আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

ফুল

রজনীগন্ধা চাষের পলিথিন ব্যাবহারে ব্যাপক লাভ

রজনীগন্ধা চাষে উৎপাদিত ফসল ৫০-৬০% বৃদ্ধি করা যেতে পারে এবং ৩০% জল ও সারের খরচ কমানো যেতে পারে | সাধারণত, রজনীগন্ধা চাষে কৃষকবন্ধুদের বহু সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় | যার মধ্যে আগাছা দমন এক গুরুতর সমস্যা | এই সমস্যা সমাধানে চাষীভাইদের প্রায় দিশেহারা অবস্থা হতে হয় | তাই অনেকেই দ্বিধায় থাকেন আগামীদিনে এর চাষ আদৌ করবেন কি না | কারণ রজনীগন্ধা ফুলগাছটি হল একধরনের একবীজপত্রী ঘাসের মতো এবং এর মধ্যে অন্যান্য ঘাস জন্মালে তা দমন করা কষ্টসাধ্য হয়ে ওঠে |

 তাছাড়া বর্তমান দিনে মাঠে কাজ করার মজুরের সংখ্যা কমে যাওয়ার জন্য নিড়ানি দিয়ে ঘাস মারা খুব ব্যায়বহুল এবং এখানে দেখা যাচ্ছে মোট চাষের খরচের প্রায় ৪০% আগাছা দমনের জন্যই খরচ হচ্ছে  | আর সবসময় দিনমজুর পাওয়াও যায় না, যাঁর ফলে গাছের ফলন ভীষণভাবে কমে যাচ্ছে। তাই, রজনীগন্ধা চাষে পলিথিনের ব্যবহার (Polythene Technique) করে কিভাবে এই সমস্যার হাত থেকে রেহাই পাওয়া যায়, নিচে বিস্তারিত আলোচনা করা হলো;

পলিথিন পদ্ধতি ও তার উপকারীতা(How to use Polythene):

রজনী গন্ধা মাঠে আগাছা দমনের ওষুধ প্রয়োগ করা যায় না। চাষীভাইদের এই বিস্তর সমস্যার কথা মাথায় রেখে বিগত কয়েকবছর ধরে বিধান চন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (Bidhan Chandra Krishi Viswavidyalaya) গবেষণা চালাচ্ছে | ফলস্বরূপ, পলিথিন ব্যবহারের কথা তার জানিয়েছেন | এই পলিথিন ব্যাবহার করে রজনীগন্ধা চাষে উৎপাদিত ফসল ৫০-৬০% বৃদ্ধি করা যেতে পারে এবং ৩০% জল ও সারের খরচ কমানো যেতে পারে | শুধু তাই নয় প্রায় ৪০% আগাছা দমনের খরচও কমানো যেতে পারে (১০,০০০ প্রতি বিঘাতে পলিমাচিং করে)।

মাঘ মাসে মাটিকে চষে প্রথমে চষে নিতে হবে | এরপর ১.২ মিটার চওড়া ও ৬ ইঞ্চি উঁচু বেড বানাতে হবে এবং ওই বেডগুলিকে ভাল করে সমতল করার পর ৪০ গেজের কালো পলিথিন দিয়ে মুড়ে ফেলতে হবে। এরপর ২ ইঞ্চি ব্যসের প্লাস্টিক পাইপ দিয়ে পলিথিনের উপর চাপ দিয়ে ছেঁদা করতে হবে  | এমনভাবে করতে হবে যে, গাছ থেকে গাছ ও লাইন থেকে লাইনের দূরত্ব যথাক্রমে ২০ ও ৩০ সেন্টিমিটার থাকে।

সার প্রয়োগ(Fertilizer):

চাপান সার হিসাবে ১০-২৬-২৬ ১০ কেজি + ইউরিয়া ১০ কেজি + সরষের খোল ১০ কেজি + ট্রাসেল-২ ১ কেজি প্রতি বিঘাতে প্রতি ১ মাস অন্তর ২ টি বেডের মাঝখানে প্রয়োগ করে ভাসিয়ে জল দিতে হবে। শীতকালে এই চাপান সারটি দেখেশুনে প্রয়োগ করতে হবে গাছের বৃদ্ধির উপর নজর রেখে।

