আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

জৈব

অ্যান্টিবায়োটিকমুক্ত নিরাপদ প্রাণিখাদ্য প্ল্যানটেইন ঘাস

শেকসপিয়রের ‘রোমিও অ্যান্ড জুলিয়েট’ নাটকের প্রথম অঙ্কের দ্বিতীয় দৃশ্যের কথোপকথনে প্ল্যানটেইন নামক এক ঔষধি গুল্মের উল্লেখ রয়েছে। যে গুল্মের পাতা ব্যথা-বেদনা নিরাময় করে। কথিত আছে, গ্রিক বীর আলেকজান্ডার খ্রিস্টপূর্ব ৩২৭ অব্দে বিশ্ব জয় করে ফেরার সময় ইউরোপে নিয়ে আসেন প্ল্যানটেইন। ইউরোপ থেকে প্ল্যানটেইন যায় আমেরিকা, কানাডাসহ নিউজিল্যান্ড পর্যন্ত। সেখানে এর পরিচিতি হয় white man’s footprint নামে। কারণ, তারা দেখল ইউরোপীয়রা যেখানে যায় সেখানেই জন্ম নেয় এ গাছ। তাই নেটিভ আমেরিকানদের কাছে প্ল্যানটেইন পায় এমন পরিচিতি।

প্ল্যানটেইনের বহুল প্রচলন নিউজিল্যান্ডে। গোখাদ্য হিসেবে নিউজিল্যান্ডের ডেইরি খামারগুলো প্ল্যানটেইন ব্যবহার করে আসছে অনেক আগে থেকেই। আমি প্ল্যানটেইনের পাতা প্রথম দেখি জাপানে। ২০০৯ সালের জুনে ‘হৃদয়ে মাটি ও মানুষ’ অনুষ্ঠানের পক্ষ থেকে গিয়েছিলাম জাপানের ইউয়াতে বিশ্ববিদ্যালয়ে। সেখানে সাক্ষাৎ পাই বাংলাদেশের তরুণ গবেষক ড. আল মামুনের। তিনি পোস্ট ডক্টরাল গবেষণা করছিলেন অ্যান্টিবায়োটিকমুক্ত পশুখাদ্য নিয়ে। তখন অনুন্নত ও উন্নয়নশীল বিশ্বে পশু মোটাতাজাকরণে তুমুল জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে অ্যান্টিবায়োটিক গ্রোথ প্রমোটার। আর তার বিরুদ্ধে বিকল্প ও প্রাকৃতিক খাদ্য উৎপাদনই জাপানের বিজ্ঞানীদের প্রধান চ্যালেঞ্জ। সেখানে প্ল্যানটেইন নিয়ে গবেষণা করছিলেন ড. আল মামুন। প্ল্যানটেইন মূলত শীতপ্রধান দেশেই জন্মে। ড. আল মামুন তখন বলেছিলেন তার স্বপ্ন প্ল্যানটেইন একদিন বাংলাদেশে চাষ হবে।

এ বছরের মার্চের শেষ দিকে ড. আল মামুন আমাকে মানিকগঞ্জ যাওয়ার আমন্ত্রণ জানালেন। মানিকগঞ্জের গিলন্ডে গিয়ে দেখি তিনি তার স্বপ্ন বাস্তবে রূপান্তর করে ফেলেছেন। বাংলাদেশের মাটিতে ও আবহাওয়ায় তিনি চাষ করেছেন প্ল্যানটেইনের।

আশির দশকে এ দেশে গবাদি পশু মোটাতাজাকরণের ক্ষেত্রে গ্রোথ প্রমোটার বা অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার শুরু হয়েছিল। বর্তমানে গবাদি পশু মোটাতাজাকরণে স্বাভাবিক খাবারের পাশাপাশি নানা ধরনের অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার বেড়ে গেছে বহুগুণ। আর এসব সিনথেটিক অ্যান্টিবায়োটিক প্রাণিদেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা মারাত্মকভাবে হ্রাস করে। পশুখাদ্যে অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের কারণে উৎপাদিত ডিম, দুধ ও মাংসের মধ্যেও তা ছড়িয়ে পড়ে। এসব খাবার খাওয়ায় মানুষের শরীরেও এর ক্ষতিকর প্রভাব পড়ছে। এতে মানবদেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস, হৃদরোগজনিত সমস্যা, ডায়াবেটিস, অটিজমসহ বিভিন্ন ভয়াবহ রোগ দেখা দিচ্ছে।

গ্রোথ প্রমোটার ব্যবহারের ক্ষতিকর দিক অনুধাবন করে ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ উন্নত বিশ্বে ২০০৬ সালের ১ জানুয়ারি থেকে পশুখাদ্যে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার বন্ধ করে দেওয়া হয়। এর পর থেকেই বিজ্ঞানীরা গ্রোথ প্রমোটারের বিকল্প পশুখাদ্য খুঁজতে থাকেন। গবেষণায় দেখা যায়, ঔষধি উদ্ভিদ অ্যান্টিবায়োটিকের বিকল্প পশুখাদ্য হতে পারে। গ্রোথ প্রমোটার, অ্যান্টিবায়োটিকের ক্ষতিকর প্রভাব নিয়ে দেশবাসীর মধ্যে এ বিষয়ে কিছুটা হলেও সচেতনতা এসেছে। প্রতি বছরই কোরবানি ঈদ সামনে রেখে এ বিষয়ে আগাম সতর্কতা প্রচার করে আসছি। তবে এখন যারা গরু মোটাতাজাকরণ করছেন বা বাড়িতে প্রাণিসম্পদের খামার বা দুগ্ধ খামার গড়ে তুলেছেন, তাদের জন্য প্ল্যানটেইন নামের ঔষধি ঘাস হতে পারে দারুণ এক পশুখাদ্য।

