আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

দৈনন্দিন

অনিশ্চিত জীবন, উপকূল ছাড়ছে মানুষ

বারবার দুর্যোগে জীবন-জীবিকা বিপর্যস্ত। বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় বসতবাড়ি হারানো মানুষ এলাকা ছেড়ে আশ্রয় নিচ্ছে শহরে।

পড়ন্ত বিকেলে সুন্দরবনের কাছে শাকবাড়িয়া নদীর তীরে একা বসে ছিলেন প্রমীলা মণ্ডল। দৃষ্টি নিজের পুরোনো বসতভিটার দিকে, যেটি ঘূর্ণিঝড় আম্পানে বাঁধ ভেঙে যাওয়ার পর পানিতে তলিয়ে যায়।

৪৫ বছর বয়সী এই নারী জানান, তাঁর জীবনেই বহুবার নিজেদের ঘর ভাঙতে দেখেছেন। কয়বার—সেটি সুনির্দিষ্ট করে বলতে পারলেন না। গত মে মাসে আম্পানের পর বসতবাড়ি হারিয়ে একটি ঘেরের পাশে ঘর তুলে বাস করছে তাঁর পরিবার। আবার ঝড় এলে সেটিও থাকবে কি না, সেই শঙ্কা উঠে এল তাঁর কথায়।

প্রমীলা খুলনার কয়রা উপজেলার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের আংটিহারা গ্রামের বাসিন্দা। তিনি যে বাঁধটির ওপর বসে ছিলেন, সেটি নতুন করে তৈরি। ৩০০ গজের মতো দূরে আরেকটি বাঁধ ছিল, সেটির ধারেই ছিল তাঁদের বাড়ি। সেখানে এখনো বসতভিটার কিছু চিহ্ন রয়ে গেছে, যা ভাটার সময় দেখা যায়।বিজ্ঞাপন

উপকূলবাসীর এলাকা ছাড়ার প্রধান কারণ বসবাসের অনিশ্চয়তা। টেকসই বাঁধ হলে মানুষ অন্তত নিজের ভিটায় মাথা গোঁজার ঠাঁই পাবে। সেই নিশ্চয়তা পেলে এলাকা ছেড়ে অন্য কোথাও যাওয়ার প্রবণতা কমে যাবে।

আইনুন নিশাত, ইমেরিটাস অধ্যাপক, ব্র্যাকবিশ্ববিদ্যালয়

দেড় দশকে ঘূর্ণিঝড় সিডর, আইলা, মহাসেন এবং সর্বশেষ আম্পানের আঘাতে প্রমীলাদের মতো উপকূলীয় এলাকার মানুষের জীবন ও জীবিকা বিপর্যস্ত হয়েছে। একসময়ের সম্ভ্রান্ত পরিবারগুলো জমি ও সম্পদ হারিয়ে দরিদ্র হয়েছে। গত ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে ৩ অক্টোবর পর্যন্ত খুলনা ও বাগেরহাটের উপকূলীয় এলাকার অন্তত ১০টি ইউনিয়নের ৩০টির বেশি গ্রাম ঘুরে দেখা যায় মানুষের জীবনসংগ্রামের চিত্র। জনপদে ঘোরার সময় প্রায় সবার মুখেই শোনা গেল এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের কথা। স্থানীয়রা আরও জানান, দুর্যোগে টিকতে না পেরে অনেকে এলাকা ছেড়েছেন। অনেকে ছাড়ার পথে রয়েছেন।

প্রমীলা মণ্ডলের সঙ্গে আলাপ হয় গত ২৮ সেপ্টেম্বর। তিনি যে বাঁধটির ওপর বসে ছিলেন, তার পাশেই গোলপাতা আর বাঁশ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে ছোট ছোট কুঁড়েঘর। কিছু কিছু আবার পাকা। দেখেই বোঝা যায় ঘরগুলো নতুন। সেগুলো আম্পানের আঘাতের পর তৈরি হয়েছে। মিঠাপানির কারণে আংটিহারা গ্রামের চারপাশে গাছপালা ভরে থাকায় এলাকায় প্রকৃতির রুক্ষতা নেই। তবে ভিন্ন চিত্র আশপাশের অনেক গ্রামে। লবণাক্ততার কারণে ওই গ্রামগুলোর মানুষকে খাওয়ার পানির জন্য রীতিমতো সংগ্রাম করতে হয়।

এলাকাবাসী জানান, নদীর পানিতে লবণ বেশি, তাই এলাকায় ধান বা অন্য ফসল খুব একটা হয় না। মাছের ঘের বেশি। কিন্তু সেখানে কর্মসংস্থান হয় খুব কম মানুষেরই। বেশির ভাগ মানুষের প্রধান জীবিকা সারা দিন কোমরপানিতে ডুবে রেণুপোনা সংগ্রহ, মাছ ও কাঁকড়া ধরা।

দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শামসুর রহমান বলেন, ইউনিয়নটির তিন দিক ঘিরে রয়েছে সুন্দরবন। তাই যেকোনো ছোট-বড় প্রাকৃতিক দুর্যোগ সবার আগে আছড়ে পড়ে ওই ইউনিয়নে। তিনি বলেন, দক্ষিণ বেদকাশীতে মোট সাড়ে ২৭ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ রয়েছে। আইলার সময় বাঁধ ভেঙে চার বছরের বেশি সময় পানিবন্দী থাকতে হয়েছে মানুষকে। তখন মাত্র ১০ শতাংশের মতো ঘরবাড়ি টিকে ছিল। তিনি আরও বলেন, আইলার পর আড়াই হাজারের মতো পরিবারকে এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে হয়েছে।বিজ্ঞাপন

জোয়ারে জীবন

কয়রা উপজেলার উত্তর বেদকাশী ইউনিয়নের কাঠমারচর, কাশিরহাটখোলাসহ অন্তত চারটি গ্রামে মানুষের জীবন জোয়ার-ভাটার ওপর নির্ভরশীল। গ্রামগুলোর সঙ্গে সড়কপথের যোগাযোগব্যবস্থা প্রায় বিচ্ছিন্ন। জোয়ারের সময় পানি বাড়লে নৌকা নিয়ে চলাচল করতে হয় তাদের। নদীর পানি বাড়ার আগেই রান্না ও প্রকৃতির ডাকে সাড়া দেওয়ার কাজ সারতে হয়।

প্রতাপনগর বাজার ও ইউনিয়ন পরিষদ থেকে একটি পাকা সড়ক সাতক্ষীরা সদরের দিকে চলে গেছে। একটি জায়গায় (কালভার্ট এলাকা) সড়কটি ভেঙে নদীর পানি প্রবেশ করছে। চলাচলের একমাত্র উপায় ট্রলার বা নৌকা। পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা বলছেন, জোয়ার-ভাটা আসা-যাওয়া করায় ভাঙা বাঁধ এলাকায় গভীর খালের সৃষ্টি হয়েছে। বর্ষা মৌসুম শেষ না হওয়া পর্যন্ত মেরামত করা সম্ভব নয়।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক দিলীপ কুমার দত্ত প্রথম আলোকে বলেন, বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকার ভূমিরূপ একেবারেই নতুন। পানিতে লবণের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় মাটির কণাগুলো একে অপরের সঙ্গে আঁকড়ে ধরে রাখার ক্ষমতা হারাচ্ছে, অর্থাৎ ঝুরঝুরে হয়ে যাচ্ছে। ফলে ভাঙন বাড়ছে, বাঁধগুলো টিকছে না। পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্য অবাধ জোয়ার-ভাটার (টিআরএম) মাধ্যমে ভূমি উঁচু করার সুপারিশ করেন তিনি।বিজ্ঞাপন

আইলায় বাঁধ ভেঙে চার বছরের বেশি সময় পানিবন্দী থাকতে হয়েছে মানুষকে। আইলার পর আড়াই হাজারের মতো পরিবারকে এলাকা ছেড়ে অন্যত্র চলে যেতে হয়েছে।

শামসুর রহমান, চেয়ারম্যান, দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়ন পরিষদ

ভালো নেই এলাকাছাড়া মানুষেরা

ঘূর্ণিঝড় আইলার পর বসতবাড়ি হারানো দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের জোড়সিং গ্রামের বাসিন্দা মো. হামিদ এক বছর বাঁধের ওপর টংঘর করে বসবাস করেন। এরপর পরিবার নিয়ে খুলনায় চলে যান। বর্তমানে খুলনা শহরে ভাড়া বাসায় থাকেন। হামিদ রিকশা চালান। স্ত্রী অন্যের বাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করেন। তিনি বলেন, ওই সময় কয়রা থেকে অনেক পরিবার খুলনায় চলে আসে। তাঁদের বেশির ভাগই রিকশা চালান ও দিনমজুরি করেন।

দাকোপের কালাবগি গ্রামের ফকিরের কোনাপাড়ার শেষ মাথায় বসবাস করেন আবুল হোসেন গাজী ও তাঁর বড় ভাই আবু বক্কর গাজী। তাঁদের মা-বাবা বেঁচে নেই। তবে দাদি ও এক প্রতিবন্ধী চাচা তাঁদের সঙ্গে থাকেন। দুই ভাই যেখানে বাস করেন, সেটি মূল ভূখণ্ড থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন একটি দ্বীপ। ওই দ্বীপের এক পাশে শিবসা ও অন্য পাশে সুতারখালী নদী। অন্য দুই পাশে সুন্দরবন। তাঁদের চলাচলের একমাত্র উপায় নৌকা। যদিও আম্পানের আগে এমনটি ছিল না। আম্পানের তাণ্ডবে হঠাৎ করেই বিচ্ছিন্ন হয় গেছে সেটি।