এই পদ্ধতি অবলম্বনে চাষীভাইদের সমস্যা অনেকাংশে কম হবে | মূলত, তারা চাষের খরচ অনেকটাই কমিয়ে লাভের মুখ দেখতে পাবেন |

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফুল

অর্কিডের যত্ন নিবেন যেভাবে

অর্কিডের যত্ন নিবেন যেভাবে
অর্কিডের যত্ন নিবেন যেভাবে

বেশি স্থায়িত্বের ফুল ও সতেজ গাছ পেতে অর্কিডের জন্য দরকার সঠিক যত্ন। তাই অর্কিডপ্রেমীর জন্য এখানে গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস দেয়া হলো। যা আপনাকে সহায়তা করবে সঠিকভাবে অর্কিডের যত্ন নিতে। আসুন জেনে নেই কিভাবে পরিচর্যা করবেন অর্কিড গাছ ও ফুলের।

পানি দেয়া
অর্কিডের উপরে পানি দেয়া যাবে না। এতে ফুলের কুড়িতে ও পাতার ফাঁকে পানি জমে থাকে। যা পচন ধরাতে পারে। পানি দিতে গিয়ে গাছ সম্পূর্ণ ভিজে গেলে সাথে সাথেই টিস্যু দিয়ে তা মুছে শুকনো করে দিতে হবে।

পানি অপসারণ
অর্কিড বেশি পানি সহ্য করতে পারে না। ফুটন্ত অর্কিডের টব বা পাত্রে কোনভাবেই অতিরিক্ত পানি জমতে দেয়া যাবে না। অতিরিক্ত পানি যাতে খুব সহজেই বেরিয়ে যায়, সেদিকে লক্ষ্য রাখুন।

ঠান্ডা পানি নয়
খুব ঠান্ডা পানি অর্কিডের মূলের ক্ষতি করে থাকে। অর্কিডে সাধারণত নাতিশীতোষ্ণ পানি সরবরাহ করুন। বরফ টুকরো দিয়ে ইন্ডোর প্লান্টে পানি দেয়ার পদ্ধতি অর্কিডের ক্ষেত্রে উপযুক্ত নয়।

অর্কিডের যত্ন নিবেন যেভাবে
অর্কিডের যত্ন নিবেন যেভাবে

উপযুক্ত খাবার
উপযুক্ত খাবার অর্কিডের গাছ ও ফুলের জন্য অপরিহার্য। যা অর্কিডের জীবনকাল ও লাবণ্য বাড়িয়ে দেয়। মাসে অন্তত একবার অর্কিডের গাছে খাবার দিন। সুপার শপ বা অনলাইন শপে খাবার পেতে পারেন।

ডাল আলাদা নয়
অর্কিডের গোড়ার দিকে ডালগুলো একসাথে চাপাচাপি করে লেগে থাকে। এগুলো অর্কিডের পাওয়ার হাউস বা ব্যাটারির মত কাজ করে। কখনোই এগুলো আলাদা করা যাবে না।

টবের মাটি
সচরাচর টবে চাষ করার জন্য যে মাটি ব্যবহার করা হয়, তা অর্কিডের জন্য উপযোগী নয়। তাই প্রচলিত টবের মাটি বাদ দেয়াই ভালো। এর জন্য নারিকেলের ছোঁবড়া, ইটের খোয়া ইত্যাদি উপযুক্ত জিনিস।

আলোতে না রাখা
সরাসরি সূর্যের আলোতে অর্কিডের টব বা পাত্র না রাখা ভালো। কম তাপমাত্রা আর ছায়াযুক্ত স্থানে রাখুন শখের অর্কিড।

অর্কিডের যত্ন নিবেন যেভাবে
অর্কিডের যত্ন নিবেন যেভাবে

ফুল না ভেজানো
অর্কিডের পাতা অল্প সময়ের জন্য ভিজিয়ে দেয়া ভালো। তবে ফুল ভেজানো অর্কিডের জন্য ক্ষতিকর। ফুল ভেজালে তার স্থায়িত্ব কমে যায় এবং এতে দ্রুত ফুলে পচন ধরে।

