আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

দৈনন্দিন

কতবেলে কত কী

কতবেলের জুস

উপকরণ: কতবেল ২২৫ গ্রাম, পানি প্রয়োজনমতো, চিনি স্বাদমতো, লবণ সিকি চা-চামচের একটু বেশি, নারকেলের দুধ আধা কাপের বেশি ও বরফকুচি ইচ্ছেমতো।
প্রণালি: একটি বোলে কতবেলের পাল্প ও দেড় কাপ পানি নিয়ে একটি কাঁটাচামচ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। মেশানো হলে ক্লিন পেপার দিয়ে ঢেকে ৮ ঘণ্টা রেফ্রিজারেটরে রাখুন অথবা সারা রাত রাখুন। পাল্প পানিতে ঢেলে থকথকে হলে স্ট্রেইনারে নিয়ে চামচ দিয়ে নেড়ে নেড়ে একটি পাত্রে ক্বাথ বের করুন। সিকি কাপ থেকে আধা কাপ পরিমাণ পানি দিয়ে ক্বাথ স্ট্রেইনারে ছেঁকে বের করুন। কতবেলের বীজগুলো ছাড়া ছাড়া হলে সেই বীজগুলো ফেলে দিতে হবে। লবণ মিশিয়ে রাখুন।
একটি সসপ্যানে চিনি ও পানি মিশিয়ে মাঝারি আঁচে জ্বাল দিন। চিনি মিশে একটু ঘন হলে চুলা বন্ধ করে ঠান্ডা হতে দিন। এবারে একটি জগে কতবেলের ক্বাথ ও চিনির শিরা দিয়ে মিশিয়ে নাড়ুন। আধা কাপ নারকেলের দুধ মিশিয়ে নাড়ুন। পরিবেশনের আগে গ্লাসে ঢেলে প্রতিটি গ্লাসে ২ টেবিল চামচ করে নারকেলের দুধ ও বরফকুচি দিয়ে ঠান্ডা ঠান্ডা পরিবেশন করুন। 

চিংড়ির পুরে কতবেল আলুর দম

উপকরণ: চিংড়িবাটা ১৩০ গ্রাম, গোলাকার আলু ৮টি, চিনাবাদাম ভাঙা ৪ টেবিল চামচ, কতবেলের ক্বাথ দেড় টেবিল চামচ, কোরানো কতবেল অর্ধেকটা, হলুদগুঁড়া আধা চা-চামচ, লেবুর রস ২ টেবিল চামচ, ধনেপাতাকুচি ২ টেবিল চামচ, কিশমিশ ২ টেবিল চামচ, কাজুবাদামবাটা ২ টেবিল চামচ, ফেটানো টক দই ২ টেবিল চামচ, পেঁয়াজকুচি ২ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ স্লাইস ১টি, টমেটোবাটা সিকি কাপ, লেমন জেস্ট সিকি চা-চামচ, সিরকায় ভেজানো শুকনা মরিচবাটা দেড় চা-চামচ, লবণ সিকি চা-চামচ, আদাবাটা দেড় চা–চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, সরিষার তেল ৪ টেবিল চামচ ও চিনি ১ চা-চামচ।
প্রণালি: আলু ছিলে ধুয়ে চামচ দিয়ে কুরিয়ে হাঁড়ির মতো গর্ত করে নিন। অর্ধেকের বেশি কোরানো আলু এক চিমটি লবণ দিয়ে সেদ্ধ করে নিন। এই আলু তেলে ভেজে উঠিয়ে রাখুন।
প্যানে একটু সরিষার তেল গরম করে তাতে পেঁয়াজকুচি ভেজে আধা চা-চামচ করে আদা ও রসুনবাটা, সিকি চা-চামচ লবণ ও মরিচবাটা দিয়ে কষিয়ে নিন। প্রয়োজনে সামান্য পানি দিয়ে কষাবেন। এবার কিছুটা কিশমিশ, চিনাবাদাম দিয়ে নেড়ে বেটে রাখা চিংড়ি মিশিয়ে রান্না করুন। কষানো হলে মাছের পেস্টকে ঝুরি ঝুরি করার জন্য ডাল ঘুঁটনি দিয়ে চেপে চেপে নিয়ে কুরিয়ে রাখা আলুর কিছুটা মিশিয়ে নাড়ুন। সামান্য লেমন জেস্ট দিয়ে নেড়ে নামিয়ে রাখুন। একটি বাটিতে উঠিয়ে রেখে ছড়িয়ে ঠান্ডা হতে দিন।
ঠান্ডা হলে ভেজে রাখা গর্ত করা আলুর মধ্যে চিংড়ির মিশ্রণ ভরে ওপরে কোরানো কতবেল, লবণ ও সামান্য চিনি দিয়ে মেখে প্রতিটি আলুর মুখ গোল করে চেপে বন্ধ করে দিন। আবার অন্য একটি প্যানে ২ টেবিল চামচ সরিষার তেল গরম করে কয়েকটি গোটা চিংড়ি ২ মিনিট তেলে ভেজে উঠিয়ে রাখুন। এই একই তেলে পেঁয়াজ সোনালি করে ভেজে সিকি চা-চামচ করে চিনি ও লবণ দিয়ে অল্প কিছুক্ষণ ভেজে একে একে বাকি আদা ও রসুনবাটা, টমেটোবাটা, বাকি হলুদগুঁড়া, মরিচবাটা, কিশমিশ, কাজুবাটা ও ফেটানো টক দই দিন। ধনেপাতা দিয়ে নেড়ে কষিয়ে নিন। এবার লেবুর রস দিয়ে মিশিয়ে নেড়ে সামান্য লেমন জেলি দিয়ে নাড়ুন। চিংড়ির মিশ্রণ দিয়ে নেড়ে সিকি কাপ পানি ও পুরভরা আলু দিয়ে নেড়ে সাবধানে উল্টে দিয়ে মসলার সঙ্গে মিশিয়ে নিন।