নৌকা নিয়ে সেখানে গিয়ে দেখা যায়, ঘরসহ ছোট উঠানের চারপাশে জোয়ারের পানি থইথই করছে। নদীতে ছোট একটি নৌকা। উঠানে শুকাতে দেওয়া হয়েছে মাছ ধরার জাল। শৌচাগার বলতে যা বোঝায়, তা হলো উঠান থেকে কিছুটা দূরে নদীর মধ্যে ঝুলন্ত একটি গোলপাতার ঘর। সেখানে যেতে বাঁশ দিয়ে সাঁকো তৈরি করা হয়েছে। উঠানের এক কোনায় কয়েকটি বড় বড় প্লাস্টিকের ড্রামে খাওয়ার পানি রাখা।

আবুল হোসেনের দাদি কুলসুম বেগমের বয়স প্রায় ৮০ বছর। তিনি বলেন, প্রায় ২৫ বছর আগেও ওই এলাকায় তাঁদের ১২ বিঘা জমি ছিল। চিংড়ি চাষ ও নদীতে মাছ ধরে খুব ভালোভাবেই সংসার চলে যেত তাঁদের। একসময় ভাঙন শুরু হলো। এখন কোনোরকমে মাথা গোঁজার জন্য ২০ হাতের মতো জমি ৫ হাজার টাকায় কিনে বসবাস করছেন।

ওই এলাকার মানুষের সুপেয় পানির একমাত্র উৎস বৃষ্টি। বাড়িতে বাড়িতে প্লাস্টিকের ড্রাম থাকে। সেখানে বৃষ্টির পানি ধরে রাখা হয়। ফুরিয়ে গেলে অন্য জায়গা থেকে পানি কিনে আনতে হয় তাঁদের। চিকিৎসার কোনো ব্যবস্থা নেই। হঠাৎ কেউ অসুস্থ হয়ে গেলে দ্রুত হাসপাতালে নেওয়া যায় না। দ্রুতগতির একমাত্র বাহন ট্রলার। এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ওই এলাকার একমাত্র প্রাথমিক বিদ্যালয়টিও নদীতে বিলীন হওয়ার পথে। ভেঙে পড়ছে মসজিদও।বিজ্ঞাপন

বন্দরের জনপদেও ভাঙনের থাবা

খুলনার কয়রা ও দাকোপ হয়ে এবার রওনা হলাম উপকূলের আরেক জেলা বাগেরহাটের দিকে। সেখানকার মোংলা উপজেলায় দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সমুদ্রবন্দরটি রয়েছে। ওই জনপদের চিলা ইউনিয়নের চিলাবাজারের একটি অংশ পশুর নদে বিলীন হয়েছে। আশপাশের বিভিন্ন এলাকায়ও ভাঙনের মুখে রয়েছে। অনেকে নদের তীরে কোনোরকমে ঘর করে বসবাস করছেন। আবার অনেকে এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের তথ্যানুযায়ী, গত ২০ বছরে কালাবগি গ্রামের প্রায় আধা কিলোমিটার এলাকা নদে বিলীন হয়েছে। গুনারী গ্রামের কিছু অংশ শিবসা নদীতে চলে গেছে। এ ছাড়া কয়রা, শ্যামনগর, আশাশুনি মোংলা এলাকার বাঁধ ভেঙেছে ৫০ থেকে ৩০০ মিটারের মতো। নদীবেষ্টিত অন্যান্য এলাকায়ও ভাঙন অব্যাহত রয়েছে।

কাজের খোঁজে মানুষ

কয়রা থেকে খুব সহজে মহারাজপুর হয়ে দশাহালিয়া খেয়াঘাট পার হয়ে সাতক্ষীরার আশাশুনি উপজেলায় যাওয়া যায়। ৩০ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে আটটার দিকে সেখানে গিয়ে দেখা যায়, চারজন মানুষ খেয়া পার হওয়ার জন্য অপেক্ষারত। তাঁদের একজন বাবুল গাজীর (২৩) হাতে একটি মাটি কাটার কোদাল। বাড়ি উপজেলার প্রতাপনগর ইউনিয়নের নাকলা গ্রামে। কয়েক দিন আগে কাজের সন্ধানে খুলনায় গিয়েছিলেন। না পেয়ে আবার বাড়ি ফিরেছেন।

