আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

মতামত

দেশে দেশে ‘ফিরে চল মাটির টানে’

বিপ্লবী নেতা মার্কাস গার্ভে বলেছিলেন, যে মানুষের নিজের মূল, অতীত ইতিহাস ও ঐতিহ্যের কোনো জ্ঞান নেই সে মূলত একটি শিকড়হীন গাছ। রবিঠাকুরও আমাদের মাটির টানে ফিরে যেতে বলেছেন শিকড়ে, যেখান থেকে উৎপত্তি হয়েছে নিজের অস্তিত্বের। সমুদ্র উত্থিত এই ব-দ্বীপের পলি জমা উর্বর মাটিতে পূর্বপুরুষরা বুনেছিল ফসলের বীজ, ভবিষ্যৎ সমৃদ্ধির স্বপ্ন। তাই বলা যায়, বাংলাদেশের মূল প্রোথিত রয়েছে হাজার বছর আগে, এই কৃষিতেই।

পাঠক! আপনারা হয়তো জানেন, চ্যানেল আইয়ের পর্দায় ‘ফিরে চল মাটির টানে’ অনুষ্ঠানে দেখেছেন আমি প্রতি বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল তরুণ ও স্কুলের একঝাঁক শিশু-কিশোর নিয়ে চলে যাই কৃষকের কাছে, কৃষির কাছে। যেন এই অনুষ্ঠান দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে বাংলাদেশের প্রতিটি তরুণ, আগামী প্রজন্ম একবার হলেও ছুঁয়ে আসে নিজের শিকড়পোঁতা মাটি, নিয়ে আসে বাংলাদেশের কৃষকের শ্রমে-ঘামে সিক্ত মাটির ঘ্রাণ। সেখান থেকে যেন তারা দীক্ষা নিতে পারে ধ্যানমগ্ন ও শ্রমসাধনার সমৃদ্ধ জীবনের এবং আরও শক্ত ও মজবুত করতে পারে নিজের শিকড়কে।

নতুন প্রজন্মকে আগের প্রজন্মের সঙ্গে, অতীত ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার রীতি রয়েছে প্রতিটি উন্নত ও সভ্য জাতিরই। কৃষির সঙ্গে সম্পৃক্ত উন্নত রাষ্ট্রগুলোর কৃষি ইতিহাস ও ঐতিহ্যের পাঠ দেওয়া হয় নতুন প্রজন্মকে। যেমন বলা যায় স্কটল্যান্ডের উইটমোর অর্গানিক ফার্মের কথা। সেখানে শিশুরা নিয়মিত কৃষি উৎপাদন ও খাদ্য প্রস্তুত প্রণালির বিভিন্ন দিক সম্পর্কে সম্যক ধারণা লাভ করতে পারে। আবার যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে ৫০ মাইল দূরের ম্যুর পার্ক এলাকায় আন্ডার উড ফ্যামিলি পার্কের কথাও বলা যেতে পারে। এ নিয়ে বিশেষ প্রতিবেদনও আপনারা ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠানে দেখেছেন।

ক’দিন আগে কাজের প্রয়োজনে যেতে হয়েছিল মার্কিন মুলুকের নিউইয়র্কে। সেখানে স্কুলের শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের তরুণদের কৃষি বিষয়ে সম্যক জ্ঞান ও হাতেকলমে শিক্ষা দেওয়ার এক প্রতিষ্ঠানের খোঁজ মিলল। পোকান্টিকো হিলসের স্টোন বার্নস সেন্টার ফর ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার। পাহাড়বেষ্টিত নৈসর্গিক পরিবেশে সমন্বিত কৃষির এক বিশাল আয়োজন। প্রতিষ্ঠানটিতে একদিকে চলছে কৃষি উৎপাদন, অন্যদিকে কৃষি নিয়ে বহুমুখী গবেষণা। এখানে বিভিন্ন বয়সী ও শ্রেণির শিক্ষার্থীর জন্য যেমন রয়েছে ব্যবহারিক কৃষি শিক্ষার আয়োজন, একইভাবে রয়েছে প্রচলিত কৃষিব্যবস্থার ত্রুটিগুলো হাতে-কলমে জানার ব্যবস্থাও।

