আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

ফল

আপেল কুল চাষে লাভের মুখ

কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার ঝাকুনিপাড়া গ্রামে খেত থেকে কাশ্মীরি বরই তুলছেন কৃষক আবুল কাসেম। গতকাল বেলা ১১টায়। ছবি: প্রথম আলো
কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার ঝাকুনিপাড়া গ্রামে খেত থেকে কাশ্মীরি বরই তুলছেন কৃষক আবুল কাসেম। গতকাল বেলা ১১টায়। ছবি: প্রথম আলো

চার ফুট উচ্চতার একেকটি গাছ। ডালে থোকায় থোকায় ধরে আছে বরই। পরিপক্ব বরইগুলো দেখতে লাল আপেলের মতো। স্বাদে মিষ্টি। স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে এগুলো কাশ্মীরি আপেল কুল হিসেবে পরিচিত। কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের ঝাকুনিপাড়া গ্রামে গোমতী নদীর তীরে এই বরইয়ের বাগান।

গ্রামের আবুল কাসেম প্রথমবারের মতো কাশ্মীরি আপেল কুলের চাষ করেন। প্রতিদিন বহু লোক তাঁর বাগানে এসে বরই কিনে নিয়ে যান। ফলন ভালো হয়েছে। দামও ভালো। এতে আবুল কাসেম বেশ খুশি। তিনি আগামী বছর আরও বেশি পরিমাণ জমিতে এই বরইয়ের চাষ করবেন বলে জানিয়েছেন।

সরেজমিনে গতকাল শুক্রবার বেলা ১১টায় কুমিল্লার গোমতী নদীর বেড়িবাঁধের ভেতরে প্রবেশ করে দেখা গেছে, নদীর একেবারেই তীর ঘেঁষে ৪০ শতক জমিতে রোদের মধ্যে চিকচিক করছে বরই। সর্বোচ্চ চার ফুট উচ্চতার একেকটি গাছ। এগুলোতে বরই ধরে আছে। কিছু কিছু ডাল ফলের ভারে নুয়ে পড়েছে। গাছ থেকে আপেল রঙের পাকা বরই ছিঁড়ছেন আবুল কাসেম। কুমিল্লা শহর থেকে কাশ্মীরি বরই কিনতে এখানে এসেছেন বেশ কয়েকজন। খেত থেকে সদ্য তোলা প্রতি কেজি বরই বিক্রি হয় ১৫০ টাকায়। 

জানতে চাইলে আবুল কাসেম বলেন, গত বছর যশোর শহরের সোহাগ নার্সারি থেকে ৩০০টি বরইগাছের চারা কিনে আনেন। এরপর মে ও জুন মাসে ঝাকুনিপাড়া এলাকার লিজ নেওয়া জমিতে এক ফুট লম্বা ২৭৫টি বরইগাছের চারা রোপণ করেন। তখন ওই গাছে কেঁচো সার ব্যবহার করেন। বরইগাছ বড় হওয়ার পর ছড়ানো ডাল ঠিক রাখার জন্য বাঁশের খুঁটি ব্যবহার করেন। নভেম্বর ও ডিসেম্বর মাসে গাছগুলোতে ফুল আসে। এসব কুল প্রথমে সবুজ থাকে। পরে সেটি লাল রং ধারণ করে। জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে ফল পরিপক্ব হয়। এরপর থেকে বরই বিক্রি শুরু করেন। এই জমিতে বরই চাষ করতে তাঁর ৪০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এ পর্যন্ত ১ লাখ টাকার বরই বিক্রি করেছেন। আরও অন্তত লাখ টাকার বরই বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন। প্রতিদিন আশপাশের বিভিন্ন গ্রাম ও কুমিল্লা শহর থেকে মানুষ এসে তাঁর এই বাগান থেকে বরই কিনে নিয়ে যান। এবার ফলন ভালো হওয়ার আগামী বছর আরও ৮০ শতক জমিতে বরইয়ের চাষ করবেন। ইতিমধ্যে জায়গা নিয়েছেন। তাঁর জানামতে, কুমিল্লা অঞ্চলে আর কেউ এই জাতের বরই চাষ করছেন না। এটি কাশ্মীর থেকে আনা জাত। তাই একে কাশ্মীরি বরই বলে। দেখতে আপেলের মতো। এ কারণে একে কেউ কেউ কাশ্মীরি আপেল কুলও বলেন।