বাবুল গাজী বলেন, ‘খুলনায় এখন দিনমজুরের কাজ অনেক কমে গেছে। কয়েক দিন অপেক্ষা করেও কোনো কাজ না পাওয়ায় ফিরে আসতে হয়েছে। অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে সাগরে মাছ ধরার অনুমতি দেওয়া। এখন মাছ ধরার দলের সঙ্গী হওয়ার চিন্তায় আছি।’

এলাকায় কর্মসংস্থান না থাকায় ইটভাটায় কাজ করতে যাওয়ার প্রস্তুতি নিতে দেখা যায় কয়রার বিভিন্ন এলাকার মানুষকে। বেশির ভাগ কিশোর ও যুবক প্রতিবছরই ইটভাটায় কাজ করতে যান। এমনকি অনেকেই পরিবার নিয়ে চলে যান ইটভাটায়। অনেকে আগেই সরদারের কাছ থেকে আগাম টাকা নিয়ে সংসার চালান।বিজ্ঞাপন

‘দরকার টেকসই বাঁধ’

উপকূলের মানুষের বেঁচে থাকার সমাধান খুঁজতে গিয়ে যে বিষয়টি সবার আগে উঠে এসেছে তা হলো টেকসই ও স্থায়ী বেড়িবাঁধ। ওই সব এলাকার লোকজন বলছেন, তাঁরা জন্মগতভাবেই প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করতে শিখেছেন। এ কারণে বড় ঝড়বৃষ্টি তাঁদের দমিয়ে রাখতে পারে না। কিন্তু নদীর বাঁধ ভেঙে গেলে তাঁরা মনোবল হারিয়ে ফেলেন। কারণ, এটি তাঁদের সর্বস্বান্ত করে দেয়, এটি মোকাবিলার শক্তিও তাঁদের নেই।

নদী বিশেষজ্ঞ ও ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক আইনুন নিশাত মনে করেন, উপকূলবাসীর এলাকা ছাড়ার প্রধান কারণ বসবাসের অনিশ্চয়তা। টেকসই বাঁধ হলে মানুষ অন্তত নিজের ভিটায় মাথা গোঁজার ঠাঁই পাবে। সেই নিশ্চয়তা পেলে এলাকা ছেড়ে অন্য কোথাও যাওয়ার প্রবণতা কমে যাবে। আর উপকূল ঘিরে কর্মসংস্থান সৃষ্টির একটি সামগ্রিক পরিকল্পনা করতে হবে বলে তিনি মনে করেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন
মন্তব্য করুন

অনুগ্রহ করে মন্তব্য করতে লগ ইন করুন লগ ইন

Leave a Reply

দৈনন্দিন

বাঁশের যত পুষ্টিগুণ

চীনারা ঠিকই এর মর্ম জানে। তারা বাঁশের কোড়লকে “স্বাস্থ্যকর খাবারের রাজা” বলে জানে। দৈহিক সুস্থতায় এর কোনো জুড়ি নেই

সবচেয়ে লম্বা ঘাস, দ্রুত বর্ধনশীল চিরহরিৎ উদ্ভিদ হলো বাঁশ। গৃহস্থালির কাজে বাঁশের ব্যবহার সবারই জানা। কিন্তু সবার হয়ত জানা নেই যে, এটি অত্যন্ত সুস্বাদু এবং উপকারী খাবারও? বাঁশের কোড়ল পাহাড়ি আদিবাসীদের একটি অতি পরিচিত ও উপাদেয় খাদ্য।

সদ্য অঙ্কুরিত বাঁশের চারাকে কোড়ল বলা হয়। হালকা হলুদ এবং সবুজের মিশ্রণে এটি দেখতেও বেশ। কোড়ল খুব নরম ও আর্দ্র। বাংলাদেশে সিলেট ও চট্টগ্রামের পাহাড়ি আদিবাসীরা এটি বেশি খেয়ে থাকেন। তবে ভারতের মেঘালয়, আসাম ও হিমাচল প্রদেশ, নেপাল, ভুটান, চীন, কোরিয়া ও জাপানে বাঁশের কোড়ল খুব জনপ্রিয়।            

কোড়লের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে আমরা অতটা পরিচিত না হলেও চীনারা ঠিকই এর মর্ম জানে। তারা বাঁশের কোড়লকে “স্বাস্থ্যকর খাবারের রাজা” বলে জানে। দৈহিক সুস্থতায় এর কোনো জুড়ি নেই।

বাঁশের পুষ্টিমান:

পানি: ৮৮ – ৯৩%

প্রোটিন: ১.৪ – ৫%

চিনি: ০.৭৮ – ৫.৮৬%

চর্বি : ০.২৫ – ০.৯৫%

সেলুলোজ: ০.৬০ – ১.৩৪%

খনিজ পদার্থ: ১.১%

এছাড়াও আছে প্রচুর পরিমাণে বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন।  

