আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

পরিবেশ

ইন্দোনেশিয়ায় কমোডো ড্রাগনদের বাঁচানোর লড়াইয়ে নেমেছে গ্রামবাসীরা

পূর্ব ইন্দোনেশিয়ার কয়েকটি দ্বীপে কমোডো ড্রাগনের বাস
পূর্ব ইন্দোনেশিয়ার কয়েকটি দ্বীপে কমোডো ড্রাগনের বাস

ইন্দোনেশিয়ার যে দ্বীপগুলিতে কমোডো ড্রাগন নামে পরিচিত বিশাল আকৃতির সরীসৃপের বসবাস, সে দেশের আঞ্চলিক কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে যে সেখানে আর কোন মানুষকে যেতে দেয়া হবে না। তারা বলছে, ঐ দ্বীপগুলিতে এখন থেকে গণহারে টুরিস্টদের আনাগোনা বন্ধ করা হবে। দ্বীপগুলিতে যেসব মানুষ বসত করেছে, তাদেরও সেখান থেকে সরে যেতে হবে।

বহু বছর ধরে মানুষ কমোডো ড্রাগন দেখে মুগ্ধ। এটা বিশ্বের সবচেয়ে বড় গিরগিটি জাতীয় প্রাণী। এদের দাঁত ধারালো, লম্বা লেজ এবং এর কামড়ে বিষ রয়েছে। পূর্ব ইন্দোনেশিয়ার এক কোণায় কতগুলি বিশেষ দ্বীপে এদের বসবাস। এদের দেখার জন্য প্রতিবছর হাজার হাজার টুরিস্ট ঐ দ্বীপগুলিতে ভিড় করেন। এদের নিয়ে নানা ধরনের ভৌতিক ছায়াছবিও তৈরি হয়েছে। দ্বীপের স্থানীয় বাসিন্দারা মনে করেন, তাদের দেহ-মনের সাথে কমোডো ড্রাগনের গভীর সংযোগ রয়েছে।

কিন্তু মানুষের সাথে এই প্রাণীর সম্পর্ক এখন বদলে যাচ্ছে।

“এই দ্বীপের নাম কমোডো দ্বীপ, তাই এটা শুধু কমোডো ড্রাগনের জন্য। মানুষের জন্য নয়। সেজন্যেই এখানে কোন মানবাধিকার কাজ করবে না। কাজ করবে শুধু প্রাণী অধিকার,” বলছেন ঐ অঞ্চলের গভর্নর ভিক্টর বুংটিলু লাইসকোডাট।

মি. লাইসকোডাট বলছেন, ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ এই দ্বীপ ২০২০ মানুষের জন্য বন্ধ রাখা হবে। এবং এরপর এটি শুধু অল্প কিছু ধনী দর্শনার্থীর জন্য খুলে দেয়া হবে। দ্বীপের বাসিন্দাদেরও সেখান থেকে চলে যেতে হবে।

ইন্দোনেশিয়ার কেন্দ্রীয় সরকার এখন প্রস্তাবটি বিবেচনা করে দেখছে।

বিশ শতকের গোড়ায় ইউরোপ থেকে আসা অভিযাত্রীদের প্রথম দলের তুলনায় কমোডো দ্বীপে এখন অনেক বেশি দর্শনার্থী আসেন।

কমোডো দ্বীপের কাছে টুরিস্টবাহী জাহাজ
কমোডো দ্বীপের কাছে টুরিস্টবাহী জাহাজ

আমরা যখন প্রথমবার কমোডো দ্বীপে যাই, তখন দেখলাম একটি বহুতল প্রমোদ তরী লোহ্ লিয়াং বে’তে নোঙর করে আছে। সকাল সাতটায় পার্কের গেট খোলার সাথে সাথে হাজার হাজার টুরিস্ট পার্কে ঢুকতে শুরু করেন।

অরণ্যের মধ্যে টুরিস্টদের প্রবেশ নিয়ন্ত্রণ করা হয়। পাশের একটি খালের কাছে শুয়ে বসে থাকা কমোডো ড্রাগন দেখার জন্য টুরিস্ট দলকে মাত্র পাঁচ মিনিট সময় দেয়া হয়। তাদের দেখা শেষ হওয়ার সাথে সাথে সেখান থেকে তাদের সরিয়ে দেয়া হয়। এবং পরবর্তী টুরিস্ট দলকে সেখানে নিয়ে যাওয়া হয়।

টুরিস্ট নেরমিন আটামান এসেছেন তুরস্ক থেকে। কমোডো ড্রাগন দেখে তিনি মুগ্ধ। “এগুলো এত সুন্দর! কিন্তু দেখলে ভয় লাগে,” বলছেন তিনি, “আমি ড্রাগনে বিশ্বাস করি না। কিন্তু এদের দেখলে তাদের মতোই মনে হয়।”

জাকার্তার সরকার চেষ্টা করছে এই অপূর্ব সুন্দর জায়গাটিকে টুরিস্টদের জন্য আকর্ষণীয় করে গড়ে তুলতে। তারা সেখানে নানা ধরনের ভবন তৈরি করছে। কমোডো ন্যাশনাল পার্কের প্রবেশপথ লাবুয়ান বাজো এলাকায়। নানা ধরনের বিনিয়োগকারী এবং হোটেল চেইন সেখানে ঝাঁপিয়ে পড়ছে।

ইন্দোনেশিয়া দ্বীপপুঞ্জের সবচেয়ে দরিদ্র জায়গাগুলোর একটিতে এই কমোডো ন্যাশনাল পার্ক। টুরিস্টরা সেখানে যে অর্থব্যয় করেন তা দিয়ে ঐ এলাকার উন্নতি সম্ভব।

সাগর সৈকতে ঘুরে বেড়াচ্ছে কমোডো ড্রাগন
সাগর সৈকতে ঘুরে বেড়াচ্ছে কমোডো ড্রাগন

টুরিস্ট গাইড টিসা সেপ্টিয়ানি ইন্ড্রা বলছেন, “এটা নিয়ে সবাই বেশ উত্তেজিত। কাজের সন্ধানে বহু মানুষ এখানে আসছেন। এখন এই এলাকার উন্নতি হচ্ছে। প্রচুর সুযোগ তৈরি হচ্ছে। “

তবে পরিস্থিতি যেদিকে যাচ্ছে তাতে খুশি নয় স্থানীয় সরকার।

“কমোডো ড্রাগনকে রক্ষা করা যাচ্ছে না,” বলছেন গভর্নর লাইসকোডাট, “অনেক বেশি মানুষ এখানে আসছে। পার্কে ঢোকার জন্য তারা যে টাকা দিচ্ছে তা খুবই সামান্য।”

তারা হিসেব করছেন পার্কের আয় কীভাবে আরও বাড়ানো যায়।

“প্রথমে পার্কের সদস্য হতে হবে। এবং প্রতি বছর পার্কে ঢোকার জন্য ১০০০ ডলার দিতে হবে। এটা খুব বেশি অর্থ না। এভাবে আমরা যদি ৫০,০০০ মানুষকে ঢুকতে দেই, তাহলে আমাদের আয় দাঁড়াবে বছরে পাঁচ কোটি ডলার।”

অস্ট্রেলিয়ার ড. টিম জেসপ বহু বছর ধরে কমোডো ড্রাগন নিয়ে গবেষণা চালাচ্ছেন। তিনি গভর্নরের সাথে একমত যে ট্যুরিজম ঐ এলাকার জন্য ‘কিছুটা হলেও’ সুফল বয়ে আনবে।

তিনি জানালেন, দ্বীপে পর্যটকবাহী জাহাজের সংখ্যা বাড়ছে এবং সেখান থেকে ফেলে দেয়া প্লাস্টিকের কারণে দ্বীপের পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে।

কমোডো অঞ্চলের গভর্নর ভিক্টর বুংটিলু লাইসকোডাট
কমোডো অঞ্চলের গভর্নর ভিক্টর বুংটিলু লাইসকোডাট

