আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

পরিবেশ

করোনা ভাইরাস: আকাশ থেকে দেখা ব্রিটেনের লকডাউন

ব্রিটেনে লকডাউন চলার সময় ফটোগ্রাফার ক্রিস গরম্যান ড্রোন ব্যবহার করে বেশ কিছু আশ্চর্য সুন্দর ছবি তুলেছেন। তার কিছু ছবি ব্রিটেনের সংবাদমাধ্যমেও ছাপা হয়েছে।

থর্প পার্ক, ব্রিটেনের সারে এলাকার একটি বিনোদন কেন্দ্র। গত ৩রা এপ্রিল থেকে এটি বন্ধ রয়েছে।
থর্প পার্ক, ব্রিটেনের সারে এলাকার একটি বিনোদন কেন্দ্র। গত ৩রা এপ্রিল থেকে এটি বন্ধ রয়েছে।

ক্রিস গরম্যানের ফটোগ্রাফির অভিজ্ঞতা ২৫ বছরের। করোনাভাইরাস মহামারিতে ব্রিটেনে লকডাউন শুরু হওয়ার পর নানা ক্ষেত্রে এর প্রভাব তিনি ছবিতে ধরে রাখেন।

তার বেশ কিছু ছবি ব্রিটেনের প্রধান সংবাদপত্র এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমেও প্রকাশিত হয়েছে।

সারে অঞ্চলের শহর ফার্নাম-এর এক গার্ডেন সেন্টারের কর্মী জো ডিকিনসন গাছে পানি দিচ্ছেন।
সারে অঞ্চলের শহর ফার্নাম-এর এক গার্ডেন সেন্টারের কর্মী জো ডিকিনসন গাছে পানি দিচ্ছেন।

তিনি বলছেন, “পূর্ণাঙ্গ লকডাউন শুরু হওয়ার আগে প্রতিদিন নতুন নতুন ছবি পাওয়া যেত — জনশূণ্য শপিং মল থেকে শুরু করে আতঙ্কিত মানুষের কেনাকাটার দীর্ঘ লাইন এবং বিমানবন্দরের রানওয়েতে পার্ক করে রাখা অবিক্রিত গাড়ি।”

“আমার প্রথম ছবিটি ছিল ব্লুওয়াটার শপিং মলের প্রায় খালি কার পার্ক। ছবিটি তোলা হয় ১৬ই মার্চ (নিচে)। সেদিনই স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকক ঘোষণা করেন যে সব ধরনের সামাজিক মেলামেশা বন্ধ রাখতে হবে।”

কেন্ট কাউন্টির সবচেয়ে বড় ব্লুওয়াটার শপিং সেন্টারের কার পার্ক।
কেন্ট কাউন্টির সবচেয়ে বড় ব্লুওয়াটার শপিং সেন্টারের কার পার্ক।

“আমি বুঝতে পেরেছিলাম ব্রিটেনের সবচেয়ে বড় শপিং মলগুলোর একটির ছবি দিয়ে দেশের অর্থনীতির সার্বিক অবস্থাটা তুলে ধরা সম্ভব হবে।”

তার এই ছবি দ্যা ডেইলি ট্রেলিগ্রাফ এবং ডেইলি মেইল-এ ছাপা হয়।

একই দিনে তিনি কেন্ট-এর লিডস কাসলের ওপর সূর্যাস্তের এই ছবিটি তোলেন (নিচে)।

লিডস কাসলের ওপর সূর্যাস্তের দৃশ্য।
লিডস কাসলের ওপর সূর্যাস্তের দৃশ্য।

“এর পরের ছবির ধারণা আমার মাথায় আসে আতঙ্কিত লোকজনের কেনাকাটা দেখে।

“সুপার মার্কেটে ভোর থেকেই ক্রেতাদের লম্বা লাইনের ওপর সোশাল মিডিয়ায় নানা ধরনের ছবি শেয়ার হয়।

“ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড কাগজ আমাকে খবর দেয় যে নিউ মল্ডেন এলাকায় দীর্ঘ লাইন দেখা যাচ্ছে।

