আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

মৎস্য

ইলিশ: উৎস স্থানের চেয়ে ঢাকায় কেন ইলিশের দাম কম

পিরোজপুরের কচা নদী থেকে ধরে আনা তাজা ইলিশ মাছ বিক্রির জন্য সাজিয়ে রাখা হয়েছে
পিরোজপুরের কচা নদী থেকে ধরে আনা তাজা ইলিশ মাছ বিক্রির জন্য সাজিয়ে রাখা হয়েছে

বরিশালের মেয়ে লাভলী আক্তার ঢাকায় এক জোড়া ইলিশ মাছ কিনেছিলেন ১৬০০ টাকা দিয়ে। কয়েকদিন পরে তিনি গ্রামের বাড়ি বাকেরগঞ্জে গিয়ে গিয়ে দেখতে পান, একই আকৃতির একজোড়া ইলিশ সেখানে বিক্রি হচ্ছে ২৫০০ টাকায়।

”আমি খুব অবাক হলাম। কারণ এসব জায়গা থেকেই তো ইলিশ ধরে ঢাকায় পাঠানো হয়। অথচ সেখানে ইলিশ মাছের দাম কম, আর যেখানে ইলিশ ধরা পড়ছে, সেখানে মাছের দাম এতো বেশি!”

এরকম অভিজ্ঞতা শুধু তার একার নয়।

ঢাকার কাঠালবাগান মাছ বাজারের একজন ক্রেতা নাজমা আনোয়ার বলছেন, দুইদিন আগে তিনি এক কেজি ওজনের একেকটি ইলিশ মাছ কিনেছেন ৯০০ টাকা কেজি দরে।

অপরদিকে ঝালকাঠির একজন ক্রেতা তৈমুর হোসেন বলছেন, সেখানে এখন এক কেজি ওজনের ইলিশ মাছ বিক্রি হচ্ছে ১২০০ টাকা কেজি হিসাবে।

এসব ইলিশ নদী বা সাগর থেকে ধরার পর, বরফ দিয়ে, ট্রলার বা ট্রাকে করে বহু পথ পাড়ি দিয়ে ঢাকার মতো শহরগুলোয় বিক্রি করা হয়।

কিন্তু যেখানে ধরা পড়ছে, ঢাকার তুলনায় সেসব উৎস স্থানে কেন ইলিশের দাম চড়া?

ইলিশ এলাকার চেয়ে ঢাকায় কেন দাম কম?

বরগুনার পাথরঘাটায় ইলিশ মাছের ব্যবসা করেন মজনু হোসেন। তিনি পাইকারি দরে ইলিশ কিনে ঢাকায় পাঠান।

তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, এই ইলিশের মোকামে [ব্যবসার জন্য নির্ধারিত স্থান] মূলত দুই ধরণের ইলিশ মাছ আসে। একটি নদী থেকে ধরা ইলিশ মাছ, যেগুলো আশেপাশের বড় বড় নদী, যেমন পশুর নদী, বলেশ্বর নদী ইত্যাদি থেকে ধরা হয়।

এগুলো আসলে ধরার দিনেই আড়তে চলে আসে। স্বাদও বেশি। এগুলো একটু চড়া দামে বিক্রি করা হয়। এই মোকামে এগুলোর কেজি বিক্রি হয় ৭৫০ টাকা থেকে শুরু করে ৯০০ টাকার মধ্যে। ইলিশ বেশি বড় হলে দামও একটু বেশি হয়।

আরেকটি হচ্ছে সাগর থেকে ধরা ইলিশ। জেলেরা ট্রলার নিয়ে ১০/১৫দিন সাগরে থেকে অনেক মাছ বরফ দিয়ে নিয়ে একবারে ফিরে আসে। এসব মাছের দাম তুলনামূলক কম। যেমন বড় ইলিশেরই দাম ৪০০/৫০০ টাকা কেজি। পরিবহন খরচ যোগ করার পরেও এই ইলিশ ঢাকায় ৫০০/৬০০ টাকায় বিক্রি করা যায়।

তিনি জানান, ঢাকায় মূলত এই ইলিশ মাছগুলোই কম দামে বিক্রি হয়।

আবার কোন কোন জেলে বা আড়তদার জেলেদের কাছ থেকে কিনে স্থানীয় বাজারে ইলিশ বিক্রি করেন। সংখ্যা কম হওয়ায়, নদীর মাছ আর তাজা হওয়ায় এসব ইলিশের দামও একটু বেশি হয়ে থাকে।

