আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

চীন

চীনের উইগার: দাড়ি, বোরকা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্য যাদের বন্দী করা হয়

শিনজিয়াং-এ একজন মুসলিম আজান দিচ্ছেন
শিনজিয়াং-এ একজন মুসলিম আজান দিচ্ছেন

চীনে সংখ্যালঘু উইগার সম্প্রদায়ের হাজার হাজার মুসলমানের ওপর নিপীড়ন ও নির্যাতনের নতুন দলিল ফাঁস হয়েছে। সেসব দলিলে দেশটির পশ্চিমাঞ্চলীয় শিনজিয়াং অঞ্চলে তিন হাজারের বেশি নাগরিকের দৈনন্দিন জীবনের যাবতীয় খুঁটিনাটিসহ ব্যক্তিগত তথ্য সংরক্ষণের প্রমাণ পাওয়া গেছে।

১৩৭ পৃষ্ঠার সে দলিলে প্রতিটি পৃষ্ঠায় ভিন্ন ভিন্ন কলাম এবং ছক কেটে ঐ মানুষেরা কতবার নামাজ পড়েন, কী পোশাক পরেন, কাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের আচার আচরণের বিস্তারিত লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।

তবে, চীনের সরকার অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে এগুলো দেশটির সন্ত্রাসবাদ এবং ধর্মীয় উগ্রপন্থা মোকাবেলায় নেয়া পদক্ষেপের অংশ।

কিভাবে পাওয়া গেছে এসব দলিল

এসব দলিল অত্যধিক ব্যক্তিগত ঝুঁকি নিয়ে সংগ্রহ করা হয়েছে। বলা হয়েছে, গত বছর শিনজিয়াং অঞ্চলের যে সূত্রের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ সরকারি নথি পাওয়া গিয়েছিল, এবারও সেই সূত্রের মাধ্যমেই নতুন দলিলপত্র পাওয়া গেছে।

 ড. অ্যাড্রিয়ান জেনজ
ড. অ্যাড্রিয়ান জেনজ

শিনজিয়াংয়ে চীনা নীতির একজন বিশেষজ্ঞ ড. অ্যাড্রিয়ান জেনজ, যিনি ওয়াশিংটনে ভিক্টিমস অব কম্যুনিজম মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের একজন সিনিয়র ফেলো, তিনি মনে করেন ফাঁস হওয়া এসব দলিল আসল।

“এসব দলিল আমার দেখা এ পর্যন্ত সবচেয়ে জোরালো প্রমাণ যে চীনের সরকার কিভাবে ধর্মীয় বিশ্বাস ও চর্চার কারণে মানুষকে শাস্তি দিয়ে চলেছে।”

দলিলে পাওয়া ক্যাম্পগুলোর একটি ‘নাম্বার ফোর ট্রেনিং সেন্টার’ যেখানে গত বছরের মে মাসে শিনজিয়াংয়ে চীন সরকার আয়োজিত এক সফরে বিবিসির একটি দল গিয়েছিল।

সেসময় বিবিসির দলটির পাওয়া অনেক তথ্য উপাত্তের সত্যতা পাওয়া যাচ্ছে নতুন এসব দলিলে।

সেখানকার অনেক মানুষের নিরাপত্তার স্বার্থে বিবিসি সেসময় অনেক তথ্য সম্পাদনা করে প্রকাশ করেছিল।

কী আছে দলিলে

নতুন দলিলে সংখ্যালঘু উইগার সম্প্রদায়ের ৩১১ জন মানুষের ব্যাপারে ব্যাপক ভিত্তিক অনুসন্ধানের অর্থাৎ তাদের পূর্ব ইতিহাস, ধর্মীয় আচার পালনের দৈনন্দিন রুটিন, তাদের আত্মীয়স্বজন, প্রতিবেশী এবং বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগের বিস্তারিত তথ্য রয়েছে এসব দলিলে।

 আমস্টারডামে নির্বাসিত উইগার মুসলমান আসিয়ে আব্দুলাহেব
আমস্টারডামে নির্বাসিত উইগার মুসলমান আসিয়ে আব্দুলাহেব

রিপোর্টের শেষ কলামে সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে, ঐ ব্যক্তিদের বন্দীশিবিরে আরো রাখা হবে নাকি তাদের ছেড়ে দেয়া হবে, অথবা আগে ছেড়ে দেয়া হয়েছে এমন কাউকে আবার বন্দি শিবিরে ফিরিয়ে আনতে হবে কিনা।

নতুন এসব দলিলের মাধ্যমে ঐসব ক্যাম্পকে এতদিন সাধারণ স্কুল বলে চীন যে দাবি করে এসেছে তা ভিত্তিহীন হয়ে পড়ছে।

প্রাপ্ত দলিল বিশ্লেষণ করে ড. জেনজ বলছেন, এসবের মাধ্যমে ওখানে চলা সিস্টেমের ব্যাপারে ধারণা যেমন পাওয়া যায়, তেমনি ক্যাম্পে থাকা মানুষের ‘আদর্শিক ও মনস্তাত্ত্বিক কাঠামো’ অনুযায়ী তাদের বিভক্ত করে পর্যালোচনা করার ব্যাপারেও ধারণা পাওয়া যায়।

বোরকা পরা, পাসপোর্ট করতে চাওয়ায় ‘সংশোধন’ শিবিরে

৫৯৮ নম্বর সারিতে একটি কেস রয়েছে, যেখানে হেলচেম নামের ৩৮ বছর বয়সী একজন নারীকে রি-এডুকেশন ক্যাম্পে পাঠানো হয়েছে, কারণ তিনি কয়েক বছর আগে বোরকা পরতেন।

এটি অতীতের ঘটনার কারণে এবং নিয়ম বহির্ভূত শাস্তির একটি উদাহরণ মাত্র।

 শিনজিয়াংয়ের একটি বন্দীশিবির
শিনজিয়াংয়ের একটি বন্দীশিবির

অন্যদের মধ্যে কেউ আছেন, যারা কেবল পাসপোর্টের আবেদন করার কারণে সংশোধন’ শিবিরে আসতে বাধ্য হয়েছেন, যার মাধ্যমে প্রমাণ হয় যে কেউ দেশের বাইরে বেড়াতে যেতে চাইলেও সেটাকে কর্তৃপক্ষ শিনজিয়াংয়ে উগ্রপন্থার লক্ষ্মণ হিসেবে বিবেচনা করে।

৬৬ নম্বর কলামে, মেমেত্তটি নামে ৩৪ বছর বয়সী একজন যুবক ঠিক এই কারণে বন্দি হয়েছেন, যদিও দলিলে উল্লেখ আছে তার কাছ থেকে, ‘বাস্তব কোন ঝুঁকি’ নেই।

আবার ২৩৯ নম্বর সারণিতে দেখা যায়, নুরমেমেট নামে ২৮ বছর বয়সী একজনকে রি-এডুকেশন কার্যক্রমে পাঠানো হয়েছে, কারণ একটি ওয়েব লিংকে ক্লিক করার মাধ্যমে তিনি ‘অনিচ্ছাকৃতভাবে’ একটি বিদেশী ওয়েবসাইটে চলে গিয়েছিলেন।

তার আচরণের নিয়েও কোন অভিযোগ নেই বলে রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে।

যে ৩১১ জন ব্যক্তিকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে, তারা সবাই শিনজিয়াংয়ের দক্ষিণে কারাকাক্স কাউন্টি নামে এক শহরের বাসিন্দা, যেখানকার ৯০ শতাংশ মানুষ উইগার সম্প্রদায়ের।

উইগাররা বেশির ভাগই মুসলমান, এবং তাদের মুখাবয়ব, ভাষা এবং সংস্কৃতির সঙ্গে চীনের প্রধান জাতিগোষ্ঠী অর্থাৎ যাদের হান চাইনিজ বলা হয়, তাদের চেয়ে বরং মধ্য এশিয়ার সাদৃশ্য বেশি।

 তালিকায় ৩১১ জন উইগার মুসলমানের তথ্য রয়েছে
তালিকায় ৩১১ জন উইগার মুসলমানের তথ্য রয়েছে

সাম্প্রতিক কয়েক দশকে লক্ষ লক্ষ হান চাইনিজ শিনজিয়াংয়ে বসতি গড়ে তুলেছে।

এরপর থেকে ক্রমে সেখানে এক ধরণের জাতিগত উত্তেজনা তৈরি এবং উইগারদের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে বাদ দেয়া হচ্ছে এমন আশংকা ক্রমে বাড়ছে।

এ নিয়ে মাঝেমধ্যেই সেখানে বিক্ষোভ সংঘাতের ঘটনা ঘটে, বেইজিং এর পক্ষ থেকে যা কঠোরভাবে দমন করা হয়।

এজন্যই ক্রমে উইগার এবং শিনজিয়াংয়ের অন্য সংখ্যালঘু মুসলমান সম্প্রদায়সমূহ যেমন কাজাখ এবং কিরগিজ সম্প্রদায়ের লোকেরা সরকারের দমননীতির টার্গেটে পরিণত হয়েছেন, এবং তাদের বন্দি শিবিরে নেয়া হচ্ছে।

নতুন প্রকাশিত দলিলসমূহকে ড. জেনজ নাম দিয়েছেন ‘কারাকাক্স তালিকা’, তিনি বলছেন, এর মাধ্যমে এটাই প্রমাণিত হয় যে চীনের কর্তৃপক্ষ এখন যেকোন ভিন্নমতকেই আনুগত্যহীনতা মনে করছে।

