আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

ইসলাম

কুরবানির গোশতে বিয়ের মেহমানদারী করা যাবে কি?

কুরবানির গোশতে বিয়ের মেহমানদারী করা যাবে কি?
কুরবানির গোশতে বিয়ের মেহমানদারী করা যাবে কি?

কুরবানি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ইবাদত। তা শুধু মহান আল্লাহ তাআলার সন্তুষ্টি লাভের নিয়তেই আদায় করতে হয়। এর ব্যতিক্রম হলেই কুরবানি হবে না। কিন্তু সমাজে অহরহ বলতে কিংবা ঘটতে দেয়া যায় যে, কুরবানি পরবর্তী ২/৩ দিনের মধ্যে বিয়েসহ অনেক বড় বড় অনুষ্ঠান উদযাপতি হয়। তাতে কুরবানির গোশতও খাবার হিসেবে পরিবেশন করা হয়। আবার অনেককে বলতে শোনা যায়, এবার গরু বড় দেখে কিনতে হবে। কুরবানির পর অনুষ্ঠান আছে।

জানার বিষয় হলো-
কুরবানির গোশ্ত দিয়ে বিয়েসহ মুসলমানদের যে কোনো বড় অনুষ্ঠানের দাওয়াত খাওয়ানো কি জায়েয হবে এবং এ উদ্দেশ্যে কুরবানি দিলে কি তা বৈধ হবে?

কুরবানি শুধু মহান আল্লাহর জন্য। তবে কুরবানির পর এ গোশত দিয়ে যে কোনো হালাল অনুষ্ঠানে আগত দাওয়াতি মেহমানকে খাওয়ানো যাবে। তাতে কুরবানির কোনো ক্ষতি হবে না। তবে শর্ত হলো- অনুষ্ঠান আয়োজনের উদ্দেশ্যে কুরবানি করা যাবে না।

কারণ কুরবানি দিতে মহান আল্লাহর জন্য। কুরবানির উদ্দেশ্য ছাড়া বিয়ে কিংবা অন্য কোনো অনুষ্ঠান আয়োজনের উদ্দেশ্যে কুরবানি দিলে তা বৈধ হবে না। আল্লাহ তাআলা বলেন-

‘এগুলোর (কুরবানির পশুর) গোশত ও রক্ত আল্লাহর কাছে পৌঁছে না, কিন্তু পৌঁছে তাঁর কাছে তোমাদের মনের তাকওয়া। এমনিভাবে তিনি এগুলোকে তোমাদের বশ করে দিয়েছেন, যাতে তোমরা আল্লাহর মহত্ত্ব ঘোষণা কর এ কারণে যে, তিনি তোমাদের পথ প্রদর্শন করেছেন। সুতরাং সৎকর্মশীলদের সুসংবাদ শুনিয়ে দিন।’ (সুরা হজ : আয়াত ৩৭)

আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের জন্য কুরবানি করা পশুর গোশত যেমন নিজে খেতে পারবে। তেমনি অন্যকে দাওয়াত করেও খাওয়ানো যাবে। বিয়ে কিংবা যে কোনো বৈধ অনুষ্ঠানে এ গোশত দ্বারা খাবার পরিবেশন করাতেও কোনো বাঁধা নেই। তবে অনুষ্ঠানের নিয়তে কুরবানি করলে তা বৈধ হবে না।

কেননা কুরবানি শুধুই আল্লাহর জন্য। হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালাম মিনায় এসে আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের আবেগ ও ভালোবাসায় নিজ প্রাণপ্রিয় সন্তান হজরত ইসলামইল আলাইহিস সালামকে কুরবানির কার্যক্রম করেছিলেন। এ কুরবানির নিয়ত ও চুক্তি হলো এমন-
’নিশ্চয়ই আমার নামাজ, আমার কুরবানি, আমার জীবন, আমার মৃত্যু মহান আল্লাহর জন্য। যিনি সমগ্র সৃষ্টি জগতের প্রতিপালক। তাঁর কোনো শরিক নেই।’ (সুরা আনআম : আয়াত ১৬২)

মনে রাখতে হবে
কুরবানির গোশত দিয়ে মুমিন মুসলমান বিয়েসহ যে কোনো বৈধ অনুষ্ঠানই উদযাপন করতে পারবেন। কিন্তু এ উদ্দেশ্যে কুরবানি দেয়া যাবে না। কুরবানির উদ্দেশ্য থাকবে শুধু মহান আল্লাহর সন্তুষ্টি।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে কুরবানি দেয়ার ক্ষেত্রে তার সন্তুষ্টির নিয়তে তা সম্পন্ন করার তাওফিক দান করুন। কুরবানির যথাযথ হক আদায় করার তাওফিক দান করুন। গরিব-অসহায়দের মাঝে কুরবানির গোশত দান করার তাওফিক দান করুন। আল্লাহর সন্তুষ্টি ও নৈকট্য লাভ করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

ইসলাম

কোরবানির ঈদ কি ঈদ-উল আজহা না ঈদ-উল আদহা?