“আমি সেখানে হাজির হই ভোর ৫.৪৫-এ (দোকান খোলা হয় ভোর ছ’টায়)। কিন্তু অবাক হয়ে দেখি ক্রেতাদের লাইন তখনই কার পার্কের অর্ধেক ছড়িয়ে গেছে। এবং লোকজন লাইনে দাঁড়ানোর জন্য দৌড়াদৌড়ি করছে।”

দক্ষিণ-পূর্ব লন্ডনের নিউ মল্ডেন এলাকায় ক্রেতাদের লম্বা লাইন। ছবিটি তোলা হয় ২০শে মার্চ।
দক্ষিণ-পূর্ব লন্ডনের নিউ মল্ডেন এলাকায় ক্রেতাদের লম্বা লাইন। ছবিটি তোলা হয় ২০শে মার্চ।

“এই ছবিটি ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড, ডেইলি মেইল, দা সান, ডেইলি ট্রেলিগ্রাফ এবং ডেইলি মিরর-এ ছাপা হয়।

ব্রিটেনের সবচেয়ে দর্শনীয় স্থানগুলোর একটি স্টোনহেঞ্জ-এর এই ছবিটি তোলা হয় ২৬শে মার্চ।

লকডাউনের সময় জনশূণ্য স্টোনহেঞ্জে সূর্যাস্তের দৃশ্য।
লকডাউনের সময় জনশূণ্য স্টোনহেঞ্জে সূর্যাস্তের দৃশ্য।

“অর্থনৈতিক সঙ্কট বাড়তে থাকায় আমি ভাবলাম এমন ছবি তুলতে হবে যার মধ্য দিয়ে অর্থনীতির ওপর মহামারির বিধ্বংসী প্রভাবকে তুলে ধরা যায়।

“আমি খবর পেয়েছিলাম, মিডল্যান্ডস অঞ্চলের অনেক বিমানবন্দরের অব্যবহৃত রানওয়েকে অবিক্রিত নতুন এবং পুরোনো গাড়ি রাখার জায়গা হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

“আমি অক্সফোর্ডশায়ার, নর্থহ্যাম্পটনশায়ার এবং বেডফোর্ডশায়ারের তিনটি বিমানবন্দরকে ছবি তোলার জন্য বেছে নিলাম।

অক্সফোর্ডশায়ারের বিস্টার শহরের কাছে আপার হেফোর্ড বিমানবন্দরের রানওয়েতে হাজার হাজার নতুন গাড়ি রাখা হয়েছে।
অক্সফোর্ডশায়ারের বিস্টার শহরের কাছে আপার হেফোর্ড বিমানবন্দরের রানওয়েতে হাজার হাজার নতুন গাড়ি রাখা হয়েছে।
বেডফোর্ডশায়ারের থারলে এয়ারফিল্ড।
বেডফোর্ডশায়ারের থারলে এয়ারফিল্ড।

“লকডাউন চলার সময় নানা বিষয়ের ওপর ছবি তোলার সুযোগ আসে।

“এক সময় লক্ষ্য করলাম লকডাউনের সুযোগে মানুষ তাদের বাড়িঘর থেকে জঞ্জাল বাইরে ফেলছে।

ছবিটি কীভাবে তোলা যায় তা নিয়ে ভাবছিলাম। হঠাৎ নজরে এলো উত্তর লন্ডনের ওয়েম্বলি এলাকার এক রিসাইক্লিং সেন্টার এতটাই পরিপূর্ণ হয়েছে যে জঞ্জাল বাইরে উপচে পড়ছে।

উত্তর লন্ডনের ওয়েম্বলি এলাকার রিসাইক্লিং সেন্টার।
উত্তর লন্ডনের ওয়েম্বলি এলাকার রিসাইক্লিং সেন্টার।

“করোনাভাইরাস পরীক্ষা কেন্দ্র সম্পর্কে মানুষের আগ্রহ প্রবল।

“কিন্তু সমস্যা হলো সবগুলো ছবিতেই দেখা যাচ্ছিল সেগুলো খালি পড়ে আছে।

“পরে এনিয়ে সংবাদপত্রে নিউজ ছাপা হয়।

পোর্টসমাউথ এলাকার একটি করোনাভাইরাস পরীক্ষা কেন্দ্র। ছবিটি তোলা হয় ১৮ই এপ্রিল।
পোর্টসমাউথ এলাকার একটি করোনাভাইরাস পরীক্ষা কেন্দ্র। ছবিটি তোলা হয় ১৮ই এপ্রিল।

