আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

দৈনন্দিন

উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

সার্বিকভাবে উৎসবের এ গল্প ৩০ হাজার কোটি টাকার। বর্তমানে আমাদের জাতীয় বাজেটের ১ শতাংশের ওপরে। এই পরিমাণটা ৪০ হাজার থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকায় পৌঁছানো সম্ভব, অন্তত বিজ্ঞান সেটাই বলছে। পৃথিবীজুড়ে বাঙালিকে পরিচয় করানোর পঞ্চম আইকনখ্যাত বাংলাদেশি পেটেন্ট (জিআই) পাওয়া জলের রুপালি শস্য ইলিশের কথা বলছি। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংস্থার সমন্বয়ে পরিচালিত এক গবেষণা বলছে, ইলিশই পৃথিবীর একমাত্র মাছ, যার ধর্মীয়, সামাজিক ও লোকসাংস্কৃতিক মূল্যমান আড়াই হাজার কোটি টাকার ওপরে।

যুগে যুগে ইতিহাসের পাতায় পাতায় বাঙালিদের নানান উৎসবে ইলিশের ম-ম গন্ধে মেতে ওঠা গল্পের শেষ নেই। মাছে-ভাতে বাঙালিখ্যাত জাতিটি রকমারি মৎস্য, বিশেষ করে ইলিশ আহারে বুঁদ হয়ে ভোজনরসিক থেকে ভোজনশিল্পীতে খ্যাতি পেয়েছে। এ জাতির খাওয়াখাদাওয়ার রসিকতা আর ঐতিহ্য দেখে বিখ্যাত লেখক বুদ্ধদেব বসু ‘ভোজনশিল্পী বাঙালি’ নামে একটা বই-ই রচনা করে ফেলেছেন। সেখানে তিনি ইলিশের গুণগান আর উৎসবে–ইতিহাসে ইলিশের নানান অনুষঙ্গ পেড়ে বসেছেন।

যশোরের চৌগাছার ইলিশমারি নীলকুঠির অত্যাচার-পীড়নের গল্প সর্বজনবিদিত। বাংলার মসনদে ছোটলাটের আবির্ভাব-পরবর্তী সময়ে ইলিশমারি নীলকুঠিকেন্দ্রিক এই অত্যাচারের মাত্রা আরও বেড়ে গিয়েছিল। কিন্তু সেই সময় ছোটলাট-পত্নী লেডি কেসি ইলিশের ভক্ত হয়ে ওঠেন। তিনি কলকাতার গভর্নর হাউসে এক প্রীতিভোজ উৎসবে দাওয়াত পেয়েছিলেন। সেখানে অনেক কিছু খেয়েছেন, সঙ্গে ছিল বাংলার বিখ্যাত ইলিশ। পরবর্তীকালে তাঁর লেখনীতে বাংলার ইলিশ ও সুগন্ধি চালের বিস্তর প্রশংসার গল্প শুনতে পাই।

ইতিহাসের আরও এক ইলিশ-প্রীতিভোজের গল্প শুনতে পাই বিখ্যাত প্রাবন্ধিক বুদ্ধদেব বসুর লেখনীতে। সেখানে তিনি নিজেই আপ্যায়িত হয়ে বলেছেন ‘রজতবর্ণ মনোহরদর্শন মৎস্যকুলরাজ মহান ইলিশ। একদেহে এতটা প্রতিভা ধারণ করে যে শুধু তাকে দিয়েই তৈরি হতে পারে একটি পঞ্চপদি নানা স্বাদযুক্ত ভোজনের মতো ভোজন।—অর্থাৎ এই ভোজন উৎসবের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত শুধুই ইলিশ।’ বুদ্ধদেব বসুর পঞ্চপদি ইলিশ এখন পঞ্চাশ পদ পেরিয়ে শতপদ ব্যঞ্জনের উপাখ্যান ছড়াচ্ছে বাংলার আনাচকানাচে।