কোরবানির ঈদ কি ঈদ-উল আজহা না ঈদ-উল আদহা?
কোরবানির ঈদ কি ঈদ-উল আজহা না ঈদ-উল আদহা?

কোরবানির ঈদকে বাংলা ভাষায় সবসময় ঈদ-উল আজহা বলা হয়ে আসলেও সম্প্রতি মানুষের মধ্যে আজহা’র স্থলে আদহা ব্যবহারের প্রবণতা বেড়েছে।

বাংলাদেশের পাঠ্যপুস্তকে, গল্প-উপন্যাসে, সরকারিভাবে কোরবানির ঈদ নির্দেশ করতে ঈদ-উল আজহাই ব্যবহার হয়ে থাকে। কিন্তু বেশ কয়েকবছর ধরে আজহা’র বদলে আদহা’র ব্যবহার জনপ্রিয়তা পেয়েছে অনানুষ্ঠানিকভাবে।

বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় আজহা’র চেয়ে আদহা’র ব্যবহার করতেই বেশি দেখা যাচ্ছে মানুষকে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ আবদুল কাদির বলেন আরবি থেকে বাংলায় পরিবর্তন করার সময় উচ্চারণের পার্থক্যের কারণে এই শব্দটি নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে।

তিনি বলেন, “আরবিতে শব্দটি দোয়াদ বর্ণ ব্যবহার করে যেভাবে লেখা হয়, সেই হিসেবে উচ্চারণটা আদহা হওয়ার কথা – অর্থাৎ ‘জ’ না হয়ে অনেকটা ‘দ’ এর মত উচ্চারণ হওয়া উচিত। কিন্তু বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে আবহমান কাল থেকে আজহা শব্দটির ব্যবহারই হয়ে এসেছে।”

এর পেছনের কারণ হিসেবে আবদুল কাদির বলেন, বাংলাদেশে আরবি ভাষার কোনো শব্দ উচ্চারণের সময় দোয়াদ বর্ণটির ক্ষেত্রে ‘দ’ ব্যবহার না করে ‘জ’ বা ‘য’ ব্যবহার করার প্রচলন ছিল।

“ভাষাগত হিসেবে আরবি দোয়াদ বর্ণটির উচ্চারণের ক্ষেত্রে ‘জ’ না হয়ে ‘দ’ ব্যবহার করাই উচিত। তবে বাংলাদেশে যেহেতু বর্ণটির উচ্চারণের ক্ষেত্রে ‘জ’ এর ব্যবহার আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃত, তাই সেভাবেই এটি সবসময় লেখা এবং উচ্চারণ করা হয়েছে।”

এছাড়া আরবি থেকে বাংলায় প্রতি বর্ণায়নের ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষের সমন্বয়হীনতাও এই শব্দ নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হওয়ার একটি কারণ বলে মনে করেন তিনি।

“আরবির প্রতি বর্ণায়ন এখন পর্যন্ত কেউ নির্দিষ্ট করে নাই। বাংলা একাডেমি করেছে একভাবে, আবার ইসলামিক ফাউন্ডেশন করেছে আরেকভাবে। আবার ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পুরনো প্রতি বর্ণায়নের সাথে নতুনটির কোনো মিল নেই।”

আবদুল কাদির বলেন, “ভাষার পণ্ডিতরাই যেহেতু এই বিষয়গুলো নিয়ে একমত হতে পারেননি, তখন কোনো একটিকে ভুল বলা উচিত হবে না।”

আদহা বা আজহা শব্দটি নিয়ে এই বিভ্রান্তির মত একই ধরণের বিভ্রান্তি রয়েছে রোজার মাসের নাম নিয়ে। রোজার মাসের নাম আসলে রমজান নাকি রামাদান, সেটি নিয়ে কয়েকবছর আগে ভারতের সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ বিতর্কই তৈরি হয়েছিল।