ড. মামুন জানালেন, খামার পর্যায়ে এ ঔষধি গুণসম্পন্ন ঘাসের ফল খুব ভালো। এটি গরু-ছাগল থেকে শুরু করে পোলট্রির জন্যও সমান উপকারী। আগেই বলেছি, দুগ্ধশিল্পের সবচেয়ে বড় ক্ষেত্র নিউজিল্যান্ডে এ প্ল্যানটেইনের বহুল প্রচলন। আমাদের দেশের প্রাণিসম্পদের খাদ্য চাহিদা বিবেচনায় সেখান থেকেও আমদানির কথা রয়েছে। কিন্তু তা নির্ভর করছে এ প্রকল্পের ফলাফলের ওপর। প্ল্যানটেইনের কার্যকারিতা পর্যবেক্ষণের জন্য উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের প্রাণিসম্পদ ও খাদ্য নিরাপত্তাবিষয়ক বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ও গবেষকবৃন্দ। তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায় প্ল্যানটেইনের বিশেষত্ব সম্পর্কে।

বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ ইনস্টিটিউটের সাবেক ডিজি ড. খান শহীদুল হক জানান, গবাদি পশুকে তিন ধরনের খাবার দিতে হয়। একটি হচ্ছে আঁশজাতীয়, দ্বিতীয়টি দানাদার আর তৃতীয়টি সাপ্লিমেন্ট খাবার। যে খাবারে বিভিন্ন নিউট্রিয়েন্ট যুক্ত করা হয়। প্ল্যানটেইনকেও সাপ্লিমেন্ট খাবার হিসেবে ব্যবহার করা যেতে পারে। কারণ এতে আছে প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, ভিটামিন ও মিনারেল। ফলে এটি খাওয়ার পর গবাদি পশুর দুধ ও মাংসের গুণগতমানে যেমন পরিবর্তন আসে, তেমন বাড়ে পরিমাণে। শহীদুল হক আরও বলেন, গবাদি পশুর মাংসে হেম আয়রনের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয় যা শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। সবচেয়ে বড় কথা গবাদি পশুকে অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ানোর বিকল্প হতে পারে প্ল্যানটেইন।

প্ল্যানটেইনের উপকারিতা সম্পর্কে ড. মামুন বলেন, গবাদি পশু-পাখির স্বাভাবিক খাবারের সঙ্গে খুব সামান্য পরিমাণে (পোলট্রিতে ১%, ভেড়ায় ৪%, গরুতে ৫-১০%) প্ল্যানটেইন ঘাস বা এর পাউডার মিশিয়ে খাওয়ালে প্রাণীর (হিট স্ট্রেস) কমিয়ে প্রোটিন সংশ্লেষণ বাড়িয়ে দেয়। উচ্চ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্ষমতাসম্পন্ন হওয়ায় মাংসের উৎপাদন, স্বাদ বৃদ্ধি পায় ও পচন রোধ করে। এটি হরমোনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে দুগ্ধবতী ও গর্ভবতী প্রাণীর দুধের উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ায় এবং সুস্থ-সবল বাচ্চা জন্ম দেয়। একইসঙ্গে ফ্যাটি অ্যাসিডের (ওমেগা-৬ ও ৩) অনুপাত কমাতে সহায়তা করে। এতে মানুষের হার্ট ভালো থাকে। রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ও আয়ুষ্কাল বাড়ায়। রক্তে কলেস্টেরলের মাত্রা কমায়। ক্যান্সার ও অটিজম প্রতিরোধ করে।

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পশু পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগের মোহাম্মদ রাহাত ও আহমেদ হৃদয়। তারা গবেষণার আলোকে দেখালেন মুরগিকে প্ল্যানটেইন খাওয়ানোর সুফল। দেখলাম প্ল্যানটেইন খাওয়ানো মুরগির মাংসের রং কমার্শিয়াল ফুড খাওয়ানো মুরগির মাংসের তুলনায় লাল বেশি। এর কারণ হিসেবে জানালেন এতে হেম আয়রনের পরিমাণ বেশি। আরও দেখলাম প্ল্যানটেইন খাওয়ানো মুরগির মাংসে অতিরিক্ত চর্বি নেই। অথচ কমার্শিয়াল ফুড খাওয়ানো মুরগির মাংসে প্রচুর চর্বি।

এলাকার কোনো কোনো খামারি পুষ্টিমানসম্পন্ন এ ঘাস গরুকে খাইয়েছেন। তারাও জানালেন এ ঘাসের উপকারিতা সম্পর্কে। মোটাতাজাকরণ কিংবা দুগ্ধ খামারি, সবাই পাচ্ছেন বেশ উৎসাহজনক ফল।

ড. মামুন জানালেন তার গবেষণা সম্পর্কে, কীভাবে শীতপ্রধান অঞ্চলের উদ্ভিদ প্ল্যানটেইনকে আমাদের দেশের আবহাওয়ায় চাষ করছেন। প্ল্যানটেইন চাষের জন্য তিনি বেছে নেন শীতকালকে। এটি ৬০-২৪০ সেলসিয়াস তাপমাত্রা পর্যন্ত সহ্য করতে পারে। তবে ২০০ সেলসিয়াস তাপমাত্রায় সবচেয়ে বেশি ঔষধি গুণ থাকে। মামুন বলেন, নভেম্বরের শুরুতে বীজ ছিটিয়ে দিতে হবে। কোনো ধরনের বিশেষ যত্ন ছাড়াই এটি যে কোনো ধরনের মাটিতে জন্মাবে। বীজ বপনের ৪৫-৫৫ দিন পর প্রথমবার কেটে নেওয়া যাবে এ ঘাস। এরপর প্রতি এক মাস পরপর কেটে নেওয়া যাবে। এর উৎপাদন ব্যয় কম। ফলে দেশের কৃষক এটি ব্যবহার করলে খুব কম খরচেই অধিক লাভবান হবে।