শেকড় না কাটা
অর্কিড আদি শেকড় দিয়ে শ্বাসকার্য চালায়। তাই এগুলোকে না কাটাই ভালো।

পাত্র পরিবর্তন
অর্কিড দুই বছর একই পাত্রে থাকতে পারে। কারণ শেকড় বাড়ার সাথে সাথে এর ভেতরের জায়গার পরিমাণ কমে আসে। তাই পাত্র পরিবর্তনের সময় মরা শেকড় কেটে বাদ দিতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফুল

জেনে নিন তৈল উৎপাদনকারী সূর্যমুখী চাষের পদ্ধতি

সূর্যমুখী ফুলের নিষ্কাশিত তেল পুষ্টিগুণে ভরপুর। বহু চাষিভাই সূর্যমুখী চাষ করে উপকার পেয়েছেন। এই ফুলের চাষ করার পদ্ধতি যেমন সহজ, তেমনই এই ফুলের চাষের থেকে অর্থকরী লাভও কম নয়। আসুন জেনে নেওয়া যাক সূর্যমুখী চাষের পদ্ধতি। দেশের বিভিন্ন জায়গায় সূর্যমুখী ফুলের চাষ হয়ে থাকে। এর বীজ থেকে প্রস্তুত হওয়া তেল ভোজ্য তেল হিসাবে ব্যবহৃত হয়। পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় এর চাষ লক্ষ্য করা যায়। 

সূর্যমুখী চাষের পদ্ধতি (Farming Procedure)

সূর্যমুখীর চাষ মধ্য-নভেম্বর থেকে মধ্য-ডিসেম্বর অর্থাৎ অগ্রহায়ণ মাসেই করাই ভালো। এর ফলে অধিক ফলনের লাভ থাকে। খরিপ-১ মৌসুমে অর্থাৎ মধ্য-এপ্রিল থেকে মধ্য-মে মাসও এই চাষের উপযুক্ত সময়। 

সূর্যমুখী বীজ বপন পদ্ধতি (Planting)

এই চাষের আদর্শ নিয়ম সারি করে সূর্যমুখীর বীজ বোনা। একটা সারি থেকে  আরেকটা সারির দূরত্ব কমপক্ষে ৫০ সেমি হওয়া উচিত। প্রতি সারিতে গাছের দূরত্ব ২৫ সেমি রাখলে ভালো। এই নিয়মানুযায়ী বীজ পোঁতা হলে প্রতি হেক্টর ৮-১০ কেজি বীজের দরকার পড়বে।

সার প্রয়োগ (Fertilizer)

হেক্টর প্রতি ইউরিয়া ১৮০-২০০ কেজি,

হেক্টর প্রতি টিএসপি ১৫০-২০০ কেজি,

হেক্টর প্রতি এমপি ১২০-১৫০ কেজি,

হেক্টর প্রতি জিপসাম ১২০-১৭০,

হেক্টর প্রতি জিংক সালফেট ৮-১০ কেজি,

হেক্টর প্রতি বরিক এসিড ১০-১২ কেজি,

হেক্টর প্রতি ম্যাগনেসিয়াম সালফেট ৮০-১০০ কেজি

অর্ধেক ইউরিয়া সার এবং বাদবাকি অন্যসব সার শেষবার চাষের সময় জমিতে ছিটিয়ে দিয়ে ভালো করে মাটির সঙ্গে মিশিয়ে দিতে হবে। বাদবাকি যে ইউরিয়া পড়ে রয়েছে তা দুই ভাগে, চারা গজানোর ২০-২৫ দিন পরে, বাকিটা  ৪০-৪৫ দিন পর অথবা ফুল ফোটার আগে ব্যবহার করতে হবে। 

রোগবালাই  প্রতিকার (Disease Control)

সূর্যমুখী চাষে পাতা ঝলসানো রোগটি ভীষণ ভাবে ক্ষতিকর। অলটারনারিয়া হেলিয়াস্থি নামক ছত্রাকের আক্রমণে প্রথমে সূর্যমুখীর পাতায় গাঢ় বাদামি রঙের দাগ পড়ে। পরে ওই দাগ বড় দাগের সৃষ্টি করে। অবশেষে পাতা পুরোপুরি ঝলসে যায়।