ভাষাবিদরা মনে করেন আরবি ভাষায় উচ্চারণ অনুযায়ী শব্দটি রামাদান উচ্চারণ করা উচিত, তবে উপমহাদেশে ইসলামের প্রসার শুরুতে ফার্সি ভাবধারায় প্রভাবিত ছিল বলে ঐ শব্দটির উচ্চারণে পরিবর্তন হয়েছে। ফার্সিতে শব্দটির উচ্চারণ রমজান। তেমনি উর্দু ভাষাতেও মূল শব্দটি আসলে রমজান।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

করোনা ভাইরাস: মহামারির কালে এবারের হজ একেবারে ভিন্ন এক অভিজ্ঞতা

সামাজিক দূরত্ব মেনে এবারের হজ। একেবারের অন্যরকম চিত্র।
সামাজিক দূরত্ব মেনে এবারের হজ। একেবারের অন্যরকম চিত্র।

ফরিদাহ বকতি ইয়াহরা এবছর যেভাবে হজ করার সুযোগ পেয়েছেন, তাকে লটারি জেতার সঙ্গেই তুলনা করা যেতে পারে। এই হজে যাওয়া ছিল তার সারাজীবনের স্বপ্ন।

স্মরণকালের ইতিহাসে এবারের মতো এত কম মানুষ আর হজ করেনি। আর সেবছরই হজে যাওয়ার সুযোগ এক বিরল সৌভাগ্যই বলতে হবে। ফরিদাহ তার এই হজের অভিজ্ঞতা তার স্মার্টফোন দিয়ে প্রতি মুহূর্তে শেয়ার করছেন তার পরিবারের সঙ্গে।

৩৯ বছর বয়সী ফরিদাহ তার স্বামী এবং তিন মেয়েকে মক্কার ফাইভ-জি নেটওয়ার্কের বদৌলতে হজের প্রতিটি পদক্ষেপ, প্রতিটি আনুষ্ঠানিকতা লাইভ দেখিয়ে যাচ্ছেন।

“আমার স্বামী যে আমার সঙ্গে অনলাইনে আমার সঙ্গে যোগ দিতে পারছে, সেই সঙ্গে আমার মেয়েরাও, সেজন্যে আমি খুব খুশি।”

হজের প্রথম দিনে বেশিরভাগ মানুষই তাদের স্মার্টফোন উপরে ধরে সেলফি তুলছিলেন, পরিবার আর বন্ধুদের জন্য হজের আনুষ্ঠানিকতা লাইভ স্ট্রিম করছিলেন।

মাত্র গত বছরই মক্কায় সুপার-হাইস্পিড ফাইভ-জি নেটওয়ার্ক চালু করা হয়। ফলে স্মার্টফোন থেকে এগুলো এখন করা যাচ্ছে খুবই সহজে।

চীনা হজযাত্রী নি হাওয়ু ইন্দোনেশিয়ার ফরিদাহর মতই আরেক সৌভাগ্যবান। যখন তাকে হজ করার জন্য বাছাই করা হলো, আনন্দে তার চোখে পানি চলে আসলো।

৪২ বছর বয়সী নি মাস্টার্স করছেন ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব মদিনায়। সৌদি কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে মোবাইল ফোনে টেক্সট মেসেজে যখন খবরটি এলো, সেই মুহূর্তের অনুভূতি ভুলতে পারেন না তিনি।

“হজ করার জন্য যখন আমাকে বাছাই করা হলো, তারপর থেকে আমি খুশিতে আত্মহারা। আমি কান্না থামাতে পারছিলাম না, কারণ আল্লাহ আমার হজ করার বাসনা পূর্ণ করেছেন। একেবারে বিনা খরচে আমি এই হজ করছি।”

এর আগে হজের সময় কাবা পরিণত হতো এক জনসমুদ্রে
এর আগে হজের সময় কাবা পরিণত হতো এক জনসমুদ্রে

গত বছর হজে অংশ নিয়েছিল ২৫ লাখের বেশি মুসলিম। কিন্তু এবার করোনাভাইরাস মহামারির কারণে আর সব কিছুর মতো বিশ্বের মুসলিমদের সবচেয়ে বড় এই সমাবেশের ক্ষেত্রেও সৌদি কর্তৃপক্ষকে জারি করতে হয়েছে কঠোর বিধিনিষেধ।