কৃষক আবুল কাসেম আরও বলেন, ছোটবেলা থেকে অভাব–অনটনের মধ্য দিয়ে তাঁর বেড়ে ওঠা। তাঁরা তিন বোন ও এক ভাই। মা-বাবা গত হয়েছেন বহু আগেই। ১৯৮৯ সালে কুমিল্লা স্টেডিয়ামের লাগোয়া খাজা নার্সারিতে তাঁর ৩০০ টাকা বেতনে চাকরি হয়। সেখানে নার্সারির গাছের পরিচর্যা করেন। ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত সেখানে ছিলেন। তিনি বলেন, ‘কুমিল্লা নগরের শাকতলা এলাকায় বিসমিল্লাহ নার্সারি দিই। তখন সড়ক ও জনপথ বিভাগের বিভিন্ন সড়কের আইল্যান্ডে ফুল ও ফলের গাছ লাগাই। এভাবে আমার পুঁজি বাড়ে। গত বছর বিসমিল্লাহ নার্সারির জায়গার চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়। জায়গার মালিক নবায়ন না করার কারণে আমি গ্রামে ফিরে আসি। এরপর ঝাকুনিপাড়ায় বড় ছেলের নামে শাহজাহান অ্যাগ্রো অ্যান্ড নার্সারি নামে নতুন নার্সারি দিই। এই নার্সারির আওতায় বরইবাগানের পাশে অন্য জমিতে বিভিন্ন ফুল, ফল, সবজির চারা বপন করে চারা বিক্রি করি। আমার স্ত্রী সালেহা বেগম, ছেলে শাহজাহান এই কাজে আমাকে সহযোগিতা করেন। নার্সারির আয় থেকে বড় মেয়ে কুমিল্লা সরকারি মহিলা কলেজে পড়ে। ছোট মেয়ে এলাকার স্কুলে ষষ্ঠ ও ছোট ছেলে চতুর্থ শ্রেণিতে পড়ে। তাদের পড়ার খরচ জোগান দেওয়া হয়।’

কুমিল্লার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. মোসলেম উদ্দিন বলেন, এ জাতের বরই মিষ্টি হয়। খেতে সুস্বাদু। ফলনও বেশি হয়। এতে কৃষকেরা লাভবান হন।

কুমিল্লার আদর্শ সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ বলেন, ছোটবেলা থেকে আবুল কাসেম গাছগাছালি নিয়ে পড়ে আছেন। এবার তাঁর বাগানের বরইয়ের সুনাম এলাকায় ছড়িয়ে পড়েছে। কুমিল্লা শহর ও দূরদূরান্ত থেকে মানুষ বরই কিনতে আসছেন। এটি একটি ভালো খবর।

ফল

যে কারণে ফল গাছের অঙ্গ ছাঁটাই করবেন

ফল গাছে প্রচুর পরিমাণে ফুল-ফল উৎপাদনক্ষম শাখা-প্রশাখার সংখ্যা বাড়ানো এবং ফলের গুণগতমান বৃদ্ধি করতে ছাঁটাইয়ের বিকল্প নেই। আমাদের দেশের শহর-নগর-গ্রামে যেদিকেই তাকানো যায় ফলের গাছ চোখে পড়বেই। এসব গাছের অধিকাংশই প্রাকৃতিকভাবে বেড়ে ওঠা। খুব কমসংখ্যক ফলগাছ অঙ্গ ছাঁটাইয়ের মাধ্যমে পরিকল্পিতভাবে বৃদ্ধির সুযোগ পায়। ফলগাছ রোপণই আসল কথা নয়।

রোপণ থেকে শুরু করে ফল ধারণ পযর্ন্ত ফল গাছের বিভিন্ন অঙ্গ ছাঁটাই ফল গাছ ব্যবস্থাপনার একটি অন্যতম কাজ। মূলত দুটি উদ্দেশ্যে ফল গাছের অঙ্গ ছাঁটাই করা হয়। প্রথমত, অফলন্ত ফলগাছকে একটি নিদির্ষ্ট আকার আকৃতি দেয়া, দ্বিতীয়ত, অফলন্ত ও ফলন্ত ফলগাছের অপ্রয়োজনীয় দুবর্ল, চিকন, নরম, ভাঙ্গা ও মরা ডাল-পালা এবং রোগ ও পোকা আক্রান্ত ডালপালা ছাঁটাই করে গাছের ভেতরের দিকে আলো-বাতাস চলাচল স্বাভাবিক রাখা। এ দুটি উদ্দেশ্য ছাড়াও আরো কিছু কারণে ফল গাছ ছাঁটাই করতে হয়। যেমন-

১. ফলগাছটি যদি মাতৃর্গাছ হয়, তাহলে ভবিষ্যতে ফলগাছ থেকে বেশি পরিমাণে সায়ন উৎপাদন করা।
২. ফল গাছে প্রচুর পরিমাণে ফুল-ফল উৎপাদনক্ষম শাখা-প্রশাখার সংখ্যা বাড়ানো এবং ফলের গুণগতমান বৃদ্ধি করা।
৩. ঝড় বা প্রবল বাতাসে যেন ফলগাছ সহজে ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে জন্য গাছকে সুগঠিত ও মজবুত অবকাঠামো প্রদান করা।

৪. ফল গাছের বিভিন্ন পরিচর্যার যেমন- বালাইনাশক স্প্রে করা, সায়ন সংগ্রহ করা ইত্যাদি কাজ সহজ করা।
৫. যেসব ফল গাছে ফল ধারণ সমস্যা আছে, সেসব গাছের ফল ধারণ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে নতুন শাখা-প্রশাখা গজানোর ব্যবস্থা করা।

৬. এক বছর পর পর যেসব গাছে ফল ধরে সেসব গাছের একান্তর ক্রমিক ফলনের প্রভাব কমানো বা ফল ধরার ব্যবস্থা করা।
৭. যেসব শাখা-প্রশাখা অন্য শাখা-প্রশাখার ভেতরে ঢুকে যায় বা নিন্মমুখী হয় সেগুলো ছাঁটাই করে গাছকে ঝোপালো অবস্থা থেকে মুক্ত রাখা।

