আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

ইসলাম

ধাপে ধাপে পবিত্র ওমরাহ পালনের অনুমতি দেবে সৌদি

সৌদি আরব ধাপে ধাপে পবিত্র ওমরাহ পালনের অনুমতি দেবে। গতকাল মঙ্গলবার সৌদি আরব এ কথা জানায়। আরব নিউজ এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

সৌদি আরবের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, করোনা পরিস্থিতি মূল্যায়ন ও বিশ্বজুড়ে মুসলমানদের পবিত্র ওমরাহ পালনের আকাঙ্ক্ষার আলোকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

মুসল্লিদের ওমরাহ পালনের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি ও সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেবে দেশটি।

সৌদির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে বলা হয়, প্রথম ধাপে আগামী ৪ অক্টোবর থেকে পবিত্র ওমরাহ শুরু হবে।

প্রথম ধাপে সৌদি আরবে থাকা দেশটির নাগরিক ও বিদেশিরা পবিত্র ওমরাহ পালনের অনুমতি পাবেন। এই ধাপে প্রতিদিন প্রায় ছয় হাজার মুসল্লিকে ওমরাহ পালনের অনুমতি দেওয়া হবে।

১৮ অক্টোবর থেকে শুরু হবে দ্বিতীয় ধাপ। এই ধাপে প্রতিদিন প্রায় ১৫ হাজার মুসল্লি ওমরাহ পালনের অনুমতি পাবেন।

তৃতীয় ধাপ শুরু হবে আগামী ১ নভেম্বর থেকে। এই ধাপে বাইরের দেশ থেকে সৌদি আরবে গিয়ে মুসল্লিদের ওমরাহ পালনের অনুমতি দেওয়া হবে। এ সময় প্রতিদিন ২০ হাজার মুসল্লি ওমরাহ পালনের অনুমতি পাবেন।

করোনার ঝুঁকি পুরোপুরি দূর হয়ে গেলে চতুর্থ ধাপ শুরু হবে। এই ধাপে পবিত্র কাবা শরিফ স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণের প্রেক্ষাপটে সৌদি আরব গত মার্চ মাসে পবিত্র ওমরাহ স্থগিত করে। এ ছাড়া এবার পবিত্র হজ সীমিত পরিসরে পালন করা হয়।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

ইসলাম

যেসব শর্তে মদিনায় রওজা শরিফের জেয়ারত শুরু রোববার

প্রাণঘাতী বৈশ্বিক মহামারি করনোর কারণে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পবিত্র রওজা মোবারক জেয়ারত (দেখা, সালাম দেয়া), রিয়াজুল জান্নাহতে নামাজ পড়ার কার্যক্রম বন্ধ ছিল। দীর্ঘ প্রায় ৮ মাস পর আগামীকাল রোববার (১৮ অক্টোবর) থেকে সর্ব সাধারণের জন্য শর্তসাপেক্ষে পবিত্র রওজা শরিফ জেয়ারত ও রিয়াজুল জান্নাহ উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।

এর মাধ্যমে দীর্ঘদিন ধরে রিয়াজুল জান্নাহতে নামাজ পড়তে না পারায় এবং রওজাহ জেয়ারত করতে না পারার মুসলিম উম্মাহর হৃদয়ের হাহাকার বন্ধ হবে। প্রিয় নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের রওজা জেয়ারত ও রিয়াজুল জান্নাহতে নামাজ পড়ার সুযোগ পাবেন মুমিন মুসলমান। তবে এর জন্য অবশ্যই প্রত্যেককে ‘ইতামারনা’ অ্যাপ-এর মাধ্যমে নিবন্ধন এবং করোনামুক্ত রিপোর্ট জমা দিতে হবে।