বিশেষজ্ঞরা বলেন নদীর ইলিশের স্বাদ বেশি
বিশেষজ্ঞরা বলেন নদীর ইলিশের স্বাদ বেশি

ইলিশ মাছের চেইন

ব্যবসায়ী মজনু হোসেন বলছেন, স্থানীয় বাজারে আসলে ইলিশ কম যায়।

কারণ হিসেবে তিনি জানান, জেলেদের সাথে দাদনদারদের চুক্তি থাকায় তারা সরাসরি সব মাছ আড়তে দিয়ে যায়। আবার আড়তদাররা সেগুলো স্থানীয় বাজারে বিক্রি না করে বরফ দিয়ে সেগুলো ঢাকায় বা অন্যান্য শহরে পাঠিয়ে দেন।

“ফলে কাছের নদী থেকে ধরা হলেও, এখানকার মাছ স্থানীয় বাজারে খুব একটা পাওয়া যায় না।” এর ফলে অল্প যা পাওয়া যায়, তার মূল্য খুব চড়া থাকে।

নদী থেকে ধরা ইলিশ মাছগুলো বেশিরভাগ ক্ষেত্রে রপ্তানিকারকরা কিনে নেন।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, ইলিশ মাছ ধরার জেলেদের সঙ্গে স্থানীয় আড়ত ব্যবসায়ীদের চুক্তি থাকে। সে অনুযায়ী তারা অমৌসুমের সময় জেলেদের অর্থ সাহায্য করেন। ইলিশ ধরার জাল ও খরচ দেন। শর্ত থাকে, ধরে আনা ইলিশ শুধুমাত্র তাদের কাছেই বিক্রি করতে হবে।

এই পাইকারি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আবার যোগাযোগ থাকে ঢাকার পাইকারি ইলিশ বিক্রেতাদের। অনেক সময় ঢাকার বড় পাইকারি বিক্রেতা ও রপ্তানিকারকরা এই আড়ত মালিকদেরও আগাম অর্থ দিয়ে থাকেন।

ফলে ইলিশ ধরার পর জেলেরা এই আড়ত মালিকদের কাছে পৌঁছে দিয়ে তাদের আগাম নেয়া অর্থের সমন্বয় করেন। এরপর আড়ত মালিকরা বরফ দিয়ে সেসব মাছ সরাসরি ঢাকার পাইকারি বিক্রেতা এবং রপ্তানিকারকদের কাছে পাঠিয়ে দেন।

যেহেতু পুরো প্রক্রিয়াটি আগাম অর্থ লেনদেনের মাধ্যমে ঘটে থাকে, তাই এসব ইলিশ ক্রয়-বিক্রয়ও বাজারের দামের চেয়ে কিছুটা কম দরে হয়।

বাংলাদেশে পরপর দুই বছর ইলিশের ব্যাপক আহরণ হয়েছে
বাংলাদেশে পরপর দুই বছর ইলিশের ব্যাপক আহরণ হয়েছে

‘স্থানীয় বাজারে ইলিশ নেই’

যেসব স্থানে ইলিশ ধরা পড়ে, সেখানকার স্থানীয় বাজারে অনেক সময় ইলিশ কম পাওয়া যায়।

শরীয়তপুরের একজন বাসিন্দা শাহরিয়ার হোসেন বলছেন, ”নদী থেকেই মাছগুলো আড়তদারদের আড়তে চলে যায়। সেখান থেকে বরফ দিয়ে চাঁদপুর, ঢাকা ইত্যাদি অঞ্চলে চলে যায়। আমাদের বাজারে মাছ ওঠে অনেক কম।”

ব্যবসায়ী মজনু হোসেন বলছেন, ইলিশ ধরার এলাকাগুলোয় এই প্রক্রিয়ার ফাঁক গলে অল্প কিছু ইলিশ বাজারে ওঠে। ফলে সেখানে দামও থাকে তুলনামূলক বেশি।

ইলিশের সিন্ডিকেট

বিভিন্ন স্থান থেকে ইলিশ মাছ সংগ্রহ করে ঢাকায় বিক্রি করেন একজন উদ্যোক্তা প্রবীর কুমার সরকার।

তিনি বলছেন, যেসব স্থানে ইলিশ ধরা পড়ে, সব জায়গাতেই সেখানে ইলিশের একটা ‘সিন্ডিকেট’ আছে। সেই সিন্ডিকেটের বাইরে গিয়ে ইলিশ কেনাবেচা করা যায় না।

তিনি বলছেন, ঢাকায় যেসব ইলিশ মাছ পাওয়া যায়, তার বড় একটি অংশ আসে কোল্ড স্টোরেজ থেকে, যেগুলো সাধারণত ঈদের মতো সময়ে সস্তায় কিনে রাখা ইলিশ।

”এছাড়া মিয়ানমার থেকে আসা ইলিশ, সাগরে ধরা ইলিশ কিনতে খরচ কম পড়ে বলে সেগুলো বাজারেও কম দামে বিক্রি করা যায়। পরিবহন খরচ যোগ করার পরেও সব মিলিয়ে এগুলোর দাম কমই পড়ে।”

