আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

দৈনন্দিন

ইলিশ ডিমের মতি পোলাও

ইলিশ ডিমের মতি পোলাও
ইলিশ ডিমের মতি পোলাও

উপকরণ ক. ইলিশ মাছ ৪ টুকরা, ইলিশের ডিম ২ টুকরা, ধনেপাতাকুচি ২ টেবিল চামচ, পুদিনাপাতাকুচি ২ টেবিল চামচ, জিরাগুঁড়া আধা চা-চামচ, কাঁচা মরিচকুচি ২ টেবিল চামচ, পাউরুটি ২ টুকরা, টোস্ট বিস্কুটের গুঁড়া ২ টেবিল চামচ, ভাজার জন্য তেল পরিমাণমতো, লবণ স্বাদমতো।

উপকরণ খ. আদাবাটা ১ চা-চামচ, রসুনবাটা আধা চা-চামচ, পেঁয়াজবাটা ২ টেবিল চামচ, মরিচের গুঁড়া আধা চা-চামচ, তরল দুধ ১ কাপ, পেঁয়াজ বেরেস্তা ২ টেবিল চামচ, কাঁচা মরিচ ৪–৫টি, সয়াবিন তেল সিকি কাপ, টক দই ২ টেবিল চামচ, চিনি আধা চা-চামচ।

উপকরণ গ. পোলাওর চাল ২ কাপ, নারকেলের দুধ ১ কাপ, পানি (ইলিশ সিদ্ধ করার জন্য) ২ কাপ, গুঁড়া দুধ ২ টেবিল চামচ, ঘি সিকি কাপ, এলাচি ২টি, দারুচিনি ২ টুকরা, চিনি ১ চা-চামচ, কিশমিশ ১ টেবিল চামচ, লবণ প্রয়োজনমতো।

প্রণালি ক. ইলিশ মাছ লবণ ও ৩ কাপ পানি দিয়ে সিদ্ধ করে কাঁটা বেছে নিন। বাকি পানি পোলাওয়ের জন্য রেখে দিতে হবে। এবার ইলিশের ডিম ভালোভাবে চটকে নিন। কাঁটা বাছা মাছ ও বাকি উপকরণগুলো একসঙ্গে পানি দিয়ে ভেজানো পাউরুটির সঙ্গে মাখাতে হবে। এবার হাতে টোস্টের গুঁড়ো লাগিয়ে ছোট ছোট বলের মতো বানিয়ে ডুবো তেলে হালকা বাদামি করে ভেজে নিন।

খ. একটি পাত্রে দুধ বাদে সব উপকরণ একসঙ্গে ভালোভাবে বেটে চুলায় দিয়ে কষান। মসলায় সুঘ্রাণ এলে দুধ দিয়ে দিন। দুধ ফুটে উঠলে ভাজা মাছের ডিমের মতিগুলো দিতে হবে। একটু পর তেল চকচকে হলে পোলাওর সঙ্গে মিশিয়ে অল্প ঘি ছড়িয়ে ১০ মিনিট দমে রেখে পরিবেশন করুন।

গ. পোলাও: রাইস কুকারে যথারীতি নারকেলের দুধ ও ইলিশ সিদ্ধ পানি দিয়ে পোলাও রান্না করে নিতে হবে। রাইস কুকার ছাড়া চুলাতেও পোলাও রান্না করতে পারবেন।

দৈনন্দিন

ঔষধির নার্সারিতে স্বাবলম্বী

নিজের নার্সারিতে নিমাই চন্দ্র মহন্ত
নিজের নার্সারিতে নিমাই চন্দ্র মহন্ত

মাত্র ৭ শতাংশ জমিতে করা ফুল ও ঔষধিগাছের নার্সারি। এই দিয়েই ভাগ্য বদলে ফেলেছেন নওগাঁর মান্দা উপজেলার কামারকুড়ি গ্রামের নিমাই চন্দ্র মহন্ত (৪৫)। বাণিজ্যিকভাবে ফুল ও ঔষধিগাছের চারা তৈরিকেই জীবন-জীবিকার অবলম্বন হিসেবে বেছে নিয়েছেন তিনি।

নার্সারি থেকে চারা বিক্রি করে বর্তমানে নিমাইয়ের মাসিক আয় ১৪ হাজার টাকা। এই আয় ক্রমেই বাড়ছে। তাঁর নার্সারির চারার চাহিদাও তৈরি হচ্ছে নিজ এলাকা ছাড়িয়ে আশপাশের জেলাগুলোতে।