বিভিন্ন এলাকার খামারির সঙ্গে কথা বলে জেনেছি সংকটের জায়গাতেই রয়ে গেছে গরুর খাদ্যের দাম। এখন যারা দুগ্ধ খামার করছেন, শুধু গরুর খাদ্যের দুর্মূল্যই তাদের লোকসানে ফেলছে। খাদ্যের খরচ আর দুধের মূল্যে তারা পুষিয়ে উঠতে পারছেন না। এ বছর কৃষি বাজেট কৃষকের বাজেট কার্যক্রমে অনেক খামারিই এমন অভিযোগ করেছেন। মানিকগঞ্জের এ এলাকার কৃষকও বলেছেন, ধানের চেয়ে খড়ের দাম বেশি। এক মুঠির দাম পড়ছে ১০ টাকা। তবে প্ল্যানটেইনের মতো এমন পুষ্টিমান ও ওষুধি গুণসম্পন্ন ঘাস সুলভে পাওয়া গেলে পাল্টে যেত আমাদের দুগ্ধ উৎপাদন ও প্রাণিসম্পদ পালনের হিসাব-নিকাশ।

ড. মামুন বলছেন, কৃষকের মাঝে ইতিমধ্যেই এ পুষ্টিকর ঘাসের ব্যাপক চাহিদা সৃষ্টি হয়েছে। অনেক কৃষকই এ পুষ্টিকর ও লাভজনক ঘাস আবাদে আগ্রহী হয়ে উঠেছেন। আমাদের দেশের প্রাণিসম্পদের বহুমুখী সম্ভাবনা থাকার পরও দিন দিন প্রাকৃতিক গোচারণভূমি কমে যাওয়ার কারণে খামারিরা শতভাগ ঘরোয়া খাদ্যের ওপর নির্ভর করতে বাধ্য হচ্ছেন। অন্যদিকে একশ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী দ্রুত লাভের আশায় গরুকে গ্রোথ প্রমোটার বা অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়াচ্ছেন। এর বিপজ্জনক প্রভাব পড়ছে জনস্বাস্থ্যে। অ্যান্টিবায়োটিক গ্রোথ প্রমোটার খাওয়ানো বা ইনজেকশন প্রয়োগ করা গরুর শরীরে অস্বাভাবিক পানি জমে যায়, একইভাবে ওই গরুর মাংসও স্বাস্থ্যের জন্য চরম ক্ষতিকর হয়ে ওঠে। বিষয়গুলো সম্পর্কে কিছুটা জনসচেতনতা আসার পর এখন সবাই প্রাকৃতিক খাদ্য বিশেষ করে কাঁচা ঘাস খাওয়ানো গরু ও মাংসের সন্ধান করছেন। এ ক্ষেত্রে হাইড্রোপনিক পদ্ধতিতে ঘাস উৎপাদন যেমন খামারিরা আকর্ষণীয় এক উদ্যোগ হিসেবে গ্রহণ করেছেন, একইভাবে ড. আল মামুনের দীর্ঘ গবেষণার আলোকে চাষ করা এই প্ল্যানটেইনও দেখাচ্ছে আশার আলো। সরকার শক্তিসম্পন্ন, রোগপ্রতিরোধী ও পুষ্টিকর এ ঘাস উৎপাদনের ব্যাপারে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করলে প্রাণিসম্পদের পুষ্টি উন্নয়নে এটি হবে এক ইতিবাচক দৃষ্টান্ত।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

মন্তব্য এর উত্তর দিন

জৈব

দেশে শুরু হয়েছে পুষ্টিকর ঘাস প্লান্টেইনের চাষ

দেশে শুরু হয়েছে পুষ্টিকর ঘাস প্লান্টেইনের চাষ

দেশে শুরু হয়েছে উচ্চশক্তি সম্পন্ন পুষ্টিকর পশুখাদ্য প্লান্টেইন নামের ঘাসের চাষ।

পশুর শরীরে গ্রোথ হরমোন ব্যবহারের ওপর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিষেধাজ্ঞার পর উন্নতবিশ্ব শুরু করে জৈব ও পুষ্টিকর খাদ্য নিয়ে গবেষণা।

এর ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পশুপুষ্টি বিভাগের ব্যবস্থাপনায় উৎপাদিত ওই ঘাস ইতোমধ্যেই সাড়া ফেলেছে খামারিদের মাঝে।

২০০৪ সালে বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা ইউরোপিয় ইউনিয়নের দেশগুলোর জন্য কঠোর নিষেধাজ্ঞা আনে পশুর শরীরে যেকোনো ধরণের গ্রোথ প্রমোটার ব্যবহারের ওপর। তারপর থেকেই নতুন উদ্যমে চলতে থাকে পশুপুষ্টি নিয়ে গবেষণা।

বাংলাদেশে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের পশু পুষ্টি বিভাগের তরুণ বিজ্ঞানী ড. আল মামুন জাপানের ইউআতে বিশ্ববিদ্যালয়ে তার একাডেমিক গবেষণার অংশ হিসেবে ২০০৯ সালে পুষ্টিকর ঘাস প্লান্টেইন নিয়ে দীর্ঘ অভিযোজন পরীক্ষায় সফল হন।

এর ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশে বিজ্ঞান একাডেমি ও যুক্তরাষ্ট্রের কৃষি সংস্থার যৌথ অর্থায়নে মানিকগঞ্জের গিলান্ডো গ্রামে ৬ জন কৃষকের মাধ্যমে পরীক্ষামূলক প্লান্টেইন চাষের এই প্রকল্প।

ঘাসের পুষ্টিমাণ ও উপকারিতা সম্পর্কে ইতোমধ্যেই ধারনা পেয়েছেন কৃষক।

বিজ্ঞানীরাও যথেষ্টই আশাবাদী প্লান্টেইন নিয়ে।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. আল মামুন বলছেন, মাঠ ফসল হিসেবেও কৃষকের জন্য লাভজনক হতে পারে প্লান্টেইনের চাষ।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

