আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

ফুল

এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ
এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

রুদ্রাক্ষের মালা হাজার বছর ধরে হিন্দু সম্প্রদায়, বৌদ্ধ ভিক্ষু এবং বাউলদের ব্যবহার করতে দেখা যায়। কিন্তু এর উৎপত্তি বা ক্রমবিকাশ সম্পর্কে অনেকেই হয়তো জানি না। আসুন জেনে নেই রুদ্রাক্ষের আদি-অন্ত। বিস্তারিত জানাচ্ছেন মঞ্জুর মোর্শেদ রুমন-

রুদ্রাক্ষ শব্দটি সংস্কৃত ভাষার। যার অর্থ রুদ্রের চোখ বা শিবের চোখ। পৌরাণিক কাহিনি মতে, দুর্বিনীত অসুর ত্রিপুরকে বধ করতে গিয়ে শিব দীর্ঘকাল অপলক নেত্রে যুদ্ধ করেন। যে কারণে তার অবসাদগ্রস্ত চোখ থেকে মাটিতে গড়িয়ে পড়ে এক ফোঁটা অশ্রু। সেই অশ্রুকণা থেকেই জন্ম হয় রুদ্রাক্ষের।

এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ
এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

রুদ্রাক্ষ ফুল Elaeocarpaceae পরিবারের সদস্য। এর বৈজ্ঞানিক নাম Elaeocarpus ganitrus। রুদ্রাক্ষ গাছ দেখতে কিছুটা বকুল গাছের মতো। পরিপক্ক গাছের শেকড়ে ঝাউ-শিমুল-বুদ্ধনারিকেল গাছের মতো অধিমূল দেখা যায়। গাছের ফল দেখতে গাঢ় নীল রঙের। যে কারণে এর ইংরেজি নাম বলয়ে marble তরী বা বলয়ে berry beads।

রুদ্রাক্ষের ক্ষেত্রে মুখ সংখ্যা অতি গুরুত্বপূর্ণ। সাধারণত পঞ্চমুখী রুদ্রাক্ষই দেখতে পাওয়া যায় সবচেয়ে বেশি। তবে ১ থেকে শুরু করে ৩৮ মুখী পর্যন্ত রুদ্রাক্ষের সন্ধানও পাওয়া যায়। সহজলভ্য নয় বলে ১৪ থেকে ২১ মুখী রুদ্রাক্ষের মূল্যও বেশি।

এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ
এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

যাবতীয় নানামুখী রুদ্রাক্ষের মধ্যে সবচেয়ে দুর্লভ বোধ হয় সুশ্রী এবং গোলাকার একমুখী রুদ্রাক্ষ। যা আজকাল অতিশয় দুর্লভ। শোনা যায়, ভারতের টাটা কোম্পানি ৭০ লাখ টাকা মূল্যের একটি একমুখী রুদ্রাক্ষ বংশ পরম্পরায় রক্ষা করে আসছে।

  • এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

    এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

  • এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

    এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

  • এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

    এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ

  • এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ
  • এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ
  • এক ফোঁটা অশ্রু থেকে জন্ম হয় রুদ্রাক্ষ
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

এগ্রোবিজ

ধানের পর চাষ করা ফুল ফেলে দিচ্ছেন চাষিরা

ধানের পর চাষ করা ফুল ফেলে দিচ্ছেন চাষিরা
ধানের পর চাষ করা ফুল ফেলে দিচ্ছেন চাষিরা

সারাদেশে ধানের ন্যায্যমূল্য না পেয়ে হতাশ চাষিরা। সম্প্রতি টাঙ্গাইলের এক চাষি প্রতিবাদস্বরূপ তার ক্ষেতে আগুন ধরিয়ে দেন। আর এতেই টনক নড়ে দেশবাসীর। তবে এবার শুধু ধান নয় দাম না পেয়ে মাঠেই ফুল ফেলে রাখছেন চাষিরা। অনেকে আবার ঝোপঝাড়েও ফেলে দিচ্ছেন উৎসবের এই উপকরণকে।

ফুলচাষিরা তাদের ফুল তুলে ক্ষেতের সারিগুলোতে আবার কখনো ঝোপঝাড়ে ফেলে দিচ্ছেন বা কখনো গাছেই ফুটে নষ্ট হচ্ছে ফুল। মাঠের পর মাঠ ফুল বাগানের এই করুণ দৃশ্য দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ফুল উৎপাদনকারী এলাকা ঝিনাইদহের।

ধানের পর চাষ করা ফুল ফেলে দিচ্ছেন চাষিরা
ধানের পর চাষ করা ফুল ফেলে দিচ্ছেন চাষিরা

এ জেলার উপজেলাগুলোতে ৪শ হেক্টরের বেশি জমিতে গোলাপ, গাঁদা, রজনীগদ্ধা, গ্লাডিওলাস, জারবেরা-সহ নানা দেশি-বিদেশি ফুলের চাষ হয়। সদর উপজেলার উদয়পুর গ্রামের ফুলচাষি বিল্লাল হোসেন ও মহাসিন হোসেন বলেন, পুরো রমজান মাস জুড়ে তেমন কোনো অনুষ্ঠান না থাকায়, দীর্ঘ এ সময়ে ফুলের কেনাবেচা প্রায় শূন্যের কোঠায়। ফলে দামও নেই এসব ফুলের। এ কারণে বাগানজুড়ে থাকা বিভিন্ন প্রকার নামি-দামি তরতাজা সব ফুল তুলে ফেলে দিতে হচ্ছে। এক মাসে কমপক্ষে ৪টি চালান বিক্রি করতে না পারায় ৫০ হাজার থেকে লাখ টাকা ক্ষতি হয় কৃষকদের।

ধানের পর চাষ করা ফুল ফেলে দিচ্ছেন চাষিরা
ধানের পর চাষ করা ফুল ফেলে দিচ্ছেন চাষিরা

গাঁদা ফুলের ঝোপা ২শ থেকে আড়াইশ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হলেও এখন তা ২০-২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর রজনীগন্ধার ১টি স্টিক ৫টাকা পর্যন্ত দাম উঠলেও এখন তা মিলছে এক টাকায় ৪টা। বর্তমান সময়ে যে ফুলের চাষ হচ্ছে তাকে গরম মৌসুমের ফুল বলা হয়। ৫ থেকে ৬ মাস পর্যন্ত এ ফুল পাওয়া যায় বাগান থেকে। একবিঘা জমিতে চাষ করতে গাঁদা ও রজনীগন্ধা ফুলে খরচ হয় প্রায় ২৬ হাজার টাকা, আর বিক্রি করা যায় লাখ টাকায়।

ধানের পর চাষ করা ফুল ফেলে দিচ্ছেন চাষিরা
ধানের পর চাষ করা ফুল ফেলে দিচ্ছেন চাষিরা

তবে রমজানের এই সময়টাতে ফুলের দাম নেমে আসে সর্বনিম্ন পর্যায়ে। তাও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ফুল তুলে ফেলে দিতে বাধ্য হন কৃষকেরা। কারণ শ্রমিক খরচ, ফুল তুলে, ঝোপা গেঁথে বাজারজাতকরণ পর্যন্ত আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি দাঁড়ায় এ সময়টাতে।

এদিকে কেন ফুল ফেলে দিচ্ছেন কৃষকরা জানতে চাইলে ঝিনাইদহ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক জিএম আব্দুর রউফ বলেন, ফুল ফেলে দেয়ার খবর জানা নেই তার। তবে কৃষকরা যেন নিরুৎসাহিত না হয়ে পড়েন সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেবেন।

তিনি আরও বলেন, পরিকল্পিতভাবে ফুলের চাষ করতে হবে আর ফুল সংরক্ষণ করতে হলে বিশেষায়িত হিমাগারের জন্য সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগ নিতে হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

এগ্রোবিজ

পথে পথে চাঁদাবাজি, আকাশ ছুঁয়েছে পেয়ারার দাম

পথে পথে চাঁদাবাজি, আকাশ ছুঁয়েছে পেয়ারার দাম
ভীমরুলীতে পেয়ারার ভাসমান হাট।

পেয়ারার জন্য বিখ্যাত ঝালকাঠি, বরিশাল ও পিরোজপুর জেলার ৫৫টি গ্রাম। দক্ষিণের এই তিন জেলা থেকে প্রতিদিন এই পেয়ার সড়ক ও নৌপথে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যাচ্ছে। কিন্তু পথে পথে ব্যাপক চাঁদাবাজির কারণে রাজধানীসহ দেশের কয়েকটি বড় শহরে পেয়ারার দাম কয়েকগুণ বেড়ে যাচ্ছে। এমন অভিযোগ করেছেন পেয়ারার স্থানীয় পাইকার ও পরিবহন চালকরা।