কতবেলের ঝাল-মিষ্টি-টক আচার

উপকরণ: পাকা কতবেল (ভেতরে সাদা হবে) ৪টি, সিরকা ও কাঁচা মরিচ দিয়ে বাটা সাদা সরিষা ১ টেবিল চামচ, রসুনবাটা ২ টেবিল চামচ, সিরকা দিয়ে পাঁচফোড়নবাটা ১ চা-চামচ, মরিচের গুঁড়া সোয়া চা-চামচ, ভাজা পাঁচফোড়ন গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, ভাজা শুকনা মরিচগুঁড়া ১ টেবিল চামচ, সরিষার তেল দেড় কাপ, চিনি ১ কাপ, লবণ স্বাদমতো, গোটা শুকনা মরিচ ৬টি, গোটা রসুন ৬টি, তেঁতুলের ক্বাথ ২ টেবিল চামচ, সিরকা ১ টেবিল চামচ ও ভাজা ধনেগুঁড়া ১ টেবিল চামচ।
প্রণালি: কতবেল ভেঙে ছোট ছোট টুকরা করে নিন। কড়াইতে ১ কাপ সরিষার তেল গরম করে ভাজা ধনেগুঁড়া বাদে সব মসলা দিয়ে কিছুক্ষণ কষিয়ে কতবেল মিশিয়ে আরও কিছুক্ষণ কষিয়ে নিন। চিনি, লবণ, তেঁতুলের ক্বাথ ও সিরকা মিশিয়ে জ্বাল কমিয়ে অনবরত নাড়তে হবে। কতবেল থেকে তেল ছাড়া শুরু করলে নামিয়ে নিন। অন্য একটি প্যানে বাকি সরিষার তেল গরম করে তাতে গোটা শুকনা মরিচ ও রসুনের কোয়া দিয়ে নেড়েই সঙ্গে সঙ্গে কতবেলের আচারের মিশ্রণে ঢেলে ভাজা ধনেগুঁড়া মিশিয়ে নেড়ে চুলা বন্ধ করে দিন। আচার দুদিন রোদে শুকিয়ে স্টেরিলাইজ করা কাচের বোতলে ভরে বায়ুরুদ্ধ করে ঢাকনা দিয়ে মুখ বন্ধ করতে হবে।