জৈব

নিরাপদ সবজির গ্রাম কালীদীঘি

মুজিব বর্ষ উপলক্ষে গোদাগাড়ীর কালীদিঘি গ্রামকে নিরাপদ সবজী গ্রাম ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল বাড়ির পাশে খেত থেকে শিম তুলছেন শাহিনুর বেগম।
মুজিব বর্ষ উপলক্ষে গোদাগাড়ীর কালীদিঘি গ্রামকে নিরাপদ সবজী গ্রাম ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল বাড়ির পাশে খেত থেকে শিম তুলছেন শাহিনুর বেগম।

গ্রামটির নাম কালীদীঘি। এটি গোদাগাড়ী উপজেলার মাটিকাটা ইউনিয়নের। বরেন্দ্র অঞ্চলের খরাপীড়িত শুষ্ক মাটির এ গ্রামে বড় কোনো গাছপালা নেই। এখানে ফসল ফলানোই একটা চ্যালেঞ্জ।

শফিকুল ইসলাম জানান, মুজিব বর্ষে ব্যতিক্রমী কিছু করার চিন্তা থেকে তিনি এ গ্রামের কৃষকদের বাড়ির আনাচকানাচে নিরাপদ সবজি চাষে উদ্বুদ্ধ করেন। নিরাপদ সবজি বলতে এখানে কোনো কীটনাশক ব্যবহার করা হয়নি। পোকা দমনে শুধু জৈব বালাইনাশক, সেক্স ফেরোমন ফাঁদ ও হলুদ স্টিকি ফাঁদ ব্যবহার করা হয়। এ ছাড়া কৃষকদের কীটনাশক ও রাসায়নিক সার ব্যবহারে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। গত আড়াই থেকে তিন মাসে এ উদ্যোগ অনেকটা সফল হয়েছে।

শফিকুল ইসলাম বলেন, এ জন্য সরকারি তহবিল থেকে একটি টাকাও খরচ করা হয়নি। তিনি ও তাঁর সহকর্মীরা নিজের থেকে এটা করেছেন। এখন গ্রামের বাড়িতে বাড়িতে এ সবজি চাষ হচ্ছে। তিনি মনে করেন, এখন অন্য গ্রামের কৃষকেরাও এটা অনুসরণ করবে।

গতকাল মঙ্গলবার কালীদীঘি গ্রামে গিয়ে প্রায় সব বাড়ির পাশেই কিছু না কিছু সবজিখেত দেখা যায়। প্রতিটি খেতেই কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে বিভিন্ন সবজির নামসহ সাইনবোর্ড দেওয়া রয়েছে। গ্রামের মধ্যে আছে একটি বড় সাইনবোর্ড। তাতে লেখা, ‘মুজিব বর্ষ উপলক্ষে নিরাপদ সবজি গ্রাম।’ সাইনবোর্ডের দুই কোনায় বঙ্গবন্ধুর দুটি ছবি রয়েছে। গ্রামকে নিরাপদ সবজির জন্য প্রস্তুত করতে কী ধরনের প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে, তার উল্লেখ আছে সাইনবোর্ডটিতে। এর নিচে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর গোদাগাড়ীর বিদিরপুর ব্লকের উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা মো. আশরাফুল ইসলামের নাম ও মুঠোফোন নম্বর দেওয়া রয়েছে, যাতে যে কেউ যেকোনো সময় পরামর্শের জন্য তাঁকে কল করতে পারেন।

কিষানি আনোয়ারা বেগম (৪৫) তাঁর বাড়ির আঙিনায় পালং শাক, লাল শাক, বেগুন ও মরিচ চাষ করেছেন। ইতিমধ্যে বেগুন ও শাক নিজে খাচ্ছেন এবং প্রতিদিন চার থেকে পাঁচ কেজি করে বেগুন বিক্রি করছেন। তাঁর খেতে মরিচ এখনো ধরেনি। তাঁর বাড়ির আঙিনায় রয়েছে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সাইনবোর্ড। আনোয়ারা বলেন, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পরামর্শ ছাড়া তিনি অন্য কিছুই খেতে ব্যবহার করেননি।

আরেক কিষানি শাহীনুর বেগম বললেন, তাঁর স্বামী মারা গেছেন। একমাত্র মেয়ের বিয়ে হয়েছে। তাঁর ছেলে কলেজে পড়ার পাশাপাশি পাশের একটি কারখানায় কাজ করেন। এ অবস্থায় তিনি বাড়িতে সবজি চাষ করেছেন। শাহীনুর বলেন, কর্মকর্তাদের পরামর্শে শুধুই ছাই ব্যবহার করে শিমের পোকা দমন করেছেন তিনি। পাশেই তাঁর মেয়ের বাড়ি। সেই বাড়িতে সদস্য কম। নিজেরা খেয়ে তাঁর মেয়ে এক মণ শিম বিক্রি করেছেন।

আবদুর রউফের স্ত্রী বিরজা বেগম খেতে বাঁধাকপি, পেঁয়াজ, বেগুন, লাউ, মিষ্টিকুমড়া ও পটল চাষ করেছেন। তিনি বলেন, তাঁদের কোনো সবজি কিনতে হয় না। পোকার খুব আক্রমণ হলে একবার হালকা করে ওষুধ ছিটান। কর্মকর্তাদের পরামর্শে জৈব বালাইনাশক ব্যবহার করেছেন। খুব ভালো সবজি হয়েছে।

ভ্যানচালক জোগেশ্বরের বাসায় গিয়ে দেখা যায়, তাঁর বাড়ির গাছে পেঁপে পেকে রয়েছে। তাঁর বাড়িতে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের পেঁপে বাগানের একটি সাইনবোর্ডও দেওয়া রয়েছে। তাঁর স্ত্রী নিয়তি রানী গাছ থেকে পাকা পেঁপে কেটে বলেন, তাঁর পেঁপে না খেলে তিনি ভীষণ মন খারাপ করবেন। নিয়তি রানীর ছোট্ট বাগানে পেঁপে ছাড়াও রয়েছে বেগুন, মিষ্টিকুমড়া ও লাল শাক।

রাজশাহী কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক শামছুল হক বলেন, গোদাগাড়ীতে নিরাপদ সবজি গ্রামের বিষয়টি তাঁর জানা আছে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

জৈব

খামার বর্জ্য থেকে মিশ্রসার তৈরি করব কীভাবে?