একটি বাজারে কয়েকজন মুসলিম
একটি বাজারে কয়েকজন মুসলিম

আর সেই ‘আনুগত্যহীনতা’ দূর করার জন্য সরকার উইগারদের বাড়িঘর এবং অন্তরের ভেতরে পরিবর্তন আনতে চায়।

কর্তৃপক্ষ কিভাবে এসব অনুসন্ধান চালায়

২০১৭ সালে উইগার মুসলমানদের জন্য যখন কর্তৃপক্ষ বন্দীশিবির চালু করে করে, সেসময় কম্যুনিস্ট পার্টির কিছু বিশ্বস্ত কর্মী, যারা গ্রামভিত্তিক দলের সদস্য হিসেবে কাজ করত তারা উইগার সমাজের ভেতরকার তথ্য বের করে আনার কাজটি করে।

তারা প্রত্যেকে কয়েকটি করে বাড়ির দায়িত্ব নেয়, ঐসব বাড়িতে নিয়মিত আসা-যাওয়া করতে থাকে, বন্ধুত্ব করে এবং পরিবারের প্রতিটি সদস্য সম্পর্কে নোট নেয়।

তাদের জীবনাচরণ, ধর্ম বিশ্বাস, বাড়িতে ধর্মচর্চার পরিবেশ অর্থাৎ কী কী আচার পালিত হয়, বাড়িতে কয়টি কোরান শরীফ আছে—এমন সব বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ করে তারা।

দলিলের ১১ নম্বর কলামে প্রত্যেক ব্যক্তির পারিবারিক সম্পর্ক এবং সমাজে কাদের সঙ্গে তারা ওঠাবসা করেন তা লিপিবদ্ধ করা রয়েছে।

এর মাধ্যমে বোঝা যায় চীনা কর্তৃপক্ষ কিভাবে শিনজিয়াংয়ের মানুষজনকে এমনকি বন্ধুর অপরাধের কারণেও দোষী সাব্যস্ত করা এবং পুরো পারিবারিক ও সামাজিক সম্পর্কের সূত্র ধরে শাস্তি প্রদান করে চলেছে।

চীনের গোপন বন্দীশিবির

দলিলে লিপিবদ্ধ প্রতিজন মানুষের আত্মীয় ও বন্ধুদেরও পূর্ব ইতিহাস অনুসন্ধান করা হয়েছে।

অর্থাৎ তাদেরও ধর্ম বিশ্বাস ও চর্চা, কখনো বিদেশে গেছেন কিনা কিংবা কখনো বন্দীশিবিরে ছিলেন কিনা—এমন খুঁটিনাটি তথ্যও রিপোর্টে যুক্ত করা হয়েছে।

এর মধ্যে দেখা গেছে তালিকাভুক্ত প্রায় সবারই আত্মীয়স্বজন বিদেশে থাকেন, আর বিদেশে থাকাকে কর্তৃপক্ষ যে কোন নাগরিকের আনুগত্য-হীনতার সম্ভাব্য কারণ বলে মনে করে।

রিপোর্টের ১৭৯, ৩১৫ এবং ৩৪৫ নম্বর সারণীতে ৬৫ বছর বয়সী ইউসুফ নামের ব্যক্তির কথা উল্লেখ করা হয়েছে, যার দুই মেয়ে ২০১৪ এবং ২০১৫ সালে বোরকা পড়তেন, এবং ছেলের ইসলামি রাজনীতির সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

এবং এই পুরো পরিবারটির ‘হ্যান বিরোধী মূল্যবোধ’ রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

তার ক্ষেত্রে রিপোর্টে রায় দেয়া হয়েছে, তার ‘সংশোধন’ প্রক্রিয়া চালিয়ে যেতে হবে, এবং এটি অন্যতম একটি উদাহরণ যে কেবল নিজের জন্য নয়, পরিবারের জন্যও শাস্তি পেতে হচ্ছে মানুষকে।

গ্রাম পর্যায়ের দল থেকে সংগ্রহ করা তথ্য শিনজিয়াংয়ের মূল তথ্য ভাণ্ডার, যা ইন্টিগ্রেটেড জয়েন্ট অপারেশনস প্ল্যাটফর্ম আইজেওপি নামে পরিচিত সেখানে সংরক্ষণ করা হচ্ছে।

এই আইজেওপির কাছে থাকে ঐ অঞ্চলের নজরদারি এবং পুলিশি কর্মকাণ্ডের রেকর্ড।

যা ক্যামেরা নিয়ন্ত্রিত বিস্তৃত এক নেটওয়ার্ক এবং প্রত্যেক নাগরিককে বাধ্যতামূলকভাবে যে মোবাইল স্পাইওয়্যার ডাউনলোড করতে হয় তার মাধ্যমে সংগ্রহ করা হয়।

ড. জেনজ মনে করেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ব্যবহার করে আইজেওপি এসব তথ্য যাচাই করে এবং এখান থেকেই গ্রামের অনুসন্ধান দলের কাছে নির্দেশনা পাঠায় কাদের ওপর নজরদারি চালাতে হবে।

ফাঁস হওয়া দলিলে অনেকজনের নামের শেষে ‘অবিশ্বস্ত’ বিশেষণ যুক্ত করা হয়েছে, মোট ৮৮ জন ব্যক্তিকে এজন্য বন্দীশিবিরে রাখার কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

ড. জেনজ বলছেন, এ তথ্য প্রমাণ করে যে কর্তৃপক্ষ এমন একটি ব্যবস্থা তৈরি করেছে যা অপরাধের জন্য নয়, বরং একটি পুরো অঞ্চলের মানুষকে সন্দেহমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য চিহ্নিত করা হচ্ছে।

সরকার কী বলছে

চীন বলছে, শিনজিয়াংয়ের নীতিতে নাগরিকের প্রতি ‘সম্মান এবং তাদের ধর্মীয় বিশ্বাস চর্চার স্বাধীনতা’ নিশ্চিত করা হয়েছে।

এবং শিনজিয়াংয়ের ভোকেশনাল ট্রেনিং নামে যে প্রকল্প চালু আছে, সেটি ‘সন্ত্রাসবাদ এবং ধর্মীয় উগ্রপন্থা’র বিরোধী লড়াই এর অংশ।

যারা সন্ত্রাস ও ধর্মীয় উগ্রপন্থা সংক্রান্ত কোন অপরাধের দায়ে সাজাপ্রাপ্ত, এসব শিবিরগুলোতে তাদেরই কেবল ‘সংশোধন’ করা হচ্ছে।

কিন্তু প্রাপ্ত দলিলে দেখা গেছে, কারাকাক্স তালিকায় বন্দীশিবিরে রাখার জন্য বিবিধ কারণ দেখানো হয়েছে, যার মধ্যে ধর্মীয়, পাসপোর্ট, পরিবার, বিদেশে যোগাযোগ কিংবা অবিশ্বস্ত হবার মত কারণের উল্লেখ রয়েছে।

তবে এর মধ্যে চীনের পরিবার পরিকল্পনা নীতি অমান্য করার কারণে সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষকে বন্দীশিবিরে রাখার কথা বলা হয়েছে।

ঐ তালিকায় সন্ত্রাস ও ধর্মীয় উগ্রপন্থার মত অপরাধের সঙ্গে সম্পৃক্ততা ছিল এমন ছয় ব্যক্তির নাম রয়েছে, এবং দুইজন আছেন যারা নিষিদ্ধ ভিডিও দেখেছেন।

২০১৮ সালে উইগার মুসলমানদের ওপর নিপীড়নের অভিযোগ ওঠার পর থেকে চীন সরকার বিষয়টি অস্বীকার করে আসছে।

দলিলের সত্যতা

নতুন ফাঁস হওয়া এই কারাকাক্স তালিকায় কর্তৃপক্ষের কোন স্ট্যাম্প বা কোন সরকারী চিহ্ন নেই, ফলে কেবল তালিকা দেখে এর সত্যতা নিশ্চিত করা কঠিন।

ধারণা করা হয় গত বছর জুনের শেষ দিকে আরো কিছু স্পর্শকাতর দলিলের সঙ্গে বিপুল পরিমাণ সরকারি নথি শিনজিয়াংয়ের বাইরে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

নির্বাসনে থাকা বেনামী একজন উইগার নেতার কাছে পাঠানো হয় সেগুলো।

কেবল এই একটি দলিল, যা এখন ফাঁস হলো সেটি তখন পাঠানো হয়নি।

জুনে সেসব দলিলের প্রথম অংশ প্রকাশিত হবার পর, আমস্টারডামে বাসকারী আরেকজন নির্বাসিত উইগার আসিয়ে আব্দুলাহেবের কাছে সেগুলো পাঠিয়ে দেয়া হয়।

তিনি বিবিসিকে বলেছেন, তিনি নিশ্চিত যে নতুন প্রকাশিত দলিলটি ‘জেনুইন’ অর্থাৎ আসল।

“কাগজপত্রের ওপর স্ট্যাম্প থাকুক আর না থাকুক, যে মানুষদের কথা উল্লেখ করা হয়েছে তারা সব আসল, বাস্তবের মানুষ। সুতরাং এটি আসল দলিল।”

২০১৮ সালে জানা যায়, শিনজিয়াং প্রদেশে উইগার মুসলমানদের ‘সংশোধনের’ জন্য পৃথিবীর অন্যতম বৃহৎ বন্দীশিবির গড়ে তুলেছে চীনের কর্তৃপক্ষ।