দেখুন কীভাবে টুরিস্টের সংখ্যা বেড়েছে

গ্যালাপাগোস দ্বীপের উদাহরণ তুলে ধরে ড. জেসপ জানান, সেখানে দর্শনার্থীদের সংখ্যা নিয়ন্ত্রণ করা হয়। একইভাবে কমোডো দ্বীপের পর্যটন শিল্পকেও এখনই নিয়ন্ত্রণ করতে না পারলে পরে তা কঠিন হয়ে পড়বে।

তবে তিনি বলেন, কমোডো ড্রাগন যে এলাকায় চলাচল করে তার ওপর এর প্রভাব সীমিত।

“নব্বই শতাংশ টুরিস্ট মূলত দ্বীপের নিচু এলাকা দিয়ে চলাফেরা করেন। সেটা জাতীয় উদ্যানের ৩%-৪% এলাকা।”

কমোডো ড্রাগন সবচেয়ে বেশি রয়েছে কমোডো দ্বীপে। কিন্তু কমোডো ন্যাশনাল পার্ক এলাকার মধ্যে ২০টিরও বেশি দ্বীপ রয়েছে। এদেরই একটি দ্বীপ রিনচা-তেও প্রচুর কমোডো ড্রাগন রয়েছে।

ড. জেসপ বলেন, কমোডো ড্রাগনের প্রধান খাদ্য হরিণের সংখ্যা কমে যাচ্ছে বলে গভর্নর যে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন, তা ভিত্তিহীন।

“পার্ক রেঞ্জাররা যখন বলেন যে এটা বিশাল একটা এলাকা এবং এখানকার কিছু জায়গা সুরক্ষিত, কিন্তু অন্য জায়গাগুলো নয়- সেটা হয়তো ঠিক। কিন্তু এখানে অবৈধ হরিণ শিকার চলছে বলে মনে হচ্ছে না। ফলে কমোডো ড্রাগনের খাদ্য সঙ্কট হবে বলেও মনে হয় না।”

যেসব দ্বীপে কমোডো ড্রাগনের বাস
যেসব দ্বীপে কমোডো ড্রাগনের বাস

পার্ক রেঞ্জার স্টেফানাস জালাকও একমত যে সেখানকার হরিণ আগের চেয়ে বেশি সুরক্ষিত।

তিনি বলেন, “হরিণ শিকার অনেক কমে গেছে। দ্বীপের বাসিন্দারাও এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি সচেতন।”

কমোডো দ্বীপে যে গ্রাম রয়েছে তাতে সমুদ্রতীরে ছোট ছোট কুঁড়েঘরে প্রায় ২০০০ লোকের বাস।

এখানে গড়ে উঠেছে নানা ধরনের গেস্ট হাউস। রাতে জেনারেটর চালিয়ে বিদ্যুতের ব্যবস্থা রয়েছে। আর দোকান থেকে ফেলে দেয়া বর্জ্য প্লাস্টিক ছড়িয়ে রয়েছে সমুদ্র সৈকতে।

দ্বীপের বাসিন্দাদের ৭০% পর্যটন শিল্পের ওপর নির্ভরশীল।

এখানে একটি স্টলের মালিক নুর। তিনি সুভ্যেনির বিক্রি করেন। তিনি বলছেন, ভবিষ্যৎ নিয়ে তিনি বেশ উদ্বিগ্ন।

তিনি জানান, দ্বীপের মানুষজন এক সময় শিকার করে, মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু এখন আর তা করে না।

কমোডো ড্রাগন গড়পরতা ১০ ফুট লম্বা হয়
কমোডো ড্রাগন গড়পরতা ১০ ফুট লম্বা হয়

“আমরা এখন আর শিকার করতে পারি না। সমুদ্রে মাছ ধরতে পারি না। এবং আমাদের কোন চাষের জমি নেই।”

স্থানীয় গাইড আব্দুল গফুর কাশিমের আশঙ্কা, যদি গ্রামের লোকজনকে এখন তাদের আগের পেশায় ফিরে যেতে হয়, তাহলে পরিবেশের ওপর তার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

“গ্রামবাসীকে যদি সাগরে ফিরতে হয় তাহলে তারা মাছ ধরার জন্য এমন সব পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারে যা কাম্য নয়। যেমন, তারা বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে মাছ ধরতে পারে। এটা করলে পার্কের জলজীবন ধ্বংস হয়ে যাবে। আবার তারা যদি জঙ্গলে ঢুকতে পারে, তাহলে তারা অবৈধভাবে কাঠ কাটা শুরু করতে পারে,” তিনি বলছেন।

গভর্নর লাইসকোডাট কমোডো দ্বীপ নিয়ে যে পরিকল্পনা করছেন, তাতে দ্বীপের বাসিন্দারা আতঙ্কিত।

সতের বছর বয়সী রোসা সাফিরা বলছেন, “কোনভাবেই আমার দ্বীপ ছেড়ে যাব না। আর আমরা কমোডো ড্রাগনের কোন ক্ষতি করি না।”

“কমোডো ড্রাগন এবং গ্রামবাসীরা এখানে শান্তিপূর্ণ জীবন যাপন করে। কমোডো ড্রাগনকে আরও ভালভাবে দেখাশোনার জন্য আমরা গভর্নরের সাথে মিলে কাজ করতে পারি। কিন্তু দ্বীপ ছেড়ে যেতে পারি না।”

হাজী আমিন, কমোডো দ্বীপের পুরাতন বাসিন্দা
হাজী আমিন, কমোডো দ্বীপের পুরাতন বাসিন্দা

“আমি কমোডো ন্যাশনাল পার্ক এলাকায় হাজার হাজার কিলোমিটার পথ পায়ে হেঁটেছি। বহু বছর ধরে আমি সেখানে গেছি। কিন্তু কোথাও আমি দেখিনি যে মানুষ জঙ্গলে ঢুকে হরিণ শিকার করছে, কিংবা গাছ কাটছে অথবা জঙ্গলে আগুন ধরিয়ে দিচ্ছে। আমার ধারণা এখানকার মানুষ পরিবেশকে সম্মান করেই চলে।”

কমোডো দ্বীপের বাসিন্দারা জানাচ্ছেন, তাদের সাথে কমোডো ড্রাগনের শ্রদ্ধাপূর্ণ সম্পর্কের ভিত্তি স্থানীয় ড্রাগন কন্যার উপকথা।

স্থানীয় বাসিন্দা হাজী আমিন বলছেন, তিনি নিজে মুসলমান হলেও এই উপকথাকে বিশ্বাস করেন।

এই উপকথায় বলা হয়েছে: কমোডো দ্বীপের এক রাজকন্যা যার নাম ছিল পুত্রী নাগা। তিনি একজন মানুষকে বিয়ে করার পর তার দুটি বাচ্চা হয়। একটা মানব শিশু এবং একটি শিশু কমোডো ড্রাগন।

হাজী আমিন বলছেন, “বয়স বাড়ার সাথে কমোডো ড্রাগন শুধু তাজা মাংস খেতে চাইতো। প্রতিদিন প্রতিবেশীদের হাঁসমুরগি খেয়ে ফেলার পর সবাই তার ওপর রেগে যায়। তাই মনের দু:খে সে বনে চলে যায়।”

পরিবারের সাথে হাজী আমিন
পরিবারের সাথে হাজী আমিন

“তারপর থেকে সে বনেই থাকে। মাঝেমধ্যে সে জঙ্গল থেকে বেরিয়ে এসে মা এবং ছোট ভাইয়ের খোঁজখবর করে।”

আর এই সম্পর্কের জন্য গ্রামবাসীরা কমোডো ড্রাগনকে ভয় করে না- যদিও একেকটা কমোডো ড্রাগন গড়ে ১০ ফুট লম্বা হয়। তাদের দাঁত খুবই ধারালো এবং দাঁতে বিষ রয়েছে।

হাজী আমিনের স্ত্রী ইন্দার ওয়াতি বলছেন, তার বাড়ির পেছনে জঙ্গলে যখন তার নাতিনাতনিরা খেলাধুলো করে, তখন তিনি মোটেও দুশ্চিন্তা করেন না।

কমোডো ড্রাগনের আক্রমণে দ্বীপে কত মানুষ হতাহত হয়েছে তার কোন সরকারি হিসেব নেই। তবে একটি হিসেব বলছে, গত ১০ বছরে ১৫টি আক্রমণের কথা জানা যায়, এর মধ্যে একটিতে এক জন মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন।

