আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

দৈনন্দিন

করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়

করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়
সংক্রমণের বিস্তার ঠেকাতে সরকার ছোঠ ছোট এলাকাকে রেড জোন হিসাবে চিহ্নিত করে এখন সেখানে লকডাউন করতে চাইছে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার বিবেচনায় নিয়ে এলাকাভিত্তিক রেড জোন হিসাবে চিহ্নিত করে সেই ঐ এলাকাকে লকডাউন করার পরিকল্পনা পুরোদমে বাস্তবায়নের সুনির্দিষ্ট কোন সময় এখনও ঠিক হয়নি।

সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, রাজধানীসহ বিভিন্ন জায়গায় ছোট ছোট এলাকা রেড জোন হিসাবে চিহ্নিত করে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসন সিদ্ধান্ত নিয়ে লকডাউন করবে এবং সেই এলাকায় তিন থেকে পাঁচদিন আগে তা ঘোষণা করা হবে।

তবে দেশকে রেড, ইয়োলো এবং গ্রীন জোনে ভাগ করার এই পরিকল্পনায় সরকার আসলে কী করতে চাইছে, তা নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে।

সরকার যখন রেড জোন লকডাউন করার জন্য ৩০শে জুন পর্যন্ত সাধারণ ছুটি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে, সেই ছুটি ১৬ই জুন থেকেই শুরু হ্ওয়ার কথা ছিল।

কিন্তু রেড জোন চিহ্নিত করা এবং লকডাউন করার প্রস্তুতি পর্বই এখনও শেষ করা যায়নি।

ফলে রেড জোনে কবে থেকে এবং কিভাবে লকডাউন শুরু করা হবে, তা নিয়ে বিভ্রান্তি দেখা দেয়।

কর্মকর্তারা বলেছেন, খসড়া তালিকাটি চূড়ান্ত হওয়ার আগেই তা ফাঁস হয়েছে।

সরকার লকডাউনের সুনির্দিষ্ট সময় বলছে না

তবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, বিভিন্ন এলাকায় স্থানীয়ভাবে জনপ্রতিনিধি এবং প্রশাসন মিলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাথে আলোচনা করে রেড জোন চিহ্নিত করা এবং লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেবে।

কিন্তু কবে নাগাদ পুরোদমে তা শুরু হবে, সেটা তিনি বলেননি।

অধ্যাপক আজাদ বলেছেন, “একসাথে পুরো বাংলাদেশের সব এলাকা লকডাউন হবে, তা কিন্তু নয়। যখন যেখানে প্রয়োজন সেখানে রেড জোন হবে, আবার ওখানে যদি অবস্থার উন্নতি হয়, তাহলে ইয়োলো এবং গ্রীন জোন হিসাবে চিহ্নিত হবে।”

তিনি আরও বলেছেন, “এটা নির্ধারিত কবে থেকে শুরু হবে, তা কিন্তু বলা যায় না। ঐ প্রশ্ন যদি করেন, তাহলে শুরু হয়েছে। শুরু হয়েছে ঢাকার পূর্ব রাজাবাজারে, গাজীপুরে, নারায়ণগঞ্জে এবং নরসিংদীতে। এরপর বিভিন্ন এলাকা থেকে আমাদের মতামত চাওয়া হচ্ছে।”

“দ্বিতীয়ত, আমরা একটা টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করেছি। তারা আগের পর্যালোচনা বা পরামর্শগুলো আবার পর্যালোচনা করছে।” ছবির কপিরাইট গুগল ম্যাপ

করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়
ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় রেড, ইয়োলো এবং গ্রীন-এই তিন ভাগে ভাগ করে সরকার যে খসড়া তালিকা করেছিল, তা প্রকাশ হওয়ার পর বিভ্রান্তি দেখা দেয়।

রেড, ইয়োলো এবং গ্রীন নিয়ে বিভ্রান্তি

যদিও ঢাকার পূর্ব রাজাবাজারসহ বিভিন্ন এলাকায় পরীক্ষামূলকভাবে লকডাউন করা হচ্ছে, এরপরও রেড জোন চিহ্নিত করে সেখানে আসলে কি করা হবে-সে ব্যাপারে সাধারণ মানুষের মাঝে পরিস্কার ধারণা নেই।