৮০ একর জায়গা নিয়ে প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠান আমেরিকার স্বনামখ্যাত শিল্পপতি ও রাজনীতিবিদ ডেভিড রকফেলার ও তার মেয়ের মালিকানাধীন। তাদের উদ্যোগেই প্রথমে দুগ্ধ খামার গড়ে তোলা হয়; যা দিনে দিনে বহুমুখী কৃষি উৎপাদন ও কৃষিপণ্যের স্বাদ ও মান সম্পর্কে বিজ্ঞানসম্মত ধারণা দেওয়ার এক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। এই ‘স্টোন বার্ন ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার’ সেন্টারেই রয়েছে ‘ব্লু হিল’ নামের ব্যয়বহুল ও অভিজাত রেস্টুরেন্ট। সরাসরি খামারজাত খাদ্যের সেই রেস্তোরাঁয় একজনের খাবারের আনুমানিক মূল্য পড়ে বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২০ হাজার টাকা। প্রতিষ্ঠানটির ইতিহাস বলে খামারটি ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত রকফেলার পরিবারের নিজস্ব ও রক্ষণশীল একটি প্রতিষ্ঠান ছিল। ২০০৪ সালে এটি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তির কৃষিবিষয়ক শিক্ষার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। বর্তমানে প্রতিষ্ঠানটি পরিচালনা করছে ১৩ সদস্যের একটি পরিচালনা পর্ষদ; যাদের সবারই কৃষির প্রতি যেমন রয়েছে অনুরাগ, একইভাবে রয়েছে সম্যক জানা-বোঝাও।

আগেই স্টোন বার্ন ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার সেন্টার পরিদর্শনের সময়সূচি ও অনুমোদন নিয়ে রাখা ছিল। তাই প্রতিষ্ঠানের জনসংযোগ নির্বাহী আমাদের সাদর সম্ভাষণ জানিয়ে ভিতরে নিয়ে গেলেন। তিনি জানালেন তাদের কার্যক্রম সম্পর্কে। স্টোন বার্ন ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার সেন্টার গভীরভাবে চায় নতুন প্রজন্মকে কৃষি ও খাদ্য উৎপাদন প্রক্রিয়া সম্পর্কে শিক্ষা দিতে। সে শিক্ষাটি হোক হাতে-কলমে। মাটি ও ফসলের স্পর্শের মধ্য দিয়ে। শুধু উন্নত বিশ্ব নয়, পৃথিবীব্যাপীই শিক্ষা হয়ে উঠেছে রুদ্ধ শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ভবন কাঠামোর ভিতরমহলের বিষয়। কিন্তু এখানে রয়েছে মুক্ত প্রাঙ্গণে মাটির ঘ্রাণ মেখে নতুন এক শিক্ষা গ্রহণের সুযোগ।

সনাতন কৃষি ও আধুনিক কৃষির পার্থক্যটি খুব স্পষ্টভাবেই ধরা পড়ে এই প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমে। অবশ্য প্রকৃতিনির্ভর কৃষিকে বেশি করে প্রাধান্য দিচ্ছে তারা। মাঠে দেখা মিলল একদল শিক্ষার্থীর, যারা হাতে-কলমে নিচ্ছে কৃষি শিক্ষা। আর তাদের শিক্ষক প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষা পরিচালক রেনে মারিয়ন। কথা হয় মারিয়নের সঙ্গে। তিনি জানান, শিক্ষার্থীরা নিউইয়র্কের একটি কলেজের নবম গ্রেডের। কলেজের প্রাণিবিদ্যা ক্লাসের অংশ হিসেবেই উদ্ভিদের জীবনপ্রণালি, কৃষি ও এর অনুশীলনগুলো প্রথমবারের মতো সরেজমিন দেখছে। কৃষির পরিবর্তনগুলো তারা বোঝার চেষ্টা করছে।

মারিয়ন জানান, যদিও আমাদের সনাতন কৃষিতে বড় ধরনের পরিবর্তন হয়ে যাচ্ছে। কৃষি থেকে অনেকেই সরে গেছেন। কিন্তু কয়েক প্রজন্ম আগে এসব শিক্ষার্থীর পূর্ব প্রজন্মও কৃষক ছিল। ওরা সেই অতীতটা জানে না। ওদের সেই অতীতের সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেওয়াটা জরুরি। মাঠে দেখা মেলে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া এক তরুণের। নাম লরেন্স। কথা হয় তার সঙ্গে। সে জানায়, নয় মাসের সমন্বিত কৃষির একটি কোর্স করছে সে। কোর্সের শুরুর তিন মাস ছিল প্রাণিসম্পদ। তা শেষ করার পর বনায়ন বিষয়ে কোর্স করেছে তিন মাস, এরপর চলছে পুরোপুরি কৃষি শিক্ষা।

যুক্তরাষ্ট্রের স্টোন বার্ন ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার সেন্টারটি বিস্ময়কর এক কৃষি ক্ষেত্র। মাঠে যেমন ফসলের উৎপাদন প্রক্রিয়া সম্পর্কে ধারণা দেওয়া হচ্ছে শিক্ষার্থীদের, একইভাবে ধারণা দেওয়া হচ্ছে উদ্ভিদের রোগবালাই, কীটনাশক প্রয়োগসহ প্রয়োজনীয় প্রতিটি বিষয়ে। বিস্তীর্ণ ফসলি খেত তার পাশে দীর্ঘদিনের বন-বনানীর ভিতর দিয়ে শিক্ষার্থীরা বিচরণ করছে, সেই সঙ্গে জেনে নিচ্ছে কৃষির পানি ব্যবস্থাপনা থেকে শুরু করে নানা বিষয়। স্টোন বার্ন সেন্টারের ব্লু হিল রেস্টুরেন্টের কিচেনে গিয়ে রীতিমতো অবাক হয়েছিলাম। সেখানেও শিক্ষার্থীরা। কিন্তু কিচেনে শিক্ষার্থীদের কাজ কী? স্টোন বার্ন সেন্টারে এক দিনের জন্য সংযুক্ত শিক্ষার্থীদের ক্লাসের গুরুত্বপূর্ণ অংশ সবজি কাটা থেকে শুরু করে রান্না পর্যন্ত। এর প্রতিটি পর্ব অত্যন্ত বিজ্ঞানসম্মত।