কতবেলের ভর্তা

উপকরণ: পাকা কতবেল ৪টি, লবণ ২ চা-চামচ, চিনি ৩ টেবিল চামচ, কাঁচা মরিচ ৮টি, কালো গোলমরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, ধনেপাতাকুচি স্বাদমতো, সরিষার তেল ২ চামচ ও চাট মসলা ইচ্ছেমতো।
প্রণালি: কতবেল ভেঙে ভেতরের অংশ কুরিয়ে নিন। এবার হাত দিয়ে আলতোভাবে কিছুটা মেখে লবণ, চিনি, গোলমরিচের গুঁড়া, কাঁচা মরিচ ও ধনেপাতাকুচি মিশিয়ে নিন। এবার চাট মসলা দিয়ে মেখে সরিষার তেল দিয়ে মেখে পরিবেশন করুন। 

কতবেলের জেলি

উপকরণ: পাকা মাঝারি কতবেল (ভেতরে সাদাটে ভাব) ১০টি, পানি ৮ কাপ, চিনি ৫ কাপ, কাগজিলেবুর রস ২ চামচ, আগার আগার আধা চা–চামচ ও বোতল ২টি।
প্রণালি: কতবেলের ভেতরের অংশ বের করে ছুরি দিয়ে কেটে অর্ধেক টুকরা করে রাখুন। পানি দিয়ে ঢেকে মাঝারি আঁচে দুই ঘণ্টা জ্বাল দিন। কিন্তু ভুলেও নাড়া যাবে না। কতবেল সেদ্ধ হয়ে পানি শুকিয়ে অর্ধেক হলে নামিয়ে নিন। একটি সাদা পাতলা সুতির কাপড়ে পানি নিংড়ে তা অন্য একটি হাঁড়ির ওপর কাপড়টি রেখে হাঁড়ির মুখ বন্ধ করুন। মনে রাখবেন, কাপড়টি দুই ভাঁজ করে হাঁড়ির মুখে রাখতে হবে। এবারে মুখ বন্ধ হাঁড়ির কাপড়ের ওপর জ্বাল দেওয়া কতবেল ঢেলে দিন। কতবেল নাড়ানো যাবে না। আলতোভাবে কাপড় চিপে রস নিংড়ে নিন। এখান থেকে ১ টেবিল চামচ রস তুলে রাখুন। প্রতি কাপ রসের জন্য ১ কাপ করে চিনিসহ জ্বাল দিতে হবে। মাঝারি আঁচে ঘন ঘন নাড়ুন। চিনি গলে গেলে আলাদা করে রাখা কতবেলের রসটুকু আগার আগার গুলে মিশ্রণে দিয়ে নাড়ুন। ফেনা উঠলে লেবুর রস দিন। অন্যদিকে প্রথমেই জেলির জন্য রাখা বোতল ভালো করে ধুয়ে ফুটিয়ে শুকিয়ে নিন। জেলি জ্বাল দিয়ে ঘন হয়ে এলে বোতলে ঢেলে একটি সসপ্যানে বোতলের অর্ধেক পানি নিয়ে বোতলগুলো সারা রাত পানিতে রেখে ঠান্ডা হতে দিন। সকালে মুখ বায়ুরুদ্ধ করে বন্ধ করে দেবেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

দৈনন্দিন

নিপাহ্‌ ভাইরাসঃ খেজুরের রস খাওয়ার আগে সতর্ক থাকতে যা করণীয়

নিপাহ্‌ ভাইরাস খেজুরের রস খাওয়ার আগে সতর্ক থাকতে যা করণীয়
নিপাহ্‌ ভাইরাস খেজুরের রস খাওয়ার আগে সতর্ক থাকতে যা করণীয়
খেজুরের রস সংগ্রহের প্রক্রিয়া।

শীতকাল এলেই বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে খেজুরের রস খাওয়ার চল বেড়ে যায়। অনেকে গাছ থেকে খেজুরের কলসি নামিয়ে সরাসরি কাঁচা রস খেয়ে থাকেন।

আবার অনেকে এই রস চুলায় ফুটিয়ে সিরাপ, পায়েস বা ক্ষীর বানিয়ে খান। এছাড়া রসের তৈরি ঝোলা গুড়, পাটালি গুড়, নলেন গুড়, ভেলি গুড়, বালুয়া গুড়, মিছরি গুড়সহ নানা ধরণের পিঠার বেশ সুখ্যাতি রয়েছে।