রেড, ইয়োলো এবং গ্রীন জোন হিসাবে চিহ্নিত এলাকার যে তালিকার খসড়া সরকারের কারিগরি কমিটি তৈরি করেছে, সেই তালিকা সংবাদমাধ্যমে প্রকাশ হওয়ার পর তাতে চিহ্নিত এলাকাগুলোর মানুষের মাঝে অনেক প্রশ্নও দেখা দিয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের অনেকে বলেছেন, এখন সংক্রমণ বিস্ফোরণের মত লাফিয়ে না বাড়লেও বৃদ্ধির হারটা অনেক বেশি। সেই পরিস্থিতিতে প্রতিরোধের জন্য এখন মানুষকে ঘরে রাখা বা সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে কোন পদক্ষেপ নেই।

তারা মনে করেন, এখন প্রতিরোধের কোন কর্মসূচিই যেহেতু নেই, ফলে এলাকাভিত্তিক লকডাউনের কার্যকারিতা নিয়ে তাদের সন্দেহ থাকলেও সেটি হলেও অন্তত একটা পদক্ষেপ থাকা উচিত।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের সংক্রমণ রোগ কর্মসূচির সহযোগী পরিচালক ডা: মাহফুজা রিফাত বলেছেন, “এই জোন-ভিত্তিক লকডাউন নিয়ে তো যথেষ্ট বিভ্রান্তি আছেই। এই জোন বলতে আসলে কি বোঝায়? সাধারণ মানুষ বোধ হয় এখনও সেটা জানে না যে এটা কিভাবে কার্যকর হবে। তারপরে অফিস খোলা নিয়েও বোধ হয় বিভ্রান্তি আছে। প্রথমত তথ্যগত বিভ্রান্তি আছে। আর আমরাও আসলে জানি না যে আসলে কি অ্যাপ্রোচে যাচ্ছে।”

তিনি আরও বলেছেন, “এ মুহুর্তে আমাদের যে অবস্থা, তাতে এখন প্রথমে দরকার মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা। সেটা এই জোন-ভিত্তিক করে কতটা কার্যকর হবে – তা আমরা জানি না। কিন্তু কিছুতো করতে হবে। মানে একদম ছেড়ে দিলেও তো হবে না।”

তবে সরকারের পক্ষ থেকে দাবি করা হচ্ছে, এখন এই জোন-ভিত্তিক লকডাউনের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে এর ইতিবাচক প্রভাব পড়বে।

করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়
বাংলাদেশে দুই মাসের বেশি সময় ধরে সাধারণ ছুটি চললেও করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসেনি

রেড জোন নিয়ে সরকার কী চাইছে

এই এলাকাভিত্তিক লকডাউন কিভাবে কার্যকর করা হবে, সে ব্যাপারে সরকারের পরিকল্পনা তুলে ধরেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

তিনি বলেছেন, “রেড জোন আসলে প্রত্যেকটা এলাকার ক্ষেত্রে স্থানীয় প্রশাসন ঠিক করবে যে কোথায় তা হবে। যদি ঢাকা শহরের কথা বলি, তাহলে আমাদের পরিকল্পনা হচ্ছে, স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, আমাদের মেয়র এবং স্থানীয় প্রশাসন মিলে ঠিক করবেন কোথায় রেড জোন করবেন। তারা সেই রেড জোন করার জন্য আগেই সব পরিকল্পনা বা ব্যবস্থা ঠিক করে নেবেন।”

“রেড জোন করতে গেলে স্থানীয়ভাবে একটা কমিটি করতে হবে। সেই কমিটি এবং পরিকল্পনার ব্যাপারে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অনুমতি নিতে হবে।”