রেনে মারিয়ন জানান, ফসল উৎপাদনের সব পর্বে যেমন নানা বিষয়ে দৃষ্টি রাখার প্রয়োজন রয়েছে, তেমন দৃষ্টি রাখতে হবে কৃষিপণ্যকে খাদ্যে পরিণত করার কৌশলের দিকেও। বিশেষ করে সবজি বা ফল কাটা, তা রান্না করা এবং পরিবেশনের ওপর নির্ভর করছে এর বিশুদ্ধতা।

পাঠক! এসব শুনে আপনাদের নিশ্চয়ই মনে পড়ছে ফিরে চল মাটির টানের কথা। আমাদের প্রতিটি সেশনেই শিক্ষার্থীদের কৃষি কাজের পাশাপাশি থাকে নিজ হাতে খাদ্য রান্নার বিষয়। অনেক বিড়ম্বনা সহ্য করে শিক্ষার্থীরা নিজেরাই এ কাজগুলো সম্পন্ন করে। যাই হোক, সমন্বিত কৃষি শিক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণকারী আমেরিকান শিশুদের সঙ্গে কথা বলেছি। তারা বলল, ফসলের মাঠ থেকে খাবারের প্লেট পর্যন্ত অর্থাৎ খাদ্য উৎপাদন থেকে শুরু করে প্রক্রিয়াজাতকরণ ও প্রস্তুতি পর্যন্ত এই সম্যক ধারণা তাদের জীবনবোধকে সমৃদ্ধ করেছে।

আগেই বলেছি, স্টোন বার্ন সেন্টার একদিকে যেমন আধুনিক কৃষির নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন ও উন্নয়নের কাজ করে চলেছে, একইভাবে শিক্ষার্থীদের এমনভাবে কৃষিকৌশল সম্পর্কে ধারণা দিচ্ছে যাতে তারা যে কোনো সময় কৃষিকাজে হাত দিতে পারে। ইতিমধ্যে আমেরিকার ৪৬টি স্কুলের মাধ্যমিক শ্রেণির নিয়মিত পাঠক্রমে যুক্ত রয়েছে এই সেন্টার পরিদর্শন ও ব্যবহারিক শিক্ষা। বর্তমান সময়ে বিশ্বব্যাপী নীতিনির্ধারণী পর্যায় থেকেও চিন্তা করা হচ্ছে প্রজন্মকে কৃষিসচেতন করে গড়ে তোলার। খাদ্য নিরাপত্তা ও নিরাপদ খাদ্যের স্বার্থেই প্রতিটি নাগরিকের জানা প্রয়োজন ফসল উৎপাদনের কলাকৌশল। বিশেষ করে নতুন প্রজন্মের কৃষি সম্পর্কিত ধ্যান-ধারণা থাকাটা অত্যন্ত জরুরি।

আমাদের দেশেও খোদ প্রধানমন্ত্রী বার বার আহ্বান জানাচ্ছেন, শিক্ষার্থীদের কৃষকের মাঠে গিয়ে কৃষি সম্পর্কিত ধারণা নেওয়ার জন্য। হৃদয়ে মাটি ও মানুষের পক্ষ থেকে প্রায় এক দশক ধরে ‘ফিরে চল মাটির টানে’ কার্যক্রমের মাধ্যমে আমি চেষ্টা করে চলেছি নতুন প্রজন্মকে কৃষির সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিতে। আমার বিশ্বাস, এসবের মধ্য দিয়ে নতুন প্রজন্ম মাটির সঙ্গে তাদের সম্পর্কটুকু ধরে রাখবে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

দৈনন্দিন

নারকেলেও রয়েছে প্রচুর পুষ্টি, এর তৈরি হচ্ছে ওষুধ, জেনে নিন নারকেলের ঔষধি গুণ সম্পর্কে