শিকড় পচা রোগ সূর্যমুখী চাষের আরও এক অন্তরায়। স্কেলেরোশিয়াম রলফসি নামক ছত্রাকের আক্রমণে এই রোগ হয়ে থাকে। এর ফলে  গাছের গোড়া আক্রান্ত হয়ে পড়ে এবং সাদা তুলার মত ছত্রাকের মাইসেলিয়াম এবং গোলাকার দানার মত স্কেলেরোশিয়াম ছড়িয়ে পড়ে। প্রথমে দিকে গাছ নেতিয়ে পড়ে এবং কিছুদিনের মধ্যে সব গাছ শুকিয়ে মারা যায়।

তাই এই রোগ দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে রোভরাল-৫০ ডবি্লউ পি (২%) জলে মিশিয়ে ১০ দিন পর পর ২-৩ বার জমিতে স্প্রে করলে এই রোগ মুক্ত হয়। ফসল কেটে নেওয়ার পর গাছের পড়ে থাকা অংশ পুড়িয়ে ফেললে এই রোগ চলে যায়। 

প্রতিকার

ভিটাভেক্স-২০০ দিয়ে মাঠ শোধন করলে এই রোগের বিস্তার আটকানো যায়।  জমিতে জল থাকলে এই জাতীয় ছত্রাক বেঁচে থাকতে পারে না। রোগ আক্রমণ করলে জমিতে প্লাবন সেচ দিলে এই প্রকোপ কমে।

বীজ সংগ্রহের নিয়ম (Harvest)

বীজ পোঁতার থেকে পরিপক্ক হওয়া পর্যন্ত ৯০-১১০ দিনের মাথায় সূর্যমুখীর বীজ সংগ্রহ করার ক্ষেত্রে আদর্শ সময়। 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফুল

চাষ করতে পারেন খোঁপায় গোঁজা বেলি ফুল

ফুলের চাষবাস এদেশে অনেক আগেই শুরু হয়েছে। অর্থকরী ফসল হিসেবে বেশ সাফল্যও এসেছে। বেশিরভাগ অনুষ্ঠানে ব্যবহৃত ফুলের তোড়া, মালায় সুগন্ধি ফুল হিসেবে বেলি ফুলের কদর আছে। তাই এটি একটি অর্থকরী ফুল। ফলে আপনিও চাষ করতে পারেন খোপায় গোঁজা বেলি ফুল।

জাত
তিন জাতের বেলি ফুল দেখা যায়। যথা- সিঙ্গেল ও অধিক গন্ধযুক্ত, মাঝারি ও ডাবল ধরনের এবং বৃহদাকার ডাবল ধরনের।

বংশবিস্তার
বেলি ফুল গুটি কলম, দাবা কলম ও ডাল কলম পদ্ধতির মাধ্যমে বংশবিস্তার হয়।

চাষ ও সার
বেলে মাটি ও ভারি এঁটেল মাটি ছাড়া সবধরনের মাটিতে বেলি ফুল চাষ করা যায়। জমিতে পানি সেচ ও পানি নিকাশের ব্যবস্থা থাকা ভালো। জমি ৪-৫টি চাষ ও মই দিয়ে ঝুরঝুরা ও সমান করতে হবে। জমি তৈরির সময় জৈব সার, ইউরিয়া, ফসফেট এবং এমপি প্রয়োগ করতে হবে। প্রায় ১ মিটার অন্তর চারা রোপণ করতে হবে। চারা লাগানোর পর ইউরিয়া প্রয়োগ করে পানি সেচ দিতে হবে।

কলম বা চারা
গ্রীষ্মের শেষ থেকে বর্ষার শেষ পর্যন্ত বেলি ফুলের কলম বা চারা তৈরি করা যায়। চারা থেকে চারা ও সারি থেকে সারির দূরত্ব ৫০ সেমি হতে হবে। চারা লাগানোর জন্য গর্ত খুঁড়ে গর্তের মাটির রোদ খাইয়ে, জৈব সার ও কাঠের ছাই গর্তের মাটির সাথে মিশিয়ে গর্ত ভরাট করতে হবে। এরপর প্রতি গর্তে বেলির কলম বসাতে হবে। বর্ষায় বা বর্ষার শেষের দিকে কলম বসানোই ভালো। তবে সেচের ব্যবস্থা ভালো হলে বসন্তকালেও কলম তৈরি করা যায়।

