আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

ফ্রান্স

কার্টুন নিয়ে ম্যাক্রঁর মন্তব্যের জেরে আরব দেশগুলোকে ফরাসী পণ্য বয়কট ঠেকানোর আহ্বান জানালো ফ্রান্স

কুয়েতের অনেক দোকান থেকে ফরাসি পণ্য সরিয়ে নেয়া হয়েছে।
কুয়েতের অনেক দোকান থেকে ফরাসি পণ্য সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাঁক্রর মন্তব্যের জের ধরে ফরাসি পণ্য বর্জন না করতে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোকে আহ্বান জানিয়েছে দেশটি। এর আগে ম্যাঁক্র ইসলামের নবীর কার্টুন দেখানের পক্ষে সাফাই দিয়েছিলেন।

ফরাসি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলে যে, উগ্র সংখ্যালঘুদের পক্ষ থেকে এই বয়কটের ‘ভিত্তিহীন’ ডাক দেয়া হয়েছে।

কুয়েত, জর্ডান এবং কাতারের কিছু কিছু দোকান থেকে ফরাসি পণ্য সরিয়ে নেয়া হয়েছে।

এছাড়া লিবিয়া, সিরিয়া এবং গাজা উপত্যকায় বিক্ষোভও দেখা গিয়েছে।

শ্রেণীকক্ষে ইসলামের নবীর কার্টুন দেখানোর পর এক শিক্ষককে হত্যার ঘটনায় মি. ম্যাঁক্রর মন্তব্যের পর এই প্রতিক্রিয়া তৈরি হয়।

প্রেসিডেন্ট বলেন যে, স্যামুয়েল পাটি নামের ওই “শিক্ষক খুন হয়েছিলেন কারণ ইসলামপন্থীরা আমাদের ভবিষ্যৎ চায়”, কিন্তু ফ্রান্স “আমাদের কার্টুন ছাড়বে না”।

ইসলামের নবীর চিত্রাঙ্কন মুসলিমদের জন্য গুরুতর আপত্তির জায়গা হয়ে ওঠার কারণ হচ্ছে, ইসলামী ঐতিহ্য অনুযায়ী মুহাম্মদ এবং আল্লাহর প্রতিকৃতি তৈরি কঠোরভাবে নিষেধ করা হয়েছে।

কিন্তু ফ্রান্সে জাতীয় পরিচয়ের অন্যতম অংশ হচ্ছে ধর্মনিরপেক্ষতা বা “লেইসিতে”। কোন নির্দিষ্ট সম্প্রদায়ের অনুভূতির রক্ষার জন্য বাক-স্বাধীনতা কমিয়ে আনা হলে তা জাতীয় ঐক্য কমিয়ে আনবে বলে জানানো হয়।

রবিবার, মি. ম্যাক্রঁ এক টুইটে ফরাসি মূল্যবোধের প্রতি পক্ষে তিনি বলেন, “আমরা কখনোই এটা বিসর্জন দেবো না।”

তুরস্ক এবং পাকিস্তানের রাজনৈতিক নেতারা ম্যাক্রঁর প্রতি ক্ষোভ জানিয়ে অভিযোগ তুলেছেন যে তিনি “বিশ্বাসের স্বাধীনতা” কে কদর করছেন না এবং ফ্রান্সের লাখ লাখ মুসলিমদের কোণঠাসা করছেন।

রবিবার, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেচেপ তায়েপ এর্দোয়ান বলেন, ইসলামের প্রতি মি. ম্যাক্রঁর দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টাতে তার “মানসিক চিকিৎসা করানো দরকার।”

শনিবার একই মন্তব্যের জন্য তুরস্কে থাকা ফরাসি রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছিল দেশটি।

বয়কট কতদূর গড়িয়েছে?

রবিবার জর্ডান, কাতার ও কুয়েতের অনেক দোকানের তাক থেকে সরিয়ে নেয়া হয় ফরাসি পণ্য। ফ্রান্সে তৈরি হওয়া চুল এবং সৌন্দর্য পণ্য ডিসপ্লে-তে রাখা হয়নি।

কুয়েতে প্রধান একটি রিটেইল ইউনিয়ন ফরাসি পণ্য বয়কটের ঘোষণা দিয়েছে।

বেসরকারি ইউনিয়ন অব কনজ্যুমার কো-অপারেটিভ সোসাইটি বলে,ইসলামের নবীকে “বার বার অসম্মান” করার কারণে তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এক বিবৃতিতে ফরাসি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এই সিদ্ধান্তের কথা স্বীকার করে লিখেছে: “বয়কটের এই ডাক ভিত্তিহীন এবং অবিলম্বে বাতিল করা উচিত। সেই সাথে আমাদের দেশের বিরুদ্ধে উগ্র সংখ্যালঘুদের পরিচালিত সব হামলাও বন্ধ করা উচিত।”

আরব দেশগুলোতে ফরাসি পণ্য বয়কটের আহ্বান অনলাইনে প্রচারিত হচ্ছে।
আরব দেশগুলোতে ফরাসি পণ্য বয়কটের আহ্বান অনলাইনে প্রচারিত হচ্ছে।

বিভিন্ন আরব দেশ যেমন সৌদি আরবে অনলাইনে এ ধরণের বয়কটের আহ্বান জানানো হচ্ছে।

আরব বিশ্বের সবচেয়ে বড় অর্থনীতির দেশ সৌদি আরবে ফরাসি সুপারমার্কেট চেইন শপ “ক্যাফৌউ” বয়কট করা নিয়ে হ্যাশট্যাগ দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ট্রেন্ডিং ইস্যু হিসেবে উঠে এসেছে।

এদিকে, লিবিয়া, গাজা এবং উত্তর সিরিয়ার তুরস্ক সমর্থিত সশস্ত্র বাহিনীর নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলোতে ফরাসি বিরোধী ছোট ছোট বিক্ষোভও অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ফ্রান্স কিভাবে এই বিতর্কে জড়ালো?

মি. পাটির হত্যার পর ইসলামের নামে উগ্রতার বিপক্ষে এবং ফরাসি ধর্মনিরপেক্ষতার পক্ষে মি. ম্যাক্রঁর অবস্থান মুসলিম বিশ্বের অনেকেরই ক্ষোভের কারণ হয়েছে।

তুরস্কের মি. এরদোয়ান এক বক্তব্যে বলেন: “ইসলাম এবং মুসলিমদের নিয়ে ম্যাক্রঁর মতো ব্যক্তিদের কী সমস্যা?”