ইলিশ মাছ বাংলাদেশে খুবই জনপ্রিয়
ইলিশ মাছ বাংলাদেশে খুবই জনপ্রিয়

”ঢাকার ক্রেতারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কোনটা সাগরের, কোনটা নদীর বুঝতে পারেন না। ফলে ক্রেতাদের কাছে বিক্রেতারা এসব ইলিশ অনেক কম দামে বিক্রি করতে পারে, যা একজন সাধারণ গ্রাহকের পক্ষে ধরা কঠিন,” বলছেন মি. সরকার।

তিনি জানান, ইলিশের বড় একটি মোকাম চাঁদপুর, যেখানে বরিশাল, ভোলা, চট্টগ্রামসহ নানা জায়গার ইলিশ আসে। নদীর ভালো আর তাজা ইলিশগুলো এই ঘাট থেকেই রপ্তানির জন্য বেশি দামে বিক্রি হয়ে যায়। এমনকি এখান থেকে ইলিশ নিয়ে পদ্মার ইলিশ বলেও মাওয়ায় বিক্রি করা হয়।

এখানে সাগরের, মিয়ানমারের বা চট্টগ্রামের ইলিশের দাম কম থাকে। আবার নদীর মাছের দাম বেশি হয়।

”কিন্তু এখানে আপনি যদি একটা-দুইটা ইলিশ কিনতে যান, তাহলে আপনাকে ঢাকার চেয়েও বেশি দাম দিতে হবে।”

কারণ এখানে বড় একটি সিন্ডিকেট আছে, যারা জেলেদের কাছ থেকে কম দামে কিনে নিতে পারে। কিন্তু গ্রাহক পর্যায়ে কিনতে গেলে সেখানে দাম অনেক বেশি পড়বে।, বলেন তিনি।

এই পাইকারি মার্কেটের ফাঁক গলে সামান্য কিছু ইলিশ স্থানীয় বাজারে পৌছাতে পারে। ফলে সেখানে এর দাম হয় অনেক চড়া। তবে দাম বেশি হলেও এই মাছগুলো তরতাজা হয়ে থাকে।

ঢাকার অনেক পাইকারি বিক্রেতা বিভিন্ন ইলিশ এলাকার জেলে ও আড়তদারকে আগাম টাকা-পয়সা দিয়ে রাখেন। ফলে তারা যে ইলিশ পান, সেগুলো তারা এই পাইকারি ব্যবসায়ীদের পাঠিয়ে দেন। অনেক সময় এসবের দাম বাজার মূল্যের চেয়েও কম হয়ে থাকে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

মন্তব্য এর উত্তর দিন

মৎস্য

১৩৭ কেজি ওজনের ‘কৈভোল’ মাছ বিক্রি হলো লক্ষাধিক টাকায়

১৩৭ কেজি ওজনের ‘কৈভোল’ মাছ বিক্রি হলো লক্ষাধিক টাকায়
১৩৭ কেজি ওজনের ‘কৈভোল’ মাছ বিক্রি হলো লক্ষাধিক টাকায়

গভীর সমুদ্রে সাতক্ষীরার এক মৎস্যজীবীর জালে ধরা পড়ে বিশাল আকারের এক ‘কৈভোল’ মাছ। পরে মেপে দেখা যায়, মাছটির ওজন ১৩৭ কেজি। এটি পরে খুলনার বাজারে নিয়ে বিক্রি করা হয়েছে লক্ষাধিক টাকায়।

গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে খুলনার নগরীর রূপসা পাইকারি মাছ বাজারে নিয়ে আসা হয় বিশাল মাছটিকে। এরপর দরদাম শেষে তা ১ লাখ ৫ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয়।

সকালে এত বড় মাছ আসার কথা জানাজানি হলে মাছটিকে দেখতে বহু মানুষ ভিড় জমায়। মাছটিকে আনা হয় সোহান ফিস নামে একটি আড়তে।

মাছটির ক্রেতা মো. রমজান আলী হাওলাদার জানান, মাছটি তারা ৫০ জন মিলে কেনার পর বাজার থেকেই কেটে ভাগ করে নিয়েছেন।

বাজারে নেওয়ার পর প্রথমে মাছটির দাম উঠেছিল ৬০ হাজার টাকা। কিন্তু ক্রেতাদের আগ্রহের কারণে এর দাম বাড়তে শুরু করে। শেষ পর্যন্ত ১ লাখ ৫ হাজার টাকায় বিক্রি করা হয় মাছটি।

গভীর সমুদ্র থেকে বিশাল এই কৈভোল মাছটি ধরেছেন সাতক্ষীরার মৎস্যজীবী গোবিন্দ সরকার। তিনি এটি বেন্টি জাল দিয়ে ধরেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

মৎস্য

লালবাজারে এত মাছ!