বাঁশের কোড়লের উপকারিতা:

হৃদরোগের ঝুঁকি হ্রাস: মানবদেহে হৃদরোগের অন্যতম কারণ রক্তে কোলেস্টেরলের অত্যাধিক মাত্রা। তবে নিয়মিত বাঁশের কোড়ল খেলে দেহে কোলেস্টেরলের ভারসাম্য বজায় থাকে।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ: কচি বাঁশ দেহে উচ্চরক্তচাপ কমিয়ে আনে। এর পাশাপাশি এটি ক্যান্সারের ঝুঁকিও কমায়।

কোষ্ঠকাঠিন্য থেকে মুক্তি: কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে বাঁশের কোড়ল দারুণ কার্যকরী একটি খাবার। যারা এ সমস্যায় ভুগছেন তারা প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় এটা রাখুন।

এছাড়াও কোড়ল খেলে ডায়াবেটিস, হাঁপানী, মৃগী রোগ, মূর্ছা ও তীব্র জ্বরের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। এর কোনো খারাপ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। তাই নিশ্চিন্তে খেতে পারেন এই উদ্ভিদ।          

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

ফল খাওয়ার সঠিক সময়

রাতে খাওয়ার পর ফল না খাওয়াই ভালো

ফল খাওয়া নিয়ে অনেকে অনেক কথা বলে থাকেন। একেকজনের মত এক্ষেত্রে একেকরকম। অনেকে বলেন, খালি পেটে পানি, আর ভরা পেটে ফল খেতে হয়। অনেকে আবার বলেন, সন্ধ্যার আগেই ফল খেয়ে নেওয়া উচিত। এত মতের মধ্যে কোনটা মানবো আমরা? জেনে নেওয়া যাক পুষ্টিবিদদের পরামর্শ থেকে। 

পুষ্টি বিশেষজ্ঞদের কথায়, ফল হচ্ছে প্রচুর প্রাকৃতিক ভিটামিন, মিনারেল আর ফাইবারসমৃদ্ধ খাবার। প্লেটের অর্ধেকটা যদি ফল, আর অর্ধেকটা সবজিতে ভরা থাকে তাহলে এমনিতেই পেট ভরবে। তাই ভরা পেটে না খালি পেটে ফল খাবেন সেই দ্বন্দ্বও থাকবে না।

এছাড়া পুষ্টিবিজ্ঞানীদরা দাবি করেন, খাওয়ার আধঘণ্টা আগে যদি কয়েক টুকরো ফল খেয়ে নেওয়া যায় তাহলে বেশি খাওয়ার সমস্যা থেকে আপনি রেহাই পাবেন। বাঁচবেন স্থূলতার সমস্যা থেকেও। তবে যেসব ফলে শর্করা বা চিনির মাত্রা বেশি, সেগুলো দিনের মূল খাবারের সময় গ্রহণ করা উচিৎ নয়। এতে হজমের সমস্যা দেখা দিতে পারে। সবসময়েই ফল ও মূল খাবার খাওয়ার মধ্যে কমপক্ষে আধঘণ্টা ব্যবধান রাখা উচিৎ। নাহলে খাবার বা ফল, কোনোটাই হজম হবে না। কারণ, ফল নিজেই একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ খাবার।

পুষ্টিবিজ্ঞানীদের মতে, সকালে ঘুম থেকে উঠে একগ্লাস পানি খাওয়ার পর ফল খেলে শরীর দূষণমুক্ত হবে, হজম ক্ষমতা বাড়বে, আরও বেশি পুষ্টি পাবেন আপনি। তবে সাধারণত, সকালের নাস্তা আর দুপুরের খাওয়ার মাঝের সময়ে ফল খাওয়া যেতে পারে। সেইসঙ্গে বিকাল বা সন্ধ্যায় স্ন্যাকস হিসেবেও ফল বেছে নেওয়া যেতে পারে। 

এছাড়া খাওয়ার আগে কয়েক টুকরো ফল খেলে পাকস্থলীতে ফাইবার যায়, যা অন্য খাবার হজম করতে সাহায্য করে। আবার পেটও ভর্তি রাখে। বেশি ফাইবারযুক্ত ফল হচ্ছে আপেল, নাশপাতি, কলা।

তবে রাতে খাওয়ার পর ফল না খাওয়াই ভালো। কারণ, ফলের মধ্যে থাকা চিনি শরীরে বাড়তি এনার্জি এনে ঘুমের পরিমাণ কমিয়ে দেয়। তাই ঘুমাতে যাওয়ার অন্তত ঘণ্টা দুই আগে ফল খেতে পারেন।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

দিনে ৮ ঘণ্টা ঘুমালে কী হয়?