কমোডো ন্যাশনাল পার্কের সার্বিক দেখাশোনার দায়িত্ব ইন্দোনেশিয়ার পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের, যেটি ১,৪১৬ কিলোমিটার দূরে। কিন্তু সে দেশের আঞ্চলিক স্বায়ত্তশাসন আইন অনুযায়ী স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা এখন অনেক ক্ষমতা হাতে পাচ্ছেন।

গভর্নর ভিক্টর বুংটিলু লাইসকোডাট জানান, টুরিস্ট নিষিদ্ধ করার প্রশ্নে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো তার পরিকল্পনার সাথে একমত পোষণ করেন এবং সম্প্রতি তিনি নিজেও এবিষয়ে বক্তব্য দিয়েছেন।

“টুরিস্টের সংখ্যা সীমিত করে, কোটা প্রথা চালু করে এবং প্রবেশমূল্য বাড়িয়ে আমরা চাই কমোডো দ্বীপকে সত্যিকারভাবে একটি অভয়ারণ্য হিসেবে গড়ে তুলতে,” এমাসের গোড়াতে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট এক বিবৃতিতে বলেন।

তবে তিনি জোর দিয়ে বলেন, পরিকল্পনাটি ভালভাবে তৈরি করতে হবে “কারণ সঠিকভাবে পরিকল্পনাটি বাস্তবায়নের জন্য আমরা এখানে বড় অংকের অর্থ ঢালতে যাচ্ছি।”

পরিবেশ মন্ত্রণালয় বলছে, তারা পরিকল্পনাটি এখন পর্যালোচনা করে দেখছে, এবং কয়েক সপ্তাহের মধ্যে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানা যাবে।

গভর্নর লাইসকোডাট জানান, চূড়ান্ত হওয়ার পর তারা কমোডোর বাসিন্দাদের জন্য অন্য কোন দ্বীপে নতুন ঘরবাড়ি তৈরি করে দেবেন।

কিন্তু দ্বীপবাসীরা তা মানতে নারাজ। এবং তারা লড়াই করতে প্রস্তুত।

“আমাদের যদি এই জায়গা ছাড়তে হয় তবে কমোডো ড্রাগনরাও আমাদের সাথে যাবে,” বলছেন ইন্দার ওয়াতি।

হাজী আমিন বলছেন, “এটা আমাদের পিতৃপুরুষের জমি। এটা ছাড়ার চাইতে মরে যাওয়াও ভাল।”

তিনি দাবি করছেন, ১৯৭০-র দশকেও একবার তাদের সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা হয়েছিল। সে সময় তাদের সাথে যাওয়ার জন্য কমোডো ড্রাগনরাও সাগরে ঝাঁপ দিয়ে সাঁতার কাটতে শুরু করেছিল।

“কমোডো ড্রাগন আর আমাদের মধ্যে সম্পর্ক খুবই জোরালো। এখানে থাকার জন্য আমরা একসাথেই লড়বো।”

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

মন্তব্য এর উত্তর দিন

পরিবেশ

প্যালেডিয়াম: স্বর্ণের চেয়েও দামি যে ধাতুর দাম বেড়েই চলেছে

প্যালেডিয়াম স্বর্ণের চেয়েও দামি ধাতু
প্যালেডিয়াম স্বর্ণের চেয়েও দামি ধাতু

বৈশ্বিক পণ্যের বাজারে প্যালেডিয়াম ধাতুর দাম বেড়ে গেছে।

গত দুই সপ্তাহে এই ধাতুর দাম লাফ দিয়ে ২৫ শতাংশ বেড়েছে। গত বছরের তুলনায় যার মূল্য এখন দ্বিগুণ।

এক আউন্স (২৮.৩৫ গ্রাম) প্যালেডিয়ামের দাম দুই হাজার পাঁচশ ডলার যেটা স্বর্ণের দামের চেয়ে অনেক বেশি।

যে হারে এই ধাতুর দাম বাড়ছে তাতে করে খুব শীঘ্রই এর দাম কমার কোন সম্ভাবনা নেই।

কিন্তু প্রশ্ন হল এই প্যালেডিয়াম ধাতু টা কি? কী কাজে এটার ব্যবহার হয়? এবং কেন এটার দাম হু হু করে বাড়ছে?

প্যালেডিয়াম কী?

এটা দেখতে সাদা চকচকে ধাতু। ধাতুটি প্লাটিনাম ধাতু যে গোত্রের সেই একই গোত্রের।

এই ধাতুর গোত্রে রুথেনিয়াম, রেডিয়াম, অসমিয়াম এবং ইরিডিয়ামও রয়েছে।

রাশিয়া এবং দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে বিশ্বের বেশিরভাগ প্যালেডিয়াম পাওয়া যায়।

খনি থেকে অন্যান্য ধাতু বিশেষ করে প্লাটিনাম এবং নিকেল থেকে নিষ্কাসিত বাইপ্রোডাক্ট বা উপজাত এই প্যালেডিয়াম।

এটা কী কাজে ব্যবহার করা হয়?

গাড়ির একটা গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রাংশ ‘ক্যাটালিটিক কনভার্টার’ তৈরির জন্য এটা মূলত বাণিজ্যিক ভাবে ব্যবহার করা হয়।

এই ক্যাটালিটিক কনভার্টার গাড়ির দূষিত গ্যাস নির্গমন কমাতে সাহায্য করে।

প্যালেডিয়ামের ৮০ শতাংশের বেশি এই যন্ত্রে ব্যবহার করা হয় যেটা বিষাক্ত গ্যাস কার্বন মনোঅক্সাইড এবং নাইট্রোজেন ডাইঅক্সাইড কে কম ক্ষতিকর নাইট্রোজেন, কার্বন ডাইঅক্সাইড এবং জলীয় বাষ্পে রূপান্তরিত করে।

সম্প্রতি এই ধাতুর দাম এতই বেশি হয়েছে যে বিশ্বব্যাপী গাড়ির ক্যাটালিটিক কনভার্টার চুরির ঘটনা বেড়ে গেছে।

ক্যাটালিটিক কনভার্টার গাড়ি থেকে সরিয়ে ফেলা তুলনামূলক সহজ
ক্যাটালিটিক কনভার্টার গাড়ি থেকে সরিয়ে ফেলা তুলনামূলক সহজ

লন্ডনের মেট্রোপলিটন পুলিশ বলছে ২০১৯ সালের প্রথম ছয় মাসে সে সংখ্যায় চোর ধরা পরেছে সেটা গত বছরের তুলনায় ৭০ শতাংশ বেশি।

কেন এর দাম বাড়ছে?

এক কথায় বলতে গেলে চাহিদার তুলনায় যোগান কম, সেই কারণেই এর দাম বাড়ছে।

২০১৯ সালে যে পরিমাণে এই ধাতু উৎপাদন করা হয় তখনি পূর্বাভাস দেয়া হয় আগামী আট বছরে বিশ্বে এর যে পরিমাণ চাহিদা হবে তার অনেক নিচে এর যোগান রয়েছে।

দাম যে হারে বাড়ছে, তার ফলে খনি শ্রমিকদের প্লাটিনাম এবং নিকেলের চেয়ে প্যালেডিয়াম উৎপাদনের প্রতি জোর দেয়া হয়েছে।

কিন্তু আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে এই যে ঘাটতি সেটা থেকেই যাবে।

কারণ দক্ষিণ আফ্রিকা যে দেশটি ৪০ শতাংশের কাছাকাছি উৎপাদন করতো গত সপ্তাহে তারা বলছে, প্লাটিনাম গোত্র যার মধ্যে পেলেডিয়ামও রয়েছে তার উৎপাদন কমে ১৩.৫ শতাংশে নেমে এসেছে।

