আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

মৎস্য

কৃত্রিম প্রজননে কোরালের পোনা

কোরালের পোনা
কোরালের পোনা

সুস্বাদু কোরাল কিংবা ভেটকি মাছের কদর দেশব্যাপী। বঙ্গোপসাগরের গভীর জলের মাছ কোরাল সব সময় হাটবাজারে পাওয়া যায় না। চিংড়ির মতো চাষের মাধ্যমে কোরাল মাছ উৎপাদনের তেমন সুযোগও নেই। কিন্তু এখন যে কেউ চাইলে কোরাল মাছের চাষে হাত বাড়াতে পারেন। কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে কক্সবাজারে উৎপাদিত হচ্ছে কোরাল মাছের পোনা।

বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে কোরাল মাছের পোনা উৎপাদনে সফল হয়েছেন দেশের মৎস্য বিজ্ঞানীরা। সেই সঙ্গে তাঁরা বঙ্গোপসাগরের ‘কক্সবাজার-সোনাদিয়া’ উপকূলের ২৩ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে কোরাল মাছের প্রজননক্ষেত্র চিহ্নিত করেছেন। গত এক বছর বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীদের চালানো এক গবেষণায় এ সাফল্য এসেছে।

তবে এটি প্রাথমিক সাফল্য মনে করেন বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ও দেশের বিশিষ্ট মৎস্য বিজ্ঞানী ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ।

তিনি বলেন, ২০১৮ সালের এপ্রিল মাস থেকে শুরু হওয়া এক গবেষণায় প্রথমবারের মতো হ্যাচারিতে কৃত্রিম উপায়ে কোরাল মাছের পোনা উৎপাদনে সাফল্য এসেছে। তবে এ জন্য আরও গবেষণা দরকার। কোরালের বাণিজ্যিক চাষ শুরু হলে দেশের অর্থনীতি তথা সামুদ্রিক মৎস্য ক্ষেত্রে এক বিপ্লবের সূচনা হবে।

মৎস্য বিজ্ঞানীরা বলেন, এর আগে গবেষণার মাধ্যমেই কক্সবাজারে প্রথমবারের মতো কাঁকড়া পোনা উৎপাদনে সাফল্য পান মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা। এখন আর দেশে কাঁকড়া পোনার সংকট নেই। এখন কোরালের পাশাপাশি অন্যান্য মূল্যবান ও অর্থকরী মাছেরও কৃত্রিম পোনা উৎপাদনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা।

 মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের সূত্রমতে, ‘সামুদ্রিক মৎস্য গবেষণা জোরদারকরণ ও অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পের অর্থায়নে ‘ভেটকির মা মাছ তৈরি ও কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে পোনা উৎপাদন গবেষণা’ শীর্ষক একটি প্রকল্প পরিচালিত হচ্ছে। বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের কক্সবাজারের সামুদ্রিক মৎস্য ও প্রযুক্তি কেন্দ্রের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল হকের নেতৃত্বে এ গবেষণা কাজ পরিচালিত হচ্ছে। এক বছরের বেশি সময় ধরে গবেষণা চালানোর পর গত মে মাসে সর্বপ্রথম ভেটকি মাছের কৃত্রিম প্রজননে সাফল্য পাওয়া যায়। আর গবেষণা চালাতে গিয়ে বিজ্ঞানীরা প্রথমবারের মতো বঙ্গোপসাগরে চিহ্নিত করতে সক্ষম হন কক্সবাজারের কলাতলী থেকে সোনাদিয়া পর্যন্ত ২৩ বর্গ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে কোরাল মাছের প্রজনন ক্ষেত্র।

মৎস্য কর্মকর্তা বলছেন, উপকূলীয় এলাকার অতিপরিচিত সুস্বাদু মাছ কোরাল। এ মাছ কম কাটাযুক্ত, দ্রুত বর্ধনশীল ও খেতে সুস্বাদু বলে এর বাজারমূল্য বেশি। আন্তর্জাতিক পর্যায়েও এ মাছের ব্যাপক চাহিদা ও অর্থনৈতিক গুরুত্ব রয়েছে। থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়াসহ প্রতিবেশী দেশগুলো আগেই হ্যাচারিতে কৃত্রিম উপায়ে কোরাল পোনা উৎপাদনে সক্ষম হলেও বাংলাদেশের বিজ্ঞানীরা এত দিন ছিলেন পিছিয়ে।