ভরা মৌসুমে দক্ষিণের জেলা ঝালকাঠি ও পিরোজপুরে পাইকারী ৫ থেকে ৭ টাকা কেজি মূল্যের পেয়ারা ঢাকার খুচরা বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৭০ টাকায়। যদিও ঝালকাঠি জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে পণ্য পরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধে তৎপর রয়েছে তারা।

দক্ষিণাঞ্চলের ঝালকাঠি ও পিরোজপুর জেলা জুড়ে এখন বাংলার আপেল খ্যাত পেয়ারার বেচাকেনা জমে উঠেছে। এখানকার ভিমরুলী, শতদাশকাঠিসহ বিভিন্ন গ্রামের ভাসমান হাট থেকে ঢাকা-চট্টগ্রামসহ সারা দেশে মিষ্ট জাতের এই দেশি পেয়ারা সরবরাহ হচ্ছে। দূর-দূরান্তের পাইকাররা প্রতিদিন সড়ক ও নৌ-পথে এখান থেকে পেয়ারা কিনে দেশের বিভিন্ন জেলায় আড়তে বিক্রি করছেন।

পথে পথে চাঁদাবাজি, আকাশ ছুঁয়েছে পেয়ারার দাম
কার্টুনভর্তি এই পেয়ারা যাবে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে।

কিন্তু পাইকার ও ট্রাক চালকদের অভিযোগ, পেয়ারা পরিবহনে বরিশালের ভূরঘাটা থেকে পথে পথে চলে চাঁদাবাজি। সড়কে পুলিশকে ১০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত বিটমানি কিংবা চাঁদা দিতে হয়। ফেরিঘাটেও চাঁদা দিতে হয় স্থানীয় দালালদের। ফলে দুই থেকে তিনশ টাকা মণ দরে গ্রামের হাটের পেয়ারা ঢাকা-চট্টগ্রামের পাইকারি বাজারে বিক্রি হয় হাজার টাকায়। খুচরা পর্যায়ে গ্রামের ৫ থেকে ৭ টাকা কেজির পেয়ারা রাজধানীসহ দেশের অন্যান্য শহরে বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৫০ টাকারও বেশি দামে।

সুশান্ত দাস নামে এক পিকআপ চালক বলেন, রাস্তায় পুলিশকে ১০০ টাকা দিলে নিতে চায় না, ৫০০ টাকা দিতে হয়।

যদিও জেলা পুলিশের এক শীর্ষ কর্মকর্তা জানান, ঝালকাঠি সীমানায় পেয়ারাসহ অন্যান্য পণ্য পরিবহনে কঠোরভাবে ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ন্ত্রণ করা হচ্ছে। এ জেলায় কোনোভাবেই কেউ পণ্য পরিবহনে হয়রানি হয় না। তবে অন্যত্র কেউ হয়রানি হলে তা সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জানানোর পরামর্শ দেন তিনি।

পথে পথে চাঁদাবাজি, আকাশ ছুঁয়েছে পেয়ারার দাম
চাষিরা নৌকায় করে পেয়ারা নিয়ে যাচ্ছেন হাটে।

জেলা পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিন বলেন, ট্রাফিক পুলিশ সর্বদা সতর্ক রয়েছে। ঝালকাঠি থেকে পেয়ার পরিবহনে কেউ কোনো সমস্যায় পড়বেন না।

কৃষি বিভাগ জানিয়েছে এ বছর বরিশাল বিভাগে মোট ৩ হাজার ৩২০ হেক্টরে দেশি জাতের পেয়ারার চাষ হয়েছে। এবার শ্রাবণ ও ভাদ্র এই দু’মাসে সাড়ে ৩৯ হাজার মেট্রিক টন পেয়ারার উৎপাদন হবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফসল

সরিষা ফুলে ছেয়ে গেছে ফসলের মাঠ

সরিষা ফুলে ছেয়ে গেছে ফসলের মাঠ
সরিষা ফুলে ছেয়ে গেছে ফসলের মাঠ

সরিষার হলুদ ফুলে ছেয়ে গেছে দিগন্ত জোড়া ফসলের মাঠ। অগ্রহায়ণের হিমেল বাতাসে দোল খাচ্ছে হলুদ সরিষার ফুল। সরিষা ফুলের হলুদ রাজ্যে মৌমাছির গুঞ্জনে মুখরিত যেমন মাঠ, তেমনি বাম্পার ফলনের হাতছানিতে কৃষকের চোখেমুখে ফুটে উঠেছে আনন্দের হাসি। যেন সরিষার হলুদ হাসিতে স্বপ্ন দেখছে কৃষক।

চলতি মৌসুমে যশোরের শার্শা উপজেলায় রেকর্ড পরিমাণ জমিতে উন্নত জাতের সরিষা চাষ হয়েছে। বেড়ে ওঠা গাছ আর ফুল দেখে বেশি ফলনের স্বপ্ন দেখছেন উপজেলার কৃষকরা। গত বছর স্থানীয় বাজারে উন্নত জাতের সরিষার দাম ভালো পাওয়ায় কৃষকরা এবারও সরিষা চাষে বেশি আগ্রহী হয়ে পড়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এ বছর প্রত্যেক চাষি বেশি মুনাফা লাভ করবে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, শার্শা উপজেলা সরিষা চাষের জন্য খুবই উপযোগী। চলতি মৌসুমে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ১ হাজার ৫শ’ হেক্টর জমিতে সরিষা চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। যা গতবারের চেয়ে ২শ’ হেক্টর বেশি। গত মৌসুমে চাষ হয়েছিল ১ হাজার ২শ’ হেক্টর জমিতে। কৃষকরা অধিকাংশ জমিতে উচ্চ ফলনশীল (উফশী) বারি-১৪, বারি-৯, বিনা-৯/১০, সরিষা-১৫, সোনালি সরিষা (এসএস-৭৫) ও স্থানীয় টরি-৭ আবাদ করে।

সরিষা ফুলে ছেয়ে গেছে ফসলের মাঠ
সরিষা ফুলে ছেয়ে গেছে ফসলের মাঠ

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বছরের পর বছর স্থানীয় জাত চাষ করে ফলন কম হওয়া ও উৎপাদনে সময় বেশি লাগার কারণে কৃষকরা সরিষা চাষ অনেকাংশে কমিয়ে দেয়। তবে চলতি মৌসুমের শুরুতে উপজেলা কৃষি বিভাগ ‘বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট’ উদ্ভাবিত বেশি ফলনশীল বারি-১৪ জাতের সরিষা চাষে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করে। এ জাতের সরিষা মাত্র ৭৫-৮০ দিনে ঘরে তোলা যায়। প্রতি হেক্টরে ফলন হয় প্রায় দেড় হাজার কেজি। সরিষা কেটে ওই জমিতে আবার বোরো আবাদ করা যায়। এতে কৃষি জমির সর্বাধিক ব্যবহার নিশ্চিত হয়।

উপজেলার শ্যামলাগাছি গ্রামের সরিষা চাষি নজরুল ইসলাম জানান, তিনি এ বছর ২ বিঘা জমিতে বারি-১৪ ও বিনা-৯/১০ জাতের সরিষার আবাদ করেছেন। বিঘাপ্রতি তার প্রায় ৩-৪ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। সরিষা ভালো হয়েছে। তিনি আশা করছেন বাম্পার ফলন হবে।

একই গ্রামের কৃষক আফজাল শেখ জানান, গত বছর বাজারে সরিষার দাম ভালো পাওয়ায় এবারও সরিষা চাষ করেছেন। ফলন ভালো ও দাম পেলে আগামী বছর সরিষা চাষে অনেকেই ঝুঁকে পড়বেন।

সরিষা ফুলে ছেয়ে গেছে ফসলের মাঠ
সরিষা ফুলে ছেয়ে গেছে ফসলের মাঠ

উপজেলার ঘিবা গ্রামের কৃষক মহিউদ্দিন জানান, কৃষি অফিসের পরামর্শে ২ বিঘা জমিতে উন্নত জাতের সরিষার আবাদ করেছেন। সরিষার জমিতে ধানের আবাদও ভালো হয় এবং বোরো চাষে খরচ কম হয়।

শার্শা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সৌতম কুমার শীল জানান, কৃষকদের যথাযথ পরামর্শ ও পরিচর্যার বিষয়ে দিক নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে। বারি-১৪ সহ অন্যান্য সরিষা বপনের মাত্র ৭৫-৮০ দিনের মধ্যে এর ফলন পাওয়া যায়। এ সরিষা উঠিয়ে আবার বোরো আবাদ করতে পারেন বলে একে কৃষকরা ‘লাভের ফসল’ হিসেবে অভিহিত করে থাকেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