গত শুক্রবার সরেজমিনে দেখা গেছে, আত্রাই নদীপারের কামারকুড়ি গ্রামে নিমাই চন্দ্রের বাড়ির লাগোয়া নার্সারি। নিমাই এর নাম দিয়েছেন ‘বটতলা নার্সারি’। ৭ শতাংশ জমিতে রয়েছে বিভিন্ন জাতের ফুল ও ঔষধিগাছের চারা। নিমাইকে নার্সারি পরিচর্যায় ব্যস্ত দেখা গেল। তাঁর বাড়ির উঠান ও বারান্দাতেও সারি সারি সাজানো নানা জাতের ফুল ও ঔষধিগাছের টব।

নিমাইয়ের সঙ্গে কথা বলে জানা গেল, এইচএসসি পাসের পর অর্থের অভাবে তাঁর আর পড়াশোনা করা হয়নি। এইচএসসির পর তিনি একটি ওষুধ কোম্পানিতে বিক্রয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ শুরু করেন। চাকরি করা অবস্থায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে এক ব্যক্তির আমের চারার নার্সারির সাফল্য দেখে তিনি নার্সারি করার পরিকল্পনা করেন। ওষুধ কোম্পানিতে চার বছর কাজ করার পর চাকরি ছেড়ে বাড়ি ফিরে আসেন তিনি। এরপর বাড়ির সামনে নিজের একমাত্র সম্বল ৭ শতাংশ জমিতে শুরু করেন ফুল ও ঔষধি গাছের চারা তৈরি।

প্রথম আলোকে নিমাই বলেন, ব্যবসায়ীদের কেউ কেউ নার্সারি থেকে চারা সংগ্রহ করে নিয়ে যান। তবে অধিকাংশ ক্ষেত্রে আশপাশের জেলায় ব্যবসায়ীদের কাছে তিনি নিজেই চারা পৌঁছে দিয়ে আসি।’ অনেকেই পরামর্শ নিতে আসেন তাঁর কাছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

করোনা ভাইরাস: নতুন পরীক্ষা হওয়া নমুনার প্রায় ২৫ ভাগের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত

করোনা ভাইরাস: নতুন পরীক্ষা হওয়া নমুনার প্রায় ২৫ ভাগের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত
করোনা ভাইরাস: নতুন পরীক্ষা হওয়া নমুনার প্রায় ২৫ ভাগের মধ্যে করোনাভাইরাস শনাক্ত

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে যে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন ২১ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

আর এই সময়ে নতুন করে আরও ২,১৯৯ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

একদিনে মোট ৮,৮০২টি নমুনা পরীক্ষা থেকে আক্রান্তের এই সংখ্যা পাওয়া গেছে।

এ নিয়ে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩,১৩২ জনে। আর এখন পর্যন্ত মোট করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন ২,৩৯,৮৬০ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় যতগুলো নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে তার ২৪.৯৮ ভাগের মধ্যেই করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা এসব তথ্য জানিয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ১৫ জন পুরুষ, আর নারী ৬ জন।

বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত যতজন করোনাভাইরাস সংক্রমণে মারা গেছেন তাদের প্রায় ৮০ভাগই পুরুষ।

আর বয়সের হিসেবে মারা যাওয়াদের ৭৫ ভাগের বেশি মানুষের বয়স পঞ্চাশের বেশি।

এদিকে, বাংলাদেশে কোভিড-১৯ রোগ থেকে এখন পর্যন্ত মোট ১,৩৬,২৫৩ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন, যাদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১,১১৭ জন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

করোনা ভাইরাস: আসন্ন শীতকালে পরিস্থিতি কতটা খারাপ হতে পারে?

উত্তর গোলার্ধের দেশগুলোতে শীত মওসুম শুরু হলে করোনাভাইরাস আর ফ্লু এই দুই সমস্যার মোকাবিলা করতে হবে
উত্তর গোলার্ধের দেশগুলোতে শীত মওসুম শুরু হলে করোনাভাইরাস আর ফ্লু এই দুই সমস্যার মোকাবিলা করতে হবে

আর মাস তিনেকের মধ্যেই শীত আসছে। পৃথিবীর অধিকাংশ দেশেই এসময়টায় ঠান্ডা লাগা বা ফ্লু-র প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়।

এ কারণে আশংকা দেখা দিয়েছে যে ঋতু পরিবর্তনের সময় করোনাভাইরাস সংক্রমণ বেড়ে যাবে এবং বলা হচ্ছে, প্রথম দফায় সংক্রমণ যত ব্যাপক ছিল – দ্বিতীয় দফায় তা আরো মারাত্মক হবে।

কিন্তু করোনাভাইরাস সংক্রমণ কেমন চেহারা নেবে -তার পূর্বাভাস দেয়া কি এত সহজ-সরল?