টব
জৈব পদার্থযুক্ত দো-আঁশ মাটিতে ইউরিয়া, টিএসপি ও এমপি সার পরিমাণমতো মিশিয়ে টবে বেলি ফুলের চাষ করা যায়। টব ঘরের বারান্দা বা ঘরের ছাদে রেখে দেওয়া যায়।

সেচ
বেলি ফুলের জমিতে সবসময় রস থাকা দরকার। গ্রীষ্মকালে ১০-১২ দিন পরপর শীতকালে ১৫-২০ দিন পরপর ও বর্ষাকালে বৃষ্টি সময়মতো না হলে জমির অবস্থা বুঝে ২-১ টি সেচ দেওয়া দরকার।

আগাছা
জমি বা টব থেকে নিয়মিত আগাছা পরিষ্কার করতে হবে। খড় কেটে কুচি করে জমিতে বিছিয়ে রাখলে সেচের প্রয়োজন কম হয় এবং আগাছাও বেশি জন্মাতে পারে না।

ছাঁটাই
প্রতিবছরই বেলি ফুলের গাছের ডাল-পালা ছাঁটাই করা দরকার। শীতের মাঝামাঝি সময় ডাল ছাঁটাই করতে হবে। মাটির ওপরের স্তর থেকে ৩০ সেমি উপরে বেলি ফুলের গাছ ছাঁটাই করতে হবে। অঙ্গ ছাঁটাইয়ের কয়েকদিন পর জমিতে বা টবে সার প্রয়োগ করতে হবে।

রোগ-বালাই
বেলি ফুল গাছে ক্ষতিকারক কীট তেমন দেখা যায় না। তবে পোকামাকড়ের আক্রমণ হতে পারে। এদের আক্রমণে পাতায় সাদা আস্তরণ পড়ে। আক্রান্ত পাতাগুলো কুঁকড়ে যায় ও গোল হয়ে পাকিয়ে যায়। গন্ধক গুঁড়া বা গন্ধকঘটিত মাকড়নাশক ওষুধ যেমন সালট্যাফ, কেলথেন ইত্যাদি পাতায় ছিটিয়ে মাকড় দমন করা যায়। বেলি ফুলের পাতায় হলদে বর্ণের ছিটেছিটে দাগযুক্ত একপ্রকার ছত্রাক রোগ দেখা যায়। এগ্রোসান বা ট্রেসেল-২ প্রয়োগ করে এ রোগ দমন করা যায়।

ফলন
ফেব্রুয়ারি থেকে জুলাই পর্যন্ত গাছে ফুল ফোটে। ফলন প্রতিবছর বাড়ে। লতানো বেলিতে ফলন আরও বেশি হয়। সাধারণত ৫-৬ বছর পর গাছ কেটে ফেলে নতুন চারা লাগানো হয়।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফুল

জবা ফুল চাষের পদ্ধতি শিখে হয়ে উঠুন লাভবান কৃষক

পুজো হোক বা উপাসনা, আয়ুর্বেদ হোক বা ভেষজ ওষধি- জবা ফুল বাঙালি জীবনে অন্যতম এক গুরুত্বপূর্ণ অংশ। সাহিত্য অথবা গানের লাইনেও বারংবার প্রতিফলিত হয়েছে জবার সৌন্দর্য্যের বিভিন্ন দিক। বিভিন্ন রঙের জবা পাওয়া গেলেও লাল জবা অথবা রক্তজবা মানুষের দৈনন্দিন জীবনে বেশিরকমের গুরুত্ব পেয়েছে। গোটা বছর ধরেই জবার ভীষণ ভাবে চাহিদা থাকার জন্য এই ফুল বাণিজ্যিক ভাবে প্রচুর চাষ হয়। বাংলার প্রায় প্রতিটি ঘরের উঠোনেও এই ফুল ফুটতে প্রচুর পরিমানে দেখা যায়। পুষ্পধারী গুল্ম জাতীয় এই উদ্ভিদের মূলত পূর্ব এশিয়াতেই উদ্ভব। বলা চলে ভাদ্র-অশ্বিন মাসেই এই ফুলের চাষের সবথেকে ভালো সময়। চাষিরাও এই ফুল চাষ করে ভীষণই আর্থিক ভাবে উপকৃত হন। বাজারে প্রচুর চাহিদা থাকায় জবা ফুল চাষ যথার্থ ভাবেই একটি অর্থকরী চাষ। জেনে নেওয়া যাক, জবা ফুলের চাষের সহজতম পদ্ধতি।