করোনা পরবর্তী খাদ্যনিরাপত্তা, পুষ্টি ভাবনা ও করণীয়

করোনা পরবর্তী খাদ্যনিরাপত্তা, পুষ্টি ভাবনা ও করণীয়
ড. মো. মনিরুল ইসলাম

বাংলাদেশ কৃষিনির্ভর দেশ। সামগ্রিক অর্থনীতিতে কৃষির উপখাতসমূহ যথা শস্য বা ফসল উপখাত, প্রাণিসম্পদ উপখাত, মৎস্য সম্পদ উপখাত ও বনজসম্পদ উপখাত প্রত্যেকটিরই খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তার জন্য গুরুত্ব অপরিসীম। সরকারের নানামুখী পদক্ষেপ, কৃষিবিজ্ঞানীদের নব নব প্রযুক্তি উদ্ভাবন, কৃষকের ঘাম ঝরানো পরিশ্রম ও বেসরকারি খাতের কৃষিতে বিনিয়োগ সামগ্রিক কৃষির সফলতার অন্যতম কারণ। বাংলাদেশ এখন দানাদার খাদশস্য উৎপাদনে স্বয়ম্বর। তাছাড়া ইতোমধ্যে ধান উৎপাদনে এক ধাপ এগিয়ে বিশ্বে তৃতীয় উৎপাদনকারী দেশ হিসেবে স্থান করে নিয়েছে। তবে নানা ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ, খরা-বন্যা, অতিবৃষ্টি-অনাবৃষ্টি, ঝড়-জলোচ্ছ্বাস কৃষি উৎপাদনে বড় অন্তরায়।

উপরন্তু এ বছর বিশ্বব্যাপী করোনার আঘাত দেশের কৃষির জন্য অশনিসংকেত হয়ে দাঁড়িয়েছে। সামনের চ্যালেঞ্জ হলো নির্বিঘ্ন খাদ্য উৎপাদন ও সরবরাহ নিশ্চিতকরণ, পণ্যের নায্যমূল্য ও পাশাপাশি সবার জন্য পুষ্টিকর খাবার নিশ্চিতকরণ। কোভিড-১৯ বা করোনার কারণে লকডাউন ঘোষণা করায় খাদ্য উৎপাদনে ব্যাঘাত না ঘটলেও পরিবহন সমস্যাও ক্রেতার অভাব উৎপাদিত পণ্য বিশেষ করে পোল্ট্রি, দুধ, ফল-শাক-সবজি প্রতিটি পণ্য পরিবহনের জটিলতায় বাজারজাতকরণ সমস্যা, ক্রেতাশূন্য বাজারে পণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যহ্রাসের কারণে উৎপাদিত ফসল কৃষকের গলায় ফাঁস হয়ে দাঁড়িয়েছে। যদিও সরকারের তাৎক্ষণিক বিভিন্ন পদক্ষেপ বিশেষ করে কৃষিখাতে প্রণোদনা ও সুযোগ্য কৃষিমন্ত্রীর সার্বক্ষণিক মাঠপর্যায়ে তদারকি ও সমস্যা চিহ্নিতকরণের মাধ্যমে এসব সমস্যা সমাধানে দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের ফলে সমস্যা অনেকটাই কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়েছে।

বোরো ধানের বাম্পার ফলন, সঠিক সময়ে ধানকাটা সম্পন্ন করার ফলে খাদ্য ঘাটতির আশঙ্কা অনেকটাই সামাল দেয়া গেছে। কিন্তু তার বিপরীতে হঠাৎ করে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের কারণে দেশের বিভিন্ন এলাকায় অর্থকরী মৌসুমি ফল আম ও লিচুর ব্যাপক ক্ষতি (ক্ষেত্রবিশেষে ১০-৭০ ভাগ) হয়ে গেল। ফলে এতে এককভাবে চাষিরাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তা নয়, এ ধরনের ক্ষয়ক্ষতির ফলে দেশের সামগ্রিক অর্থনীতির ওপর বিরাট চাপ সৃষ্টি হয়েছে। তাই করোনা পরবর্তী সময়ে খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণ সরকারের অগ্রাধিকার এজেন্ডা ও চ্যালেঞ্জ।

জীবনধারণের জন্য যেমন খাদ্য অত্যাবশ্যক, আবার সুস্থভাবে বেঁচে থাকার জন্য নিরাপদ, পুষ্টিমান সম্পন্ন ও সুষম খাবার গ্রহণ প্রয়োজন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু এ বিষয়টি বেশ ভালোভাবেই উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন। তিনি অনুধাবন করতে পেরেছিলেন পুষ্টিহীন জাতি মেধাশূন্য আর মেধাশূন্য জাতি যেকোনো দেশের জন্য বিরাট বোঝা। তাই ১৯৭৩ সানে কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি মানুষের পুষ্টিমান উন্নয়নে বাংলাদেশ ন্যাশনাল নিউট্রিশন কাউন্সিল (বিএনএনসি) গঠন করেছিলেন। মাঝপথে এর কার্যক্রম বন্ধ হয়ে গেলেও মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি সরকার গঠন করার পর প্রধানমন্ত্রী তা আবার পুনরুজ্জীবিত করেন।

আমরা সকলেই জানি খাদ্যের প্রয়োজনীতা অনুযায়ী বিভিন্ন খাদ্যকে সাধারণত তিন শ্রেণিতে ভাগ করা হয়েছে ১). শক্তিদায়ক খাবার, যেমন শর্করা বা কর্বোহাইড্রেট; যা আমরা ভাত, গম, ভুট্টা, আলু ইত্যাদি হতে পাই; ২). শরীর বৃদ্ধিকারক ও ক্ষয়পূরক খাবার, যেমন প্রোটিন বা আমিষ, যা আমরা ছোট মাছ, বড় মাছ, মাংস, দুধ ইত্যাদি হতে পাই ও ৩). রোগ-প্রতিরোধকারী খাবার, যেমন ভিটামিন ও মিনারেল, যা আমরা একমাত্র শাক-সবজি ও ফলমূল হতে পেয়ে থাকি।

সে প্রেক্ষিতে সমাজের সকল স্তরের মানুষের মাঝে পুষ্টিকর ও সুষম খাবার গ্রহণে জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে পুষ্টি ইউনিট, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল ‘ফুড প্লেট’ তৈরি করেছে যা অব্যাহতভাবে প্রশিক্ষণ ও কর্মশালার মাধ্যমে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের মাঝে বিতরণ করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য যে, জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য সংস্থা (এফএও) ও ডায়েটারি গাইডলাইনস অব বাংলাদেশের সুপারিশ অনুযায়ী, একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দৈনিক ১০০ গ্রাম শাক, ২০০ গ্রাম অন্যান্য সবজি ও ১০০ গ্রাম ফল খাওয়া প্রয়োজন। অথচ এখনও গড়ে দেশের মানুষ প্রতিদিন মাত্র ১২৫ গ্রাম সবজি ও প্রায় ৮০ গ্রাম ফল খেয়ে থাকে (এফএও স্ট্যাট, ২০১২)। অথচ কর্মক্ষম ও সুস্থভাবে বাঁচার জন্য ফল ও সবজি প্রাত্যহিক খাবার তালিকায় অপরিহার্য। কেননা ফল ও শাক-সবজিতে প্রচুর পরিমাণে পানি, অত্যাবশকীয় ভিটামিন, মিনারেল, ডায়েটারি ফাইবার, ফাইটোনিউট্রিয়েন্ট ও কিছুু পরিমাণ শর্করা বিদ্যমান।

তাছাড়া প্রতিদিন পরিমাণমতো শাক-সবজি ও ফল খাওয়ার ফলে বিভিন্ন প্রাণঘাতী রোগ যেমন: ক্যান্সার, হার্ট ডিজিস, টাইপ-২ ডায়াবেটিস, স্ট্রোকসহ বিভিন্ন অসংক্রামক রোগের প্রাদুর্ভাব কমায়। শাক-সবজি হতে প্রাপ্ত ভিটামিন ও মিনারেল দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা (ইমিউনিটি) বৃদ্ধি করে, ফলে পরিমিত পরিমাণে নিয়মিত ফল ও শাক-সবজি খেলে একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের যেমনই বছরে সুস্থ দিনের সংখ্যা বেড়ে যায়, তেমনি বাড়ে বাৎসরিক আয়।

বলা অত্যাবশ্যক যে পটাশিয়াম মানবদেহের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে; আঁশ শরীরের কোলেস্টেরলসহ অন্যান্য দূষিত পদার্থ শরীর থেকে বের করে আনতে সহায়তা করে ও রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। ফল শরীরের লোহিত রক্তকণিকা (হিমোগ্লোবিন) তৈরি করে এবং শিশুদের জন্মগত ত্রুটি রোধ করে। ভিটামিন চোখের জ্যোতি ও মসৃণ ত্বকের জন্য অতি প্রয়োজনীয় ও কার্যকর। ভিটামিন ই বার্ধক্য রোধে, ভিটামিন সি শরীরের রক্তপাত রোধ, স্বাস্থ্যকর দাঁতের মাড়ি ও শরীরে অয়রন শোষণে ভূমিকা রাখে।

বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। পাশাপাশি দেশের সার্বিক পুষ্টি পরিস্থিতির উল্লেখযোগ্য উন্নয়ন ঘটলেও বিরাট জনগোষ্ঠী এখনও অপুষ্টির শিকার। যা করোনা পরবর্তীতে আরও ব্যাপকতা লাভ করতে পারে। অপুষ্টিজনিত সমস্যার মধ্যে অন্যতম হলো রক্তস্বল্পতা; যা মূলত আয়রনজনিত ঘাটতিকেই বুঝায়। প্রয়োজনীয় ও পরিমাণমতো খাবার, বিশেষ করে আয়রনসমৃদ্ধ খাবার গ্রহণের স্বল্পতায় শিশু, কিশোর-কিশোরী, গর্ভবতী ও প্রসুতি মায়েরা বেশি আক্রান্ত।

তাই করোনা পরবর্তী পুষ্টিনিরাপত্তার জন্য সুনির্দিষ্টভাবে কিছু পরিকল্পনার মাধ্যমে এগোতে হবে। ইতোমধ্যে বিভিন্ন দেশের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে যে, অন্যান্য যত কারণই থাকুক না কেন? কোভিড প্রতিরোধে দেহের রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা যাদের বেশি তাদের ক্ষেত্রে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভানা বেশ কম এবং অথবা কেউ আক্রান্ত হলেও তা জটিল আকার ধারণ করেনি বা করে না। বিগত দশকে মানুষের আর্থ সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন, ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধি, সর্বোপরি পেশাগত কর্মব্যস্ততার ফলে মানুষের খাদ্যাভ্যাসের ব্যাপক পরিবর্তন গঠেছে।

অনেকেরই ধারণা দামি খাবার ছাড়া পুষ্টি পাওয়া যায় না, যা সম্পূর্ণ ভুল। আমাদের দেশের কৃষি খুবই বৈচিত্র্যময়। প্রতিটি নানা জাতের প্রচলিত-অপ্রচলিত ফল-সবজি কোনো না কোনো ধরনের পুষ্টির আধার। বিশ্বের প্রায় ৮০ ভাগ খাবার এখন প্রক্রিয়াজাত, যা খুব একটা স্বাস্থ্যকর নয়। তবে এটা ঠিক প্রক্রিয়াজাত খাবার স্বাভাবিক কারণেই পুরোপুরি বাদ দেয়াও অসম্ভব। তবে পরিমিত খাওয়া যেতেই পারে। কিন্তু সবচেয়ে উদ্বেগের বিষয়টি হলো, বর্তমানে প্রায় ৮০-৯০ ভাগ ছেলেমেয়ে ফল-সবজি খেতে চায় না বা খেতে অনীহা, এমনকি মাছও অনেকেরই অপছন্দ। সারাবিশ্বে ফাস্ট ফুড খাওয়ার ফলে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়া, স্থূলতা, ডায়াবেটিস, হার্ট অ্যাটাক, উচ্চরক্তচাপের মতো অসংক্রামক রোগগুলো হু হু করে বেড়েই চলেছে। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়।

অপরদিকে অধিকতর পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন থাকার অভ্যাসের ফলে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ছাড়াও এলার্জির মতো অসুখে ভোগা মানুষের সংখ্যাও ক্রমবর্ধমান। সে জন্য সুষম ও পুষ্টিকর তথা বৈচিত্র্যময় খাবার খাওয়ার কোনো বিকল্প নেই। সে জন্য পরিবার পর্যায়ে, স্কুল-কলেজ, বিশ্বদ্যিালয়, মাদরাসা, এতিমখানা, মসজিদ-মন্দিরে পুষ্টিকর খাবার বিষয়ে সচেতনতা বাড়ানোর নিমিত্ত ব্যাপক কার্যকর কর্মসূচি বা উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। অন্যদিকে নিম্ন আয়ের ও কর্মহীন মানুষদের কোভিড-১৯ পরবর্তী পুষ্টির বিষয়টি সরকার কর্তৃক বিশেষভাবে নজর দিতে হবে। নতুবা কর্মশক্তির ঘাটতি সৃষ্টি হতে পারে। এক্ষেত্রে তাই বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষের জন্য বিভিন্ন প্রকার খাবার তালিকা বা মেন্যু নির্ধারণ করে প্রচার প্রচারণা চালানোসহ সচেতন করতে হবে। করোনা পরবর্তী নিম্ন আয়ের লোকদের আপদকালীন বা একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত পুষ্টি সুরক্ষায় ও কর্মক্ষম রাখতে দামে সস্তা, সহজলভ্য অথচ পুষ্টিগুণে ভরপুর- এ ধরনের খাবার আমলে বা নির্বাচনে পরামর্শ প্রদান করতে হবে, যা থেকে সর্বোচ্চ পুষ্টি উপাদান পাওয়া যাবে। যেমন-

মেন্যু-১
পান্তা ভাত, ডাল ভর্তা, ডিম ভর্তা;
মেনু- ২
পান্তা ভাত, মিষ্টি আলু ভর্তা, ডাল ভর্তা (সঙ্গে টুকরো লেবু রাখতে পারলে ভালো, এতে আয়রন শোষণ ভালো হবে)।

এগুলো সস্তা, সহজলভ্য অথচ পুষ্টিসমৃদ্ধ (প্রয়োজনীয় শর্করাসহ পান্তা ভাত হতে প্রচুর পরিমাণ আয়রন, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম পাওয়া যাবে এবং পান্তা ভাত হচ্ছে বি ভিটামিনের আধার (ভিটামিন বি১, বি২, বি৩, বি৫, বি৬, বি৯ ও বি১২ উল্লেখযোগ্য)। গবেষণাগারে পরীক্ষায় দেখা গেছে যে, ১০০ গ্রাম পান্তা ভাতে চালের প্রকারভেদে সাধারণ ভাতের চেয়ে সর্বোচ্চ ৫৫.৮৩% আয়রন এবং ৪৯২% ক্যালসিয়াম বেশি পাওয়া যায়। তাছাড়া ভর্তায় ব্যবহৃত তেল, ডিম, পেঁয়াজ হতে প্রয়োজনীয় চর্বি, ফাইবার, ফলেট, জিংক, ভিটামিন-ডি, ভিটামিন-এ, বি-২ সহ অন্যান্য অণু পুষ্টি কণা মিলবে। ডাল হতে প্রয়োজনীয় প্রোটিনও মিলবে। এমনকি আপদকালীন শাক-সবজি পাতে যোগ না করতে পারলেও প্রায় বেশিরভাগ প্রয়োজনীয় পরিমাণ শর্করা, প্রোটিন ও গুরুত্বপূর্ণ অণুপুষ্টি উপাদানসমূহ উল্লিখিত মেন্যু হতে পাওয়া যাবে। তাই দামি খাবার নয় প্রত্যেক শ্রেণির মানুষের জন্য খাদ্য নির্বাচনে সর্তকতা জরুরি।

অপরদিকে প্রধানমন্ত্রী যথার্থই ঘোষণা দিয়েছেন খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধিতে এক ইঞ্চি জমিও পতিত রাখা যাবে না। ঠিক তেমনিভাবে খাদ্য অপচয় ও পুষ্টি অপচয় রোধ করতে ভোক্তা সাধারণেরও কৌশলী বা সচেতনতা জরুরি। আমরা যা খাদ্য হিসেবে গ্রহণ করি যেন সর্বোচ্চ পুষ্টির ব্যবহার হয়, সে জন্য সচেষ্ট হতে হবে। অনেকেরই জানা নেই অনেক ফল-সবজির খোসাতে বেশি পরিমাণ পুষ্টি উপাদান বিদ্যমান। সে জন্য যেসব ফল-সবজি খোসাসহ খাওয়া যায় তা খোসা না ফেলে খেতে হবে। বিভিন্ন ফল-সবজি যেমন আপেল, কলা, শসা, বেগুন, লাউ, কুমড়া, আলু পুষ্টিতে ভরপুর; তেমনি এসব স্বাস্থ্যকর ফল বা সবজির খোসাও অনেক উপকারী। এখন দেখে নেয়া যাক উল্লেখযোগ্য ফল-সবজির খোসার পুষ্টি গুণাগুণ।