এর মধ্যে পাকিস্তানের নেতা ইমরান খান ফরাসি নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বলেন যে তিনি “কোন কিছু না বুঝেই তিনি ইসলামকে আক্রমণ করছেন”।

এক টুইটে তিনি বলেন, “প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ ইউরোপ এবং পুরো বিশ্বে থাকা মুসলিমদের অনুভূতিকে আঘাত করেছেন।”

চলতি মাসের শুরুর দিকে, ওই শিক্ষকের হত্যার আগেই মি. ম্যাক্রঁ ফ্রান্সে “মুসলিম বিচ্ছিন্নতাবাদীদের” রুখতে কঠোর আইন তৈরির পরিকল্পনা ঘোষণা করেন।

তিনি ইসলামকে “সংকটে” থাকা ধর্ম উল্লেখ করে বলেন, ফ্রান্সের প্রায় ৬০ লাখ মুসলিম “কাউন্টার সোসাইটি” তৈরির চিন্তা করছে।

ফ্রান্সে ইসলামের নবীর প্রতিকৃতি আঁকার অন্ধকার রাজনৈতিক ইতিহাস রয়েছে।

২০১৫ সালে তার কার্টুন প্রকাশের পর ফরাসি ব্যঙ্গ-পত্রিকা শার্লি এবদোর ১২ জন এক হামলার মারা গিয়েছিল।

পশ্চিম ইউরোপের মুসলিম সম্প্রদায় মি. ম্যাক্রঁর বিরুদ্ধে তাদের ধর্মকে দাবিয়ে রাখার অপচেষ্টা এবং তার এই প্রচারণা ইসলামোফোবিয়াকে বৈধতা দেয়ার ঝুঁকি তৈরি করবে বলে অভিযোগ করেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

ইসলাম

ফ্রান্স বিরোধী বিক্ষোভের মুখে ফরাসী সরকারের কাছে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি

ঢাকায় কয়েকদিন ধরে ইসলামপন্থী দলগুলোর বিক্ষোভের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ সরকার স্পর্শকাতর বিষয়ে ফ্রান্সকে উস্কানিমূলক কিছু না করার পরামর্শ দিয়েছে।
ঢাকায় কয়েকদিন ধরে ইসলামপন্থী দলগুলোর বিক্ষোভের প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ সরকার স্পর্শকাতর বিষয়ে ফ্রান্সকে উস্কানিমূলক কিছু না করার পরামর্শ দিয়েছে।

ফ্রান্সে ইসলাম এবং নবীর কার্টুন নিয়ে দেশটির প্রেসিডেন্টের মন্তব্যের প্রতিবাদে বাংলাদেশে ইসলামপন্থী দলগুলো যে বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছে, সেই প্রতিবাদ বিক্ষোভের মুখে বাংলাদেশ সরকার স্পর্শকাতর বিষয়ে উস্কানি না দেয়ার পরামর্শ দিয়ে ফরাসী সরকারকে চিঠি পাঠিয়েছে।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বিবিসিকে বলেছেন, তিনি ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে এই চিঠি পাঠিয়েছেন।

তবে ইসলামপন্থী দলগুলোর নেতারা বলেছেন, বাংলাদেশ সরকার স্পষ্টভাবে নিন্দা জানাবে, সেটা তারা চান।

ইসলামপন্থী দলগুলো বাংলাদেশে ফ্রান্স বিরোধী বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছে কয়েকদিন ধরে।

তারা ফ্রান্সের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্ক ছিন্ন করার দাবি জানিয়েছে।

তারা আরও দাবি করেছে, বাংলাদেশ সরকার যেনো ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের মন্তব্যের ব্যাপারে নিন্দা জানায়।

এমন প্রেক্ষাপটেই এখন বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে চিঠি লিখেছেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

কী আছে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠিতে:

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, তিনি চিঠিতে ফরাসী সরকারকে স্পর্শকাতর বিষয়ে আরও সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

“আমরা মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করি। তবে কাউকে আঘাত করে নয়। ফ্রীডম অব এক্সপ্রেশনের একটা লিমিটেশন আছে। আর আমরা বলেছি যে, স্পর্শকাতর ব্যাপারে কেউ যেন উস্কানি না দেয়।আরেকটি কথা আমরা বলেছি যে, একে অপরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থাকা উচিত। সেটা যে কোন ধর্ম বর্ণ বা গোষ্ঠীই হোক না কেন-তার উর্ধ্বে থেকে একে অপরকে শ্রদ্ধা করা উচিত। এ ব্যাপারে আগামীতে আরও সতর্ক হলে ভাল।”

একইসাথে তিনি ফ্রান্সে একজন শিক্ষককে গলা কেটে হত্যা এবং পরে হামলায় কয়েকজনের নিহত হওয়ার ঘটনার ব্যাপারে দু:খ প্রকাশ করেছেন।

তিনি বলেছেন, মত প্রকাশ করা বা কোন কারণে কাউকে হত্যার ঘটনা বাংলাদেশের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।

তবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মি: মোমেন চিঠিতে ধর্ম বা স্পর্শকাতর বিষয়ে ফ্রান্সকে উস্কানিমূলক কিছু না করার পরামর্শ দিলেও ফরাসী প্রেসিডেন্টের মন্তব্যের ব্যাপারে নিন্দা জানাননি।

ফ্রান্স বিরোধী বিক্ষোভকারি অন্যতম দল ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমীর সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম বলেছেন, ফ্রান্সকে সতর্ক করে চিঠি দেয়ার বিষয়কে তারা ইতিবাচক হিসাবে দেখেন। কিন্তু বাংলাদেশ সরকার স্পষ্টভাবে নিন্দা জানাবে- সেটা তারা চাইছেন বলেও তিনি উল্লেখ করেছেন।

“এটা আমরাও বলছি, উস্কানিমূলক এবং কোন অঘটন বা পরিবেশ নষ্ট করে এ ধরনের কোন আচরণ কারও থেকেই না হোক। এটা আমরাও চাই। সরকার এটা বলেছে, এটা ভাল দিক। এটা আমরা সমর্থন করি।”

তিনি আরও বলেছেন, “ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের বক্তব্যে তামাম দুনিয়ায় অশান্তি তৈরি হয়েছে, ফলে তার নিজেরই এখনই একটা সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি করা উচিত। সে দায়িত্ব প্রেসিডেন্ট ম্যাঁক্রর নিজের। এটা আমরা বলছি। একইসাথে আমরা চাই, বাংলাদেশ সরকার যেন স্পষ্টভাবে নিন্দা এবং উদ্বেগ জানায়।”

সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ
সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ

ফ্রান্স ইস্যুতে বাংলাদেশে হাজার হাজার মানুষের অংশগ্রহণে ইসলামপন্থী দলগুলোর বিক্ষোভের খবর পশ্চিমা সংবাদমাধ্যমে ব্যাপক গুরুত্ব পেয়েছে। ফ্রান্সের রাজনীতিতেও বাংলাদেশ আলোচনায় এসেছে।

ফ্রান্সের বিরোধী নেত্রী মারি লো পেন বাংলাদেশ থেকে অভিবাসন নিষিদ্ধ করার দাবিও জানিয়েছেন।

অন্যদিকে দেশে ইসলামপন্থী দলগুলো ফ্রান্স বিরোধী শক্ত অবস্থানেই রয়েছে। ফলে দু’দিক থেকেই বাংলাদেশ সরকার চাপে পড়েছে কিনা- এই প্রশ্ন মানতে রাজি নন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মি: মোমেন।

তিনি বলেছেন, ফ্রান্সের অভ্যন্তরীণ কোন বক্তব্য নিয়ে বাংলাদেশ চিন্তিত নয়।

“এটা আমাদের কনসার্ন না। আমরা ফ্রিডমে বিশ্বাস করি। বহুলোক বহুকিছু দাবি করতে পারে। এটা আমাদের জন্য বড় কোন ইস্যু নয়।”

কিন্তু পরিস্থিতি ফ্রান্সের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কের কোন প্রভাব পড়বে কিনা- এই প্রশ্নও মানতে রাজি নন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

“কোন প্রভাব পড়বে না। তারা খুব ভাল বন্ধু। আমাদের সাথে ফ্রান্সের সম্পর্ক অত্যন্ত ঘনিষ্ট।”

মি: মোমেন আরও বলেছেন, বাংলাদেশে যেসব প্রতিবাদ বিক্ষোভ হচ্ছে, সেগুলো থেকে কোন সহিংস ঘটনা ঘটেনি। এমন শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় থাকবে-সেটা সরকার আশা করে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

বয়কট ফ্রান্স আন্দোলন: ইসলাম নিয়ে এমানুয়েল ম্যাক্রঁর মন্তব্যে বাংলাদেশে কি ফরাসীদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হবে?