নিপাহ্‌ ভাইরাস আতঙ্ক

খেজুর আরব দেশের প্রচলিত ফল হলেও ওইসব দেশে খেজুর, মূলত ফল উৎপাদননির্ভর, যেখানে কিনা বাংলাদেশের খেজুর গাছ রস উৎপাদননির্ভর।

কৃষি তথ্য সার্ভিসের মতে, বাংলাদেশে সাধারণত কার্তিক থেকে মাঘ অর্থাৎ অক্টোবর থেকে মার্চ পর্যন্ত খেজুরের রস সংগ্রহ হয়ে থাকে।

দেশটির সবচেয়ে বেশি রস সংগ্রহ হয় যশোর, কুষ্টিয়া ও ফরিদপুর অঞ্চল থেকে।

মূলত খেজুর গাছের ডালপালা পরিষ্কার করে, ডগার দিকের কাণ্ড চেঁছে তাতে একটা বাঁশের কঞ্চি দিয়ে তৈরি চোঙ বসিয়ে দেয়া হয়। চোঙের শেষ প্রান্তে ঝুলিয়ে দেয়া হয় একটি মাটির হাড়ি বা কলসি।

সেই চোঙ দিয়ে ফোঁটা ফোঁটা রস এসে জমা হতে থাকে মাটির হাড়ি বা কলসিতে। এভাবে একটি গাছ থেকে দৈনিক গড়ে পাঁচ থেকে ছয় লিটার রস সংগ্রহ করা যায় বলে কৃষি তথ্য সার্ভিস সূত্রে জানা গিয়েছে।

কিন্তু গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে এই খেজুরের রস খাওয়ার ক্ষেত্রে নিপাহ্‌ ভাইরাস আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

কই মাছে বাঁধাকপির ছেঁচকি – দা এগ্রো নিউজ

কই মাছে বাঁধাকপির ছেঁচকি
কই মাছে বাঁধাকপির ছেঁচকি

উপকরণ: বাঁধাকপির কুচি ৪ কাপ, কই মাছের টুকরো ৬টি, তেজপাতা ১টি, শুকনো মরিচ ২টি, মেথি অল্প পরিমাণ, মরিচবাটা ১ চা-চামচ, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, লবণ পরিমাণমতো, নারকেল কোরানো স্বল্প পরিমাণে, হলুদ পরিমাণমতো ও সরিষার তেল পরিমাণমতো।

প্রণালি: তেলে শুকনো মরিচ ও মেথি ফোড়ন দিতে হবে। ফোড়ন হয়ে এলে হালকা করে ভেজে উঠিয়ে রাখতে হবে। ওই তেলেই বাঁধাকপির কুচি ও পেঁয়াজ কুচি দিয়ে ভালো করে কষে নিতে হবে। তারপর লবণ, মরিচ ও হলুদবাটা দিয়ে আরও কিছুক্ষণ বসাতে হবে। সেদ্ধ হয়ে এলে অল্প পরিমাণে পানি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে ভাজা মাছগুলো দিয়ে ঢাকা দিতে হবে। পানি শুকিয়ে গেলে এবং মাছ সেদ্ধ হয়ে এলে অল্প পরিমাণ নারকেল কোরানো দিয়ে নামিয়ে ফেলতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

ধনেপাতা ও টমেটোয় শোল মাছ – দা এগ্রো নিউজ

ধনেপাতা ও টমেটোয় শোল মাছ
ধনেপাতা ও টমেটোয় শোল মাছ

উপকরণ: বড় শোল মাছ ৫০০ গ্রাম, টমেটো টুকরো আধা কাপ, সরিষার তেল ৩ টেবিল চামচ, টমেটোবাটা আধা কাপ, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, আদাবাটা ১ চা-চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ, ধনেপাতা আধা কাপ, শুকনো মরিচের গুঁড়া ১ চা-চামচ, লবণ স্বাদ অনুসারে ও কাঁচা মরিচ ৭-৮টি (চেরা)।