আপেলের খোসার গুণাগুণ
আপেলের অভ্যন্তরাংশের চেয়ে আপেলের খোসায় বা ছালে ফাইবারের পরিমাণ বেশি। ফাইবার বা আঁশ দীর্ঘ সময়ের জন্য পেট ভরা রাখতে সাহায্য করে, এতে বারবার খাওয়ার প্রবণতা কমে ও ক্যালরিও কম খাওয়া হয়। তাছাড়া ফাইবার হাড়, যকৃত সুস্থ রাখতে সাহায্য করে (কৃষি বিভাগ, ইউএসএ)। এছাড়া ও আপেলের খোসায় কুয়েরসেটিন নামের একটি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট আছে, যা হৃদপিণ্ড, ফুসফুস ও মস্তিষ্কের জন্য খুবই উপকারী।

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, আপেলের খোসায় থাকে প্রচুর পরিমাণ পলিফেনল যেমন- পেকটিন। এই পেকটিন হলো এক ধরনের ফাইবার যা কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করতে সাহায্য করে। একইসঙ্গে পেকটিন রক্তে সুগার আর কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতেও সাহায্য করে। আপেলের খোসায় ভিটামিন এ, সি এবং কে রয়েছে। তাছাড়া পটাশিয়াম, ফসফরাস ও ক্যালসিয়ামের মতো অপরিহার্য খনিজও রয়েছে, যা শরীরের জন্য খুবই উপকারী।

শসার খোসা
শসার খোসায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান, পটাসিয়াম আর ভিটামিন কে। তাই শসার খোসা ফেলে না দিয়ে খোসাসহ খাওয়া বেশি উপকারী।

লাউ বা কুমড়ার খোসা
লাউয়ের খোসায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে জিঙ্ক, যা ত্বককে সতেজ রাখে। বাড়ায় ত্বকের উজ্জ্বলতাও। লাউয়ের খোসা আলাদা করে ভাজি হিসেবেও খাওয়া যায়।

বেগুনের খোসা
বেগুনের খোসায় রয়েছে ‘নাসুনিন’ নামের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা অ্যান্টি-এজিংয়ে সহায়ক। এছাড়াও বেগুনের খোসা ত্বককে সতেজ রেখে উজ্জ্বলতা বাড়াতে সাহায্য করে।

কলার খোসা
কলার খোসায় রয়েছে লুটেন নামক অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট যা দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে সাহায্য করে। কলার খোসায় থাকা ট্রিপটোফ্যান শরীরে সেরোটনিনের মাত্রা বাড়াতে সাহায্য করে। আর এই সেরোটনিন মন মেজাজ ভালো রাখতে সাহায্য করে।

তরমুজের খোসা
রসাল তরমুজের পুরু ও শক্ত খোসায় ‘এল সাইট্রোলিন’ নামের অ্যামাইনো এসিড আছে। এই অ্যামাইনো এসিড শরীর চর্চা ও খেলাধুলায় দক্ষতা বাড়াতে এবং বিশেষত মাংসপেশীর ব্যথা কমাতে বা এর নমনীয়তা বাড়াতে সহায়তা করে। রক্ত থেকে নাইট্রোজেন দূর করতেও সহায়তা করে এই ’সাইট্রোলিন’ (যুক্তরাষ্ট্রের ইউএসডিএ’ কৃষি গবেষণা সংস্থা ২০০৩)।

আলুর খোসার গুণাগুণ
আলু এমন একটি সবজি যেকোনো তরকারিতেই ব্যবহার করা যায়। কিন্তু বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই আমরা আলুর খোসা ফেলে দেই। কিন্তু অনেকের ধারণা নেই যে আলুর খোসায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণ আয়রন আর পটাসিয়াম। এছাড়াও এতে রয়েছে ভিটামিন বি, সি এবং প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান। তাই সর্বোচ্চ পুষ্টি পেতে আলু খেতে হবে খোসাসহ।

প্রথম উপকারিতা : আলুর খোসায় প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম এবং মিনারেল রয়েছে। যা শরীরের রাসায়ানিক প্রক্রিয়াকে উন্নত করে। পটাশিয়াম আমাদের স্নায়ুতন্ত্রকে সচল রাখার ক্ষেত্রে অত্যন্ত উপকারী। এক একটি আলুর খোসা থেকে আমরা ৬০০ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম পেতে পারি। যা আমাদের শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

দ্বিতীয় উপকারিতা : মানুষের প্রতিদিন অত্যন্ত পক্ষে ১৬ মিলিগ্রাম করে নিয়াসিন শরীরের জন্য প্রয়োজন। শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় এই নিয়াসিন সহজেই পাওয়া যেতে পারে আলুর খোসা থেকে। নিয়াসিন শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

তৃতীয় উপকারিতা : আলু থেকে আমরা প্রোটিন, ভিটামিন, মিনারেল এবং কার্বোহাইড্রেট পাই। তেমনি আলুর খোসাতেও এসব উপাদান থাকে। তাই আলুর খোসা না ছাড়িয়ে খাওয়া হয়, তাহলে প্রোটিন, ভিটামিন, মিনারেল এবং কার্বোহাইড্রেট বেশি পরিমাণ পাওয়া যাবে। এতে শরীর আরও শক্তিশালী ও রোগপ্রতিরোধী হয়ে উঠবে।

চতুর্থ উপকারিতা : আয়রন হলো শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি উপাদান। আয়রণ দেহের রক্তকণিকার স্বাভাবিক কার্যপ্রণালীকে সক্রিয় রাখার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রত্যেক দিন ৩-৫টি খোসাসহ আলু খেলে শরীরে ৪ মিলিগ্রাম লোহা বা আয়রন জোগান দেবে।

পঞ্চম উপকারিতা : যাদের হজমশক্তি দুর্বল তাদের ক্ষেত্রে বিশেষ করে আলুর খোসা খাওয়া অত্যন্ত উপকারী। কারণ আলুর খোসায় প্রচুর পরিমাণ ফাইবার আছে। ফাইবার শরীরের হজমশক্তি বৃদ্ধি করে। আলুর খোসা গুরুপাক খাবারও সহজে হজম করতে সাহায্য করে।

ষষ্ঠ উপকারিতা : আলুর খোসায় প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকার ফলে হজমশক্তি বৃদ্ধির পাশাপাশি শরীরের অতিরিক্ত গ্লুকোজ শুষে নেয়। এতে আলুর খোসা শরীরের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রিত করতে সাহায্য করে। যদিও ডায়াবেটিস রোগীদের আলু খেতে নিষেধ; তবে আলু যদি খোসাসমেত সিদ্ধ করে পানি ফেলে দিয়ে রান্না করা হয় বা খাওয়া হয় তাতে খুব একটা ক্ষতি হয় না।

ফল ও পুষ্টি : রাসায়নিক ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ

অন্যদিকে কোনো গবেষণালব্ধ ফলাফল বা বিজ্ঞানভিত্তিক তথ্য-উপাত্ত ব্যতিরেকে কিছু গণমাধ্যম ও এক শ্রেণির সংগঠন বা ব্যক্তি কর্তৃক দুধ, মৌসুমি ফল, শাক-সবজিসহ মাছে ফরমালিন ব্যবহারের নেতিবাচক প্রচারণার ফলে কিছু মানুষ শুধু ফল খাওয়াই ছেড়ে দেয়নি, চাষপর্যায়ে আর্থিক ক্ষতিসহ রফতানি বাণিজ্যে দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে এবং হচ্ছে। সে জন্য জনসাধারণের জ্ঞাতার্থে জানোনো যাচ্ছে, আপনারা নির্ভয়ে ফল খান, দেশি-বিদেশি ফল (যেমন : আম, কলা, আনারস, লিচু, আপেল, কমলা, মাল্টা ইত্যাদি) সংরক্ষণে ফরমালিন ব্যবহার করা হয় না।

তাছাড়া কীটনাশক নিয়েও ভ্রান্ত ধারণা আছে, আধুনিক কৃষিতে কীটনাশক ব্যবহার ব্যতিরেকে চাষাবাদ কল্পনাতীত। কীটনাশকের শুধু ক্ষতিকর দিক নিয়েই বেশি আলোচনা করি, মনে রাখা দরকার কীটনাশক কিন্তু ফসলের অনেক ধরনের ক্ষতিকর ফাঙ্গাসসহ অন্যান্য ক্ষতিকর উপাদান বিনষ্ট করে খাদ্য নিরাপদ করার মাধ্যমে আমাদের সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। তাই নীরোগ ও সুস্থ থাকতে রোগ-প্রতিরোধ খাবার হিসেবে ফলমূল, শাক-সবজির কোনো বিকল্প নেই।

