আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

মৎস্য

জাটকা না ধরা পৌনে ৩ লাখ জেলেকে ৪০ কেজি করে চাল

জাটকা না ধরা পৌনে ৩ লাখ জেলেকে ৪০ কেজি করে চাল
জাটকা না ধরা পৌনে ৩ লাখ জেলেকে ৪০ কেজি করে চাল

ইলিশ শিকারে নিষেধাজ্ঞা চলাকালে ২০ জেলার দুই লাখ ৮০ হাজার ৯৬৩টি জেলে পরিবারকে মানবিক সহায়তা কর্মসূচির আওতায় ৪০ কেজি করে ভিজিএফ চাল দেবে সরকার। চলতি ফেব্রুয়ারি থেকে মার্চ মাসে এই চাল সহায়তা পাবেন জেলেরা।

গত রোববার (১৬ ফেব্রুয়ারি) এই বরাদ্দ অনুমোদন দিয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে অফিস আদেশ জারি করা হয়েছে।

প্রতিবছর ১ নভেম্বর থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত ৮ মাস জাটকা (১০ ইঞ্চির চেয়ে ছোট ইলিশ) ধরা, পরিবহন এবং বিক্রি নিষিদ্ধ থাকে। এ মৌসুমেও একইভাবে গত নভেম্বর থেকে চলছে নিষেধাজ্ঞা, তা থাকবে ৩০ জুন পর্যন্ত।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, নিষেধাজ্ঞা চলাকালে ২০টি জেলার ৯৬টি উপজেলায় জেলেদের এ সহায়তার জন্য ২২ হাজার ৪৭৭ টন চাল প্রয়োজন হবে।

অফিস আদেশে বলা হয়েছে, মানবিক সহায়তা কর্মসূচির আওতায় চলতি ২০১৯-২০ অর্থবছরে জাটকা আহরণে নিষেধাজ্ঞা চলাকালে ভিজিএফের এই চাল বিতরণ করা হবে।

জাটকা আহরণে বিরত থাকার সময় ঢাকায় ৮৫০, মানিকগঞ্জে ২ হাজার ৩৩৬, রাজবাড়ীতে ১ হাজার ৬৭০, শরীয়তপুরে ১২ হাজার ৯, মাদারীপুরে ২ হাজার ২৫০, ফরিদপুরে ৭০০, মুন্সিগঞ্জে ২ হাজার ৩৩৫, ভোলায় ৭০ হাজার ৯৪৩, পটুয়াখালীতে ৩৮ হাজার ৪৮৬, বরিশালে ৩১ হাজার ৭১৫ জন জেলেকে চাল দেয়া হচ্ছে।

পিরোজপুরে ৯ হাজার ৭৫০, বরগুনায় ১৯ হাজার ৯০০, ঝালকাঠিতে এক হাজার ৫৫০, চাঁদপুরে ৩৮ হাজার ৫, লক্ষ্মীপুরে ২৪ হাজার ৩৪৪, ফেনীতে ১২০, নোয়াখালীতে ৫ হাজার ৫০০, চট্টগ্রামে ৮ হাজার ৫০০, বাগেরহাটে ৭ হাজার ৫০০ ও সিরাগঞ্জের ২ হাজার ৫০০ জন জেলেও পাবেন ৪০ কেজি করে চাল।

অফিস আদেশে আরও বলা হয়, জেলা প্রশাসক ভিজিএফ চাল জাটকা আহরণে বিরত থাকা নিবন্ধনকৃত মৎসজীবীদের মধ্যে মানবিক সহায়তা কর্মসূচি বাস্তবায়ন নির্দেশিকা অনুসরণ করে যথানিয়মে বিতরণ করবেন এবং নিরীক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় হিসাব সংরক্ষণ করবেন। চাল আগামী ৩১ মার্চের মধ্যে বণ্টন সম্পন্ন হবে।

জেলা প্রশাসক ভিজিএফ চাল বরাদ্দের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট এলাকার সংসদ সদস্যকে অবহিত করবেন বলে আদেশে উল্লেখ করা হয়েছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

মন্তব্য এর উত্তর দিন

এগ্রোবিজ

দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল

 দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল
দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল

দেশীয় মাছের ডিম থেকে রেণু উৎপাদন করে ভাগ্য বদলেছে চঞ্চল হোসেন নামে এক যুবকের। এখন তিনি নওগাঁর বদলগাছী উপজেলায় যুবকদের রোল মডেল। মাছের রেনু উৎপাদনে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে দুইবার পুরস্কার পেয়েছেন। খামারের প্রচার ও প্রসারের জন্য সরকারি সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।

সংসারে অভাবের তাড়নায় এক সময় মাছের আড়তে কাজ করতেন বদলগাছী উপজেলার কাশিমালা গ্রামের চঞ্চল হোসেন। অভাবের কারণে পড়াশুনা বেশি দূর এগোয়নি। ২০০৪ সালে ৮ম শ্রেণিতে পড়াশোনার সমাপ্তি ঘটে। মাছের আড়তে কাজ করার সময় চঞ্চল দেখতেন দেশীয় মাছের দাম অন্যান্য মাছের তুলনায় তুলনামূলক বেশি। এরপর বিলুপ্ত প্রজাতির দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদনের চিন্তা আসে তার মাথায়। মাছের আড়তের কাজ ছেড়ে নিজেই কিছু করার পরিকল্পনা করেন।

 দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল
দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল

এরপর ২০০৪ সালে ৯ হাজার টাকা দিয়ে একটি পুকুরে দেশীয় মাগুর মাছ চাষ শুরু করেন। সফলতা পাওয়ায় পরের বছরে আরও একটি পুকুর লিজ নিয়ে মাছ চাষ করেন। পর্যায়ক্রমে ১৬টি পুকুরে দেশীয় প্রজাতির বিভিন্ন মাছ চাষ করেন। মাছ চাষ করতে গিয়ে তিনি উপলদ্ধি করেন দেশীয় মাছের রেণু সংগ্রহ করা কষ্টকর। এক সময় ডিম ও রেণুর চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় নিজেই বাড়িতে শুরু করেন দেশীয় মাছের রেণুর হ্যাচারি। বড় মেয়ে সুবর্ণার নামে খামারের নাম দেন ‘সুবর্ণা মৎস্য হ্যাচারি’। এরপর আর তাকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। বছর বছর বাড়তে থাকে রেণুর চাহিদা। চঞ্চল তিন সন্তানের জনক। বড় মেয়ে সুবর্ণা স্থানীয় একটি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণিতে ও দ্বিতীয় মেয়ে সখি প্রথম শ্রেণিতে পড়ে। সবার ছোট ছেলে সৌরভ।

চঞ্চলের হ্যাচারিতে দেশীয় শিং, মাগুর, টেংরা, গুলসা টেংরা, পাবদা, কৈ, চিতল, গুচি, পুঁটি, তেলাপিয়া, পাঙ্গাস ও বাইমসহ কয়েক প্রজাতির মাছের রেণু উৎপাদন করা হয়। হ্যাচারি থেকে প্রতিমাসে প্রায় ৩০০ কেজি রেণু উৎপাদন করা সম্ভব। তবে প্রচারের অভাবে তেমন সাড়া মিলছে না। খামারে পড়াশোনার পাশাপাশি কাজ করছে ১৫ জন শিক্ষার্থী। অন্যান্য মাছের তুলনায় দেশীয় মাছের চাহিদা এবং দাম ভালো পাওয়া মাছ চাষিদের কাছে বাড়ছে দেশীয় মাছের রেণুর চাহিদা। তার খামার থেকে বগুড়া, জয়পুরহাট, দিনাজপুর, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ কয়েকটি জেলায় রেণু সরবরাহ করা হয়ে থাকে। সরকারের সঠিক পৃষ্ঠপোষকতা ও সহযোগিতা পেলে চঞ্চল হোসেনের খামারের পরিধি আরও বৃদ্ধি পাবে বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী।

 দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল
দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল

সফল খামারি চঞ্চল হোসেন বলেন, এক সময় ডোবাতে দেশীয় মাছ পাওয়া যেত। কিন্তু ফসলে কীটনাশক ব্যবহারের ফলে সেসব মাছ মারা যাচ্ছে। এতে করে দেশীয় মাছ এখন বিলুপ্ত প্রায়। এছাড়াও পুকুরে কীটনাশক ব্যবহার করা হচ্ছে। সেই চিন্তাধারা থেকে দেশীয় মাছকে বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা করতে দেশীয় মাছের রেণুর হ্যাচারি করেছি। এতে করে বাহির থেকে রেণু কিনতে হচ্ছে না। এখন নিজের হ্যাচারি থেকে বিভিন্ন জেলায় রেণু সরবরাহ করছি। বর্তমানে এখন আমার প্রজেষ্ট প্রায় দুই কোটি টাকার। হ্যাচারি থেকে প্রতিমাসে প্রায় ৩০০ কেজি রেণু উৎপাদন করা সম্ভব। তবে প্রচারের অভাবে তেমন সাড়া মিলছে না।