প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন আরও জানিয়েছেন, “রেড জোন হবে খুব ছোট জায়গায়, একটি সুনির্দিষ্ট জায়গায়। যে জায়গাটি আমরা ম্যানেজ করতে পারি। আপনি ধরেন, ঢাকার মিরপুরের কথা। মিরপুর বলতে গোটা মিরপুর কখনও লকডাউন হবে না। মিরপুরের একটা সেক্টরের একটি অংশ লকডাউন হবে। অথবা কোন একটি রাস্তায় সংক্রমণের হার বিবেচনায় কয়েকটা বাড়িও লকডাউন করা হতে পারে। এভাবে ছোট এলাকা লকডাউন হবে।”

মি: হোসেন মনে করেন, তাদের এই পরিকল্পনা নিয়ে বিভ্রান্তি থাকার কিছু নাই।

তিনি উল্লেখ করেন, যে অঞ্চলকে রেড জোন হিসাবে চিহ্নিত করা হবে, সেই এলাকার মানুষ তিন থেকে পাঁচদিন আগে জানতে পারবেন লকডাউন করার সময়সহ সব বিষয়ে।

এদিকে কর্মকর্তারা বলেছেন, রেড, ইয়োলো এবং গ্রীন জোনের যে খসড়া তালিকা রয়েছে, তাতে এখন ছোট ছোট এলাকাকে রেড হিসাবে চিহ্নিত করে ম্যাপ তৈরির কাজ চলছে।

কিন্তু এই কাজে জটিলতা হচ্ছে বলে তারা উল্লেখ করেছেন।

তাদের বক্তব্য হচ্ছে, এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়া রোগীদের বেশিরভাগই ঢাকায়। কিন্তু এই রোগীদের বড় অংশের সুনির্দিষ্ট এলাকাসহ বিস্তারিত ঠিকানা কর্তৃপক্ষের কাছে নেই। সেজন্য ছোট এলাকা চিহ্নিত করার কাজ কঠিন হচ্ছে। এরপরও অল্প সময়ের মধ্যে তালিকা চূড়ান্ত করা সম্ভব হবে বলে কর্মকর্তারা দাবি করছেন।

  • করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়

    বাংলাদেশে দুই মাসের বেশি সময় ধরে সাধারণ ছুটি চললেও করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসেনি

  • করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়

    ঢাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় রেড, ইয়োলো এবং গ্রীন-এই তিন ভাগে ভাগ করে সরকার যে খসড়া তালিকা করেছিল, তা প্রকাশ হওয়ার পর বিভ্রান্তি দেখা দেয়।

  • করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়

    সংক্রমণের বিস্তার ঠেকাতে সরকার ছোঠ ছোট এলাকাকে রেড জোন হিসাবে চিহ্নিত করে এখন সেখানে লকডাউন করতে চাইছে।

  • করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়
  • করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়
  • করোনা ভাইরাস: এলাকাভিত্তিক লকডাউন দিয়ে সরকার যা চায়
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

দৈনন্দিন

নিপাহ্‌ ভাইরাসঃ খেজুরের রস খাওয়ার আগে সতর্ক থাকতে যা করণীয়

নিপাহ্‌ ভাইরাস খেজুরের রস খাওয়ার আগে সতর্ক থাকতে যা করণীয়
নিপাহ্‌ ভাইরাস খেজুরের রস খাওয়ার আগে সতর্ক থাকতে যা করণীয়
খেজুরের রস সংগ্রহের প্রক্রিয়া।

শীতকাল এলেই বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে খেজুরের রস খাওয়ার চল বেড়ে যায়। অনেকে গাছ থেকে খেজুরের কলসি নামিয়ে সরাসরি কাঁচা রস খেয়ে থাকেন।

আবার অনেকে এই রস চুলায় ফুটিয়ে সিরাপ, পায়েস বা ক্ষীর বানিয়ে খান। এছাড়া রসের তৈরি ঝোলা গুড়, পাটালি গুড়, নলেন গুড়, ভেলি গুড়, বালুয়া গুড়, মিছরি গুড়সহ নানা ধরণের পিঠার বেশ সুখ্যাতি রয়েছে।