আমে রাসায়নিকের ব্যবহার

প্রতিটি আমের পরিপক্কতার একটি নির্দিষ্ট সময় আছে। তবে এখানে উল্লেখ করা প্রয়োজন যে বিশ্ব জলবায়ু দ্রুত পরিবর্তনশীল; তাই বছরভিত্তিক জলবায়ুর এ রূপ আচরণগত বৈশিষ্ট্যের কারণে/প্রভাবে উপরে উল্লিখিত পরিপক্কতার সময় ২-৫ দিন আগে বা পরে হতে পারে। উল্লেখ্য যে আম একটি ক্লাইমেকট্রিক ফল অর্থাৎ গাছ থেকে আহরণ/পাড়ার পরও পাকে। তাই বাস্তব অভিজ্ঞতায় দেখা গেছে, যেসব আম গাছে পাকে এগুলোর চেয়ে পূর্ণ পরিপক্কতা লাভকারী আম যদি ৫-৭ দিন পূর্বে গাছ থেকে আহরণ করা হয় অপেক্ষাকৃত সেসব আম গাছে পাকা আমের চেয়ে অধিক মিষ্ট হয়, সাথে কোনো প্রকার স্বাস্থ্যঝুঁকিও নেই। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ যেমন অস্ট্রেলিয়া, মিশর, ভারত, ফিলিপাইন, দক্ষিণ আফ্রিকা, সুদান, তাইওয়ান, যুক্তরাষ্ট্র, সেনেগাল, ইয়েমেন, মরক্কো প্রভৃতি দেশ বিভিন্ন ফল পাকাতে ইথোফেন ব্যবহার করে থাকে। তবে তারা ইথিলিন বা রাইপেনিং চেম্বার ব্যবহার করে থাকে। আমাদের দেশেও ইথিলিন চেম্বার স্থাপন অতীব জরুরি ও সময়ের দাবি।

বিদেশে রফতানির ক্ষেত্রেও পরিপূর্ণ পাকা আম শিপমেন্ট করা প্রায় অসম্ভব। তবে বেশি অপরিপক্ক আম আহরণ করে বাজারজাত করা হলে জরিমানা করা যুক্তিযুক্ত; কিন্তু আম ধ্বংস করা কোনোক্রমেই ঠিক নয়। কেননা অনেকে ক্ষেত্রেই পাকা আমের চেয়ে কাঁচা আম অধিকতর পুষ্টিসমৃদ্ধ। তবে প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা বিপদ আসবেই, হয়তো একেক সময় এক রূপে বা নানারূপে। দুর্যোগ মোকাবিলা করে এগিয়ে যাওয়াই হলো সফলতা বা কৃতিত্ব। যেমন- আম ঝড়ে পড়বেই, কিন্তু এসব মোকাবিলায় যাতে কিছুটা হলে তাৎক্ষণিক ক্ষতি কাটানো যায় সে জন্য কিছু পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে। যেমন ফল বা আম উৎপাদন এলাকার চাষিসহ স্থানীয় ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের নিয়মিত প্রত্রিয়াজাতকরণ (যেমন: আচার, আমসত্ব, ম্যাংগোবার, মোরোব্বা তৈরি ইত্যাদি) বিষয়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। তাছাড়া বিজ্ঞানীদের এ বিষয়ে গবেষণা কার্যক্রম বাড়াতে হবে।

আমে ক্যালসিয়াম কার্বাইডের ব্যবহার

ইথোফেন যেমন ইথিলিন গ্যাস নির্গমন করে, কার্বাইড তেমনি অ্যাসিটিলিন গ্যাস নির্গমন করে এবং একইভাবে ফল পাকায়। তবে কার্বাইড মূলত নিষিদ্ধ একটি রাসায়নিক। শিল্প-কারখানায় ব্যবহারের জন্য সীমিত আকারে কার্বাইড আমদানি করা হয়। অ্যানালাইটিক্যাল বা ল্যাবেরটরি গ্রেড কার্বাইডের উচ্চমূল্যের কারণে চোরাইপথে আসা ইন্ডাস্ট্রিয়াল গ্রেড কার্বাইড আমে ব্যবহার করা হয় এবং এতে সামান্য পরিমাণ ভারী ধাতু আর্সেনিক ও কিছু ফসফরাস থাকে। যেহেতু আর্সেনিক দেহের জন্য ক্ষতিকর বলে গণ্য করা হয় সে জন্য মৌসুমের পূর্বে বাজারজাতকৃত আম ক্রয় করা অনুচিত। মার্চ-এপ্রিল সময়ে যে সমস্ত আম পাওয়া যায় তার শতভাগ কার্বাইড দিয়ে পাকানো হয়। সে জন্য রাসায়নিকমুক্ত (কার্বাইডমুক্ত) পাকা আম খেতে ২৫ মের পূর্বে ক্রয় পরিহার করতে হবে এবং সরকার কর্তৃক মার্চ-এপ্রিল মাসে কোনো প্রকার আম যেন আমদানি না হয় সে জন্য এই দুই মাস এলসি বন্ধের ব্যবস্থা করতে হবে। কার্বাইড দিয়ে পাকানো আম খেলে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় মুখে ঘা ও ঠোট ফুলে যাওয়া, শরীরে চুলকানি, পেটব্যথা, ডায়রিয়া, পেপটিক আলসার, শ্বাসকষ্ট, মস্তিষ্কে পানিজমাজনিত প্রদাহ, মাথা ঘোরা, ঘুম ঘুম ভাব, মহিলাদের বিকলাঙ্গ শিশুর জন্ম ইত্যাদি সমস্যা দেখা দিতে পারে।

ফলে ফরমালিনের ব্যবহার

প্রকৃতপক্ষে, ফরমালিন হচ্ছে অতি উদ্বায়ী ও অতি দ্রবণীয় একটি বর্ণহীন ও ঝাঁঝালো গন্ধযুক্ত রাসায়নিক। ফলমূল শাক-সবজি হচ্ছে ফাইবার অর্থাৎ আঁশজাতীয় খাবার, তাই ফরমালিন ফল সংরক্ষণ বা পাকাতে কোনো ভূমিকা রাখে না। ফল-সবজিতে খুবই সামান্য প্রোটিন থাকায় ফরমালিন প্রয়োগ করা হলে কোনো বন্ডিং সৃষ্টি করে না, তা উবে চলে যায়। তাছাড়া ফলমূলে প্রাকৃতিকভাবেই নির্দিষ্ট মাত্রায় ফরমালিন (৩-৬০ মিলিগ্রাম/কেজি) বিদ্যমান থাকে। ইউরোপিয়ান ফুড সেফটি অথরিটির মতে, একজন মানুষ দৈনিক ১০০ পিপিএম পর্যন্ত ফরমালিন কোনো প্রকার স্বাস্থ্যঝুঁকি ছাড়াই গ্রহণ করতে পারে। অপরদিকে বহুল ব্যবহৃত জেড-৩০০ ফরমালডিহাইড মিটার-টি ছিল প্রকৃতপক্ষে বাতাসে ফরমালডিহাইড পরিমাপক। যদিও ক্রটিপূর্ণ বা অনুপযুক্ত মিটারের মাধ্যমে ফরমালিন পরীক্ষা করে সে সময় হাজার হাজার টন আমসহ অন্যান্য ফল ধ্বংস করা হয়েছিল।

ফল পাকানো এবং সংরক্ষণে ইথোফেনের ব্যবহার

ইথোফেন বিভিন্ন নামে পাওয়া যায়। তবে যে নামেই পাওয়া যাক না কেন এর মূল উপাদান হচ্ছে ২-ক্লোরো ইথাইল ফসফনিক এসিড। তবে আমাদের দেশে রাইপেনিং চেম্বার বা ইথিলিন চেম্বার না থাকায় ফলে পাকাতে উক্ত রাসায়নিক ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে বা স্প্রে করে ব্যবহার করা হয়। ফলে দেখা যায় যে এক্ষেত্রে সমভাবে টমেটো, কলা, পেঁপে বা আম একই রং ধারণ করে না। অন্যদিকে উন্নত বিশ্বে রাইপেনিং চেম্বার ব্যবহার করে ইথোপেন গ্যাস আকারে ব্যবহারের ফলে সেসব ফল পুরোপুরি একই রংয়ের বা জমজ ভাইবোনের মতো দেখতে মনে হয়। তবে পাকানোর পদ্ধতিগত পার্থক্য থাকলেও এতে কোনো স্বাস্থ্যঝুঁকি নেই।