মোটেও তা নয়। বরং ব্যাপারটা বেশ জটিল।

শুধু করোনাভাইরাসের প্রকৃতি নয়, অন্য নানা রকম শীতকালীন রোগজীবাণু, মানুষের আচরণ, সরকারী নীতির সাফল্য-ব্যর্থতা – এরকম অনেক কিছুর ওপর নির্ভর করছে, করোনাভাইরাস সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ আসলেই আসবে কিনা।

তা ছাড়া বিজ্ঞানে এখন নতুন কিছু গবেষণা চলছে যাতে দেখা যায় যে একটি ভাইরাল সংক্রমণ হয়তো অন্য কোন ভাইরাসের সংক্রমণকে আটকে দিতে পারে।

তবে করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রে এর কোন প্রভাব পড়বে কিনা তা এখনো অজানা।

করোনাভাইরাস কি শীতের সময় বেশি ছড়াবে?

এর উত্তর এখনও পাওয়া যায় নি। তবে বিজ্ঞানীরা বলেন, এমন হবার সম্ভাবনা আছে।

তবে এটা বলা হচ্ছে অন্য ভাইরাস সম্পর্কে আমরা যা জানি তার ওপর ভিত্তি করে।

করোনাভাইরাস আছে মোট চার রকমের -যা সাধারণ সর্দিজ্বরের লক্ষণ সৃষ্টি করে। প্রতিটিই সহজে ছড়ায় শীতের সময় । ইনফ্লুয়েঞ্জা, রাইনোভাইরাস, এবং আরএসভি নামে আরেকটি ভাইরাস – এর সবগুলোরই আচরণ মোটামুটি একই রকম।

শীতের সময় একই সাথে শীতকালীন ইনফ্লুয়েঞ্জা আর করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশংকা করছেন অনেকে
শীতের সময় একই সাথে শীতকালীন ইনফ্লুয়েঞ্জা আর করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের আশংকা করছেন অনেকে

তবে লন্ডন স্কুল অব হাইজিন এ্যান্ড ট্রপিক্যার মেডিসিনের ড. রেচেল লো বলছেন, “এগুলো হয়তো মৌসুমি হতে পারে, কারণ অন্য কিছু ভাইরাস আছে যেগুলো শীতকালে সংক্রমণ বাড়তে দেখা যায় – কিন্তু আবহাওয়া নাকি মানুষের আচরণ, কোনটার প্রভাব এখানে বেশি এখনো তা বোঝার ক্ষমতা খুব সীমিত।”

তবে দেখা গেছে, মানবদেহের বাইরের পরিবেশ যখন ঠান্ডা – তখন সব ভাইরাসই অপেক্ষাকৃত ভালোভাবে বেঁচে থাকতে পারে।

যুক্তরাজ্যের বিশেষজ্ঞরা বলছেন, করোনাভাইরাসের জন্য বিশেষ করে ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা বিশেষ অনুকুল বলে দেখা গেছে।

সূর্যের আলোয় যে অতিবেগুনি রশ্মি থাকে তা ভাইরাসকে নিষ্ক্রিয় করে ফেলে। কিন্তু শীতের সময় অতিবেগুনি রশ্মির পরিমাণও কম থাকে।

শীতপ্রধান দেশগুলোতে ঠান্ডার সময় লোকে ঘরের ভেতরেই বেশি থাকে। দরজা জানালা থাকে বন্ধ থাকে। বাতাস চলাচল করে কম। এবং এই পরিবেশই করোনাভাইরাস ছড়ানোর জন্য সহায়ক।

ব্রিটেনের একাডেমি অব মেডিকাল সায়েন্সেস-এর এক পূর্বাভাসমূলক রিপোর্ট বলছে, শীতের সময় ব্রিটেনের পরিস্থিতি সবচেয়ে বেশি খারাপ হলে তাতে আড়াই লাখেরও বেশি লোক মারা যাবে।

কিছু বিশেষজ্ঞ আশংকা করছেন শীতের সময় ব্রিটেনে আড়াই লাখ পর্যন্ত মানুষ মারা যেতে পারে
কিছু বিশেষজ্ঞ আশংকা করছেন শীতের সময় ব্রিটেনে আড়াই লাখ পর্যন্ত মানুষ মারা যেতে পারে

এই রিপোর্টে ধরে নেয়া হয়েছে যে সে পরিস্থিতিতে ‘আর’ নম্বর হবে ১ দশমিক ৭ অর্থাৎ একজন সংক্রমিত ব্যক্তি আরো ১.৭ জনকে সংক্রমিত করবে। বর্তমানে ব্রিটেনে এই ’আর’ নম্বর ১ এর নিচে। লকডাউনের আগে তা ছিল প্রায় ৩।

ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের অধ্যাপক ওয়েন্ডি বার্কলি বলছেন, এখনো অনেক কিছুই অজানা, তবে লোকে যে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে উদ্বিগ্ন তার সঙ্গত কারণ আছে, এবং ব্রিটেনে একটা দ্বিতীয় ঢেউ আসা খুবই সম্ভব।