গুড ফ্রাইডের দিন মাথায় এলো আমি গত বছর বোর্নমাউথ সমুদ্র সৈকতের ছবি তুলেছিলাম।

“গরম পড়েছিল এমন একটা দিন ঠিক করে আমি সৈকতের ছবি তুললাম। সেটা ছিল প্রায় জনশূণ্য। এর মাধ্যমে পরিস্থিতির তফাৎটা তুলে ধরতে চাইছিলাম।

২০১৯ সালের ১৯শে এপ্রিল বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য।
২০১৯ সালের ১৯শে এপ্রিল বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য।
২০২০ সালের ১৯শে এপ্রিল জনশূণ্য বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য। ড্রোন থেকে একই অ্যাঙ্গেলে ছবিটি তোলা হয়েছে।
২০২০ সালের ১৯শে এপ্রিল জনশূণ্য বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য। ড্রোন থেকে একই অ্যাঙ্গেলে ছবিটি তোলা হয়েছে।
বার্মিংহাম শহরের কাছে যানবাহনশূণ্য মহাসড়কের এক জাংশন। এই মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন ২,১০,০০০ গাড়ি চলাচল করে। ছবিটি তোলা হয় ২৪শে এপ্রিল।
বার্মিংহাম শহরের কাছে যানবাহনশূণ্য মহাসড়কের এক জাংশন। এই মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন ২,১০,০০০ গাড়ি চলাচল করে। ছবিটি তোলা হয় ২৪শে এপ্রিল।

  • বার্মিংহাম শহরের কাছে যানবাহনশূণ্য মহাসড়কের এক জাংশন। এই মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন ২,১০,০০০ গাড়ি চলাচল করে। ছবিটি তোলা হয় ২৪শে এপ্রিল।

    বার্মিংহাম শহরের কাছে যানবাহনশূণ্য মহাসড়কের এক জাংশন। এই মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন ২,১০,০০০ গাড়ি চলাচল করে। ছবিটি তোলা হয় ২৪শে এপ্রিল।

  • ২০২০ সালের ১৯শে এপ্রিল জনশূণ্য বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য। ড্রোন থেকে একই অ্যাঙ্গেলে ছবিটি তোলা হয়েছে।

    ২০২০ সালের ১৯শে এপ্রিল জনশূণ্য বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য। ড্রোন থেকে একই অ্যাঙ্গেলে ছবিটি তোলা হয়েছে।

  • ২০১৯ সালের ১৯শে এপ্রিল বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য।

    ২০১৯ সালের ১৯শে এপ্রিল বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য।

  • পোর্টসমাউথ এলাকার একটি করোনাভাইরাস পরীক্ষা কেন্দ্র। ছবিটি তোলা হয় ১৮ই এপ্রিল।

    পোর্টসমাউথ এলাকার একটি করোনাভাইরাস পরীক্ষা কেন্দ্র। ছবিটি তোলা হয় ১৮ই এপ্রিল।

  • উত্তর লন্ডনের ওয়েম্বলি এলাকার রিসাইক্লিং সেন্টার।

    উত্তর লন্ডনের ওয়েম্বলি এলাকার রিসাইক্লিং সেন্টার।

  • বেডফোর্ডশায়ারের থারলে এয়ারফিল্ড।

    বেডফোর্ডশায়ারের থারলে এয়ারফিল্ড।

  • অক্সফোর্ডশায়ারের বিস্টার শহরের কাছে আপার হেফোর্ড বিমানবন্দরের রানওয়েতে হাজার হাজার নতুন গাড়ি রাখা হয়েছে।

    অক্সফোর্ডশায়ারের বিস্টার শহরের কাছে আপার হেফোর্ড বিমানবন্দরের রানওয়েতে হাজার হাজার নতুন গাড়ি রাখা হয়েছে।

  • লকডাউনের সময় জনশূণ্য স্টোনহেঞ্জে সূর্যাস্তের দৃশ্য।

    লকডাউনের সময় জনশূণ্য স্টোনহেঞ্জে সূর্যাস্তের দৃশ্য।

  • দক্ষিণ-পূর্ব লন্ডনের নিউ মল্ডেন এলাকায় ক্রেতাদের লম্বা লাইন। ছবিটি তোলা হয় ২০শে মার্চ।