নবীর কার্টুন এবং মুসলিমদের নিয়ে ফরাসী প্রেসিডেন্টের কিছু মন্তব্যের প্রতিবাদে পাকিস্তানের পেশোয়ারে এক বিক্ষোভে ফ্রান্সের পতাকা পোড়ানো হচ্ছে, অক্টোবর ২৬, ২০২০
নবীর কার্টুন এবং মুসলিমদের নিয়ে ফরাসী প্রেসিডেন্টের কিছু মন্তব্যের প্রতিবাদে পাকিস্তানের পেশোয়ারে এক বিক্ষোভে ফ্রান্সের পতাকা পোড়ানো হচ্ছে, অক্টোবর ২৬, ২০২০

ফ্রান্সে সম্প্রতি ক্লাসরুমে ইসলামের নবীর কার্টুন দেখানোর সূত্রে একজন স্কুল শিক্ষকের শিরচ্ছেদের ঘটনার পর ইসলাম ধর্ম নিয়ে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রঁর সাম্প্রতিক কিছু মন্তব্যের প্রতিবাদে জর্ডান ও কুয়েতসহ কয়েকটি মুসলিম দেশে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ার খবর পাওয়া গেছে।

অনেক দোকান থেকে ফরাসী পণ্য সরিয়ে ফেলা হচ্ছে।

বাংলাদেশেও সেই ক্ষোভের আঁচ পড়েছে। রোববার সাধারণ ছাত্রদের ব্যানারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এক বিক্ষোভ সমাবেশের পর ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ নামে একটি ইসলামপন্থী দল মঙ্গলবার ঢাকায় ফরাসী দূতাবাস ঘেরাওয়ের কর্মসূচি দিয়েছে।

এই দলের আমীর সৈয়দ রেজাউল করিম বিবিসি বাংলাকে বলেন, তার এসব মন্তব্যের জন্য প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁকে মুসলমানদের কাছে নি:শর্ত ক্ষমা চাইতে হবে, এবং বাংলাদেশ সরকারকে সংসদে প্রস্তাব এনে ফ্রান্সের নিন্দা করতে হবে।

ফ্রান্সে নবীকে ‘অপমানের‘ প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ-সমাবেশ
ফ্রান্সে নবীকে ‘অপমানের‘ প্রতিবাদে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ-সমাবেশ

তিনি বলেন, “ফ্রান্সে মুসলমানদের ওপর অত্যাচার নির্যাতন চলছে, নবীর ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শিত হচ্ছে। নবীকে অপমান করা হচ্ছে। আমরা চুপ করে বসে থাকতে পারিনা।“

এর আগে, গতকাল (রোববার) সাধারণ ছাত্রদের ব্যানারে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে, এবং সংবাদমাধ্যম ও সোশাল মিডিয়ার খবর অনুযায়ী, সেখানে নানা মত-পথের ছাত্র সংগঠনের অংশগ্রহণ ছিল। সমাবেশে ফরাসী প্রেসিডেন্টের নিন্দা করা হয়েছে যে তিনি মত প্রকাশের স্বাধীনতার নামে ইসলাম বিদ্বেষকে উস্কে দিচ্ছেন।

ফ্রান্সের ইমেজে কি আঘাত পড়বে?

এখন প্রশ্ন হচ্ছে, ইসলামের নবীর কার্টুন নিয়ে নতুন এই বিতর্ক এবং ইসলাম নিয়ে ফরাসী প্রেসিডেন্টের মন্তব্য-বিবৃতির প্রতিক্রিয়া কতদূর গড়াতে পারে বাংলাদেশে?

ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁ। ইসলাম সম্পর্কে তার সাম্প্রতিক কিছু মন্তব্য নিয়ে মুসলিমদের মধ্যে ক্ষোভ দানা বাঁধছে
ফরাসী প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁ। ইসলাম সম্পর্কে তার সাম্প্রতিক কিছু মন্তব্য নিয়ে মুসলিমদের মধ্যে ক্ষোভ দানা বাঁধছে

সাংস্কৃতিক ও সামাজিকভাবে উদার ও অগ্রসর দেশ হিসাবে ফ্রান্সের যে ভাবমূর্তি বাংলাদেশে রয়েছে তাতে কি বড় কোন আঘাত পড়বে?

নর্থ-সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে রাজনীতি এবং আন্তর্জাতিক সম্পর্কের শিক্ষক ড. আব্দুর রব খান মনে করেন এই ক্ষোভ ‘সাময়িক।‘

তিনি বিবিসিকে বলেন, “ইসলাম নিয়ে বাংলাদেশে স্পর্শকাতরতা রয়েছে, ফ্রান্সে যা হচ্ছে তা নিয়ে হয়ত আগামী কিছুদিনে আরও বিচ্ছিন্নভাবে কিছু প্রতিবাদ দেখা যাবে – কিন্তু এ নিয়ে যে দুই দেশের সম্পর্ক খারাপ হবে বা ফ্রান্স নিয়ে বাংলাদেশের জনমনে বড় কোনো বিরূপ মনোভাব জন্ম নেবে তা বলার সময় এখনো আসেনি।“

ড. খানের কথা, মুসলিম বিশ্বের কোথাও কোথাও যে প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে তার সাথে প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁকে নিয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের কিছু আক্রমণাত্মক কথার সম্পর্ক রয়েছে।

ঢাকায় ম্যাক্রঁ-বিরোধী বিক্ষোভ।
ঢাকায় ম্যাক্রঁ-বিরোধী বিক্ষোভ।

মি. এরদোয়ান দু’দিন আগে ফরাসী প্রেসিডেন্টকে ইসলাম এবং মুসলিম বিদ্বেষী বলে বর্ণনা করে মন্তব্য করেন যে “মি ম্যাক্রঁর এখন মানসিক চিকিৎসা প্রয়োজন।“

ড. আব্দুর রব খানের মতে, মি. এরদোয়ানের এসব বিবৃতির সাথে আন্তর্জাতিক কিছু ইস্যুতে ফ্রান্স এবং তুরস্কের ক্রমবর্ধমান রেষারেষির কিছু সম্পর্ক রয়েছে।

বাংলাদেশের সাবেক পররাষ্ট্র সচিব তৌহিদ হোসেনও মনে করেন না যে নবীর কার্টুন বিতর্ক এবং প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর কিছু মন্তব্য নিয়ে বাংলাদেশে ফ্রান্সের ভাবমূর্তিতে বড় কোনো ধস নামবে।

তিনি এ প্রসঙ্গে ২০০৫ সালে ডেনমার্কের একটি পত্রিকায় নবীর কার্টুন ছাপার প্রসঙ্গ টানেন। তখনও বাংলাদেশে বিক্ষোভ হয়েছে, ডেনিশ পণ্য বর্জনের ডাক দেয়া হয়েছিল, সরকারের পক্ষ থেকে ডেনমার্কের সরকারে কাছে আনুষ্ঠানিক প্রতিবাদও জানানো হয়েছিল।

মি. হোসেন বলেন, “তখনও সেগুলো ছিল তাৎক্ষণিক ক্ষোভের বহি:প্রকাশ। এ নিয়ে ডেনমার্কের সাথে সম্পর্ক খারাপ বা ডেনমার্কের ভাবমূর্তি যে স্থায়ীভাবে নষ্ট হয়ে গেছে তা হয়নি।“