ইলিশই একমাত্র উৎসবের মাছ, যাকে ঘিরে বাজারে পাওয়া যাচ্ছে এককভাবে বিখ্যাত তিন-তিনটি রন্ধন প্রণালির বই, যার প্রতিটিতেই শতপদের ইলিশ রান্নার পদ্ধতির উল্লেখ রয়েছে। ১৯৭১-পরবর্তী ইতিহাসে বাংলাদেশের প্রায় সমস্ত রাষ্ট্র প্রধান ইলিশের রাজকীয় প্রীতিভোজ করিয়েছেন এবং নিজেও করেছেন। এমনি এক ইলিশ উৎসবের ঘটনা ঘটে ২০১৭ সালের ৮ এপ্রিল। ভারতের রাষ্ট্রপতি ভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সৌজন্যে এক নৈশভোজের আয়োজন করেছিলেন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। এই রাষ্ট্রীয় নৈশভোজ উৎসবে শেখ হাসিনা নিজ হাতে রাষ্ট্রপতির অনেক পছন্দের খাবার ভাপা ইলিশ রান্না করেছিলেন। আর সবচেয়ে মজার ব্যাপার হলো ওই সব ইলিশ ছিল ঢাকা থেকে বয়ে নেওয়া পদ্মার ইলিশ। রাজকীয় ভোজন উৎসবে ইলিশের জন্য এটি এক গর্বের সংযোজন, ভালোবাসার ইতিহাস।

রাজকীয় ইতিহাস ছেড়ে এবার বাংলার ধর্মীয় ও লোকসাংস্কৃতিক উৎসবে ইলিশ উপাখ্যানের দিকে একটু নজর দিই। বাঙালি হিন্দু পরিবার সরস্বতী, লক্ষ্মী ও দুর্গাপূজায় জোড়া ইলিশ কেনাকে অতি শুভ লক্ষণ হিসেবে দেখে। তারা এসব পূজায় দেবীকে জোড়া ইলিশ উৎসর্গ করে। অনেকে আবার রান্না ইলিশে ভোগ দিয়ে থাকেন। লেখিকা আলপনা ঘোষ ‘ভোজনবিলাসে কলকাতা’ গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন, কলকাতার উল্লেখযোগ্য প্রাচীনতম দুর্গাপূজার মধ্যে একটি ১০৮২ সালে কেদারনাথ চট্টোপাধ্যায় আগরপাড়ায় মাটির ঠাকুরদালানে চালু হয়। এ ছাড়া ৫৫০ বছরেরও অধিককাল আগে নদীয়া জেলার চাঁদনিবাড়িতে এবং ১৬৬২ সালে মুর্শিদাবাদ জেলার ভাগীরথী নদীর তীরের জঙ্গপুরের ঘোষালবাড়িতে শুরু হয় আরও দুটো প্রাচীনতম দুর্গাপূজা উৎসব। এসব উৎসবে দশমীতে পান্তা ভাত এবং ইলিশ মাছের ভোগ দেওয়ার রীতি উল্লেখ রয়েছে। দশমীর আগের রাতে ইলিশ মাছ রান্না করে সকাল সকাল দেবীকে ভোগ দিয়ে তারপর বাড়ির মেয়েরা উপোস ভাঙত।

পান্তা ভাত আর ইলিশের প্রসঙ্গ এলে চলে আসে বাংলা নববর্ষের কথা। ১৯৮৩ সালে কতিপয় আগ্রহী সাংবাদিক বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে পান্তা ভাত ও ইলিশ ভাজি খাওয়ার রীতি শুরু করেন। পরবর্তী সময়ে বাংলা নববর্ষে পান্তা-ইলিশ খাওয়া এক বিরাট উৎসবে রূপ নেয়। এ দেশের মানুষ বাছবিচারহীনভাবে নববর্ষ উদ্‌যাপন উপলক্ষে জাটকা ও মা ইলিশ নিধনের যজ্ঞে মেতে ওঠে। ইলিশের বাজার গরম হতে থাকে। মধ্যবিত্তের নাগালের বাইরে চলে যায় বাঙালির রসনাতৃপ্তির এই মহান ইলিশ।