নারকেল, আমাদের রাজ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ অর্থকরী ফসল। পুষ্টিগুণে ভরপুর এই ফল প্রচুর উপকারী আমাদের শরীরের জন্য৷ শুধুমাত্র ফল নয়, এই গাছটির সমস্ত অংশই, তা সে পাতাই হোক বা ফলের খোল, ছিবড়েই হোক বা মূল গাছ – সমস্তটাই ব্যবহার্য, যে কারণে এটিকে কল্পবৃক্ষ বা কল্পতরু হিসাবেও অভিহিত করা হয়। ভোজ্য তেল হিসাবেও আমাদের দেশের দক্ষিণের, বিশেষত সমুদ্র উপকূলবর্তী এলাকাগুলিতে এর ব্যবহার বহুল প্রচলিত। নারকেল গাছকে বলা হয়ে থাকে ট্রি অব লাইফ৷ এর ঔষধি গুনের (Medicinal Benefits of Coconut) জন্যও এর চাহিদা প্রচুর৷ বিশ্বব্যাপী খাবার, পানীয়, ঘর সাজানোর জিনিসপত্র তৈরি, ওষুধ তৈরিতে নারকেল ব্যবহৃত হয়ে থাকে৷

নারকেলের বিজ্ঞানসম্মত নাম Cocos nucifera. এর ভিতরের জল, নরম শাঁস, দুধ, তেল, বাইরের শক্ত আবরণ এ সবকিছুই ব্যবহৃত হয়৷ নারকেলের (Nutritional Value of Coconut) মধ্যে বিদ্যমান বিভিন্ন ভিটামিন, মিনারেল আমাদের শরীরকে বহু রোগের হাত থেকে (Benefits of Coconut) রক্ষা করে৷ এই প্রতিবেদনে সেই বিষয়েই তুলে ধরা হল৷

নারকেলের স্বাস্থ্যগুণ (Health Benefits) – 

নারকেল শরীরে কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে হার্টকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে৷ ফলে বিভিন্ন সমস্যা থেকে হার্ট সুরক্ষিত থাকে৷

নারকেল আমাদের হজম শক্তি বাড়িয়ে তোলে৷ নারকেল খেলে ওজনও নিয়ন্ত্রণে থাকে বলে দাবি করা হয়৷

নারকেলের মধ্যে থাকা মিনারেলস্ আমাদের হাড়ের শক্তি বৃদ্ধিতে প্রয়োজনীয়৷ এতে বিদ্যমান ক্যালসিয়াম আমাদের হাড়কে যেমন মজবুত করে তেমনই দাঁতের ক্ষয় রোধ করে দাঁত ভালো রাখতে সাহায্য করে৷

নিয়মিত নারকেল খেলে ত্বক ভালো থাকে৷ ঔজ্জ্বল্য বৃদ্ধি পায়৷ বলিরেখা পড়াকে আটকাতে সাহায্য করে নারকেল৷

নারকেলের তেলেও রয়েছে প্রচুর গুন৷ তাই ঘরে ঘরে নারকেলের তেলের ব্যবহার আজও একইভাবে হয়ে চলেছে৷ এই তেল ব্যবহারে আমাদের শুষ্ক ত্বক যেমন নরম থাকে, তেমনই চুল মজবুত হয়৷ নারকেলের তেল লিভারের সমস্যা হ্রাস করে এবং হজমে সাহায্য করে৷

বিভিন্ন ক্ষত এবং জ্বালা কমাতে নারকেল তেলের জুড়ি মেলা ভার৷ শীতকালে আমাদের ত্বককে ফেটে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করে নারকেলের তেল৷

ডায়াবেটিস-এর সমস্যায় যারা ভুগছেন তাদের জন্য যেমন এটি উপকারী তেমনই অ্যালজাইমার্স-এর হাত থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে এই নারকেল তেল৷

আমাদের শরীরের আভ্যন্তরীণ শক্তি বৃদ্ধি থেকে শুরু করে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধিতেও নারকেল তেলের ভূমিকা রয়েছে৷

বিভিন্ন সংক্রমণের হাত থেকে শরীরকে রক্ষা করতে সাহায্য করে নারকেলের তেল৷ থাইরয়েড-এর সমস্যা হোক বা স্ট্রেচ মার্ক দূরীকরণ, নারকেলের তেলের ওপর অনেকেই ভরসা করেন৷

তবে নারকেল তেল বেশি ব্যবহার করলে সমস্যা হতে পারে৷ অ্যালার্জি থেকে ডায়েরিয়ার সমস্যা দেখা দিতে পারে৷ তাই নিয়মিত নির্দিষ্ট পরিমাণে নারকেল এবং নারকেল তেলের ব্যবহার আমাদের শরীরকে বহু সমস্যা থেকে রক্ষা করে থাকে৷

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

এই সময়ে সুস্থ থাকতে চান? ডায়েটে অবশ্যই রাখুন কিসমিস

আপনি যদি সুস্থ থাকতে চান তবে শীঘ্রই আপনার ডায়েটে কিসমিস অন্তর্ভুক্ত করুন। প্রত্যেকেরই প্রতিদিন সীমিত পরিমাণে কিসমিস খাওয়া উচিত। এটি স্বাস্থ্যের জন্য খুব উপকারী। কিসমিস খাওয়ার ফলে অনেক রোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। আজ আমরা এই নিবন্ধে কিসমিস খাওয়ার উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করব।

script data-ad-client=”ca-pub-3140114751019908″ async=”” src=”https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js”>

শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করে –

কিসমিস খাওয়ার ফলে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আরও দৃঢ় হয়, তাই আপনি যদি ভাইরাসের আক্রমণ থেকে সুরক্ষিত থাকতে চান, তবে প্রতিদিন এটি গ্রহণ করুন।

শরীরে শক্তি যোগান দেয় –

কিসমিসে পর্যাপ্ত পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট থাকে। এই কার্বোহাইড্রেট আর এর মিষ্টত্ব শরীরকে শক্তি জোগায়। এতে কর্মক্ষমতা বাড়ে।

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী –

script data-ad-client=”ca-pub-3140114751019908″ async=”” src=”https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js”>

ডায়াবেটিস রোগীদের কিসমিস খাওয়া উচিত। এটি তাদের জন্য খুব উপকারী। এটি রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখে। তবে মনে রাখবেন, ডায়াবেটিক রোগীদের সীমিত পরিমাণে কিসমিস খাওয়া উচিত। যাদের রক্তাল্পতা রয়েছে, সেই সকল মানুষের প্রতিদিন কিসমিস খাওয়া উচিত। এর দ্বারা অ্যানিমিয়া কাটিয়ে উঠতে সক্ষম হবেন আপনি।

ক্যান্সার কোষ বৃদ্ধি থেকে রক্ষা করতে সহায়ক –

script data-ad-client=”ca-pub-3140114751019908″ async=”” src=”https://pagead2.googlesyndication.com/pagead/js/adsbygoogle.js”>

প্রতিদিন কিসমিস খেলে ক্যান্সারের কোষের বৃদ্ধি রোধ হয়। আপনি যদি সুস্থ ও ফিট রাখতে চান তবে অবশ্যই আপনার ডায়েটে কিসমিস অন্তর্ভুক্ত করুন। এর প্রতিদিনের গ্রহণ অনেক রোগ প্রতিরোধ করে।

যকৃতের জন্য উপকারী –

কিসমিস লিভারের জন্য খুব উপকারী। এটি লিভারকে সুস্থ রাখে, তাই লিভারের রোগীদের প্রতিদিন কিসমিস খাওয়া উচিত।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

বীজ সংরক্ষণ

ফসল উৎপাদনে বীজ যত মানসম্মত হয় ফলন ততবেশি হয়, তত ভালো হয়। ভালো মানসম্মত বীজ যতটুকু না উৎপাদন কৌশলের ওপর নির্ভর করে তার চেয়ে বেশি নির্ভর করে যথাযথ পদ্ধতিতে বীজ সংরক্ষণের ওপর। সাধারণভাবে লাগসই পদ্ধতিতে, আধুনিক পদ্ধতিতে বীজ সংরক্ষণ করা যায়। সাধারণ পদ্ধতিতে সংরক্ষিত বীজ মানসম্মত থাকে না। আধুনিক পদ্ধতিতে সংরক্ষণ করলে খরচ বেশি হয়। সেজন্য কম খরচে মানসম্মত বীজ প্রাপ্তির নিশ্চয়তা পাওয়া যায় এমন পদ্ধতিই বিশ্লেষণ করা হবে। আমাদের দেশে সাধারণত মাটির পাত্রে বীজ সংরক্ষণ করা হয়। বিশেষ কিছু কৌশল আর পদ্ধতি অবলম্বন করলে সাধারণ পদ্ধতি অসাধারণ পদ্ধতিতে পরিণত হয়। বীজ মাটির পাত্রে, বোতলে, পটে, টিনে, ড্রামে, প্লাস্টিকের ড্রামে, বস্তায় সংরক্ষণ করা হয়। তবে বীজ পাত্রের পছন্দ নির্ভর করে বীজের পরিমাণ, জাতের ওপর। যেমন- শাকসবজির বীজ হলে বোতলে/পটে, ডাল তেল বীজের জন্য পট বা টিনে আর দানাদার বীজ হলে ড্রাম, মাটির পাত্র, পলিথিনের বস্তায় রাখা যায়। যে কোনো পাত্রেই রাখা হোক না কেন সাধারণ অনুসরণীয় কৌশল হলো বীজপাত্রের তলায় শুকনা/পরিষ্কার/ ঠান্ডা বালি রেখে তার ওপর ১০-১২% আর্দ্রতা সম্পন্ন বীজ রাখতে হবে। বীজ পাত্রের ঠিক মাঝখানে ১/২ খ- শুকনা চুন রাখতে হয়। তারপর বীজ পাত্রের মুখ পর্যন্ত বীজ রেখে তার উপরে বিশকাটালী/ নিম/ নিসিন্দা/ ল্যান্টানা/তামাকের শুকনা পাতার গুঁড়া মুখে রেখে বীজপাত্র বায়ুরোধী করে বন্ধ করে দিতে হবে। এভাবে বীজ পাত্রে বীজ একবছর পর্যন্ত ভালো থাকে। বীজ সংরক্ষণের সাথে সংশ্লিষ্ট আরো কিছু আবশ্যকীয় করণীয় হলো-


