আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

ফসল

শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন
শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

‘সাউ হাইব্রিড ভুট্টা-১’ ও ‘সাউ হাইব্রিড ভুট্টা-২’ নামে ভুট্টার দুটি নতুন জাত উদ্ভাবন করেছে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (শেকৃবি)। গবেষক জানান, এই ভুট্টার জাত দুটি পুরো দেশেই চাষ করা যাবে এবং এর নামকরণও করা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের নামানুসারে। ইতোমধ্যে জাতীয় বীজবোর্ড উদ্ভাবিত বীজ দুটি নিবন্ধন করেছে।

জাত দুটি উদ্ভাবন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষিতত্ত্ব (এগ্রোনমি) বিভাগের অধ্যাপক ড. আবদুল্লাহেল বাকী। তিনি জানান, দীর্ঘ প্রায় ৫ বছর গবেষণা করে এ সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন। জাত দুটি রবি (সেপ্টেম্বর-জানুয়ারি) ও খরিপ-১ (মার্চ-মে) মৌসুমে চাষ করা যাবে। খরিপ-১ শুধু ‘সাউ হাইব্রিড ভুট্টা-১’র ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন
শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

দেশীয় জাতের চেয়ে খাটো হওয়ায় জাত দুটি প্রবল বাতাসে বা ঝড়ে পড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। গোড়া থেকে মোচার উচ্চতা ৬০-৮৫ সেমি। ফলে মাটি থেকে দ্রুত মোচায় পানি ও পুষ্টি সরবরাহ করতে সক্ষম। চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর এবং পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জে জাত দুটির ট্রায়াল দেওয়া হয়েছে। রবি মৌসুমে প্রতি বিঘায় গড় ফলন হবে ৪৫-৫০ মণ এবং খরিপ-১ মৌসুমে বিঘাপ্রতি গড় ফলন হবে ২৫-৩৩ মণ।

তিনি আরও জানান, এদের ট্যাসেল খাড়া ও ছড়ানো হয়ে থাকে। এতে বৃষ্টির পানি ট্যাসেলে জমতে পারে না। বীজের গঠন চোখা। ফলে এর র্যাকিসে বেশিসংখ্যক বীজ জন্মায়। এতে কৃষক বেশি লাভবান হবেন।

শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন
শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

আবদুল্লাহেল বাকী জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমাদের দেশে পোল্ট্রি ফিড উৎপাদনের জন্য প্রচুর পরিমাণ ভুট্টা আমদানি করতে হয়। দেশে জাত দুটির উৎপাদন বাড়ানো সম্ভব হলে আমদানি নির্ভরতা অনেকটাই কমে যাবে।’

জাত দুটি নিয়ে স্নাতকোত্তর ও পিএইচ.ডির শিক্ষার্থীরা গবেষণা করবেন। তাদের গবেষণা থেকে প্রাপ্ত ফলাফল পর্যালোচনা করে কৃষক পর্যায়ে বীজ সরবরাহ করা হবে বলে জানান তিনি।

  • শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

    শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

  • শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

    শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

  • শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

    শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

  • শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন
  • শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন
  • শেকৃবিতে দুটি নতুন জাতের ভুট্টা উদ্ভাবন

ফসল

ইঁদুরের হাত থেকে ৩৬০ কোটি টাকার ফসল রক্ষা

গত বছর প্রায় ১ কোটি ১৯ লাখ ৮৪ হাজার ইঁদুর নিধনের মাধ্যমে প্রায় ৮৯ হাজার ৮৭৬ টন ফসল রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে। যার বাজার মূল্য প্রায় ৩৬০ কোটি টাকা। ২০১৯ সালেও ইঁদুর নিধন অভিযানের মাধ্যমে প্রায় ১ কোটি ৪৭ লাখ ৯০ হাজার ইঁদুর নিধন করে ৩০০ কোটি টাকার ফসল রক্ষা করা হয়।