তুরস্কে ইস্তাম্বুল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ফ্রান্সের বিরৃদ্ধে সমাবেশ।
তুরস্কে ইস্তাম্বুল বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ফ্রান্সের বিরৃদ্ধে সমাবেশ।

তৌহিদ হোসেন বলেন, ফ্রান্স নিয়ে মুসলিম বিশ্বের কোথাও কোথাও নতুন করে যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা যাচ্ছে, তার সাথে ‘সাংস্কৃতিক ভিন্নতা‘র একটি সম্পর্ক রয়েছে। “নবীর কোনো অপমান মুসলিমদের কাছে খুবই স্পর্শকাতর বিষয়, কিন্তু ফরাসীরা মনে করে যে কোনো কিছু এবং যে কাউকে নিয়ে কথা বলার অধিকার তাদের রয়েছে।“

তবে, মি হোসেনের মতে, মত প্রকাশের যে যুক্তি ফ্রান্স দেয় তার ভেতর অনেক স্ব-বিরোধিতা রয়েছে।

“নাৎসিদের সমর্থনে আপনি সেখানে কিছু বলতে পারবেননা, আইন করে তা নিষিদ্ধ। আর্মেনিয়ায় গণহত্যা অস্বীকার করা আইন করে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। মত প্রকাশের পূর্ণ স্বাধীনতা কি তাতে থাকে?“

তুরস্ক-ফ্রান্স ‘পাওয়ার গেম‘

ফরাসী প্রেসিডেন্ট এবং তার সরকার নিয়ে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের মন্তব্য নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে ফ্রান্স।

ফরাসী পররাষ্ট্রমন্ত্রী রোববার বলেন, প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান মুসলিম বিশ্বের ফ্রান্সের বিরুদ্ধে ঘৃণা উস্কে দিচ্ছেন। ফ্রান্স তুরস্ক থেকে তাদের রাষ্ট্রদূতকে ফিরিয়ে এনেছে।

ড. আব্দুর রব খান মনে করেন, মি. এরদোয়ান ফ্রান্স বা ফরাসী প্রেসিডেন্টকে নিয়ে যেসব বক্তব্য বিবৃতি দিচ্ছেন, তা সাথে সাথে এই দুই দেশের মধ্যে শুরু হওয়া ‘পাওয়ার গেমের‘ (ক্ষমতার রেষারেষি) সম্পর্ক রয়েছে।

পূর্ব ভূমধ্যসাগরে খনিজ সম্পদ অনুসন্ধান নিয়ে তুরস্ক ও গ্রীসের মধ্যে যে রেষারেষি চলছে সেখানে ফ্রান্স সরাসরি গ্রীসকে সমর্থন যোগাচ্ছে।

লিবিয়ায় তুরস্কের সামরিক হস্তক্ষেপের তীব্র বিরোধিতাও করেছে ফ্রান্স। আজারবাইজান-আর্মেনিয়া সংঘাতে তুরস্কের ভূমিকার সমালোচনা করছেন প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ — এগুলো মি. এরদোয়ানের একবারেই পছন্দ নয়।

সেইসাথে, সৌদি আরব এবং মিশরকে হটিয়ে ইসলামী বিশ্বের নেতৃত্ব নেওয়ার একটা অভিলাষ তৈরি হয়েছে তুরস্কের মধ্যে, এবং অনেক পর্যবেক্ষকই মনে করেন সে কারণে মুসলিমদের স্পর্শকাতরতা নিয়ে – তা ফিলিস্তিনী সংকট, রোহিঙ্গা সমস্যা বা কাশ্মীর সমস্যা হোক বা ফ্রান্সে মুসলিম বিদ্বেষ হোক- মি. এরদোয়ান খুবই সোচ্চার।

কতদূর গড়াতে পারে?

তৌহিদ হোসেন মনে করেন, ফ্রান্স-বিরোধী মনোভাব বাংলাদেশ বা মুসলিম বিশ্বে কতটা শক্তভাবে দানা বাঁধবে বা দীর্ঘস্থায়ী হবে তা অনেকটাই নির্ভর করবে ওআইসি‘র মত মুসলিম দেশগুলোর বড় যেসব প্লাটফর্ম রয়েছে তাদের ভূমিকার ওপর।

তিনি বলেন, “তারা যদি এ বিষয়টি নিয়ে চর্চা শুরু করে, বিবৃতি দেয়- তাহলে হয়তো মুসলিম বিশ্বে আরো বেশি ফ্রান্স বিরোধী মনোভাব বিস্তার লাভ করতে পারে।“

তবে সৌদি আরব বা মিশর মি. এরদোয়ানের সুরে সুর মেলাবেন – সে সম্ভাবনা এখন খুবই কম। তাদের কাছে ফ্রান্সের চেয়ে তুরস্কের এরদোয়ান সরকার এখন অনেক বড় শত্রু।

একইসাথে, অনেক পর্যবেক্ষক বলছেন, মুসলিম বিশ্বে তৈরি হওয়া অসন্তোষকে কতটা গুরুত্ব প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ দেন বা ভবিষ্যতে তিনি কি বলেন বা করেন – তার ওপর ফ্রান্স নিয়ে মুসলিমদের প্রতিক্রিয়ার গতি-প্রকৃতি অনেকটাই নির্ভর করবে।

ফ্রান্সে গত পাঁচ বছরে একের পর সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে। দু’শরও বেশি মানুষ মারা গেছে। ফলে, কট্টর ডানপন্থী দলগুলোর কাছে থেকে চাপে পড়েছেন মি. ম্যাক্রঁ।

তৌহিদ হোসেন এবং আরো অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করেন, ইসলাম নিয়ে বা ইসলামী কট্টরপন্থা নিয়ে প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ যেসব স্পর্শকাতর কথাবার্তা বলছেন তার সাথে অভ্যন্তরীণ রাজনীতির সম্পর্ক রয়েছে।

সামনের বছর ফ্রান্সে স্থানীয় সরকার নির্বাচনের আগে মি ম্যাক্রঁ দেখাতে চাইছেন তিনি কট্টর ইসলাম এবং সন্ত্রাস দমনে কঠোর হতে দ্বিধা করবেন না।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফ্রান্স

ফ্রান্স: ম্যাক্রঁ বন্দনায় বিজেপি নেতা থেকে নেটিজেনরা, ভারতে ট্রেন্ডিং ফ্রান্সের প্রতি সমর্থন

ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রঁ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী
ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রঁ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

ফ্রান্সে সম্প্রতি ক্লাসরুমে ইসলামের নবীর কার্টুন দেখানোর সূত্রে একজন স্কুল শিক্ষকের শিরশ্ছেদের ঘটনার পর ইসলাম ধর্ম নিয়ে প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রঁর সাম্প্রতিক কিছু মন্তব্যের বিরুদ্ধে মুসলিম বিশ্বে যখন প্রতিবাদের ঝড় উঠেছে ও ফরাসি পণ্য বয়কটের ডাক দেওয়া হচ্ছে – তখন কিন্তু ভারতে তার সমর্থনে নানা হ্যাশট্যাগ ট্রেন্ড করছে।

ফ্রান্সের প্রতি সংহতিসূচক #আইস্ট্যান্ডইউথফ্রান্স এবং #উইস্ট্যান্ডউইথফ্রান্স ভারতে গত বাহাত্তর ঘন্টা ধরেই ‘টপ ট্রেন্ড’গুলোর মধ্যে উঠে এসেছে।