বিশ্বব্যাপী সমালোচনার মুখে পড়ে চীন দাবি করে ঐগুলো বন্দীশিবির নয়, কর্মমুখী প্রশিক্ষণকেন্দ্র।

গত বছরের শেষে চীন ঘোষণা দেয় তাদের ঐ ‘কর্মমুখী প্রশিক্ষণকেন্দ্র’গুলোতে থাকা শিক্ষার্থীর সবাই গ্র্যাজুয়েট অর্থাৎ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে।

তবে কেউ কেউ ‘স্বেচ্ছায়’ সেখানে আরো কিছুদিন থাকবেন বলেও উল্লেখ করে কর্তৃপক্ষ।

কারাকাক্স তালিকার ৩১১ জনের মধ্যে ৯০ শতাংশ মানুষকেই ইতিমধ্যে মুক্তি দেয়া হয়েছে বলে রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে।

এই তালিকায় ২৫ জনের বেশি মানুষকে বন্দীশিবির থেকে মুক্তি দিয়ে শিল্প পার্কে কর্ম সংস্থানের জন্য পাঠানোর সুপারিশ করা হয়েছে।

তবে তালিকার দুইটি ক্ষেত্রে বন্দীশিবির থেকে জেলখানায় পাঠানোর কথা উল্লেখ আছে।

চীন

চীনে প্রাচীনকালের ৯০০ ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কার

প্রত্নতত্ত্ববিদরা একটি পাথরের তৈরি বৌদ্ধ মন্দিরের প্রায় চার হাজার ৬০০ বর্গমিটার এলাকা খনন করে এ পুরাকীর্তিগুলো আবিষ্কার করেন

চীনা প্রত্নতত্ত্ববিদরা দেশটির দক্ষিণ-পশ্চিমের শহর চংকিংয়ের পাথরের তৈরি স্থানীয় বৌদ্ধ মন্দির এলাকা থেকে ৯০০টিরও বেশি প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কার করেছেন।

রবিবার (২ ফেব্রুয়ারি) চংকিং শহরের ইনস্টিটিউট অব কালচারার হেরিটেজ কর্তৃপক্ষ জানায়, প্রত্নতত্ত্ববিদরা শহরের জিয়াংজিন এলাকার একটি পাথরের তৈরি বৌদ্ধ মন্দিরের প্রায় চার হাজার ৬০০ বর্গমিটার এলাকা খনন করে এ পুরাকীর্তিগুলো আবিষ্কার করেন।

ইনস্টিটিউট অব কালচারাল হেরিটেজের একজন প্রত্নতত্ত্ব বিশেষজ্ঞ নিও ইয়িংবিনের মতে, ২০১৬ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত দুই বছরব্যাপী এ খননের মাধ্যমে তাঙ্গ রাজবংশ (৬১৮ খ্রিস্টাব্দ থেকে ৯০৭ খ্রিস্টাব্দ) এবং কোয়িং রাজবংশের (১৬৪৪ খ্রিস্টাব্দ-১৯১১ খ্রিস্টাব্দ) পর্যন্ত সময়কার ৫০টিরও বেশি স্থাপনা, সমাধি এবং খোদাই করা শিলালিপি পাওয়া গেছে।

তিনি বলেন, প্রাচীন চীনের স্থানীয় ইতিহাস এবং বৌদ্ধ সংস্কৃতি অধ্যয়নের ক্ষেত্রে নতুন করে আবিষ্কৃত এ পুরার্কীতিগুলোর দারুন বৈজ্ঞানিক, ঐতিহাসিক এবং শৈল্পিক মূল্য যোগ করবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

চীন

বাঘের আলিঙ্গন: যে ছবি পেল সেরা পুরষ্কার

সার্গেই গর্শকফের পুরষ্কার জেতা ছবিটির শিরোনাম: আলিঙ্গন
সার্গেই গর্শকফের পুরষ্কার জেতা ছবিটির শিরোনাম: আলিঙ্গন

বিশ্বের সবচেয়ে বিরল কোন প্রাণীর ছবি তুলতে হলে আপনার প্রয়োজন হবে দক্ষতা এবং সৌভাগ্য।

রুশ ফটোগ্রাফার সার্গেই গর্শকফের যে দুটোই রয়েছে তার প্রমাণ পাওয়া গেল তার তোলা ছবিতে।

রাশিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় অরণ্যে তার তোলা একটি সাইবেরিয়ান বাঘ (আমুর টাইগার)-এর ছবি এ বছরের সেরা বন্যপ্রাণীর ছবি হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে।

এই মাদি মাঘকে দেখা যাচ্ছে ল্যান্ড অফ লেপার্ড ন্যাশনাল পার্কের একটি গাছকে জড়িয়ে ধরে আছে।

গাছের গায়ে ঘষা দিয়ে এবং প্রস্রাব করে এক বাঘ অন্য বাঘকে তার নিজের বিচরণ ক্ষেত্রের কথা জানিয়ে দেয়।

“ছবিটির আলো, রং এবং টেক্সচার ইত্যাদি দেখে মনেই হয় না এটি একটি ছবি। মনে হয় এটি একটি অয়েল পেইন্টিং,” বলছেন ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অফ দ্যা ইয়ার প্রতিযোগিতার একজন বিচারক রজ কিডম্যান।

“দেখে মনে হয় বাঘটি অরণ্যের এক অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। এমনকি বাঘের লেজটি পর্যন্ত মিশে আছে গাছের গুঁড়ির সাথে,‍ বিবিসিকে বলছিলেন তিনি।

এই ছবির আরও চমকপ্রদ দিক হলো যেভাবে ছবিটা তোলা হয়েছে।

এই ক্যামেরা-ট্র্যাপ যন্ত্র জঙ্গলের মধ্যে বাসিয়ে রাখা হয়। কোন বন্য প্রাণী এর আওতার মধ্যে এলেই ক্যামেরা স্বয়ংক্রিয়ভাবে তার ছবি তুলে রাখে।

সে জন্য সার্গেইকে জানতে হয়েছে কোথায় ক্যামেরা বসাতে হবে, কোন্‌ অ্যাঙ্গেল থেকে ছবি তুলতে হবে ইত্যাদি। ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার হিসেবে সেখানেই প্রয়োজন হয় দক্ষতা ও একাগ্রতা।

পূর্ব রাশিয়ায় অবৈধ শিকারের জেরে বাঘের সংখ্যা কমতে কমতে প্রায় বিপন্ন হয়ে পড়েছে। এসব বাঘের সংখ্যা এখন কয়েকশোতে ঠেকেছে বলে ধারণা করা হয়।

হরিণ, বুনো শুয়োর — আমুর টাইগারের প্রধান খাদ্য — তাদের সংখ্যাও কমেছে ব্যাপক হারে শিকারের ফলে।

আমুর টাইগার বিরল হয়ে পড়ায় তার ছবি তোলার কাজও বেশ কঠিন। সার্গেই যে সেরা ছবি তুলেছেন, তার জন্য তার ক্যামেরা-ট্র্যাপ যন্ত্রকে বসিয়ে রাখতে হয়েছিল ১০ মাস।

লন্ডনের ন্যাচারাল হিস্ট্রি মিউজিয়াম প্রতি বছর বন্য প্রাণীদের সেরা ছবি পুরষ্কার দিয়ে থাকে। এটা দেয়া হচ্ছে গত ৫৫ বছর ধরে।

শেয়ালের খপ্পরে বুনো হাঁস: লিনা হেকিনেন, ফিনল্যান্ড
শেয়ালের খপ্পরে বুনো হাঁস: লিনা হেকিনেন, ফিনল্যান্ড

একটি বাচ্চা শেয়াল যেভাবে একটি বুনো হাঁসকে কামড়ে খাচ্ছে — এই ছবিটি তুলেছেন ফিনল্যান্ডের টিনএজ ফটোগ্রাফার লিনা হেকিনেন। ১৫-১৭ বছর বয়সী ফটোগ্রাফারদের ক্যাটেগরিতে এটি সেরা ছবি হিসেবে বিবেচিত হয়।

শেয়ালটি তার খাবারকে অন্য শেয়ালের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য একটি পাথরের খাঁজে ঢুকে পড়েছিল।

দ্যা পোজ: মগেন্স ট্রোল, ডেনমার্ক
দ্যা পোজ: মগেন্স ট্রোল, ডেনমার্ক

এটি একটি প্রবোসিস জাতের পুরুষ বাঁদরের ছবি। এটি অ্যানিমাল পোর্ট্রেট বিভাগে এবার সেরা ছবি হিসেবে বাছাই হয়েছে। ইন্দোনেশিয়ার বোর্নিও দ্বীপে একটি অভয়ারণ্যে এই ছবিটি তোলা হয়।

বয়স বাড়ার সাথে সাথে বাঁদরটির নাকের দৈর্ঘ্যও বাড়তে থাকবে। বড় নাকের সাহায্যে তার ডাকও বেশি শোনা যাবে। এবং বাঁদরের দলের মধ্যে তার অবস্থানকেও পরিষ্কার করবে।

আগুনের নদী: লুচিয়ানো গুয়াডেনজিও, ইতালি
আগুনের নদী: লুচিয়ানো গুয়াডেনজিও, ইতালি

ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অফ দ্যা ইয়ার প্রতিযোগিতায় শুধু বন্য প্রাণীর ছবি তোলা হয় না।

ইউরোপের জীবন্ত আগ্নেয়গিরি ইতালির মাউন্ট এট্নার এই ছবিটি আর্থস এনভায়রনমেন্ট ক্যাটেগরিতে সেরা ছবি নির্বাচিত হয়েছে।