ফল গাছের বিভিন্ন অঙ্গ যেমন,- ডাল, পাতা, ছাল বা বাকল, ফুল, ফল ও শিকড় বিভিন্ন কৌশলে ভিন্ন ভিন্ন ফল গাছের বিভিন্ন বয়সে জাত ও বৃদ্ধির স্বভাব অনুযায়ী ছাঁটাই করতে হয়। ফল ধরার আগেই ফল গাছের কাঠামোগত আকৃতি গড়ে তোলার উদ্দেশ্য হচ্ছে গাছের শীর্ষ ছাঁটাই করে গাছকে খাটো রাখা।

এতে গাছে সার প্রয়োগ, সেচ প্রদান, স্প্রে করা এবং সহজে ফল সংগ্রহসহ অন্যান্য পরিচর্যা করা যায়। এ ছাড়া গাছে যদি ৪ থেকে ৭টি শাখা-প্রশাখা থাকে তাহলে গাছ যান্ত্রিকভাবেও দৃঢ় ও খোলা-মেলা হয়।

গাছের ভেতরের দিকে এমন কিছু শাখা-প্রশাখা গজায় যেগুলো থেকে কোন ফলন পাওয়া যায় না, সেগুলোও ছাঁটাই করা উচিত। কোন কোন ফল গাছের গোড়ার দিকে কিছু কিছু কুশি বা নতুন শাখা বের হতে দেখা যায়, সেগুলো নিয়মিতভাবে ছাঁটাই করতে হয়। যেমন- ডালিম, পেয়ারা, লেবু ও কাঁঠাল গাছের গোড়ায় দুই-তিন সপ্তাহ পর পর বের হওয়া কুশিগুলো ছাঁটাই করতে হয়।

ছাঁটাই করার সময় লক্ষ্য রাখতে হয়, গাছের সতেজতা কেমন, বয়স কত এবং জাত ও বৃদ্ধির স্বভাব কেমন। কম বয়সী ফল গাছে যথাসম্ভব কম ছাঁটাই বা হালকা ছাঁটাই করতে হয়। তবে কম বা বেশি যে বয়সেরই হোক না কেন গাছে মরা বা ডাঙ্গা এবং রোগ-পোকা আক্রান্ত শাখা-প্রশাখা ছাঁটাইয়ের সময় কিছুটা সুস্থ অংশসহ ছাঁটাই করতে হয়। মূল কাণ্ড এবং মোটা শাখা কখনোই ছাঁটাই করা ঠিক নয়।

বড় মোটা শাখা কাটার সময় নিদির্ষ্ট জায়গা থেকে প্রায় ১ ফুট বা ৩০ সেন্টিমিটার দূরে নিচের দিক থেকে কাটা শুরু করতে হয়। কাটার গভীরতা নিভর্র করে কাটা শাখার অংশ নিচের দিকে বেঁকে আসা পযর্ন্ত। এর পর শাখার উপরের দিকে প্রথম কাটার স্থান থেকে ১ ইঞ্চি বা আড়াই সেন্টিমিটার দূরে দ্বিতীয় কাটা দিতে হয়। এতে কাটা শাখা বাকল বা ছালের সাথে ঝুলে থাকে না।

কাটা জায়গায় আলকাতরা বা ছত্রাকনাশক লাগাতে হয়। চিকন শাখাও নিচের দিক থেকে কাটলে অকতির্ত অংশের ছাল বা বাকল উঠে আসে না। কাটার সময় সুস্থ-সবল কুঁড়ি বা পবর্সন্ধির ঠিক উপরেই শাখা কাটা উচিত। তবে গাছের বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণের জন্য শাখার কুঁড়ি বা পবর্সন্ধির নিচেই কাটতে হয়।

ফল গাছ ছাঁইয়ের জন্য নিদির্ষ্ট সময় ও মৌসুমের প্রতি অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হয়। কারণ অসময়ে ছাঁটাই করলে সুফল পাওয়ার বদলে গাছে সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে। সে ক্ষেত্রে প্রত্যাশিত ফলন নাও পাওয়া যেতে পারে। বষার্র শেষে এবং শীতের আগে ফল গাছে ছাঁটাই করা উচিত। তবে ফল সংগ্রহের পরই ছাঁটাই করা সবচেয়ে ভালো।

গাছে ফুল আসার আগে আগে বা ফল ধরা অবস্থায় শাখা-প্রশাখা ছাঁটাই করা ঠিক নয়। তবে নিদির্ষ্টসংখ্যক ফলধারণ নিশ্চিত করার উদ্দেশ্যে অতিরিক্ত ফুল ও ফল ছাঁটাই করা যেতে পারে। এ ছাড়া খরা, দীর্ঘ শুকনো মৌসুম বা শীতের সময় কখনোই ছাঁটাই করা উচিত নয়। বষার্র সময় বিশেষ করে বৃষ্টির দিনে ছাঁটাই না করাই ভালো।

আমাদের দেশে বিভিন্ন মৌসুমে বিভিন্ন ফল পাওয়া যায়। এসব ফল গাছ থেকে সংগ্রহ করার পর অথবা শীতের আগেই অথবা যদি প্রয়োজন দেখা দেয়, তাহলে অঙ্গ ছাঁটাই করা হয়। এতে সুস্থ-সবল ফল গাছ থেকে ভালো ফলন পাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। কয়েকটি জনপ্রিয় ও প্রচলিত ফলগাছের অঙ্গ ছাঁটাই সম্পর্কে সবারই কিছুটা ধারণা থাকা প্রয়োজন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফল

হঠাৎ সাদা হয়ে যাচ্ছে ফল গাছের পাতা

পটুয়াখালীতে হঠাৎ করেই নারিকেল গাছসহ বিভিন্ন গাছের সবুজ পাতা সাদা হয়ে যাচ্ছে। এতে কৃষকদের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ছে। তবে আতঙ্কিত না হয়ে সচেতন হতে বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

পটুয়াখালী সদর উপজেলার তেলিখালী এলাকার বাসিন্দা আবদুল মজিদ বলেন, গত দুই মাস যাবৎ হঠাৎ করেই নারিকেল গাছসহ বিভিন্ন ফল গাছের সবুজ পাতা প্রথমে সাদা এরপর একেবারে কালো হয়ে মারা যাচ্ছে।

গলাচিপার কলাগাছিয়া এলাকার বাসিন্দা নিমাই চক্রবর্তী বলেন, এ জীবনে এখন পর্যন্ত পাতা সাদা হতে দেখিনি। পাতায় পোকা হয়েছে। কিন্তু কৃষি বিভাগের কোনো কর্মকর্তা আমাদের কোনো পরামর্শ দেয়নি। অনেক গাছের পাতা মরে যাচ্ছে। একটা অজানা আতঙ্ক কাজ করছে।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মার্জিন আরা মুক্তা বলেন, সম্প্রতি নারিকেল গাছসহ বিভিন্ন ফল গাছে কালো রঙের আবরণ তৈরি হয়েছে। এটি মূলত কোনো রোগ নয়, এটি একটি পোকার আক্রমণ।

ক্ষতিকারক পোকাটির নাম রুগোজ স্পাইরালিং হোয়াইট ফ্লাই। এটি আকৃতিতে ছোট হয়। এরা মূলত পাতার রস শুষে খায়। পরে গাছের পাতার নিচে সাদা মোমের আস্তরণ পড়ে। সেখানেই এরা ডিম পাড়ে ও সেখান থেকে বের হয়।

যেহেতু এরা রস শুষে খায় ফলে পাতা কালো রঙের হয়ে যায়। ফলে পাতার সালোকসংশ্লেষণ ব্যাহত হওয়ার কারণে পাতা এবং গাছটি ধীরে ধীরে শুকিয়ে মারা যেতে পারে।

পটুয়াখালী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ পরিচালক হৃদয়েশ্বর দত্ত বলেন, কৃষকদের পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। এর আক্রমণ দেখা দেয়া মাত্রই হাই প্রেশারে সাবান পানি স্প্রে করতে হবে। এর পরবর্তীতে কীটনাশক ব্যবহারের পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। সেক্ষেত্রে ছত্রাকনাশক ও বালাইনাশক ব্যবহারের পরামর্শ প্রদান করা হয়েছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফল

নিরাপদ খাদ্য: বাধ্যবাধকতার আওতায় আসছেন ব্যবসায়ীরা

নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে নানা বাধ্যবাধকতার আওতায় আসছেন খাদ্যপণ্যের ব্যবসায়ীরা। এজন্য ‘নিরাপদ খাদ্য আইন, ২০১৩’ অনুযায়ী ‘নিরাপদ খাদ্য (খাদ্য ব্যবসায়ীর বাধ্যবাধকতা) প্রবিধানমালা, ২০২০’ প্রণয়ন করেছে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ।

নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে ব্যবসায়ীরা খাদ্য ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে যেসব কাজ করতে বাধ্য থাকবেন সে বিষয়ে বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়েছে এই প্রবিধানমালায়।

এতে বলা হয়েছে, খাদ্য ব্যবসায়ীদের তাদের পণ্যে ব্যবহার করা রাসায়নিকের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য-প্রমাণক সংরক্ষণ করতে হবে। খাদ্য উৎপাদনের কাঁচামালের বিষয়েও তথ্য-প্রমাণক সংরক্ষণ করতে হবে তাদের। খাদ্য ব্যবস্থাপনায় পরিবর্তন আনতে কর্তৃপক্ষকে জানাতে বাধ্য থাকবেন ব্যবসায়ীরা। নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনার জন্য কর্মীদের প্রশিক্ষণও দিতে হবে। প্রবিধানের শর্ত পালন করতে ব্যর্থ হলে খাদ্য ব্যবসায়ীকে পড়তে হবে শাস্তির মুখে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল কাইউম সরকার জাগো নিউজকে বলেন, ‘২০১৩ সালের নিরাপদ খাদ্য আইনে নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে ব্যবসায়ীরা কী করবেন তা বলা ছিল। তবে সেটা ছিল সংক্ষিপ্ত আকারে। এখন আমরা বিস্তারিত প্রক্রিয়া বলে দিয়েছি প্রবিধানমালায়। এগুলো মানতে তারা বাধ্য থাকবেন। না মানলে আমরা আমাদের ফোর্স অ্যাপ্লাই করব। মূল আইনে শাস্তির বিষয়টি রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘প্রবিধানমালার কারণে আমাদের তদারকি কিংবা এনফোর্সমেন্টের কাজ আরও সহজ হবে। কারণ আগে ব্যবসায়ীরা বলতেন প্রসেস জানি না, কীভাবে করব। এখন আর তারা সেটা বলতে পারবেন না।’