ভবিষ্যত পরিকল্পনার বিষয়ে তিনি বলেন, কয়েকটি জেলায় দেশীয় মাছের হ্যাচারি করার ইচ্ছা আছে। কারণ অনেক দূর-দূরান্ত থেকে মাছ চাষিরা রেণু নিতে আসেন। তারা বাড়ি ফেরার পথে অক্সিজেনের ঘাটতি দেখা দেয়ায় সেই রেণুর অনেক সময় সমস্যা হয়। বাহিরের জেলাগুলোতে হ্যাচারি করা হলে কষ্ট করে আর এখানে আসতে হবে না। এজন্য প্রয়োজন সরকারের আর্থিক সহযোগিতা।

 দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল
দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল

জয়পুরহাটের মৎস্যচাষি আলমগীর কবীর জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে মাছ চাষ করছেন। লোকমুখে শুনেছেন ‘সুবর্ণা মৎস্য হ্যাচারি’ থেকে দেশীয় মাছের রেণু সরবরাহ করা হয়ে থাকে। অন্যান্য মাছের খরচ বেশি এবং দামও তুলনামূলক কম। তাই দেশীয় মাছ চাষের প্রতি তিনি আগ্রহ বাড়াতে চান। দেশীয় মাছে খাবারসহ অন্যান্য খরচ কম লাগে। এছাড়া দামও বেশি পাওয়া যায়।

আরাফাত হোসেন রাসেল, আসলাম হোসেন, শাকিল হোসেনসহ কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, মৎস্য হ্যাচারিতে তাদের মতো ১৫ জন শিক্ষার্থী পড়াশোনার পাশাপাশি কাজ করেন। রেণুর নিয়মিত পরিচর্যা, খাবার দেয়া, পানি পরিবর্তনসহ আনুষাঙ্গিক কাজ করতে হয় তাদের। এতে করে মাসে তারা ৬-৯ হাজার টাকা করে পারিশ্রমিক পান।

 দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল
দেশীয় মাছের রেণু উৎপাদন করে কোটিপতি চঞ্চল

নওগাঁ জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফিরোজ আহমেদ বলেন, চঞ্চল হোসেন স্বল্প সময়ে হ্যাচারিতে সফল হয়েছেন। তার কাছ থেকে মৎস্যচাষিরা দেশীয় মাছের রেণু সংগ্রহ করে থাকেন। মাছ চাষ করায় একদিকে যেমন আমিষের চাহিদা পূরণ হচ্ছে, অপরদিকে আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছেন চাষিরা। তার হ্যাচারির কলেবর বৃদ্ধির জন্য যে কোনো ধরনের সহযোগিতা দেয়া হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

মৎস্য

চিংড়ির সাথে চাষ করা যাবে আমেরিকান রূপচাঁদা

চিংড়ির সাথে চাষ করা যাবে আমেরিকান রূপচাঁদা
চিংড়ির সাথে চাষ করা যাবে আমেরিকান রূপচাঁদা

সামুদ্রিক আমেরিকান রূপচাঁদার চাষ শুরু করেছে ভারতের হলদিয়ার দুই ভেনামি চিংড়ি চাষি। রাজ্যের ব্লক মৎস্য দফতরের সহযোগিতায় এ রূপচাঁদার পোনা এসেছে তামিলনাড়ুর মান্ডপাম সামুদ্রিক মৎস্য গবেষণা কেন্দ্র থেকে। হলদিয়ার দুই মাছ চাষি তুষার জানা ও মদন জানা এ সুস্বাদু রূপচাঁদা চাষ করবেন।

জানা যায়, মান্ডপাম থেকে মাদুরাই, সেখান থেকে চেন্নাই হয়ে দমদম বিমানবন্দরে নিয়ে আসা হয় রূপচাঁদার পোনাগুলো। এরপর দমদম থেকে হলদিয়া ব্লক মৎস্য কর্মকর্তার তত্ত্বাবধানে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়িতে মাছের পোনা নিয়ে আসা হয় হলদিয়ায়।