প্রণালি: শোল মাছ লবণ, হলুদ ও সরিষার তেল মাখিয়ে ভেজে তুলে রাখতে হবে। আর ওই তেলেই পেঁয়াজ কুচি দিতে হবে। পেঁয়াজ বাদামি রং হলে রসুন, আদা, মরিচের গুঁড়া, হলুদ ও লবণ দিয়ে ভালোভাবে কষাতে হবে। টমেটোবাটা দিতে হবে, কিছুক্ষণ কষানোর পর প্রয়োজনমতো গরম পানি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে ভেজে রাখা মাছগুলো দিতে হবে। ঝোল মাখা-মাখা হলে টমেটোর টুকরো আর ধনেপাতা দিয়ে কিছুক্ষণ পর নামিয়ে ফেলতে হবে। নামানোর আগে কাঁচা মরিচ দিতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

লাউ টাকি – দা এগ্রো নিউজ

লাউ-টাকি
লাউ-টাকি

উপকরণ: ছোট টুকরো করে কাটা টাকি মাছ ২ কাপ, ডুমো ডুমো করে কাটা লাউ ৪ কাপ, হলুদ সিকি চা-চামচ, লবণ পরিমাণমতো, পেঁয়াজ ১ কাপ, ধনেপাতা কুচি পরিমাণমতো, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, কাঁচা মরিচ ১০-১২টি, আদাবাটা আধা চা-চামচ ও রাঁধুনি বাটা সিকি চা-চামচ।

প্রণালি: তেলে পেঁয়াজ দিয়ে হালকা করে ভেজে নিতে হবে। তারপর একে একে রসুনবাটা, আদাবাটা ও রাধুনি (গুঁড়া সজ) বাটা ও হলুদের গুঁড়া দিয়ে ভালো করে কষাতে হবে। কষানো হলে লাউ দিতে হবে। লাউ দিয়ে কিছুক্ষণ কষিয়ে অল্প পরিমাণে পানি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে আগে থেকে হালকা করে ভেজে রাখা টাকি মাছ দিতে হবে। পানি শুকিয়ে এলে কাঁচা মরিচের ফালি ও সবশেষে ধনেপাতা দিয়ে নামিয়ে ফেলতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

বাঁধাকপির পাতায় চিংড়ি – দা এগ্রো নিউজ

বাঁধাকপির পাতায় চিংড়ি
বাঁধাকপির পাতায় চিংড়ি

উপকরণ: চিংড়ি মাছ ২০০ গ্রাম, সয়াবিন তেল পরিমাণমতো, বাঁধাকপি কুচি ১ কাপ, ক্যাপসিকাম কুচি ১ কাপ, টমেটো কুচি আধা কাপ, পেঁয়াজপাতা কুচি ১ কাপ, কাঁচা মরিচবাটা ১ চা-চামচ, ধনেপাতাবাটা ১ চা-চামচ, হলুদের গুঁড়া পরিমাণমতো, চিলি সস ২ চা-চামচ, টমেটো সস ২ চা-চামচ, বাঁধাকপির ভেতরের পাতা ৪টি, ভিনেগার ২ চা-চামচ, রসুন ১ চা-চামচ ও লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি: বাঁধাকপির শক্ত অংশ ফেলে দিন। পাতার ভেতরের অংশ একটু ভাপিয়ে রাখুন। মাছ ধুয়ে ভিনেগার মাখিয়ে রাখুন। এবার কড়াইয়ে সয়াবিন তেল গরম হলে তাতে রসুন কুচি দিয়ে মাছগুলো দিন। একে একে কোঁচানো বাঁধাকপি, ক্যাপসিকাম, টমেটো ও পেঁয়াজপাতা দিয়ে নেড়েচেড়ে নিন। এরপর কাঁচা মরিচবাটা, ধনেপাতাবাটা, চিলি সস ও টমেটো সস দিয়ে নেড়ে নিন। পানি শুকিয়ে এলে নামিয়ে বাঁধাকপির পাতায় অল্প করে চিংড়ি মাছ সুতা দিয়ে বেঁধে স্টিমারে ভাপিয়ে নিন। সুতো কেটে পাতা খুলে পরিবেশন করুন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com