এর কারণ হিসেবে তিনি বলছেন, ব্রিটেনে জনসংখ্যা মাত্র ৫ শতাংশ এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়েছে, ৯৫ শতাংশের ভাইরাস প্রতিরোধের কোন ক্ষমতাই নেই। এখানে জনগোষ্ঠীর মধ্যে ব্যাপক প্রতিরোধ ক্ষমতা অর্থাৎ হার্ড ইমিউনিটি অর্জিত হয় নি।

অন্য ভাইরাসগুলো কি সমস্যার কারণ হতে পারে?

যেটা বিজ্ঞানীরা আশংকা করছেন তা হলো – করেনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ এবং নিয়মিত শীতকালীন ফ্লু – দুটো যদি একসঙ্গে হয় তাহলে কি হবে?

এটা ঠিক যে করোনাভাইরাসের কারণে মানুষের আচরণে অনেক পরিবর্তন এসেছে। মানুষ ঘন ঘন হাত ধুচ্ছে, মুখে মাস্ক পরছে, সামাজিক দূরত্ব রক্ষা করছে, বাড়িতে বসে কাজ করছে।

তাই এমন হতে পারে যে আসন্ন শীতে নিয়মিত ফ্লু ভাইরাসও হয়তো বেশি ছড়াতে পারবে না।

অস্ট্রেলিয়াতে এখন শীত চলছে। সেখানে ঠিক এই ব্যাপারটাই দেখা যাচ্ছে। করোনাভাইরাসের সময় সেখানে শীতকালীন ফ্লু প্রায় দেখাই যাচ্ছে না।

পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এখন গবেষণা চলছে, দ্রুত করোনাভাইরাসের একটি টিকা তৈরির জন্য
পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এখন গবেষণা চলছে, দ্রুত করোনাভাইরাসের একটি টিকা তৈরির জন্য

চিলি এবং দক্ষিণ আফ্রিকার মতো দক্ষিণ গোলার্ধের দেশেও একই প্রবণতা দেখা গেছে।

তার পরেও ড. লো বলছেন, আসন্ন শীতকালে করোনাভাইরাসের একটা দ্বিতীয় ঢেউএর জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে, আত্মসন্তুষ্টিতে ভুগলে চলবে না।

একটি ভাইরাস কি আরেকটিকে ঠেকিয়ে দিতে পারে?

এটা হচ্ছে বৈজ্ঞানিকদের জন্য সবচেয়ে বড় কৌতুহলের ব্যাপার যে সার্স-কোভ-টু (করোনাভাইরাসের পোশাকি নাম) ভাইরাসটি অন্য ভাইরাসের সাথে কি আচরণ করে।

শ্বাসতন্ত্রের রোগ সৃষ্টিকারী সব ভাইরাসই মানবদেহের একটি জায়গাতেই সংক্রমণ ঘটায়, আর তা হলো, মানুষের নাক, গলা ও ফুসফুসের ভেতরের কোষগুলো।

একারণেই ভাইরাসগুলোর মধ্যে জায়গা দখলের লড়াই শুরু হতে পারে।

বেশ কিছু জরিপে দেখা গেছে যে এক ধরণের ভাইরাস সংক্রমণ অন্য আরেকটি ভাইরাসকে ঠেলে সরিয়ে দিতে পারে। বিজ্ঞানীরা ধারণা করেন, ইউরোপে রাইনোভাইরাস সংক্রমণের কারণেই ২০০৯ সালে সোয়াইন ফ্লু ভাইরাসের সংক্রমণ বিলম্বিত হয়েছিল।

শীতের সময় মানুষে দরজা জানারা বন্ধ করে ঘরে থাকে, আর এ পরিবেশেই করোনাভাইরাস সংক্রমণ ত্বরান্বিত হতে পারে
শীতের সময় মানুষে দরজা জানারা বন্ধ করে ঘরে থাকে, আর এ পরিবেশেই করোনাভাইরাস সংক্রমণ ত্বরান্বিত হতে পারে

গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইরাস গবেষণা কেন্দ্রের ড. পাবলো মারসিয়া বলছেন, একটি ভাইরাসের আক্রমণের ফলে মানবদেহে যে রোগ-প্রতিরোধী প্রতিক্রিয়া হয় – তা অন্য কিছু ভাইরাসকে অন্তত খানিকটা সময়ের জন্য ঠেকিয়ে রাখতে পারে।

তবে অন্য কয়েকটি জরিপে আবার দেখা গেছে যে কিছু কিছু ভাইরাস বেশ ‘মিলেমিশে’ থাকতে পারে এবং পাশাপাশি বিস্তার ঘটাতে পারে।

প্রশ্ন হলো: করোনাভাইরাস বা সার্স-কোভ-টুর বেলায় কী ঘটবে?