ক. বীজ পাত্র মাটির হলে অগণিত অদৃশ্য ছিদ্রের মাধ্যমে বাতাস মাটির বীজপাত্রের ভেতরে ঢুকে বীজের মান নষ্ট করে দেয়। এ জন্য মাটির বীজপাত্র ভালোভাবে লেপে দিতে হবে। বীজপাত্র প্রলেপ দেয়ার জন্য আলকাতরা, গাবের রস, যে কোনো বাজারি রঙ, রান্নার পুরনো তেল, রেড়ি/ভেরেন্ডা তেল, পাকা বীচিকলার কাথ, কাঁঠালের খোসার কাথ, পাকা বেল এসব দিয়ে মাটির পাত্র লেপে দিয়ে শুকানো বীজ রাখতে হবে। এতে বীজ শতভাগ ভালো এবং বিশুদ্ধ থাকবে।

খ. বীজপাত্রে বীজ যদি কম থাকে তাহলে বিভিন্ন সমস্যা হয়, বীজের মান কমে যায় সেজন্য পারতপক্ষে মুরী, শুকনা পরিষ্কার কাঠের গুঁড়া/ছাই/তুষ দিয়ে বীজপাত্রের খালি অংশ ভরে তারপর বায়ুরোধী করে মুখ বন্ধ করতে হয়। যদি কোনোভাবে বীজপাত্র ভরে দেওয়া সম্ভব না হয় তাহলে খালি জায়গাটিতে একটি মোমবাতি জ্বালিয়ে আস্তে আস্তে বীজপাত্রের ঢাকনা দিয়ে মুখ বন্ধ করে দিতে হবে। এতে খালি জায়গার জীবাণু মরে গিয়ে বীজপাত্রের পরিবেশ বালাইমুক্ত রেখে বীজ মানসম্মত থাকে।
গ. বীজপাত্রে বীজ রাখার কাজ শেষ হলে হয় শিকায় ঝুলিয়ে রাখতে হয় অথবা ওজনে ভারী হলে মাচা করে চাটাই, কাঠের ওপর এমনভাবে রাখতে হবে যেন বীজপাত্র মাটির বা ফ্লোরের সংস্পর্শে না লাগে। এতে মাটির আর্দ্রতায় বীজের কোনো ক্ষতি হয় না।


বীজ সংগ্রহ: মাঠ থেকে জমির সবচেয়ে ভালো ফলন সম্পন্ন অংশ বীজের জন্য নির্বাচন করতে হবে। ৮০ শতাংশের উপর পাকলে বীজ কাটার সময় হয়। রোদ্রউজ্জ্বল দিনে ফসল কেটে পরিষ্কার ভালো স্থানে উপযুক্ত উপকরণে মাচা/টেবিল/গাছের গুড়ি/ড্রাম এসবে আড়াই বাড়ি দিলে যে পরিমাণ বীজ আলাদা হয় সেগুলোই ভালো বীজ হিসেবে সংগ্রহ করতে হবে। আড়াই বাড়ির পর যেসব দানা ফসলের কান্ডের সাথে লেগে থাকে সেগুলো গরু/মহিষ বা পায়ে মুড়িয়ে আলাদা করে খাওয়ার জন্য রাখা যায়। এরপর ভালোভাবে রোদে শুকিয়ে, নিখুঁতভাবে পরিষ্কার করে নিতে হবে। বীজ শুকানো হলো কিনা তার লাগসই পরীক্ষা হলো দাঁতের মধ্যে দিয়ে চাপ দিলে কটকট আওয়াজ করলে বা ধানের বীজ ডানহাতের বৃদ্ধ ও তর্জনীর মধ্যে দিয়ে কানের কাছে নিয়ে চাপ দিলে কট করে আওয়াজ হয়। এতে বুঝতে হবে ধানের আর্দ্রতা সংরক্ষণের পর্যায়ে এসেছে। তারপর শুকিয়ে ঠান্ডা করে উপযুক্ত পাত্রে সংরক্ষণ করতে হয়। মোটকথা বীজের জন্য সবকিছু আলাদা বিশেষত্ব অতিরিক্ত সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

স্পিরুলিনার স্বাস্থ্য গুনাগুন

১. স্তন ক্যান্সারঃ স্পিরুলিনা ক্যান্সার হওয়া থেকে শরীরকে রক্ষা করে। স্পিরুলিনার নীল-সবুজ রঙ এটা ক্যান্সারের কোষ ধ্বংস করতে সক্ষম হয়।স্পিরুলিনা শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট “সেলেনিয়াম” সমৃদ্ধ। গবেষণায় দেখা গেছে স্পিরুলিনা স্তন ক্যান্সার চিকিৎসায় সফলভাবে কার্যকরী হয়েছে।
২. বাত প্রতিরোধঃ স্পিরুলিনা প্রকৃতি বিরোধী প্রদাহ এবং বাত রোগীদের জন্য অত্যন্ত উপকারী। এর অতিরিক্ত পুষ্টি পেতে রস, পাস্তা, সালাদ, রুটি আকারে আপনার খাদ্যের সাথে মিশিয়ে খেতে পারেন যা আপনাকে দেবে বাড়তি স্বাদ ও পুষ্টি ৷


