবাটা ১ চা-চামচ, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, লবণ পরিমাণমতো, নারকেল কোরানো স্বল্প পরিমাণে, হলুদ পরিমাণমতো ও সরিষার তেল পরিমাণমতো।

প্রণালি: তেলে শুকনো মরিচ ও মেথি ফোড়ন দিতে হবে। ফোড়ন হয়ে এলে হালকা করে ভেজে উঠিয়ে রাখতে হবে। ওই তেলেই বাঁধাকপির কুচি ও পেঁয়াজ কুচি দিয়ে ভালো করে কষে নিতে হবে। তারপর লবণ, মরিচ ও হলুদবাটা দিয়ে আরও কিছুক্ষণ বসাতে হবে। সেদ্ধ হয়ে এলে অল্প পরিমাণে পানি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে ভাজা মাছগুলো দিয়ে ঢাকা দিতে হবে। পানি শুকিয়ে গেলে এবং মাছ সেদ্ধ হয়ে এলে অল্প পরিমাণ নারকেল কোরানো দিয়ে নামিয়ে ফেলতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

ধনেপাতা ও টমেটোয় শোল মাছ – দা এগ্রো নিউজ

ধনেপাতা ও টমেটোয় শোল মাছ
ধনেপাতা ও টমেটোয় শোল মাছ

উপকরণ: বড় শোল মাছ ৫০০ গ্রাম, টমেটো টুকরো আধা কাপ, সরিষার তেল ৩ টেবিল চামচ, টমেটোবাটা আধা কাপ, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, আদাবাটা ১ চা-চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ, ধনেপাতা আধা কাপ, শুকনো মরিচের গুঁড়া ১ চা-চামচ, লবণ স্বাদ অনুসারে ও কাঁচা মরিচ ৭-৮টি (চেরা)।

প্রণালি: শোল মাছ লবণ, হলুদ ও সরিষার তেল মাখিয়ে ভেজে তুলে রাখতে হবে। আর ওই তেলেই পেঁয়াজ কুচি দিতে হবে। পেঁয়াজ বাদামি রং হলে রসুন, আদা, মরিচের গুঁড়া, হলুদ ও লবণ দিয়ে ভালোভাবে কষাতে হবে। টমেটোবাটা দিতে হবে, কিছুক্ষণ কষানোর পর প্রয়োজনমতো গরম পানি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে ভেজে রাখা মাছগুলো দিতে হবে। ঝোল মাখা-মাখা হলে টমেটোর টুকরো আর ধনেপাতা দিয়ে কিছুক্ষণ পর নামিয়ে ফেলতে হবে। নামানোর আগে কাঁচা মরিচ দিতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

লাউ টাকি – দা এগ্রো নিউজ

লাউ-টাকি
লাউ-টাকি

উপকরণ: ছোট টুকরো করে কাটা টাকি মাছ ২ কাপ, ডুমো ডুমো করে কাটা লাউ ৪ কাপ, হলুদ সিকি চা-চামচ, লবণ পরিমাণমতো, পেঁয়াজ ১ কাপ, ধনেপাতা কুচি পরিমাণমতো, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, কাঁচা মরিচ ১০-১২টি, আদাবাটা আধা চা-চামচ ও রাঁধুনি বাটা সিকি চা-চামচ।

প্রণালি: তেলে পেঁয়াজ দিয়ে হালকা করে ভেজে নিতে হবে। তারপর একে একে রসুনবাটা, আদাবাটা ও রাধুনি (গুঁড়া সজ) বাটা ও হলুদের গুঁড়া দিয়ে ভালো করে কষাতে হবে। কষানো হলে লাউ দিতে হবে। লাউ দিয়ে কিছুক্ষণ কষিয়ে অল্প পরিমাণে পানি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে আগে থেকে হালকা করে ভেজে রাখা টাকি মাছ দিতে হবে। পানি শুকিয়ে এলে কাঁচা মরিচের ফালি ও সবশেষে ধনেপাতা দিয়ে নামিয়ে ফেলতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

বাঁধাকপির পাতায় চিংড়ি – দা এগ্রো নিউজ

বাঁধাকপির পাতায় চিংড়ি
বাঁধাকপির পাতায় চিংড়ি

উপকরণ: চিংড়ি মাছ ২০০ গ্রাম, সয়াবিন তেল পরিমাণমতো, বাঁধাকপি কুচি ১ কাপ, ক্যাপসিকাম কুচি ১ কাপ, টমেটো কুচি আধা কাপ, পেঁয়াজপাতা কুচি ১ কাপ, কাঁচা মরিচবাটা ১ চা-চামচ, ধনেপাতাবাটা ১ চা-চামচ, হলুদের গুঁড়া পরিমাণমতো, চিলি সস ২ চা-চামচ, টমেটো সস ২ চা-চামচ, বাঁধাকপির ভেতরের পাতা ৪টি, ভিনেগার ২ চা-চামচ, রসুন ১ চা-চামচ ও লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি: বাঁধাকপির শক্ত অংশ ফেলে দিন। পাতার ভেতরের অংশ একটু ভাপিয়ে রাখুন। মাছ ধুয়ে ভিনেগার মাখিয়ে রাখুন। এবার কড়াইয়ে সয়াবিন তেল গরম হলে তাতে রসুন কুচি দিয়ে মাছগুলো দিন। একে একে কোঁচানো বাঁধাকপি, ক্যাপসিকাম, টমেটো ও পেঁয়াজপাতা দিয়ে নেড়েচেড়ে নিন। এরপর কাঁচা মরিচবাটা, ধনেপাতাবাটা, চিলি সস ও টমেটো সস দিয়ে নেড়ে নিন। পানি শুকিয়ে এলে নামিয়ে বাঁধাকপির পাতায় অল্প করে চিংড়ি মাছ সুতা দিয়ে বেঁধে স্টিমারে ভাপিয়ে নিন। সুতো কেটে পাতা খুলে পরিবেশন করুন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com