ইথোফেন একটি বিশ্ব সমাদৃত ও বহুল ব্যবহৃত অত্যন্ত নিরাপদ রাসায়নিক যা ফলে প্রাকৃতিকভাবেই বিদ্যমান থাকে। সে জন্য, ফল পরিপক্কতা লাভের সময়ে বিভিন্ন ফলে সামান্য পরিমাণ ইথোফেন গ্যাস তৈরি হয়; ফলশ্রুতিতে ফলের অভ্যন্তরে বিদ্যমান অনেকগুলো জিন তড়িৎ সচল হয়। তখন ফলের রং পরিবর্তন, মিষ্টতা ও গঠনবিন্যাসে পরিবর্তন আসে এবং ফল পাকতে শুরু করে। কৃষকের মাঠ হতে সংগ্রহকৃত নমুনা, বাজারজাত পর্যায়ের নমুনা ও গবেষণাগারে বিভিন্ন মাত্রায় ইথোফেন (২৫০-১০০০০ পিপিএম) সরাসরি স্প্রে করার পর সকল পরীক্ষায় দেখা গেছে যে ইথোফেন প্রয়োগের অব্যাহতি পর হতেই প্রয়োগকৃত ফলের দেহ থেকে তা দ্রুত বের হয়ে যায় এবং ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই তা কোডেক্স এলিমেন্টারি কমিশন (এফএও/ডব্লিউএইচও) কর্তৃক মানবদেহের জন্য নির্ধারিত সর্বোচ্চ গ্রহনীয় মাত্রার (এমআরএল২ পিপিএম) বেশ নিচে চলে আসে।

আরও উল্লেখ্য যে, শুধু মানবদেহের জন্য নির্ধারিত গ্রহণযোগ্য সর্বোচ্চ সহনীয় মাত্রা ছাড়াও এর মাত্রার ওপরেও ইথোফেনের ক্ষতিকর প্রভাব নির্ভর করে। কোডেক্স/এফএসএসএআইয়ের সুপারিশ মোতাবেক একজন মানুষ কোনো প্রকার স্বাস্থ্যঝুঁকি ছাড়া তার প্রতি কেজি দৈহিক ওজনের বিপরীতে প্রতিদিন ০.০৫ পিপিএম গ্রহণ করতে পারে। অর্থাৎ যদি একজন মানুষের ওজন ৬০ কেজি হয় তাহলে সে সর্বোচ্চ (৬০*০.০৫) ৩ পিপিএম ইথোফেন প্রতিদিন গ্রহণ করতে পারবে। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, যদি কোনো ফলে প্রতি কেজিতে ০.৫০ পিপিএম ইথোফেন অবশিষ্টাংশ পাওয়া যায়, তাহলে কোনো ব্যক্তিকে ন্যূনতম দৈনিক ৬ কেজি ফল খেতে হবে।

আমদানিকৃত আপেল

অন্যান্য ফলের ন্যায় আপেলেও ফরমালিন ব্যবহার করা হয় না। তবে আমদানিকৃত আপেল দীর্ঘদিন সতেজ রাখার জন্য সাধারণত ফুডগ্রেড বা ইডিব্ল (তরল ও কঠিন) প্যারাফিন প্রয়োগ করা হয়। কঠিন বা তরল প্যারাফিন যেকোনো মাত্রায় খাদ্যের সাথে মানবদেহে প্রবেশ করলেও তা কোনো ক্ষতিকর বিক্রিয়ায় অংশগ্রহণ করে না বা হজম প্রক্রিয়ায় অন্তর্ভুক্ত হয় না, ফলে এটি সম্পূর্ণ অপরিবর্তিত অবস্থায় পুনরায় শরীর হতে বেরিয়ে যায়। সুতরাং এসব মোমযুক্ত/প্যারাফিনযুক্ত আমদানিকৃত আপেল ভক্ষণ নিরাপদ। আরও উল্লেখ্য যে বিজ্ঞানীরা প্রতিনিয়ত নব নব উদ্ভাবনের মাধ্যমে শুধু খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়। পণ্যের মান বৃদ্ধি ও পচনকে দীর্ঘায়িত করার জন্য নব নব বিভিন্ন প্রযুক্তিও উদ্ভাবন করে চলেছে। বর্তমানে প্যারাফিন ওয়াক্সের পাশাপাশি কৃষিজ উপজাত যেমন ফলমূলের খোসা, কাণ্ড, পাতা, গাছের প্রাকৃতিক নির্যাস ব্যবহার করে অত্যন্ত পাতলা অবরণ সমৃদ্ধ ফিল্ম তৈরি করে আপেলসহ অন্যন্য ফলের গায়ে ওয়াক্স হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এ ধরনের ওয়াক্স একদিকে যেমন ফলকে সতেজ রাখতে সাহায্য করছে তেমনি পরিবেশকে দূষণের হাত থেকে রক্ষা করছে।

হর্টিকালচার ক্রপস তথা ফল-সবজিতে ক্ষেত্রভেদে ৪০-৯৮ ভাগ পানি বিদ্যমান থাকে। তাই ব্যাপকভাবে যাতে ওজন হ্রাস না হয়, সে জন্য ওয়াক্স ব্যবহার করা হয়। উল্লেখ্য যে প্রকার/জাত ভেদে ‘হর্টিকালচার ক্রপ’ এর ক্ষেত্রে প্রতিদিন ৫-১০ গ্রাম ওজন কমে। তাছাড়া চকচকে-তকতকে ভাব বজায়, ফাঙ্গাস/ছত্রাকের আক্রমণ থেকে রক্ষা, দীর্ঘদিন সংরক্ষণ, কোল্ড স্টোরেজে সংরক্ষণকালীন সংবেদনশীলতা রোধ, আর্দ্রতার অপচয় রোধ ও অন্যান্য বাহ্যিক আঘাত রোধসহ রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণুরোধ করার জন্য ইডিব্ল প্যারাফিন ওয়াক্স বা ইডিপিল ব্যবহার করা হয়। আপেলে ব্যবহৃত ওয়াক্স একটি খাওয়ার যোগ্য মোম, এতে কোনো স্বাস্থ্যঝুঁকি নেই।

বাজারে প্রাপ্ত আঙ্গুর

বাজারে প্রাপ্ত আমদানিকৃত আঙ্গুর নিয়েও মানুষের মাঝে অস্থিরতা বিরাজমান। পূর্বেই উল্লেখ করা হয়েছে যে, আধুনিক কৃষি ও কৃষিপণ্য কীটনাশক ও প্রিজারভেটিভস ব্যবহার ছাড়া উৎপাদন, বাজারজাতকরণ ও সংরক্ষণ করা প্রায় অসম্ভব। মানুষ জ্বর-সর্দি-কাশি বা জীবাণু দ্বারা আক্রান্ত হলে যেমনি ওষুধ খাওয়ার প্রয়োজন হয়; তেমনি ফসলের পোকামাকড় দমন, ছত্রাকের আক্রমণরোধ ও নির্দিষ্ট সময়ান্তে সতেজ রাখার জন্য প্রিজারভেটিভস প্রয়োজন। আঙ্গুরে মূলত ছত্রাকনাশক ব্যবহার করা হয়; এর কার্যক্ষমতা বেশি সময় থাকে না, খাওয়ার পূর্বে ভালোভাবে ধুয়ে নিলে কোনো স্বাস্থ্যঝুঁকিও থাকে না। তাছাড়া শিপমেন্টের পূর্বে সালফার ডাই অক্সাইড ব্যবহারে বাষ্পশোধন করা হয় ও পরিবহনের সময় কার্টনে সালফার ডাই অক্সাইড প্যাড ব্যবহার করা হয়।

অনেকেই আঙ্গুরের গায়ে বা ত্বকের বাইরের অংশে সাদা পাউডার জাতীয় পদার্থ দেখে কীটনাশক ব্যবহার করা হয়েছে বলে মনে করে অজানা অস্বস্তিতে ভোগেন। প্রকৃতপক্ষে আঙ্গুরের গায়ে সাদা পাউডার জাতীয় যে পদার্থ দেখা যায়, তা একেবারেই প্রাকৃতিক এবং তা ‘ওল্ড ডাস্ট’, ‘ব্লুম বা ব্লাস’, এসিডোফাইলাস (ব্যাকট্রেরিয়াম) নামে পরিচিত, যা একটি প্রাকৃতিক প্রলেপ।এটা আর্দ্রতা রোধসহ আঙ্গুরকে পচন ও পোকা-মাকড়ের হাত থেকে রক্ষা করে। তাছাড়া মদ তৈরির প্রাথমিক পর্যায়ে ফারমেন্টশেনে সহায়তা করে। এ ধরনের ব্লাম পাম জাতীয় ফলেও দেখা যায়।

সবজিতে কীটনাশকের ব্যবহার

একদিকে আমাদের দেশে দিনদিন কৃষিজমি হ্রাস পাচ্ছে, অপরদিকে জনসংখ্যার চাপ। জনসংখ্যা বৃদ্ধি ও নিয়ন্ত্রিত জীবনযাপনের চাহিদা মেটানোর লক্ষ্যে বহুমাত্রায় বেড়েছে শাক-সবজির চাহিদা। আবার চাহিদা বৃদ্ধির সাথে উৎপাদন বাড়ানোর লক্ষ্যে শাক-সবজির ফলন বাড়াতে অনিয়ন্ত্রিতভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে নানাবিধ কীটনাশক। মাত্রাতিরিক্ত কীটনাশকের ব্যবহার একদিকে পরিবেশের অনেক প্রয়োজনীয় কীটপতঙ্গ ধ্বংস করে পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলছে, ঠিক তেমনি কীটনাশকের অবশিষ্টাংশ মানুষের দেহে প্রবেশের মাধ্যমে মানবদেহের বিভিন্ন ক্ষতিসাধন করছে বলে জনমনে এক ধরনের আতঙ্ক বিরাজ করছে।