২০১৯ সালের নভেম্বরের সাথে ২০১৮ সাথে নভেম্বরে তুলনা করলে এই পরিমাণ অনেক কম।

এদিকে গাড়ি প্রস্তুতকারক কোম্পানিগুলোর কাছ থেকে প্যালেডিয়ামের চাহিদা ব্যাপক বেড়ে গেছে এর পেছনে কারণও রয়েছে।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সরকারের কাছ থেকে বিশেষ করে চীনে, পেট্রোল চালিত গাড়ী থেকে বায়ু দূষণ কমানোর নিয়ম-কানুন কঠোর রয়েছে ।

একই সময়ে ইউরোপে গাড়ি থেকে ডিজেল নির্গমন নিয়ে যে কেলেঙ্কারি হল সেটারও প্রভাব পরেছে।

এর ফলে গ্রাহকরা ডিজেল চালিত গাড়ি থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে থাকে, যেখানে ক্যাটালিটিক কনভার্টারের প্লাটিনাম ব্যাবহার করা হত।

তারা এখন পেট্রোল চালিত গাড়ির দিকে ঝুঁকছেন যেখানে কনভার্টরে প্যালেডিয়াম ব্যবহার করা হয়েছে।

আবার এই মাসের শুরুর দিকে চীন-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য চুক্তিও এই ধাতুর দাম বাড়িয়ে দিতে সাহায্য করেছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

পরিবেশ-বান্ধব থেকেও আপনি হতে পারবেন স্টাইল আইকন

পরিবেশবান্ধব থেকেও ফ্যাশনেবল থাকা সম্ভব
পরিবেশবান্ধব থেকেও ফ্যাশনেবল থাকা সম্ভব

আপনি নতুন নতুন ফ্যাশনেবল জামাকাপড় কিনতে এবং পরতে পছন্দ করেন কিন্তু আপনি আবার পরিবেশ রক্ষার বিষয়েও সচেতন। এই দুটোর ভারসাম্য রাখতে গিয়ে কি একটু ঝামেলার মধ্যে পড়েছেন?

তবে দুশ্চিন্তার কিছু নেই। আপনি চাইলে পৃথিবীকে রক্ষায় কাজ করার পাশাপাশি নিজের পোশাকি রুচির সঙ্গে আপোষ ছাড়াই ফ্যাশনেবল থাকতে পারবেন। সাহায্য করতে পারবেন ফ্যাশন শিল্পের পরিবর্তনে ।

পৃথিবীর সবুজ রক্ষায় ফ্যাশন সচেতন ভোক্তাদের জন্য কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিয়েছেন পরিবেশ বিশেষজ্ঞ লুসি সিগল।

এরপর থেকে কেনাকাটা করার আগে নীচে উল্লেখিত ১০টি উদ্ভাবন, প্রবণতা এবং টিপস বিবেচনায় রাখার কথা জানিয়েছেন তিনি। যা আপনাকে সবসময় স্টাইলিশ থাকতে সাহায্য করবে।

গ্রিন কার্পেট ফ্যাশন পুরস্কার পেয়েছেন মডেল গিসেলে বান্ডশেন
গ্রিন কার্পেট ফ্যাশন পুরস্কার পেয়েছেন মডেল গিসেলে বান্ডশেন

১. বারবার না কিনে, অদলবদল করুন

আপনি হয়তো মনে করতে পারেন যে আলমারির চকমকে এই পোশাকটি আপনি ইতোমধ্যে অনেকগুলো অনুষ্ঠানে পরে ফেলেছেন।

কিন্তু পোশাকটি এখনও নতুনের মতো আছে এবং আপনার বন্ধু বান্ধবের অনেকেই সুযোগে আছেন পোশাকটি আপনি কবে বাতিল করবেন।

সেক্ষেত্রে আপনি আপনার পোশাকটি এমনই কারও সঙ্গে অদল বদল করে নিতে পারেন, যার ওয়ারড্রবেও হয়তো এমন কোন পোশাক আছে যেটা কিনা তার কাছে পুরনো হলেও আপনার জন্য নতুন।

এভাবে অদল বদল অথবা গরিব মানুষদের দান করার মাধ্যমে একটি পোশাকের আয়ু বাড়িয়ে দেয়া সম্ভব।

ওয়েস্ট অ্যান্ড রিসোর্স অ্যাকশন প্রোগ্রাম-র‍্যাপ নামে একটি দাতব্য সংস্থার গবেষণা অনুযায়ী, পুরনো পোশাক অদল বদল বা বিতরণের কারণে যুক্তরাজ্যে পোশাক বর্জ্যের পরিমাণ ২০১২ সালের তুলনায় ৫০ হাজার টন কমে গিয়েছে।

ওয়াশিং মেশিনে পানির তাপমাত্রা কমিয়ে দিন
ওয়াশিং মেশিনে পানির তাপমাত্রা কমিয়ে দিন

২. তাপমাত্রা কমিয়ে নিন

পরিবেশ রক্ষায় সচেতন হওয়া মানে এই নয় যে দাগযুক্ত ময়লা কাপড় পরতে হবে। কিন্তু যখনই আপনি কাপড় ধুতে যাবেন তখন পানির তাপমাত্রা ৬০ ডিগ্রী সেলসিয়াসের পরিবর্তে ৩০ ডিগ্রী সেলসিয়াসে নামিয়ে নিন।

এছাড়া ওয়াশিং মেশিনে টাম্বল ড্রায়ারে কাপড় শুকানোর পরিবর্তে বাইরের বাতাসে কাপড় শুকিয়ে নেয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

সেইসঙ্গে যতোটা সম্ভব আয়রনের ব্যবহার কমিয়ে হালকা কোঁচকানো পোশাকে অভ্যস্ত হওয়ার কথাও সেখানে উল্লেখ করা হয়।

র‍্যাপের মতে, শুধুমাত্র বাড়িতে ওয়াশিং মেশিনে পানির তাপমাত্রা কমিয়ে সেইসঙ্গে টাম্বল ড্রাইং ও আয়রনের ব্যবহার কমিয়ে কার্বন নি:সরণের হার ৭০ লাখ টন কমানো সম্ভব হয়েছে।

পোশাকে নতুনত্ব আনতে পারাটাই আসল কথা
পোশাকে নতুনত্ব আনতে পারাটাই আসল কথা

৩. লেস ইজ মোর

সাম্প্রতিক বছরগুলোতে পোশাকের বিক্রি উল্লেখযোগ্য হারে বাড়তে দেখা যায়।

২০১৬ সালে শুধু যুক্তরাজ্যেই ১১ লাখ ৩০ হাজার টন পোশাক বিক্রি হয়েছে।

তবে এখনকার ভোক্তাদের মধ্যে যে প্রবণতাটি লক্ষ্য করা যায়, সেটি হল টাকা জমিয়ে দামি ও ভালো মানের টেকসই পোশাক কেনা।

একটি কাপড় দীর্ঘদিন ধরে ব্যবহার, নতুন পোশাকের উৎপাদন কমাতে বড় ধরণের ভূমিকা রাখে।

মনে রাখতে হবে: “সস্তা কিনুন, দু’বার কিনুন!”

এম সি হ্যামার তার লাকি প্যান্টস পরে পারফর্ম করছেন
এম সি হ্যামার তার লাকি প্যান্টস পরে পারফর্ম করছেন

৪. ভাগ্যবান জামা তত্ত্ব:

মনোবিজ্ঞানের গবেষণায় দেখা গেছে যে, মানুষ এমন একটি পোশাক ধরে রাখতে চান যেটার কোন প্রতীকী অর্থ রয়েছে।

যদি তিনি বিশ্বাস করেন যে, কোন সফল সাক্ষাতকারের জন্য সেদিনের পরে থাকা জামাটি ভাগ্য-কবজের মতো কাজ করেছে। তাহলে পরের সাক্ষাতকারেরও তিনি এই পোশাকটি পরিধান করতে চাইবেন।

একই বিষয় কাজ করে জন্মদিন বা বিয়ের পোশাকের ক্ষেত্রে।

এভাবেই আমাদের সবার উচিত নিজেদের প্রতিটি পোশাককে ঘিরে একটি ব্যাখ্যা তৈরি করা।

এতে পুরনো পোশাককে ঘিরেও আমাদের ভালোলাগা তৈরি হবে এবং আমরা একে হারাতে চাইব না।

অনলাইনে পোশাক অদল বদল করা যায়
অনলাইনে পোশাক অদল বদল করা যায়

৫. বিনিময় হতে পারে অনলাইনে

আমাদের মধ্যে অনেকেই আছেন যারা বিভিন্ন অনলাইন শপ থেকে দর কষাকষি করে স্বল্প মূ্ল্যের ব্যবহৃত পোশাক কেনেন।