সিলেট নগরের লালবাজারে চলছে নানা প্রজাতির মাছের প্রদর্শনী ও বিক্রি
সিলেট নগরের লালবাজারে চলছে নানা প্রজাতির মাছের প্রদর্শনী ও বিক্রি

রুই, কাতলা, চিতল, বোয়াল, শোল তো আছেই; সঙ্গে মিলেছে সেই দূর সমুদ্রের টুনা মাছ, কোরাল, সেইল ফিশ। মাছ কিনতে এবং দেখতে আসা মানুষে ঠাসা লালবাজার। সিলেট নগরের লালবাজার। মাছের জন্য খ্যাত বাজারটিতে বসেছে তিন দিনব্যাপী মাছ বিক্রি ও প্রদর্শনী। পৌষসংক্রান্তি উপলক্ষেই এ আয়োজন। পৌষ মাসের শেষ দিনে এ উৎসব উদ্‌যাপন করা হয়ে থাকে।

লালবাজার মৎস্য ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির আয়োজনে আজ সোমবার দুপুর ১২টার দিকে তিন দিনব্যাপী মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। মেলা উদ্বোধনের পর প্রথম দিন থেকেই দর্শনার্থী ও ক্রেতাদের ভিড়ে জমজমাট ছিল মাছের বাজার। বাজারে ৮০টি দোকানে বিক্রি ও প্রদর্শন করা হচ্ছে মাছগুলো।

আজ দুপুরে সরেজমিনে দেখা গেছে, মেলা উপলক্ষে লালবাজার সেজেছে আলোকসজ্জায়। মেলা প্রাঙ্গণে ঢোকার তিনটি দ্বার ঝলমল করছে আলোর ছটায়। হাওরের মাছ, চাষের মাছ এবং চট্টগ্রাম থেকে আনা হয়েছে সামুদ্রিক মাছ।

মেলায় বিক্রির জন্য উঠেছে রুই, কাতলা, চিতল, বোয়াল, শোল, বাগাড়, ইলিশ, ঘাসকার্প, সামুদ্রিক টুনা মাছ, কোরাল, সেইল ফিশ, ভোল মাছ, বাইন মাছ, শাপলাপাতা মাছসহ আরও নানা প্রজাতির মাছ। মেলায় দর্শনার্থী ও ক্রেতাদের নজর কাড়ে ৩১ কেজি ওজনের বোয়াল, বড় বড় চিতল ও সামুদ্রিক সেইল ফিশ। বোয়ালটির দাম চাওয়া হচ্ছে ৪৫ হাজার টাকা। প্রায় ১২ কেজি ওজনের চিতল মাছের দাম চাওয়া হচ্ছে ২০ হাজার টাকা। মেলায় আনা শাপলাপাতা মাছের কেজিপ্রতি দাম চাওয়া হচ্ছে ১ হাজার ২০০ টাকা, টুনা মাছের কেজি ৪০০ টাকা, ভইল মাছের কেজি ৪৫০ টাকা, সেইল ফিশের কেজি ১ হাজার ৫০০ টাকা, ইলিশ মাছের কেজি আকারভেদে ৭০০ থেকে ১০০০ টাকা হাঁকাচ্ছেন বিক্রেতারা। মেলায় আসা দর্শনার্থী ও ক্রেতারা মাছের দরদাম জেনে নিচ্ছেন। সে সঙ্গে সমানতালে চলেছে বিক্রিও। আগামী বুধবার এ মেলা শেষ হবে।

পৌষসংক্রান্তি উপলক্ষে আয়োজিত প্রদর্শনীতে এসেছে হরেক রকমের মাছ
পৌষসংক্রান্তি উপলক্ষে আয়োজিত প্রদর্শনীতে এসেছে হরেক রকমের মাছ

মেলায় মাছ কিনতে আসা দ্বীপরাজ চক্রবর্তী বলেন, পৌষসংক্রান্তি বাঙালিদের জন্য একটি উৎসব। বড় মাছ দিয়ে স্বজনদের সঙ্গে আনন্দ ভাগ করে নিতে মেলায় এসেছি।’ রাজ আরও বললেন, ‘মেলা থেকে ৮০০ টাকা কেজিতে চার কেজি ওজনের একটি চিতল মাছ কিনেছি।’

মেলায় আসা রাহুল নাথ বলেন, ‘মেলায় সামুদ্রিক দুটি মাছ দেখেছি, যা বাজারে আগে দেখিনি। একটি পঙ্খিরাজ এবং অন্যটি শাপলাপাতা মাছ। আজ দেখলাম, কাল মাছ কিনব।’

মাছ ব্যবসায়ী মো. শিপন বলেন, ‘মেলা উপলক্ষে চট্টগ্রামের এক ব্যবসায়ীর মাধ্যমে প্রায় ২৫ কেজি ওজনের পঙ্খিরাজ (সেইল ফিশ) এনেছি। এটির দাম ৩৫ হাজার টাকা চাইছি। আস্ত মাছ বিক্রি না হলে কেটে কেজিতে ১ হাজার ৫০০ টাকা করে বিক্রি করব।’