    দক্ষিণ-পূর্ব লন্ডনের নিউ মল্ডেন এলাকায় ক্রেতাদের লম্বা লাইন। ছবিটি তোলা হয় ২০শে মার্চ।

  • লিডস কাসলের ওপর সূর্যাস্তের দৃশ্য।

    লিডস কাসলের ওপর সূর্যাস্তের দৃশ্য।

  • কেন্ট কাউন্টির সবচেয়ে বড় ব্লুওয়াটার শপিং সেন্টারের কার পার্ক।

    কেন্ট কাউন্টির সবচেয়ে বড় ব্লুওয়াটার শপিং সেন্টারের কার পার্ক।

  • সারে অঞ্চলের শহর ফার্নাম-এর এক গার্ডেন সেন্টারের কর্মী জো ডিকিনসন গাছে পানি দিচ্ছেন।

    সারে অঞ্চলের শহর ফার্নাম-এর এক গার্ডেন সেন্টারের কর্মী জো ডিকিনসন গাছে পানি দিচ্ছেন।

  • থর্প পার্ক, ব্রিটেনের সারে এলাকার একটি বিনোদন কেন্দ্র। গত ৩রা এপ্রিল থেকে এটি বন্ধ রয়েছে।

    থর্প পার্ক, ব্রিটেনের সারে এলাকার একটি বিনোদন কেন্দ্র। গত ৩রা এপ্রিল থেকে এটি বন্ধ রয়েছে।

  • বার্মিংহাম শহরের কাছে যানবাহনশূণ্য মহাসড়কের এক জাংশন। এই মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন ২,১০,০০০ গাড়ি চলাচল করে। ছবিটি তোলা হয় ২৪শে এপ্রিল।
  • ২০২০ সালের ১৯শে এপ্রিল জনশূণ্য বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য। ড্রোন থেকে একই অ্যাঙ্গেলে ছবিটি তোলা হয়েছে।
  • ২০১৯ সালের ১৯শে এপ্রিল বোর্নমাউথ সৈকতের দৃশ্য।
  • পোর্টসমাউথ এলাকার একটি করোনাভাইরাস পরীক্ষা কেন্দ্র। ছবিটি তোলা হয় ১৮ই এপ্রিল।
  • উত্তর লন্ডনের ওয়েম্বলি এলাকার রিসাইক্লিং সেন্টার।
  • বেডফোর্ডশায়ারের থারলে এয়ারফিল্ড।
  • অক্সফোর্ডশায়ারের বিস্টার শহরের কাছে আপার হেফোর্ড বিমানবন্দরের রানওয়েতে হাজার হাজার নতুন গাড়ি রাখা হয়েছে।
  • লকডাউনের সময় জনশূণ্য স্টোনহেঞ্জে সূর্যাস্তের দৃশ্য।
  • দক্ষিণ-পূর্ব লন্ডনের নিউ মল্ডেন এলাকায় ক্রেতাদের লম্বা লাইন। ছবিটি তোলা হয় ২০শে মার্চ।
  • লিডস কাসলের ওপর সূর্যাস্তের দৃশ্য।
  • কেন্ট কাউন্টির সবচেয়ে বড় ব্লুওয়াটার শপিং সেন্টারের কার পার্ক।
  • সারে অঞ্চলের শহর ফার্নাম-এর এক গার্ডেন সেন্টারের কর্মী জো ডিকিনসন গাছে পানি দিচ্ছেন।
  • থর্প পার্ক, ব্রিটেনের সারে এলাকার একটি বিনোদন কেন্দ্র। গত ৩রা এপ্রিল থেকে এটি বন্ধ রয়েছে।

পরিবেশ

ভোলায় এক লাখ হেক্টর জমিতে আউশ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ

লেখক

জেলায় চলতি মৌসুমে ৯৯ হাজার ৪৯০ হেক্টর জমিতে আউশ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।এর মধ্যে উফশী ৮৩ হাজার ৫২০ ও স্থানীয় জাত ১৫ হাজার ৯৭০ হেক্টর। ইতোমধ্যে প্রায় ৭৮ হাজার হেক্টর জমিতে আবাদ সম্পন্ন হয়েছে। মে মাসের মাঝামাঝি থেকে আবাদ শুরু হয়ে চলতি সপ্তাহ পর্যন্ত চলবে। নির্ধারিত জমি থেকে ২ লক্ষ ৪০ হাজার ৯২৭ মে:টন চাল উৎপাদনের টার্গেট গ্রহণ করা হয়েছে। শেষ পর্যন্ত আবহাওয়া অনুক’লে থাকলে এ অঞ্চলে আউশের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনার রয়েছে।


উপ-সহকারী উদ্বিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা মো: হুমায়ুন কবির বাসস’কে জানান, বাংলাদেশে আউশ ধান আবাদে ভোলা প্রথম স্থানে রয়েছে। প্রতি বছরই এ জেলায় আউশের আবাদি জমির পরিমান বাড়ছে। এবছর হেক্টর প্রতি উফশীতে চাল উৎপাদন ধরা হয়েছে ২ শমিক ৬ মে:টন ও স্থানীয়তে ১ দশমিক ৪ মে:টন করে। শুরুর দিকে বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় আউশ আবাদে বিলম্ব হয়েছে। কিন্তু গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে মাটি নরম হওয়াতে এখন আবাদ কার্যক্রম এগিয়ে চলছে।
কৃষি কর্মকর্তারা জানান, আউশ আবাদে কৃষকদের উৎসাহিত করতে জেলায় ১৫ হাজার ৮০০ ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে উন্নত বীজ এবং সার বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে। খরিপ-১/২০২১-২০২২ মৌসুমে প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় সরকারিভাবে ১২ হাজার কৃষকের প্রত্যেককে ৫ কেজি উচ্চফলনশীল জাতের বীজ, ২০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি এমওপি সার প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া ৩ হাজার ৮০০ কৃষককে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউটের বীজ সহায়তা কর্মসূচির আওতায় ৫ কেজি করে বীজ দেওয়া হয়েছে।


জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আবু মো: এনায়েতউল্লাহ বলেন, বৈশ্বিক মহামারি করোনা’র প্রভাবে যাতে দেশে খাদ্য সংকট সৃষ্টি না হয় সে কারণে এবার আবাদি জমির পরিমান বৃদ্ধি করা হচ্ছে। গত বছর আউশ আবাদ হয়েছে ৯৮ হাজার ৭৫৫ হেক্টা জমিতে। এ বছর আশা করা হচ্ছে আবাদ আরো বাড়বে। আগষ্টের শেষের দিকে কৃষকরা ফসল ঘরে তুলবেন। আমাদের মাঠ পর্যায়ের কর্মীরা কৃষকদের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছে। চারা রোপণ, সুসম মাত্রায় সার প্রয়োগসহ সব ধরনের পরামর্শ কৃষকদের দেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

নীলফামারীতে বীজআলু উৎপাদন ও সংরক্ষণ বিষয়ক প্রশিক্ষণ শুরু

লেখক

জেলার ডোমার উপজেলায় আজ মানসম্পন্ন বীজআলু উৎপাদন, সংরক্ষণ, মান নিয়ন্ত্রণ বিষয়ে দুইদিন ব্যাপি প্রশিক্ষণ শুরু হয়েছে।
আজ শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে ডোমার ভিত্তি বীজ আলু উৎপাদন খামারে এ প্রশিক্ষণ শুরু হয়।
বিএডিসির মানসম্পন্ন বীজআলু উৎপাদন ও সংরক্ষণ এবং কৃষক পর্যায়ে বিতরণ জোরদারকরণ প্রকল্প’র আওতায় এ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। প্রশিক্ষণে বিএডিসির রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ৩০জন কর্মকর্তা অংশ গ্রহন করছেন।


ভার্চ্যুয়ালি এ প্রশিক্ষণের উদ্বোধন করেন বিএডিসির চেয়ারম্যান (গ্রেড-১) ড. অমিতাভ সরকার।
এসময় বিএডিসির মহাব্যবস্থাপক মো. ইব্রাহীম হোসেনের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএডিসির পরিচালক (বীজ ও উদ্যান) মো. মোস্তাফিজুর রহমান, ডোমার ভিত্তি বীজআলু উৎপাদন খামারের উপ-পরিচালক মো. আবু তালেব মিঞা প্রমুখ।
আগামীকাল শনিবার বিকালে সমাপ্ত হবে ওই প্রশিক্ষণ।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