আমদানি ও বিক্রয় সংশ্লিষ্ট কর্মকাণ্ডসহ খাদ্য উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ, প্রস্তুতকরণ, মোড়কজাতকরণ, পরিবহন, গুদামজাতকরণ, বিতরণ, প্রদর্শন ও বিপণনের সব পর্যায়ের জন্য এই প্রবিধানমালা প্রযোজ্য হবে।

খাদ্যে-ভেজালের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় রাস্তায় নেমেছে দেশের সচেতন সমাজ

প্রবিধানমালায় বলা হয়েছে, নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে খাদ্য ব্যবসায়ীদের খাদ্য প্রস্তুত বা প্রক্রিয়াকরণের ক্ষেত্রে অনুমোদিত রাসায়নিক ব্যবহার করতে হবে। প্রিজারভেটিভ বা রঞ্জক বা ঘ্রাণ সৃষ্টিকারী রাসায়নিক বা ব্যবহৃত অন্য যে কোনো রাসায়নিকের নাম, বৈজ্ঞানিক সংকেত, রাসায়নিক কোড, পরিমাণ, গ্রেড, বিশুদ্ধতা, উৎপাদনকারী ও রফতানিকারক প্রতিষ্ঠানের নাম এবং ঠিকানা, উৎস স্থান বা দেশ, উৎপাদনের তারিখ, মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ, খাদ্যে ব্যবহারের উপযুক্ততা ইত্যাদি তথ্য নথিভুক্ত করে প্রত্যেক ব্যাচভিত্তিক তথ্য ও প্রমাণক সংরক্ষণ করবেন খাদ্য ব্যবসায়ীরা।

উৎপাদন বা আমদানি করা খাদ্যে অনুমোদিত রাসায়নিক বা ভারী ধাতু বা তেজস্ক্রিয় পদার্থ বা রঞ্জক বা সুগন্ধি বা ক্ষতিকর অণুজীব ইত্যাদির উপস্থিতি বা মাত্রাতিরিক্ত উপস্থিতি রয়েছে কি-না তা শনাক্তে স্বীকৃত পরীক্ষাগারে খাদ্যের নমুনা বিশ্লেষণ করে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন সংরক্ষণ করবেন খাদ্য ব্যবসায়ীরা। এছাড়া খাদ্যের মান নির্ধারিত পর্যায়ে রয়েছে কি-না, ব্যবসায়ীরা তা স্বীকৃত খাদ্য পরীক্ষাগারে পরীক্ষা করাবেন এবং সন্তোষজনক প্রতিবেদনের ভিত্তিতে খাদ্য বা খাদ্যপণ্য বাজারজাত করবেন।

ব্যবসায়ী খাদ্যের মেয়াদ নির্ধারণের ক্ষেত্রে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতি অবলম্বন করবেন এবং যার ভিত্তিতে খাদ্যের মেয়াদ নির্ধারণ করা হয়েছে, সেই বিশ্লেষণ প্রতিবেদন বা তথ্যাদি ও প্রমাণক সংরক্ষণ করবেন। তবে আমদানি করা খাদ্যপণ্যের মেয়াদ মূল প্রস্তুতকারী নির্ধারণ করবেন।

ব্যবসায়ী খাদ্য ব্যবসা পরিচালনা সংশ্লিষ্ট প্রমাণক ও দলিলাদি হালনাগাদ করবেন এবং কর্তৃপক্ষের চাহিদা অনুযায়ী পেশ করতে হবে বলে প্রবিধানমালায় উল্লেখ করা হয়েছে।

খাদ্য ব্যবসায়ী কাঁচামাল চিহ্নিতকরণ, প্রক্রিয়াকরণ, উৎপাদন, আমদানি, সরবরাহ ও বিক্রয় কার্যক্রম যাচাইয়ের প্রয়োজনীয় প্রমাণক সংরক্ষণ করবেন এবং অন্য কোনো ব্যবসায়ীর কাছ থেকে খাদ্য বা খাদ্য উপকরণ (কাঁচামাল), মৎস্যখাদ্য, পশুখাদ্য বা খাদ্য বা মৎস্য ও পশুখাদ্যের সংযোজক দ্রব্য ইত্যাদি সরবরাহ বা গ্রহণ করলে তা চিহ্নিত করার জন্য প্রমাণক সংরক্ষণ করবেন।

খাদ্য ব্যবসায়ীকে অন্য কোনো ব্যবসায়ীর কাছ থেকে খাদ্য বা খাদ্যপণ্য গ্রহণের ক্ষেত্রে খাদ্য ব্যবসায়ীর নাম ও ঠিকানা; খাদ্যের যথাযথ বিবরণ; খাদ্যের পরিমাণ, লট, ব্যাচ, চালান (যা প্রযোজ্য) শনাক্ত করার স্মারক ইত্যাদি; প্রত্যেকটি লেনদেন বা সরবরাহের তারিখ; সংশ্লিষ্ট অন্যান্য তথ্য প্রমাণক হিসেবে সংরক্ষণ করতে হবে।