আরেক মাছ বিক্রেতা ইব্রাহিম মিয়া বলেন, ‘মেলায় অন্যান্য মাছের সঙ্গে শাপলাপাতা মাছ এনেছিলাম। এটি দেখতে দর্শনার্থীরা ভিড় জমাচ্ছেন।’ প্রায় সাত কেজি ওজনের মাছটির দাম ১০ হাজার টাকা বলে জানান তিনি।

মেলায় বোয়ালের কদর বেশ
মেলায় বোয়ালের কদর বেশ

লালবাজার মৎস্য ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলজার আহমদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘দেশীয় কিছু মাছ বিলুপ্তির পথে। সেসব মাছ আমরা সংগ্রহ করে মেলায় বিক্রি ও প্রদর্শনীর জন্য নিয়ে আসা হয়। ২০১৭ সাল থেকে প্রতিবছরই লালবাজারে পৌষসংক্রান্তি উপলক্ষে মাছের মেলার আয়োজন করা হচ্ছে। ভবিষ্যতেও এ মেলা অব্যাহত রাখা হবে বলে আমরা আশা করছি।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

মৎস্য

মাছের বাজারে ‘পঙ্খিরাজ’

সামুদ্রিক এই মাছটির পিঠে থাকা পাখনার কারণেই ব্যবসায়ীরা এর নাম দিয়েছে পঙ্খিরাজ
সামুদ্রিক এই মাছটির পিঠে থাকা পাখনার কারণেই ব্যবসায়ীরা এর নাম দিয়েছে পঙ্খিরাজ

সিলেট নগরের বন্দরবাজারের মাছের বাজার লালবাজারে বিক্রির জন্য আনা হয়েছে সামুদ্রিক ‘সেইল ফিশ’। তবে লালবাজারের ব্যবসায়ীরা মাছটির নাম দিয়েছেন ‘পঙ্খিরাজ’। মূলত মাছের পিঠে থাকা পাখনার কারণেই ব্যবসায়ীরা এ নাম দিয়েছেন। প্রায় ৩৫ কেজি ওজনের মাছটির দাম চাওয়া হচ্ছে ৩৫ হাজার টাকা।

আজ রোববার সকাল থেকে লালবাজারে বিক্রির জন্য মাছটি তোলা হয়।

বিকেলে বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, সামুদ্রিক মাছটি একনজর দেখতে অনেক ক্রেতা ও দর্শনার্থী ভিড় জমিয়েছেন। কেউ মাছের শরীরে হাত দিয়ে দেখছেন আবার কেউ মাছটির পাখনায় হাত বুলাচ্ছেন। মাছের লম্বা ঠোঁটও ও অনেকে ধরে দেখছেন।

মাছ দেখতে আসা ফাহিম আহমদ বলেন, ‘মাছের নাম “পঙ্খিরাজ” শুনে আগ্রহ নিয়ে দেখতে এসেছি। অনেক সুন্দর মাছ। তবে ইন্টারনেটে ঘেঁটে “পঙ্খিরাজ” নামের কোনো মাছ পাইনি।’

মাছ ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে জানা গেছে, কক্সবাজারে জেলেদের জালে ধরা পড়া মাছটি লালবাজারের ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রির জন্য পাঠানো হয়েছে। আজ এটি বাজারে তোলা হয়।

লালবাজার মৎস্য ব্যবসায়ী সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলজার আহমদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘মাছের বিশাল পাখনা থাকায় আমরা “পঙ্খিরাজ” নাম দিয়েছি। সামুদ্রিক এ মাছের অন্য নামও থাকতে পারে। চট্টগ্রামের মাছ ব্যবসায়ী খোরশেদ মিয়ার মাধ্যমে মাছটি আমাদের কাছে এসেছে। এর আগেও ২০১৭ সালে  ১৮ থেকে ২০ কেজি ওজনের এই মাছ বাজারে আনা হয়েছিল। সে সময় মাছটি ১৫ হাজার টাকায় বিক্রি হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘সকাল থেকে মাছটি দেখতে অনেকেই ভিড় করেছেন। আমরা মাছটির দাম চেয়েছি ৩৫ হাজার টাকা। তবে এক ক্রেতা ২৫ হাজার পর্যন্ত দাম হাঁকিয়েছেন। কাঙ্ক্ষিত দাম পাওয়া না গেলে কেটে কেজি হিসাবে বিক্রি করা হবে।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