ঘুমানোর সময় আমরা শরীরে লেপটিন নামের একটি হরমোন তৈরি করি

সম্প্রতি এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, নিয়মিত আট ঘণ্টা ঘুমানো আসলে কোনো বিলাসিতা নয়, বরং স্বাস্থ্যকর রুটিনের একটি অপরিহার্য অংশ। অপর্যাপ্ত ঘুম আপনার মানসিক এবং শারীরিক স্বাস্থ্যকে মারাত্বকভাবে প্রভাবিত করতে পারে। চলুন দেখে নেওয়া যাক আপনি যদি কম ঘুমান তাহলে কী ঘটে থাকে শরীরে। 

দ্রুত শিখতে পারেন নতুন কিছু

পর্যাপ্ত ঘুমের পর সকালে আপনার দেহ ও মন দুটিই বেশ ফুরফুরে থাকে। আপনি যখন নতুন কিছু শেখার চেষ্টা করেন তা খুব দ্রুতই আয়ত্ত করতে সক্ষম হন। বিজ্ঞানিরা বলছেন, ঘুমের মধ্যে আমরা নতুন তথ্য প্রক্রিয়া করি। আপনি যদি পর্যাপ্ত না ঘুমান, তাহলে এটি আপনা্র ওপর খুব খারাপ প্রভাব ফেলে। যার কারণে নতুন কোনো দক্ষতায় মনোনিবেশ করতে অথবা নতুন কিছু মনে রাখার ক্ষেত্রে আপানাকে বেশ বেগ পেতে হতে পারে। 

সচেতনতা বৃদ্ধি করে

নিয়মিত পর্যাপ্ত ঘুমের ফলে আপনার মনোযোগ এবং সমস্যা সমাধানের দক্ষতা আরও বেশি সক্রিয়ভাবে কাজ করে। এটি স্পষ্টভাবে কোনো চিন্তা করতে বা দ্রুত সিদ্ধান্ত গ্রহণে সাহায্য করে। 

ওজন নিয়ন্ত্রণ করে 

সমীক্ষায় প্রমাণিত হয়েছে, ঘুমানোর সময় আমরা শরীরে লেপটিন নামের একটি হরমোন তৈরি করি। এই হরমোন আমাদের শরীরকে বলে দেয়, এই মূহুর্তে আমাদের কতোটুকু খাবার গ্রহণের প্রয়োজন। আমরা যখন পর্যাপ্ত না ঘুমাই, তখন এই হরমোন তৈরির প্রক্রিয়া ভারসাম্যহীন হয়ে পড়ে এবং আমাদের ক্ষুধা বাড়িয়ে তোলে। ফলে আমরা মাত্রাতিরিক্ত খাবার গ্রহণ করি এবং আমাদের ওজন বেড়ে যেতে থাকে। 

নিরাপদ ড্রাইভ করা 

দেখা গেছে, চালকদের মধ্যে পর্যাপ্ত ঘুমের অভাব রয়েছে তারা অ্যালকোহল গ্রহণকারী চালকদের মতো আচরণ করছেন। অপরদিকে যারা আট ঘণ্টা ঘুমিয়ে গাড়ি চালাচ্ছেন, তারা বেশ নিরাপদে রয়েছেন। 

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

রক্তে চর্বি জমতে দিলেই হয় স্ট্রোক

বছরে অন্তত একবার লিপিড প্রোফাইল টেস্ট নামে পরীক্ষার মাধ্যমে রক্তের চর্বি পরিমাপ করাতে হবে

যুগের সাথে পাল্লা দিয়ে যেন সমান হারে বেড়েই চলছে অসুখ-বিসুখ। তার ওপর আমাদের দেশের বেশিরভাগ মানুষই তেমন স্বাস্থ্য সচেতন নন। কিন্তু ক্ষতিকর ও ভয়াবহ কিছু রোগে আশঙ্কা থাকে প্রানহানির। এসব রোগের মধ্য অন্যতম স্ট্রোক। 

স্ট্রোকের কারণ হলো রক্তে জমে থাকা চর্বি। আর রক্তে চর্বির পরিমাণ বেড়ে গেলেই তা চিন্তার ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। রক্তে চর্বির পরিমাণ বাড়ার প্রধান কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে- অতিরিক্ত চর্বিজাতীয় খাবার গ্রহণ এবং ব্যায়াম না করা। 