গত সেপ্টেম্বর মাসে সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ঘোষণা দেয় যে, ১৪৪২হিজরি সনের ১ রবিউল আউয়াল মোতাবেক ১৮ অক্টোবর থেকে ‘ইতামারনা’ ওমরাহ অ্যাপের মাধ্যমেই রওজা শরিফ জেয়ারত ও রিয়াজুল জান্নাহতে নামাজ পড়ার সুযোগ দেয়া হবে।

সৌদি আরবের হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়ের পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী, ৪ অক্টোবর থেকে শুরু হয়েছে পবিত্র ওমরাহ কার্যক্রম। এ কার্যক্রমে অংশগ্রহণের জন্যও ‌‘ইতামারনা’ অ্যাপে নিবন্ধন পক্রিয়া সম্পন্ন করেই ওমরাহ করছেন মুসলিম উম্মাহ। একই অ্যাপ ব্যবহার করে রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের পবিত্র রওজা মোবারক জেয়ারত ও রিয়াজুল জান্নাহতে নামাজ পড়তে পারবেন মুমিন মুসলমান।

মহামারি করোনার প্রাদুর্ভাব শুরু হলে মসজিদে নববির ইমাম, মুয়াজ্জিন, স্বেচ্ছাসেবক এবং আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও দায়িত্বশীলরা ছাড়া কেউ মসজিদে নববিতে নামাজ পড়তে পারেনি। সেখানেও দীর্ঘ সর্বসাধারণের নামাজ পড়াও বন্ধ ছিল। তবে গত ৩১ মে থেকে শর্তসাপেক্ষে বিধি ও নিয়ম মেনে শুরু নামাজ। তবে মসজিদে নববির পুরাতন অংশ, রিয়াজুল জান্নাহ এবং রওজা শরিফে নামাজ ও জেয়ারত স্থগিত ছিল। অবশেষে আগামীকাল রোববার থেকে পুরাতন মসজিদ, রিয়াজুল জান্নাহতে নামাজ এবং পবিত্র রওজা শরিফ জেয়ারত শুরু হতে যাচ্ছে।

জেয়ারত ও সালাম প্রেরণের জন্য রওজা শরিফ পুনরায় খুলে দেয়া উপলক্ষে হারামাইন শরিফাইন অধিদপ্তরের প্রেসিডেন্ট শায়খ আবদুর রহমান আস-সুদাইস দুই মসজিদের সেবা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। শনিবার (১৭ অক্টোবর) তিনি মদিনা সফর করবেন এবং মদিনার মসজিদে নববিতে ইশা নামাজের ইমামতি করারও কথা রয়েছে।

পূর্বঘোষিত নিয়ম অনুযায়ী ‘ইতামারনা’ অ্যাপে নিবন্ধন সাপেক্ষে নির্দিষ্ট প্রবেশ পথ ব্যবহার করে পুরাতন মসজিদ, রিয়াজুল জান্নাহ এবং পবিত্র রওজা শরিফ জেয়ারতের সুযোগ পাবেন মুসলিম উম্মাহ। প্রতি জেয়ারতকারীর জন্য ৩০ মিনিট সময় বরাদ্দ থাকবে। এ সময়ের মধ্যে জেয়ারতকারীরা রিয়াজুল জান্নায় নামাজ পড়া এবং সালাম প্রদান কার্যক্রম সম্পন্ন করবেন।