এই ছবি তোলার জন্য লুচিয়ানো গুয়াডেনজিওকে প্রচণ্ড তাপ এবং আগ্নেয়গিরির বিষাক্ত ভাপ সহ্য করতে হয়েছে।

ভারসাম্যের জীবন: হাইম কুলেব্রাস, স্পেন
ভারসাম্যের জীবন: হাইম কুলেব্রাস, স্পেন

ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অফ দ্যা ইয়ার প্রতিযোগিতার সরিসৃপ বিভাগের এটি সেরা ছবি। এই গ্লাস ফ্রগ জাতের ব্যাঙটির মুখে মাকড়শা। হাইম এই ছবিটি তুলেছেন একুয়েডরের ম্যানডুরিয়াকু অরণ্যে। তখন প্রবল বৃষ্টিপাত হচ্ছিল। এর মধ্যেই তিনি এক হাতে ছাতা এবং ফ্ল্যাশ লাইট ধরে অন্য হাত দিয়ে ক্যামেরা পরিচালনা করেন।

দুই বোলতার গল্প: ফ্র্যাংক ডেশানডল, ফ্রান্স
দুই বোলতার গল্প: ফ্র্যাংক ডেশানডল, ফ্রান্স

উত্তর ফ্রান্সের নরমান্ডিতে এই ছবিটি তোলা হয়েছে। এর জন্য ক্যামেরায় বিশেষ ধরনের দ্রুত গতির শাটার ব্যবহার করা হয়েছে যাতে বোলতা দুটির পাখার ছবিকে ফ্রেমবন্দি করা যায়।

সোনালি মুহূর্ত: সোংডা কাই, চীন
সোনালি মুহূর্ত: সোংডা কাই, চীন

ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার অফ দ্যা ইয়ার প্রতিযোগিতার আন্ডার ওয়াটার বিভাগের সেরা ছবি। এটা একটা ডায়মন্ড-ব্যাকড স্কুইড। ফিলিপিন্সের আনিলাও উপকূলে জলের তলে রাতের বেলা সোংডা এই ছবিটি তোলেন। স্কুইডটি প্রায় ৬-৭ সেন্টিমিটার দীর্ঘ।

মা বলেছেন দৌড় দাও: শানুয়ান লি, চীন
মা বলেছেন দৌড় দাও: শানুয়ান লি, চীন

এই বন বিড়ালের বাচ্চাগুলিকে দেখা যায় উত্তর-পশ্চিম চীনের চিংহাই-তিব্বত মালভূমিতে। ছয় বছর ধরে অনুসরণের পর শানুয়ান এই ছবিটি তুলতে সমর্থ হন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

চীন

কোয়াড সংলাপ: চীনের ডানা বাঁধতে ভারত, যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, অস্ট্রেলিয়ার মন্ত্রীরা টোকিওতে

২০০৭ সালের সেপ্টেম্বরে বঙ্গোপসাগরে কোয়াড সদস্য যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, ভারত এবং অস্ট্রেলিয়ার প্রথম যৌথ সামরিক মহড়া চালায়
২০০৭ সালের সেপ্টেম্বরে বঙ্গোপসাগরে কোয়াড সদস্য যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, ভারত এবং অস্ট্রেলিয়ার প্রথম যৌথ সামরিক মহড়া চালায়

ভারত ও প্রশান্ত মহাসাগরে নৌ চলাচল ‘অবাধ ও স্বাধীন‘ রাখার উপায় খোঁজার যুক্তি দেখিয়ে ২০০৭ সালে যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, অস্ট্রেলিয়া ও ভারতের মধ্যে ‘কোয়াড’ নামে যে সংলাপের সূচনা হয়েছিল, তারই আওতায় এই চার দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা আজ (মঙ্গলবার) থেকে টোকিওতে দু’দিনের বৈঠকে বসছেন।

দশ বছর হিমঘরে থাকার পর ‘কোয়াড সংলাপ’ ২০১৭ সাল থেকে নতুন করে জীবন ফিরে পেলেও টোকিওর এই বৈঠক নিয়ে এক বিশেষ আগ্রহ তৈরি হয়েছে। আর এই আগ্রহের প্রধান কারণ, বৈঠকটি হচ্ছে সীমান্ত নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্যে প্রায় চার মাস ধরে চলা বিপজ্জনক উত্তেজনার মধ্যে।

চীন তাদের প্রধান বৈরী এই চারটি দেশের মধ্যে এই বৈঠক নিয়ে যে একইসাথে উদ্বিগ্ন এবং ক্ষুব্ধ, তার ইঙ্গিত স্পষ্ট। জানা গেছে, মঙ্গল ও বুধবার টোকিওতে কোয়াডের এই বৈঠক চলার সময় একই সাথে তিন থেকে চারটি নৌ এবং বিমান মহড়ার ঘোষণা দিয়েছে বেইজিং।

কোয়াডের চারটি সদস্য দেশের মধ্যে ২০১৭ সাল থেকে বিভিন্ন পর্যায়ে নিয়মিত বৈঠক হচ্ছে – কিন্তু চীনকে আটকাতেই যে এই জোটবদ্ধ উদ্যোগ, পরিষ্কার করে তা কখনই বলা হয়নি।

এমনকি এসব বৈঠক নিয়ে এই চারটি দেশের সরকারগুলোর পক্ষ থেকে জনসমক্ষে যেসব ঘোষণা দেয়া হয়েছে বা যেসব নথিপত্র চালাচালি হয়েছে, তার কোথাও চীন শব্দটিই নেই।

কিন্তু অনেক পর্যবেক্ষক মনে করছেন, টোকিও বৈঠকে তা বদলে যেতে পারে। কারণ যে দেশটি এই প্লাটফর্মকে প্রকাশ্যে ‘চীন-বিরোধী‘ তকমা দিতে সবচেয়ে বেশি কুণ্ঠিত ছিল, সেই ভারত তাদের অবস্থান অনেকটাই বদলে ফেলেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা সংস্থা র‌্যান্ড কর্পোরেশনের সর্বসাম্প্রতিক এক প্রকাশনায় সাউথ ক্যারোলাইনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক এবং প্রতিরক্ষা বিশ্লেষক ডেরেক গ্রসম্যাস লিখেছেন, পরিস্থিতি এখন অন্যরকম কারণ, তার মতে, এই চারটি দেশের সবগুলোই এখন চীনের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানের প্রশ্নে একমত।

তিনি বলেন, ২০০৭ সালে কোয়াড প্লাটফর্মকে একটি প্রতিরক্ষা জোটে রূপ দেওয়ার প্রচেষ্টা ভেস্তে যাওয়ার অন্যতম প্রধান কারণ ছিল চীনকে নিয়ে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার আড়ষ্টতা। চীনকে কতটা কোণঠাসা করা উচিৎ, তা নিয়ে এই দুই দেশের মধ্যে দ্বিধা ছিল।

“কিন্তু এখন মনে হচ্ছে তারা সবাই একমত,“ লিখেছেন ডেরেক গ্রসম্যাস।

“বিশেষ করে আমার সবসময় মনে হয়েছে, কোয়াডে ভারত ছিল উইক লিঙ্ক। কিন্তু ভারত মনে হয় তার অবস্থান বদলে ফেলছে, এখন মনে হচ্ছে চারটি দেশই চীনের প্রশ্নে একমত।“

ভারতের বর্তমান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর কোয়াডের ব্যাপারে ব্যক্তিগতভাবে উৎসাহী। সেই সাথে, মি. গ্রসম্যান মনে করেন, ২০১৭ সালে ডোকলাম সীমান্তে বিরোধ এবং জুন মাস থেকে লাদাখ সীমান্ত পরিস্থিতির কারণে ভারতের অবস্থান কট্টর হয়েছে।

“এমনকি চীনের সাথে সম্পর্কে ভারসাম্য রাখা নিয়ে ভারতে যারা সব সময় সোচ্চার ছিলেন, তারাও তাদের অবস্থান শক্ত করছেন।“

সামরিক শক্তিতে ভারতের নতুন আস্থা

দিল্লিতে জওহারলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্কের অধ্যাপক সঞ্জয় ভরদোয়াজও মনে করেন, ভারতের বর্তমান সরকারের মধ্যে এখন এমন বিশ্বাস দিনকে দিন দৃঢ় হচ্ছে যে কেবলমাত্র সামরিক শক্তির ভয় দেখিয়েই চীনকে সামলানো সম্ভব।

বিবিসি বাংলাকে তিনি বলেন, “ভারতের বর্তমান সরকার মনে করছে চীন ভারতের ভৌগলিক সার্বভৌমত্ব হুমকিতে ফেলছে, দক্ষিণ এশিয়ায় ভারতের স্বার্থ-প্রভাবকে চ্যালেঞ্জ করছে, এবং এ থেকে চীনকে বিরত রাখতে হলে শক্তির ভয় দেখানো ছাড়া বিকল্প নেই।“

তার মতে, অন্য দেশের সাথে কোনো সামরিক বা প্রতিরক্ষা চুক্তি করতে ভারত এখন প্রস্তুত। এ প্রসঙ্গে অধ্যাপক ভরদোয়াজ গত সপ্তাহে কোয়াড সম্পর্কে ভারতের প্রতিরক্ষা প্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াতের এক বক্তব্যের প্রসঙ্গ টানেন।