সংখ্যাগরিষ্ঠ হিন্দুদের এই দেশে হাজার হাজার ভারতীয় সোশ্যাল মিডিয়াতে ফ্রান্সের ভূমিকাকে সমর্থন করছেন, প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর ‘বীরোচিত’ নেতৃত্বকে তারিফ জানাচ্ছেন।

ক্ষমতাসীন দল বিজেপি-র নেতা ও পশ্চিম দিল্লির এমপি পরভেশ সাহিব সিং টুইট করেছেন : “সহিষ্ণুতাও ধর্মনিরপেক্ষ হওয়া উচিত। #আইস্ট্যান্ডইউথফ্রান্স। ফরাসি প্রেসিডেন্ট, আপনি দারুণ কাজ করেছেন।”

PARVESH SAHIB SINGH

প্রথম সারির জাতীয় নিউজ চ্যানেল টিভি-নাইনের সম্পাদক ও অ্যাঙ্কর প্রিয়াঙ্কা দেও জৈন টুইটারে লিখেছেন:

“একজন খ্রিস্টান/হিন্দু/ইহুদী শিক্ষক যদি ক্লাসে মেরি/কৃষ্ণ/যীশুর কার্টুন দেখান ও তারপর একজন খ্রিস্টান/হিন্দু/ইহুদী তার শিরশ্ছেদ করে তাহলে অবশ্যই সেটা ওই ধর্মের উগ্র মৌলবাদ হিসেবে গণ্য হবে। ইসলাম কেন এর ব্যতিক্রম হবে?”

‘ভারত কা রক্ষক’-সহ বিভিন্ন দক্ষিণপন্থী গোষ্ঠী, যারা নিজেদের কট্টর দেশপ্রেমী বলে পরিচয় দেয়, তারাও এই বিতর্কে ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ-র সমর্থনে সোশ্যাল মিডিয়াতে নানা পোস্ট করেছে।

#ওয়েলডানম্যাক্রঁ কিংবা #ম্যাক্রঁদ্যহিরো-র মতো নতুন নতুন নানা হ্যাশট্যাগও ভারতে উঠে আসছে, অনেকে এখন আরও বেশি করে ফরাসি জিনিসপত্র কেনারও ডাক দিচ্ছেন।

মুম্বাইতে কিছু মুসলিম গোষ্ঠী বুধবার প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর বিরুদ্ধে বিক্ষোভও দেখিয়েছে
মুম্বাইতে কিছু মুসলিম গোষ্ঠী বুধবার প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর বিরুদ্ধে বিক্ষোভও দেখিয়েছে

আর এই সবই ঘটছে এমন একটা পটভূমিতে, যখন ভারতে গত ছবছর ধরে ক্ষমতায় থাকা নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরুদ্ধে বারে বারেই মুসলিম-বিরোধী নীতি অনুসরণ করার অভিযোগ উঠেছে।

ফ্রান্স ও ইসলামকে কেন্দ্র করে এই চলমান বিতর্কে আনুষ্ঠানিকভাবে ভারত সরকার অবশ্য এখনও কোনও বিবৃতি দেয়নি।

তবে শাসক দল বিজেপির নেতারা অনেকেই তাদের মনোভাব স্পষ্ট করে দিয়েছেন।

গত ডিসেম্বরেই ভারত সরকার একটি বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইন পাস করেছিল, যাতে প্রতিবেশী বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে আসা ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রস্তাব করা হলেও মুসলিমদের তা থেকে বঞ্চিত করা হয়।

Priyanka Deo Jain

সেই নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদের সূত্র ধরে গত ফেব্রুয়ারিতে রাজধানী দিল্লিতে ভয়াবহ সাম্প্রদায়িক দাঙ্গাও শুরু হয় – যাতে হতাহতদের বেশির ভাগই ছিলেন মুসলিম।

তার আগের কয়েক বছরেও ভারতের নানা প্রান্তে ‘বিফ’ বা গোমাংস বহন করার অভিযোগে বহু মুসলিমকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে। সেই সব ঘটনায় অপরাধীদের কারও শাস্তি হয়নি বললেই চলে।

দেশের ভেতরে এভাবে যখন একটা মুসলিম-বিরোধী বাতাবরণ ক্রমশ প্রশ্রয় পেয়েছে, তখন দেশের বাইরেও কিন্তু ফ্রান্সের সঙ্গে ভারতের কূটনৈতিক ঘনিষ্ঠতা বেড়েছে।

২০১৬ সালে ভারত সরকার ৩৬টি অত্যাধুনিক রাফাল ফাইটার জেট কেনার জন্য ফ্রান্সের সঙ্গে একটি বিতর্কিত প্রতিরক্ষা চুক্তিও করেছিল।

ফ্রান্সের কাছ থেকে ভারতের কেনা রাফাল যুদ্ধবিমানগুলোর একটি
ফ্রান্সের কাছ থেকে ভারতের কেনা রাফাল যুদ্ধবিমানগুলোর একটি

সেই যুদ্ধবিমানগুলোর প্রথম ব্যাচের পাঁচটি মাসকয়েক আগেই ভারতে এসে পৌঁছেছে, আর সেগুলো আঞ্চলিক নিরাপত্তার ক্ষেত্রে ভারতকে বিরাট সুবিধা এনে দেবে বলেই সামরিক বিশেষজ্ঞরা দাবি করছেন।

এই পটভূমিতে ভারত যে এখন প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর সমালোচনা করে কোনও পদক্ষেপ নেবে না, পর্যবেক্ষকরাও সে বিষয়ে একমত।

আর ভারতের সোশ্যাল মিডিয়াতেও দেখা যাচ্ছে তারই প্রতিফলন – যেখানে ফ্রান্সের সমর্থনে কার্যত ঝড় উঠেছে!

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

চীন

বাঘের আলিঙ্গন: যে ছবি পেল সেরা পুরষ্কার

সার্গেই গর্শকফের পুরষ্কার জেতা ছবিটির শিরোনাম: আলিঙ্গন
সার্গেই গর্শকফের পুরষ্কার জেতা ছবিটির শিরোনাম: আলিঙ্গন

বিশ্বের সবচেয়ে বিরল কোন প্রাণীর ছবি তুলতে হলে আপনার প্রয়োজন হবে দক্ষতা এবং সৌভাগ্য।

রুশ ফটোগ্রাফার সার্গেই গর্শকফের যে দুটোই রয়েছে তার প্রমাণ পাওয়া গেল তার তোলা ছবিতে।

রাশিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় অরণ্যে তার তোলা একটি সাইবেরিয়ান বাঘ (আমুর টাইগার)-এর ছবি এ বছরের সেরা বন্যপ্রাণীর ছবি হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

এই মাদি মাঘকে দেখা যাচ্ছে ল্যান্ড অফ লেপার্ড ন্যাশনাল পার্কের একটি গাছকে জড়িয়ে ধরে আছে।

গাছের গায়ে ঘষা দিয়ে এবং প্রস্রাব করে এক বাঘ অন্য বাঘকে তার নিজের বিচরণ ক্ষেত্রের কথা জানিয়ে দেয়।

“ছবিটির আলো, রং এবং টেক্সচার ইত্যাদি দেখে মনেই হয় না এটি একটি ছবি। মনে হয় এটি একটি অয়েল পেইন্টিং,” বলছেন ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অফ দ্যা ইয়ার প্রতিযোগিতার একজন বিচারক রজ কিডম্যান।

“দেখে মনে হয় বাঘটি অরণ্যের এক অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। এমনকি বাঘের লেজটি পর্যন্ত মিশে আছে গাছের গুঁড়ির সাথে,‍ বিবিসিকে বলছিলেন তিনি।