রওজা শরিফে প্রবেশের শর্ত ও তথ্য
> ‘ইতামারনা’ অ্যাপে নিবন্ধন।
> রিয়াজুল জান্নাহতে নামাজ পড়তে নিজ নিজ ম্যাট বা মুসাল্লা সঙ্গে আনতে হবে।
> রওজা শরিফ জেয়ারত ও রিয়াজুল জান্নাহতে হ্যান্ডশ্যাক তথা মোসাফাহা করা থেকে বিরত থাকতে হবে।
> ‘ইতামারনা’ অ্যাপ কর্তৃক নির্ধারিত সময়ে জেয়ারতে যেতে হবে।
> জেয়ারতের সময় মাস্ক পরিধান করতে হবে।
> উভয় হাত স্যানিটাইজ করতে হবে।
> সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে।
> শুধু ফজর, জোহর, আসর ও মাগরিবের নামাজের পর তা সম্পন্ন করতে হবে।
> নির্ধারিত প্রবেশ পথ ব্যবহার করতে হবে। তাহলো-
– পুরুষের জন্য : বাব আল-সালাম তথা ১নং প্রবেশ পথ। প্রতিদিন ১১ হাজার ৮৮০জন।
– পুরুষের জন্য : বাব আল-বেলাল তথা ৩৮ নং প্রবেশ পথ। প্রতিদিন ১৬৫০ জন।
– নারীদের জন্য শুধু বাব আল-ওসমান তথা ২৪নং প্রবেশ পথ। প্রতিদিন ৯০০ জন।

উল্লেখ্য, ‘ইতামারনা’ অ্যাপে নিবন্ধন ছাড়া কোনো ব্যক্তি রিয়াজুল জান্নাহ ও রওজা শরিফ জেয়ারত করতে পারবেন না। নিবন্ধনকালে অবশ্যই জেয়ারতকারীকে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট জমা দিতে হবে। আগের ঘোষণা অনুযায়ী মসজিদে নববি ইশার নামাজের পর বন্ধ হয়ে যাবে এবং ফজরের ১ ঘণ্টা আগে থেকে তা পুনরায় খোলা থাকবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

সরকারি ব্যবস্থাপনা ছাড়া হজও করতে পারবে না চীনারা!

চীন সরকার দেশটির মুসলিমদের হজের উপর নতুন নির্দেশনা জারি করেছে। বেসরকারি উদ্যোগে আর কেউ হজে অংশগ্রহণ করতে পারবে না। চলতি বছর ১ ডিসেম্বর থেকে তা কর্যকর হবে বলেও জানিয়েছে দেশটি। খবর চায়না ডেইলি মেইল।

শি জিনপিং প্রশাসন এই মর্মে নির্দেশনা দিয়েছে যে, চীনা ইসলামিক অ্যাসোসিয়েশন ছাড়া মক্কায় হজ যাত্রার ক্ষেত্রে বেসরকারি কোনো সংস্থা হজের কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবে না। দেশটির ইসলামিক অ্যাসোসিয়েশনের মাধ্যমে বার্ষিক হজ উদযাপনে পবিত্র নগরী মক্কায় গমন করতে হবে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছে চীনের সরাকরি মুখপত্র গ্লোবাল টাইমস।

যেসব মুসলিম হজ করতে ইচ্ছুক তারা সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ধর্ম বিষয়ক প্রশাসনে আবেদন করতে হবে। আবেদনের প্রেক্ষিতে ধারাবাহিকভাবে হজে পাঠানোর ব্যবস্থা করবে দেশটির সরকার। সরকার ঘোষিত তালিকায় অনুযায়ী হজের জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

যথাযথ হজ বিধি ও নিয়ম অনুসরণ করতে হবে এবং ধর্মীয় উগ্রবাদ থেকে দূরে থাকতে হবে মর্মে ঘোষণা দিয়েছে দেশটি। এ আইন আগামী ডিসেম্বরের ১ তারিখ থেকে শুরু হবে।

ইউনান্নে প্রদেশের ইসলামিক অ্যাসোসিয়েশন অব কুমিং-এর প্রধান দাই জুনফেং নতুন হজ বিধি সম্পর্কে জানান, চীনের মুসলমানরা যেন সুন্দর ও ভালোভাবে ধর্মীয় কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে পারে সে জন্য নতুন এ ব্যবস্থাপনা। চীনা মুসলমানদের হজ পালনে আরও ভালো সেবা নিশ্চিত করবে দেশটি।