চিকিৎসকরা বলেন, রক্তে চর্বি বেশি হলে ধমনীর গায়ে সেগুলো জমা হতে থাকে। ফলে ধমনী ক্রমশঃই সরু হতে থাকে। ধমনী সরু হয়ে গেলে রক্তের সঞ্চালনও সীমিত হতে থাকে। কখনো কখনো রক্ত সঞ্চালন সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যেতে পারে। এই বন্ধ হওয়া যদি হার্টের করোনারি ধমনীতে হয় তখন দেখা দেয় হার্ট অ্যাটাক। হার্ট অ্যাটাকের কারণে বিভিন্ন জটিলতাসহ তাৎক্ষণিক মৃত্যুও ঘটতে পারে। আর যদি মস্তিষ্কের মধ্যে এই ঘটনা হয় তবে তাকে বলা হয় স্ট্রোক। যেহেতু চর্বির আধিক্যের কারণেই বিভিন্ন জটিলতা ঘটে তাই চর্বি জাতীয় খাবার গ্রহণ এবং শরীরের বাড়তি চর্বির ব্যাপারে অবশ্যই সচেতন হতে হবে।

এক্ষেত্রে সমাধান হতে পারে প্রচুর টাটকা ফলমূল ও শাকসবজি খাওয়া। কমিয়ে দিতে হবে তেলে ভাজা খাবার। বছরে অন্তত একবার লিপিড প্রোফাইল টেস্ট নামে পরীক্ষার মাধ্যমে রক্তের চর্বি পরিমাপ করাতে হবে। 

আমাদের রক্তে বিভিন্ন রকমের চর্বি থাকে। এর মধ্যে আছে ট্রাইগ্লিসারাইড, কোলেস্টেরল, এলডিএল ও এইচডিএল। রক্তে এসবের নির্দিষ্ট মাত্রা আছে। প্রতি বছর পরীক্ষা করে দেখতে হবে এই মাত্রা স্বাভাবিক আছে কি না। এগুলোর আদর্শ মাত্রা হচ্ছে   ট্রাইগ্লিসারাইড ১৫০ মিলি গ্রামের কম,  কোলেস্টেরল ২০০ মিলি গ্রামের কম, এলডিএল ১০০ মিলি গ্রামের কম এবং এইচডিএল ৪০ মিলিগ্রামের বেশি।

মাত্রাধিক্য দেখা দিলেই স্ট্রোক, উচ্চ রক্তচাপ, ক্যানসার, হৃদরাগ, ফ্যাটি লিভারসহ নানারকম রোগ দেখা যায়। তাই সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই। আবার হোটেল-রেস্টুরেন্টের খাবার, দাওয়াতের খাবারে প্রচুর তেল চর্বি থাকে। এসব বেশি খেলে রক্তের চর্বির পরিমাণ বেড়ে যায়।

এছাড়াও অনেক পরিবারে বংশানুক্রমিকভাবে বাড়তে থাকে চর্বির মাত্রা। মিষ্টি জাতীয় খাবার বেশি খেলেও রক্তে চর্বি বেড়ে যায়। স্ট্রোক এবং হৃদেরাগের হাত থেকে বাঁচতে অবশ্যই চর্বি গ্রহণ কমাতে হবে। তা না হলে দুর্ঘটনার আশংকা বাড়তেই থাকে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন

দৈনন্দিন

ওষুধ ছাড়াই দূর করুন গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা

চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঘন ঘন অ্যাসিড কমানোর ওষুধ খেলে তা আদতে ক্ষতিই করে

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় যারা ভোগেন তারা ভালোই জানেন বিষয়টি কতোটা অস্বিস্তিকর। একটু ভাজাপোড়া অথবা দাওয়াত-পার্টিতে মসলাযু্ক্ত খাবার খেলেই শুরু হয়ে যায় গ্যাসের সমস্যা। এই সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পেতে সবাই হাত বাড়ান ওষুধের দিকে। এতে সাময়িক কিছুটা আরাম পাওয়া যায় বটে। তবে অভ্যাসটি কিন্তু আসলেই ক্ষতিকর।

চিকিৎসকদের মতে, শারীরিক প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ঘন ঘন অ্যাসিড কমানোর ওষুধ খেলে তা আদতে ক্ষতিই করে। এর প্রভাবে কোনো ভারী খাবার খেলে অ্যাসিডের অভাবে প্রোটিন হজমে বিঘ্ন ঘটে৷ এছাড়া খাবার নিচে নামার প্রক্রিয়া শ্লথ হয়ে-পেট ভার, খাবার গলায় উঠে আসা, বমি ও বদহজমসহ নানা সমস্যা দেখা দেয়। 

তবে সঠিকভাবে জীবন যাপন করলে গ্যাস্ট্রিক ধারে-কাছে ঘেঁষতেই পারে না। এবার জেনে নিন ওষুধ ছাড়া কীভাবে গ্যাসট্রিক দূর করবেন-

শসা: শসা পেট ঠাণ্ডা রাখতে অনেক বেশি কার্যকরী খাদ্য। এতে রয়েছে ফ্লেভানয়েড ও অ্যান্টি ইনফ্লেমেটরি উপাদান, যা পেটে গ্যাসের উদ্রেক কমায়।