পুরানো কাপড় ফেলে না দিয়ে এমনই কোন অনলাইন শপে নিজের পোশাকটি বিক্রি করা যেতে পারে।

এছাড়া অনেক চেইন শপ বা ফ্যাশন হাউজ ব্যবহৃত কাপড় রি-কন্ডিশন স্টকে বিক্রি করে থাকে।

এতে পোশাক বিনিময় শিল্পটি যেমন বিস্তার লাভ করবে তেমনি পুরনো পোশাকও পায় নতুনত্বের ছোঁয়া।

ইদানিং বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে থ্রিডি মুদ্রিত পোশাক
ইদানিং বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে থ্রিডি মুদ্রিত পোশাক

৬. থ্রিডি মুদ্রণ

তেল আবিব-ভিত্তিক ফ্যাশন ডিজাইনার দেনিত পেলেগ “ফিলাফ্লেক্স” নামের শক্তিশালী ও নমনীয় ফিলামেন্ট ব্যবহার করে থ্রি-ডি মুদ্রিত পোশাক ডিজাইন করেছেন। যা ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

চাইলে যে কেউ তার পুরনো পোশাকে থ্রিডি প্রিন্ট করে নতুন রূপ দিতে পারেন।

এ ধরণের একটি প্রিন্টার থাকলে বাড়িতে বসে যে কেউই নিজের কাপড় নিজে ডিজাইন করতে পারবেন।

সেলাইয়ের দক্ষতা আপনার পোশাককে নতুন রূপ দিতে পারে
সেলাইয়ের দক্ষতা আপনার পোশাককে নতুন রূপ দিতে পারে

৭. নতুন কিছু তৈরি করুন

আগেকার মানুষের সেলাইয়ের দক্ষতা থাকার কারণে নিজেদের পোশাকটিকে নিজেরাই মাপ মতো বানাতে পারতেন বা কাটছাঁট করে নতুন রূপ দিতে পারতেন। কিন্তু আজকাল কেউ আর সুঁই সুতা হাতে তোলেননা।

এখনও অনেকেন বোতাম পর্যন্ত জোড়া দিতে সংগ্রাম করতে হয়।

তবে আজকাল সেই মানুষগুলোর সাহায্যে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে নানা ধাঁচের দর্জির দোকান।

আয়োজন করা হচ্ছে সেলাই নিয়ে নানা ধরণের কর্মশালার। এছাড়া অনলাইনে সেলাইয়ের টিউটোরিয়ালগুলো দারুণ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

সামান্য জোড়াতালি, রিফু, বোতাম জুড়ে দেয়া অথবা জিপার প্রতিস্থাপন একটি পোশাককে ডাস্টবিনের পরিবর্তে আপনার ওয়ারড্রবে জায়গা দিতে পারে।

এছাড়া পুরাতন পোশাককে মেরামত বা কাটছাঁট করে নতুন করে তোলা যায়।

যেমন ফুলপ্যান্ট কেটে বানিয়ে নিতে পারেন শর্টস। প্রিয় টপসটা হয়তো রং করে নিতে পারেন। নতুন পকেট জুড়ে, বোতাম লাগিয়ে বা সেলাইয়ের ফোড় দিয়ে বদলে দিতে পারেন পুরো পোশাকটাই।

ফলের তৈরি কাপড় হতে পারে পরিবেশবান্ধব
ফলের তৈরি কাপড় হতে পারে পরিবেশবান্ধব

৮. ফলের তৈরি কাপড়

ফল থেকে তৈরি কাপড় ফ্যাশন শিল্পে নতুন জোয়ার তুলেছে। এখন কমলা, আনারস এমনকি আপেলের শাঁস থেকে তৈরি করা হচ্ছে নানান ধাঁচের কাপড়।

সাধারণত নানা ধরণের ফলের বর্জ্যে পলিইউরেথেন মিশিয়ে তৈরি করা হয় এই কাপড়।

এ ধরণের কাপড় এবং চামড়া যেমন হালকা এবং টেকসই। তেমনই পরিবেশ-বান্ধব।

কিন্তু এই ফলের তৈরি কাপড় যদি আপনার পছন্দ না হয় তাহলে আপনি “নিউলাইফ”-এর পোশাক পরতে পারেন।

“নিউলাইফ” এক ধরণের সুতা যেটা কিনা পুনর্ব্যবহৃত প্লাস্টিকের বোতল থেকে বানানো হয়।

বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান টেকসই তুলা উৎপাদনের উদ্যোগ নিয়েছেন
বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান টেকসই তুলা উৎপাদনের উদ্যোগ নিয়েছেন

. টেকসই তুলো

তুলার উৎপাদন পরিবেশের ওপর একটি বিধ্বংসী প্রভাব ফেলে।

এক কেজি তুলা উৎপাদনের জন্য গড়ে ১০ হাজার থেকে ২০ হাজার লিটার পানি খরচ হয়। একজন মানুষের ২০ বছর সময়ে এই পরিমাণ পানি পান করে থাকে।

অথচ ওই এক কেজি তুলা দিয়ে একটি শার্ট ও দুটি জিনসের চেয়ে বেশি কিছু বানানো সম্ভব না।

তাছাড়া তুলা চাষের জন্য প্রচুর ফাঁকা জমির প্রয়োজন হয়। সেইসঙ্গে দরকার হয় প্রচুর পরিমাণে ক্ষতিকর কীটনাশকের।

তবে বর্তমানে কয়েকটি ফ্যাশন ব্র্যান্ড ২০২০ সালের মধ্যে শতভাগ টেকসই তুলা ব্যবহারের অঙ্গিকার করেছে।

এই টেকসই তুলা উৎপাদনে পানি ও কীটনাশকের ব্যবহার যেমন অনেকাংশে কমিয়ে আনা যাবে। তেমনি কাজের নিরাপদ পরিবেশও নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

সোলার ফাইবার তৈরি করা হচ্ছে
সোলার ফাইবার তৈরি করা হচ্ছে

১০. সৌর আনুষঙ্গ

ভোক্তাদের খুশি করার লক্ষ্যে এখন বাজারে এসেছে প্রযুক্তিগতভাবে উন্নত কাপড়। যেটা ভোক্তারা বারবার পরিধান করতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন।

তেমনই একটি কাপড় হল “সোলার ফাইবার” বা “সৌর তন্তু”।

মূলত সুতার আকারে উৎপাদিত এই সৌর কোষ দিয়ে কাপড় বোনা হয়।

সেইদিন আর দূরে নয় যেদিন আমরা নিজেদের মাথার সৌর স্কার্ফটিতে ফোন প্লাগ ইন করে পোর্টেবল চার্জার হিসেবে ব্যবহার করতে পারবো।

যেখানে পরনের কাপড়ে পাওয়া যাবে ঘাড় গরম রাখার সুবিধা।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

জেনে নিন ফ্যাশন কিভাবে পরিবেশ বিপর্যয় ঘটাচ্ছে

বহু মানুষ খুব কেতাদুরস্ত থাকতে পছন্দ করেন
বহু মানুষ খুব কেতাদুরস্ত থাকতে পছন্দ করেন

পশ্চিমা বিশ্বে শীত, গ্রীষ্ম, শরত সব মৌসুমে নতুন সব ডিজাইনের পোশাক বের হয়।

গত মৌসুমে যে পোশাকটি হাঁটু পর্যন্ত চল ছিল, ঠিক তার কয়েক মাস পরেই পায়ের গোড়ালি ছুঁই অথবা বেশি ঘের, কম ঘেরের কোন গাউন বাজার মাতিয়ে দিলো।

প্রতি মৌসুমে আপনিও ছুটছেন জমকালো শপিং মলে সেটি কিনবেন বলে। হঠাৎ বাজারে নির্দিষ্ট কোন রঙের পোশাকের খুব কাটতি বাড়ল।

যেমন বাংলাদেশে উৎসবের মৌসুমে নির্দিষ্ট কিছু রঙের পোশাক কিনতে মানুষজন বাজারে ছুটতে থাকেন।

কিন্তু বাকি সারা বছর পোশাকটি পরে থাকে। কয়েক মাস পরে তা হয়ে যায় গত মৌসুমের পোশাক।

ডিজাইনার এবং পোশাক বিক্রেতারা আনকোরা কিছু দিতে সবসময় একে অপরের সাথে প্রতিযোগিতায় নামেন। সেই প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছি আমরা সবাই।

নিত্য নতুন পোশাক পরে বাহবা পেতে চাই আমরা অনেকে। কিন্তু এর একটা চরম খেসারত দিতে হচ্ছে পরিবেশকে।

প্রতি মৌসুমে আসছে নিত্য নতুন ডিজাইনের পোশাক
প্রতি মৌসুমে আসছে নিত্য নতুন ডিজাইনের পোশাক

ফ্যাশন কিভাবে পরিবেশের ক্ষতি করে?

ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রি প্রচুর পরিমাণে গ্রিন হাউজ গ্যাস উৎপন্ন করে। ব্রিটেনে পোশাক বিক্রেতা এবং হাল ফ্যাশন নিয়ে মাতামাতি করেন এমন ব্যক্তিরা পরিবেশের ক্ষতিতে তাদের ভূমিকার জন্য সমালোচিত হচ্ছেন।

ব্রিটেনে হাউজ অফ কমন্সের পরিবেশ বিষয়ক একটি কমিটি বলছে প্রতি মৌসুমে না লাগলেও শুধু কেতাদুরস্ত থাকার জন্য নতুন কাপড় কেনা মানেই এক বছর বা মাত্র কয়েক মাসেই প্রচুর কাপড় বাতিল হয়ে যাচ্ছে।

বাতিল কাপড় গিয়ে জমছে ময়লার ভাগাড়ে। ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে ব্রিটেনেই সবচাইতে বেশি নতুন কাপড় কেনার প্রবণতা।

গত এক দশক আগে মানুষজন সেখানে যে পরিমাণ কাপড় ক্রয় করতো এখন তার দ্বিগুণ কিনছে।

এই কমিটির তথ্য অনুযায়ী ব্রিটেনে গত বছর প্রায় ২৫ কোটি জামা কাপড় ময়লার ভাগাড়ে পাঠানো হয়েছে।

এক বছরের মধ্যে সেখানে প্রতি পাঁচটি কাপড়ের তিনটি বাতিল হচ্ছে এবং ল্যান্ডফিল থেকে সেগুলো সংগ্রহ করে পুড়িয়ে ফেলা হচ্ছে।

তাতে খরচ হচ্ছে জ্বালানি। ব্রিটেনে ২০১৫ সালে ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রির কারণে একশ বিশ কোটি টন কার্বন উৎপন্ন হয়েছে।

চলে ক্রয় বিক্রয়ের প্রতিযোগিতা
চলে ক্রয় বিক্রয়ের প্রতিযোগিতা

কাপড় প্রস্তুত করতে বা ধুতে পানি ও বিদ্যুৎ লাগে, জ্বালানি লাগে সেটি বিবেচনা করতে হবে।

একটি জিনসের প্যান্ট যতদিন টেকে ততদিন সেটি পরিষ্কার করতে প্রায় চার হাজার লিটার পানি দরকার হয়।

মাত্র একটি জিনস পরিষ্কার করতে যদি এত পানি লাগে তাহলে আপনি বছর জুড়ে জিনস সহ যত কাপড় পড়ছেন তা পরিষ্কার করতে কত পানি লাগে চিন্তা করুন তো।

বা একটা পুরো শহরের কাপড় ধুতে কত পানি লাগে? কাপড় উৎপন্ন করতে বিদ্যুৎ লাগে। মেশিনে কাপড় পরিষ্কার করতে বা তা আয়রন করতেও বিদ্যুৎ লাগে।

হাউজ অফ কমন্সের পরিবেশ বিষয়ক কমিটি আরও বলছে শুধুমাত্র একটি পরিবার মেশিনে একবার কাপড় পরিষ্কার করার পর সত্তর হাজার কাপড়ের তন্তু পানির সাথে পরিবেশে মিশে যাচ্ছে।

যেসব কাপড় আপনি বাতিল করছেন তা এক পর্যায়ে সমুদ্রে গিয়ে পড়ছে। সমুদ্রের মাছ কৃত্রিম কাপড় খাচ্ছে।

এই কমিটির হিসেবে ২০৫০ সাল নাগাদ ব্রিটেনে জলবায়ু পরিবর্তনের যে প্রভাব পড়বে তার তিন ভাগের এক ভাগেরও বেশি দায় হবে ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রির।

নিউ ইয়র্ক ফ্যাশন উইকে পোশাক প্রদর্শন করছেন দুইজন মডেল
নিউ ইয়র্ক ফ্যাশন উইকে পোশাক প্রদর্শন করছেন দুইজন মডেল

কিন্তু এর সমাধান কি?

কাপড় ফেলে দেয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা আনার পরামর্শ দিয়েছে ব্রিটেনের পরিবেশ বিষয়ক কমিটি।

তারা বলছে পরিবেশের উপর যে প্রভাব পড়ছে ফ্যাশন ইন্ডাস্ট্রিকে সরাসরি তার দায়ভার নিতে হবে। দূষণ রোধে তাদের সরাসরি কাজ করতে হবে।

ব্রিটেনে যেসব পোশাক বিক্রি হয়না সেগুলো পুড়িয়ে ফেলছেন অনেক বিক্রেতা। সেটি বন্ধ করার কথা বলছে কমিটি।

ব্যক্তি হিসেবে আপনারও করনিয় আছে। যেমন ফেলে না দিয়ে কাপড় দান করে পারেন।

এতে কাপড় রিসাইক্লিং হবে এবং কিছুটা লাভ হবে। শুধু দরিদ্র নয় আপনি নিজেও রিসাইক্লিং করা কাপড় কিনতে পারেন।

বেশিদিন টেকে এমন কাপড় তৈরি করা যেতে পারে। ইচ্ছেমত কাপড় বাতিল করার বদলে বেশিদিন পড়তে পারেন।

পোশাক বিক্রেতারা কি বলছেন?

ব্রিটিশ রিটেইল কনসোর্টিয়ামের কর্মকর্তা পিটার অ্যান্ড্রুজ বিবিসিকে বলেছেন জনসংখ্যা বৃদ্ধি এবং তাদের কাপড়ের চাহিদার কারণে কাপড়ের পরিমাণ এবং পরিবেশের উপর তার প্রভাব বাড়ছে।

তিনি বলছেন, তাদের সদস্যরা এখন বেশি টেকে এমন পোশাক ডিজাইন করছেন।

তারা ক্রেতাদেরও কাপড় দান করার ব্যাপারে উৎসাহিত করছেন। ক্রেতাদের বলা হচ্ছে অব্যবহৃত কাপড় দোকানে দিয়ে যেতে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

নতুন পোশাক কেনার আসক্তি কিভাবে কমাবেন

দোকানে পোশাক দেখছেন এক নারী
দোকানে পোশাক দেখছেন এক নারী

কম দামে নতুন পোশাক কিনতে আমরা সবাই ভালোবাসি। বেশিরভাগ সময়ই এগুলো আমরা দ্রুত এবং সস্তায় কিনি এবং একবার পড়ার পরেই তা ছুড়ে ফেলে দেই।

কিন্তু হালের এসব পোশাকই গ্রিন হাউস গ্যাস নি:সরণ, পানি এবং বায়ুদূষণের অন্যতম কারণ। সৃষ্টি করে মাত্রাতিরিক্ত বর্জ্য এবং অন্যান্য দেশে এগুলো পাঠানো হলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তা তেমন ব্যবহার উপযোগী থাকে না।

যুক্তরাজ্যের পরিবেশগত অডিট কমিটি দেশটির সরকারের কাছে এই শিল্প বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে। পরিবেশ এবং শ্রম বিষয়ক ১৮টি সুপারিশ করেছে তারা। সরকার বলছে, এই সমস্যার সমাধানে কাজ করছে তারা।