লেখক

খামার বর্জ্য থেকে মিশ্রসার তৈরি করব কীভাবে
খামার বর্জ্য থেকে মিশ্রসার তৈরি করব কীভাবে

বর্জ্য থেকে প্রস্তুত পচা জৈব উপাদানকে বলা হয় কমপোস্ট সার বা মিশ্র জৈব সার। পেষাই হয়ে যাওয়া আখ, ধানের খড়, আগাছা ও অন্যান্য গাছ ও বর্জ্য থেকে তৈরি সারই হল কমপোস্ট সার। এই সারে গড়ে ০.৫ শতাংশ নাইট্রোজেন, ০.১৫ শতাংশ ফসফরাস, ০.৫ শতাংশ পটাসিয়াম থাকে। সার তৈরির প্রাথমিক স্তরে কমপোস্ট পিটে প্রতি টন কাঁচামালে ১০/১৫ কেজি সুপার ফসফেট বা রক ফসফেট মেশালে সারের গুণমান বাড়ানো যায়। শহরের মল, ডাস্টবিন ও রাস্তার আবর্জনা থেকে তৈরি সারও হল কমপোস্ট সার। এতে থাকে ১.৪ শতাংশ নাইট্রোজেন, ১ শতাংশ ফসফরাস ও ১.৪ শতাংশ পটাসিয়াম।

কমপোস্ট সার তৈরির জন্য খামার বর্জ্যকে সাড়ে চার থেকে ৫ মিটার লম্বা, দেড় থেকে দু’মিটার চওড়া ও ১ থেকে ২ মিটার গভীর গর্ত খুঁড়ে রেখে দেওয়া হয়। গর্তে খামার বর্জ্যকে স্তরে স্তরে রাখা হয়। প্রতিটি স্তর গরুর গোবরের কাই দিয়ে বা জল দিয়ে ভিজিয়ে রাখা হয়। জমি থেকে ০.৫ মিটার উপর পর্যন্ত গর্তগুলি ভরাট করে দেওয়া হয়। ৫-৬ মাসের মধ্যে সার ব্যবহারের উপযোগী হয়ে ওঠে। কমপোস্ট সার প্রস্তুতি প্রকৃতপক্ষে গ্রামাঞ্চল ও শহরাঞ্চলের জৈব অবশেষকে জীবাণু দ্বারা পচানোর প্রক্রিয়া ।

সার তৈরির পদ্ধতি

এখানে তিনটি পদ্ধতির কথা বলা হয়েছে।

ইন্দোর পদ্ধতি

জৈব বর্জ্য গোয়ালে বিছানার মতো করে ছড়িয়ে দেওয়া হয়। মূত্রে ভেজা সেই বর্জ্য এবং গোবর প্রতি দিন সরিয়ে আনা হয় এবং ১৫ সেমি পুরু স্তর তৈরি করে নির্দিষ্ট স্থানে রাখা হয়। মূত্রে ভেজা মাটি গোয়াল থেকে সংগ্রহ করে জলে ভেজানো হয় এবং দিনে দু-তিনবার ওই বর্জ্যের স্তরের ওপর চাপানো হয়। এই প্রক্রিয়া প্রায় দিন পনেরো চলে। তার পর খুব ভাল মানের কমপোস্ট সার বর্জ্যের স্তরের ওপর চাপানো হয় এবং গোটা উপাদানটিকে উল্টেপাল্টে দেওয়া হয়। পুরনো সার গোটা উপাদানটিকে পচাতে সাহায্য করে। গোটা উপাদানকে পরবর্তী ১ মাস একই ভাবে রেখে দেওয়া হয়। তত দিনে এই সার পুরোপুরি আর্দ্র হয়ে যায়। এই সার আরও এক বার উল্টেপাল্টে দেওয়া হয়। আরও এক মাসের মধ্যে নতুন সার ব্যবহারের উপযুক্ত হয়ে ওঠে।

খামার বর্জ্য থেকে মিশ্রসার তৈরি করব কীভাবে
খামার বর্জ্য থেকে মিশ্রসার তৈরি করব কীভাবে

ব্যাঙ্গালোর পদ্ধতি

২৫ সেন্টিমিটার পুরু শুকনো বর্জ্য পদার্থ একটি গর্তে ছড়িয়ে রাখা হয়, তার ওপর জলে ভেজা থকথকে গোবর ছড়িয়ে দেওয়া হয় ভেজানোর জন্য। ভিজে স্তরের উপর শুকনো বর্জ্যের আরও একটি স্তর চাপিয়ে দেওয়া হয়। প্রথমে শুকনো বর্জ্যের স্তর, তার উপর গরুর গোবরের দ্রবণ, এই ভাবে স্তরে স্তরে গর্তটি মাটির উপর ০.৫ মিটার পর্যন্ত ভরাট করা হয়। এই অবস্থায় কোনও ঢাকা না দিয়ে ১৫ দিন রাখা হয়। এর পর এই উপাদান উল্টেপাল্টে তুলে কাদা মাখিয়ে ৫ মাস বা যত দিন না ব্যবহার হচ্ছে ,তত দিন একই ভাবে রেখে দেওয়া হয়।

খামার বর্জ্য থেকে মিশ্রসার তৈরি করব কীভাবে
খামার বর্জ্য থেকে মিশ্রসার তৈরি করব কীভাবে