তবে দীর্ঘদিন ধরে কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাটসহ দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে ঘেরের মধ্যে চিংড়ির সঙ্গে কোরাল মাছেরও কিছুটা চাষ হচ্ছে। কোরাল মাছ লবণাক্ত, আধা-লবণাক্ত, এমনকি স্বাদু পানিতেও চাষ করা যায়। এ মাছের রোগবালাই কম বলে সাম্প্রতিককালে অনেকেই চিংড়ি চাষ বাদ দিয়ে কোরাল চাষে নেমেছেন। তবে পোনার সংকটের কারণে অনেকে লাভজনক কোরাল চাষে নামতে পারছেন না। প্রজননের মাধ্যমে কোরাল মাছের পোনা বাজারে সরবরাহ হলে এই মাছ চাষে বিপ্লব শুরু হবে।

কক্সবাজারের সামুদ্রিক মৎস্য ও প্রযুক্তি কেন্দ্রের সিনিয়র বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল হক বলেন, একটি পরিপক্ব স্ত্রী কোরাল মাছ ৬০ লাখ থেকে ২ কোটি পর্যন্ত ডিম দিতে সক্ষম। ফলে হ্যাচারিতে পোনা উৎপাদনের জন্য স্বল্পসংখ্যক মা কোরালই যথেষ্ট। তবে চ্যালেঞ্জ হচ্ছে মা কোরাল তৈরি হওয়ার জন্য যে ৪-৫ বছর সময়টুকু দরকার, তা রক্ষা করতে হবে।

মোহাম্মদ আশরাফুল হক বলেন, কোরাল মাছ প্রথমে পুরুষ হয়ে জন্মায় এবং ৪-৫ বছর পর কিছু স্ত্রীতে রূপান্তরিত হয়। রূপান্তরিত হওয়ার পরই প্রজননের জন্য উপকূলের নদী মোহনার কাছে চলে আসে। কোরাল মাছের প্রজননকাল এপ্রিল থেকে শুরু হলেও সবচেয়ে বেশি ডিম দেয় মে মাসে। গত ২৩ মে সোনাদিয়া উপকূলে গবেষণা চালানোর সময় বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আশরাফুল হক কোরাল মাছের ডিম পাড়ার দৃশ্য স্বচক্ষে দেখেন এবং ওখান থেকে সংগৃহীত মা মাছটি হ্যাচারিতে এনে কৃত্রিম উপায়ে তিনি পোনা উৎপাদনে সক্ষম হয়েছেন।

মৎস্য

তেলাপিয়া মাছে ভাইরাস আক্রমণ

তেলাপিয়া মাছে ভাইরাস আক্রমণ
তেলাপিয়া মাছে ভাইরাস আক্রমণ

বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশের তেলাপিয়া মাছে বিশেষ ধরনের এক ভাইরাস আক্রমণ করছে বলে সতর্ক করেছে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও)। ভাইরাসটির নাম ‘তেলাপিয়া লেক’। যা দক্ষিণ আমেরিকা থেকে শুরু করে আফ্রিকা-এশিয়ার বেশ কয়েকটি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে।

এফএও জানায়, এই ভাইরাসের কারণে তেলাপিয়ায় মড়ক দেখা দিচ্ছে। এ ভাইরাসে আক্রান্ত তেলাপিয়া মাছের গায়ে ফোসকা পড়ে। এরা খাবার কম খায়।

এফএও আরো জানায়, বাংলাদেশ বিশ্বের চতুর্থ তেলাপিয়া উৎপাদনকারী দেশ। তাই দেশটি এই ভাইরাসের আক্রমণের শিকার হতে পারে। তবে এমন কোনো মাছ বাংলাদেশের কোনো খামারে এখনো পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট ও মৎস্য অধিদফতর ।

