আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

এগ্রোটেক

প্রযুক্তি ব্যবহার করে কি ধানের দাম বাড়ানো যাবে?

প্রযুক্তি ব্যবহার করে কি ধানের দাম বাড়ানো যাবে?

বাজারে দাম না পাওয়ায় কৃষকদের মাঝে হাহাকার পড়েছে। সরকার ভাবছে প্রযুক্তির ব্যবহার ও চাল রপ্তানির কথা।

টাঙ্গাইল জেলার ক’দিন আগে একজন কৃষক ক্ষোভ এবং হতাশা থেকে জমিতে পাকা ধানে আগুন লাগিয়ে দেন।

দেশে যে বছরই ধানের ফলন ভাল হয়, তখনই ধানের দাম নিয়ে কৃষকরা হতাশায় পড়তে হয়।

এই চক্র থেকে বেরিয়ে আসার আদৌ কি কোন উপায় আছে – এই প্রশ্ন এখন উঠছে।

উত্তরের জেলা কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী এলাকার মোসাম্মৎ বানেশা বেগম অন্যের তিন বিঘা জমি বর্গা নিয়ে বোরো ধান চাষ করেছিলেন। কিন্তু এখন তার শ্রম এবং খরচের তুলনায় ধানের দাম কম হওয়ায় তিনি থমকে গেছেন।

“ধানের দাম নাই। কিন্তু কৃষি খরচ বেশি। ১২০০ টাকা দিয়া এক বিঘা ধান কাটাতে কামলা নিতে হয়। পোষায় না।”

টাঙ্গাইলের কালিহাতি উপজেলার বানকিনা গ্রামের একজন কৃষক আবদুল সিকদার কয়েকদিন আগে তার জমিতে পাকা ধানে পেট্রোল ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিলেন।

খরচের তুলনায় ধানের দাম কম হওয়ায় ক্ষোভ এবং হতাশা থেকে তিনি এটা করেছিলেন বলে তার পরিবারের একজন সদস্য জানিয়েছেন।

বোরো ধান মণপ্রতি এখন কৃষকদের ৫০০ থেকে ৬০০ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে।
কুড়িগ্রামের একজন কৃষক আজিজার রহমান বলছিলেন, প্রতি বছরই ধানের দাম নিয়ে তাদের হতাশায় পড়তে হচ্ছে।

“আমাদের জমিতে ধান ছাড়া অন্য ফসল করা যায় না। এটা ধানী জমি। সে কারণে বাধ্য হয়ে ধান করি।”

ধানের দাম বাড়াতে দুই উদ্যোগ – প্রযুক্তি ও রপ্তানী
সরকারও এ পরিস্থিতিটা স্বীকার করছে।

কৃষিমন্ত্রী ড: আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, এই বছর আমন এবং আউশের উৎপাদন বেশি হয়েছে। এখন বোরো ধানও এক কোটি ৯০ লাখ টনের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে।

ফলন বেশি হওয়ায় ধানের দাম এবার আগের তুলনায় অস্বাভাবিক কম বলে তিনি মনে করেন।
ড: রাজ্জাক জানিয়েছেন, তাৎক্ষণিক এবং দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা সরকার নিচ্ছে।

তিনি বলেছেন, তাৎক্ষণিকভাবে পরিস্থিতি সামাল দেয়ার জন্য চাল রপ্তানির বিষয় সরকার সক্রিয়ভাবে বিবেচনা করছে।

“কৃষক আমন ধানও ভাল দামে বিক্রি করতে পারে নাই এই অস্বাভাবিক হারে দাম কমে গেছে। ইতিমধ্যে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হাওর থেকেও ধান কাটা হয়ে গেছে। ফলে স্পষ্ট বোঝা যায়, অনেক ধান উদ্বৃত্ত থাকবে।”

“আমরা বেশি কিনতে পারতাম। কিন্তু সরকারি গুদামের ধারণ ক্ষমতা অনেক কম। সেজন্য আমরা ১২ লাখ টন টার্গেট করেছি। তার চেয়ে বেশি কেনা সম্ভব হবে না। আর সাড়ে তিন কোটি টন চালের মার্কেটে ১০ বা ১২ লাখ টন চাল কিনলে এর প্রভাব পড়ে না। এছাড়া কৃষকরা প্রত্যক্ষভাবে এর সুবিধাটা পায় না। ডিলাররা কিনলে তার একটা প্রভাব পড়ে।”

মন্ত্রী আরও বলেছেন, “সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে চাল রপ্তানির বিষয় আমরা বিবেচনা করছি।”