[৩] সোমবার রাজধানীর খামারবাড়ির আ.কা.মু. গিয়াস উদ্দিন মিলকী অডিটরিয়ামে জাতীয় ইঁদুর নিধন অভিযান ২০২১ ও ২০২০ সালের পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে তথ্যটি উঠে আসে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর প্রতি বছর মাসব্যাপি এ অভিযান পরিচালনা করে থাকে। ১০ নভেম্বর পর্যন্ত চলবে এ অভিযান। জাতীয় ইঁদুর নিধন অভিযান ২০২১ এর প্রতিপাদ্য- জাতীয় সম্পদ রক্ষার্থে, ইঁদুর মারি একসাথে।

[৪] ইঁদুরের ব্যাপক ক্ষতি থেকে ফসলকে রক্ষা করার পাশাপাশি ইঁদুর নিধন কার্যক্রমকে আরো জোরদার করার আহবান জানান কৃষি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. মেসবাহুল ইসলাম। সোমবার জাতীয় ইঁদুর নিধন অভিযানের উদ্বোধনী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহবান জানান।

[৫] তিনি বলেন, প্রতিনিয়তই ইঁদুর কৃষকের কষ্টার্জিত ফসলের কয়েকগুন নষ্ট করে থাকে। এ ক্ষতির পরিমান বছরে প্রায় ২ হাজার ৯০০ কোটি টাকা। উদ্বুদ্ধরণের মাধ্যমে সম্মিলিতভাবে ইঁদুর নিধন করতে হবে। খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি ও খাদ্য নিরাপত্তার জন্য ইঁদুর দমন করা অত্যন্ত জরুরি।

[৬] কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. আসাদুল্লাহর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন কৃষি মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. হাসানুজ্জামান কল্লোল, সরেজমিন উইংয়ের পরিচালক কৃষিবিদ মো. মনিরুল ইসলাম, বিনার মহাপরিচালক মফিজুল ইসলাম ও বাংলাদেশ সুগারক্রপ রিসার্চ ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক মোহাম্মদ আমজাদ হোসেন।

[৭] স্বাগত বক্তব্য দেন উদ্ভিদ সংরক্ষণ উইংয়ের পরিচালক ড. মো. আবু সাইদ মিঞা। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন উদ্ভিদ সংরক্ষণ উইংয়ের অতিরিক্ত পরিচালক কৃষিবিদ হাবিবুর রহমান। এ সময় কৃষি মন্ত্রণালয় ও অধীনস্থ সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফসল

নওগাঁয় আশার আলো জাগিয়েছে বিনা ১৭ ধান

স্বল্প মেয়াদি জীবনকাল, সার-পানি সাশ্রয়ী, আলোক সংবেদনশীল, উন্নত গুনাগুন সম্পন্ন ও খরাসহিষ্ণু হওয়ায় কৃষকের মাঝে আশার আলো জাগিয়েছে আমন মৌসুমে বিনা-১৭ জাতের ধান চাষ। বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনষ্টিটিউট (বিনা) এর উপকেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জ পরিচালিত গবেষণা ও সম্প্রসারণ অংশ হিসেবে মাঠ দিবস পালিত হয়। মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টায় জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার শালাবাড়ি মাঠে ধান কর্তণের পর বটতলী হাটে এক আলোচনা সভায় বক্তারা এ কথা বলেন।

[৩] জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, জেলায় ১ লাখ ৯৭ হাজার ১১০ হেক্টর জমিতে আমনের আবাদ হয়েছে। এরমধ্যে বিনা-১৭ জাতের ধান ১ হাজার ৩০ হেক্টর। যেখানে রানীনগরে ৫২০ হেক্টর, ধামইরহাটে ১২৫ হেক্টর, নিয়ামতপুরে ৫ হেক্টর ও মান্দা ২০ হেক্টরসহ অন্যান্য উপজেলা কমবেশি আবাদ হয়েছে।