ড. মারসিয়া বলছেন, আমাদের উপাত্তে দেখা যায় যে মিশ্র সংক্রমণের ক্ষেত্রে ইনফ্লুয়েঞ্জা ছড়ানোর দৃষ্টান্ত খুবই বিরল।

“কাজেই আমার মনে হয় – একই সাথে সার্স-কোভ-টু এবং ইনফ্লুয়েঞ্জা ছড়াচ্ছে এমনটা হয়তো আমরা খুব বেশি দেখতে পাবো না।“

একসঙ্গে দুটি ভাইরাসেই সংক্রমিত হয়েছেন এমন লোক পাওয়া গেছে খুবই কম। তবে যখন এটা ঘটেছে – তখন দেখা গেছে উপসর্গ ছিল অনেক বেশি গুরুতর।

তবে ড. মারসিয়া বলছেন, অন্য কিছু করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রে অবশ্য দেখা গেছে যে তারা আরএসভি, এডেনোভাইরাস এবং কিছু প্যারা-ইনফ্লুয়েঞ্জার সাথে একই সময়ে সংক্রমণ ঘটাচ্ছে।

তিনি বলছেন, ”আমি বর্তমান এবং ভবিষ্যৎ নিয়ে উদ্বেগে আছি।“

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

করোনা ভাইরাস: বাংলাদেশে মোট মৃত্যুর প্রায় ৮০ ভাগই পুরুষ

করোনাভাইরাস।
করোনাভাইরাস।

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে যে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে ২৮ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন।

আর এই সময়ে নতুন করে আরও ২,৭৭২ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। একদিনে মোট ১২,৬১৪ টি নমুনা পরীক্ষা থেকে আক্রান্তের এই সংখ্যা পাওয়া যায়।

ফলে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মোট মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩,১১১ জনে। আর এখন পর্যন্ত মোট করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছেন ২,৩৭,৬৬১ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা এসব তথ্য জানিয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় যারা মারা গেছেন, তাদের মধ্যে ২২ জন পুরুষ, আর নারী ৬ জন।

এ পর্যন্ত যতোজন কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন তাদের মধ্যে ৭৮.৬২% পুরুষ এবং ২১.৩৮% নারী।

এদিকে, বাংলাদেশে কোভিড-১৯ রোগ থেকে এখন পর্যন্ত ১,৩৫,১৩৬ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ২,১৭৬ জন।

২৪ ঘণ্টায় ২৮ জনই হাসপাতালে মারা গেছেন তাদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে ১৩ জন, চট্টগ্রামের ৮ জন, রাজশাহীর ৩ জন, খুলনার ২ জন, বরিশাল ও রংপুর বিভাগে ১ জন করে মারা গেছেন।

এ পর্যন্ত মোট যতোজন মারা গেছেন তাদের মধ্যে ৪৭.৮৩% ঢাকায় এবং ২৪.৪০% চট্টগ্রামে।

কোন বয়সের কতোজন মারা গেছেন?

বাংলাদেশে এ পর্যন্ত যতোজন কোভিড ১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। তাদের মধ্যে-

০-১০ বছর বয়সের মধ্যে- ১৮ জন (.৫৮%)।

১১-২০ বছর বয়সের মধ্যে- ৩০ জন (.৯৬%)।

২১-৩০ বছর বয়সের মধ্যে- ৮৭ জন (২.৮০%)।

৩১-৪০ বছর বয়সের মধ্যে- ২০৫ জন (৬.৫৯%)।

৪১-৫০ বছর বয়সের মধ্যে- ৪৩৭ জন (১৪.০৫%)।

৫১-৬০ বছর বয়সের মধ্যে- ৮৯৭ জন (২৮.৮৩%)।

৬০ বছর বয়সের উর্ধ্বে- ১,৪৩৭ জন (৪৬.১৯%)।

এই প্রতিবেদন লেখার সময় বিশ্বের ১ কোটি ৭২ লাখ ৯৭ হাজার ২৭৬ জনের মধ্যে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছেন।

মারা গেছেন ৬ লাখ ৭৩ হাজার ২৮৪ জন। সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ১ লাখ ৩৪ হাজার ৫৬০ জন মানুষ। যুক্তরাষ্ট্রের জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এই তথ্য জানা গেছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

গরুর মাংস: কার জন্য কতোটুকু খাওয়া নিরাপদ

গরুর মাংস নিয়ম মেনে খেলে ক্ষতির আশঙ্কা থাকে না।
গরুর মাংস নিয়ম মেনে খেলে ক্ষতির আশঙ্কা থাকে না।