তবে কৃষি বিষয়ক অর্থনীতিবিদরা বলছেন, ফলন ভাল হলেই ক্ষুদ্র এবং মাঝারী কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন, সেই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার জন্য দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা প্রয়োজন।

সরকারি গবেষণা সংস্থা বিআইডিএস-এর গবেষক ড: নাজনীন আহমেদ বলছিলেন, ধান চাল কেনার প্রচলিত পদ্ধতিতে সরকারের নজরদারি বাড়ানো হলে কিছুটা ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

তবে কৃষকের উৎপাদন খরচ কমিয়ে আনার জন্য দেশীয় প্রযুক্তি ব্যবহারের ওপর জোর দিলে দীর্ঘমেয়াদে ভাল সমাধান হতে পারে বলে তিনি মনে করেন।

“সমস্যা অনেক, যেমন চাতালের জায়গায় অটো রাইস মিলের উত্থান। এর সাথে কৃষকের ফলন ধরে রাখার নিজেদের ব্যবস্থা নেই। ফলে ক্ষুদ্র এবং মাঝারি কৃষককে ধান কেটেই বিক্রি করতে হয়। তখন তারা দাম কম পায়।”

“এখানে সরকার যদি তাদের চাল কেনার প্রক্রিয়া একটু আগে শুরু করে, তাহলে সেখানে ধানের দাম যেটা ঘোষণা করা হবে, সেটা ক্ষুদ্র কৃষকের জন্য একটা বারগেইনিং পয়েন্ট হতে পারে। এটা এখনকার ব্যবস্থায় কিছুটা ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। তবে দীর্ঘ মেয়াদে উৎপাদন খরচ কমাতে কৃষককে প্রযুক্তির দিকে নেয়া ছাড়া বিকল্প নাই।”

সরকার অবশ্য কিছুদিন আগে ৩৬ টাকা কেজিতে চাল কেনার ঘোষণা দিয়েছে। আর ধানের দাম ঘোষণা করেছে ২৬ টাকা কেজি।

সরকারের এই দাম অনুযায়ী মণপ্রতি ধানের দাম এক হাজার টাকার বেশি হয়। কিন্তু সরকারি কেনার প্রক্রিয়া মাঠ পর্যায়ে এখনও সেভাবে শুরু হয়নি।

কৃষি মন্ত্রী ড: আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে সরকারও স্থায়ী উপায় হিসেবে প্রযুক্তির ব্যবহারসহ বিভিন্ন পরিকল্পনা নিয়ে এগুতে চাইছে।

“ধান লাগানো এবং ধান কাটার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি খরচ হয়। এই ক্ষেত্রে প্রযুক্তি ব্যবহারের জন্য সরকার কৃষককে সহযোগিতা করছে। একটি যন্ত্র কিনতে কৃষক ৫০ টাকা দিলে সরকার বাকি ৫০ টাকা দিচ্ছে। আরও কিভাবে খরচ কমানো যায়, সেই পরিকল্পনা করা হচ্ছে। কিন্তু এটা একদিনে সম্ভব না। অনেক সময় প্রয়োজন।”

কৃষি অর্থনীতিবিদরা বলছেন, সারাদেশের কৃষকদের তালিকা এবং তথ্য সরকারের কাছে আছে। ফলে সরকার কৃষকদের সাথে নিয়ে তাদের পরিকল্পনা বাস্তবায়নে গুরুত্ব দিলে অল্প সময়েই স্থায়ী সমাধান সম্ভব হতে পারে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

এগ্রোটেক

কৃষকের অ্যাপ ফসলি

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোটেক

বায়োফ্লকে মাছের কুটির শিল্প গড়েছেন ইমদাদুল হক

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোটেক

এশিয়ার সর্ববৃহৎ কৃষিযন্ত্রের প্রদর্শনী চীনে

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোটেক

কৃষিযন্ত্র ঘোরাবে কৃষির চাকা

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোটেক

করোনাভাইরাস: রোবট কি মানুষের কাজের ক্ষেত্র দখল করে নেবে?

 বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রোবট হয়তো ভবিষ্যতে মানুষের কাজের ক্ষেত্র দখল করে নেবে।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, রোবট হয়তো ভবিষ্যতে মানুষের কাজের ক্ষেত্র দখল করে নেবে।

বিশ্বজুড়ে যখন মহামারি চলছে, তখন মানব জীবনের আরেক হুমকি সম্পর্কে যদি মানুষ ভুলে যায় তাহলে তা ক্ষমা-সুন্দর দৃষ্টিতে দেখাই যায়। আর সেটি হলও রোবটের উত্থান।

ভাল বা খারাপ যাই বলি না কেন, বিশ্লেষকরা বলছেন যে রোবট মানুষের অনেক কাজের ক্ষেত্র দখল করে নেবে। আর করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এই প্রক্রিয়াকে আরো বেশি বেগবান করেছে।

“মানুষ সাধারণত বলে যে, তারা তাদের পারস্পরিক যোগাযোগ বা মিথষ্ক্রিয়ার জন্য মানবিক ছোঁয়া চান। কিন্তু কোভিড-১৯ সেই ধারণাকে বদলে দিয়েছে,” বলেন মার্টিন ফোর্ড। তিনি একজন ফিউচারিস্ট যিনি আসছে দশকগুলোতে অর্থনীতিতে রোবটকে কিভাবে সংযুক্ত করা হবে সে বিষয়ে লেখালেখি করে থাকেন।

“কোভিড-১৯ ভোক্তাদের পছন্দের ধরণকে পাল্টে দিতে যাচ্ছে এবং এটি স্বয়ংক্রিয়তা বা অটোমেশনের জন্য নতুন সুযোগ তৈরি করবে।”

ছোট বা বড়- নানা ধরণের প্রতিষ্ঠান সামাজিক দূরত্ব বাড়াতে রোবটের ব্যবহার বাড়াচ্ছে এবং পাশাপাশি কর্মক্ষেত্রে আসতে হয় এমন কাজের কর্মী কমাচ্ছে। এছাড়া কর্মীরা যেসব কাজ বাড়িতে থেকে করতে পারবে না এমন কাজ করতেও রোবট ব্যবহার করা হচ্ছে।

আমেরিকার সবচেয়ে বড় রিটেইলার ওয়ালমার্ট মেঝে পরিষ্কার করতে রোবট ব্যবহার করছে।

দক্ষিণ কোরিয়ায় তাপমাত্রা পরিমাপ করতে এবং হ্যান্ড স্যানিটাইজার সরবরাহ করতে রোবট ব্যবহার করছে।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা হুশিয়ার করেছেন যে, ২০২১ সাল পর্যন্ত সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হতে পারে। এমন অবস্থায় রোবট কর্মীর চাহিদা বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ইউভিডি-রোবটস নামে একটি প্রতিষ্ঠান যারা পরিষ্কার করার কাজে রোবট তৈরি করে, কোভিড-১৯ শুরু হওয়ার তারা হাসপাতালগুলোর কাছ থেকে শত শত অর্ডার পেয়েছে।
ইউভিডি-রোবটস নামে একটি প্রতিষ্ঠান যারা পরিষ্কার করার কাজে রোবট তৈরি করে, কোভিড-১৯ শুরু হওয়ার তারা হাসপাতালগুলোর কাছ থেকে শত শত অর্ডার পেয়েছে।

পরিচ্ছন্নতা কর্মী হিসেবে রোবটের চাহিদা বাড়ছে

যেসব কোম্পানি পরিষ্কার এবং জীবাণুনাশক পণ্য তৈরি করে তাদের চাহিদা বহুগুণ বেড়ে গেছে।

ইউভিডি রোবটস নামে একটি ডেনিশ কোম্পানি যেটি আল্ট্রাভায়োলেট-লাইট-ডিসইনফেকশন রোবট তৈরি করে তারা চীন এবং ইউরোপের হাসপাতালগুলো শত শত মেশিন সরবরাহ করেছিল।

যেসব মুদি দোকান কিংবা রেস্তোরা টেকঅ্যাওয়ে বা খাবার কিনে নিয়ে যাওয়ার সুবিধা দিয়ে থাকে সেগুলোতে এসব রোবটের ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যত বেশি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলবে, আশা করা হচ্ছে যে এসব প্রযুক্তির ব্যবহারও তত বাড়বে- হয়তো দেখা যাবে যে স্কুল কিংবা অফিস পরিষ্কার করছে রোবট।

“ভোক্তারা এখন তাদের নিজেদের নিরাপত্তা এবং কর্মীদের স্বাস্থ্য ও সুরক্ষার বিষয়টিকেই সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়,” বলেন ব্লেক মরগান যিনি কাস্টমার অব দ্য ফিউচার নামে একটি বই লিখেছেন।

“অটোমেশনের দিকে ঝোঁকাটাই তাদের সবাইকে সুস্থ রাখতে এবং ভোক্তারাও একে সমর্থন দেবেন।”

তবে এখনো কিছু সীমাবদ্ধতা রয়েছে। মিস মরগান বলেন, যদিও মুদি দোকানগুলোতে স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থার ব্যবহার মানুষের সাথে মানুষের মিথষ্ক্রিয়া কমিয়ে দেয়।