[৪] বিনা-১৭ জাতের ধানে পানি কম লাগার কারণে একে গ্রীণ সুপার রাইস নামেও অভিহিত করেছেন অনেকে। এ জাতের ধানে ইউরিয়া সার এক-তৃতীয়াংশ ও সেচ ৫০ শতাংশ কম লাগে। ধানের জীবনকাল ১১০-১১৫দিন। এর প্রতি শীষে ২০০-২৫০ টি দানা থাকে এবং ফলন আশাব্যঞ্জক হওয়ায় কৃষকের জন্য এ জাতের ধান চাষ খুবই লাভজনক। প্রতি বিঘায় প্রায় ২২-২৫ মণ ফলন হয়ে থাকে। অন্যান্য ধানের তুলনায় আবাদে ২-৩ হাজার টাকা খরচ কম হয়।

[৫] শালবাড়ি গ্রামের কৃষক ইব্রাহিম খলিল বলেন, চারবিঘা জমিতে বিনা-১৭ জাতের ধান রোপন করেছেন। এ জাতের ধান চাষে সেচ, সার, ঔষধ ও পানির খরচ অনেকটাই কম। এক সাথে ধান রোপন করে আমার জমির ধান কাটা হচ্ছে। আর পাশের জমিতে এখনো প্রায় ২০-২৫ দিন পর্যন্ত ৩-৪ টি সেচ দিতে হবে। আগে স্বর্ণা-৫ জাতের আবাদ করতাম। সে তুলনায় বিঘাপ্রতি আমার ২-৩ হাজার টাকা খরচ কম পড়েছে। আমার কাছে মনে বিনা-১৭ জাতের ধান চাষ লাভজনক এবং কৃষকদের আশার আলো দেখাচ্ছে। অনেকেই এখন এ ধান চাষে উদ্বৃদ্ধ হচ্ছে।

[৬] ঘুলকুড়ি গ্রামের কৃষক মফিজ উদ্দিন বলেন, আমরা নতুন ধানের গুনাবলি বিষয়ে জানতাম না। পাশের জমি একসাথে লাগিয়ে তার টা কাটা হচ্ছে। আবার ফলনও ভাল। আর আমার টা এখনো ২০-২৫ দিন সময় লাগবে। বাস্তবে দেখলাম বিনা-১৭ জাতের ধান স্বল্প সময়ে আবাদ হয়েছে। এ ধান কাটার পর রবিশষ্য রোপন করা হবে। যে জমিতে দুই ফসল হতো সেখানে এখন তিন ফসল করা সম্ভব। আগামীতে এ জাতের ধান চাষে নিজে লাগানো পাশাপাশি আশপাশের সবাইকে উদ্বৃদ্ধ করব

[৭] বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনষ্টিটিউট (বিনা) এর চাঁপাইনবাবগঞ্জ উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও উপকেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ড. মো. হাসানুজ্জামান বলেন, বিনা-১৭ একটি স্বল্পমেয়াদী জাতের ধান। খরাসহিষ্ণু (৩০ শতাংশ পানি কম প্রয়োজন)। ১১০-১১৫ দিনের মধ্যে কাটা যাবে এবং গড় ফলন প্রতি হেক্টর ৬ দশমিক ৫ হেক্টর। যে জমিতে দুইটি ফসল হতো সেখানে এ জাতের ধান চাষে এখন তিনটি ফসল সম্ভব। বিনা ধান-১৭ স্বল্প জীবনকালীন হওয়ায় ধান কাটার পর ওই একই জমিতে কৃষক সরিষা/মসুর/আলু চাষ করতে পারবেন। পরে জমি তৈরি করে বোরো ধান লাগানো যাবে। কৃষকদের উদ্বৃদ্ধ করে প্রচার-প্রচারণা করা হচ্ছে।

[৮] আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন- বিনার বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ফরহাদ হোসেন ও জুবায়ের আল ইসলাম, নওগাঁ জেলা কৃষি প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ কেএম মঞ্জুরে মওলা, নিয়ামতপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আমির আবদুল্লাহ মো. ওয়াহিদুজ্জামান, কৃষক ইব্রাহিম খলিলসহ স্থানীয় কৃষক ও গণ্যমাণ্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফসল

জয়পুরহাটে ১৮৫ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছে গ্রীষ্মকালীন মরিচ

জয়পুরহাট ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে গ্রীষ্মকালীন খরিপ-১ মৌসুমে এবার ১৮৫ হেক্টর জমিতে কাঁচা মরিচের চাষ হয়েছে।

[৩] জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, জয়পুরহাট জেলায় ২০২০-২০২১ খরিপ-১ মৌসুমে গ্রীষ্মকালীন আগাম জাতের ২০০ হেক্টর জমিতে মরিচের চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে চাষ হয়েছে ১৮৫ হেক্টর জমিতে। এতে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৪১৪ মেট্রিক টন ধরা হলেও উৎপাদন হয়েছে ৩৭০ মেট্রিক টন মরিচ।

[৪] এছাড়া জেলায় শতিকালীন মৌসুমে ৩২০ হেক্টর জমিতে মরিচের চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সোমবার পর্যন্ত জেলায় ২৮০ হেক্টর জমিতে শীতকালীন মরিচের চাষ সম্পন্ন হয়েছে বলে জানায় কৃষি বিভাগ। যাতে মরিচের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫৭৬ মেট্রিক টন মরিচ। বর্তমান বাজারে ওঠা রবি মৌসুমের মরিচের সঙ্গে যোগ হয়েছে খরিপ-১ মৌসুমের আগাম জাতের মরিচ ফলে দাম কিছুটা স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।

[৫] জেলা শহরের নতুনহাট, মাছবাজার ও ক্ষেতলাল উপজেলার বটতলী বাজার ঘুরে দেখা যায় কাঁচা মরিচ পাইকারী বিক্রি হচ্ছে প্রকার ভেদে ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি। যদিও জেলা শহরের খুচরা বাজারে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে কাঁচা মরিচ।

[৬] জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপ পরিচালক কৃষিবিদ বাবলু কুমার সূত্রধর জানান, আবহাওয়া ভালো থাকায় এবার মরিচের আবাদ ভালো হয়েছে। বাজারে আগাম জাতের মরিচের আমদানি কম হওয়ায় দাম একটু বেড়েছে তবে এটি বেশি দিন থাকবে না।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফসল

জয়পুরহাটে ১৮৫ হেক্টর জমিতে গ্রীষ্মকালীন মরিচ চাষ

লেখক

জেলায় ২০২০-২০২১ অর্থ বছরে  গ্রীষ্মকালীন খরিপ-১ মৌসুমে এবার ১৮৫ হেক্টর জমিতে কাঁচা মরিচের চাষ হয়েছে।      
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র বাসস’কে জানায়, জয়পুরহাট জেলায় ২০২০-২০২১ খরিপ-১ মৌসুমে গ্রীষ্মকালীন আগাম জাতের ২০০ হেক্টর জমিতে মরিচের চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে চাষ হয়েছে  ১৮৫ হেক্টর জমিতে। এতে উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ৪১৪ মেট্রিক টন ধরা হলেও উৎপাদন হয়েছে ৩৭০ মেট্রিক টন মরিচ। এ ছাড়াও জেলায় শতিকালীন মৌসুমে ৩২০ হেক্টর জমিতে মরিচের চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সোমবার পর্যন্ত জেলায় ২৮০ হেক্টর জমিতে শীতকালীন মরিচের চাষ সম্পন্ন হয়েছে বলে জানায় কৃষি বিভাগ। যাতে মরিচের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫৭৬ মেট্রিক টন মরিচ। বর্তমান বাজারে ওঠা  রবি মৌসুমের মরিচের সঙ্গে যোগ হয়েছে খরিপ-১ মৌসুমের আগাম জাতের মরিচ ফলে দাম কিছুটা স্বাভাবিক রয়েছে বলে জানিয়েছে কৃষি বিভাগ।     