তবে ক্ষতিকর এমন শপিং করার অভ্যাস কমিয়ে আনতে কি করা যায় সে বিষয়ে টেকসই ফ্যাশন বিশেষজ্ঞরা কিছু পরামর্শ দিয়েছেন। এগুলো হলো:

১. কম কেনাই বেশি কেনা

পরিবেশবাদী আন্দোলনকারী ও টলি ডলি নামে নৈতিক ফ্যাশন বিষয়ক ব্লগার টলমিয়া গ্রেগরি বলেন, “সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হচ্ছে, কম কিনতে হবে।”

তিনি বলেন, “নির্দিষ্ট কোন অনুষ্ঠান যেমন রাতে পরার কিংবা ছুটির দিনে পরার আলাদা আলাদা পোশাক কেনার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসতে হবে আমাদের।”

টলেমিয়া গ্রেগরি
টলেমিয়া গ্রেগরি

“প্রথম দিকে মানুষ একে আক্রমণাত্মক মনে হতে পারে,” তিনি বলেন।

“কিন্তু এই চর্চা থেকে বেরিয়ে আসার সম্ভাব্য সব ধরণের চেষ্টা করতে হবে আমাদের। মাথায় রাখতে হবে যে এটা একটা ভালো উদ্যোগ।”

একই কথা বলেছেন সেন্টার ফর সাসটেইনেবল ফ্যাশনের উপযোগিতা, নকশা এবং ফ্যাশন বিষয়ক অধ্যাপক কেট ফ্লেচার। তিনি বলেন, “কম পোশাক কেনা মোটেও দেহের প্রতি মারাত্মক কোন অবিচার বা বঞ্চনা নয়।”

তিনি পরামর্শ দেন, “নিজের ওয়্যারড্রোবে যেসব পোশাক আছে সেগুলোই আগে লক্ষ্য করুন। কারণ ওগুলোই আপনার জীবনমান নির্ধারণ করে।”

তিনি বলেন, “আমরা অনেক সময় এমন পোশাক কিনি যা আমাদের তুষ্ট করার পরিবর্তে অসন্তুষ্টির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।”

“কেনাকাটা করার সময় মানুষ অত্যন্ত তৃপ্তি লাভ করে। কিন্তু পরক্ষণেই ওই কেনা বস্তু বা পোশাকের উপর আগ্রহ হারিয়ে ফেলে,” তিনি বলেন।

“কেনাকাটা নিয়ে মানুষ কতটা সুখী এমন এক গবেষণায় দেখা যায়, মৌলিক চাহিদা মেটার পরে অন্যসব কেনা কাটা মানুষের কল্যাণে তেমন কোন কাজে আসে না।”

তিনি বলেন, পোশাকের ব্র্যান্ডগুলোর অ্যাগ্রেসিভ মার্কেটিং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এসব তথ্যকে অগ্রাহ্য করে।

“আমরা আসলে যা দেখি তা হচ্ছে, অতিরিক্ত পাওয়ার বিষয়টি মানুষের কল্যাণের বোধকে কমিয়ে দেয়।”

“এটা একাকীত্ব এবং উচ্চ মাত্রার অবসাদ ডেকে আনে। এটা আমাদের সুখ কেড়ে নিচ্ছে এবং একাকী করে তুলছে,” তিনি বলেন।

২. সেকেন্ড হ্যান্ড পোশাক কিনুন

মিস ফ্লেচার-যিনি টেকসই ফ্যাশন নিয়ে একাধিক বই লিখেছেন তিনি বলেন, “জনপ্রিয় ফ্যাশনের শহরগুলো বা হাই স্ট্রিট কেনা কাটার জন্য খুব সুনির্দিষ্ট পরিসর দিয়ে থাকে যার মধ্য থেকেই মানুষ আগ্রহ নিয়ে কেনাকাটা করে।”

“আপনার রুচি যদি আসলেই নতুনত্ব, আধুনিকতা, পরিবর্তন এবং বৈচিত্র্যের উপর নির্ভরশীল হয় তাহলে, আপনার ওয়্যারড্রোব আর সেকেন্ড হ্যান্ড পোশাক কেনাতেই আপনি এগুলো অনেক বেশি পরিমাণে খুঁজে পাবেন।”

ফ্রান্সেসকা উইলো
ফ্রান্সেসকা উইলো

ফ্রান্সেসকা উইলো, ইথিক্যাল ইউনিকর্ন নামে নিজের ফ্যাশন ব্লগের এই লেখিকা বলেন, “প্রথমেই খুঁজে দেখার জন্য সেকেন্ড হ্যান্ডই সবচেয়ে ভালো অপশন। কারণ এটি ইতোমধ্যে অস্তিত্ব রয়েছে এমন জিনিসের উপযোগিতা বাড়িয়ে দেয়।”

তিনি বলেন, “অনেকেই চ্যারিটি শপগুলোকে কৌশলে এড়িয়ে যান। কারণ তারা জানেন যে তারা আসলে কি চাইছেন। কিন্তু ডি-পপ এবং ভিনটেডের মতো সেকেন্ড হ্যান্ড পণ্যের অ্যাপগুলো আপনার পোশাক নির্বাচনের জন্য আসলেই সহায়ক।”

৩. প্রাকৃতিক উপাদান বাছাই করুন

টেকসই বিষয়ক ব্লগাররা বলেন, “যেকোন মূল্যে” নতুন সিনথেটিক উপাদান দিয়ে তৈরি পোশাক কেনা বন্ধ করতে হবে।

মিস উইলো বলেন, “আমি হেম্প, লিনেন এবং জৈব সুতি বস্ত্র যা গ্লোবাল অরগানিক টেক্সটাইল স্ট্যান্ডার্ডের অনুমোদনের আওতায় পড়ে এমন পোশাক নিখুঁত না হলেও কিনি।”

তিনি আরো বলেন, “আমাদের উচিত কাপড়ের দীর্ঘস্থায়ীত্ব বাড়ানো। এটা নির্ভর করে কিভাবে আপনি কাপড়ের যত্ন নিচ্ছেন তার উপর। নির্দেশিকা দেখে এবং সে অনুযায়ী ধৌত করলে কাপড় টেকসই হয়।”

“বেশিরভাগ মানুষই বেশি গরম পানিতে কাপড় ধুয়ে থাকেন। অথচ ঠাণ্ডা পানি ব্যবহার করলে জ্বালানিও কম ব্যয় করতে হয়।”

তিনি বলেন, “আপনার কাছে থাকা সিনথেটিক কাপড় ধৌত করতে হলে তার সাথে আলাদা ব্যাগ ব্যবহার করতে হবে যাতে এর থেকে বের হওয়া ক্ষুদ্র তন্তুগুলো জলজ পরিবেশকে দূষিত না করে।”

ব্যাগ কোন সমাধান নয়। তবে এটি আমাদের সৃষ্ট সমস্যাকে কিছুটা হলেও কমাতে সাহায্য করতে পারে।

৪. যাচাই করুন

মিস উইলও বলেন, যেকোনো ব্র্যান্ড থেকে নতুন কাপড় কেনার আগে সেগুলো কোথায় এবং কারা বানিয়েছে সে বিষয়ে মানুষের প্রশ্ন করা উচিত।

“ফেয়ার ওয়্যার ফাউন্ডেশনের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো থেকে অনুমোদন পাওয়া ব্র্যান্ডগুলোর কাপড়ই কেনা উচিত। কারণ তারা অন্তত ন্যায্য মজুরীর বিষয়টি নিশ্চিত করে,” তিনি বলেন।

দক্ষ হয়ে উঠুন, তাহলে আপনি নিজেই এই অভ্যাস তৈরি করতে পারবেন
দক্ষ হয়ে উঠুন, তাহলে আপনি নিজেই এই অভ্যাস তৈরি করতে পারবেন

তিনি বলেন, অনেক ব্লগ রয়েছে যেগুলোতে এ ধরণের ব্র্যান্ড সম্পর্কে ধারণা দেয়া হয়েছে যা আপনার সহায়ক হতে পারে।