কোয়েম্বাটোর পদ্ধতি

কী ধরনের বর্জ্য পদার্থ পাওয়া যাচ্ছে তার ভিত্তিতে নানা মাপের গর্তে সার প্রস্তুত করা হয়। প্রথমে গর্তে বর্জ্য পদার্থের একটি স্তর বানানো হয় , তার উপর আড়াই থেকে ৫ লিটার জলে ৫ থেকে ১০ কিলো গরুর গোবরের দ্রবণ ও ০.৫ থেকে ১ কিলো হাড়ের গুঁড়োর মিশ্রণ সমান ভাবে ছড়ানো হয়। এ ভাবে একের পর এক স্তর তৈরি করা হয়, যতক্ষণ না উপাদানের উচ্চতা মাটির থেকে ০.৭৫ মিটার পর্যন্ত পৌঁছচ্ছে। এর পর এটিকে কাদামাটি দিয়ে মুড়িয়ে একই ভাবে ৮-১০ সপ্তাহ রেখে দেওয়া হয়। তার পর পুরো পদার্থটি তুলে জলে ভিজিয়ে উল্টেপাল্টে আয়তাকার স্তুপ বানিয়ে , যত দিন না ব্যবহার হচ্ছে, ছায়ায় রেখে দেওয়া হয়।

কোয়েম্বাটোর পদ্ধতিতে প্রথমে অবাত পচন প্রক্রিয়া তারপর সবাত পচন প্রক্রিয়া চলে। এটি ব্যাঙ্গালোর পদ্ধতির বিপরীত। কোয়েম্বাটোর বা ইন্দোর পদ্ধতির মতো ব্যাঙ্গালোর প্রক্রিয়ায় সার পচানো হয় না। কিন্তু এটাই সবচেয়ে ভারী।

খামার বর্জ্য থেকে মিশ্রসার তৈরি করব কীভাবে
খামার বর্জ্য থেকে মিশ্রসার তৈরি করব কীভাবে

খামার-বর্জ্যের রক্ষণাবেক্ষণ

যেখানে জন্তু জানোয়ার আছে, সেখানে তাদের বর্জ্যও আছে। পশুপালন শিল্পের চেহারা নেওয়ার পর থেকে পশুপালনের খামার যত বেড়েছে, তার তুলনায় বহু বহু গুণ বেড়েছে খামারে পশুর সংখ্যা। এর ফলে খুব ছোট জায়গাতেও প্রচুর পরিমাণে পশু বর্জ্য পাওয়া যায়। যখন এক জায়গায় প্রচুর পরিমাণে পশু বর্জ্য তৈরি হয়, তখন তাকে নিরাপদে ও কম খরচে কার্যকর ভাবে ব্যবহার করাও মুশকিল, ফেলে দেওয়াও কঠিন। সরকারি নিয়মনীতি এবং উন্নত মানের বর্জ্য রক্ষণাবেক্ষণ পদ্ধতি পরিস্থিতি কিছুটা পাল্টাতে পারে এবং খামারগুলিতে যেন তা প্রয়োগ করা হয়, সে দিকে লক্ষ রাখা উচিত। কিন্তু যত দিন আমরা আমাদের খাদ্যের জন্য ছোট জায়গায় শিল্পের আকারে প্রচুর পশু পালনের ওপর নির্ভর করে থাকব, তত দিন পশু বর্জ্য সংক্রান্ত সমস্যা থেকে যাবে।

যে সব খামারে পশুরা ঘাসের জমিতে চরে বেড়ায়, সেখানে সবটা না হলেও বর্জ্যের অনেকটাই সরাসরি জমিতে যায়, যা সার হিসেবে কাজ করে এবং তার ভেতরে থাকা পরিপোষক পদার্থ চক্রাকারে মাটিতে ফিরে যায়। পশুপালন শিল্প খামারে, পশুরা যেখানে থাকে সেখানেই বর্জ্য ত্যাগ করে। সেখান থেকে বর্জ্য সংগ্রহ করতে হবে, অন্যত্র নিয়ে যেতে হবে এবং সংরক্ষণ করতে হবে— প্রতিটি ধাপই পরিবেশে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। পশুপালনের জন্য ব্যবহৃত ঘরগুলিকে শুধুমাত্র ধুয়ে পরিষ্কার করতে চাইলে প্রচুর পরিমাণ জলের প্রয়োজন হয়। দুগ্ধ শিল্পের ক্ষেত্রে, যেখানে বর্জ্য ধুয়ে পরিষ্কার করার স্বয়ংক্রিয় ব্যবস্থা থাকে, সেখানেও গরু পিছু দিনে ১৫০ গ্যালন জল খরচ হয়।

পশুপালন শিল্পের কারখানায় বিভিন্ন ব্যবস্থায় বাতাস দূষিত হয় এবং ৪০০-রও বেশি গ্যাস নির্গত হয়, বেশির ভাগটাই বিশাল পরিমাণ পশু বর্জ্যের কারণে। প্রধানত যে সব গ্যাস নির্গত হয়, তার মধ্যে রয়েছে, হাইড্রোজেন সালফাইড, মিথেন, অ্যামোনিয়া ও কার্বন ডাই অক্সাইড। বায়ূদূষণের ক্ষেত্রে এই গ্যাসগুলি বিপজ্জনক, এগুলি পরিবেশ এবং জনস্বাস্থ্য –দু’য়ের পক্ষেই অত্যন্ত ক্ষতিকারক। বর্জ্যের কারণ শিল্প খামারগুলি থেকে প্রচুর পরিমাণে নাইট্রিক অক্সাইডও নির্গত হয়। অ্যাসিড বৃষ্টির অন্যতম প্রধান কারণ হল এই গ্যাস।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

জৈব

কেঁচো সারে স্বাবলম্বী

চট্টগ্রামের পটিয়ার হাইদগাঁও গ্রামের সোহাফ উদ্দিন ও তাঁর স্ত্রী রুমা আক্তার কেঁচো সার তৈরির কাজ করছেন।
চট্টগ্রামের পটিয়ার হাইদগাঁও গ্রামের সোহাফ উদ্দিন ও তাঁর স্ত্রী রুমা আক্তার কেঁচো সার তৈরির কাজ করছেন।