হলদিয়ার মৎস্য অফিসের কর্মকর্তা সুমন কুমার সাহু জানান, বিশ্বে সামুদ্রিক চাষযোগ্য মাছের মধ্যে এখন সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় আমেরিকান রূপচাঁদা। মাছগুলো খুব উচ্চ পুষ্টিগুণসম্পন্ন ও সুস্বাদু। আমেরিকা, চীন, তাইওয়ান, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপিন্স ও ভিয়েতনামে এ মাছের চাষ বহুল প্রচলিত।

চিংড়ির সাথে চাষ করা যাবে আমেরিকান রূপচাঁদা
চিংড়ির সাথে চাষ করা যাবে আমেরিকান রূপচাঁদা

সুমন কুমার আরও জানান, এখানে নোনাজলে ভেনামি চিংড়ি চাষের মধ্যবর্তী সময়ে চাষের জন্য খুবই উপযোগী এ মাছ। একদিকে যেমন ভেনামি চিংড়ি চাষে রোগের সম্ভাবনা অনেকটাই কমবে। তেমনি এ মাছ চাষ করে লাভবান হবেন চাষিরা।

তাছাড়া এ মাছের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি। চার মাসে ১০০ গ্রাম ও ছয় মাসে ২৫০ গ্রাম ও আট মাসে ৫০০ গ্রাম ওজন হয়ে থাকে। এমনকি বিদেশে রফতানিযোগ্য মাছ হিসেবে আমেরিকান রূপচাঁদার বিশেষ কদর আছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

মৎস্য

পুকুরে মাছ চাষের উপযুক্ত সময় এখনই

পুকুরে মাছ চাষের উপযুক্ত সময় এখনই
পুকুরে মাছ চাষের উপযুক্ত সময় এখনই

চৈত্র বাংলা বছরের শেষ মাস। কৃষির কাজের উপযুক্ত সময়। কিন্তু চারদিকে করোনাভাইরাসের ভয়। ঘর থেকে বের হওয়াও ঝুঁকিপূর্ণ। এমন অবস্থায় ঘরের সঙ্গে থাকা পুকুরে করতে পারেন মাছ চাষ। এ সময় রুই জাতীয় মাছের পোনা আঁতুড় পুকুরে ছাড়ার উপযুক্ত সময়।

তাই এখনো আঁতুড় পুকুর তৈরি না হয়ে থাকলে, তা করার ব্যবস্থা করতে হবে। এ জন্য পুকুরের পানি শুকিয়ে গেলে নিচ থেকে পচা কাদা তুলে ফেলতে হবে। কাদা তোলা হলে শতাংশপ্রতি ১ কেজি চুন প্রয়োগ করতে হবে।

পুকুরে মাছ চাষের উপযুক্ত সময় এখনই
পুকুরে মাছ চাষের উপযুক্ত সময় এখনই

চুন দেওয়ার ১০-১৫ দিন পর পুকুরে শতাংশপ্রতি ১০ কেজি গোবর বা কম্পোস্ট সার দিতে হবে। রেণু পোনা ছাড়ার অন্তত ১৫ দিন আগে আঁতুড় পুকুরে ১-দেড় মিটার পানি জমিয়ে রাখতে হবে। আঁতুড় পুকুর তৈরি হলে মৎস্য কর্মকর্তার সঙ্গে পরামর্শ করতে হবে।

পরামর্শ অনুযায়ী, আঁতুড় পুকুরে ঘন মশারির জাল টেনে কেরোসিন ও ডিজেল পরিমাণমতো ব্যবহার করতে হবে। এতে ব্যাঙাচি ও অন্যান্য জলজ পোকা মরে যাবে। পোকাগুলো মরে গেলে পানিভর্তি পুকুরে প্রতি শতাংশে ৬ ফুট পানির জন্য ১ কেজি চুন গুলে ঠান্ডা করে দিতে হবে।

পুকুরে মাছ চাষের উপযুক্ত সময় এখনই
পুকুরে মাছ চাষের উপযুক্ত সময় এখনই

রেণু পোনা মাটির পাত্রে বহন না করে পলিথিন ব্যাগে অক্সিজেন গ্যাস দিয়ে বহন করতে হবে। রেণু পোনা আঁতুড় পুকুরে সরাসরি না ছেড়ে সংগৃহীত রেণু পোনাগুলোকে পুকুরের পানির নতুন পরিবেশের সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর ব্যবস্থা করা দরকার।