দেয়ালের ড্যাম্প দূর করার সহজ উপায়

বর্ষায় ঘরের দেয়ালের পঁলেস্তার খসে পড়ে। দেয়ালে ড্যাম্প ধরার কারণে এটি হয়ে থাকে। এর ফলে দেয়ালে দেখা দেয় বিশ্রী কালচে ছোপ। সেইসঙ্গে দেয়ালের রংও চটে যায়।

ভেজা দেয়াল শুকিয়ে গেলে আবার পঁলেস্তার ফুলে ওঠে এবং ধীরে ধীরে ঝরে পড়ে। বর্ষা মৌসুমে অনেকের ঘরেই এ সমস্যা দেখা দেয়। তবে কয়েকটি বিষয় মাথায় রাখলে খুব সহজেই দেয়ালের ড্যাম্প দূর করা সম্ভব। জেনে নিন উপায়-

প্রথমে ঘরের দেয়ালের যেসব স্থানে ড্যাম্প ধরেছে তা চিহ্নিত করুন। অনেক সময় দেখা যায়, কোনো এক স্থান থেকে ক্রমাগত পানি চুঁইয়ে পড়ার কারণে ওই ভেজা অংশ থেকেই ড্যাম্প ছড়াতে থাকে।

ঘরের ভেন্টিলেশনের দিকে নজর রাখুন। অনেক সময় সেখান থেকেও পানি চুঁইয়ে দেয়াল নষ্ট হতে পারে। তাই বর্ষার আগেই ব্যবস্থা নিন।

অনেক সময় বাড়ির ছাদে বা দেয়ালে ফাটল ধরে পানি চুঁইয়ে পড়ার কারণে ঘরের ভিতরে ছাদের অংশে বা দেয়ালে ড্যাম্প ধরে। এক্ষেত্রে দ্রুত ওই ফাটল মেরামত করা প্রয়োজন।

দীর্ঘদিন যদি কোনো ওয়ালমেট বা আসবাব দেয়ালের সঙ্গে লাগানো অবস্থায় থাকে; ওই স্থানে ড্যাম্প ধরে। তাই কিছুদিন পরপর আসবাবপত্রের জায়গা পরিবর্তন করুন।

চেষ্টা করুন ঘর খেলামেলা রাখতে। দিনের বেশিরভাগ সময় ঘরে যদি আলো-বাতাস খেলা করে; তাহলে দেয়ালে ড্যাম্প ধরবে না। অন্যদিকে বদ্ধ ঘরে অতিরিক্ত জলীয়বাষ্প বা আর্দ্রতা জমে দেয়ালে ড্যাম্প পড়ার আশঙ্কা থাকে।

দেওয়ালের যে স্থানে ড্যাম্প ধরেছে সেখানে জিপসাম প্লাস্টার ব্যবহার করতে পারেন। বর্তমানে বাজারে উপলব্ধ ‘মোল্ড রেজিস্ট’ রং বা জিপসাম প্লাস্টার পাওয়া যায়। এগুলো ঘরের দেয়ালকে ড্যাম্প পড়ার হাত থেকে দীর্ঘদিন রক্ষা করে।

ঘরের কোনো দেয়ালে বা মেঝেতে যদি শেওলা হয়, তাহলে স্থানটিতে সাদা ভিনেগার স্প্রে করে কিছুক্ষণ রেখে শুকনো কাপড় দিয়ে নিয়মিত মুছে ফেলতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ইসলাম

বিদেশিদের ওমরাহ শুরু হলেও নিষেধাজ্ঞায় থাকবে ৯ দেশ

সৌদি আরব আগামী ১ মুহাররম (১০ আগস্ট) থেকে বিদেশিদের জন্য ওমরাহ চালু করার ঘোষণা দিয়েছে। তবে ৯টি দেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এবারও ৯ দেশের উপর ওমরাহ নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকছে।

আল আরাবিয়া সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৫০০ সংস্থা ও ঠিকাদারকে আগামী মহররম মাসের ১ তারিখ থেকে বিদেশিদের ওমরাহ পালনের সুবিধার্থে নিজেদের প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। তবে যারা মহামারি করোনা ভাইরাসের টিকা নেওয়া সম্পন্ন করেছে তারাই কেবল ওমরাহ করার অনুমতি পাবে।