অনেকেরই ধারণা গরুর মাংস খেলেই বুঝি স্বাস্থ্যের অনেক ক্ষতি হয়ে যাবে। গরুর মাংসে প্রচুর কোলেস্টেরল থাকায় অনেকেই সেটি খাওয়া এড়িয়ে চলেন।

কিন্তু পুষ্টিবিদরা জানিয়েছেন, গরুর মাংসের ক্ষতিকর দিক যেমন আছে, তেমনি এই মাংস অনেক উপকারও করে থাকে। এবং গরুর মাংসে যতো পুষ্টিগুণ আছে সেগুলো অন্য কোন খাবার থেকে পাওয়া কঠিন।

এখন এই মাংস আপনার জন্য ক্ষতিকর হবে না উপকারী, সেটা নির্ভর করবে আপনি সেটা কতোটা নিয়ম মেনে, কি পরিমাণে খাচ্ছেন।

গরুর মাংসের পুষ্টিগুণ

পুষ্টিবিদরা জানিয়েছেন, গরুর মাংসে রয়েছে আমাদের শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় প্রোটিন, ভিটামিনস, মিনারেলস বা খনিজ উপাদান যেমন, জিঙ্ক, সেলেনিয়াম, ফসফরাস, আয়রন। আবার ভিটামিনের মধ্যে রয়েছে ভিটামিন বি২ বি৩, বি৬, এবং বি১২। আর এই পুষ্টিকর উপাদানগুলো –

•রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

•পেশি, দাঁত ও হাড়ের গঠনে ভূমিকা রাখে।

•ত্বক/চুল ও নখের স্বাস্থ্য ভালো রাখে।

•শরীরের বৃদ্ধি ও বুদ্ধি বাড়াতে ভূমিকা রাখে।

• ক্ষত নিরাময়ে সাহায্য করে।

•দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখে।

•অতিরিক্ত আলসেমি/ ক্লান্তি বা শরীরের অসাড়তা দূর করে কর্মোদ্যম রাখে।

•ডায়রিয়া প্রতিরোধে সাহায্য করে।

•রক্তস্বল্পতা প্রতিরোধ করে।

•খাবার থেকে দেহে শক্তি যোগান দেয়।

•স্মৃতিশক্তি বাড়ায়।

•অবসাদ/ মানসিক বিভ্রান্তি/ হতাশা দূর করে।

কোরবানির মৌসুমে গরুর মাংস বেশি খাওয়া হয়ে থাকে।
কোরবানির মৌসুমে গরুর মাংস বেশি খাওয়া হয়ে থাকে।

কার জন্য কতোটুকু প্রোটিন:

গরুর মাংস, হাড়, কলিজা, মগজ ইত্যাদি থেকে প্রোটিন পাওয়া যায়। সবচেয়ে বেশি প্রোটিন থাকে মগজে, এরপর কলিজায়, তারপর মাংসে।

পুষ্টিবিদ চৌধুরী তাসনিম হাসিন জানিয়েছেন প্রতিদিনের প্রোটিনের চাহিদা নির্ভর করে আপনার ওজনের ওপর। ধরলাম একজন মানুষের আদর্শ ওজন ৫০ কেজি।

তিনি যদি সুস্থ থাকেন তাহলে প্রতিদিন তার ৫০ গ্রামের মতো প্রোটিন প্রয়োজন, তবে যদি তার কিডনি জটিলতা থাকে তাহলে তিনি প্রতিদিন ২৫ গ্রাম প্রোটিন খাবেন। মানে স্বাভাবিকের চেয়ে অর্ধেক।

আবার মেয়েদের মাসিক চলাকালীন কিংবা গর্ভবতী অবস্থায় এই পরিমাণ দ্বিগুণ হয়ে যাবে।

অর্থাৎ আদর্শ ওজন ৫০ কেজি হলে তারা ১০০ গ্রাম পর্যন্ত প্রোটিন খেতে পারবেন।

যাদের ওজন আদর্শ ওজনের চাইতে কম তাদেরও বেশি বেশি প্রোটিন খাওয়া প্রয়োজন।

তবে কারোই প্রতিদিন ৭০ গ্রামের বেশি এবং সপ্তাহে ৫০০ গ্রামের বেশি প্রোটিন খাওয়া উচিত না বলে ব্রিটেনের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ জানিয়েছে।

প্রতি ১০০ গ্রাম গরুর মাংসে ২৬ গ্রাম প্রোটিন এবং ২ গ্রাম ফ্যাট থাকে। তার মানে প্রতিদিনের এই প্রোটিনের চাহিদা পূরণে কি আপনি ২৭০ গ্রাম মাংস খাবেন?