হজ শুধু একটি ধর্মীয় কার্যকলাপই নয় বরং এটি বিদেশ যাত্রার অংশও বটে। যেখানে দেশের অনেক নাগরিক একসঙ্গে সমবেত হয়। সরকারিভাবে এ জাতীয় ব্যবস্থাপনা দেশের জনগণের কল্যাণ ও সুরক্ষা সম্পূর্ণরূপে সংরক্ষিত হতে পারে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

বর্তমানে চীনে ২ কোটি মুসলিম বসবাস করেন। দেশটির বেশিরভাগ মুসলিমই উইঘুর ও হুই প্রজাতির। প্রতি বছর চীন থেকে প্রায় ১০ হাজার মুসলিম হজে গমন করেন।

উল্লেখ্য, দেশটির প্রাকৃতিক সম্পদে সমৃদ্ধ প্রদেশ জিনজিয়াং-এ বসবাস করেন প্রায় ১ কোটি উইঘুর মুসলিম। অভিযোগ আছে, উইঘুর মুসলিমদের ধর্ম পালনে বাধা দিচ্ছে চীন সরকার। ১০ লাখেরও বেশি মুসলিমকে তারা বন্দি করে রেখেছে। এও অভিযোগ ওঠেছে যে, মুসলিম অধ্যুষিত অঞ্চলে হান চীনাদের বসতি গড়ে দিয়ে এলাকার জনবিন্যাস বদলে দিচ্ছে সরকার।

প্রশ্ন থেকে যায়- সেবরকারি উদ্যোগে হজ ব্যবস্থাপনা বন্ধ হলে রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণে চীনা মুসলিমদের হজ ব্যবস্থাপনা স্বাভাবিকভাবে ও সহজ হবে কি?

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

৯ ধরনের রোগীকে ওমরাহ না করতে সৌদির আহ্বান!

আপাতত ৯ ধরনের লোককে ওমরাহ পালন না করতে আহ্বান জানিয়েছে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় তাদের নিজস্ব টুইটার অ্যাকাউন্টে এসব রোগীর তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

মহামারি করোনার এ সময়ে স্বাস্থ্য ঝুঁকিপূর্ণ ব্যক্তিদের নিরাপত্তার স্বার্থে ওমরাহ ও জিয়ারতে অংশগ্রহণ না করতে আহ্বান জানান তারা। টুইটারে উল্লেখিত রোগের বিবরণগুলো তুলে ধরা হলো-

– যাদের অনিয়ন্ত্রিত ডায়াবেটিস। যারা ছয় মাস ধরে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।
– যারা হৃদরোগে আক্রান্ত।
– যাদের হার্টের অবস্থা দুর্বল। এ রোগে ছয় মাস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।
– যারা উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত। এ রোগে ছয় মাস ধরে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।
– যারা এইচআইভি (এইডস) আক্রান্ত। যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গেছে।
– গর্ভবর্তী নারী।
– যারা মোটা তথা অতিরিক্ত স্বাস্থ্যবান বা লিভার ডিজিজে আক্রান্ত।
– দীর্ঘ সময় ধরে বুকের যে কোনো রোগে আক্রান্ত।

অন্য যে কোনো রোগে আক্রান্তদের জন্যও এ মুহূর্তে ওমরাহ না করতে উপদেশ দিয়েছে সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। তাদের জন্য আরও কিছু দিন সময় অপেক্ষা করে ওমরাহ করার আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

মহামারি করোনায় প্রায় সাত মাস ওমরাহ বন্ধ থাকার পর গত ৪ অক্টোবর থেকে ওমরাহ পালন শুরু হয়। করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি মেনে দেশটি ওমরাহ ও জিয়ারতের সিদ্ধান্ত নেয়। স্বাস্থ্য নিরাপত্তার জন্য সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় এ উদ্যোগ নিয়েছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