নিপাহ্‌ ভাইরাস আতঙ্ক

খেজুর আরব দেশের প্রচলিত ফল হলেও ওইসব দেশে খেজুর, মূলত ফল উৎপাদননির্ভর, যেখানে কিনা বাংলাদেশের খেজুর গাছ রস উৎপাদননির্ভর।

কৃষি তথ্য সার্ভিসের মতে, বাংলাদেশে সাধারণত কার্তিক থেকে মাঘ অর্থাৎ অক্টোবর থেকে মার্চ পর্যন্ত খেজুরের রস সংগ্রহ হয়ে থাকে।

দেশটির সবচেয়ে বেশি রস সংগ্রহ হয় যশোর, কুষ্টিয়া ও ফরিদপুর অঞ্চল থেকে।

মূলত খেজুর গাছের ডালপালা পরিষ্কার করে, ডগার দিকের কাণ্ড চেঁছে তাতে একটা বাঁশের কঞ্চি দিয়ে তৈরি চোঙ বসিয়ে দেয়া হয়। চোঙের শেষ প্রান্তে ঝুলিয়ে দেয়া হয় একটি মাটির হাড়ি বা কলসি।

সেই চোঙ দিয়ে ফোঁটা ফোঁটা রস এসে জমা হতে থাকে মাটির হাড়ি বা কলসিতে। এভাবে একটি গাছ থেকে দৈনিক গড়ে পাঁচ থেকে ছয় লিটার রস সংগ্রহ করা যায় বলে কৃষি তথ্য সার্ভিস সূত্রে জানা গিয়েছে।

কিন্তু গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে এই খেজুরের রস খাওয়ার ক্ষেত্রে নিপাহ্‌ ভাইরাস আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

কই মাছে বাঁধাকপির ছেঁচকি – দা এগ্রো নিউজ

কই মাছে বাঁধাকপির ছেঁচকি
কই মাছে বাঁধাকপির ছেঁচকি

উপকরণ: বাঁধাকপির কুচি ৪ কাপ, কই মাছের টুকরো ৬টি, তেজপাতা ১টি, শুকনো মরিচ ২টি, মেথি অল্প পরিমাণ, মরিচবাটা ১ চা-চামচ, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, লবণ পরিমাণমতো, নারকেল কোরানো স্বল্প পরিমাণে, হলুদ পরিমাণমতো ও সরিষার তেল পরিমাণমতো।

প্রণালি: তেলে শুকনো মরিচ ও মেথি ফোড়ন দিতে হবে। ফোড়ন হয়ে এলে হালকা করে ভেজে উঠিয়ে রাখতে হবে। ওই তেলেই বাঁধাকপির কুচি ও পেঁয়াজ কুচি দিয়ে ভালো করে কষে নিতে হবে। তারপর লবণ, মরিচ ও হলুদবাটা দিয়ে আরও কিছুক্ষণ বসাতে হবে। সেদ্ধ হয়ে এলে অল্প পরিমাণে পানি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে ভাজা মাছগুলো দিয়ে ঢাকা দিতে হবে। পানি শুকিয়ে গেলে এবং মাছ সেদ্ধ হয়ে এলে অল্প পরিমাণ নারকেল কোরানো দিয়ে নামিয়ে ফেলতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

ধনেপাতা ও টমেটোয় শোল মাছ – দা এগ্রো নিউজ

ধনেপাতা ও টমেটোয় শোল মাছ
ধনেপাতা ও টমেটোয় শোল মাছ

উপকরণ: বড় শোল মাছ ৫০০ গ্রাম, টমেটো টুকরো আধা কাপ, সরিষার তেল ৩ টেবিল চামচ, টমেটোবাটা আধা কাপ, পেঁয়াজ কুচি ১ কাপ, আদাবাটা ১ চা-চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ চা-চামচ, ধনেপাতা আধা কাপ, শুকনো মরিচের গুঁড়া ১ চা-চামচ, লবণ স্বাদ অনুসারে ও কাঁচা মরিচ ৭-৮টি (চেরা)।