এই ছবির আরও চমকপ্রদ দিক হলো যেভাবে ছবিটা তোলা হয়েছে।

এই ক্যামেরা-ট্র্যাপ যন্ত্র জঙ্গলের মধ্যে বাসিয়ে রাখা হয়। কোন বন্য প্রাণী এর আওতার মধ্যে এলেই ক্যামেরা স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার ছবি তুলে রাখে।

সে জন্য সার্গেইকে জানতে হয়েছে কোথায় ক্যামেরা বসাতে হবে, কোন্‌ অ্যাঙ্গেল থেকে ছবি তুলতে হবে ইত্যাদি। ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার হিসেবে সেখানেই প্রয়োজন হয় দক্ষতা ও একাগ্রতা।

পূর্ব রাশিয়ায় অবৈধ শিকারের জেরে বাঘের সংখ্যা কমতে কমতে প্রায় বিপন্ন হয়ে পড়েছে। এসব বাঘের সংখ্যা এখন কয়েকশোতে ঠেকেছে বলে ধারণা করা হয়।

হরিণ, বুনো শুয়োর — আমুর টাইগারের প্রধান খাদ্য — তাদের সংখ্যাও কমেছে ব্যাপক হারে শিকারের ফলে।

আমুর টাইগার বিরল হয়ে পড়ায় তার ছবি তোলার কাজও বেশ কঠিন। সার্গেই যে সেরা ছবি তুলেছেন, তার জন্য তার ক্যামেরা-ট্র্যাপ যন্ত্রকে বসিয়ে রাখতে হয়েছিল ১০ মাস।

লন্ডনের ন্যাচারাল হিস্ট্রি মিউজিয়াম প্রতি বছর বন্য প্রাণীদের সেরা ছবি পুরষ্কার দিয়ে থাকে। এটা দেয়া হচ্ছে গত ৫৫ বছর ধরে।

শেয়ালের খপ্পরে বুনো হাঁস: লিনা হেকিনেন, ফিনল্যান্ড
শেয়ালের খপ্পরে বুনো হাঁস: লিনা হেকিনেন, ফিনল্যান্ড

একটি বাচ্চা শেয়াল যেভাবে একটি বুনো হাঁসকে কামড়ে খাচ্ছে — এই ছবিটি তুলেছেন ফিনল্যান্ডের টিনএজ ফটোগ্রাফার লিনা হেকিনেন। ১৫-১৭ বছর বয়সী ফটোগ্রাফারদের ক্যাটেগরিতে এটি সেরা ছবি হিসেবে বিবেচিত হয়।

শেয়ালটি তার খাবারকে অন্য শেয়ালের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য একটি পাথরের খাঁজে ঢুকে পড়েছিল।

দ্যা পোজ: মগেন্স ট্রোল, ডেনমার্ক
দ্যা পোজ: মগেন্স ট্রোল, ডেনমার্ক

এটি একটি প্রবোসিস জাতের পুরুষ বাঁদরের ছবি। এটি অ্যানিমাল পোর্ট্রেট বিভাগে এবার সেরা ছবি হিসেবে বাছাই হয়েছে। ইন্দোনেশিয়ার বোর্নিও দ্বীপে একটি অভয়ারণ্যে এই ছবিটি তোলা হয়।

বয়স বাড়ার সাথে সাথে বাঁদরটির নাকের দৈর্ঘ্যও বাড়তে থাকবে। বড় নাকের সাহায্যে তার ডাকও বেশি শোনা যাবে। এবং বাঁদরের দলের মধ্যে তার অবস্থানকেও পরিষ্কার করবে।

আগুনের নদী: লুচিয়ানো গুয়াডেনজিও, ইতালি
আগুনের নদী: লুচিয়ানো গুয়াডেনজিও, ইতালি

ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অফ দ্যা ইয়ার প্রতিযোগিতায় শুধু বন্য প্রাণীর ছবি তোলা হয় না।

ইউরোপের জীবন্ত আগ্নেয়গিরি ইতালির মাউন্ট এট্নার এই ছবিটি আর্থস এনভায়রনমেন্ট ক্যাটেগরিতে সেরা ছবি নির্বাচিত হয়েছে।

এই ছবি তোলার জন্য লুচিয়ানো গুয়াডেনজিওকে প্রচণ্ড তাপ এবং আগ্নেয়গিরির বিষাক্ত ভাপ সহ্য করতে হয়েছে।

ভারসাম্যের জীবন: হাইম কুলেব্রাস, স্পেন
ভারসাম্যের জীবন: হাইম কুলেব্রাস, স্পেন

ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অফ দ্যা ইয়ার প্রতিযোগিতার সরিসৃপ বিভাগের এটি সেরা ছবি। এই গ্লাস ফ্রগ জাতের ব্যাঙটির মুখে মাকড়শা। হাইম এই ছবিটি তুলেছেন একুয়েডরের ম্যানডুরিয়াকু অরণ্যে। তখন প্রবল বৃষ্টিপাত হচ্ছিল। এর মধ্যেই তিনি এক হাতে ছাতা এবং ফ্ল্যাশ লাইট ধরে অন্য হাত দিয়ে ক্যামেরা পরিচালনা করেন।

দুই বোলতার গল্প: ফ্র্যাংক ডেশানডল, ফ্রান্স
দুই বোলতার গল্প: ফ্র্যাংক ডেশানডল, ফ্রান্স

উত্তর ফ্রান্সের নরমান্ডিতে এই ছবিটি তোলা হয়েছে। এর জন্য ক্যামেরায় বিশেষ ধরনের দ্রুত গতির শাটার ব্যবহার করা হয়েছে যাতে বোলতা দুটির পাখার ছবিকে ফ্রেমবন্দি করা যায়।

সোনালি মুহূর্ত: সোংডা কাই, চীন
সোনালি মুহূর্ত: সোংডা কাই, চীন

ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অফ দ্যা ইয়ার প্রতিযোগিতার আন্ডার ওয়াটার বিভাগের সেরা ছবি। এটা একটা ডায়মন্ড-ব্যাকড স্কুইড। ফিলিপিন্সের আনিলাও উপকূলে জলের তলে রাতের বেলা সোংডা এই ছবিটি তোলেন। স্কুইডটি প্রায় ৬-৭ সেন্টিমিটার দীর্ঘ।

মা বলেছেন দৌড় দাও: শানুয়ান লি, চীন
মা বলেছেন দৌড় দাও: শানুয়ান লি, চীন

এই বন বিড়ালের বাচ্চাগুলিকে দেখা যায় উত্তর-পশ্চিম চীনের চিংহাই-তিব্বত মালভূমিতে। ছয় বছর ধরে অনুসরণের পর শানুয়ান এই ছবিটি তুলতে সমর্থ হন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

‘ইসলাম সঙ্কটে‘- প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর এই বক্তব্যে তীব্র প্রতিক্রিয়া

প্যারিসের গ্র্যান্ড মসজিদে জুমার নামাজ।
প্যারিসের গ্র্যান্ড মসজিদে জুমার নামাজ।

ইসলাম এবং ফরাসী মুসলিমদের নিয়ে প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ শুক্রবার প্যারিসের কাছে অভিবাসী অধ্যুষিত একটি এলাকায় ঘন্টাখানেকেরও বেশি সময় ধরে তার এক ভাষণে যে ভাষায় কথা বলেছেন, যে শব্দ বা বিশেষণ ব্যবহার করেছেন – তার নজির ফ্রান্সে বিরল।