যা-ই হোক, বাঙালি উৎসবপ্রবণ জাতি বলেই বারো মাসে তেরো পার্বণ পেরিয়ে আরও নতুন নতুন উৎসব-পার্বণে মেতে ওঠে। সব পার্বণ বা উৎসবে ইলিশ খাওয়ার রীতি চালু না থাকলেও বিবাহ উৎসব, দুর্গা-সরস্বতী-লক্ষ্মীপূজা, জামাইষষ্ঠী, বর্ষাপার্বণ ইত্যাকার সব আয়োজনে ইলিশ নিয়ে মাতামাতি দুই বাংলাতেই দেখা যায়। ড. অতুল সুর ‘ভারতে বিবাহের ইতিহাস’ গ্রন্থের মাধ্যমে জানাচ্ছেন, বাঙালির বিয়েতে মাছ অপরিহার্য। ভোজপর্বে পাঁচ ‘ম’-এর মধ্যে মাছ হলো অন্যতম। আদিকালে ধনিকশ্রেণির রোহিত মৎস্য বা রুই মাছ ছিল প্রিয়। আর ইলিশ ছিল সবার জন্য।

তারা বংশপরম্পরায় বিবাহতত্ত্বে, পাকাদেখা অনুষ্ঠানে, গায়েহলুদ, ক্ষীর খাওয়া ও বরযাত্রী প্রীতিভোজে এই মাছ খাওয়ানোর রীতি পালন করে আসছে। বিশেষ করে বরযাত্রীভোজ অনুষ্ঠানে বরকে একটি প্রমাণ সাইজের ইলিশ ভাজি করে খেতে দেওয়া; এ রীতির মানানসই অঙ্গ। বৃহত্তর বরিশাল, নদীয়া জেলাসহ পদ্মা অববাহিকার মানুষের মধ্যে এই রীতি এখনো দেখা যায়। আর পশ্চিমবঙ্গে জামাইষষ্ঠী উৎসব ইলিশ ছাড়া অচল। বিভিন্ন উৎসব উপলক্ষে টেলিভিশনের রান্নাবিষয়ক বড় বড় অনুষ্ঠানে ইলিশের রাজকীয় দখলদারিত্ব কেউই নজর এড়িয়ে যেতে পারে না।

ইলিশ আসলে শুধুই মাছ নয়, ইলিশ সংস্কৃতিও বটে। বর্ষার রিমঝিম শব্দে বাঙালি ইলিশ নিয়ে চিরকালই মেতেছে আর আড্ডা দিয়েছে। বর্ষার ইলিশ ভাজি আর খিচুড়ির গন্ধে গ্রামবাংলা ‘মৎস্যগন্ধা নারী’র খ্যাতি পেয়েছে সেই অনাদিকাল থেকে। মাতাল করা বর্ষাদিনে ঝাল ঝাল করে ভাপা ইলিশ দিয়ে ধোঁয়া ওঠা গরম-গরম সফেদ ভাত বাঙালির চিরায়ত খাদ্যসংস্কৃতিরই অঙ্গ। ইলিশের এসব ব্যঞ্জন আসলে স্বর্গসুখের ডাকনাম।

ইলিশ উৎসব এখন আর বাঙালি হেঁশেলেই আবদ্ধ নেই। আটপৌরে হেঁশেল থেকে বেরিয়ে রাস্তার মোড়ে মোড়ে কিংবা পাঁচতারকা হোটেল-রেস্তোরাঁর জাঁকালো সব আয়োজন নিয়ে ভোজনরসিকদের ঘ্রাণেন্দ্রিয়ে এক লোলুপ তাড়না সৃষ্টি করে চলেছে। তাই সময় কাটানোর বাহানা নিয়ে এসব রেস্তোরাঁয় বাঙালি বাঙালিতে মাথায় ঠোকর খেয়ে বলে ওঠে, আরে ভাই ইলিশ বলে কথা! পশ্চিমবঙ্গে চটকদার আর আকর্ষণীয় নাম (যেমন সুন্দরবন ইলিশ উৎসব) দিয়ে প্রতিবছর বিভিন্ন ধরনের ইলিশ উৎসব করতে দেখা যাচ্ছে। এসব আয়োজন এক থেকে পনেরো দিন, এমনকি মাসব্যাপীও চলতে দেখা যায়।