একদমই না। কেননা দৈনিক প্রোটিনের চাহিদা একটি খাবার নয় বরং বিভিন্ন খাবার ও পানীয় দিয়ে আমরা পূরণ করে থাকি।

গরুর মাংসে সবজি মিশিয়ে খেলে মাংস কিছুটা কম খাওয়া হয়।
গরুর মাংসে সবজি মিশিয়ে খেলে মাংস কিছুটা কম খাওয়া হয়।

কতোটুকু গরুর মাংস খাওয়া নিরাপদ

কোরবানি ঈদের পর পর বেশ কয়েক দিন গরুর মাংস অনেক বেশি খাওয়া হয়।

তাই এ সময় প্রোটিন-সমৃদ্ধ অন্য খাবার এড়িয়ে চলুন।

কখনোই প্রতিদিন একটানা মাংস খাওয়া যাবে না।

পুষ্টিবিদ তাসনিম হাসিনের মতে, গরুর মাংস খাওয়ার নিরাপদ মাত্রা হল সপ্তাহে দুই দিন, মোট তিন থেকে পাঁচ বেলা খাওয়া।

এই দুই দিনে আপনি মোট ১৫৪ গ্রাম গরুর মাংস খেতে পারবেন। এবং সপ্তাহের ওই দুই দিন প্রতি বেলায় আপনার পাতে মাংসের পরিমাণ হবে ১৬ থেকে ২৬ গ্রাম।

আরও সহজ করে বললে প্রতি বেলায় ঘরে রান্না করা মাংস ২/৩ টুকরার বেশি খাবেন না।

তবে আপনি যদি ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, হাইপার-টেনশন বা কিডনি রোগে আক্রান্ত হন তাহলে চিকিৎসকের কাছে মাংস খাওয়ার পরিমাণটি জেনে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন মিসেস হাসিন।

তিনি জানান, সাধারণত সপ্তাহে তারা এক থেকে দুই বেলা মাংস খেলে তেমন ঝুঁকি নেই। তবে চিকিৎসকরা যদি মাংস খেতে সম্পূর্ণ নিষেধ করেন, তাহলে খাবেন না।

আমাদের বয়স, স্বাস্থ্য, লিঙ্গ এবং শারীরিক পরিশ্রমের ওপর ভিত্তি করে প্রতিদিন ১২০০-২০০০ ক্যালরির প্রয়োজন হয়।

এখন সপ্তাহের এক বেলায় যদি আপনি ২৫ গ্রাম চর্বি-ছাড়া মাংস মানে মাঝারি আকারের ২/৩ টুকরা মাংস খান তাহলে সেটা থেকে আপনি হয়তো ৬২ ক্যালোরি পাবেন যা আপনার প্রতিদিনের চাহিদার মাত্র ৩%-৫% ক্যালোরির জোগান দেবে।

তাই গরুর মাংস মানেই হাই ক্যালোরি, তা নয়।

যারা এতদিন ভাবতেন গরুর মাংসে সবচেয়ে বেশি কোলেস্টেরল রয়েছে, তাদের বলতে চাই যে একটি মুরগির ডিমের কুসুমে ১৯০ মিলিগ্রাম ভালো কোলেস্টেরল থাকে যা চর্বি ছাড়া ২১০ গ্রাম গরুর মাংসের সমান, বলছেন মিসেস হাসিন।

তাই গরুর মাংস মানেই অনেক বেশি কোলেস্টেরল এই ধারণা ভুল।

গরুর মাংসে তৈরি বিভিন্ন খাবার।
গরুর মাংসে তৈরি বিভিন্ন খাবার।

গরুর মাংস কিভাবে খেলে ঝুঁকি কমবে

গরুর মাংস কতোটা নিরাপদ সেটা নির্ভর করবে আপনি সেটা কিভাবে কাটছেন এবং রান্না করছেন, তার ওপর।

যুক্তরাষ্ট্রের একটি হেলথ জার্নাল থেকে জানা গেছে, গরুর শরীরের ২টি অংশে চর্বির পরিমাণ অনেক কম থাকে। একটি হল গরুর পেছনের রানের উপরে ফোলা অংশের মাংস যেটাকে রাউন্ড বলা হয় এবং পেছনের দিকের উপরের অংশের মাংস যেটাকে সেরলয়েন বলা হয়।

তবে মাংসের বাইরে যে চর্বি লেগে থাকে সেটা রান্নার আগে কেটে ফেলে দিলে কোলেস্টেরলের পরিমাণ উল্লেখযোগ্য হারে কমিয়ে আনা যায়।

তাই গরুর মাংস রান্নার আগে মাংসের গায়ে লেগে থাকা সব চর্বি কেটে ছাড়িয়ে নিতে হবে।