মৎস্য

কৃত্রিম প্রজননে কোরালের পোনা

কোরালের পোনা
কোরালের পোনা

সুস্বাদু কোরাল কিংবা ভেটকি মাছের কদর দেশব্যাপী। বঙ্গোপসাগরের গভীর জলের মাছ কোরাল সব সময় হাটবাজারে পাওয়া যায় না। চিংড়ির মতো চাষের মাধ্যমে কোরাল মাছ উৎপাদনের তেমন সুযোগও নেই। কিন্তু এখন যে কেউ চাইলে কোরাল মাছের চাষে হাত বাড়াতে পারেন। কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে কক্সবাজারে উৎপাদিত হচ্ছে কোরাল মাছের পোনা।

বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে কোরাল মাছের পোনা উৎপাদনে সফল হয়েছেন দেশের মৎস্য বিজ্ঞানীরা। সেই সঙ্গে তাঁরা বঙ্গোপসাগরের ‘কক্সবাজার-সোনাদিয়া’ উপকূলের ২৩ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে কোরাল মাছের প্রজননক্ষেত্র চিহ্নিত করেছেন। গত এক বছর বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীদের চালানো এক গবেষণায় এ সাফল্য এসেছে।

তবে এটি প্রাথমিক সাফল্য মনে করেন বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ও দেশের বিশিষ্ট মৎস্য বিজ্ঞানী ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ।

তিনি বলেন, ২০১৮ সালের এপ্রিল মাস থেকে শুরু হওয়া এক গবেষণায় প্রথমবারের মতো হ্যাচারিতে কৃত্রিম উপায়ে কোরাল মাছের পোনা উৎপাদনে সাফল্য এসেছে। তবে এ জন্য আরও গবেষণা দরকার। কোরালের বাণিজ্যিক চাষ শুরু হলে দেশের অর্থনীতি তথা সামুদ্রিক মৎস্য ক্ষেত্রে এক বিপ্লবের সূচনা হবে।

মৎস্য বিজ্ঞানীরা বলেন, এর আগে গবেষণার মাধ্যমেই কক্সবাজারে প্রথমবারের মতো কাঁকড়া পোনা উৎপাদনে সাফল্য পান মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা। এখন আর দেশে কাঁকড়া পোনার সংকট নেই। এখন কোরালের পাশাপাশি অন্যান্য মূল্যবান ও অর্থকরী মাছেরও কৃত্রিম পোনা উৎপাদনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

 মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের সূত্রমতে, ‘সামুদ্রিক মৎস্য গবেষণা জোরদারকরণ ও অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থায়নে ‘ভেটকির মা মাছ তৈরি ও কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে পোনা উৎপাদন গবেষণা’ শীর্ষক একটি প্রকল্প পরিচালিত হচ্ছে। বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের কক্সবাজারের সামুদ্রিক মৎস্য ও প্রযুক্তি কেন্দ্রের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল হকের নেতৃত্বে এ গবেষণা কাজ পরিচালিত হচ্ছে। এক বছরের বেশি সময় ধরে গবেষণা চালানোর পর গত মে মাসে সর্বপ্রথম ভেটকি মাছের কৃত্রিম প্রজননে সাফল্য পাওয়া যায়। আর গবেষণা চালাতে গিয়ে বিজ্ঞানীরা প্রথমবারের মতো বঙ্গোপসাগরে চিহ্নিত করতে সক্ষম হন কক্সবাজারের কলাতলী থেকে সোনাদিয়া পর্যন্ত ২৩ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে কোরাল মাছের প্রজনন ক্ষেত্র।

মৎস্য কর্মকর্তা বলছেন, উপকূলীয় এলাকার অতিপরিচিত সুস্বাদু মাছ কোরাল। এ মাছ কম কাটাযুক্ত, দ্রুত বর্ধনশীল ও খেতে সুস্বাদু বলে এর বাজারমূল্য বেশি। আন্তর্জাতিক পর্যায়েও এ মাছের ব্যাপক চাহিদা ও অর্থনৈতিক গুরুত্ব রয়েছে। থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়াসহ প্রতিবেশী দেশগুলো আগেই হ্যাচারিতে কৃত্রিম উপায়ে কোরাল পোনা উৎপাদনে সক্ষম হলেও বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা এত দিন ছিলেন পিছিয়ে।

তবে দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাটসহ দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে ঘেরের মধ্যে চিংড়ির সঙ্গে কোরাল মাছেরও কিছুটা চাষ হচ্ছে। কোরাল মাছ লবণাক্ত, আধা-লবণাক্ত, এমনকি স্বাদু পানিতেও চাষ করা যায়। এ মাছের রোগবালাই কম বলে সাম্প্রতিককালে অনেকেই চিংড়ি চাষ বাদ দিয়ে কোরাল চাষে নেমেছেন। তবে পোনার সংকটের কারণে অনেকে লাভজনক কোরাল চাষে নামতে পারছেন না। প্রজননের মাধ্যমে কোরাল মাছের পোনা বাজারে সরবরাহ হলে এই মাছ চাষে বিপ্লব শুরু হবে।