“অনেক ক্রেতার কাছেই ঝামেলার মনে হতে পারে। সত্যি করে বলতে গেলে ভোক্তাদেরকে আসলেই অনেক কাজ করতে হবে এগুলো মানতে হলে। আর এজন্যই আমাদের প্রক্রিয়া এবং নীতিগত পরিবর্তন দরকার।”

“কিন্তু নিজের থেকেই এই পরিবর্তন শুরু করাটা সহজ। দক্ষ হয়ে উঠুন, তাহলে আপনি নিজেই এই অভ্যাস তৈরি করতে পারবেন। যা আপনাকে তৃপ্তি দেবে,” তিনি বলেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

সুন্দরবন যেভাবে উপকূলকে রক্ষা করেছে, তাতে এই বনাঞ্চল টিকিয়ে রাখাটা কত জরুরি

সুন্দরবনে ঝড়ের তীব্রতা ঠেকাতে ঢাল হিসাবে কাজ করে গাছ
সুন্দরবনে ঝড়ের তীব্রতা ঠেকাতে ঢাল হিসাবে কাজ করে গাছ

“মনে করেন আপনার বাড়ির সামনে একটা দেয়াল আছে। সেটার কারণে বন্যার পানি, দমকা বাতাস আপনার ঘরে ঢুকতে পারবে না। বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকূলের জন্য সুন্দরবন ঠিক সেই দেয়ালের কাজটাই করে।”

ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের ছোবল থেকে উপকূলীয় এলাকা রক্ষায় সুন্দরবন যে ঢাল হিসেবে কাজ করেছে, সেই ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে এমন মন্তব্য করেন পরিবেশবিদ ড. একিউএম মাহবুব।

এই বন না থাকলে উপকূলে বড় ধরণের তাণ্ডব হতে পারতো বলে তিনি আশঙ্কা করেন।

শনিবার রাতে বাংলাদেশের সুন্দরবন সংলগ্ন সাতক্ষীরা উপজেলায় আঘাত হানে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল। এরপর এটি সুন্দরবনের খুলনা ও বাগেরহাট অংশের ওপর দিয়ে বয়ে যায়।

তবে প্রবল শক্তির এই ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব সেভাবে পড়তে পারেনি বনের গাছপালায় এই ঝড় বাধা পাবার কারণে।

ভূখণ্ডে আঘাত হানার সময় এর গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৪০ কিলোমিটার, কিন্তু সুন্দরবনের গাছপালার কারণে সেটির প্রভাব ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটারের মত অনুভূত হয় বলে বলছেন পরিবেশবিদ ড: মাহবুব।

সুন্দরবন না থাকলে উপকূলে বড় ধরণের তাণ্ডব হতে পারতো বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।
সুন্দরবন না থাকলে উপকূলে বড় ধরণের তাণ্ডব হতে পারতো বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

সুন্দরবন যেভাবে রক্ষা করেছে

প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় বনাঞ্চলের ওপর দিয়ে দুই ধরণের ধাক্কা যায়। প্রথমে ক্ষিপ্র গতির বাতাস এরপর জলোচ্ছ্বাস।

সুন্দরবনের কারণে ঘূর্ণিঝড়ের বাতাস বাধাপ্রাপ্ত হয়ে অপেক্ষাকৃত কম গতি নিয়ে খুলনা আর বাগেরহাটে লোকালয়ে পৌঁছায়।

বনে ঘূর্ণিঝড়ের গতিবেগ যেখানে ঘণ্টায় ১০০ কিলোমিটার ছিল, সেটা বন পার হয়ে লোকালয়ে যেতে যেতে শক্তি হারিয়ে দমকা বাতাসে রূপ নেয় বলে বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

অন্যদিকে, জলোচ্ছ্বাস লোকালয়ে পৌঁছানোর আগে সুন্দরবনে বাধাপ্রাপ্ত হওয়ায় ঢেউয়ের উচ্চতা অনেক কমে যায়।

এ কারণে উপকূলীয় এলাকাগুলো প্লাবিত হওয়ার ঝুঁকি বা ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা তেমন থাকে না বলে বলছেন পরিবেশবিদরা।

সুন্দরবনের চিত্রা হরিণ
সুন্দরবনের চিত্রা হরিণ

সুন্দরবনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে কতোটা

শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ঠেকাতে এর আগেও ঢাল হিসেবে কাজ করেছে সুন্দরবন।

বিশেষ করে ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর ঘূর্ণিঝড় সিডর এবং ২০০৯ সালের ২৫ মে ঘূর্ণিঝড় আইলার তাণ্ডব থেকে এই বন উপকূলকে রক্ষা করেছে।

যদিও সেই দুর্যোগে বড় ধরণের ক্ষতির শিকার হয়েছিল বিস্তৃত বনাঞ্চল।

খুলনা বন বিভাগের কর্মকর্তা মোঃ. বশিরুল আল মামুন ধারণা করছেন এবারের ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে গাছপালা ক্ষতিগ্রস্ত হলেও বন্য প্রাণীদের ওপর বড় ধরণের কোন প্রভাব পড়ার আশঙ্কা নেই।

কেননা সুন্দরবনে যে সময়টায় জোয়ার হয়, সে সময়ে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল আঘাত করেনি। যার কারণে এবার পানির উচ্চতা স্বাভাবিকের চাইতে খুব একটা বেশি ছিল না।

তাই প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে যে এবারে বন্যপ্রাণীর ক্ষয়ক্ষতি তেমন একটা হয়নি।

তবে ঘূর্ণিঝড়টি প্রবল বেগে সুন্দরবনে আছড়ে পড়ায় বিস্তীর্ণ এলাকায় গাছপালা ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা করছেন বন কর্মকর্তারা।

আগামী কয়েকদিনের মধ্যে সুন্দরবনে জরিপ চালিয়ে সামগ্রিক ক্ষয়ক্ষতি খতিয়ে দেখা হবে বলে জানান মি. মামুন।

তবে এবারের ক্ষয়ক্ষতি সিডরের মতো না হওয়ায় বন খুব দ্রুত নিজ সক্ষমতায় পূর্বের অবস্থায় ফেরত যাবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

সুন্দরবন
সুন্দরবন

সুন্দরবনকে রক্ষায় সুপারিশ

ঘূর্ণিঝড় বুলবুল মোকাবিলায় সুন্দরবন সহায়তা করেছে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মোঃ এনামুর রহমান। সুন্দরবনকে রক্ষায় শিগগিরই ২২টি মন্ত্রণালয়ের সমন্বয়ে একটি সুনির্দিষ্ট সুপারিশ প্রণয়নের কথা জানান তিনি।

বনে যত্রতত্র গাছ কাটা ঠেকাতে ও জীববৈচিত্র রক্ষায় বনের নিরাপত্তা বাড়ানো, সেইসঙ্গে বনায়নের জন্য বেশি বেশি গাছ লাগানোর সুপারিশ করবেন তারা।

এছাড়া সবুজ উপকূল বেষ্টনী করার বিষয়টিকে তারা গুরুত্ব দিয়ে দেখবেন।

বিবিসি বাংলাকে মি. রহমান বলেন, “সুন্দরবন শুধু এবার না এর আগেও অসংখ্য ঘূর্ণিঝড় জলোচ্ছ্বাস থেকে আমাদের রক্ষা করেছে। আমাদেরও মনে হয়েছে এই দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলকে রক্ষায় আমাদের সুন্দরবনের দিকে দৃষ্টি দিতে হবে।”

সকালে আবহাওয়া অধিদফতরের প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয় সুন্দরবন অতিক্রম করে ঘূর্ণিঝড় বেশিদূর এগোতে পারে না বলে চলতি বছরের অধিকাংশ ঘূর্ণিঝড়ের কোন প্রভাব বাংলাদেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলে পড়েনি।

কিন্তু একই ঘূর্ণিঝড় যদি বরিশালকেন্দ্রিক হতো তাহলে বাংলাদেশের জন্য বড় দুর্যোগ বয়ে আনত বলে আবহাওয়াবিদরা আশঙ্কা প্রকাশ করেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০১৯
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com