গবেষণা ফলাফলে দেখা যায় যে, বিভিন্ন সবজি উৎপাদনের ক্ষেত্রে প্রয়োগকৃত বালাইনাশকের বিষক্রিয়া বিষয়ে অহেতুক আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই। কারণ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ফসলে প্রয়োগকৃত বিভিন্ন কীটনাশক/বালাইনাশক/ছত্রাকনাশক সময় অতিবাহিত হওয়ার সাথে সাথে স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়ায় বিলুপ্ত হয়ে যায়। দেখা গেছে যে, সবজি ভালোভাবে ধৌত করলেও গড়ে ১০০০ সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় রান্না করা হলে ২/১টি ব্যতিক্রম ছাড়া বেশিরভাগ কীটনাশকের মাত্রা সহনীয় মাত্রার মধ্যে চলে আসে বা কীটনাশকের অবশিষ্টাংশ সম্পূর্ণভাবে দূরীভূত হয়। তবে খাদ্য হিসেবে ব্যবহার বা গ্রহণের পূর্বে ভোক্তাদের অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। যেমন-

১. বেশিরভাগ কীটনাশক পানিতে দ্রবণীয়, তাই রান্নার পূর্বে চলমান বা প্রবাহমান পানিতে এবং অথবা পানি কয়েকবার অদল-বদল করে শাক-সবজি ধৌত করে নিতে হবে;
২. যে সমস্ত ফল/সবজি ফাঙ্গাস বা ছত্রাক দ্বারা আক্রান্ত তা ক্রয় করা থেকে বিরত থাকতে হবে বা বা ফেলে দিতে হবে; তাছাড়া রাসায়নিকের তীব্রতা রোধে পাতাজাতীয় সবজির বাইরের পাতা ফেলে দিতে হবে। যেমন: বাঁধাকপি, লেটুস ইত্যাদি;
৩. অধিকতর সতর্কতাস্বরূপ বাজার বা বাগান হতে সংগ্রহকৃত যেকোনো সবজি বা ফসল ইত্যাদি খাদ্য হিসেবে গ্রহণের পূর্বে সম্ভব হলে বাজার হতে ফল/সবজি ক্রয়ের পর ১-২ দিন সাধারণ তাপমাত্রায় খোলা জায়গায় রেখে দিয়ে অতঃপর খেতে হবে।
৪. বেশিরভাগ কীটনাশক জটিল যৌগের সংমিশ্রণ, ফলে উচ্চতাপে স্থায়ী হয় না; সে জন্য কীটনাশক ঝুঁকি এড়াতে ১০০০ সেন্টিগ্রেড বা এর উপরের তাপমাত্রায় রান্না করা নিশ্চিত করতে হবে।

শেষ কথা

প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশের রয়েছে দীর্ঘ অভিজ্ঞতা। অতীতে যেমনি প্রতিটি দুর্যোগ মোকাবিলায় বাংলাদেশ সক্ষমতা দেখিয়েছে। তাই এবারও নিঃসন্দেহে বলা যায়, কৃষিপ্রিয় প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনায় ও সময়ের সাহসীযোদ্ধা সুযোগ্য কৃষিমন্ত্রীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে কৃষি আবার প্রাণ ফিরে পাবে। ইতোমধ্যে কৃষিমন্ত্রীর সার্বক্ষণিক তদারকি ও সময়মতো বিভিন্ন পদক্ষেপের ফলে হাওরের ধানকাটাসহ অন্যান্য বিষয় দ্রুত সমাধান সম্ভব হয়েছে। আশা করা যায়, সময়মতো সার, বীজ ও প্রণোদনা যথাসময়ে যথাযথভাবে কৃষকদের কাছে পৌঁছানো গেলে দেশের কৃষি ও কৃষক আবার ঘুরে দাঁড়াবে। দেশের অর্থনীতিসহ খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে। এ ব্যাপারে সরকার দৃঢ়প্রতিজ্ঞ।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

ফুল

যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে

যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে
যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে

দেখতে অনেকটা গোলাপের মতো মনোমুগ্ধকর ফুল নন্দিনী। ডগাসহ টিউলিপের মতো দেখায়। বিদেশে ৪৫ রঙের ফুল থাকলেও বাংলাদেশে ১৪ রংয়ের ফুল ফোটানো সম্ভব হয়েছে। অন্য ফুল যেখানে ফুলদানিতে রাখলে সর্বোচ্চ ২-৩ দিন পরই পাপড়ি ঝরে পড়ে; সেখানে নন্দিনী ফুলদানিতে ১০-১৫ দিন রাখলেও পাপড়ি ঝরে না। পানিতে সামান্য সুক্রোজ মিশিয়ে দিলে ২০-২৫ দিন সতেজ থাকে। এ ছাড়া নন্দিনী ফুলের কলি ফুলদানিতে রাখলে ধীরে ধীরে ফোটে এবং রঙিন হয়।

বিদেশে ‘সিলিয়েন্থাস’ নামে পরিচিত এ বিশেষ ফুলটির ব্যাপক অর্থনৈতিক সম্ভাবনা রয়েছে। কিন্তু সরকারি সহযোগিতার অভাবে ফুলটি কৃষক পর্যায়ে পৌঁছতে পারেনি।

যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে
যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে

শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যানতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক ড. জামাল উদ্দিন দীর্ঘ ২০ বছর এ ফুল নিয়ে গবেষণা করেছেন। তিনিই বাংলাদেশে প্রথম নন্দিনীর চাষ করতে সফল হন। যেহেতু এ ফুলের বীজ অনেক ছোট এবং বাংলাদেশের আবহাওয়া এ বীজ অঙ্কুরোদগমের জন্য সহায়ক নয়। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের সহায়তায় একটি কক্ষে আবহাওয়া নিয়ন্ত্রণ করে বীজ অঙ্কুরিত করতে সফল হন তিনি।

নন্দিনী ফুলের অর্থনৈতিক গুরুত্ব বলতে গিয়ে এ বিজ্ঞানী জানান, একটি ফুলের মূল্য নির্ধারিত হয় এর রং এবং স্থায়িত্বের ওপর। এক্ষেত্রে নন্দিনী ফুলের স্থায়িত্ব অন্য যে কোন ফুল থেকে বেশি। যেখানে প্রতিটি গোলাপের দাম ৫-১০ টাকা, সেখানে প্রতিটি নন্দিনীর দাম ১৪০-১৫০ টাকা। তাছাড়া বাজারে প্রচলিত গোলাপ শীতকালে পাওয়া যায়। কিন্তু নন্দিনী ফুল বারো মাসই চাষ করা যায়। একটি গাছ থেকে ৭০-৮০টি ফুল পাওয়া যায়।

যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে
যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে

গবেষণার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘এ ফুলের বীজ খুব ছোট হওয়ায় বিশেষ পদ্ধতিতে অঙ্কুরোদগম করতে হয়। অঙ্কুরোদগমে সময় লাগে সাধারণত ১০-১২ দিন। চারায় চার জোড়া পাতা গজানোর পর তা মাঠে রোপণ করা যায়। আর চার জোড়া পাতা হতে ৮০-৯০ দিন সময় লাগে।’

তিনি আরও বলেন, ‘অঙ্কুরোদগম হয়ে গেলে স্বাভাবিক পরিচর্যায় বড় হয়। বীজ থেকে চারা উৎপাদনে দীর্ঘ সময় ও কারিগরি দক্ষতার প্রয়োজন হয়। জনবলের অভাবে যথেষ্ট বীজ থাকলেও চারা উৎপাদন করতে পারছি না।’

যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে
যে ফুল বেশি দিন ফুলদানিতে সতেজ থাকে

কৃষক পর্যায়ে বাণিজ্যিকভাবে নতুন ফুল সম্প্রসারণের উদ্যোগ হিসেবেই যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংগঠন ইউএসএইডের সহায়তায় যশোরের ২০ জন কৃষককে প্রশিক্ষণ দিয়ে চারা দেওয়া হয়। তারা এ ফুল চাষ করে লাভবান হয়েছিলেন। তবে পরবর্তীতে সরকারি উদ্যোগের অভাবে কৃষক পর্যায়ে চারা পৌঁছানো সম্ভব হয়নি।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

© স্বত্ব দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেড দ্বারা পরিচালিত - ২০২০
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com