এবছর হজে অংশ নেয়া মানুষের সংখ্যা সীমিত করে দেয়া হয়েছে কয়েক হাজারে। শুরুতে সৌদি কর্তৃপক্ষ বলেছিল, মাত্র এক হাজার মানুষকে হজ করতে দেয়া হবে। এখন অবশ্য সৌদি গণমাধ্যমের খবরে বলা হচ্ছে, দশ হাজার মানুষ হজ করার সুযোগ পাচ্ছেন।

আনন্দ অশ্রু

হজের প্রথম দিনে ফরিদাহ যখন সোনালি কারুকাজ করা কালো কাপড়ে আবৃত মক্কার কাবা শরিফের দিকে এগুচ্ছেন, তখন তার ফোন থেকে একটি ভিডিও কল করলেন। ফোনের অপর প্রান্তে তার স্বামী হেন্ড্রা সামোসির ।

“আমার স্ত্রী যখন কাবা শরিফে ঢুকলেন এবং আমাকে কাবা দেখালেন, খুশিতে, আনন্দে আমার চোখে পানি এসে গেল”, বললেন তিনি।

“আমার জন্য এটাই আসলে একরকম পবিত্র তীর্থযাত্রা, যদিও আমি সেখানে যাইনি। কিন্তু যখন আমি আমার স্ত্রীকে হজ করতে দেখছিলাম, আমার মনে হচ্ছিল আমিও সেখানে আছি।”

ইন্দোনেশিয়া থেকে প্রতিবছর সাধারণত হাজার হাজার মানুষ হজ করতে যান। অনেকে সারাজীবন ধরে সঞ্চয় করেন জীবনে একবার হজে যাওয়ার জন্য।

কিন্তু এবছর দশ-বারোজন মানুষও ইন্দোনেশিয়া থেকে হজে আসতে পারেননি।

সৌদি কর্তৃপক্ষ করোনাভাইরাসের কারণে এবার যে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে, তার কারণে মাত্র দশ হাজার মানুষকে হজে আসার সুযোগ দেয়া হয়। একটি লটারির মাধ্যমে এদের বাছাই করা হয়। এই লটারির নিয়মকানুন কি ছিল, তা খুব স্পষ্ট নয়।

হজে আসার জন্য আগ্রহী সারা বিশ্বের লাখ লাখ মানুষকে এবার তাই আশাহত হয়ে হয়েছে।

যারা এবার হজ করছেন, তাদের ৭০ শতাংশই বিদেশি, বাকি ৩০ শতাংশ সৌদি আরবের বাসিন্দা।

সৌদি আরব থেকে তাদেরকেই হজে যেতে দেয়া হয়েছে, যারা চিকিৎসক বা নিরাপত্তা কর্মী এবং যারা করোনাভাইরাস থেকে সেরে উঠেছেন।

হজযাত্রীদের নানা আনুষ্ঠানিকতার জন্য বহু দীর্ঘপথ পাড়ি দিতে হয়
হজযাত্রীদের নানা আনুষ্ঠানিকতার জন্য বহু দীর্ঘপথ পাড়ি দিতে হয়

ভিন্ন এক অভিজ্ঞতা

হজের আনুষ্ঠানিকতায় অংশ নেয়ার সময় মুসলিমদের মাইলের পর মাইল হাঁটতে হয়, দিনে কয়েক ঘন্টা করে প্রার্থনা করতে হয়। বাইরে খোলা জায়গায় রাত্রি যাপন করতে হয়।

প্রতি বছর যখন লাখ লাখ মুসলিম এসব আনুষ্ঠানিকতায় অংশ নেন, তখন মক্কা এবং মদিনাকে ঘিরে চারপাশের এলাকা পরিণত হয় জনসমুদ্রে। মানুষের ভিড়ে পদদলিত হয়ে বহু মানুষ মারা গেছেন এর আগে হজ করার সময়। কিন্তু এবারের হজযাত্রীরা একেবারেই এক ভিন্ন অভিজ্ঞতার কথা বলছেন।

সৌদি নার্স ওয়াজদান আলি বলেন, “এবার মানুষের ভিড় নেই, তাই আমি আমার সব আনুষ্ঠানিকতা সহজে পালন করতে পারছি। এবারের পরিবেশটা তাই খুব শান্ত-সমাহিত, অনেক বেশি আধ্যাত্মিক পরিবেশ।”

২৫ বছর বয়সী ওয়াজদান আলি থাকেন লোহিত সাগর তীরের শহর জেদ্দায়। সম্প্রতি করোনাভাইরাস থেকে সেরে উঠেছেন। সেজন্যেই তাকে বাছাই করে এবার হজ করার সুযোগ দেয়া হয়েছে।