খাদ্য ব্যবসায়ীর অন্য কোনো ব্যবসায়ীকে খাদ্য সরবরাহের ক্ষেত্রে খাদ্য ব্যবসায়ীর নাম ও ঠিকানা; খাদ্যের যথাযথ বিবরণ; খাদ্যের পরিমাণ; লট, ব্যাচ, চালান (যা প্রযোজ্য) শনাক্ত করার স্মারক ইত্যাদি; প্রত্যেকটি লেনদেন বা সরবরাহের তারিখ; সংশ্লিষ্ট অন্যান্য তথ্য সংরক্ষণ করতে হবে।

খাদ্য প্রস্তুত বা প্রক্রিয়াকরণের পদ্ধতি পরিবর্তন বা কারিগরি বিচ্যুতি সংশোধন, খাদ্য প্রক্রিয়াকরণের নিয়ন্ত্রণ ধাপ সম্পর্কিত তথ্যাদি এবং খাদ্যদ্রব্যের বিশেষ সংরক্ষণ, সরবরাহ বা বিতরণ ও ব্যবহারের প্রমাণক সংরক্ষণ করতে হবে।

খাদ্য ব্যবসায়ী এসব প্রমাণক বা তথ্য খাদ্যপণ্যের মেয়াদ উত্তীর্ণের পর কমপক্ষে তিন মাস পর্যন্ত এবং খাদ্য ব্যবসার অন্যান্য তথ্য বা প্রমাণক পাঁচ বছর পর্যন্ত সংরক্ষণ করবেন।

প্রবিধানমালায় আরও বলা হয়েছে, খাদ্য ব্যবসায়ীকে নিশ্চিত করতে হবে যে, খাদ্য ব্যবসায়ে নিয়োজিত কর্মকর্তা বা কর্মচারীরা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত এবং আইন ও বিধি-বিধান ও নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করে থাকেন। খাদ্য ব্যবসায়ীকে তার কর্মকর্তা বা কর্মচারীদের প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণ দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে। একই সঙ্গে প্রশিক্ষণের হালনাগাদ তথ্য সংরক্ষণ করতে হবে।

খাদ্য ব্যবসায়ীকে নিশ্চিত করতে হবে, খাদ্যদ্রব্য প্রস্তুত ও স্থানান্তর বা পরিবহনের সঙ্গে সম্পৃক্ত কর্মকর্তা বা কর্মচারীদের যথাযথ প্রশিক্ষণ রয়েছে এবং যে কাজে তারা নিয়োজিত সেই কাজে স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশ সংরক্ষণ ও প্রক্রিয়াকরণ সম্পর্কিত জ্ঞান ও দক্ষতার প্রতিফলন ঘটিয়ে থাকেন।

ভেজাল ও মানহীন পণ্য বিক্রির কারণে সম্প্রতি রাজধানীর চকবাজারের সামি স্টোরকে জরিমানা করা হয়

খাদ্য ব্যবসায়ীকে খাদ্যের বিশেষ সংরক্ষণ ব্যবস্থা (খাদ্য হিমায়িত, শীতলীকৃত, বায়ুনিরোধকৃত, নিয়ন্ত্রিত বা পরিবর্তিত গ্যাসীয় ইত্যাদি কারিগরি বা প্রযুক্তিগত পদ্ধতি প্রয়োগের মাধ্যমে সংরক্ষণ) নিশ্চিত করতে হবে এবং এই বিশেষ সংরক্ষিত খাদ্য সরবরাহ বা বিতরণ ও বিক্রির ক্ষেত্রে একই প্রকারের বা সমজাতীয় কারিগরি বা প্রযুক্তিগত ব্যবস্থা বজায় রাখতে হবে।

যদি কোনো খাদ্য ব্যবসায়ী তার খাদ্য ব্যবস্থাপনায় বা খাদ্য ব্যবসায়ে পদ্ধতিগত বা প্রকৃতিগত বা প্রযুক্তিগত কোনো সংস্কার বা পরিবর্তন সাধন করেন বা করার উদ্যোগ নেন, তাহলে এই পরিবর্তনের বিষয়টি পরিদর্শনের জন্য কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে।

খাদ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান পরিদর্শনকালে পরিদর্শক বা কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ক্ষমতাপ্রাপ্ত কর্মকর্তার কাছে যদি প্রতীয়মান হয় যে, খাদ্য ব্যবসায়ী বা তার কোনো প্রতিনিধি, খাদ্যকর্মী বা কর্মচারী এই প্রবিধানমালার প্রযোজ্য শর্ত পালন করছেন না, তাহলে ওই খাদ্য ব্যবসায়ীকে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে শর্ত পালনের জন্য নোটিশ দেবেন।

এরপরও শর্ত পালনে ব্যর্থ হলে খাদ্য ব্যবসায়ীকে সতর্ক করে নোটিশ দেবেন। এরপরও শর্ত পালনে ব্যর্থ হলে তা নিরাপদ খাদ্যবিরোধী কাজ বলে গণ্য হবে। কোনো খাদ্য ব্যবসায়ী নোটিশে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে করণীয় পদক্ষেপ বাস্তবায়নে ব্যর্থ হলে পরিদর্শক বা কর্তৃপক্ষ তার খাদ্য ব্যবসা পরিচালনার লাইসেন্স বা নিবন্ধন সনদ বাতিল করার জন্য সংশ্লিষ্ট নিবন্ধক বা লাইসেন্সিং কর্তৃপক্ষের কাছে সুপারিশ করবেন। একই সঙ্গে বিষয়টি তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানাবেন বলে প্রবিধানমালায় উল্লেখ করা হয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, ভোক্তাকে জানানোর উদ্দেশ্যে পরিদর্শকের দেয়া সব নোটিশ খাদ্যপণ্যের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সামনে প্রদর্শন করতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফল

ফলের উৎপাদন বাড়ছেই

২০১৯-২০ অর্থবছরে দেশে ফলের উৎপাদন প্রায় ২ লাখ টন বেড়েছে। দেশি-বিদেশি জাত মিলে উৎপাদিত ফলের পরিমাণ ছিল ১ কোটি ২৩ লাখ টন। শুধু গত বছর নয়, দেশে ফলের উৎপাদন পাঁচ বছরে ১৩ লাখ টন বেড়েছে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে ২০১৮-১৯ অর্থবছরে দেশে ফলের উৎপাদন হয়েছিল ১ কোটি ২১ লাখ টন। ২০১৭-১৮ তে ১ কোটি ২১ লাখ টন, ২০১৬-১৭ তে ১ কোটি ২০ টন এবং ২০১৫-১৬ তে ১ কোটি ১০ টন ফল উৎপাদন হয়।

জানা গেছে, বিদেশি ফলের চাহিদা বাড়ায় দেশেই এখন মাল্টা, ড্রাগন, স্টবেরিসহ অনেক বিদেশি ফলের আবাদ শুরু হয়েছে। আবার আপেলের বিকল্প বড় আকারের কুল, থাই পেঁপে ও পেয়ারা উৎপাদনও বাড়ছে। যার প্রভাব পড়েছে সামগ্রিক উৎপাদনে।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের তথ্য বলছে, দেশে প্রায় ১৩০ রকমের ফল রয়েছে। এর মাঝে প্রচলিত ও অপ্রচলিত প্রায় ৭২টি ফলের চাষাবাদ হয়। মৌসুমি ফল উৎপাদনে বিশ্বের শীর্ষ ১০টি দেশের তালিকায় নাম রয়েছে বাংলাদেশর।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফল

বারোমাসি তরমুজ

লেখক

এক সময়ের মৌসুমি ফল তরমুজ এখন চাষ হচ্ছে বছরজুড়ে। অন্য ফসলের চেয়ে অধিক লাভজনক হওয়ায় অমৌসুমি তরমুজ আবাদে ঝুঁকছেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের কৃষক। এতে ভাগ্য পাল্টে যাচ্ছে তাদের। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ন্যাশনাল এগ্রিকালচারাল টেকনোলজি প্রোগ্রাম-২-এর আওতায় কৃষি বিভাগের সহযোগিতায় তরমুজ আবাদ করে খরচের তিনগুণেরও বেশি লাভ হচ্ছে কৃষকের। উন্নত বীজ ও প্রশিক্ষণ দিয়ে অল্প সময়ে বারোমাসি তরমুজ চাষে তাদের উৎসাহী করছে সরকার।

খুলনার ডুমুরিয়া উপজেলায় এ বছর ১০০ হেক্টর ঘেরের পাড়ে তরমুজের আবাদ হয়েছে। ডুমুরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মোছাদ্দেক হোসেন সমকালকে বলেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রতি ইঞ্চি জায়গা কাজে লাগানোর ঘোষণার পরিপ্রেক্ষিতে আমরা অন্য ফসলের পাশাপাশি তরমুজ চাষেও সহায়তা করছি। এই অঞ্চলে জলাবদ্ধতার কারণে এক সময় মাছ ছাড়া কিছইু চাষ হতো না। ফলে মাছের ঘেরে অন্যান্য সবজির পাশাপাশি তরমুজ চাষ শুরু হয়।

কৃষি কর্মকর্তা বলেন, এই তরমুজ বপনের ২০ থেকে ২৫ দিন পর ফুল আসে এবং ৪০ থেকে ৪৫ দিন পর তরমুজ ওঠানো শুরু হয়। একটি গাছ থেকে দুই থেকে তিনবার তরমুজ নেওয়া যায়। এক বিঘা জমির ঘেরের পাড়ে তরমুজ লাগাতে ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকা খরচ হয় এবং মাত্র ৬০-৬৫ দিনে প্রায় দুই লাখ টাকার তরমুজ পাওয়া যায়। অন্যান্য ফসলের মতো এটি বিক্রিতে সমস্যা হয় না, সরাসরি ব্যবসায়ীরা ক্ষেতে এসে কিনে নিয়ে যান।