উৎসবের এসব গল্প চলমান রাখতে বাংলাদেশে শুরু হয়েছে ইলিশের অন্য রকম এক উৎসব। বর্তমানে চাঁদপুর ও বরগুনা জেলা আলাদা আলাদাভাবে ইলিশ উৎসব উদ্‌যাপন করছে।

‘ইলিশের বাড়ি চাঁদপুর জেলা’ ব্র্যান্ডিং কার্যক্রমের আওতায় ২০০৯ সাল থেকে চতুরঙ্গ সাংস্কৃতিক সংগঠন ও জেলা প্রশাসন সপ্তাহব্যাপী ইলিশ উৎসব উদ্‌যাপন করে আসছে। গত বছর তারা ১১তম ইলিশ উৎসব উদ্‌যাপন করে।

‘ইলিশের জেলা বরগুনা’ স্লোগানকে সামনে রেখে ২০১৯ সালে জেলা প্রশাসন ও জেলা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরাম প্রথমবারের মতো ইলিশ উৎসব আয়োজন করে। এ দুটি ইলিশ উৎসবের মূল টার্গেট হলো জাটকা ও মা ইলিশ সংরক্ষণ এবং জনসচেতনতা সৃষ্টি করা। এই উৎসবে বিভিন্ন ধরনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি ইলিশ মাছসংক্রান্ত বিভিন্ন ধরনের আলোচনা, সাহিত্যপঠন ও লিখন এবং বিতর্ক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। ইলিশ ধরা নিষিদ্ধকাল শুরু হওয়ার কিছুদিন আগে এই দুটি উৎসব আয়োজন করা হয়ে থাকে। এখানে ইলিশ–জেলে থেকে শুরু করে সব ধরনের স্টেকহোল্ডার, এমনকি ব্যাপক মাত্রায় ভোক্তার উপস্থিতি দেখা যায়। আর ভোজনরসিকদের তাৎক্ষণিক তৃপ্তি মেটানোর অবারিত সুযোগ থাকে। এ দুটি জেলা তাদের মতো করে মা ইলিশ ও জাটকা রক্ষায় নতুন এক ইলিশের উৎসব শুরু করেছে। কাজেই উৎসব এখন আর কেবল ভোগেই সীমাবদ্ধ নেই, সংরক্ষণের দিকেও এগিয়ে যাচ্ছে।

বাংলাদেশের উপকূলীয় ১৯টি জেলার মধ্যে কমপক্ষে ১০টি ‘অধিক’ গুরুত্বপূর্ণ জেলায় ইলিশের এই কার্যক্রম অচিরেই শুরু করা উচিত। বাংলাদেশ সরকারের মৎস্য অধিদপ্তর ও ওয়ার্ল্ডফিশ যৌথভাবে ‘ইলিশ প্রজনন উৎসব’ নামে নতুন একটি উৎসব শুরু করেছে। ২০১৬ সাল থেকে এই উৎসব শুরু হয় এবং এখন পর্যন্ত এটি চলছে। ইলিশ ধরা নিষিদ্ধকাল অবধি এটি চলতে থাকে, যার প্রধান উদ্দেশ্য হলো মা ইলিশ সংরক্ষণে জনসচেতনতা বৃদ্ধি এবং ইলিশ সংরক্ষণ আইন কঠোর হাতে কার্যকর করা।

মৎস্য অধিদপ্তর ‘হিলশা ফিশারিজ ম্যানেজমেন্ট অ্যাকশন প্ল্যান’ নামে একটি বৃহৎ কর্মকৌশল হাতে নিয়ে তার বাস্তবায়ন করছে। বর্তমানে ৪৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ ছয়টি অভয়াশ্রম, ৭ হাজার বর্গকিলোমিটার জুড়ে প্রজনন ও বিচরণক্ষেত্রগুলোয় ২২ দিন পর্যন্ত (অক্টোবর মাসের ভরা পূর্ণিমাতে) ইলিশ ধরা সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। এ সময় ইলিশ পরিবহন, সরবরাহ, বিক্রয় ও সংরক্ষণ করা শাস্তিযোগ্য অপরাধ এবং এটির কঠোর বাস্তবায়ন হচ্ছে।