কাবা শরিফে নামাজ ও রওজা জেয়ারত সবার জন্য উন্মুক্ত

আলহামদুলিল্লাহ! আজ থেকে মসজিদে হারাম তথা কাবা শরিফে নামাজ আদায় সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়েছে। মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে দীর্ঘ সাত মাস বন্ধ থাকার পর নিজ দেশের নাগরিক ও দেশটিতে বসবাসকারী বিদেশিদের জন্য মসজিদে হারামে নামাজ পড়ার অনুমতি দিয়েছে সৌদি আরব। আজ রোববার (১৮ অক্টোবর) সকালে দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত টেলিভিশন এ তথ্য জানিয়েছে।

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব শুরু হওয়ার পর থকে শর্তসাপেক্ষে সীমিত পরিসরে নামাজ পড়ার অনুমতি দেয় হারামাইন কর্তৃপক্ষ। এ সময় নামাজ আদায় চললেও তা ছিল সীমিত। সাধারণ মুসল্লিদের মসজিদে প্রবেশ করার অনুমতি ছিল না। শুধু ইমাম, মুয়াজ্জিনসহ মসজিদে হারামের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সেখানে নামাজ আদায় করতে পারতেন।

রোববার ১৮ অক্টোবর মোতাবেক ১ রবিউল আউয়াল থেকে মদিনার মসজিদে নববির বিশেষ স্থান রিয়াজুল জান্নাহতে নামাজ ও রওজা শরিফ জেয়ারত ও সালাম প্রদানের আনুষ্ঠানিকতাও আজ শুরু হয়েছে। প্রতিদিন ফজর, জোহর, আসর ও মাগরিবের নামাজের পর এ কার্যক্রম চালু থাকবে। শর্তসাপেক্ষে নিবন্ধন করেই এ আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে হবে।

গত ১৭ মার্চ এক ঘোষণায় সৌদি সরকার মক্কা ও মদিনার প্রধান দুই মসজিদ ছাড়া দেশটির বাকি সব মসজিদে জামাতে নামাজ স্থগিত করে নির্দেশ জারি করেছিল দেশটির কর্তৃপক্ষ। পরে এ দুটি মসজিদেও সর্বসাধারণের জন্য জামাতে নামাজ আদায় বন্ধ করা হয়।

উল্লেখ্য, গত ৪ অক্টোবর থেকে পবিত্র কাবা শরিফে করোনা-পরবর্তী প্রথম ওমরাহ শুরু হয়। আজ সবার নামাজের জন্য কাবা শরিফ প্রাঙ্গণ উন্মুক্ত করে দেয়া হয়। মদিনার মসজিদে নববির রিয়াজুল জান্নাহ এবং রওজা শরিফ জেয়ারতও আজ থেকে শুরু হয়েছে।

সৌদি আরবে রোববার পর্যন্ত বৈশ্বিক মহামারি করোনায় ৩ লাখ ৪১ হাজার ৮৫৪ জন আক্রান্ত হন। এতে মারা গেছেন ৫ হাজার ১৬৫ জন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

ফেসবুকে ইসলামের নবীকে নিয়ে ‘অবমাননাকর পোষ্ট’ দেয়ার দায়ে সাত বছরের দণ্ড

ফেসবুকে ইসলামের নবীকে নিয়ে ‘অবমাননাকর পোষ্ট' দেয়ার দায়ে সাত বছরের দণ্ড
ফেসবুকে ইসলামের নবীকে নিয়ে ‘অবমাননাকর পোষ্ট’ দেয়ার দায়ে সাত বছরের দণ্ড

বাংলাদেশে ১৫ই অক্টোবর ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেবার অভিযোগে এক ব্যক্তিকে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে বাংলাদেশের সাইবার ট্রাইব্যুনাল।

দু’হাজার সতের সালে রাঙ্গামাটির লংগদু থানায় ইসলামের নবী এবং ইসলাম ধর্মকে নিয়ে কটূক্তি করে দেয়া এক ফেসবুক পোষ্টের জের ধরে হওয়া মামলায় এই রায় দিয়েছে আদালত।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দিয়ে পোষ্ট দেবার অভিযোগে এটি বাংলাদেশে হওয়া দ্বিতীয় রায়।

গত মাসেই এ ধরণের প্রথম রায়েও এক ব্যক্তিকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়।

ঘটনা কী ঘটেছিল?