তিনি বলেন, যে সব গোষ্ঠী, প্রতিষ্ঠান এবং ব্যক্তি ফ্রান্সের ঐক্য এবং ফরাসী প্রজাতন্ত্রের ‘ধর্মনিরপেক্ষ মূল্যবোধকে‘ হুমকিতে ফেলছে তাদের মোকাবেলার জন্য নতুন একটি আইন তিনি আনছেন। ফরাসী সমাজের ঐ কথিত শত্রু হিসাবে তিনি পরিষ্কার করেই চিহ্নিত করেছেন ‘কট্টর ইসলাম‘কে।

প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ বলেন, ফ্রান্সের ঐক্যের প্রধান বন্ধনই হচ্ছে ‘ধর্মনিরপেক্ষতা।‘

“যারা ধর্মের নামে সেখানে ফাটল ধরাতে চায় তাদের বিরুদ্ধে আমাদের লড়তে হবে,“ তিনি বলেন।

ইসলাম সঙ্কটে

ইসলামি স্কুলগুলোর ওপর নজরদারি বাড়ানো হবে
ইসলামি স্কুলগুলোর ওপর নজরদারি বাড়ানো হবে

পুরো ভাষণ ধরে মি ম্যাক্রঁ বলার চেষ্টা করেন তিনি ইসলাম ধর্ম বা মুসলিমদের বিরুদ্ধে নন, কিন্তু একইসাথে ইসলাম ধর্ম নিয়ে গভীর শঙ্কা প্রকাশ করেন ফরাসী প্রেসিডেন্ট।

“বিশ্বজুড়ে ইসলাম একটি সঙ্কটে পড়েছে, এমনকি মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশেও এই ধর্মটি সঙ্কটে।“

তিনি বলেন, “এই ধর্মটিকে এখন আমাদের সাহায্য করতে হবে যাতে তারা ফ্রান্স প্রজাতন্ত্রের অংশীদার হতে পারে।“

তিনি বলেন, ফ্রান্সে এমন একটি ইসলাম প্রতিষ্টা করতে হবে যার ভিত্তি ‘জ্ঞানের আলো।’

এ প্রসঙ্গে তিনি ফ্রান্সে রাষ্ট্র থেকে গির্জাকে আলাদা করার ঐতিহাসিক আন্দোলনের প্রসঙ্গ তুলে ধরেন।

মুক্ত ইসলাম

২০২২ সালে আবারো নির্বাচন করবেন প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ
২০২২ সালে আবারো নির্বাচন করবেন প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ

ফরাসী রাজনীতিকদের মুখে ইসলামের সংস্কার, ফ্রান্সের রাজনৈতিক-সংস্কৃতির সাথে খাপ খায় এমন ইসলামের কথা নতুন নয়।

সাবেক ফরাসী প্রেসিডেন্ট নিকোলাস সারকোজিও ‘ইসলাম পুনর্গঠনের‘ পরিকল্পনা করেছিলেন। শুক্রবার প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর কণ্ঠেও একই ধরনের সুর শোনা যায়।

তিনি বলেন, “ফরাসী প্রজাতন্ত্রকে রক্ষা, এর মূল্যবোধ রক্ষা এবং সাম্য এবং মুক্তির জন্য প্রজাতন্ত্রের যে প্রতিশ্রুতি তা বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা জরুরি।“

ফরাসী প্রেসিডেন্ট বলেন, ফ্রান্সের ৬০ লাখ মুসলিমের একটি অংশ একটি বিকল্প সমান্তরাল সমাজ প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করছে যা বিপজ্জনক ।

“সমস্যা হচ্ছে একটি (ধর্মীয়) মতবাদ নিয়ে যেটি দাবি করছে যে তাদের নিজস্ব আইন প্রজাতন্ত্রের আইনের চেয়ে শ্রেয় …বিদেশি প্রভাব থেকে ফরাসী ইসলামকে রক্ষা করতে হবে।“

মুসলিমদের প্রতিক্রিয়া

ফ্রান্সের একটি উগ্র ডানপন্থী দল ইসলামবিরোধী মিছিলের প্রস্তুতি নিচ্ছে।
ফ্রান্সের একটি উগ্র ডানপন্থী দল ইসলামবিরোধী মিছিলের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কট্টর ইসলাম এবং ইসলামী সন্ত্রাস নিয়ে ফ্রান্স এবং ইউরোপের অন্যান্য দেশের নেতাদের মধ্যে উদ্বেগ, সমালোচনা শোনা যাচ্ছে, তবে প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর মত মূল ধারার মধ্যপন্থী একজন রাজনীতিকের মুখ থেকে ইসলাম নিয়ে এমন কথাবার্তায় অনেকেই অবাক হয়েছেন।

ফ্রান্সের মুসলিম নেতারা তাদের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় ক্ষুব্ধ। তারা বলছেন, প্রেসিডেন্ট ক্ষুদ্র রাজনৈতিক স্বার্থে মুসলিম বিদ্বেষীদের সূরে গলা মিলিয়েছেন, এবং তার প্রস্তাবিত আইন ফরাসী মুসলিমদের মূলধারার সমাজ থেকে আরো বিচ্ছিন্ন করবে।

প্যারিস মসজিদের রেক্টর শামসেদ্দিন হাফিজ দৈনিক ল্য ম্যঁদ-এ এক উপ-সম্পাদকীয়তে প্রেসিডেন্টের পুরো বিবৃতি এবং তার প্রস্তাবিত আইনকে ‘ছল-চাতুরি‘ বলে বর্ণনা করেছেন।

তিনি বলেন, নির্বাচনের আগে ইমেজ বাড়াতে এ ধরণের জনপ্রিয় কথাবার্তার বদলে ঐক্যবদ্ধ প্রয়াস দরকার। তিনি বলেন, মি ম্যাক্রঁ যেসব পরিবর্তনের কথা বলছেন, তা “রাষ্ট্রের ক্ষমতার আওতায় পড়েনা।“

মুসলমানদের অধিকারের প্রতি সমর্থন জানিয়েও মিটিং-মিছিল হয়।
মুসলমানদের অধিকারের প্রতি সমর্থন জানিয়েও মিটিং-মিছিল হয়।

ফরাসী মুসলিম এ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট আমর লাসফার রয়টার্স বার্তা সংস্থার সাথে এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ইসলাম এবং মুসলিমদের নিয়ে মি ম্যাক্রঁ যেসব শব্দ এবং বিশেষণ ব্যবহার করেছেন তা আপত্তিকর।

“তিনি মানুষের সামনে একটি বিপদ, ভীতি তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন যার সাথে আমি একমত নই। তিনি শুধুই কট্টরপন্থা বা জঙ্গিবাদ নিয়ে কথা বলতে পারতেন। ‘ইসলামি জঙ্গিবাদ‘ শব্দটি ব্যবহার করে সমস্ত মুসলিমকে এক কাতারে ফেলে দেওয়া ঠিক হয়নি।“

লেখক গবেষক ব্রুনো ম্যাকায়েস টুইট করেছেন, “মি ম্যাক্রঁ ইসলাম সম্পর্কে তার মনোভাব চেপে রাখেননি। এখন শুধু কট্টর ইসলামই তার কাছে সমস্যা নয়, ইসলাম ধর্মই তার সমস্যা।“