লেখাপড়া করেছেন মাত্র অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত। দারিদ্র্যের কারণে বাবার সঙ্গে খেতে কাজ করতে হয়েছে তাঁকে। তবে দমে যাননি সোহাফ উদ্দীন। কিছু একটা করে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর তাগিদ ছিল তাঁর। ছয় বছর আগে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর থেকে উন্নত চাষাবাদের প্রশিক্ষণ নেন তিনি। পাশাপাশি শেখেন কেঁচো সার (ভার্মি কম্পোস্ট) তৈরির পদ্ধতি। এই কেঁচো সারই তাঁকে স্বাবলম্বী হওয়ার রাস্তা দেখিয়েছে। এখন মাসে তিন টন করে কেঁচো সার তৈরি করছেন তিনি। দিয়েছেন সার ও বীজ বিক্রির প্রতিষ্ঠান।

চট্টগ্রামের পটিয়ার এ উদ্যোক্তা সোহাফ উদ্দিন (৩১) কেঁচো সার তৈরি করে এলাকায় তিনি বেশ পরিচিতি লাভ করেছেন। পটিয়ার হাইদগাঁও ইউনিয়নের পূর্ব হাইদগাঁও গ্রামের বাসিন্দা তিনি। দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ার সময় থেকেই বাবার সঙ্গে খেতের কাজ শুরু করেন। অষ্টম শ্রেণির পর তাঁর লেখাপড়ার পাট চুকে যায় চিরতরে। ২০১৫ সালে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের একটি কৃষি প্রশিক্ষণে যোগ দেওয়ার সুযোগ হয় তাঁর। সেখানে কেঁচো সার তৈরির প্রশিক্ষণ নেন। এরপর কেঁচো সার তৈরিতে পূর্ণ মনোযোগ দেন তিনি। 

সোহাফ জানান, ২০১৭ সালের অক্টোবর মাসে বাড়ির পাশে এক শ টাকায় সামান্য জায়গা ভাড়া নেন তিনি। সেটির ওপরে টিনের ছাউনি দিয়ে ছোট্ট একটি ঘরে তৈরি করেন ছয়টি রিং। প্রতিটি রিংয়ে ১০০ থেকে ১২০ কেজি পচা গোবর, তরিতরকারির ফেলে দেওয়া অংশ, পাকা কলার খোসা ও কৃষি বিভাগ থেকে বিনা মূল্যে পাওয়া পাঁচ শ গ্রাম কেঁচো দিয়ে সার তৈরি শুরু করেন। এতে তাঁর খরচ পড়ে মাত্র তিন শ টাকা। ৪০ দিন পর প্রতিটি রিংয়ে ৪৫ কেজি করে কেঁচো সার তৈরি হয়। প্রতি কেজি কেঁচো সার বিক্রি হয় ১৮ টাকা থেকে ২০ টাকায়। ফলে ছয়টি রিং থেকে উৎপাদিত কেঁচো সার বিক্রি করে তিনি পেয়েছিলেন পাঁচ থেকে সাড়ে পাঁচ হাজার টাকার মতো। প্রতি তিন মাস অন্তর কেঁচোর বংশ বৃদ্ধি হয়। এ কারণে নতুন করে কেঁচো কিনতে হয় না। সোহাফ উদ্দিন বলেন, কেঁচো সার তৈরিতে গরু-ছাগল অথবা হাঁস-মুরগির বিষ্ঠা ও নাড়িভুঁড়ির প্রয়োজন হয়। এসব তিনি ও তাঁর স্ত্রী জোগাড় করেন। 

তিনি বলেন, সামান্য পুঁজিতে পরিশ্রমে ভালো লাভ হওয়ায় ২০১৮ সালে বাড়ির পাশে প্রতিবেশী খামারি আবু নঈমও এই কাজের সঙ্গে যুক্ত হন। এখন তাঁর কাছ থেকে গোবর পাওয়া যাচ্ছে নিয়মিত। উৎপাদিত কেঁচো সার চট্টগ্রামের বিভিন্ন নার্সারি, বাগানি ও ছাদবাগানের উদ্যোক্তারা তাঁর কাজ থেকে পাইকারি ও খুচরা মূল্যে নিয়ে যাচ্ছেন। 

সরেজমিনে দেখা গেছে, ৩০ ফুট দীর্ঘ ও ১২ ফুট প্রস্থের ছয়টি লম্বা আকারের হাউসে তৈরি হচ্ছে কেঁচো সার। সার তৈরির খামারে সোহাফ উদ্দিন, তাঁর স্ত্রী রুমা আক্তার ও খামারি আবু নঈম ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছিলেন। প্রতি মাসে তিন টন করে কেঁচো সার তৈরি করছেন তাঁরা। সার বিক্রি করে প্রতি মাসে ৪৫ হাজার থেকে ৫০ হাজার টাকা পাওয়া যাচ্ছে বলে জানা গেল।

সোহাফ বলেন, কেঁচো সারের জন্য ২০১৮ ও ২০১৯ সালে কৃষি উন্নয়ন মেলায় পুরস্কার পান তিনি। বর্তমানে মেসার্স সাতগাছিয়া বীজ ভান্ডার নামের একটি প্রতিষ্ঠান দিয়েছেন। বীজের পাশাপাশি কেঁচো সারও বিক্রি করছেন এই প্রতিষ্ঠান থেকে। 

হাইদগাঁও এলাকার কৃষক মোহাম্মদ আবু ছায়েম বলেন, তাঁর প্রায় তিন একর জায়গায় নানান ফলদ ও সবজি বাগান রয়েছে। আগে ব্যাপক হারে নানান রাসায়নিক সার ব্যবহার করতেন। সোহাফ উদ্দিন কেঁচো সার তৈরির পর তাঁর থেকে সার কিনছেন। এতে খরচও কমেছে। আগে সারের পেছনে খরচ হতো ৪০০ টাকা। বর্তমানে খরচ পড়ে ১৬০ টাকা। 

পটিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কল্পনা রহমান বলেন, কৃষকেরা বিভিন্ন ফসলে রাসায়নিক সার ব্যবহারের দিকে ঝুঁকে যাচ্ছে। এতে জমির উর্বরতা শক্তি ও জৈবিক উপাদান কমে যাচ্ছে। যার ফলে ফলনও কমে যাচ্ছে। কেঁচো সার ব্যবহারের ফলে মাটির স্বাস্থ্য রক্ষা হচ্ছে। উর্বরতাও বাড়ছে। এতে কৃষকেরা লাভবান হবেন। অন্যদিকে রাসায়নিক মুক্ত ফলন উৎপাদনে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