বাদল দিনের মাতাল করা ইলশেগুঁড়ির রিমঝিম শব্দের আয়োজন প্রায় শেষ প্রান্তে। জেলের জালভরে উঠছে প্রচুর ইলিশ। ইলিশে ইলিশে বাজার সয়লাব। বাঙালি দাঁতে ধার দিয়ে বসেছে ইলিশ খাওয়ার হরেক আয়োজন নিয়ে। ঠিক যেভাবে আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্য সিরাজগঞ্জের আসাদউদ্দৌলা সিরাজীর বাড়িতে ঘটা করে ইলিশ খাওয়ার আয়োজনটা করা হয়েছিল। যা–ই হোক, যে গল্পটা শুরু হয়েছিল ৩০ হাজার কোটি টাকার বিশাল অঙ্ক দিয়ে, অনতিবিলম্বে সেটা ৪০ হাজার থেকে ৫০ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত করার বিজ্ঞানটাও আমাদের হাতেই রয়েছে। ২০১৫ সালের একটা গবেষণার প্রাপ্ত ফলাফল থেকে জানা গেছে, ১৫ দিন মা ইলিশ ধরা নিষিদ্ধকালে ৩৫ থেকে ৪০ শতাংশ ইলিশের প্রজনন সফলতা পাওয়া গেছে। যার ফলে ৩০ হাজার ৮৯৭ কোটি জাটকার উৎপাদন নতুনভাবে হিলশা ফিশারিতে সংযুক্ত হয়েছে। বর্তমানে ২২ দিন ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ এবং এই সময়ে যদি একই হারে প্রজনন–সফলতা পাওয়া যায়, তাহলে নতুন সংযুক্ত জাটকার পরিমাণ হবে দেড় গুণ।

ফিশ পপুলেশন ডিনামিক্স এবং হিলশা ফিশারিজ ম্যানেজমেন্টের অনেক ফ্যাক্টর, কো-ফ্যাক্টরকে হিসাবের মধ্যে রাখলেও ইলিশের উৎপাদন কোথায় গিয়ে দাঁড়াবে, তা সহজেই অনুমেয়। ২০০২-০৩ অর্থবছরে আমাদের ইলিশের উৎপাদন ছিল মাত্র ১ দশমিক ৯৯ লাখ মেট্রিক টন। বিগত ১৬ বছরের নানামুখী কার্যক্রমের মাধ্যমে বর্তমানে ৫ দশমিক ৩৩ লাখ মেট্রিক টনে (মৎস্য অধিদপ্তর ২০২০) উন্নীত হতে পেরেছি আমরা। সুতরাং সময় এসেছে আরও এগিয়ে যাওয়ার।

উৎসবে ইলিশ পেতে ইলিশের উৎসবে আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। তাহলেই কেবল আমাদের পাত আর ইলিশের জাত রক্ষা হবে। মৎসগন্ধা গ্রামে হবে ইলিশের উৎসব।

  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

    উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

    উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

    উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

    উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

    উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

    উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

    উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব
  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব
  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব
  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব
  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব
  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব
  • উৎসবে ইলিশ, ইলিশের উৎসব

দৈনন্দিন

যেভাবে সুতি কাপড়ের যত্ন নিলে দীর্ঘদিন ভালো থাকবে

আরামদায়ক পোশাক পরতে হলে সুতি কাপড়ের বিকল্প নেই। কারণ সুতি হলো প্রাকৃতিক ফেব্রিক। তুলা থেকে তৈরি হয় সুতা। এরপর ওই সুতা থেকে তৈরি হয় সুতির পোশাক। তাই এই ফেব্রিকের বিশেষ যত্ন প্রয়োজন।

সুতি কাপড় ধোয়া থেকে শুরু করে ভাঁজ করা পর্যন্ত নিয়ম মানা জরুরি। না হলে কাপড়ের আয়ু কমে যায়। এটির বিশেষ যত্ন প্রয়োজন। চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক সুতি কাপড়ের যত্ন নেবেন কীভাবে?