বৃহস্পতিবার এক বক্তৃতায় জেনারেল রাওয়াত বলেন, “ভারত মহাসাগর অঞ্চলে এবং আশপাশের অন্যান্য মহাসাগরে আতঙ্ক-উস্কানি ছাড়া চলাফেরা, অন্য কোনো দেশের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠার চেষ্টাকে চ্যালেঞ্জ করতে কোয়াডের গুরুত্ব অনেক।“

তিনি আরও বলেন, “সাগরে এবং আকাশে অবাধ গতিবিধি নিশ্চিত করতে ভারত উদগ্রীব।“ কারো নাম তিনি উল্লেখ করেননি, তবে নাম না করলেও জেনারেল রাওয়াত এখানে চীনের কথাই বলেছেন।

তবে ভারতের এই অবস্থান যে রাতারাতি বা গত জুন মাস থেকে তৈরি হয়েছে তা নয়।

শ্রীলঙ্কার ত্রিনকোমালিতে লঙ্কান সৈন্যদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে চীনা সৈন্যরা (সেপ্টেম্বর, ২০১৯) - দক্ষিণ এশিয়ায় চীনের সাম্প্রতিক ভূমিকায় ভারত উদ্বিগ্ন
শ্রীলঙ্কার ত্রিনকোমালিতে লঙ্কান সৈন্যদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে চীনা সৈন্যরা (সেপ্টেম্বর, ২০১৯) – দক্ষিণ এশিয়ায় চীনের সাম্প্রতিক ভূমিকায় ভারত উদ্বিগ্ন

গত দশকের মাঝামাঝি থেকে দক্ষিণ এশিয়ায় চীনের প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা নিয়ে ভারত উদ্বিগ্ন। ২০১৪ সালে শ্রীলঙ্কার একটি বন্দরে চীনা সাবমেরিনের উপস্থিতি তাদের জন্য চরম মাথাব্যথার কারণ হয়।

পাশাপাশি, পাকিস্তানকে চীনের অব্যাহত সামরিক সাহায্য, পাকিস্তানের গোয়াদার বন্দরে চীনের নিয়ন্ত্রণ, কাশ্মীরের ভেতর দিয়ে তাদের বেল্ট অ্যান্ড রোড প্রকল্পের সড়ক নির্মাণে চীনের পরিকল্পনা – এসব নিয়ে ভারতে উদ্বেগের পারদ বাড়ছে।

সে কারণে অনেক পর্যবেক্ষক মনে করেন যে ২০১৪ সাল থেকে চীনের সাথে ভারতের সম্পর্কে যে অনাস্থা-অবিশ্বাস বাড়ছে, তাতেই ১০ বছর বাদে আমেরিকার পক্ষে কোয়াডের পুনর্জন্ম নিশ্চিত করা সম্ভব হয়েছে।

এশিয়ান নেটো

তাহলে কোয়াড কি এখন আনুষ্ঠানিকভাবে চীন-বিরোধী একটি সামরিক জোটের রূপ নিতে যাচ্ছে?

বেশ কয়েক বছর ধরে, বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর থেকে যুক্তরাষ্ট্র চীনকে কোণঠাসা করতে ভারত মহাসাগরীয় অঞ্চলে মিত্রদের নিয়ে একটি সামরিক জোট গড়তে আগ্রহী।

অনেক পর্যবেক্ষক বলেন, ইউরোপের সামরিক জোট নেটো নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে আগ্রহ কমলেও, মূলত চীনের ক্রমবর্ধমান প্রভাব-প্রতিপত্তির জবাব দিতে এশিয়ায় নেটো ধাঁচের একটি জোট গঠনে আমেরিকা আগ্রহী হয়ে পড়েছে।

অধ্যাপক ডেরেক গ্রসম্যান মনে করেন, মূলত ভারতের অবস্থানে মৌলিক পরিবর্তনে সে সম্ভাবনা জোরদার হয়েছে।

তবে শুধু ভারত নয়, কোভিড মহামারি নিয়ে অস্ট্রেলিয়া আন্তর্জাতিক তদন্তের এক প্রস্তাব দেওয়ার পর তাদের সাথেও চীনের সম্পর্ক অত্যন্ত খারাপ হয়ে গেছে। অস্ট্রেলিয়ার গরুর মাংস এবং বার্লির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে চীন। অস্ট্রেলিয়ান মদ এবং আরো পণ্যের ওপর বাড়তি শুল্ক আরোপের কথাও বিবেচনা করছে তারা।

চীন ও ভারতের মধ্যে দীর্ঘদিনের সীমান্ত বিরোধের ইতিহাস রয়েছে
চীন ও ভারতের মধ্যে দীর্ঘদিনের সীমান্ত বিরোধের ইতিহাস রয়েছে

জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্র কোয়াডের বাকি দেশগুলোকে গুয়ামে তাদের সামরিক ঘাঁটিতে যৌথ একটি বিমান মহড়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তাছাড়া, আন্দামানের কাছে গত কয়েক বছর ধরে যুক্তরাষ্ট্র, জাপান এবং ভারতের যে নৌ-মহড়া হচ্ছে, তাতে সামনের বছর অস্ট্রেলিয়াও যোগ দেবে।

কিন্তু ভারতের সরকার চাইলেও যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে এ ধরণের সামরিক জোটের অংশ হওয়ার পরিণতি নিয়ে এখনও দেশটির অনেকের ভেতরেই গভীর উদ্বেগ রয়েছে বলে মনে করেন অধ্যাপক ভরদোয়াজ।

তিনি বলেন, “সামরিক শক্তি প্রদর্শনের মাধ্যমে চীনের মোকাবেলা করা নিয়ে ভারতে বিতর্ক শেষ হয়নি। কৌশলগত এবং বৈদেশিক নীতির যে স্বাধীনতা এখন ভারতের রয়েছে, তা ক্ষুণ্ণ হবে বলে অনেকে ভয় পাচ্ছেন।

“ভারত আমেরিকার তাঁবেদারি রাষ্ট্রে পরিণত হয়ে পড়ে কি-না, তা নিয়ে অনেকে সন্দিহান। অর্থনীতির উন্নয়ন হুমকিতে পড়তে পারে, এমন আশঙ্কাও প্রবল।“

চীন কী ভাবছে

চীন ২০০৭ সাল থেকে এই চারটি দেশের মধ্যে দহরম-মহরমকে গভীর সন্দেহের চোখে দেখছে।

ওই বছরের মার্চে ম্যানিলায় আসিয়ান জোটের বৈঠকের সময় এই চারটি দেশ প্রথম যখন একটি বৈঠক করার সিদ্ধান্ত নেয়, সাথে সাথেই ওই দেশগুলোর কাছে প্রতিবাদ জানায় চীন। কী নিয়ে কথা হবে, তাও জানতে চায় তারা।

টোকিওর বৈঠক নিয়ে দু’দিন আগে চীনা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে, কোনো একটি দেশকে টার্গেট করে কোনো জোট তৈরি একেবারেই কাম্য নয়। চীনা মুখপাত্র ওয়াং ওয়েনবিন বলেন, “অন্য একটি দেশকে টার্গেট করে, তাদের স্বার্থ ক্ষুণ্ণ না করে, আঞ্চলিক দেশগুলোর বরঞ্চ উচিৎ নিজেদের মধ্যে বিশ্বাস, বোঝাপড়া বাড়ানোর চেষ্টা করা।“

তবে কুয়ালালামপুরে মালয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্সটিটিউট অব চায়নার অধ্যাপক ড. সৈয়দ মাহমুদ আলী বিবিসি বাংলাকে বলেন, নব্বইয়ের দশকের মাঝামাঝি থেকে চীনারা জানে যে অদূর ভবিষ্যতে তাদেরকে হয়ত ভারত মহাসাগর অঞ্চলে সংঘাতের মোকাবেলা করতে হবে।

দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের নৌ মহড়া, ২০১৮
দক্ষিণ চীন সাগরে চীনের নৌ মহড়া, ২০১৮

১৯৯৩ সালেই চীনারা যুক্তরাষ্ট্র, দক্ষিণ কোরিয়া এবং জাপানকে তাদের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি হিসাবে চিহ্নিত করেছে। এখন বৈরি দেশের তালিকায় যোগ হয়েছে ভারত এবং অস্ট্রেলিয়া।

সৈয়দ মাহমুদ আলী বলেন, “ফিলিপাইন, থাইল্যান্ড বা সিঙ্গাপুরের মত দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় তাদের পুরনো মিত্রদের দলে ভেড়ানোর চেষ্টা করেছে আমেরিকা, কিন্তু এই দেশগুলো এই বিরোধে জড়াতে অনিচ্ছুক।

“তাদের মনোভাব অনেকটা এমন যে তাদের অঞ্চলে বৃহৎ শক্তিদের লড়াই তারা অতীতে দেখেছে, তার পরিণতিও তারা দেখেছে। দোরগোড়ায় আর তেমন কোনো সংঘাত তারা চায় না, যাতে তাদের অর্থনৈতিক উন্নয়ন হুমকিতে পড়ে।“

এমনকি গত বছর সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রী সরাসরি বলেন যে ভারত মহাসাগরে উত্তেজনার জন্য চীন এবং যুক্তরাষ্ট্র দুই দেশই সমানভাবে দায়ী। মিত্র একটি দেশের কাছ থেকে এই বিবৃতি যুক্তরাষ্ট্রের জন্য অস্বস্তিকর ছিল।