চেষ্টা করুন ছোট ছোট টুকরো করে কাটার- কারণ মাংসের টুকরো যতো ছোট হবে ততোই এর চর্বির পরিমাণ কমে যাবে।

এ কারণে গরুর মাংস কিমা অথবা মাংস বাটায় চর্বি সবচেয়ে কম থাকে।

মাংস কাটা শেষে সেটা ভালোভাবে ধুয়ে নিয়ে কিছুক্ষণ পানিতে সেদ্ধ করতে হবে। এরপর পানিতে দেখবেন চর্বির স্তর উঠে আসছে।

গরুর মাংস খাওয়ার সময় ঝোল খাওয়া এড়িয়ে যেতে হবে।
গরুর মাংস খাওয়ার সময় ঝোল খাওয়া এড়িয়ে যেতে হবে।

মাংস কিছুক্ষণ ফুটে ওঠার পর এই পুরো পানিটা ফেলে দেবেন। যদিও এতে মাংসে থাকা চর্বির পাশাপাশি ভিটামিনস ও মিনারেলসও বেরিয়ে যায়।

এরপর সেই সেদ্ধ মাংস কম তেল দিয়ে রান্না করুন, যতোটুকু না দিলেই না। ঘি, মাখন, ডালডা এমন তেল না দেয়াই ভাল।

মিসেস হাসিন বলেছেন, মাংসে থাকা ফ্যাট আরও কমাতে ভিনেগার, লেবুর রস বা টক দই দিয়ে রান্না করতে পারেন।

গরুর মাংস বেশি তেল মসলা দিয়ে কসিয়ে ভুনা করে রান্না না করাই ভালো।

এর চাইতে ভাল ঝোল ঝোল করে মাংস রান্না করা এবং খাবার সময় সেই ঝোল এড়িয়ে যাওয়া।

এছাড়া গরুর মাংস আগুনে ঝলসে খেলে চর্বি অনেকটাই চলে যায়। গ্রিল বা শিক কাবাব, জালি কাবাব পুড়িয়ে খাওয়ার কারণে ক্ষতির আশঙ্কা অনেকটাই কমে যায়।

আবার গরুর মাংস যেন কম খাওয়া হয় সেজন্য মাংসের সাথে বিভিন্ন সবজি যেমন মিষ্টি কুমড়া, লাউ, ফুলকপি, বাঁধাকপি, পেঁপে ইত্যাদি মেশাতে পারেন।

এছাড়া গরুর মাংসের কাবার বানানোর সময় কিমার সাথে ডাল বা অন্যান্য খাদ্য উপাদান ব্যবহার করা হয় বলে গরুর মাংস কম খাওয়া হয়।

গরুর মাংস ফ্রিজে রাখার ওপর বা কিছুক্ষণ ঠাণ্ডা পরিবেশে রাখলে এর ওপর তেলের একটি আস্তর পড়ে। সেটা ফেলে দিয়েও ফ্যাট অনেকটাই কমানো সম্ভব।

গরুর মাংস ঝলসে খেলে এর চর্বির অধিকাংশ পুড়ে যায়।
গরুর মাংস ঝলসে খেলে এর চর্বির অধিকাংশ পুড়ে যায়।

অতিরিক্ত গরুর মাংস খাওয়ার ঝুঁকি

অতিরিক্ত গরুর মাংস শরীরের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে বলে জানিয়েছেন পুষ্টিবিদরা।

কারণ গরুর মাংসে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে সোডিয়াম, যা রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয়। আর উচ্চ রক্তচাপ থেকে হৃদরোগ, স্ট্রোক ও কিডনি জটিলতা দেখা দিতে পারে।

গরুর মাংসে যে কোলেস্টেরল থাকে সেটি বেশি বেড়ে গেলে হার্টের শিরায় জমে রক্ত জমাট বাঁধিয়ে দেয়। এতে হার্টে পর্যাপ্ত রক্ত চলাচল করতে পারে না, অক্সিজেনের অভাব হয়।

যার কারণে হৃদরোগ ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বহুগুণে বেড়ে যায়।

আর্কাইভ অব ইন্টারন্যাশনাল মেডিসিনের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, যারা গরুর মাংস বেশি খান তাদের ক্যান্সারের ঝুঁকি অনেক বেশি থাকে।

এছাড়া গরুর মাংস বেশি খেলে টাইপ-টু ডায়াবেটিস, মুটিয়ে যাওয়া, আরথ্রাইটিস, কোষ্ঠকাঠিন্য, ত্বকের সমস্যা ইত্যাদি নানা জটিলতা দেখা দিতে পারে।

তাই গরুর মাংস যদি খেতেই হয় তার আগে বিশেষজ্ঞের থেকে জেনে নিন আপনার জন্য কতোটুকু গরুর মাংস প্রযোজ্য।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com