সুতি কাপড় ধোয়ার উপায়

>> সুতি কাপড়ের ফেব্রিক খুব সহজেই ছিঁড়ে যায়। তাই ঘঁষে ঘঁষে সুতির পোশাক না ধোয়াই ভালো।

>> প্রচণ্ড গরম পানিতেও কখনো ভেজাবেন না সুতির পোশাক। এতে পোশাকের রং নষ্ট হয়ে যাবে।

>> একটি সুতি কাপড় পরিধান করার একমাস পর ধোবেন না। পরার পরপরই ধুয়ে শুকিয়ে ভালোভাবে রেখে দিন।

>> যদি একবার পরেই কাচতে না চান, তবে তাকে রোদে দিতে হবে অবশ্যই। অন্তত এক ঘণ্টা রোদে দেবেন।

>> যদি সুতির পোশাকে কোনো দাগ হয়ে যায়, তবে আগে তা আলাদা করে তুলে নিন। তারপর সম্পূর্ণ জামাটি পরিষ্কার করুন।

>> সুতির পোশাকে আপনি মাড় দিতেই পারেন। তবে মাড় দেওয়ার পরই পানি ঝরিয়ে নিন।

শুকানোর সময় যা করবেন

>> খুব টানটান করে সুতির পোশাক মেলবেন না।

>> পানি ঝরিয়ে নিয়ে সুতির পোশাক মেলুন।

>> চড়া রোদে সুতির পোশাক দেবেন না। হালকা রোদে বা ছায়ায় সুতির পোশাক মেলবেন।

ইস্ত্রি করার সময় করণীয়

>> প্রথমে পোশাক উল্টে নিয়ে ইস্ত্রি করে তারপর সোজা পিঠে করুন।

আলমারিতে রাখার সময় করণীয়

>> পরিধান করার পর ভালোভাবে রোদে না শুকিয়ে বা ধুয়ে সুতির পোশাক কখনো ভাঁজ করে আলমারিতে রাখবেন না।

>> সুতির কাপড় আলমারিতে রাখার পর ওই স্থানে কিছু কালোজিরা দিয়ে রাখবেন। এতে পোশাক ভালো থাকবে। পোকা-মাকড় কাপড়ের ধারে-কাছে আসবে না।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

টাক মাথায় চুল গজাতে পেয়ারা পাতার ব্যবহার!

অকালে চুল পড়ে যাওয়া ঠেকাতে অনেকেই এটা-সেটা ব্যবহার করেন। এসব করেও মাথায় নতুন চুল গজাচ্ছে না। এমন অবস্থায় অনেকেই দিশেহারা হয়ে পড়েন। মাথায় যাদের চুল কম বা টাক পড়ে গেছে; এমন মানুষেরা সব সময় দুশ্চিন্তায় থাকেন।

চুল পড়ার রয়েছে অনেক কারণ। অনিয়মিত জীবন-যাপন, বংশগতভাবে টাক, কেমিক্যালযুক্ত প্রসাধনীর ব্যবহার ইত্যাদি কারণে চুল পড়তে পারে। কিছু ক্ষেত্রে খাদ্যাভ্যাসের কারণেও চুল পড়ার সমস্যাটি বেড়ে যেতে পারে।

এ ছাড়াও দীর্ঘমেয়াদী বিভিন্ন রোগে অতিরিক্ত চুল পড়ায় মাথায় টাক পড়তে পারে। তবে চিন্তিত না হয়ে কার্যকরী উপায়ে চুল গজানোর জন্য প্রাকৃতিক ভেষজ উপাদানে ভরসা রাখুন।

তেমনই একটি উপাদান হলো পেয়ারা পাতা। নিশ্চয়ই অবাক হচ্ছেন! পেয়ারা পাতায় আবার কীভাবে চুল গজাবে? প্রাচীনকাল থেকেই রূপচর্চায় পেয়ারা পাতা ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এগুলোয় ভিটামিন-বি কমপ্লেক্স রয়েছে। যা চুল পড়া ঠেকাতে পারে। একই সঙ্গে এটি চুল গজাতেও সাহায্য করে।