খাপ খাওয়ানোর পর রেণু ছাড়ার তৃতীয় দিন থেকে আঁতুড় পুকুরে পরিপূরক খাবার সরবরাহ করা দরকার। পাশাপাশি পুকুরের যত্ন নিতে হবে। মাছের খোঁজ-খবর রাখতে হবে। প্রয়োজনে স্থানীয় মৎস্য কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

জ্যৈষ্ঠ মাসে মাছচাষিরা যা করবেন

 জ্যৈষ্ঠ মাসে মাছচাষিরা যা করবেন
জ্যৈষ্ঠ মাসে মাছচাষিরা যা করবেন

বাংলাদেশ নদীমাতৃক দেশ। তাই এ দেশে মাছচাষির সংখ্যা কম নয়। দেশের অর্থনীতির বড় একটি অংশ আসে মাছ চাষ থেকে। এ জন্য মাছচাষিদের অনেক কিছুই জানতে হয়। আসুন জেনে নেই জ্যৈষ্ঠ মাসে মাছচাষিদের করণীয় কী-

১. মাছ প্রজননে আগ্রহী চাষিদের স্ত্রী-পুরুষ মাছ (ব্রুড ফিশ) সংগ্রহে রাখতে হবে।
২. পিটুইটারি গ্রন্থি, হাপা এবং ইনজেকশনের সরঞ্জামাদি প্রস্তুত রাখতে হবে।
৩. আঁতুড় পুকুর বন্যায় ডুবে যাবার আশঙ্কা থাকলে পাড় উঁচু করে বেঁধে দিতে হবে।

৫. আঁতুড় পুকুরে পোনার আকার ১ ইঞ্চি হলে সাবধানে ধরে চারা পুকুরে ছাড়ার ব্যবস্থা করতে হবে।
৬. নিয়মিত তদারকি, রাক্ষুসে মাছ তোলা, আগাছা বা জংলা পরিষ্কার করতে হবে।
৭. পুকুরে খাবার দেওয়া, সার দেওয়া, সম্পূরক খাবার দেওয়া অব্যাহত রাখতে হবে।
৮. জাল টেনে মাছের স্বাস্থ্য পরীক্ষাসহ প্রাসঙ্গিক কাজগুলো নিয়মিত করতে হবে।
৯. যে কোনো সমস্যায় উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করবেন যেভাবে

বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করবেন যেভাবে
বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করবেন যেভাবে

বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করে আপনিও হতে পারেন স্বাবলম্বী। তবে বায়োফ্লকে মাছ চাষের জন্য পানি ব্যবস্থাপনা ও ফ্লক একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। যেকোনো মাছ বা চিংড়ি চাষ বা বায়োফ্লক প্রজেক্ট করার আগে পানির উৎস কী হবে এবং তার গুণাগুণ বা ব্যবহারের উপযোগিতা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে হবে।

পানির উৎস: গভীর নলকূপ, সমুদ্র, নদী, বড় জলাশয়, লেক, বৃষ্টি ইত্যাদির পানির গুণ ও মান ভালো থাকলে ব্যবহার করা যায়।

পানি তৈরি: প্রথমে ট্যাংক ব্লিচিং পাউডার দিয়ে জীবাণুমুক্ত করে নিতে হবে। এরপর নির্বাচিত পানির গুণাগুণ পরীক্ষা করে পানি দিতে হবে।

বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করবেন যেভাবে
বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করবেন যেভাবে