এবার প্রত্যেক হজযাত্রীর হাতে পরিয়ে দেয়া হয়েছে একটি রিস্টব্যান্ড, যাতে সৌদি কর্তৃপক্ষ সারাক্ষণ জানতে পারেন তার অবস্থান। কোয়ারেনটিনে থাকে মানুষদের ওপর নজরদারির জন্য এই ব্যবস্থা। ওয়াজদান আলি বলছেন, এটা একটা সতর্কতামূলক ব্যবস্থা।

প্রতিটি হজযাত্রীকে সৌদি কর্তৃপক্ষ করোনাভাইরাসের জন্য পরীক্ষা করেছে। তাদের মুখোশ পরা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে এবং পরস্পর থেকে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে বলা হয়েছে। যে পাঁচদিন ধরে হজের আনুষ্ঠানিকতা চলবে, সে কদিন তাদের শরীরের তাপমাত্রা মাপা হবে নিয়মিত।

মিনায় শয়তানের দিকে ঢিল ছুঁড়ে মারছেন হজযাত্রীরা
মিনায় শয়তানের দিকে ঢিল ছুঁড়ে মারছেন হজযাত্রীরা

এবছর হজে অংশগ্রহণকারীরা জানান, সৌদি কর্তৃপক্ষ তাদের যে ইহরাম দিয়েছেন (হজে অংশ নেয়ার সময় সেলাই ছাড়া যে সাদা কাপড় পরতে হয়), সেটি ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধী কাপড় দিয়ে তৈরি।

সৌদি স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানাচ্ছে, এখন পর্যন্ত হজের আনুষ্ঠানিকতা ভালোভাবেই আগাচ্ছে। হজযাত্রীদের স্বাস্থ্য নিয়ে এখনো পর্যন্ত কোন উদ্বেগজনক খবর পাওয়া যায়নি, করোনাভাইরাস সংক্রমণের একটি ঘটনাও ধরা পড়েনি।

হজযাত্রীরা আজ আনুষ্ঠানিকতার অংশ হিসেবে “শয়তানের দিকে পাথর ছোঁড়ার‌’ যে রীতিটিতে অংশগ্রহণ করেন, সেই পাথরগুলোও ছিল স্যানিটাইজড।

তীব্র রোদের মধ্যে তারা যখন মিনা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন, তখন তাদের ওপর সতর্ক নজর রাখছিল নিরাপত্তা রক্ষীরা। হজযাত্রীদের মুখে মাস্ক, পরণে হজের সাদা কাপড়।

ডিজিটাল হজ

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে হজের নানা আনুষ্ঠানিকতায় ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার অনেক বেড়েছে। কোরান এখন পাওয়া যাচ্ছে ডিজিটাল ফর্মাটে, বেরিয়েছে হজের নানা আনুষ্ঠানিকতা সহজে পালনের জন্য নানা ধরণের অ্যাপ।

কাবা মুসলিমদের কাছে সবচেয়ে পবিত্র তীর্থস্থান
কাবা মুসলিমদের কাছে সবচেয়ে পবিত্র তীর্থস্থান

হজে আসা অনেক মানুষ এখন তাদের স্মার্টফোন থেকেই কোরান পড়েন। ফলে আগের যুগের মতো ছাপানো কোরান শরিফ সাথে বহন করতে হয় না।

তবে শুধু কোরান পড়া কিংবা হজের ভিডিও এবং ছবি শেয়ার করার মধ্যেই ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার থেমে নেই। অনেকে যাতে তাদের ঘরে বসেই হজের আনুষ্ঠানিকতায় অংশ নিতে পারেন, এটি সেই সুযোগও করে দিয়েছে।

এখন অনেক অনলাইন প্ল্যাটফর্ম আছে, যেখানে গিয়ে সারাবছরই ওমরাহ হজ করা যায়। একজনের পক্ষ হয়ে আরেকজনের ওমরাহ হজ করার যে ধারণা, তার ওপর ভিত্তি করেই গড়ে উঠেছে এধরণের সেবা। যার জন্য ওমরাহ হজ করা হচ্ছে, তিনি অনলাইনে গিয়ে হজের অভিজ্ঞতা প্রত্যক্ষ করেন যিনি সৌদি আরবে হজে শারীরিকভাবে অংশ নিচ্ছেন তার সঙ্গে। অনেকধরণের ভার্চুয়াল রিয়ালিটি টুল আছে এসব অনলাইন প্লাটফর্মে।