তাই জেনে নিন পেয়ারা পাতা দিয়ে চুল গজানোর সহজ উপায়-

প্রথমে কিছু পেয়ারা পাতা একটি পাত্রে নিয়ে পানিতে সেদ্ধ করে নিন। চুলা থেকে নামিয়ে পানি ঠান্ডা হতে দিন। এবার আপনার মাথার ত্বকে পেয়ারা পাতা সেদ্ধ পানীয় ম্যাসাজ করে ১০-১৫ মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর হালকা গরম পানি দিয়ে মাথা ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দু’বার এ উপায় অনুসরণ করলে ফলাফল কিছুদিনের মধ্যে টের পাবেন।

যদিও অনেক কারণে চুল পড়ে মাথা টাক হতে পারে। তাই দীর্ঘদিন ধরে যদি চুল পড়তে থাকে আর মাথা টাক হওয়া শুরু হয়, তবে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। পাশাপাশি এ টোটকা মেনে চুলের যত্নে পেয়ারা পাতা ব্যবহার করুন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

কালো চা দূর করবে মুখের কালচে দাগ

শারীরিক সুস্থতায় কালো চা পানের বিকল্প নেই। কালো চা আমরা সাধারণত লিকার হিসেবে (রং চা) অথবা দুধ-চিনি মিশিয়ে পান করে থাকি। তবে রং চায়ে ক্যালোরির পরিমাণ অনেক কম থাকে।

গবেষণায় দেখা গেছে, কালো চা স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায়। তা ছাড়া নিয়মিত কালো পান করলে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আসে। এমনকি যারা ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে চান; তাদের জন্যও রং চা অনেক কার্যকরী। শুধু শারীরিক সুস্থতা নয় বরং ত্বকের কালো দাগ দূর করতে পারে চা।

কালো চায়ের মধ্যে সবচেয়ে বেশি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট রয়েছে। চায়ের পলিফেনল হচ্ছে ব্যাকটেরিয়ার যম। যেকোনো জীবাণু ধ্বংসে কাজ করে কালো চায়ে থাকা উপাদানসমূহ। ত্বক ও চুলের যত্নে কালো চা ব্যবহারেই দেখবেন ম্যাজিকের মতো ফলাফল। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক রূপচর্চায় কালো চায়ের ব্যবহার-

>> চোখের নিচের বলিরেখা ও কালচে দাগ দূর করতে ব্ল্যাক টি’র ব্যবহৃত ঠান্ডা ব্যাগ চোখের উপর দিয়ে রাখুন।

>> চুলের ঝলমলে ভাব আনতে শ্যাম্পু শেষে ব্ল্যাক টি লিকার দিয়ে ধুয়ে নিন।

>> মেহেদির সঙ্গে কালো চায়ের লিকার মিশিয়ে চুলে লাগালে রঙিন আভা চলে আসবে।

>> ত্বকের কালচে দাগ দূর করতে ঠান্ডা টি ব্যাগ চেপে চেপে লাগান।

>> চুল লম্বা করতেও কালো চায়ের বিকল্প নেই! এজন্য কয়েকটি কালো চায়ের টি ব্যাগ এক কাপ পানিতে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। পরদিন শ্যাম্পু শেষে চুলের গোড়ায় স্প্রে করুন। ১৫ মিনিট চুলে তোয়ালে পেঁচিয়ে রাখুন। এরপর চুল শুকিয়ে নিন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

তামার পাত্রে পানি পানের উপকারিতা

প্রাচীনকাল থেকে উপমহাদেশের মানুষ তামার তৈজসপত্র ব্যবহার করে আসছে। বিশেষ করে পানি পানের জন্য তামার পাত্র প্রায় সব পরিবারেই ব্যবহার করা হত। তামায় আছে একাধিক গুণ, প্রতিদিন তামার পাত্রে পানি পান কীভাবে সুস্থ রাখে শরীর তা জেনে নিন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

কী আছে এই সোনার হোটেলে?

এখন বিশ্বব্যাপী আলোচনা হচ্ছে এই সোনার হোটেলটি নিয়ে। কী আছে এই সোনার হোটেলে? দুবাইয়ের ‘বুর্জ আল আরব’ নামের এ হোটেলটি সম্পর্কে জানা যাক।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com