৩. চোখের সমস্যাঃ স্পিরুলিনা যে কোন ধরণের ক্ষতি থেকে চোখকে রক্ষা করে। যা ম্যাঙ্গানিজের উত্তম উৎস উচ্চ পরিমাণে দশ গুণ বেশি ভিটামিন রয়েছে।এটি ছানির পতন এবং মাচুলার মত চক্ষু রোগ ভাল করে শক্তিশালী এবং পুষ্টিকর করে তোলে।


৪. হজমশক্তি বৃদ্ধিঃ এটি কোলাই এবং চান্দিদার মত ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি দমন করে । স্পিরুলিনা পাচনতন্ত্র এর মধ্যে lactobacillus এবং bifidobacteria মত ভাল ব্যাকটেরিয়া তৈরী করে। তাই এটা পুষ্টি শোষণ করে শরীরের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে হজম শক্তি বাড়ায়।
৫. কিডনি সমস্যাঃ স্পিরুলিনার ক্লোরোফিল একটি উচ্চ ঘনত্ব সম্পন্ন এবং সেরা প্রাকৃতিক detoxifiers। এটা কিডনি থেকে ভারী ধাতু, ক্ষতিকারক রশ্মি, এবং দূষণকারী পদার্থ মুছে নিয়ে কিডনিকে বিষাক্ততার হাত থেকে বাঁচায় ৷


৬. ডায়াবেটিস প্রতিরোধঃ স্পিরুলিনার মধ্যে অ্যামিনো অ্যাসিড, ভিটামিন, খনিজ পদার্থ রয়েছে যা ডায়াবেটিস কমাতে সাহায্য করে ৷ এটি ডায়াবেটিকসের মধ্যে লিপিড মাত্রা উন্নত করতে সাহায্য করে।
৭.রোগপ্রতিরোধঃ স্পিরুলিনা একটি চমৎকার আক্রমণ বিরোধী সহায়তাকারী পদার্থ । স্পিরুলিনার মধ্যে পলিস্যাকারাইড উপস্থিতি যার ফলে রোগ এর বিভিন্ন বাধা, ইমিউন সিস্টেম উন্নত করার জন্য সুনাম রয়েছে।
৮.ওজন কমাতেঃ স্পিরুলিনাতে বিশেষ ধরনের প্রোটিন আছে যা ক্ষুধা কম রাখে এবং শরীরের স্তূপাকার চর্বিকে নিরাময় করে। তাই এটা ব্যায়ামকারীর জন্য মিলিত কোন ওজন কমানোর খাদ্যের মধ্যে একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ খাবার।


৯.রক্ত স্বল্পতাঃ আয়রনের অভাব বিশেষ করে নারী ও শিশুদের মধ্যে খুবই সাধারণ ও তা ব্যাপক আকারের।স্পিরুলিনা আয়রনের সেরা প্রাকৃতিক সূত্র। এটি ভিটামিন বি এবং হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়িয়ে সফলভাবে রক্তাল্পতা থেকে বাঁচাতে সাহায্য করে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

উপকারিতার পাশাপাশি তুলসি পাতার রয়েছে কিছু অপকারিতাও

উপকারী একটি ভেষজ হচ্ছে তুলসি পাতা। এই পাতার উপকারিতা সম্পর্কে জানেন না এমন মানুষ খুবই আছে। অনেক বাড়ির আঙিনা, ছাদ কিংবা বারান্দায় দেখা যায় উপকারী এই গাছটি। ওষুধ হিসেবে তুলসি পাতার ব্যবহার অনেককাল আগে থেকেই হয়ে আসছে।

এই পাতায় আছে অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপাদান। এগুলো মারাত্মক সব রোগ যেমন ক্যান্সার, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ ইত্যদির বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যেতে পারে। এটি নানা গুণে অনন্য বলেই হাজার বছর ধরে যোগ আছে ওষুধের তালিকায়। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক তুলসি পাতার কিছু উপকারিতা সম্পর্কে-

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

রোগ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে তুলসি পাতা। অ্যাজমা, ফুসফুসের সমস্যা, ব্রঙ্কাইটিস ইত্যাদি মোকাবিলায় কাজ করে এই পাতা। জ্বর সারাতেও তুলসি পাতা সমান উপকারী। তুলসি পাতা ও এলাচ পানিতে ফুটিয়ে সেই পানি পান করলে খুব সহজেই বিভিন্ন রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। ক্ষতস্থানে তুলসি পাতা বেটে লাগালে তা দ্রুত শুকায়।