প্রণালি: শোল মাছ লবণ, হলুদ ও সরিষার তেল মাখিয়ে ভেজে তুলে রাখতে হবে। আর ওই তেলেই পেঁয়াজ কুচি দিতে হবে। পেঁয়াজ বাদামি রং হলে রসুন, আদা, মরিচের গুঁড়া, হলুদ ও লবণ দিয়ে ভালোভাবে কষাতে হবে। টমেটোবাটা দিতে হবে, কিছুক্ষণ কষানোর পর প্রয়োজনমতো গরম পানি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে ভেজে রাখা মাছগুলো দিতে হবে। ঝোল মাখা-মাখা হলে টমেটোর টুকরো আর ধনেপাতা দিয়ে কিছুক্ষণ পর নামিয়ে ফেলতে হবে। নামানোর আগে কাঁচা মরিচ দিতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

লাউ টাকি – দা এগ্রো নিউজ

লাউ-টাকি
লাউ-টাকি

উপকরণ: ছোট টুকরো করে কাটা টাকি মাছ ২ কাপ, ডুমো ডুমো করে কাটা লাউ ৪ কাপ, হলুদ সিকি চা-চামচ, লবণ পরিমাণমতো, পেঁয়াজ ১ কাপ, ধনেপাতা কুচি পরিমাণমতো, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, কাঁচা মরিচ ১০-১২টি, আদাবাটা আধা চা-চামচ ও রাঁধুনি বাটা সিকি চা-চামচ।

প্রণালি: তেলে পেঁয়াজ দিয়ে হালকা করে ভেজে নিতে হবে। তারপর একে একে রসুনবাটা, আদাবাটা ও রাধুনি (গুঁড়া সজ) বাটা ও হলুদের গুঁড়া দিয়ে ভালো করে কষাতে হবে। কষানো হলে লাউ দিতে হবে। লাউ দিয়ে কিছুক্ষণ কষিয়ে অল্প পরিমাণে পানি দিতে হবে। পানি ফুটে উঠলে আগে থেকে হালকা করে ভেজে রাখা টাকি মাছ দিতে হবে। পানি শুকিয়ে এলে কাঁচা মরিচের ফালি ও সবশেষে ধনেপাতা দিয়ে নামিয়ে ফেলতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

বাঁধাকপির পাতায় চিংড়ি – দা এগ্রো নিউজ

বাঁধাকপির পাতায় চিংড়ি
বাঁধাকপির পাতায় চিংড়ি

উপকরণ: চিংড়ি মাছ ২০০ গ্রাম, সয়াবিন তেল পরিমাণমতো, বাঁধাকপি কুচি ১ কাপ, ক্যাপসিকাম কুচি ১ কাপ, টমেটো কুচি আধা কাপ, পেঁয়াজপাতা কুচি ১ কাপ, কাঁচা মরিচবাটা ১ চা-চামচ, ধনেপাতাবাটা ১ চা-চামচ, হলুদের গুঁড়া পরিমাণমতো, চিলি সস ২ চা-চামচ, টমেটো সস ২ চা-চামচ, বাঁধাকপির ভেতরের পাতা ৪টি, ভিনেগার ২ চা-চামচ, রসুন ১ চা-চামচ ও লবণ স্বাদমতো।

প্রণালি: বাঁধাকপির শক্ত অংশ ফেলে দিন। পাতার ভেতরের অংশ একটু ভাপিয়ে রাখুন। মাছ ধুয়ে ভিনেগার মাখিয়ে রাখুন। এবার কড়াইয়ে সয়াবিন তেল গরম হলে তাতে রসুন কুচি দিয়ে মাছগুলো দিন। একে একে কোঁচানো বাঁধাকপি, ক্যাপসিকাম, টমেটো ও পেঁয়াজপাতা দিয়ে নেড়েচেড়ে নিন। এরপর কাঁচা মরিচবাটা, ধনেপাতাবাটা, চিলি সস ও টমেটো সস দিয়ে নেড়ে নিন। পানি শুকিয়ে এলে নামিয়ে বাঁধাকপির পাতায় অল্প করে চিংড়ি মাছ সুতা দিয়ে বেঁধে স্টিমারে ভাপিয়ে নিন। সুতো কেটে পাতা খুলে পরিবেশন করুন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com