রাঙ্গামাটি জেলার লংগদু উপজেলার মাইনীমুখ বাজারে একটি দর্জি দোকানে কাজ করতেন সুজন দে। ২০১৭ সালে ১০ই মে বিকেলে মাইনীমুখ বাজারের সেই দোকানের সামনে থেকে পুলিশ সুজন দে’কে গ্রেপ্তার করে।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, আগের দিন ওই ব্যক্তি ফেসবুকে ইসলামের নবী এবং ইসলাম ধর্মকে অবমাননা করে একটি স্ট্যাটাস দেন বলে অভিযোগ ছিল।

পরদিন বাজারের মজসিদ থেকে মুসুল্লিরা একত্রিত হয়ে ওই ব্যক্তির শাস্তির দাবিতে মিছিল করে এবং স্লোগান দেয়।

লংগদু থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সৈয়দ মোঃ নুর বিবিসিকে বলছিলেন, ফেসবুকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ পেয়ে এবং স্থানীয়ভাবে উত্তেজনাকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ায় সে সময় সুজন দে’কে গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি বলেন, “মামলার এজাহারে উল্লেখ করা আছে যে, সুজন দে তার ফেসবুকে ইসলামের নবী এবং ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটাক্ষ করে এবং কটূক্তি করে স্ট্যাটাস দিয়েছিল, তখন এলাকায় এ নিয়ে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এরপর ওইদিন বিকাল সাড়ে পাঁচটার পর তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।”

কী মামলা?

সুজন দে’র বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের বিলুপ্ত হওয়া ৫৭ ধারায় মামলা করা হয়েছিল।

পুলিশ বলছে, মামলাটি তদন্ত করে ২০১৭ সালের ৩০শে আগস্ট আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়া হয়।

আর অভিযোগপত্র আমলে নিয়ে আদালত ২০১৭ সালের ২৬শে অক্টোবর সুজন দের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে।

বৃহস্পতিবার ঐ মামলায় সুজন দে’কে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনাল।

রায়ে কী বলা হয়েছে?

ট্রাইব্যুনালের সরকারি কৌঁসুলি নজরুল ইসলাম শামীম বিবিসিকে বলেছেন, আসামির বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ প্রমাণ করতে পেরেছে রাষ্ট্রপক্ষ।

ফেসবুকে ইসলামের অবমাননার অভিযোগ এনে বিক্ষোভের সময় ভোলায় চারজন নিহত হয়েছে।
ফেসবুকে ইসলামের অবমাননার অভিযোগ এনে বিক্ষোভের সময় ভোলায় চারজন নিহত হয়েছে।

তিনি বলেন, “আসামি সুজন দে ‘জানা-অজানা’ নামে একটি ফেসবুক আইডি থেকে ইসলাম ধর্ম নিয়ে কটূক্তিমূলক পোষ্ট দেয়, এবং ওই আইডি তার মোবাইল নম্বর ব্যবহার করে খোলা হয়েছে, সেটা প্রমাণ হয়েছে।

ওই স্ট্যাটাসের মাধ্যমে তিনি ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করেছেন, সে কারণে আদালত তাকে সাত বছরের সশ্রম কারাদণ্ড, ১০০০ টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরো একমাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছে।”

মি. ইসলাম জানিয়েছেন, রায় ঘোষণার পর সুজন দে’কে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

তার পরিবারের কোন সদস্য আদালতে ছিলেন না।

এই রায়ের বিরুদ্ধে সুজন দে আপিল করবেন কি না জানা যায়নি।

ফেসবুকে ধর্ম অবমাননা

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ শাস্তি যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং এক কোটি টাকা পর্যন্ত অর্থদণ্ডের বিধান রয়েছে।