অনেক ধর্মীয় নেতা এরকম হজের ধারণাকে সমর্থন করেন। কিন্তু অনেকে এর বিরোধী। তারা বলছেন, কেবল খুবই অসুস্থ ব্যক্তিদের ক্ষেত্রেই অপর একজনের মাধ্যমে এভাবে হজ করার বিধান আছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

ছবিতে দেখুন এবার করোনার মাঝে যেভাবে হজ পালন হচ্ছে

আজ পবিত্র হজ। ১৪৪১ হিজরির ৯ জিলহজ মুসলিম উম্মাহকে হজ পালনে ঐতিহাসিক এ ময়দানে উপস্থিত হতে হয়। তবে এবারে হজ করোনার কারণে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

কুরআনে কুরবানির ঐতিহাসিক ঘটনা

 কুরআনে কুরবানির ঐতিহাসিক ঘটনা
কুরআনে কুরবানির ঐতিহাসিক ঘটনা

হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের দোয়ার ফসল হজরত ইসমাইল আলাইহিস সালাম। তিনি আল্লাহর কাছে নেক সন্তানের দোয়া করেছিলেন। আল্লাহ তাআলা তাঁর এ দোয়া কবুল করে সহনশীল এক ছেলে সন্তান দান করেছিলেন। যিনি হলেন হজরত ইসমাইল আলাইহিস সালাম।

কুরআনুল কারিমে হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের দোয়া কবুল হওয়া এবং এ সন্তানকে কুরবানি দেয়ার নির্দেশ ও ঘটনা সুস্পষ্টভাবে উঠে এসেছে। কুরআনের ছেলে সন্তান লাভ ও কুরবানির ধারাবাহিক বর্ণনা এভাবে উঠে এসেছে-

– হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের প্রার্থনা

رَبِّ هَبْ لِي مِنَ الصَّالِحِينَ

’হে আমার প্রভু! আমাকে এক সৎ ছেলে সন্তান দান করুন।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০০)

– সহনশীল পুত্রের সুসংবাদ

فَبَشَّرْنَاهُ بِغُلَامٍ حَلِيمٍ

’সুতরাং আমি তাকে এক সহনশীল পুত্রের সুসংবাদ দান করলাম।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০১)

আল্লাহ তাআলা কুরআনুল কারিমে হজরত ইসমাইল আলাইহিস সালামকে সহনশীল হিসেবে উল্লেখ করেন। সত্যিই হজরত ইসমাইল ছিলেন সহনশীল। কেননা তিনি তার কথা ও কাজে আল্লাহর দেয়া বিশেষণে নিজেকে রাঙিয়ে ছিলেন। সে ঘটনাও উঠে এসেছে কুরআনে।

– কুরবানির নির্দেশ ও বাস্তবায়নের ঘটনার বর্ণনা

فَلَمَّا بَلَغَ مَعَهُ السَّعْيَ قَالَ يَا بُنَيَّ إِنِّي أَرَى فِي الْمَنَامِ أَنِّي أَذْبَحُكَ فَانظُرْ مَاذَا تَرَى قَالَ يَا أَبَتِ افْعَلْ مَا تُؤْمَرُ سَتَجِدُنِي إِن شَاء اللَّهُ مِنَ الصَّابِرِينَ

অতপর যখন সে পিতার সঙ্গে চলাফেরা করার বয়সে উপনীত হল, তখন ইবরাহিম তাকে বলল, হে বৎস! আমি স্বপ্নে দেখেছি যে, তোমাকে জবেহ করছি। এখন তোমার অভিমত কি? সে (ইসমাইল) বলল, হে পিতা! আপনাকে যা আদেশ করা হয়েছে, তাই করুন। আল্লাহর ইচ্ছায় আপনি আমাকে সবরকারী (সহনশীল) পাবেন।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০২)

فَلَمَّا أَسْلَمَا وَتَلَّهُ لِلْجَبِينِ

’যখন পিতা-পুত্র উভয়েই আনুগত্য প্রকাশ করল এবং ইবরাহিম তাকে জবেহ করার জন্যে শায়িত করল।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০৩)

وَنَادَيْنَاهُ أَنْ يَا إِبْرَاهِيمُ

’তখন আমি তাকে ডেকে বললাম, হে ইবরাহিম!’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০৪)

হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালাম স্বপ্নে কুরবানির নির্দেশ পেয়ে যখন বাস্তবায়ন করলেন তখন আল্লাহ তাআলা তাঁকে উদ্দেশ্য করে বললেন-

قَدْ صَدَّقْتَ الرُّؤْيَا إِنَّا كَذَلِكَ نَجْزِي الْمُحْسِنِينَ

’তুমি তো স্বপ্নকে সত্যে পরিণত করে দেখালে! আমি এভাবেই সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০৫)

আল্লাহ তাআলা কর্তৃক কুরবানির এ নির্দেশ ছিল হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের জন্য তাঁর নৈকট্য অর্জনের এক মহাপরীক্ষা। আল্লাহ তাআলা বলেন-

إِنَّ هَذَا لَهُوَ الْبَلَاء الْمُبِينُ

’নিশ্চয় এটা এক সুস্পষ্ট পরীক্ষা।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০৬)

কুরবানির পশু মহান আল্লাহর অপূর্ব দান। হজরত ইসমাইল আলাইহিস সালামের পরিবর্তে তিনি জবেহের জন্য তাৎক্ষনিক এক জন্তু পাঠিয়ে তা জবেহ করার ব্যবস্থা করেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-

وَفَدَيْنَاهُ بِذِبْحٍ عَظِيمٍ

’আমি তার (ইসমাইল আলাইহিস সালামের) পরিবর্তে দিলাম জবেহ করার জন্যে এক মহান জন্তু।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০৭)

হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের প্রতি শান্তি

কুরবানির ঘটনায় উত্তীর্ণ হওয়ায় হজরত ইবরাহিম আলাইহিস সালামের প্রতি শান্তির ঘোষণা দেন। আল্লাহ তাআলা বলেন-

وَتَرَكْنَا عَلَيْهِ فِي الْآخِرِينَ – سَلَامٌ عَلَى إِبْرَاهِيمَ – كَذَلِكَ نَجْزِي الْمُحْسِنِينَ

‘আমি তার জন্যে এ বিষয়টি পরবর্তীদের মধ্যে রেখে দিয়েছি যে, ইবরাহিমের প্রতি সালাম বর্ষিত হোক। এমনিভাবে আমি সৎকর্মীদেরকে প্রতিদান দিয়ে থাকি।’ (সুরা সাফফাত : আয়াত ১০৮-১১০)

সুতরাং মুমিন মুসলমানের কুরবানি হবে শুধু আল্লাহর জন্য। এটি তাকওয়া সমৃদ্ধ অনন্য ইবাদত। পরিশুদ্ধ নিয়ত ছাড়া মানুষের এ কুরবানি গ্রহণযোগ্য হবে না। কেননা কুরবানির পশু রক্ত, গোশত কোনো কিছুই মহান আল্লাহর কাছে পৌঁছে না। মহান আল্লাহ বলেন-

لَن يَنَالَ اللَّهَ لُحُومُهَا وَلَا دِمَاؤُهَا وَلَكِن يَنَالُهُ التَّقْوَى مِنكُمْ كَذَلِكَ سَخَّرَهَا لَكُمْ لِتُكَبِّرُوا اللَّهَ عَلَى مَا هَدَاكُمْ وَبَشِّرِ الْمُحْسِنِينَ

এগুলোর গোশত ও রক্ত আল্লাহর কাছে পৌঁছে না, কিন্তু পৌঁছে তাঁর কাছে তোমাদের মনের তাকওয়া। এমনিভাবে তিনি এগুলোকে তোমাদের বশ করে দিয়েছেন, যাতে তোমরা আল্লাহর মহত্ত্ব ঘোষণা কর এ কারণে যে, তিনি তোমাদের পথ প্রদর্শন করেছেন। সুতরাং সৎকর্মশীলদের সুসংবাদ শুনিয়ে দিন।’ (সুরা হজ : আয়াত ৩৭)

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে তাকওয়া প্রদর্শনে কুরবানি করার তাওফিক দান করুন। কুরবানির মাধ্যমে প্রত্যেককে সহনশীল হওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

রীতি ভেঙে এবার কাবার গিলাফ বদলানো হবে হজের আগের রাতে

রীতি ভেঙে এবার কাবার গিলাফ বদলানো হবে হজের আগের রাতে
রীতি ভেঙে এবার কাবার গিলাফ বদলানো হবে হজের আগের রাতে