ড. আলী বলেন, “চীনারা জানে চাপ আসছে। তাদের ভেতর মনোভাব অনেকটা এমন যে ‘আমরা সংঘাত শুরু করবো না, কিন্তু যদি কোনো সংঘাত চাপিয়ে চাপিয়ে দেওয়া হয়, তার জন্য আমরা প্রস্তুত।’ চীন এখন অপেক্ষা করবে, প্রতিপক্ষ কী করে তার জন্য।“

তিনি বলেন, চীন যেটা বলার চেষ্টা করছে তাহলো ঐতিহাসিকভাবে যেসব জায়গা বা অঞ্চলের ওপর তাদের দাবি রয়েছে, সেটা তারা ছেড়ে দেবে না।

“তারা কতগুলো রেড লাইন টেনে রেখেছে, যেমন তাইওয়ান, দক্ষিণ চীন সাগর, এবং আমেরিকানদেরও তারা পরিষ্কার বলেছে যে এই রেড লাইন অতিক্রম করা হলে তারা বরদাস্ত করবে না।“

এবং সেই সংকল্প জানান দিতেই চীন গত ছয় মাসে দক্ষিণ চীন সাগর এবং তাইওয়ান প্রণালীতে কমপক্ষে ৩০টি সামরিক মহড়া চালিয়েছে।

তবে ড. আলী মনে করেন, দুই পক্ষ যুদ্ধের প্রস্তুতি নিলেও সত্যিকারের সংঘাতে জড়িয়ে পড়ার আগে দশবার ভাববে।

“একটি বিষয় মাথায় রাখা দরকার – চীন-যুক্তরাষ্ট্র-ভারত-পাকিস্তান, এরা সবাই পারমানবিক অস্ত্রধর দেশ। ১৯৪৫ সালের পর পৃথিবী পারমানবিক অস্ত্রের ব্যবহার দেখেনি। কোনো যুদ্ধ বাঁধলে হঠাৎ কেউ সেই অস্ত্র ব্যবহার করবে কি-না, করলে তার পরিণতি কি হবে, কে সেই যুদ্ধ থামাবে – তা নিয়ে সবার মধ্যেই গভীর শঙ্কা রয়েছে।”

তাঁর মতে, “যুদ্ধ করতে কেউই হয়তো সাহস পাবে না।“

এসব দলাদলির ভেতর দিয়ে দেশগুলো এক ধরণের ‘ডেটারেন্স‘ তৈরি করতে চাইছে, মনে করছেন সৈয়দ মাহমুদ আলী, যাতে শত্রুপক্ষ তাকে ঘাঁটানোর সাহস না পায়।

“একে অন্যের জন্য ‘রেডলাইন‘ টেনে দেওয়ার চেষ্টা করছে।”

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

চীন

করোনাভাইরাস উহানের ল্যাবে তৈরি, প্রমাণ থাকার দাবি

লেখক

ডা. লি মেং ইয়ান
ডা. লি মেং ইয়ান

চীন সরকার নিয়ন্ত্রিত উহান ল্যাবে করোনাভাইরাস তৈরি বলে দাবি করেছেন দেশটির ভাইরাস বিশেষজ্ঞ ডা. লি মেং ইয়ান। এর সপক্ষে তার কাছে যথেষ্ট প্রমাণ রয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি। 

হংকংয়ে কর্মরত শীর্ষস্থানীয় এই বিজ্ঞানী দাবি করেছেন যে, করোনা মহামারী আকারে ছড়িয়ে পড়ার আগে চীন সরকার ভাইরাসটি সম্পর্কে জানতো। একটি অনুসন্ধানে তিনি এর প্রমাণ পেয়েছেন। খবর হিন্দুস্থান টাইমসের 

হংকং স্কুল অব পাবলিক হেলথের ভাইরোলজি এবং ইমিউনোলজি বিশেষজ্ঞ ডা. লে মিং-কে নিরাপত্তার কারণ যুক্তরাষ্ট্রে পালিয়ে যেতে বাধ্য করা হয়েছিল।

গত ১১ সেপ্টেম্বর তিনি এক ব্রিটিশ টকশো’তে অজ্ঞাতস্থান থেকে সাক্ষাৎ দেন এবং করোনা নিয়ে এসব তথ্য জানান। সেসময়ে করা তার গবেষণা নিয়েও কথা বলেন লে মিং।

ডা. লি মেং বলেন, তিনি ডিসেম্বর থেকে জানুয়ারির প্রথম দিকে এবং জানুয়ারির মাঝামাঝি সময়ে চীনে “নিউমোনিয়া” নিয়ে দুটি গবেষণা করেছিলেন। গবেষণার ফল ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশনের (ডব্লিউএইচও) পরামর্শদাতার সাথে শেয়ার করেছিলেন।  তিনি আশা করেছিলেন তার সুপারভাইজার ডব্লিউএইচও’র পক্ষে কাজ করবে। কিন্তু তাকে সেসময় মুখ বন্ধ রাখতে বলা হয়েছিল।

ডা. লি মেং বলেন, আমাকে বিভিন্ন হুমকি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু আমি যা জানা তা বিশ্ববাসীকে না জানাতে পেরে অনুশোচনায় ভুগছিলাম। 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

চীন

চীন: বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত চীনে ইমেল ব্যবহার করা হয় না কেন?

২০১৭ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে চীনে যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করে তাদের মধ্যে ২৫ শতাংশেরও কম কাজের ব্যাপারে যোগাযোগের মাধ্যম হিসাবে ইমেল ব্যবহার করে।
২০১৭ সালের একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে চীনে যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করে তাদের মধ্যে ২৫ শতাংশেরও কম কাজের ব্যাপারে যোগাযোগের মাধ্যম হিসাবে ইমেল ব্যবহার করে।

দক্ষিণ চীনের একটি ছোট শহর ইয়াংশুর একটি বেসরকারি ইংরেজি মাধ্যম স্কুলে আমি ২০০৮ সালের মে মাসে শিক্ষকতা করতে গিয়েছিলাম।

যখন আমি কোর্স শেষ করলাম, প্রাপ্তবয়স্ক শিক্ষার্থীরা আমাকে বললেন তারা আমার সাথে যোগাযোগ রাখতে চান। তারা বললেন চীনা একটা অ্যাপ আমার কম্প্যুটারে ডাউনলোড করে নিতে, যার নাম QQ (কিউকিউ)। অনেকটা ফেসবুক মেসেঞ্জারের মত এই অ্যাপ।

আমি তাদের বললাম ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খুলে নিতে (তখন চীনে ফেসবুক খোলা ছিল) আর আমাকে বন্ধু হিসাবে যোগ করে নিতে। আরও বললাম তোমাদের ইমেল করার ঠিকানাটাগুলোও দিও।

কয়েকজন দিলেন। কিন্তু সেসব ইমেল ঠিকানা মনে রাখা খুব কঠিন, কারণ সেগুলো ছিল এরকম: zwpzjg59826@126.com.

আমার মনে হয়েছিল ইমেল ঠিকানাগুলো খুবই অদ্ভুত। তবে ২০০৮ সালে এমনকি যুক্তরাজ্যেও লোকে উদ্ভট সব নাম দিয়ে ইমেল পরিচিতি বা ঠিকানা তৈরি করত।

কিন্তু এর বেশ কয়েক বছর পর আমি ফ্রিলান্স সাংবাদিক হিসাবে কাজ করতে বেইজিং গেলাম। তখনও দেখলাম চীনে প্রায় কেউই ইমেল ব্যবহারে আগ্রহী নন।

চীনে যোগাযোগের জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ও জনপ্রিয় হল উইচ্যাট অ্যাপ
চীনে যোগাযোগের জন্য সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত ও জনপ্রিয় হল উইচ্যাট অ্যাপ

প্রায়ই আমাকে খবর লেখার জন্য সংবাদ পাঠানো হতো আমার স্মার্টফোনের উইচ্যাট অ্যাপে। চীনে যোগাযোগের জন্য উইচ্যাট বিপুল জনপ্রিয় অ্যাপ।

আমার খবর লেখা হলে, সেটাও আমি পাঠাতাম উইচ্যাটে। আমাকে লেখার জন্য পেমেন্টও দেয়া হতো উইচ্যাটের মাধ্যমে।

এই মোবাইল অ্যাপ এতই কার্যকর এবং এত দ্রুত যে মনে হতো সব কিছু নিমেষে হয়ে যাচ্ছে।

অ্যাপই প্রধান

পশ্চিমের বহু দেশে বিশেষ করে কর্মস্থলে এবং যে কোন কাজের কারণে যোগাযোগের মাধ্যম হিসাবে সবার উপরে রাখা হয় ইমেলকে।

আমেরিকা এবং ব্রিটেনে অনলাইনে যেসব কাজকর্ম হয় তাতে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের মধ্যে যারা ইমেলে কাজকর্ম করেন তাদের সংখ্যা যথাক্রমে ৯০.৯% এবং ৮৬%।

অনলাইন মানুষ যেসব কারণে ব্যবহার করে, যেমন কোন তথ্য, পণ্য এবং সেবা সম্পর্কে খোঁজখবর করা, ইন্টারনেটে ব্যাংকের লেনদেন, কেনাকাটা, ডিজিটাল ভিডিও দেখা, অডিও শোনা এবং সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করা- এই দুটি দেশে অর্থাৎ আমেরিকা ও ব্রিটেনে ইন্টারনেট ব্যবহারের ক্ষেত্রে সেখানে সবার উপরে রয়েছে ইমেলে যোগাযোগ।