দই: দই আমাদের হজম শক্তি বৃদ্ধিতে সহায়তা করে। এতে করে দ্রুত খাবার হজম হয়। ফলে পেটে গ্যাস হওয়ার ঝামেলা দূর হয়। 

পেঁপে: পেঁপেতে রয়েছে পাপায়া নামক এনজাইম, যা হজমশক্তি বাড়ায়। নিয়মিত পেঁপে খাওয়ার অভ্যাস করলেও গ্যাসের সমস্যা কমে।

কলা ও কমলা: কলা ও কমলা পাকস্থলির অতিরিক্ত সোডিয়াম দূর করতে সহায়তা করে। এতে করে গ্যাসের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এ ছাড়াও কলার সল্যুবল ফাইবারের কারণে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করার ক্ষমতা রাখে। সারাদিনে অন্তত দুটি কলা পেট পরিষ্কার রাখতে কাজ করে। 

আদা: আদা সব চাইতে কার্যকরী অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদানসমৃদ্ধ খাবার। পেট ফাঁপা এবং পেটে গ্যাস হলে আদা কুচি করে লবণ দিয়ে কাঁচা খান। দেখবেন গ্যাসের সমস্যা সমাধান হবে।

লবঙ্গ: একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে লবঙ্গে উপস্থিত একাধিক উপকারি উপাদান শরীরে প্রবেশ করার পর গ্যাসের প্রকোপ কমতে সময় লাগে না। তাই এবার থেকে একটু বেশি মাত্রায় খাবার খাওয়ার পর যদি বুক জ্বালা এবং ঢেকুর ওঠার মতো সমস্যা দেখা দেয়, তাহলে এক-দুটি লবঙ্গ খেয়ে ফেলতে ভুলবেন না। 

মৌরি: মৌরিতে থাকা বিশেষ এক ধরনের তেল পাকস্থলির কর্মক্ষমতাকে বাড়িয়ে তোলে। সেই সঙ্গে হজমে সহায়ক পাচক রসের ক্ষরণ এতটা বাড়িয়ে দেয় যে বদ-হজম এবং অ্যাসিড রিফ্লাক্সের মতো সমস্যা কমতে সময় লাগে না।

অ্যালোভেরা: অ্যালোভেরায় উপস্থিত নানাবিধ খনিজ একদিকে যেমন ত্বকের সৌন্দর্য বাড়ায়, তেমনি হজম ক্ষমতার উন্নতিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। শুধু তাই নয়, অ্যালোভেরায় উপস্থিত অ্যাসিড, স্টোমাকে তৈরি হওয়া অ্যাসিডের কর্যকারিতা কমিয়ে দেয়। ফলে অ্যাসিডিটির সমস্যা একেবারে নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।

পুদিনা পাতার পানি: এক কাপ পানিতে পাঁচটা পুদিনা পাতা দিয়ে ফুটিয়ে খান। পেট ফাঁপা, বমিভাব দূরে রাখতে এর বিকল্প নেই। 

মৌরির পানি: মৌরি ভিজিয়ে সেই পানি খেলে গ্যাস থাকে না।

রসুন: অ্যাসিডিটির সমস্যা কমাতে রসুনের কোনো বিকল্প হয় না বললেই চলে। এক্ষেত্রে এক কোয়া রসুন খেয়ে ফেললেই স্টমাক অ্যাসিডের ক্ষরণ ঠিক হতে শুরু করে। ফলে গ্যাস-অম্বল সংক্রান্ত নানা লক্ষণ ধীরে ধীরে কমে যেতে শুরু করে।

ডাবের পানি: ডাবের পানি খেলে হজম ক্ষমতা বাড়ে এবং সব খাবার সহজেই হজম হয়ে যায়। এছাড়াও গ্যাসের সমস্যা থেকেও মুক্তি পাওয়া যায় নিয়মিত ডাবের পানি খেলে। তাই সম্ভব হলে প্রতিদিন ডাবের পানি খাওয়ার অভ্যাস করুন। তাহলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে মুক্তি মিলবে।

সম্পূর্ণ খবরটি পড়ুন
বিজ্ঞাপন

শীর্ষ সংবাদ

সম্পাদক ও প্রকাশক: শাইখ সিরাজ
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। দা এগ্রো নিউজ, ফিশ এক্সপার্ট লিমিটেডের দ্বারা পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান। ৫১/এ/৩ পশ্চিম রাজাবাজার, পান্থাপথ, ঢাকা -১২০৫
ফোন: ০১৭১২-৭৪২২১৭
ইমেইল: info@theagronews.com, theagronewsbd@gmail.com