কক্সবাজারের সামুদ্রিক মৎস্য ও প্রযুক্তি কেন্দ্রের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল হক বলেন, একটি পরিপক্ব স্ত্রী কোরাল মাছ ৬০ লাখ থেকে ২ কোটি পর্যন্ত ডিম দিতে সক্ষম। ফলে হ্যাচারিতে পোনা উৎপাদনের জন্য স্বল্পসংখ্যক মা কোরালই যথেষ্ট। তবে চ্যালেঞ্জ হচ্ছে মা কোরাল তৈরি হওয়ার জন্য যে ৪-৫ বছর সময়টুকু দরকার, তা রক্ষা করতে হবে।

মোহাম্মদ আশরাফুল হক বলেন, কোরাল মাছ প্রথমে পুরুষ হয়ে জন্মায় এবং ৪-৫ বছর পর কিছু স্ত্রীতে রূপান্তরিত হয়। রূপান্তরিত হওয়ার পরই প্রজননের জন্য উপকূলের নদী মোহনার কাছে চলে আসে। কোরাল মাছের প্রজননকাল এপ্রিল থেকে শুরু হলেও সবচেয়ে বেশি ডিম দেয় মে মাসে। গত ২৩ মে সোনাদিয়া উপকূলে গবেষণা চালানোর সময় বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল হক কোরাল মাছের ডিম পাড়ার দৃশ্য স্বচক্ষে দেখেন এবং ওখান থেকে সংগৃহীত মা মাছটি হ্যাচারিতে এনে কৃত্রিম উপায়ে তিনি পোনা উৎপাদনে সক্ষম হয়েছেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

মৎস্য

রপ্তানি হচ্ছে শিং কই বোয়াল

বোয়াল, কই,শিং মাছ রপ্তানি হচ্ছে
বোয়াল, কই,শিং মাছ রপ্তানি হচ্ছে

বিশ্বের ৫০টির বেশি দেশে মৎস্য ও মৎস্যজাত পণ্য রপ্তানি করছে বাংলাদেশ। সবচেয়ে বেশি রপ্তানি হচ্ছে চিংড়ি। তবে শিং, কই, বোয়াল, মলা, কাচকি, বাতাসি, রুপচাঁদা, ভেটকি, আইড়, পাবদা, টাকি ইত্যাদি মাছও রপ্তানি হচ্ছে। 

 তবে পাঁচ বছর আগের তুলনায় এ খাত থেকে রপ্তানি আয় কমছে। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্য অনুযায়ী, সদ্যবিদায়ী ২০১৮-১৯ অর্থবছরে মৎস্য ও মৎস্যজাত পণ্য রপ্তানি করে বাংলাদেশ ৪ হাজার ২৫৩ কোটি টাকা ৩১ লাখ টাকা (৫০ কোটি ৩ লাখ ৯০ হাজার ডলার) আয় করেছে। আগের অর্থবছরে আয় ছিল ৪ হাজার ৩০৯ কোটি টাকা। সে হিসাবে এক বছরে আয় কমেছে ৫৬ কোটি টাকা। 

জাতীয় সংসদে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট পাসের দিন গত ৩০ জুন সরকারি দলের কিশোরগঞ্জের সাংসদ মো. আফজাল হোসেনের লিখিত প্রশ্নের জবাবে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মো. আশরাফ আলী খান মৎস্য খাতের রপ্তানি আয়ের পাঁচ বছরের তথ্য দেন। 

মন্ত্রীর দেওয়া তথ্যে দেখা যায়, পাঁচ বছর আগে অর্থাৎ ২০১৪-১৫ অর্থবছরে রপ্তানি আয় ছিল ৪ হাজার ৬৬০ কোটি টাকা। এরপর ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৪ হাজার ২৮২ কোটি টাকা এবং ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৪ হাজার ২৮৭ কোটি টাকা রপ্তানি আয় হয়।  প্রাকৃতিক উৎসের মৎস্য উৎপাদনে বাংলাদেশের অবস্থান এখন বিশ্বে তৃতীয়
উৎপাদন বাড়লেও কমছে রপ্তানির পরিমাণ ও আয়

রপ্তানি কমার কারণ জানতে চাইলে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী আশরাফ আলী খান সরাসরি কোনো জবাব দেননি। প্রতিমন্ত্রী ৪ জুলাই তাঁর কার্যালয়ে প্রথম আলোকে বলেন, রপ্তানি বৃদ্ধির জন্য নতুন নতুন বাজার খোঁজা হচ্ছে। এর অংশ হিসেবেই একটি দল যাবে রাশিয়া, যার নেতৃত্বে আছেন তিনি। 