তারপরও সেগুলো যেহেতু খুব ভাল কাজ করে না এবং তেমন টেকসইও নয়, তাই ক্রেতারা সেগুলো এড়িয়ে ক্যাশিয়ার হিসেবে যেসব কর্মী কাজ করেন তাদের কাছেই যায়।

সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে সাহায্য করে

খাবার সরবরাহ হচ্ছে আরেকটি খাত যেখানে স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বেগ থাকার কারণে রোবটের ব্যবহার বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

ম্যাকডোনাল্ডসের মতো ফাস্ট-ফুড চেইনগুলো খাবার প্রস্তুত ও সরবরাহতে পরীক্ষামূলকভাবে রোবট ব্যবহার করছে।

আমাজন এবং ওয়ালমার্টের মতো প্রতিষ্ঠানের গুদামে কর্মদক্ষতা বাড়ানোর জন্য রোবট এরইমধ্যে ব্যবহৃত হচ্ছে।

কোভিড-১৯ এর মহামারির পর এই দুটি কোম্পানিই বাছাই, শিপিং এবং প্যাকেটজাত করার জন্য রোবটের ব্যবহার আরো বাড়ানোর চিন্তা করছে।

 আমাজনের মতো প্রতিষ্ঠান তাদের গুদামে রোবট ব্যবহার করে থাকে।
আমাজনের মতো প্রতিষ্ঠান তাদের গুদামে রোবট ব্যবহার করে থাকে।

এর ফলে হয়তো গুদামে কাজ করা কর্মীদের অভিযোগ কমে যাবে। এসব কর্মীরা অভিযোগ করেন যে, বর্তমান অবস্থায় তারা সহকর্মীদের কাছ থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে পারছে না।

কিন্তু প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে, এর ফলে এসব কর্মীদের অনেকেই বেকার হয়ে পড়বে।

একবার যদি কোন একটি কোম্পানি নির্দিষ্ট কোন কাজের জন্য কর্মীর পরিবর্তে রোবটে বিনিয়োগ করে তাহলে সেটি আবার একই কাজের জন্য কর্মী নিয়োগ দেবে- এমন সম্ভাবনা নেই বললেই চলে।

রোবট তৈরি করা এবং সেগুলো ব্যবসায়ে নিয়োগ করাটা বেশ ব্যয় সাপেক্ষ। কিন্তু একবার যদি সেগুলোকে সচল করা যায় তাহলে সাধারণত তা কর্মীদের তুলনায় সস্তা।

এ বিষয়ে ফিউচারিস্ট মার্টিন ফোর্ড বলেন, কোভিড-১৯ পরবর্তী বিশ্বে রোবটের ব্যবহার চালু হলে তা বাজারজাতকরণের ক্ষেত্রে সুযোগ তৈরি করবে।

“মানুষ সেসব স্থানেই যেতে চাইবে যেখানে মানুষের আনাগোনা কম থাকে এবং এ কারণে স্বাস্থ্য ঝুঁকিও কম হয়,” তিনি বলেন।

রোবট মানুষের মতোই দক্ষ

যেসব ক্ষেত্রে কোন ধরণের শিক্ষা বা সেবার জন্য ব্যক্তির প্রয়োজন হয় সেখানে কিভাবে রোবটগুলো কাজ করবে?

এর জন্য কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিকাশ ঘটানো হচ্ছে যা স্কুলের শিক্ষক, শরীরচর্চার প্রশিক্ষক এবং ব্যবসায়িক উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করতে পারবে।

বড় প্রযুক্তি কোম্পানিগুলো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার বাড়াচ্ছে। ফেসবুক এবং গুগলও আপত্তিকর পোস্টগুলো সরিয়ে নেয়ার ক্ষেত্রে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে থাকে।

তবে রোবট নিয়ে সংশয়বাদীরা বলছেন, এসব কাজের ক্ষেত্রে কোন না কোনভাবে মানুষ জড়িত থাকবে।

২০১৭ সালের নিজের এক গবেষণায় গ্লোবাল কনসালটেন্ট ম্যাককিনজি বলেছিলেন যে, ২০৩০ সালের মধ্যে স্বয়ংক্রিয়তা এবং রোবটের কারণে যুক্তরাষ্ট্রের এক তৃতীয়াংশ কর্মী কাজ হারাবে। কিন্তু ধারণা করা হচ্ছে যে মহামারির মতো ঘটনা সব ধরণের সময় সীমার ধারণাকে পরিবর্তিত করে দেবে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই প্রযুক্তিকে মানুষ কিভাবে বিশ্বে সংযুক্ত করতে চায় তা নির্ভর করবে মানুষের সিদ্ধান্তের উপর।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com