তবে এবারও ওমরাহ করতে বিশ্বের ৯টি দেশের ওপর থাকছে নিষেধাজ্ঞা। ভারত, পাকিস্তান, ইন্দোনেশিয়া, মিশর, তুরস্ক, আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, দক্ষিণ আফ্রিকা এবং লেবানন থেকে কোনো ওমরাহ পালনকারী ওমরাহ পালনে যেতে পারবে না।

সৌদি হজ ও ওমরাহ মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ওমরাহ করার সময় স্বাস্থ্য সুরক্ষার সঙ্গে সম্পর্কিত নিয়ম-কানুন নিশ্চিত করা হবে।

উল্লেখ্য সফলভাবে ১৪৪২ হিজরির পবিত্র হজ সম্পন্ন হওয়ার পর যথারীতি গত ২৫ জুলাই মোতাবেক ১৫ জিলহজ (সৌদিতে) রোববার শুরু হয়েছে পবিত্র ওমরাহ। এ ধারাবাহিকতায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী ১ মহররম ১৪৪৩ হিজরি মোতাবেক সম্ভাব্য ১০ আগস্ট থেকে মুসলিমরা করোনা ভ্যাকসিন গ্রহণ ও শর্তসাপেক্ষে ওমরাহ পালন করতে পারবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

পরিবেশ

পদ্মায় চায়না দোয়ারিতে ধরা পড়ল বিলুপ্তপ্রায় বামুস মাছ

মিঠাপানির বিলুপ্তপ্রায় মাছ ‘বামুস’। স্থানীয় মানুষের কাছে এটি ‘বাঙ্গোশ’ নামে পরিচিত। বর্তমান প্রজন্মের অনেকেই মাছটির নামই জানে না। চোখেও দেখেনি কখনো। হাট-বাজারেও দেখা মেলে না মাছটির।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) দুপুরে এমনই এক মাছের দেখা মিলেছে দৌলতদিয়া ফেরিঘাট এলাকায় অবস্থিত মাছ ব্যবসায়ী সম্রাট শাহজাহান শেখের আড়তে।

ঘাট সূত্র জানায়, দৌলতদিয়া এলাকায় সকালে পদ্মা নদীতে জেলে বাচ্চু মিয়ার চায়না দোয়ারিতে (মাছ ধরার যন্ত্র) মাছটি ধরা পড়ে। এটি প্রায় ৩ ফুট লম্বা। ওজন ৩ কেজি ২০০ গ্রাম। মাছটি দেখতে হলদে প্রকৃতির। পড়ে মাছটি বিক্রির জন্য দৌলতদিয়া বাজারে নিয়ে এলে মাছ ব্যবসায়ী সম্রাট শাহজাহান শেখ ১ হাজার ১০০ টাকা কেজি দরে তিন হাজার ৫২০ টাকায় কিনে নেন।

মাছ ব্যবসায়ী শাহজাহান শেখ বলেন, এই মাছের নাম শুনেছি, তবে কখনো দেখা হয়নি। যে কারণে বাজারে মাছটি দেখতে পেয়ে নিজেরা খাব বলেই কিনেছি।

রাজবাড়ী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা জয়দেব পাল জানান, বামুস মাছ মিঠাপানিতে অবস্থান করে। এই মাছগুলো গোপালগঞ্জ, নেত্রকোনা, কিশোরগঞ্জ ও সিলেট অঞ্চলে পাওয়া যায়। পদ্মা নদী যখন উত্তাল থাকে তখন মাঝে মধ্যে এই মাছ দু-একটা দেখা মেলে। এরা খুব শক্তিশালী। এদের ওজন ৮-১০ কেজি পর্যন্ত হয়ে থাকে। দামও অনেক।

তিনি আরও জানান, দেশে ৭৫৯ প্রজাতির মাছ রয়েছে। এর মধ্যে সমুদ্রে ৪৭৫ ও মিঠাপানিতে ২৬০ প্রজাতি এবং ফ্রেশ পানিতে ২৪ প্রকার চিংড়ি মাছ পাওয়া যায়।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com