মৎস্য অধিদফতর জানায়, অল্প জায়গায় বেশি মাছ চাষ করলে পরিবেশ দূষণের মাধ্যমে এ ধরনের ভাইরাস এবং ব্যাকটেরিয়া আক্রমণ করে।

মৎস্য অধিদফতরের হিসাব মতে, বাংলাদেশে প্রায় ৪ লাখ টন তেলাপিয়া উৎপাদিত হয়। দেশে উৎপাদিত মোট মাছের ১০ শতাংশই তেলাপিয়া মাছ।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

মৎস্য

ফিরেছে ১৭ প্রজাতির বিপন্ন মাছ

ফিরেছে ১৭ প্রজাতির বিপন্ন মাছ
ফিরেছে ১৭ প্রজাতির বিপন্ন মাছ

কৃত্রিম প্রজনন ও চাষ প্রযুক্তি উদ্ভাবনের মাধ্যমে বিপন্ন ও বিলুপ্তপ্রায় ১৭টি দেশি প্রজাতির মাছকে বাজারে ফিরিয়ে এনেছে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফআরআই)। তাছাড়া মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি ও সম্প্রসারণে ৫৭টি প্রযুক্তিরও উদ্ভাবন করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

বিভিন্ন মাছের কৃত্রিম প্রজনন ও চাষ পদ্ধতি, কুচিয়া ও কাঁকড়া চাষ এবং মুক্তাচাষ নিয়ে বর্তমানে ৪৩টি গবেষণা চলমান রয়েছে। প্রতি বছর ৬ লাখ মানুষ মৎস্য পেশার সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে যার শতকরা ১০ ভাগ নারী।

ময়মনসিংহে অবস্থিত বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট আয়োজিত ‘মৎস্য-প্রযুক্তি সম্প্রসারণে গণমাধ্যমের ভূমিকা’ শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালায় এসব কথা বলেন প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক ইয়াহিয়া মাহমুদ।

রোববার বেলা ১১টায় বিএফঅারঅাই এর সম্মেলন কক্ষে ওই কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. আলী আকবর প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে দিনব্যাপী ওই প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধন করেন।

প্রশিক্ষণে মৎস্য গবেষণা নিয়ে বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করেন মৎস্যবিজ্ঞানী মো. নূরুল্লাহ ও খলিলুর রহমান।

মৎস্যবিজ্ঞানীরা বলেন, স্বাদু পানির মাছ উৎপাদনে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনে বিজ্ঞানী, চাষি, হ্যাচারি মালিক ও জেলেদের ভূমিকা অনেক। এই অর্জন ধরে রাখতে ধানের জমি নষ্ট না করে পরিত্যক্ত জলাশয়ে মাছ চাষ, নদ-নদী খননের মাধ্যমে মাছের অভয়াশ্রম তৈরি এবং বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে কাজ করতে হবে।

বিজ্ঞানভিত্তিক মাছ চাষের বিকল্প নেই, কোনোভাবেই পরিবেশ নষ্ট করা যাবে না। প্রশিক্ষণে ময়মনসিংহ ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্ধশতাধিক সাংবাদিক অংশগ্রহণ করেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

মৎস্য

পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে

পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে
পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে

পুকুরে শিং মাছ চাষ একটি লাভজনক ব্যবসা। ভালো করে চাষ করতে পারলে কার্পজাতীয় মাছের তুলনায় শিং মাছ চাষে লাভ বেশি। তাছাড়া কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমেও পর্যাপ্ত পরিমাণে দেশি শিং মাছের পোনা উৎপাদন এবং চাষ করা সম্ভব। কেননা শিং মাছ বাজারের একটি দামি মাছ। কথায় আছে, শিং মাছ খেলে দ্রুত রক্ত বৃদ্ধি হয়। তাহলে জেনে নিন কীভাবে চাষ করবেন।

পোনা মজুদ
এপ্রিল থেকে নভেম্বর মাস পর্যন্ত দেশি শিং মাছের পোনা পাওয়া যায়। দেশি শিং মাছ একক চাষের জন্য ৫০০ থেকে ১০০০ পোনা মজুদ করা যাবে। শিং মাছ চাষে পুকুরে ৪-৫ ইঞ্চি সাইজের প্রতি শতাংশে ৮-১০ পিচ রুই, কাতল, গ্রাসকার্প, মৃগেল মাছের পোনা ছাড়তে হবে। কিছু কার্প জাতীয় মাছের পোনা ছাড়লে পুকুরের পরিবেশ ভালো থাকে।

পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে
পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে

পুকুর নির্বাচন
পুকুর নির্বাচনের সময় কয়েকটি বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে-
১. পুকুর অবশ্যই বন্যামুক্ত হতে হবে।
২. পুকুরের পাড় মজবুত হতে হবে। কোন প্রকার ছিদ্র থাকলে সমস্ত শিং মাছ চলে যাবে।
৩. বৃষ্টির সময় পানির উচ্চতা ৪ ফুটের বেশি হবে না- এমন পুকুর নির্বাচন করতে হবে।
৪. পুকুর আয়তাকার হলে ভালো ফল পাওয়া যায়।
৫. পুকুরের আয়তন ৪০-৫০ শতাংশের মধ্যে হতে হবে।
৬. এক প্রান্ত অন্য প্রান্তের চেয়ে ১ ফুট ঢালু রাখতে হবে।

পুকুর প্রস্তুত
নতুন পুকুরের চেয়ে পুরাতন পুকুরে শিং মাছ চাষ ভালো হয়। নতুন পুকুর হলে ভালোভাবে চাষ দিয়ে প্রতি শতাংশে কমপক্ষে ২০ কেজি গোবর ও ভালোভাবে মই দিয়ে তারপর চুন দিতে হবে। পুরনো পুকুর হলে প্রথমেই সেচ দিয়ে শুকিয়ে ফেলতে হবে। এরপর চুন দিতে হবে শতাংশ প্রতি ১ কেজি। চারদিকে জাল দিয়ে ভালোভাবে ঘের দিতে হবে। চারপাশে জাল দেওয়ার পর পুকুরে শ্যালো ইঞ্জিন দিয়ে ২-৩ ফুট পরিষ্কার পানি দিতে হবে। পানি দেওয়ার ২-৩ দিনের মধ্যে পোনা ছাড়তে হবে। পোনা ছাড়ার পর এক ইঞ্চি ফাঁসের একটি জাল পেতে রাখতে হবে।

পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে
পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে

মজুদ ঘনত্ব
শিং মাছ এককভাবে বা মিশ্রভাবে চাষ করা যায়। মিশ্রভাবে চাষ করতে হলে কার্প জাতীয় মাছের সাথে প্রতি শতাংশে ৩০টি পর্যন্ত আঙুল সাইজের শিং মাছের পোনা ছাড়তে হবে। পোনা মজুদের সময় পোনাকে এন্টিফাঙ্গাস মেডিসিনে গোসল দিয়ে তারপর ছাড়তে হবে। কার্প জাতীয় মাছ ছাড়া তেলাপিয়া এবং পাঙ্গাসের সাথেও শিং মাছের মিশ্রচাষ করা যায়। সে ক্ষেত্রে প্রতি শতাংশে ৫০টি পর্যন্ত শিং মাছের পোনা মিশ্রভাবে ছাড়া যায়। কার্পজাতীয়, তেলাপিয়া বা পাঙ্গাসের সাথে শিং মাছ চাষ করলে বাড়তি খাবারের প্রয়োজন হয় না।

পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে
পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে

খাবার প্রয়োগ
পোনা মজুদের পর প্রথম ১০ দিন দৈনিক মাছের ওজনের ২০% খাবার প্রয়োগ করতে হয়। ছোট থাকা শিং মাছ সাধারণত রাতের বেলায় খেতে পছন্দ করে; তাই ২০% খাবারকে দু’বেলায় সমান ভাগ করে ভোরের দিকে একটু অন্ধকার থাকতে প্রয়োগ করতে হয়। মাছ মজুদের পরের ১০ দিন ১৫% হারে এবং এর পরের ১০ দিন মাছের ওজনের ১০% হারে পুকুরে খাবার প্রয়োগ করতে হয়। এভাবে এক মাস খাবার প্রয়োগের পর ৫% হারে পুকুরে খাবার দিতে হবে। শিং মাছ ৩ ইঞ্চি হওয়ার সাথে সাথে দিনের বেলাতে খাবার দিতে হবে। সন্ধ্যার পর যে খাবার দেওয়া হত সেটি সন্ধ্যার একটু আগে এগিয়ে এনে আস্তে আস্তে বিকেলে দিতে হবে। অন্যদিকে ভোরবেলার খাবারও এমনি করে সকাল ৯-১০ টার দিকে পিছিয়ে নিতে হবে। শিং মাছের ওজন ১৫ গ্রাম হলে ৩% এর অধিক খাবার দেওয়া মোটেই ঠিক নয় এবং বিক্রির আগ পর্যন্ত এই নিয়মই বজায় রাখতে হবে।

পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে
পুকুরে শিং মাছ চাষ করবেন যেভাবে

মাছ আহরণ
অন্যান্য মাছ জাল টেনে ধরা গেলেও শিং মাছ জাল টেনে ধরা যায় না। শিং মাছ ধরতে হলে শেষরাতের দিকে পুকুর সেচ দিয়ে শুকিয়ে ফেলতে হবে। শিং মাছ ধরার উত্তম সময় হল ভোরবেলা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত। মাছ ধরার পর মাছ থেকে গেলে শ্যালো দিয়ে কমপক্ষে ২ ফুট ঠান্ডা পানি দিয়ে পুকুর ভরে রাখতে হবে। পরের দিন আবার একই নিয়মে মাছ ধরতে হবে। শিং মাছের পুকুর একপাশে ঢালু রাখা দরকার। তা না হলে সমস্ত পুকুরজুড়ে মাছ ছড়িয়ে থাকবে।

সাবধানতা অবলম্বন
মাছের কাঁটা বিঁধলে সেখানে খুবই ব্যথা হয়। কাঁটা বিঁধানো জায়গায় ব্যথানাশক মলম লাগিয়ে গরম পানি দিলে সাথে সাথে কিছুটা উপশম হয়। এছাড়া মলম লাগিয়ে গরম বালির ছ্যাকা দিলেও আরাম পাওয়া যায়। তাই শিং মাছ ধরার আগে এমন ব্যবস্থা রাখলে মন্দ হয় না। একটু সাবধানতা অবলম্বন করলে এসবের কিছুরই প্রয়োজন হয় না।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

মৎস্য

মাছের ফুলকা পচা রোগ হলে করণীয়

মাছের ফুলকা পচা রোগ হলে করণীয়
মাছের ফুলকা পচা রোগ হলে করণীয়

মাছের বিভিন্ন ধরনের রোগ রয়েছে। এগুলোর মধ্যে ফুলকা পচা রোগ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। রোগটি প্রতিকারের আগে লক্ষণগুলো দেখে প্রতিরোধের ব্যবস্থা নেওয়া ভালো। আসুন জেনে নেই লক্ষণ এবং এর প্রতিকারগুলো।

কারণ
• পোনা মাছে এ রোগ বেশি দেখা দেয়।
• পানির তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে এ রোগ দেখা দেয়।
• অধিক ঘনত্ব, তলদেশে জৈব পদার্থ জমা হওয়ায় দূষণের ফলে এ রোগ হয়।

লক্ষণসমূহ
১. ফুলকা ফুলে যাওয়া।
২. ফুলকায় রক্ত জমাট বাঁধা।
৩. অনেক তরল পদার্থ বের হওয়া।
৪. মাছের শ্বাস কষ্ট হওয়া
৫. মাছে অধিক মড়ক দেখতে পাওয়া।
৬. শরীরের মিউকাস কমে যাওয়া।
৭. স্বাভাবিক ঔজ্জ্বল্য থাকে না।
৮. লেজ ও পাখনায় সাদাটে দাগ দেখতে পাওয়া।
৯. লেজ ও পাখনায় পচন ধরা এবং ধীরে ধীরে ক্ষয় হওয়া।
১০. রক্তশূন্যতা এবং রং ফ্যাকাশে হয়ে যাওয়া।