বৈশ্বিক মহামারির কারণে মাত্র দশ হাজার মুসল্লি এবার হজপালনের সুযোগ পেয়েছেন। পুরোপুরি সৌদি আরবের হজ ও উমরা মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে হজের আচার-আচরণ পালন করতে হবে। এবার হজকে অনেকেই ‘বিরল হজ’ বলে অভিহিত করেছেন।

নতুন নিয়ম, নানা ঘটনা ও পরিস্থিতির সাক্ষী হবেন এবারের হাজিরা। এরই মাঝে দীর্ঘদিনের রীতি অনুযায়ী হজের দিন পবিত্র কাবার গিলাফ ‘কিসওয়া’ বদলানোর রীতি থেকে সরে আসার ঘোষণা দিয়েছে হারামাইন প্রেসিডেন্সি।

নতুন ঘোষণা অনুযায়ী এবার আর ৯ জিলহজ হজের দিন কাবা শরিফের গিলাফ বদলানো হবে না। এবার গিলাফ বদলানো হবে, ৮ জিলহজ (২৯ জুলাই) রাতে এশার নামাজের পর। তবে গিলাফ বদলাতে বদলাতে সকাল হয়ে যাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ইতোমধ্যে কাবা শরিফের নতুন গিলাফ হস্তান্তর করা হয়েছে। খাদেমুল হারামাইন শরিফাইন ও সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজের পক্ষ থেকে মক্কার গভর্নর প্রিন্স খালিদ আল ফয়সাল কাবা শরিফের জন্য তৈরি করা নতুন গিলাফ কাবার সিনিয়র তত্ত্বাবধায়ক শায়খ সালেহ বিন জায়নুল আবেদিনের কাছে হস্তান্তর করেছেন।

মক্কার নিকটবর্তী উম্মুল জুদ এলাকায় কাবার গিলাফ তৈরির একটি কারখানা রয়েছে। যেখানে নির্দিষ্ট পরিমাণ শ্রমিক সারা বছর কাবার গিলাফ তৈরির কাজে নিয়োজিত থাকেন।

গিলাফটি খুব টেকসই ও মানসম্মত উপায়ে তৈরি করা হয়। যেন রোদ-বৃষ্টিতে নষ্ট না হয় এবং এতে খাঁটি রেশম ব্যবহার করা হয়। পবিত্র কাবার কালো গিলাফকে কিসওয়া বলা হয়। গিলাফের বাইরের কালো কাপড়ে স্বর্ণমণ্ডিত রেশমি সুতা দিয়ে দক্ষ কারিগর দিয়ে ক্যালিওগ্রাফি করা হয়। গিলাফে পবিত্র কোরআনের আয়াত শোভা পায়, অক্ষরগুলো সোনালি আভায় উদ্ভাসিত। একটি গিলাফ তৈরি করতে ১২০ কেজি সোনার সুতা, ৭০০ কেজি রেশম সুতা ও ২৫ কেজি রুপার সুতা লাগে। গিলাফটির দৈর্ঘ্য ১৪ মিটার এবং প্রস্থ ৪৪ মিটার।

পবিত্র কাবা শরিফের গিলাফ তৈরিতে খরচ হয় প্রায় ২০ মিলিয়ন সৌদি রিয়াল।

পুরোনো গিলাফকে টুকরো টুকরো করে বিভিন্ন দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তি ও রাষ্ট্রপ্রধানদের উপহার হিসেবে দেওয়া হয়।

কাবাঘরকে গিলাফ দিয়ে আচ্ছাদন কখন বা কার উদ্যোগে শুরু হয় সেই সম্পর্কে মতভেদ রয়েছে। নির্ভরযোগ্য ঐতিহাসিক সূত্রে বলা হয়েছে, হজরত ইসমাঈল (আ.) প্রথম পবিত্র কাবাঘরকে গিলাফ দিয়ে আচ্ছাদন করেন।

ভিন্ন আরেকটি বর্ণনায় আছে, নবী করিম (সা.)-এর পূর্বপুরুষ আদনান ইবনে আইদ পবিত্র কাবাঘরকে প্রথম গিলাফ দিয়ে আচ্ছাদিত করেন।

তবে অধিকাংশ ঐতিহাসিক বর্ণনা অনুযায়ী, হিমিয়ারের রাজা তুব্বা আবু বকর আসাদ পবিত্র কাবাঘর গিলাফের মাধ্যমে আচ্ছাদনকারী প্রথম ব্যক্তি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com