ওজন কমায়

তুলসি পাতা খেলে তা রক্তে সুগারের মাত্রা ও কোলেস্টরল দুটোই রোধ করে। তাই খুব সহজেই ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়। সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, তুলসি দিয়ে তৈরি ২৫০ মিলিগ্রামের একটি ক্যাপসুল প্রতিদিন খাওয়ার ফলে ওবেসিটি ও লিপিড প্রোফাইল নিয়ন্ত্রণ করা যায়। তবে যেকোনো ওষুধ খাওয়ার আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

ডায়াবেটিস দূরে রাখে

তুলসি পাতা ইনসুলিন উৎপাদনের কাজ করে। প্রতিদিন খাওয়ার আগে তুলসি পাতা খেলে রক্তে সুগারের মাত্রা কমে। তুলসি অ্যান্টি ডায়াবেটিক ওষুধের কাজ করে। তুলসিতে থাকা স্যাপোনিন, ত্রিতারপিনিন ও ফ্ল্যাবোনয়েড ডায়বেটিস রোধ করতে কার্যকরী।

সর্দি-কাশি কমিয়ে দেয়

এটি খুব পরিচিত চিত্র যে, ঠাণ্ডা লাগলে অর্থাৎ সর্দি-কাশি হলে তুলসি পাতা খাওয়া হয় ওষুধ হিসেবে। সর্দি ও কাশি সারাতে এটি খুব দ্রুত কাজ করে। বুকে কফ বসে গেলে প্রতিদিন সকালে তুলসি পাতা, আদা ও চা পাতা ভালোভাবে ফুটিয়ে তাতে মধু ও লেবু মিশিয়ে পান করুন। এতে দ্রুতই উপশম মিলবে।

গলা ব্যথা দূর করে

গলা ব্যথার সমস্যায় ভুগলে আস্থা রাখুন তুলসি পাতায়। কারণ এই সমস্যা দূর করতে তুলসি পাতার জুড়ি মেলা ভার। শ্বাসকষ্টের সমস্যা কমাতেও তুলসি পাতা বেশ উপকারী। করোনা মহামারির এই সময়ে তাই নিয়মিত তুলসি পাতা খাওয়ার অভ্যাস করুন। কয়েকটি তুলসি পাতা ফুটিয়ে সেই পানি দিয়ে গার্গল করলে গলাব্যথা দ্রুত সেরে যায়।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

ক্যান্সার এক মরণঘাতি অসুখের নাম। এই অসুখ দূরে রাখতেও সাহায্য করে তুলসি পাতা। এই পাতায় আছে রেডিওপ্রটেকটিভ উপাদান যা টিউমারের কোষগুলোকে মেরে ফেলে। এতে আরো আছে ফাইটোকেমিক্যাল যেমন রোসমারিনিক এসিড, মাইরেটিনাল, লিউটিউলিন এবং এপিজেনিন। এসব উপাদান ক্যান্সারের বিরুদ্ধে কাজ করতে কার্যকরী। অগ্নাশয়ে যে টিউমার কোষ দেখা দেয় তা দূর করতেও তুলসি পাতা দারুণ উপকারী। পাশাপাশি দূরে রাখে ব্রেস্ট ক্যান্সারও।

উপকারিতার পাশাপাশি তুলসি পাতার রয়েছে কিছু অপকারিতাও। তাই কিছু কিছু ক্ষেত্রে এটি এড়িয়ে যাওয়া বা না খাওয়াই উত্তম। চলুন জেনে নেয়া যাক কোন কোন ক্ষেত্রে তুলসি পাতা এড়িয়ে চলবেন-

নিম্ন রক্তচাপ

তুলসি পাতায় থাকে অতিরিক্ত পটাশিয়াম। ফলে কমে যেতে পারে রক্তচাপ। তাই কারো নিম্ন রক্তচাপের সমস্যা থাকলে তুলসি পাতা না খাওয়াই ভালো।

গর্ভাবস্থা বা স্তন্যপান করানোর সময়

সামান্য তুলসি পাতা খেলে তা ক্ষতিকর নয় তবে অতিরিক্ত তুলসি পাতা খেলে এসময় নানা রকম জটিলতা দেখা দিতে পারে। তাই এই সময়গুলোতে তুলসি এড়িয়ে চলাই উত্তম। এছাড়া অতিরিক্ত তুলসি পাতা খেলে তা নারীর ক্ষেত্রে হতে পারে বন্ধ্যাত্বের কারণ। তাই পরিমিত গ্রহণ করতে হবে।

রক্তপাতের সমস্যা দেখা দিতে পারে

তুলসি পাতা অতিরিক্ত খেলে তা শরীরে রক্তের প্রবাহ বাড়িয়ে দিতে পারে। ফলে শরীরের স্বাভাবিক রক্ত জমাট হওয়ার প্রবণতা নষ্ট হয়ে যায়। এ কারণে দেখা দিতে পারে অতিরিক্ত রক্তপাতের সমস্যা। যেকোনো সার্জারির দুই সপ্তাহ আগে থেকে তুলসি পাতা খাওয়া বন্ধ রাখুন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com