বিকল্প এই চাষে কৃষি বিভাগ থেকে কৃষকদের সহায়তা দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে মোছাদ্দেক হোসেন জানান, এ বছর উপজেলা পরিষদ উন্নয়ন তহবিল থেকে প্রায় ২০০ কৃষককে তরমুজের বীজ, প্রশিক্ষণ ও মাঠে গিয়ে পরামর্শ দেওয়া হয়। ডুমুরিয়ায় সুইট ড্রাগন পাকিজা, এশিয়ান টু, ব্ল্যাক বেবি, তৃপ্তি, কানিয়া, রেড ড্রাগন, সোনিয়া, থাইল্যান্ড-২ জাতের তরমুজ আবাদ হয়েছে। ঝুঁকি কম এবং মূল্য বেশি পাওয়ায় আগামীতে এর আবাদ অনেক বাড়বে। ভালো বীজ ও সার সরবরাহ থাকলে সারাদেশেই এই তরমুজ চাষে বাণিজ্যিক সফলতা পাওয়া সম্ভব বলে মনে করেন কৃষি কর্মকর্তা মো. মোছাদ্দেক হোসেন। উষ্ণ অঞ্চল হওয়ায় রাজশাহীর কোথাও তরমুজের চাষ হতো না। এর পরও রাজশাহীর বরেন্দ্রভূমিখ্যাত গোদাগাড়ীতে সাত বিঘা জমির ওপর প্রথম বারোমাসি তরমুজ চাষ করে সফল কৃষকের খাতায় নাম লিখিয়েছেন মনিরুজ্জামান মনির। বঙ্গবন্ধু কৃষি পদকপ্রাপ্ত এই তরুণ কৃষি উদ্যোক্তার কৃষি খামারে মাচায় চাষ হচ্ছে বিদেশি হানি ডিউ ও রক মেলন জাতের তরমুজ। রাজশাহী ও ডুমুরিয়ার পাশাপাশি খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা, রূপসা, কয়রা, তেরোখাদা, দাকোপ; যশোরের কেশবপুর, মমিনপুর; গোপালগঞ্জ, পিরোজপুরের নাজিরপুর, জয়পুরহাটের পাঁচবিবি, টাঙ্গাইল, চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর, দিনাজপুর, চট্টগ্রাম, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া, কুমিল্লা, বগুড়া, বরিশালের মেহেদীগঞ্জ, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, পাবনা, হবিগঞ্জের মাধবপুরে, নওগাঁ ও শরীয়তপুরে বারোমাসি তরমুজ চাষ হচ্ছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর জানিয়েছে, দ্রুত সম্প্রসারিত হচ্ছে এই জাতের তরমুজের আবাদ। কৃষকের মাচায় শসা কিংবা লাউয়ের চেয়েও ঘনত্বে ঝুলে আছে রসাল ফল তরমুজ।

ডুমুরিয়ার তরমুজ চাষি ইছহাক মুন্সী বলেন, একই জমিতে সবজি ও মাছের পাশাপাশি তরমুজ চাষ করছি। প্রথমবার মাচা তৈরি করলে সেটি এক বছর ব্যবহার করা যাবে। এতে দ্বিতীয়বারের উৎপাদন খরচ কম হবে। এক বিঘা জমিতে তরমুজ চাষ করে আয় আসে দেড় থেকে দুই লাখ টাকা।

কৃষি বিভাগ জানিয়েছে, সুইট ড্রাগন পাকিজা, এশিয়ান টু, রেড ড্রাগন, সোনিয়া ও থাইল্যান্ড-২ জাতের তরমুজের ওপরে ডোরাকাটা ও ভেতরে লাল। ব্ল্যাক বেবি তরমুজের ওপরে কালো ভেতরে লাল, তৃপ্তি বাইরে গাঢ় হলুদ ভেতরে লাল এবং কানিয়া বাইরে ডোরাকাটা ভেতরে হলুদ। সুইট ড্রাগন পাকিজা ১০-১২ কেজি ওজনের হয়।

মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক বিধান কুমার ভাণ্ডার বলেন, দেশের দক্ষিণাঞ্চলে দুই লাখ ৩০ হাজার মাছের ঘের আছে। এসব ঘেরের পাশাপাশি যেসব এলাকায় জলাবদ্ধতা লেগে থাকে, সেসব এলাকায় কীভাবে ফসল উৎপাদন করা যায়, তা নিয়ে গবেষণা করেছি। ঘেরের পাড়ে টপ সয়েল কার্পেটিং অর্থাৎ, অন্য জায়গা থেকে মাটি এনে উর্বরতা বাড়ানো হয়। মাছ চাষের পাশাপাশি শিম, লাউ, শসাসহ মাল্টিলেয়ার চাষ হচ্ছে। এর মধ্যে তরমুজ বেশ অর্থকরী ফসল। সেচ ব্যবস্থাপনা, মাটি ব্যবস্থাপনা, সার প্রয়োগসহ বিশেষ পদ্ধতি অবলম্বন করে বর্ষাকালেও তরমুজ চাষ হচ্ছে। এর বিশাল সম্ভাবনা আছে।

এ বিষয়ে কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক বলেন, বাংলাদেশ এখন শুধু স্বয়ংসম্পূর্ণই নয়, উদ্বৃত্ত খাদ্য উৎপাদনের দেশের কাতারে রয়েছে। বর্তমানে চালের অভাব নেই, এখন দরকার বিকল্প কৃষি চাষ। কৃষকের যেন লাভ হয়, সেজন্য বিকল্প ফসল উৎপাদনে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, অল্প সময়ে বারোমাসি তরমুজ চাষে তুলনামূলক বেশি বাজারমূল্য পেয়ে কৃষক অর্থনৈতিকভাবে বেশ লাভবান হচ্ছেন। কৃষি বিভাগের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তারা তাদের নিয়মিত পরামর্শ দিচ্ছেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com