কিন্তু চীনে চিত্রটা পুরো আলাদা।

উইচ্যাট-এর মত অ্যাপগুলো দিয়ে অনেক কিছু করা সম্ভব। বাজারে কেনাকাটা করা সহ এই অ্যাপ ব্যবহার করে অনেক কিছু করা যায়।
উইচ্যাট-এর মত অ্যাপগুলো দিয়ে অনেক কিছু করা সম্ভব। বাজারে কেনাকাটা করা সহ এই অ্যাপ ব্যবহার করে অনেক কিছু করা যায়।

চীনের ভোক্তারা মোবাইল কী কাজে ব্যবহার করে, ডিলয়েট সংস্থা সে বিষয়ে একটি জরিপ চালিয়েছিল ২০১৮ সালে । তাতে দেখা গেছে চীনের মানুষ ইমেল খোলেন বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় ২২% কম।

চীনে উইচ্যাটই প্রধান। চীনে যারা স্মার্টফোন ব্যবহার করে তাদের ৭৯.১% নিয়মিত এই অ্যাপ ব্যবহার করে। আর চীনে বিভিন্ন মেসেজিং অ্যাপ ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৮৪.৫%ই ব্যবহার করে উইচ্যাট।

চীনারা ব্যক্তিগত কারণে, দৈনন্দিন কাজেই যে শুধু উইচ্যাট ব্যবহার করে তা নয়, অফিসের কাজকর্মেও তারা উইচ্যাট ব্যবহার করতে বেশি পছন্দ করে। উইচ্যাট অ্যাপটি তৈরি করেছে টেনসেন্ট নামে যে কোম্পানি তাদের গবেষণা বিভাগ পেঙ্গুইন ইন্টালিজেন্স বিশ হাজার ভোক্তার ওপর একটি জরিপ চালিয়ে দেখেছে প্রতিদিন কর্মস্থলে চীনের ৮৮% মানুষ উইচ্যাট ব্যবহার করছেন। ফোন, এসএমএস এবং টেক্সট তারা ব্যবহার করেন প্রায় ৬০% আর তৃতীয় স্থানে অর্থাৎ সবার নিচে আছে ইমেল – ২২.৬%।

ইভা হ্যসু একটি ডিজিটাল ব্র্যান্ডিং কোম্পানি চালান। তিনি তাইওয়ানিজ, তরুণ বয়সে কয়েক বছর কাটিয়েছেন আমেরিকায়, গত ছয় বছর কাজ করছেন সাংহাইতে।

তিনি বলছেন, বিদেশে তার যেসব ক্লায়েন্ট আছেন তাদের সাথে যোগাযোগের জন্য তিনি ইমেল বা লিংকডইন ব্যবহার করেন। কিন্তু চীনে যাদের সাথে ব্যবসা করেন, তাদের সাথে সব যোগাযোগ একদম আলাদা।

“চীনা ক্লায়েন্টরা উইচ্যাটই ব্যবহার করেন। যত ফাইলপত্র সবই উইচ্যাটে পাঠান।”

চীনে সাইবার ক্যাফের জনপ্রিয়তা বেড়েছে উইচ্যাট ব্যবহারের কারণে
চীনে সাইবার ক্যাফের জনপ্রিয়তা বেড়েছে উইচ্যাট ব্যবহারের কারণে

সাইবার ক্যাফে সংস্কৃতি

চীনে ১০০ কোটির বেশি ব্যবহারকারীর জন্য উইচ্যাট একটি সুপারঅ্যাপ এবং এই অ্যাপ এখন চীনা জীবনের সবক্ষেত্রে।

কিন্তু এই অ্যাপের প্রতি চীনের মানুষের নির্ভরতা এবং এর জনপ্রিয়তা তৈরি হয়েছে সম্ভবত বেশ কয়েক বছর আগে।

উনিশশো নিরানব্বই সালে, সেসময় চীনে গড়ে ওঠা নতুন প্রযুক্তি কোম্পানি টেনসেন্ট বাজারে একটি নতুন পণ্য ছেড়েছিল- নাম কিউকিউ। সেটি ছিল কম্প্যুটারে বার্তা আদানপ্রদানের একটি মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম।

বিশ্বব্যাংকের হিসাব অনুযায়ী, সেসময় চীনে প্রতি ১০০ জনের মধ্যে গড়ে মাত্র ১.২ জন মানুষের কম্প্যুটার ছিল। ওই সময় আমেরিকায় প্রতি দুজনের মধ্যে একজনের কম্প্যুটার ছিল।

কিন্তু ২০০০সাল থেকে চীনের সর্বত্র ব্যাঙের ছাতার মত গজিয়ে উঠল ইন্টারনেট ক্যাফে। এবং সেখানে তরুণদের ভিড় উপছে পড়তে শুরু করল।

চীনে যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাদের জন্য কিউকিউ-এর মত প্রোগ্রাম ইমেলের চেয়ে অনেক বেশি অর্থবহ হয়ে উঠল। দেশে ইন্টারনেটের ব্যবহার যত প্রসার লাভ করতে শুরু করল, এর জনপ্রিয়তাও ততই বাড়তে থাকল।
চীনে যারা ইন্টারনেট ব্যবহার করেন তাদের জন্য কিউকিউ-এর মত প্রোগ্রাম ইমেলের চেয়ে অনেক বেশি অর্থবহ হয়ে উঠল। দেশে ইন্টারনেটের ব্যবহার যত প্রসার লাভ করতে শুরু করল, এর জনপ্রিয়তাও ততই বাড়তে থাকল।

এসব ক্যাফে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল মূলত কিউকিউ-এর কারণে। কিউকিউ-এ কম্প্যুটারে গেম খেলা যেত, গানবাজনা শোনা যেত এবং চীনে সেই প্রথমদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছোট ছোট ব্লগ লেখা যেত এই প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে।

কিউকিউ ইমেলের চেয়ে বেশি ও সহজে দ্রুত যোগাযোগের সুযোগ করে দিয়েছিল মানুষকে। ইনস্টান্ট মেসেজিং বা অনলাইনে সরাসরি কথোপকথনের একটা পথ তখনই তৈরি করে দিয়েছিল কিউকিউ।

ভবিষ্যতের চীনকে নিয়ে ২০০৮ সালে ‘সুপারট্রেন্ডস অফ ফিউচার চায়না’ বইয়ের লেখক জেমস ইউয়ান ও জেসন ইঞ্চ বলেছিলেন, চীনে কারো কিউকিউ নেই এটা ভাবাই যায় না।

বড় বড় কোম্পানির ব্যবসায়ীরা তাদের বিজনেস কার্ডে কিউকিউ নম্বর ছাপাতেন। প্রত্যেক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব কিউকিউ অ্যাকাউন্ট নম্বর ছিল।

দু‌হাজার বারো সালের মধ্যে সক্রিয়ভাবে কিউকিউ ব্যবহারকারীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছিল ৭৯ কোটি ৮০ লাখ, যা ছিল সেই বছর চীনের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকের বেশি।

উইচ্যাটের উদ্ভাবক প্রযুক্তি কোম্পানি টেনসেন্ট-এর প্রতিষ্ঠাতা মা হুয়াতেং।
উইচ্যাটের উদ্ভাবক প্রযুক্তি কোম্পানি টেনসেন্ট-এর প্রতিষ্ঠাতা মা হুয়াতেং।

এই টেনসেন্ট কোম্পানিই ২০১১ সালে উদ্ভাবন করেছে উইচ্যাট অ্যাপ, যা চীনে এখন সবচেয়ে জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যম। একই সাথে চীনে কম্প্যুটার বিদায় নিচ্ছে, তার জায়গা নিচ্ছে স্মার্ট ফোন।

চীনে ২০০৪ সাল থেকে ডিজিটাল উদ্ভাবন বিষয়ে উপদেষ্টা হিসাবে কাজ করছেন ব্রিটেনের ম্যাথিউ ব্রেনান। তিনি বলছেন, বহু দেশে ইমেল ঠিকানা থাকাটা মানুষের পরিচিতির একটা অংশ, কারণ অনলাইনে বিভিন্ন ধরনের সেবা নিতে গেলে তার জন্য নথিভুক্ত হতে ইমেল ঠিকানা ব্যবহার করতে হয়।

কিন্তু চীনে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে সব কিছু করা সম্ভব। ‘উইচ্যাট’ এবং আলিবাবার তৈরি অ্যাপ ‘আলিপে’তে একবার লগ ইন করে বিভিন্ন ধরনের সেবা পাওয়া যায়, আলাদা আলাদা লগ ইন-এর প্রয়োজন হয় না-একটা অ্যাপের মাধ্যমেই অ্যাপয়েন্টমন্ট বুক করা থেকে শুরু করে, বাজার দোকান করা, অফিস বা ব্যবসা করা এবং বন্ধুদের সঙ্গে কথাবার্তা বলা সবই করা যায়- ইমেলের কোন প্রয়োজন হয় না।

দ্রুত আদান-প্রদানের সংস্কৃতি

চিউং কং গ্র্যাজুয়েট স্কুল ফর বিজনেসের অর্থনীতির অধ্যাপক ঝং লিং মনে করেন, চীনের কর্ম সংস্কৃতির সাথে উইচ্যাট খুবই সামঞ্জস্যপূর্ণ। তিনি বলছেন, এই চ্যাট অ্যাপে যে কোন সময়ে, যে কোন জায়গা থেকে যে কোন কাজ করা যায় – আপনাকে ব্যবসা বা অফিসের কাজের জন্য অফিসের সময়ের ওপর নির্ভর করতে হবে না। কোন কিছু চাইলে তার উত্তরের জন্য অপেক্ষা করতে হবে না, যা চাইছেন তা সাথে সাথে পাওয়া যাবে, যেটা চীনের সংস্কৃতি, মানসিকতা ও ব্যবসার পরিবেশের সাথে খুবই খাপ খায়।