বাংলাদেশে ফেসবুকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগে দায়ের মামলায় এটি দ্বিতীয় রায়।

নাসিরনগরে হিন্দুদের বাড়িঘর মন্দিরে হামলা হয়েছিলো
নাসিরনগরে হিন্দুদের বাড়িঘর মন্দিরে হামলা হয়েছিলো

এ নিয়ে পরপর দুই মাসে একই ধরণের দুইটি রায় এলো।

বাংলাদেশে ২০১৮ সালে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারা বিলুপ্ত করা হলেও, ওই আইনের অধীনে হওয়া মামলাগুলো এই আইন অনুযায়ী-ই বিচার হবার বিধান রাখা আছে আইনে।

বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালে ফেসবুকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত বা ধর্মকে অবমাননা করে দায়ের হওয়া এখনো প্রায় ২০টির মত মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

বাংলাদেশে ফেসবুকে ইসলাম ধর্মের অবমাননার অভিযোগ এনে স্থানীয় পর্যায়ে বড় ধরণের সহিংসতার বেশ কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে।

এর মধ্যে প্রথম ঘটনাটি ঘটেছিল কক্সবাজারের রামুতে, এরপর একে একে প্রায় একই ধরণের ঘটনা ঘটেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে, রংপুরে এবং সর্বশেষ ২০১৯ সালে ভোলায়।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
রোহিঙ্গা সংকট: রাতের আঁধারে কক্সবাজারের ক্যাম্পগুলো নিয়ন্ত্রণ করে কারা?

রোহিঙ্গা সংকট: রাতের আঁধারে কক্সবাজারের ক্যাম্পগুলো নিয়ন্ত্রণ করে কারা?

উত্তর কোরিয়া নতুন ‘বিশাল আকৃতির‘ ক্ষেপণাস্ত্রের কতটা জানা যাচ্ছে উত্তর কোরিয়া নতুন ‘বিশাল আকৃতির‘ ক্ষেপণাস্ত্রের কতটা জানা যাচ্ছে

উত্তর কোরিয়া নতুন ‘বিশাল আকৃতির‘ ক্ষেপণাস্ত্রের কতটা জানা যাচ্ছে

নাগোর্নো-কারাবাখ যুদ্ধ: আজারবাইজানের সাথে যুদ্ধে আর্মেনিয়ার 'ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি' হয়েছে, বলছেন আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী

নাগোর্নো-কারাবাখ যুদ্ধ: আজারবাইজানের সাথে যুদ্ধে আর্মেনিয়ার ‘ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি’ হয়েছে, বলছেন আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী

নাগোর্নো-কারাবাখ: নতুন যুদ্ধবিরতি কার্যকরের কয়েক মিনিটের মাথায় ভঙ্গ, পরস্পরকে দোষারোপ করছে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া

নাগোর্নো-কারাবাখ: নতুন যুদ্ধবিরতি কার্যকরের কয়েক মিনিটের মাথায় ভঙ্গ, পরস্পরকে দোষারোপ করছে আজারবাইজান ও আর্মেনিয়া

মা হওয়ার পরে যে কাজগুলো করবেন

মা হওয়ার পরে যে কাজগুলো করবেন

শিশু কথা শোনে না? জেনে নিন করণীয়

শিশু কথা শোনে না? জেনে নিন করণীয়

সরিষার তেলের ৫টি অবিশ্বাস্য উপকারিতা

সরিষার তেলের ৫টি অবিশ্বাস্য উপকারিতা

খাওয়ার পরে টক দই খেলে কী হয়

খাওয়ার পরে টক দই খেলে কী হয়

শেভিং ক্রিমের কিছু অজানা ব্যবহার

শেভিং ক্রিমের কিছু অজানা ব্যবহার

মিষ্টি কুমড়ার খোসা ভর্তার সহজ রেসিপি

মিষ্টি কুমড়ার খোসা ভর্তার সহজ রেসিপি

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com