জেলা শহরের নতুনহাট, মাছবাজার ও  ক্ষেতলাল উপজেলার বটতলী বাজার ঘুরে দেখা যায় কাঁচা মরিচ পাইকারী বিক্রি হচ্ছে প্রকার ভেদে ১১০ থেকে ১২০ টাকা কেজি।  যদিও জেলা শহরের খুচরা বাজারে ১৩০ থেকে ১৪০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে কাঁচা মরিচ। জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপ পরিচালক কৃষিবিদ বাবলু কুমার সূত্রধর জানান, আবহাওয়া ভালো থাকায় এবার মরিচের আবাদ ভালো হয়েছে। বাজারে আগাম জাতের মরিচের আমদানি কম হওয়ায় দাম একটু বেড়েছে তবে এটি বেশি দিন থাকবেনা বলে মন্তব্য করেন তিনি।   

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফসল

জয়পুরহাটে আগাম জাতের রোপা আমন ধান কাটা শুরু

লেখক

সরকারের কৃষি ক্ষেত্রে নানামুখি কর্মসূচি বাস্তবায়নের ফলে কার্তিকের মঙ্গা আর স্পর্শ করতে পারেনা। খাদ্য উৎপাদনে উদ্বৃত্ত জেলা জয়পুরহাটে আগাম জাতের রোপা আমন ধান কাটা মাড়াই শুরু হয়েছে। ভালো ফলন পেয়ে কৃষকরাও খুশি। এতে কৃষকের পাশাপাশি দিনমজুররাও ব্যস্ত হয়ে উঠছেন ধান কাটা মাড়াই কাজে।     
জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, জেলায় চলতি ২০২১-২২  রোপা আমন চাষ মৌসুমে ৬৯ হাজার ৬৬০ হেক্টর জমিতে রোপা আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করা হলেও চাষ হয়েছে ৬৯ হাজার ৬৬২ হেক্টর জমিতে। এরমধ্যে আগাম জাতের রোপা আমন ধান রয়েছে ৪ হাজার ৮শ হেক্টর। আগাম জাত গুলোর মধ্যে রয়েছে  ব্রী ধান-৭৫, বিনা ধান ১৭, আগাম হাইব্রিড জাতের মধ্যে রয়েছে ধানি গোল্ড ও এরাইজ-৭০০৬ জাত। এ গুলোর গড় উৎপাদন হচ্ছে হেক্টর প্রতি ৫ থেকে ৬ মেট্রিক টন।  জেলার এবার মোট  উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে  ২ লাখ  মেট্রিক টন চাল। এবার আষাঢ় মাসে বৃষ্টিপাত সন্তোষজনক পর্যায়ে থাকায়  রোপা আমন চাষে তেমন কোন সমস্যা হয়নি।  চলতি জুলাই দ্বিতীয় সপ্তাহের পর থেকে আমনের চারা রোপণ কার্যক্রম শুরু হলেও আগস্টের শেষ সপ্তাহে রোপণ কার্যক্রম শেষ হয়  বলে  জানায় কৃষি বিভাগ। 


কৃষি বিভাগ জানায়, জয়পুরহাটে চলতি ২০২১-২২ মৌসুমে রোপা আমন চাষ সফল করতে ৩ হাজার ৫০০ হেক্টর জমিতে বীজতলা তৈরি করা হয়েছে। জেলায় ২০২০-২০২১ মৌসুমে বোরোর বাম্পার ফলন হয়েছে। কৃষি বিভাগের হিসেবে মতে জেলায় এবার বোরো চাল উৎপাদন হয়েছে সাড়ে ৩ লাখ  মেট্রিক টন।  বোরো ধান কাটা মাড়াই শেষ করেই কৃষকরা রোপা আমন চাষে ঝাঁপিয়ে পড়ে। আগাম জাতের ধান কাটা শুরু হলেও অন্যান্য জাতের ধানও পাক ধরেছে।  অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহ থেকে আগাম জাতের ধান কাটা শুরু হলেও আগামী নভেম্বর মাস থেকে সব জাতের ধান কাটা মাড়াই পুরো দমে শুরু হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন স্থানীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত উপ পরিচালক বাবলু কুমার সূত্রধর।     

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com