চীনে কাজের সময় আর ব্যক্তিগত সময়ের মধ্যে সীমারেখাাটা দুর্বল
চীনে কাজের সময় আর ব্যক্তিগত সময়ের মধ্যে সীমারেখাাটা দুর্বল

মিস ঝং বলছেন, চীনে মানুষের কাজের সময় আর ব্যক্তিগত সময়ের মধ্যে সীমানাটা বেশ দুর্বল।

“ফলে চাকুরিদাতারা বা ম্যানেজাররা প্রায়ই কাজের সময়ের বাইরে প্রশ্ন জানতে চেয়ে কর্মচারীদের বার্তা পাঠান বা তাদের কাজ করতে বলেন। খুবই সামান্য একটা উত্তরের জন্যও তারা পরের দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করা পছন্দ করেন না।”

ইমেলে বার্তা আদান প্রদান করতে যে সময়টা দিতে হয়, তাতে হয়ত একটা বিষয় নিয়ে কয়েকবার মেইল চালাচালির প্রয়োজন হয়, কিন্তু উইচ্যাটে খুব দ্রুত ও সংক্ষিপ্ত কথোপকথনের মাধ্যমে কাজ করা যায়, বলছেন মিস ঝং।

ফলে এই দ্রুত ও সহজ মেসেজিং অ্যাপ মানুষের ওপর সবসময় কাজ করার বাড়তি একটা চাপও তৈরি করেছে।

ইনস্টান্ট মেসেজিংয়ে ইমেলের চেয়ে অনেক দ্রুত কথোপকথন সম্ভব
ইনস্টান্ট মেসেজিংয়ে ইমেলের চেয়ে অনেক দ্রুত কথোপকথন সম্ভব

দ্রুত উত্তরের যুগ

যোগাযোগের একটা প্ল্যাটফর্ম যখন তৈরি হয় তখন তা ব্যবহারেরও একটা ধারা তৈরি হয়ে যায়। যেমন ফেসবুক, হোয়াটসঅ্যাপ – উইচ্যাটের মত এসব যোগাযোগ মাধ্যমেও কেউ কিছু জানতে চাইলে মানুষ সাথে সাথে উত্তর পাবে বলে আশা করে।

মি. ব্রেনান বলছেন, ইমেল অনেকটা আনুষ্ঠানিক যোগাযোগের মাধ্যম – সেখানে মেইলের শুরুতে – প্রিয় বা সম্মানিত অমুক, ও শেষে- শ্রদ্ধান্তে বা শুভেচ্ছান্তে তমুক এবং এমনকী বয়ানেও অনেকটা পুরনো চিঠি লেখার স্টাইল অনুসরণ করা হয়। ফলে ইমেল লিখতে সময় লাগে।

তিনি বলছেন, চীনে তো বটেই, এমনকি এশিয়ার অনেক দেশে এখন ইমেল বাদ দিয়ে চ্যাট অ্যাপ কাজের ক্ষেত্রে যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম হয়ে উঠছে। কারণ চ্যাট অ্যাপে আনুষ্ঠানিক হবার প্রয়োজন নেই। দ্রুত প্রশ্ন পাঠানো এবং দ্রুত তার জবাব পাওয়াটাই সেখানে মুখ্য।

প্রফেট নামে একটি উপদেষ্টা সংস্থা যারা এশিয়ার বিভিন্ন দেশে কাজ করে, তার একজন শীর্ষ কর্মকর্তা অ্যালান কেসি বলছেন, চীনের মতই দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার অনেক দেশ এখন কম্প্যুটার যুগকে পেছনে ফেলে মোবাইল ভিত্তিক অ্যাপের যুগে দ্রুত উত্তরণ ঘটাচ্ছে।

এবং দ্রুত জনপ্রিয় হচ্ছে ফেসবুক, উইচ্যাট, লাইন, কাকাও টক এবং জেলোর মত বিভিন্ন সামাজিক প্ল্যাটফর্ম।

ব্যবসা বান্ধব অ্যাপ

চীনে উইচ্যাট ছাড়াও বড় বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং যারা আরও ব্যাপক পর্যায়ে কর্মীদের কাছ থেকে কাজ পেতে চান তাদের জন্য তৈরি হয়েছে ব্যবসা বান্ধব অ্যাপ।

চীনে অনেক মানুষের ইমেল ঠিকানা আছে, কিন্তু তারা খুবই কালে ভদ্রে তাদের ইমেল অ্যাকাউন্ট খোলেন
চীনে অনেক মানুষের ইমেল ঠিকানা আছে, কিন্তু তারা খুবই কালে ভদ্রে তাদের ইমেল অ্যাকাউন্ট খোলেন

আলিবাবা তৈরি করেছে ‘ডিংটক’ বাইটডান্স তৈরি করেছে ‘লার্ক’, উইচ্যাটও বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য তৈরি করেছে ‘উইচ্যাট ওয়ার্ক’। এসব অ্যাপের মাধ্যমে উঁচু পর্যায়ের নিরাপত্তা বজায় রেখে বড় বড় নথি শেয়ার করা যায়, অনলাইনে নথি রদবদল করা যায়, মানুষের বেতন সংক্রান্ত কাজকর্ম করা যায়।

ডিংটক অ্যাপে সরাসরি দেখা যায় আপনার পাঠানো মেসেজ যিনি পেয়েছেন তিনি পড়েছেন কিনা, না পড়লে তাকে পড়ার জন্য আবার মেসেজ করা যায়।

পশ্চিমের অবস্থা

তিরিশ বছর বয়সী হেইলান জিয়া একটি চীনা ক্রিপটোকারেন্সি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জনসংযোগ ম্যানেজার।

তার স্বামীর সঙ্গে থাকার জন্য ২০১৮ সালে তিনি বেজিং থেকে ইংল্যান্ডে চলে এসেছেন।

তিনি বলছেন, ব্রিটেনে অনলাইন সেবা খুবই ছড়ানো। একেকটা কাজের জন্য আপনাকে অনলাইনে একেকটা সেবা প্রতিষ্ঠানে লগ ইন করতে হবে। কিন্তু চীনে উইচ্যাটে গেলে সব কিছু একসাথে এক জায়গায় আছে।

“আপনার উইচ্যাট অ্যাকাউন্ট থাকলে আপনি সব রকম কাজ এক অ্যাপ থেকেই করতে পারবেন।”

“ইংল্যান্ডে আমাকে অনবরত ইমেল চেক করতে হয়, চীনে আমি কখনও ইমেল খুলতাম না, কেউ সেখানে ইমেল দেখে না। ইমেলে জবাব দেবার জন্য কোন প্রত্যাশাও সেখানে নেই,” বলেন হেইলান জিয়া।

তবে চীনে কেউ ইমেল একেবারেই ব্যবহার করে না সেটা ঠিক নয়।

অনেকেরই ইমেল অ্যাকাউন্ট আছে, কিন্তু তারা ইমেল খুলে তা দেখেন খুবই অনিয়মিতভাবে।

মি. ব্রেনান বলছেন, বেজিং এবং সাংহাইতে যারা কাজ করেন তারা যেহেতু আন্তর্জাতিক সংস্কৃতির সাথে বেশি পরিচিতি তারা তুলনামূলকভাবে বেশি ইমেল খোলেন।

চীনে কি ইমেল এখন অতীতের ফেলে আসা প্রযুক্তি?
চীনে কি ইমেল এখন অতীতের ফেলে আসা প্রযুক্তি?

আমার পুরনো শিক্ষার্থীরা

গোড়াতেই যে বলছিলাম আমি যখন চীনে ইংরেজি শিক্ষকতা শেষ করেছিলাম আমার পুরনো শিক্ষার্থীদের বলেছিলাম যোগাযোগ রাখার জন্য তাদের ইমেল দিতে।

এদের একজন ছিলেন ইয়াংশু লিলি ওয়াং।

আমরা কিছুকাল ইমেলে যোগাযোগ রেখেছিলাম। তারপর আমাদের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

এখন তার বয়স ৩০। দক্ষিণ চীনে গুয়াংডং-এ তিনি থাকেন। বছর দুয়েক আগে তাকে আমি উইচ্যাটে খুঁজে পাই। এখন উইচ্যাটে আমাদের কথা হয়।

আমি তাকে জিজ্ঞেস করেছিলাম পুরনো সেই ইমেল অ্যাড্রেসটা কি তার এখনও আছে?

সে জানতে চাইল কোনটা? হেসে বলল, “আমার তো অনেকগুলো ঠিকানা ছিল ১৬৩, ১২৬, এমএসএন।”

সে বলল, শেষ কবে যে সে ইমেল ব্যবহার করেছে তার মনে পড়ে না।

“এখন আমি উইচ্যাট ব্যবহার করি। কিউকিউ খুব একটা ব্যবহার করি না, মাঝে মাঝে করি,” সে বলল।

চীনে লিলি ওয়াংয়ের মত বেশির ভাগ মানুষের জীবনের একটা অবিচ্ছেদ্য অংশ এখন উইচ্যাট। ইমেল তাদের জন্য অতীতের কোন একটা প্রযুক্তি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com