প্রতিকার
* মাছের আক্রান্ত পাখনা কেটে ফেলে দিতে হবে।
* ২.৫% লবণ পানিতে বা ৫ পিপিম পটাশিয়াম পারম্যাঙ্গানেট দ্রবণে ১ ঘণ্টা গোসল করাতে হবে।
* প্রতি কেজি খাবারের সঙ্গে ১-২ গ্রাম অক্সিটেট্রাসাইক্লিন মিশিয়ে ৫-৭ দিন খাওয়াতে হবে।
* শতাংশে ১ কেজি হারে পাথুরে চুন পুকুরে প্রয়োগ করে পুকুর জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

বাংলাদেশ

বৈরালি মাছের কৃত্রিম প্রজননে সাফল্য, চাষ করা যাবে পুকুরেও

দেশের বেশির ভাগ নদ-নদী থেকে বিলুপ্ত হয়েছে বহু আগে। এখন কালেভদ্রে রংপুর বিভাগের কয়েকটি নদী ও খালের স্বচ্ছ পানিতে দেখা মেলে। বৈরালি নামে বেশি পরিচিত মাছটির কৃত্রিম প্রজননে সাফল্য পেয়েছেন বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা। কৃত্রিমভাবে এর পোনা উৎপাদনের প্রযুক্তি এখন সংস্থাটির বিজ্ঞানীদের হাতে। এতে এখন মাছটি পুকুরসহ অন্যান্য জলাশয়ে চাষ করা যাবে।

বৈরালি, বরালি ও কোকসা—এ রকম নানা নামে পরিচিত মাছটি একসময় সিলেট, নেত্রকোনার হাওর ও রংপুর বিভাগে বেশ ভালোই মিলত। ২০১৫ সালে প্রকৃতিবিষয়ক আন্তর্জাতিক সংস্থা আইইউসিএন মাছটিকে বিলুপ্তপ্রায় প্রাণী হিসেবে ঘোষণা করে।

২০১৮ সালে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের নীলফামারীর সৈয়দপুরে অবস্থিত স্বাদু পানি উপকেন্দ্রে বৈরালি মাছ নিয়ে গবেষণা শুরু হয়। এতে নেতৃত্ব দেন উপকেন্দ্রের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা খোন্দকার রশীদুল হাসান ও বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শওকত আহম্মেদ। তাঁরা রংপুর অঞ্চলের চিকলী, বরাতি, বুড়িখরা ও তিস্তা নদী থেকে বৈরালি মাছ সংগ্রহ করে পুকুরে কৃত্রিমভাবে পোনা উৎপাদনের গবেষণা শুরু করেন। গত ২০ মার্চ তাঁরা প্রথম পোনা উৎপাদনে সক্ষম হন।

গবেষণায় দেখা যায়, ১৫ থেকে ২৫ গ্রাম ওজনের একেকটি বৈরালি মাছের ডিম ধারণক্ষমতা তিন থেকে সাড়ে তিন হাজারটি। মাছটির প্রজননকাল নভেম্বর থেকে মার্চ। সবচেয়ে বেশি প্রজনন হয় জানুয়ারিতে। ডিম থেকে রেণু হয়ে পোনা পর্যন্ত উৎপাদনের পুরো প্রক্রিয়ায় সময় লেগেছে ৪০ থেকে ৫০ দিন।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ইয়াহিয়া মাহমুদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘এই সাফল্যের ফলে প্রথমত আমরা মাছটিকে বিলুপ্তির হাত থেকে রক্ষা করলাম। দ্বিতীয়ত, দেশের মানুষ তাঁদের পুকুরে এই মাছ বাণিজ্যিকভাবে চাষ করতে পারবেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘বৈরালি মাছের আরও পাঁচটি উপপ্রজাতি আছে। আমরা পর্যায়ক্রমে সেগুলোরও কৃত্রিম প্রজনন করব।’

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা এর আগে ২০টি বিপন্ন প্রজাতির মাছের কৃত্রিম প্রজনন করেছেন। ফলে বাজারে ছোট মাছের সরবরাহ বেড়েছে। উৎপাদন বেড়ে যাওয়ায় পাবদা, মলা, ডেলাসহ এসব মাছের দামও আগের চেয়ে কমেছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com