সংসদকে মন্ত্রী জানান, ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত (ইইউ) দেশগুলোর পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র, চীন, জাপান, রাশিয়া ইত্যাদি দেশ বাংলাদেশের মৎস্য ও মৎস্যপণ্যের প্রধান আমদানিকারক দেশ। এ ছাড়া কানাডা, মেক্সিকো, অস্ট্রেলিয়া, সিঙ্গাপুর, মরিশাস, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, হংকং, দক্ষিণ কোরিয়া, ইউক্রেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কুয়েত, কাতার, মরক্কো, লেবানন, জর্ডান, ভিয়েতনাম ইত্যাদি দেশেও রপ্তানি করা হয়। আর প্রতিবেশী দেশগুলোর মধ্যে মৎস্য ও মৎস্যপণ্য রপ্তানি করা হয় ভারত, নেপাল, মালদ্বীপ ও মিয়ানমারে। 

আয় কমছে মানে বছর বছর রপ্তানির পরিমাণও কমছে। সংসদে উপস্থাপিত প্রতিমন্ত্রীর তথ্যেই উঠে আসে, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাংলাদেশ ৮৩ হাজার ৫২৪ টন মৎস্য ও মৎস্যজাত পণ্য রপ্তানি করেছিল। এরপর ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৭৫ হাজার ৩৩৭ টন, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৬৮ হাজার ৩০৫ টন, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৬৮ হাজার ৯৩৫ টন এবং সদ্যবিদায়ী ২০১৮–১৯ অর্থবছরের ১১ মাসে ৬৮ হাজার ৬৫৫ টন মৎস্য ও মৎস্যজাত পণ্য রপ্তানি হয়েছে। 

মৎস্য খাতের মোট রপ্তানির মধ্যে চিংড়ির পরিমাণই বেশি। সংসদে প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খানের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, সদ্যবিদায়ী অর্থবছরের ১১ মাসে যে ৬৮ হাজার ৬৫৫ টন মৎস্য ও মৎস্যপণ্য রপ্তানি হয়েছে, তার মধ্যে ৩১ হাজার ১৫৮ টনই চিংড়ি। ১১ মাসের মোট রপ্তানি আয় ৩ হাজার ৮৪৫ কোটি টাকার মধ্যে চিংড়ির মাধ্যমে আয় হয়েছে ২ হাজার ৯১৬ কোটি টাকা। বাকি ৩৫ হাজার ১৪৮ টন রপ্তানির মাধ্যমে আয় হয়েছে ৮৯৯ কোটি ৩০ লাখ টাকা। 

রপ্তানির মাধ্যমে আয়
রপ্তানির মাধ্যমে আয়

মৎস্য প্রতিমন্ত্রী জানান, ২০১৭–১৮ অর্থবছরে দেশে ৪২ লাখ ২০ টন লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ৪২ লাখ ৭৭ হাজার টন মাছ উৎপাদন হয়েছে। আর বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) মতে, মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) মৎস্য খাতের অবদান এখন ৩ দশমিক ৫৭ শতাংশ। আগেরবার ছিল ৩ দশমিক ৬১ শতাংশ। জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) গত বছরের জুলাইয়ের তথ্য বলছে, প্রাকৃতিক উৎসের মাছে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান এখন তৃতীয়। প্রথম চীন ও দ্বিতীয় ভারত। 

মৎস্য উৎপাদক ও রপ্তানিকারকদের সঙ্গে কথা জানা গেছে, এ খাতে কোনো বিদেশি বিনিয়োগ নেই, অথচ বিদেশি বিনিয়োগ আসার সুযোগ রয়েছে। বিনিয়োগ আকর্ষণে সরকার বা বেসরকারি খাতের কারও চেষ্টা নেই। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মচারীরাও তা স্বীকার করেন। 

জানতে চাইলে বাংলাদেশ হিমায়িত খাদ্য রপ্তানিকারক সমিতির (বিএফএফইএ) জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি আশরাফ হোসেন বলেন, রপ্তানি কমার অন্যতম কারণ হচ্ছে মৎস্য খাত নিয়ে সরকারের সুষ্ঠু পরিকল্পনার অভাব। 

উদাহরণ দিতে অনুরোধ জানালে আশরাফ হোসেন পাল্টা প্রশ্নে বলেন, ‘পোনাকে মাছ হতে না দিলে উৎপাদন বাড়বে কীভাবে? আর উৎপাদন না বাড়লে রপ্তানি হবে কীভাবে? অন্যদিকে মাছ ধরার ট্রলার (একধরনের নৌকা) ব্যবস্থাপনাও ঠিক নেই। যেমন গভীর সমুদ্র থেকে মাছ ধরার লাইসেন্স দেওয়া হয়েছে অনেক, কিন্তু লাইসেন্সধারীদের মাছ ধরতে দেওয়া হচ্ছে না।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০১৯
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com