মাটি (Soil)

বেলে-দোঁয়াশ মাটিতে জবা ফুল ভালো ফুটলেও, প্রায় সব মাটিতেই এই চাষ সম্ভব। জেনে রাখা ভালো সার মিশিয়ে মাটি তৈরি করলে ফুলের গুনগত মান ভালো হয়।

রোপন পদ্ধতি(Planting)

জবা গাছ বসানোর ক্ষেত্রে প্রতি সারিতে ৩-৪ মিটার অন্তর দেড় ফুট ঘন গভীর গর্ত করতে হবে। চারা লাগিয়ে গোড়ার মাটি চেপে দিতে হবে। জলও দিতে হবে প্রয়োজন মতো। মাটির পাশাপাশি টবেও এই গাছ লাগানো যেতেই পারে। তবে সেক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে টবটিতে যেন জল দাঁড়াতে না পারে। উপযুক্ত রোদ লাগে, এমন জায়গাতেই টবটি রাখতে হবে। পাঁচ-ছ’ঘণ্টা রোদ থাকে, এমন জায়গায় জবা গাছ বসানো সবসময় উচিত। গাছে ফুল আসার সময়ে প্রতি লিটার জলে ২৫ মিলিলিটার ল্যানোফিক্স মিশিয়ে দৈনিক হারে স্প্রে করে দিতে হবে। 

সার প্রয়োগ (Fertilizer)

জবা গাছের গোড়ায় মাটি খুঁড়ে সার বর্ষার আগে ও শীতের মরশুমে দেওয়া উচিত। পুকুরের জলজ পাঁকও জলজ সার হিসাবে দেওয়া যায়। জবা গাছ খুব তাড়াতাড়ি বাড়ার জন্য এই চাষ নিয়ে চাষিদের কোনও মাথাব্যথা থাকারও কথা নয়।

রোগবালাই প্রতিকার (Disease Management)

পাতা হলুদ হয়ে যাওয়া জবা গাছের অন্যতম অসুখ হিসাবে গণ্য করা হয়। জল দেওয়ার ফলে মূলত শীতকালে এই সমস্যা দেখা যায় বলে অনেকে মনে করেন।  গ্রীষ্মকালে অত্যন্ত তাপে অনেক সময় পাতা শুকিয়েও যায়। এছাড়া পাতায় মাঝে মাঝে সাদা দাগ দেখা যায়। ওই সমস্যা দেখা দিলে সাবান দিয়ে পাতা ধুয়ে দেওয়া উচিত। গাছের গোড়ায় যাতে সাবান জল যাতে না পৌঁছায় তাতে খেয়াল রাখতে হবে।

জবা গাছের পরিচর্যা (caring)

শীতকালে অন্যান্য ঋতুর তুলনায় কম জল প্রয়োজন হয় জবা গাছের। এই সময়ে গাছের গোড়া বেশি ভিজে থাকলে অনেক সময় মরে যায় জবা গাছ ৷ বছরে দু’বার করে এই গাছ ছাটাই করা উচিত। ফাল্গুন-চৈত্র ও ভাদ্র-আশ্বিন মাসে গাছ ছেটে দেওয়ার সবথেকে উত্তম সময়। মনে রাখতে হবে জবা চাষ করার সময় যাতে আগাছা না বাড়তে পারে। আগাছা হলে সঙ্গে সঙ্গে তা পরিষ্কার করে দেওয়া আশু কর্তব্য। 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com