ফরাসী মুসলিম মানবাধিকার কর্মী ইয়াসের লুয়াতি টুইট করেছেন, “মুসলিমরা এমনিতেই আক্রমণের হুমকিতে। এখন মি. ম্যাক্রঁ আরো আক্রমণের প্রতিশ্রুতি দিলেন। তার এক ঘণ্টার ভাষণে তিনি ধর্মনিরপেক্ষতাকে জলাঞ্জলি দিয়েছেন এবং কট্টর ডানপন্থী এবং মুসলিম বিদ্বেষী বামপন্থীদের সুরে গান গেয়েছেন।“

প্রস্তাবিত আইনে কী থাকছে

কট্টর ইসলাম থেকে ফরাসী সমাজকে রক্ষায় প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ যে আইন আনার কথা ঘোষণা করেছেন, অক্টোবরের মাঝামাঝি নাগাদ তার একটি খসড়া চূড়ান্ত হবে বলে জানা গেছে। তবে প্রেসিডেন্টের বক্তব্য-বিবৃতি এবং সরকারি কর্মকর্তাদের সূত্রে জানা গেছে যে ইসলামি শিক্ষা, মাদ্রাসা, ইসলামি প্রতিষ্ঠানে বিদেশী চাঁদা এবং কট্টর ইসলামি ভাবধারা প্রসারের বিরুদ্ধে কঠোর নজরদারি এবং তা নিয়ন্ত্রণের পরিকল্পনা করা হচ্ছে:

  • সরকারি চাকরিতে আছেন এমন কারো মধ্যে কট্টর মতবাদে দীক্ষা নেওয়ার কোনো ইঙ্গিত দেখা গেলে সরকার সেখানে সহজে হস্তক্ষেপ করতে পারবে।
  • খেলাধুলো, বিনোদন বা অন্য কোনো কর্মকাণ্ডের আড়ালে ধর্মীয় কট্টরবাদ ছড়ানোর কোনো চেষ্টায় সরকারের নিয়ন্ত্রণ কঠোর হবে।
  • তিন বছর বয়স থেকে স্কুলে যাওয়া বাধ্যবাধকতা করা হবে এবং ঘরে লেখাপড়ার নিষিদ্ধ করা হবে। একটি ধারণা রয়েছে যে অনেক মুসলিম পরিবার মূল ধারার শিক্ষা এড়িয়ে বাচ্চাদের ঘরে বসে পড়ানোর নামে অনুমোদিত মাদ্রাসায় পাঠায়।-আরবি ভাষায় পরিচালিত স্কুলের ওপর নজরদারি বাড়ানো হবে।
  • বিদেশ থেকে ধর্মীয় গোষ্ঠীগুলোর ওপর চাঁদা নেওয়ার ওপর কড়া নজরদারির ব্যবস্থা হবে, এবং ফরাসী রাষ্ট্রের মূল্যবোধের সাথে সাংঘর্ষিক কোনো সামাজিক-ধর্মীয় প্রকল্প নিষিদ্ধ হবে।
  • বাইরের দেশ থেকে ইমাম আনা বন্ধ করে ফ্রান্সের ভেতরে ইমাম প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। একটি ইসলামি ইন্সটিটিউট প্রতিষ্ঠা করবে সরকার যেখানে বিজ্ঞানভিত্তিক শিক্ষার ব্যবস্থা থাকবে।

কেন এখন এই বিতর্কিত পদক্ষেপ

দেশের ভেতর ইসলামী জঙ্গিবাদ নিয়ে ফ্রান্স বেশ কয়েকবছর ধরে সঙ্কটে রয়েছে। গত পাঁচ বছরে সন্ত্রাসী হামলায় ফ্রান্সে ২৫০ জনের মত মারা গেছে। এই সন্ত্রাস মোকাবেলায় ব্যাপারে সরকারের ভূমিকা নিয়ে জনমনে ক্ষোভ রয়েছে, এবং আগামী বছর স্থানীয় নির্বাচন এবং দু বছর পর সাধারণ নির্বাচনে বিষয়টি বড় ইস্যু হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

অনেক পর্যবেক্ষক বলছেন, অপরাধ এবং জঙ্গি ইসলামের বিরুদ্ধে তিনি ততটা শক্ত নন বলে যে অভিযোগ রয়েছে নির্বাচনের আগে তা খণ্ডনে তৎপর হয়েছেন মি. ম্যাক্রঁ।

নতুন এক জনমত জরিপ বলে, কট্টর ইসলাম রুখতে প্রেসিডেন্টের প্রস্তাবিত আইনের প্রতি সিংহভাগ ফরাসীর সমর্থন রয়েছে।

তবে সরকারি কর্মকর্তাদের উদ্ধৃত করে রয়টর্স বার্তা সংস্থা বলছে, সরকার এখন কট্টর ইসলামী ভাবধারা প্রসারের বিভিন্ন আলামত নিয়ে সত্যিই উদ্বিগ্ন।

একজন কর্মকর্তা বলেন,”ফ্রান্সে অনেক মুসলিম পুরুষরা এখন নারীদের সাথে হ্যান্ডশেক করতে চাইছে না। মুসলিম প্রধান এলাকাগুলোতে সুইমিং পুলে নারী এবং পুরুষের জন্য আলাদা সময় বেঁধে দেওয়া হচ্ছে এমনকি চার বছর বয়সী বাচ্চা মেয়েদের মাথাতেও হিজাব চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। অনুমোদিত মাদ্রাসার সংখ্যা বাড়ছে।”

জানা গেছে, ক্যাফেটেরিয়া বা সুইমিং পুলে নারী-পুরুষকে পৃথক করাকে স্থানীয় কোনো মেয়র অনুমোদন দিলেও তা বাতিলের জন্য কেন্দ্রীয় সরকারকে ক্ষমতা দেওয়া হবে।

মুসলিম জনগোষ্ঠীর বিচ্ছিন্নতা

ইউরোপের মধ্যে ফ্রান্সে মুসলিমদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। ফ্রান্সে মুসলিম জনসংখ্যা ৬০ লাখের মত যা সেদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় ৮ শতাংশ। তাদের অধিকাংশই এসেছে আফ্রিকায় সাবেক ফরাসী সব উপনিবেশ থেকে।

পর্যবেক্ষকরা বলেন, সাম্প্রতিক দশকগুলোতে দ্বিতীয় বা তৃতীয় প্রজন্মের ফরাসী মুসলিমদের ভেতর তাদের ধর্মীয় পরিচিতি প্রকাশের ব্যাপারে আকাঙ্ক্ষা বেড়েছে যা নিয়ে কট্টর ধর্মনিরপেক্ষ ফরাসী রাষ্ট্রের সাথে মুসলিমদের বিরোধ বাড়ছে।

সেইসাথে মুসলিমরা সবসময় বৈষম্য, বর্ণবাদী দৃষ্টিভঙ্গির অভিযোগ করেন। কয়েক প্রজন্ম ধরে ফ্রান্সের নাগরিক হলেও শিক্ষা, চাকরি-বাকরিতে তারা অনেক পিছিয়ে।

ফরাসী ইন্সটিটিউট অব ডেমোগ্রাফিক স্টাডিজের এক রিপোর্টে দেখা গেছে, প্রথম প্রজন্মের আলজেরিয়ান অভিবাসীদের মধ্যে ১৫% বেকারত্ব ছিল। সেই সংখ্যা এখন আরো বেড়ে ১৭ শতাংশে দাঁড়িয়েছে।

ফলে, বৈষম্য নিয়ে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ক্ষোভের কারণেও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ফ্রান্সের মুসলিম সমাজের একটি বিরাট অংশের মধ্যে মধ্যে ধর্মীয় রক্ষণশীলতার প্রতি ঝোঁক বাড়ছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com