মাছ চাষে পানির গুণাবলি: বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষের জন্য পানির কিছু গুণাবলি দরকার-
১. তাপমাত্রা ২৫ থেকে ৩০ ডিগ্রি সেলসিয়াস
২. পানির রং হবে সবুজ, হালকা সবুজ, বাদামি
৩. দ্রবীভূত অক্সিজেন ৭-৮ মিলিগ্রাম বা লিটার
৪. পিএইচ ৭.৫-৮.৫
৫. ক্ষারত্ব ৫০-১২০ মিলিগ্রাম বা লিটার
৬. খরতা ৬০-১৫০ মিলিগ্রাম বা লিটার
৭. ক্যালসিয়াম ৪-১৬০ মিলিগ্রাম বা লিটার
৮. অ্যামোনিয়া ০.০১ মিলিগ্রাম বা লিটার
৯. নাইট্রাইট ০.১-০.২ মিলিগ্রাম বা লিটার
১০. নাইট্রেট ০-৩ মিলিগ্রাম বা লিটার
১১. ফসফরাস ০.১-৩ মিলিগ্রাম বা লিটার
১২. এইচটুএস ০.০১ মিলিগ্রাম বা লিটার
১৩. আয়রন ০.১-০.২ মিলিগ্রাম বা লিটার
১৪. পানির স্বচ্ছতা ২৫-৩৫ সেন্টিমিটার
১৫. পানির গভীরতা ৩-৪ ফুট
১৬. ফলকের ঘনত্ব ৩০০ গ্রাম বা টন
১৭. টিডিএস ১৪,০০০-১৮,০০০ মিলিগ্রাম বা লিটার
১৮. লবণাক্ততা ৩-৫ পিপিটি।

পানিতে ফ্লক তৈরি: প্রথম ডোজে ৫ পিপিএম প্রোবায়োটিক, ৫০ পিপিএম চিটাগুড়, ৫ পিপিএম ইস্ট, পানি প্রতি টনের জন্য ১ লিটার, একটি প্লাস্টিকের বালতিতে অক্সিজেন সরবরাহ করে ৮-১০ ঘণ্টা কালচার করে প্রয়োগ করতে হবে। ২য় দিন থেকে ১ পিপিএম প্রোবায়োটিক, ৫ পিপিএম চিটাগুড়, ১ পিপিএম ইস্ট, প্রতি টনের জন্য ১ লিটার পানি দিয়ে উপরের সময় ও নিয়মে কালচার করে প্রতিদিন প্রয়োগ করতে হবে।

বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করবেন যেভাবে
বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করবেন যেভাবে

কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ: পানিতে যথাযথ পরিমাণ ফ্লক তৈরি হলে-
১. পানির রং সবুজ বা বাদামি দেখায়
২. পানিতে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র কণা দেখা যায়
৩. পরীক্ষা করলে পানি অ্যামোনিয়া মুক্ত দেখায়
৪. প্রতি লিটার পানিতে ০.৩ গ্রাম ফ্লকের ঘনত্ব পাওয়া যাবে
৫. ক্ষুদিপানা দেওয়ার পর তাদের বংশ বিস্তার পরিলক্ষিত হয়।

ট্যাংক নির্মাণ: প্রথমে গ্রেড রড দিয়ে ট্যাংকের বৃত্তাকার খাঁচাটি তৈরি করতে হবে। যে স্থানে ট্যাংকটি স্থাপন করা হবে; সেখানে খাঁচার পরিধির সমান করে সিসি ঢালাই দিতে হবে। বৃত্তের ঠিক কেন্দ্রে পানির একটি আউটলেট পাইপ স্থাপন করতে হবে। এরপর খাঁচাটিকে ঢালাই মেঝের উপর স্থাপন করে মাটিতে গেঁথে দিতে হবে। মেঝের মাটি শক্ত ও সমান হলে ঢালাইয়ের পরিবর্তে পরিধির সমান করে পুরু পলিথিন বিছিয়েও মেঝে প্রস্তুত করা যায়। এরপর উন্নতমানের তারপুলিন দিয়ে সম্পূর্ণ খাঁচাটি ঢেকে দিতে হবে। তার ওপর পুরু পলিথিন দিয়ে আচ্ছাদিত করে তাতে পানি মজুদ করতে হবে।

বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করবেন যেভাবে
বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ করবেন যেভাবে

এরেটর পাম্প: বায়োফ্লক ট্যাংকে সার্বক্ষণিক অক্সিজেন সাপ্লাই দেওয়ার জন্য একটি এরেটর পাম্প স্থাপন করতে হবে। ৬ ফুট ব্যাসার্ধের এবং ৪ ফুট উচ্চতার একটি ট্যাংকে প্রায় ৩০ হাজার শিং মাছ চাষ করা যাবে।

যোগাযোগ: এ ব্যাপারে সহযোগিতার জন্য যোগাযোগ করতে ফিস এক্সপার্ট লিমিটেড এর ০১৭১২৭৪২২১৭ নম্বরে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com