জৈব

কেঁচো বদলে দিল ভাগ্য

কেঁচো সার তৈরির কাজে ব্যস্ত এমদাদুল হক
কেঁচো সার তৈরির কাজে ব্যস্ত এমদাদুল হক

ঢাকার দোহার উপজেলার এমদাদুল হক। সিঙ্গাপুরে ছিলেন ১২ বছর। দেশে ফিরে জমানো টাকা দিয়ে শুরু করেন ব্যবসা। এতে সফল হতে পারেননি। তত দিনে জমানো টাকাও শেষ। চলতে হতো ধারদেনা করে। হঠাৎ একদিন জানতে পারলেন কেঁচো জৈব সার (ভারমিকম্পোস্ট) সম্পর্কে। সেই কেঁচো সার বদলে দিয়েছে তাঁর জীবন।
এমদাদুল হকের বাড়ি উপজেলার বানাঘাটা গ্রামের নিকড়া বটতলা এলাকায়। জীবিকার তাগিদে নব্বইয়ের দশকে বিদেশে গিয়েছিলেন। দেশে ফিরে জমানো টাকা দিয়ে শুরু করেন বিদেশি যন্ত্রাংশ আমদানির ব্যবসা। কিন্তু তাতে তাঁর অবস্থার উন্নতি হয়নি। এমদাদুল বলেন, ব্যবসায় লোকসান হলেও তিনি নতুন উদ্যমে অর্থ লগ্নি করতেন। এভাবে নয় বছরে তাঁর অনেক টাকা লোকসান হয়। এরপর শুরু হলো কষ্টের জীবন। এভাবে চলতে চলতে হঠাৎ একদিন তিনি জানতে পারেন কেঁচো জৈব সার সম্পর্কে। বিষয়টি কী তা জানতে তিনি ঢাকায় বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটে যান। সেখানে পরিচয় হয় একজন কৃষিবিদের সঙ্গে। এরপরের গল্প ঘুরে দাঁড়ানোর।
২০১৪ সালের শুরুতে একটি মৌলিক প্রশিক্ষণ শেষে ১০ কেজি ধারণক্ষমতার দুটি চাড়ি (মাটির তৈরি পাত্র) দিয়ে এমদাদুল শুরু করেন কেঁচো সার উৎপাদন। দুটি চাড়িতে ১৪ কেজি গোবর, চার কেজি খড়কুটো ও ২০০ গ্রাম কেঁচো দিয়ে শুরু করেন সার উৎপাদন। দুটি চাড়ি থেকে মোট সার পেয়েছিলেন ১২ কেজি। প্রথম দিকে উৎপাদিত সার কলাবাগানে দিয়ে নিজের রাসায়নিক সারের চাহিদা পূরণ করতেন এমদাদুল। এরপর আস্তে আস্তে কৃষকের কাছে জনপ্রিয় হতে থাকে এ সার। তিনিও বাড়াতে থাকেন সার উৎপাদন।
বর্তমানে এমদাদুল প্রতিটি ৭০০ কেজি ধারণক্ষমতার তিনটি হাউসে (সিমেন্ট দিয়ে তৈরি বড় আধার) সার উৎপাদন করছেন। ১৫০০ কেজি গোবর, ৪০০ কেজি কলাগাছের টুকরা ও ২০০ কেজি খড়কুটো দিয়ে জৈব সার উৎপাদনের জন্য রাখা হয়। আর কেঁচো দেওয়া হয়েছে ৬ কেজি। বর্তমানে ১২ কেজির বেশি কেঁচো আছে হাউসে। কেঁচো সার প্রস্তুত হতে সময় লাগে দেড় মাস।
নিকড়া বটতলা মোড়ে একটি ছোট দোকান আছে এমদাদুলের। সেখানে তিনি কীটনাশক ও কেঁচো জৈব সার বিক্রি করেন। গ্রামের যে কৃষকেরা এ সার ব্যবহার করে সুফল পেয়েছেন, তাঁরা সবাই তাঁর দোকান থেকে সার নিয়ে যান। অনেকে তাঁর বাড়ি থেকেও নিয়ে যান। গ্রামের সব কৃষক কমবেশি এ সারের প্রতি ঝুঁকে পড়েছেন। এমদাদুল হক বলেন, ‘এ সার উৎপাদনে খরচ খুব বেশি না। আর এটা অনেক বেশি পরিবেশবান্ধব। এ সার আমাকে আশার আলো দেখিয়েছে।’
এমদাদুলের নিজের দেড় বিঘা জমি আছে। সেখানে তিনি নরসিংদীর অমৃতসাগর কলার চাষ করেছেন। এ জৈব সার ব্যবহার করায় কলার মান ভালো হয়। ফলনও হয় অনেক বেশি। এমদাদুলের ছোট একটি পেঁপের বাগানও আছে। সেখানেও তিনি ব্যবহার করেন জৈব সার।
নিকড়া গ্রামের কৃষক মুজাহার হোসেন বলেন, ‘আমার দেড় বিঘা জমিতে ধান চাষের সময় কেঁচো সার ব্যবহার করছি। এই সার ব্যবহার কইরা সুফল পাইছি। এখন থেকে এই সারই জমিতে দিমু।’
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. আরিফুল ইসলাম বলেন, ‘এমদাদুল উপজেলায় কেঁচো সার উৎপাদনে দৃষ্টান্ত তৈরি করেছেন। এখন কৃষকের মধ্যে এ সার জনপ্রিয়তা পেয়েছে। কেউ কৃষি অফিসের সাহায্য চাইলে আমরা সাহায্য করি। যাদের কেঁচোর প্রয়োজন হয়, তাদের কেঁচোও সরবরাহ করা হয়।’

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com